X
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

টানা হেঁচকি ওঠায় হাসপাতালে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

আপডেট : ১৫ জুলাই ২০২১, ০২:০৮
image

টানা হেঁচকি উঠতে থাকায় পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোকে হাসপাতালে নেওয়ার কথা জানিয়েছে তার কার্যালয়। ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তবে এই সময় তাকে হাসপাতালে রাখা হবে কিনা তা নিশ্চিত নয়। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ভালো বোধ করছেন আর তার অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

২০১৮ সালে নির্বাচনি প্রচারের সময় ছুরিকাঘাতে আহত হন জইর বলসোনারো। তার পর থেকেই উগ্র ডানপন্থী এই নেতার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে। ওই হামলায় গুরুতর আহত হলে বলসোনারোর শরীরের ৪০ শতাংশ রক্ত ঝরে যায়। ছুরিকাঘাতে আহত হওয়ার পর বেশ কয়েকটি সার্জারির মধ্য দিয়ে যেতে হয় তাকে।

চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন জইর বলসোনারোর হেঁচকি ওঠার সঙ্গে হয়তো তার পেটে সার্জারির সঙ্গে সম্পর্ক থাকতে পারে। সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট পেট ব্যাথাতেও ভুগছেন। তবে এই মাসের শুরুতে হওয়া দাঁতের সার্জারির সঙ্গে হেঁচকি ওঠার সম্পর্ক থাকতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রায় আড়াই বছর ধরে দায়িত্ব পালনের সময় নানা বিতর্কের মুখে পড়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো। করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলা নিয়েও চাপের মুখে পড়েন তিনি। ভ্যাকসিন ক্রয়ে দুর্নীতির অভিযোগে এই মাসের শুরুতে ব্রাজিলের রাস্তায় বিক্ষোভ করেছে লাখ লাখ মানুষ।

করোনাভাইরাসের মহামারিতে গত মাসে ব্রাজিলে মৃতের সংখ্যা পাঁচ লাখ ছাড়িয়ে যায়। যা যুক্তরাষ্ট্রের পর পৃথিবীতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বছর খানেক আগে নিজেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন বলসোনারো। পরে অবশ্য সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে ওঠেন।

/জেজে/

সম্পর্কিত

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শান্তিপূর্ণ উপায়ে আফগান পরিস্থিতি সামালের তাগিদ ব্রিকস নেতাদের

ব্রিকস সম্মেলনে গুরুত্ব পেলো আফগান পরিস্থিতি

নির্বাচনে পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:২৬

জার্মানির সংসদ নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিপর্যয়ের পর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেলের ইউনিয়ন শিবিরের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী আরমিন লাশেট প্রবল চাপের মুখে পড়েছেন। তার ‘উদ্ধত মনোভাবে’ অনেক নেতা বিরক্তি প্রকাশ করছেন। সমর্থন হারাচ্ছেন নিজ দলেই।

জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে’র খবরে বলা হয়েছে, ঘরে-বাইরে প্রচণ্ড চাপের মুখে রয়েছেন আরমিন লাশেট। শিবিরের মধ্যে নেপথ্যে ও প্রকাশ্যে তার বিরুদ্ধে সমালোচনা বেড়ে চলেছে। নির্বাচনের ফলাফল স্পষ্ট হয়ে যাওয়ার পরেও তিনি যেভাবে সরকার গড়ার দাবি করেছিলেন, সেই বিষয়টি দলের অনেক নেতা-কর্মী মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না।

নির্বাচনে কার্যত ভরাডুবির পর এবং শিবির তালিকার দ্বিতীয় স্থানে নেমে যাওয়া সত্ত্বেও লাশেটের ‘ঔদ্ধত্য' অনেকের বিরক্তির কারণ হয়ে উঠেছে। শিবিরের ঐতিহাসিক নির্বাচনি বিপর্যয়ের পর চাপের মুখে তিনি পিছিয়ে গিয়ে ‘দেশের প্রয়োজনে' জোট সরকার গড়ার চেষ্টার কথা বলেছেন। অর্থাৎ নির্বাচনে জয়ী এসপিডি দল জোট গঠনে ব্যর্থ হলে তবেই তিনি সেই প্রচেষ্টা চালাতে চান। তবে স্পষ্ট ভাষায় হার স্বীকার এবং জয়ের জন্য এসপিডি দল বা দলের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী আরমিন লাশেটকে অভিনন্দন জানানোর সৌজন্যও তিনি দেখাননি।

সিডিইউ ও সিএসইউ দলের একাধিক নেতা লাশেটের এমন আচরণের তীব্র সমালোচনা করছেন। তাদের মতে, সবার আগে বিনীত মনোভাব দেখিয়ে ভোটারদের রায় শ্রদ্ধার সঙ্গে মেনে নেওয়া উচিত।

হেসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ফল্কার বুফিয়ে বলেছেন, এই ফলাফলের পর ইউনিয়ন শিবিরের সরকার গড়ার দায়িত্ব নেওয়ার  কোনও সুযোগ নেই। দলের যুব শাখার প্রধান টিলমান কুবান বলেন, ‘আমরা নির্বচনে হেরে গেছি। ব্যস, আর কিছু বলার নেই।’ তার মতে, সরকার গড়ার দায়িত্ব এখন এসপিডি, সবুজ দল ও এফডিপি দলের কাঁধে বর্তায়।

এসপিডি দলের নেতারাও লাশেটের ‘ঔদ্ধত্য' সম্পর্কে বিরক্তি প্রকাশ করছেন। দলের সাধারণ সম্পাদক লার্স ক্লিংবাইল বলেন, ‘কেউ আরমিন লাশেটকে চ্যান্সেলর হিসেবে চায় না। আশা করি আগামী কয়েক দিনে তিনিও তা উপলব্ধি করবেন।’

উল্লেখ্য, সোমবার প্রকাশিত এক জনমত সমীক্ষায় ৭১ শতাংশ মানুষ লাশেটের সরকার গড়ার উদ্যোগের বিরোধিতা করেছেন।

এমন প্রেক্ষাপটে ইউনিয়ন শিবিরের মধ্যে লাশেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছে। ইউনিয়ন শিবিরের কয়েকজন নেতা সরাসরি অথবা পরোক্ষভাবে দলের নেতা হিসেবে লাশেটের অপসারণের ডাক দিচ্ছেন। নির্বাচনে রেকর্ড মাত্রার বিপর্যয়ের পর তারা দলের নেতৃত্ব ও কর্মসূচি ঢেলে সাজানোর ডাক দিয়েছেন। লাশেটের নিজের দলের নেতা ও প্রতিদ্বন্দ্বী নরবার্ট রোটগেন সবার আগে নির্বাচনি ফলাফলের বিশ্লেষণের পর ব্যক্তি ও পদের বিষয়ে সিদ্ধান্তের পক্ষে সওয়াল করেছেন। সূত্র: ডয়চে ভেলে

 

/এএ/

সম্পর্কিত

জাদুঘরের অর্থ পকেটস্থ করে সেটিকে শিল্পকর্ম বলছেন শিল্পী

জাদুঘরের অর্থ পকেটস্থ করে সেটিকে শিল্পকর্ম বলছেন শিল্পী

চড়ের পর এবার ম্যাক্রোঁর গায়ে ডিম নিক্ষেপ (ভিডিও)

চড়ের পর এবার ম্যাক্রোঁর গায়ে ডিম নিক্ষেপ (ভিডিও)

হুমকির পর বাড়ানো হলো ডাচ প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা

হুমকির পর বাড়ানো হলো ডাচ প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা

ইতিহাস গড়া হলো না আইসল্যান্ডের

ইতিহাস গড়া হলো না আইসল্যান্ডের

জাদুঘরের অর্থ পকেটস্থ করে সেটিকে শিল্পকর্ম বলছেন শিল্পী

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩২

শিল্প কী? ডেনমার্কের এক শিল্পীর মতে, জাদুঘরের কাছ থেকে কমিশন হিসেবে ৮৪ হাজার ডলার পকেটস্থ করা।

ডেনমার্কের আলবর্গ এলাকার কুনস্টেন মিউজিয়াম অব আর্ট জেন্স হ্যানিং নামের শিল্পীকে অগ্রিম বাবদ এই অর্থ দিয়েছিল। চুক্তি ছিল দুটি পুরনো ভাস্কর্য নতুনভাবে তৈরি করা। হ্যানিং কোনও কাজ না করেই অর্থ নিজের কাছে রেখে দেন এবং দাবি করেন এটি ‘কনসেপচুয়াল আর্ট’।

হ্যানিং তার এই শিল্পকর্মের নাম দিয়েছেন, ‘টেক দ্য মানি অ্যান্ড রান’ (টাকা নিয়ে পালাও)। আর এই শিল্পকর্ম দুটি দুটি সাদা বোর্ডের ফ্রেম, যার ভেতরে কিছু নেই।

লিখিত চুক্তি অনুসারে, হ্যানিংয়ের কাজ ছিল দুটি ব্যাংক নোটের প্রতিলিপি তৈরি করা। আসলগুলোও তিনি ২০০৭ ও ২০১০ সালে তৈরি করেছিলেন। মূল শিল্পকর্মে নোট দুটি বার্ষিক আয়ের প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল।

হ্যানিং গত সপ্তাহে একটি রেডিওকে জানান, কাজটাই হলো আমি তাদের অর্থ নিয়েছি। এটি চুরি নয়, এটি চুক্তি লঙ্ঘন এবং চুক্তি লঙ্ঘন কাজের একটি অংশ।

জাদুঘরটি অবশ্য তার এই খালি ফ্রেমের শিল্পকর্ম ‘ওয়ার্ক ইট আউট’ শিরোনামের চলমান প্রদর্শনীতে রেখেছে। সূত্র: ইউএসএ টুডে

/এএ/

সম্পর্কিত

নির্বাচনে পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

নির্বাচনে পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

চড়ের পর এবার ম্যাক্রোঁর গায়ে ডিম নিক্ষেপ (ভিডিও)

চড়ের পর এবার ম্যাক্রোঁর গায়ে ডিম নিক্ষেপ (ভিডিও)

হুমকির পর বাড়ানো হলো ডাচ প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা

হুমকির পর বাড়ানো হলো ডাচ প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা

ইতিহাস গড়া হলো না আইসল্যান্ডের

ইতিহাস গড়া হলো না আইসল্যান্ডের

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা প্রত্যাখ্যান ইরানের

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১২

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেতের জাতিসংঘে দেওয়া বক্তব্যে ইরান সম্পর্কে যে সমালোচনা করেছেন তা প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান। ইরান বলেছে, বেনেতের বক্তব্য ‘মিথ্যার ফুলঝুরি’ ছাড়া আর কিছু নয়। জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মাজিদ তাখতে রাভাঞ্জি নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে এক পোস্টে এ মন্তব্য করেছেন।

সোমবার জাতিসংঘের ৭৬তম সাধারণ অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনেত ইরানের পরমাণু কর্মসূচি সম্পর্কে তেল আবিবের পুরনো অভিযোগগুলোর পুনরাবৃত্তি করেন। গত কয়েক বছরে পরমাণু শিল্পের গবেষণা ও বিকাশে ইরান অনেকদূর অগ্রসর হয়েছে বলে স্বীকার করে বেনেত বলেন, মুখের কথায় আর ইরানের সেন্ট্রিফিউজগুলোর কার্যক্রম বন্ধ করা যাবে না।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, ইরানের ‘পরমাণু অস্ত্র তৈরির কর্মসূচি’ এমন অবস্থায় চলে গেছে যেখান থেকে আর ফিরে আসা সম্ভব নয়। বেনেত আরো দাবি করেন, ইরানের পরমাণু কর্মসূচি ‘সবগুলো রেডলাইন’ অতিক্রম করেছে।

এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মাজিদ তাখতে রাভাঞ্জি বলেন, ইরানের শান্তিপূর্ণ পরমাণু কর্মসূচি সম্পর্কে কথা বলার অধিকার শত শত পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী ইসরায়েলের নেই।

রাভাঞ্চি আরও লিখেছেন, জাতিসংঘে চলতি বছর ‘ইরান ভীতি’ ছড়িয়ে দেওয়ার কাজকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছে তেল আবিব।

এদিকে, সীমান্তের কাছে ইসরায়েলের উপস্থিতি ইরান সহ্য করবে না বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে। মঙ্গলবার তিনি বলেন, উত্তর-পশ্চিম সীমান্তের কাছে যে মহড়ার আয়োজন করা হয়েছে তা সার্বভৌমত্বের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি বিষয়। গোটা অঞ্চলের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ইরান নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেবে বলে জানান খাতিবজাদে। সূত্র: পার্স টুডে

 

 

 

/এএ/

সম্পর্কিত

ইরান সব রেড লাইন অতিক্রম করেছে: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

ইরান সব রেড লাইন অতিক্রম করেছে: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

ইসরায়েলি কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন ফিলিস্তিনি আইনপ্রণেতা

ইসরায়েলি কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন ফিলিস্তিনি আইনপ্রণেতা

আফগানিস্তানে মার্কিন নিপীড়ন তদন্ত করবে না আইসিসি

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০১

আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর নিপীড়নের অভিযোগের তদন্ত পুনরায় শুরু করবে না আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। আদালতটির প্রধান প্রসিকিউটর এই তথ্য জানিয়েছেন। মার্কিন বার্তা সংস্থা এসোসিয়েটেড প্রেস এখবর জানিয়েছে।

২০১৬ সালের প্রতিবেদনে আইসিসি প্রসিকিউটর উল্লেখ করেছিলেন, আফগানিস্তান, পোল্যান্ড, রোমানিয়া ও লিথুয়ানিয়ার কারাগারে মার্কিন সেনা ও সিআইএ হয়ত বন্দিদের ওপর নির্যাতন ও বেআইনি আচরণ করেছে।

গত বছর মার্চ মাসে আইসিসি তদন্তের অনুমতি দেয়। কিন্তু আফগান কর্তৃপক্ষকে মামলার বাদি বলার পর তদন্ত বিলম্বিত হয়। আফগানিস্তানে এখন তালেবান শাসন শুরু হওয়ার পর আইসিসি প্রসিকিউটর করিম খানকে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত পুনরায় শুরু না করতে।

এর বদলে আইসিসি তালেবান ও ইসলামিক স্টেট জঙ্গি গোষ্ঠীর আফগান শাখা দ্বারা সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধের বিষয়ে মনোযোগ দেবে বলে জানিয়েছেন করিম খান।

তিনি কাবুল বিমানবন্দরের কাছে ২৬ আগস্টের হামলার কথা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন। তালেবানের আফগান দখলের পর বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে এই বোমা হামলা হয়। এতে বেশ কয়েকজন আফগান ও ১৩ মার্কিন সেনা নিহত হয়।

/এএ/

সম্পর্কিত

অবৈধভাবে মন্দির ভাঙার প্রতিবাদে আদালতে মুসলিমরা

অবৈধভাবে মন্দির ভাঙার প্রতিবাদে আদালতে মুসলিমরা

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

অবৈধভাবে মন্দির ভাঙার প্রতিবাদে আদালতে মুসলিমরা

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪০

ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লির জামিয়া নগরের নুর এলাকায় একটি হিন্দু মন্দির অবৈধভাবে ভেঙে ফেলার প্রতিবাদে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন স্থানীয় মুসলিমরা। হাই কোর্টের আবেদনে মন্দির ভাঙাকে কেন্দ্র করে যাতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা না ছড়ায় সেজন্যও আহ্বান জানানো হয়েছে।

কলকাতাভিত্তিক আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, জামিয়া নগর এলাকার ২০৬ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির কিছু বাসিন্দা সম্প্রতি দিল্লি হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন। আবেদনে তারা জানান, এলাকার কিছু অসাধু প্রোমোটার স্থানীয় দুষ্কৃতীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ইতোমধ্যেই মন্দির চত্বরে থাকা ধর্মশালাটি খুবই অল্প সময়ের মধ্যে ভেঙে ফেলেছে। মন্দিরটি ভাঙার জন্য এতে থাকা থাকা ৮-১০টি মূর্তিও সরিয়ে ফেলা হয়েছে। এ বার তাদের লক্ষ্য, মন্দিরটি ভেঙে ফেলে সেখানে বহুতল বা অন্য কোনও ভবন নির্মাণ করা। মন্দিরটি যাতে কোনোভাবেই ভাঙা নয় হয়, সে জন্য আদালতের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন আবেদনকারীরা।

আবেদনে আরও বলা হয়েছে, ১৯৭০ সালে নুর নগরে তৈরি হয়েছিল মন্দিরটি। তার পর থেকে প্রতিদিনই সেখানে পুজো ও কীর্তন হয়ে আসছে। নুর নগর লাগোয়া আর একটি এলাকায় ইতোমধ্যে মন্দির ভেঙে অবৈধ নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে গেছে। নুর নগরেও যে কোনও সময়ে ওই মন্দিরটি ভেঙে ফেলা হবে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা।

জামিয়া নগরের বাসিন্দাদের আবেদন শুনে তিন দিন আগে দিল্লি হাই কোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব সচদেবের বেঞ্চ দিল্লি পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে, কোনও অবৈধ প্রক্রিয়ায় মন্দির চত্বর থেকে যাতে কোনও কিছু উচ্ছেদ না করা হয়। মন্দিরটিও যেন অক্ষত অবস্থায় থাকে।

এলাকায় যাতে শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় থাকে, পুলিশকে তা দেখতেও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

 

/এএ/

সম্পর্কিত

আফগানিস্তানে মার্কিন নিপীড়ন তদন্ত করবে না আইসিসি

আফগানিস্তানে মার্কিন নিপীড়ন তদন্ত করবে না আইসিসি

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

রাজতন্ত্রের সংবিধান ফিরিয়ে আনছে তালেবান

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

১৫০ পারমাণবিক অস্ত্র পেয়ে যেতে পারে তালেবান: বোল্টনের হুঁশিয়ারি

দিল্লির দাঙ্গা পূর্ব পরিকল্পিত: হাই কোর্ট

দিল্লির দাঙ্গা পূর্ব পরিকল্পিত: হাই কোর্ট

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ সফর শেষে কোভিড আইসোলেশনে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতিসংঘ অধিবেশনে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শান্তিপূর্ণ উপায়ে আফগান পরিস্থিতি সামালের তাগিদ ব্রিকস নেতাদের

ব্রিকস সম্মেলনে গুরুত্ব পেলো আফগান পরিস্থিতি

হাসপাতালে বন্যার ছোবল, মেক্সিকোয় অন্তত ১৭ রোগীর মৃত্যু

বন্যার কবলে হাসপাতাল, মেক্সিকোয় ১৭ রোগীর মৃত্যু

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

ব্রাজিলে গরুর দেহে বিরল রোগ

রাষ্ট্রদূত হত্যায় স্ত্রীর কারাদণ্ড

রাষ্ট্রদূত হত্যায় স্ত্রীর কারাদণ্ড

জয়লাভ, কারাবরণ কিংবা মৃত্যু ছাড়া পথ নেই: বলসোনারো

জয়লাভ, কারাবরণ কিংবা মৃত্যু ছাড়া পথ নেই: বলসোনারো

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান পার্লামেন্টের

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান পার্লামেন্টের

ব্রাজিলের অনন্য ‘কোকা কোলা’ লেক!

ব্রাজিলের অনন্য ‘কোকা কোলা’ লেক!

সর্বশেষ

নির্বাচনে পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

নির্বাচনে পরাজয়, দলেই সমর্থন হারাচ্ছেন লাশেট

যেসব উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন মুফতি ইব্রাহীম

যেসব উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন মুফতি ইব্রাহীম

টি-টোয়েন্টিতে রেকর্ড গড়েই চলেছেন পোলার্ড

টি-টোয়েন্টিতে রেকর্ড গড়েই চলেছেন পোলার্ড

টাঙ্গাইলে কেটে গেছে রেল লাইনের সিগন্যাল ক্যাবল

টাঙ্গাইলে কেটে গেছে রেল লাইনের সিগন্যাল ক্যাবল

শেখ হাসিনা ভালো থাকলে দেশ ভালো থাকবে: শিল্পমন্ত্রী

শেখ হাসিনা ভালো থাকলে দেশ ভালো থাকবে: শিল্পমন্ত্রী

© 2021 Bangla Tribune