X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

টিয়ারশেল-সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ

আপডেট : ১৮ জুলাই ২০২১, ২১:২৭

গাজীপুরে বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে কয়েক দিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে আসা স্টাইল ক্র্যাফ্ট পোশাক কারখানার শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ২০ রাউন্ড টিয়ারশেল ও ১৬ রাউন্ড সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়েছে পুলিশ। এতে পুলিশসহ ছয় জন আহত হয়েছেন। রবিবার (১৮ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চান্দনা চৌরাস্তা মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের পরিদর্শক সমীর চন্দ্র সূত্রধর বলেন, ‘ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের সামনে লক্ষ্মীপুরা এলাকায় স্টাইল ক্র্যাফ্ট পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বকেয়া বেতন-ভাতাসহ তিন বছরের পাওনাদির দাবিতে গত ৬ জুলাই থেকে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করে আসছেন। পাওনা পরিশোধের জন্য একাধিক তারিখ দিয়েও কথা রাখেননি মালিকপক্ষ। রবিবার সকালে কারখানার গেটে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা। একপর্যায়ে সকাল ৯টার দিকে তারা কারখানার সামনে ঢাকা-গাজীপুর সড়ক অবরোধ করেন। এতে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় এবং উভয় দিকে অ্যাম্বুলেন্সসহ শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। পুলিশ তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেও অবরোধ প্রত্যাহার করেননি। বিকাল পর্যন্ত কারখানা কর্তৃপক্ষের সাড়া না পেয়ে আরও বিক্ষুব্ধ হন তারা।’

শিল্প পুলিশের পরিদর্শক ইসলাম হোসেন বলেন, ‘প্রায় আট ঘণ্টা সড়ক অবরোধের পর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধের জন্য চান্দনা চৌরাস্তা মোড়ের দিকে মিছিল নিয়ে যাচ্ছিলেন শ্রমিকরা। এ সময় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। উত্তেজিত হয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়ে মারেন শ্রমিকরা। এতে পুলিশের কনস্টেবল সাদিকুলসহ তিন জন আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে শ্রমিকদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। একপর্যায়ে ২০ রাউন্ড টিয়ারশেল ও ১৬ রাউন্ড সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার জাকির হাসান বলেন, ‘শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন পরিশোধের ব্যাপারে ঢাকায় বিজিএমইএ’র সঙ্গে কারখানা কর্তৃপক্ষের আলোচনা চলছে। অল্প সময়ের মধ্যেই সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় কারখানার অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

শ্রমিকরা জানান, স্টাইল ক্র্যাফ্ট পোশাক কারখানায় প্রায় সাড়ে ৭০০ কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিক রয়েছেন। কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীদের চলতি বছরের মার্চ, মে, জুন এবং ২০২০ সালের মার্চ ও আগস্ট মাসের শতকরা ৫০ ভাগ, ২০১৯ সালের ডিসেম্বর, অক্টোবর মাসের ৩৫ ভাগ, নভেম্বর মাসের ১৫ ভাগ বেতন পাওনা রয়েছেন।

এছাড়া কর্মচারীরা ইনক্রিমেন্টসহ চার বছরের ছুটি ও দুই বছরের ঈদ বোনাসের টাকা পাওনা রয়েছেন। তারা বেশ কিছুদিন ধরে এসব পাওনা পরিশোধের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু একাধিক তারিখ দিয়েও পরিশোধ না করায় আন্দোলন করছেন তারা। তাদের আন্দোলনে অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়েছে পুলিশ। এতে কয়েকজন শ্রমিক আহত হয়েছেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

শ্রীপুরে আগুনে পুড়লো ৩৬ বসতঘর

শ্রীপুরে আগুনে পুড়লো ৩৬ বসতঘর

ছাড়পত্র ছাড়াই আবাসিক এলাকায় চলছে চুন কারখানা

ছাড়পত্র ছাড়াই আবাসিক এলাকায় চলছে চুন কারখানা

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৪২

খুলনার সরকারি-বেসরকারি চারটি হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ফের মৃত্যু বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার সকাল ৮টা থেকে রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) এই হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

এর মধ্যে খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে পাঁচ, শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এক ও গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে তিন জন মারা গেছেন।

খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর বাবুখান রোডের আ. বারেক (৭২), খালিশপুরের খাদিজা (৫০), ডুমুরিয়ার নাসিমা (৪৫), বটিয়াঘাটার রোকসানা (৩৫) ও বাগেরহাটের ফকিরহাটের মারুফা বেগম। হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১১০ জন। তাদের মধ্যে রেড জোনে ৩৯, ইয়েলো জোনে ৩৮ ও আইসিইউতে ২০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন আট জন। আর সুস্থ হয়েছেন আট জন।

আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ দেবনাথ জানান, হাসপাতালে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- নগরীর ১০ সুলতান আহমেদ রোডের রায়হান চৌধুরী (৪০) ও গোয়ালখালী ১৪১ মেইন রোডের সুফিয়া বেগম (৫৮)। করোনা ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন ৪১ জন। তার মধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ১০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ জন ভর্তি হয়েছেন। আর সুস্থ হয়েছেন চার জন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে বাগেরহাটের শরণখোলার মো. ইব্রাহিম (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন, তার মধ্যে ২০ জন পুরুষ ও ১৫ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন নয় জন। আর সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর আমতলা মোড়ের নুরুন্নাহার (৪৪), জোড়াকল বাজারের রামকৃষ্ণ সাহা (৭৫) ও নড়াইলের দুর্গাপুরের অসীম ভট্ট (৪৭)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

এদিকে সিটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় কোনও রোগীর মৃত্যু হয়নি। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৬৮ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১০ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন। আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন সাত জন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:২০

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটে রোগীর চাপ বেড়েছে। এ অবস্থায় রোগী সামাল দিতে আইসিইউ সমমানের আরও ২৪টি শয্যা বাড়ানো হয়েছে। পঞ্চম তলায় আইসিইউ ইউনিটের পাশেই বাড়তি ২৪টি শয্যায় ক্রিটিক্যাল রোগীদের হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা দিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। 

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন করোনা ইউনিটে সাড়ে চারশ’ রোগীর উপরে চিকিৎসা নিচ্ছেন। রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শয্যার সংখ্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়। আগের সাড়ে ৪শ’-সহ বর্তমানে ২৪টি সংযুক্ত করে মোট শয্যা সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৭৪টি।

তিনি আরও জানান, এছাড়া বাড়তি রোগীর চাপ সামলাতে ট্রায়াজ সিস্টেম এবং ফ্লু কর্নারকে আরও সক্রিয় করা হয়েছে। 

ডা. মহিউদ্দিন খান বলেন, বর্তমানে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৪৭৮ জন এবং আইসিইউতে ২১ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া ৩২ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। 

জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৬৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় ১৮৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে করোনা শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা হচ্ছে ১২ হাজার ৪৮৫জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ১৮৩ জন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:১৩

সাতক্ষীরায় কঠোর বিধিনিষেধ অমান্য করে ঢাকায় যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে কালিগঞ্জে একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার (২৪ জুলাই) রাত ৮টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকা থেকে মাইক্রোবাসটি আটকের পর সেটি বাজেয়াপ্ত করা হয়।

জানা যায়, শ্যামনগর থেকে ১০ জন যাত্রী নিয়ে একটি টয়োটা হাইয়েস মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো-চ-১১-৮৪৯৬) ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। মাইক্রোবাসটি তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকায় পৌঁছায়। এসময় সেখানে থাকা করোনা এক্সপার্ট টিমের সদস্যরা মাইক্রোবাসটিতে তল্লাশি চালিয়ে যাত্রী বহনের বিষয়টি নিশ্চিত হন। বিধিনিষেধ অমান্য করে যাত্রী বহনের বিষয়টি দায়িত্বরত সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীরকে জানানো হলে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মাইক্রোবাসটি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করেন।

সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীর সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করায় একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন।

/টিটি/

সম্পর্কিত

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:০৫

সৌদি আরব থেকে ফিরে কৃষিতে বাজিমাত করেছেন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের শেখ আব্দুল মান্নান (৫৫)। শুধু নিজেই সফল হয়েছেন তা নয়, ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের অনাবাদি প্রায় ৪০০ একর জমি স্থানীয় কৃষকদের জন্য আবাদি জমিতে পরিণত করেছেন। এখানে ১৫ একর জমিতে মিশ্র চাষাবাদের মাধ্যমে গড়ে তুলেছেন কৃষি খামার। এলাকার কৃষকরা তার কাছে গেলেই পাচ্ছেন চাষাবাদের পরামর্শসহ নানা সহযোগিতা। তিনি এখন হয়ে উঠেছেন কৃষকদের কাছের মানুষ।

দত্তেরবাজার এলাকার যাত্রাসিদ্ধি গ্রামের কৃষক পরিবারের সন্তান আব্দুল মান্নান। ঢাকার গাবতলী কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে ছয় মাসের অটোমোবাইলসের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়ে ১৯৮৬ সালে পাড়ি জমান সৌদি আরবে। মরুভূমিতে কঠোর পরিশ্রম করে কয়েক বছরের মাথায় পরিবারের আরও চার ভাইকে নিয়ে যান। কষ্টার্জিত অর্থে দেশের বাড়িতে ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু কাশবনের অনাবাদি জমি কেনেন। দীর্ঘ ২৫ বছর প্রবাস জীবন কাটিয়ে ফিরে আসেন। কাজ না করে এক মুহূর্তও বসে থাকতে পারেন না মান্নান। এ কারণে সিদ্ধান্ত নেন কৃষিকাজে নিজেকে নিয়োজিত করবেন। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও আশপাশের বয়োজ্যেষ্ঠ কৃষকদের সঙ্গে পরামর্শ করেন কীভাবে ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু অনাবাদি জমি আবাদি জমিতে পরিণত করা যায়।

ব্রহ্মপুত্র পাড়ের প্রায় ৪০০ একর জায়গা আবাদি জমিতে পরিণত করেছেন

শেখ আব্দুল মান্নান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিদেশ থেকে এসে বসে থাকতে ভালো লাগছিল না। পরে সিদ্ধান্ত নিলাম নিজের জমিতে কৃষিকাজ করার। কিন্তু বেশিরভাগ জমি ছিল ব্রহ্মপুত্র পাড়ের উঁচু কাশবনে ঘেরা। আমার মতো শতাধিক কৃষকের জমিও পতিত ছিল কাশবনে। পরে কৃষকদের সঙ্গে পরামর্শ করে হাতে থাকা নগদ অর্থে একটি ভেকু মেশিন কিনে কাশবন পরিষ্কার করে ওই মাটি দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করি। পরে বাঁধটি সড়ক হিসেবে কৃষকরা ব্যবহার করতে থাকেন। বেশ কয়েক বছরে অনাবাদি প্রায় ৪০০ একর জমি আবাদি হয়। এখন আমার মতো প্রায় শতাধিক কৃষক ব্রহ্মপুত্র পাড়ে কৃষি আবাদ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন এবং তাদের মুখে হাসি ফুটেছে।’

বছরে ধান-খড় বিক্রি করে আব্দুল মান্নানের আয় ১২ লাখ টাকা। ধানের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করেন তিনি। বর্তমানে তার খামারে বারোমাসি লাউ, কুমড়া, চিচিঙ্গা, বেগুন, শসা ও কাঁচা মরিচসহ বেশকিছু জাতের শাক-সবজি রয়েছে। শাক-সবজি বিক্রি করে তার বছরে প্রায় ছয়-সাত লাখ টাকা আয় হয়। তিন একর জমিতে পাট চাষ করেছেন তিনি। বর্তমানে শ্রমকিদের সঙ্গে তিনি পাট কেটে পচানোর ব্যবস্থা করছেন। তিন একর জমি থেকে প্রায় ৬০ মণের মতো পাট ঘরে তুলতে পারবেন। এছাড়া তার কৃষি খামারে রয়েছে গরু ও ছাগল লালন-পালনের ব্যবস্থা। সেখান থেকেও আয় করেন বছরে ১০ লাখেরও বেশি।

কৃষি খামারে রয়েছে গরু ও ছাগল লালন-পালনের ব্যবস্থা

খামারের চারপাশে লেক বানিয়ে প্রাকৃতিক উপায়ে মাছ চাষ করেছেন। মাছ চাষের ব্যবস্থাপনায় রয়েছে নতুনত্ব। প্রাকৃতিক পরিবেশে নদীর মাছ আটকে রেখে সারা বছর লালন-পালন করেন। বছর শেষে মাছ বিক্রি করে আট-নয় লাখ টাকা আয় করেন তিনি। সবমিলে তার বছরে আয় ৩৭-৩৮ লাখ টাকার মতো। সে হিসাবে তার মাসে আয় প্রায় তিন লাখ টাকা।

এছাড়া গোবর ব্যবহার করে একটি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট করেছেন মান্নান। উৎপাদিত গ্যাসের মাধ্যমে বেশ কয়েকটি পরিবারের রান্নার কাজ চলছে। বায়োগ্যাসে ব্যবহৃত গোবর দিয়ে জৈব সার তৈরি করে কৃষি জমিতে ব্যবহার করছেন। তিনি জমিতে রাসায়নিক সার কম ব্যবহার করেন। জৈব সারকেই বেশি কাজে লাগিয়ে থাকেন।

আব্দুল মান্নান বলেন, ‘অতিরিক্ত রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহারে জমির উর্বরতা শক্তি যেমন হারায়, তেমনি উপকারী পোকামাকড়ও মরে যায়। এ কারণে খামারের গোবর ব্যবহার করে একদিকে বায়োগ্যাস উৎপাদন করছি, অন্যদিকে জৈব সার তৈরি করে ফসলি জমিতে ব্যবহার করছি। আশপাশের কৃষকরাও জৈব সার তৈরি করে ফসলি জমিতে ব্যবহার করছেন। এতে করে ফসলের উৎপাদন বাড়ছে এবং বিষমুক্ত সবজিসহ ফসল মানুষকে খাওয়ানো সম্ভব হচ্ছে।’

চাষ করেন লাউ, কুমড়া, চিচিঙ্গা, বেগুন, শসা ও কাঁচা মরিচ

তিনি জানান, বাঁধের পাশে পুরো খামারজুড়ে রয়েছে মাছ চাষের একটি লেক। হ্যাচারি থেকে পোনা না কিনে নিজস্ব পদ্ধতিতে ব্রহ্মপুত্র নদের পানির সঙ্গে আসা মাছ লেকে আটকে প্রাকৃতিক পরিবেশে চাষ করছি। বছর ঘুরলেই মাছ বিক্রি করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতে চলে আসে। খামারে মিশ্র কৃষি ফসলের আবাদের কারণে বছরজুড়ে কোনও না কোনও ফসল থাকে। খামারে প্রায় অর্ধশতাধিক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে।

আব্দুল মান্নান বলেন, সৌদি আরবে গিয়ে মরুভূমিতে খুব কষ্ট করে কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে হয়েছে। বিদেশে না গিয়ে সৎ থেকে মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে কাজ করলে যে কেউ দেশেই সফল হবেন।

আব্দুল মান্নান এখন কৃষকদের কাছের মানুষ

স্থানীয় কৃষক আবুল কালাম বলেন, ‘কৃষিকাজ কীভাবে করতে হয় তা আব্দুল মান্নান ভাইয়ের কাছ থেকে শিখেছি। তিনি আমাদের অনাবাদি জমি আবাদি করতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। এ কারণে এখন ফসল ফলিয়ে নিজেদের স্বাবলম্বী করতে পেরেছেন স্থানীয় শতাধিক কৃষক। বিভিন্ন এলাকার লোকজন মান্নান ভাইয়ের কৃষি খামার দেখতে আসেন।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মতিউজ্জামান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সৌদিফেরত কৃষক আব্দুল মান্নানের মধ্যে একজন আদর্শ কৃষকের সব ধরনের যোগ্যতা রয়েছে। কৃষি বিষয়ে তিনি স্থানীয় কৃষকদের নানা পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তিনি একজন সফল কৃষক।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১০:৫৬

করোনা ডেডিকেটেড কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৯ জন মারা গেছেন। শনিবার (২৪ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে রবিবার (২৫ জুলাই) সকাল ৮টা পর্যন্ত ১৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে এবং চার জন করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। 
 
কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মেজবাউল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

এদিকে জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৮৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৬০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ৯১ শতাংশ।

হাসপাতালের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মেজবাউল আলম জানান, বর্তমানে করোনা ডেডিকেটেড কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ২০৮ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। এরমধ্যে ১৪৮ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী এবং ৬০ জনের উপসর্গ রয়েছে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

সর্বশেষ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমতা

দুধ যেন উপচে না পড়ে

দুধ যেন উপচে না পড়ে

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

আজ থেকে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান দুইটা পর্যন্ত  খোলা

আজ থেকে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান দুইটা পর্যন্ত খোলা

বিচ্ছেদের পর যে কারণে আবারও ভাইরাল আমির-কিরণ

বিচ্ছেদের পর যে কারণে আবারও ভাইরাল আমির-কিরণ

বিমা অফিসও খোলা

বিমা অফিসও খোলা

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

টিভিতে উল্লেখযোগ্য যত নাটক-টেলিছবি-স্বল্পদৈর্ঘ্য...

ঈদের পঞ্চম দিনটিভিতে উল্লেখযোগ্য যত নাটক-টেলিছবি-স্বল্পদৈর্ঘ্য...

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শ্রীপুরে আগুনে পুড়লো ৩৬ বসতঘর

শ্রীপুরে আগুনে পুড়লো ৩৬ বসতঘর

ছাড়পত্র ছাড়াই আবাসিক এলাকায় চলছে চুন কারখানা

ছাড়পত্র ছাড়াই আবাসিক এলাকায় চলছে চুন কারখানা

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

পদ্মা সেতু এড়িয়ে ফেরি চলার কোনও সুযোগ নেই

পদ্মা সেতু এড়িয়ে ফেরি চলার কোনও সুযোগ নেই

কারখানা খোলা রাখায় এ-ওয়ান পলিমারকে জরিমানা

কারখানা খোলা রাখায় এ-ওয়ান পলিমারকে জরিমানা

© 2021 Bangla Tribune