X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

খুলনায় ঈদ জামাত কোথায় কখন

আপডেট : ২০ জুলাই ২০২১, ১৪:৪৪

খুলনার টাউন মসজিদে পবিত্র ঈদুল আজহার প্রধান ও প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। প্রধান জামাতে ইমামতি করবেন টাউন জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ সালেহ। একই স্থানে দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায় এবং তৃতীয় ও শেষ জামাত সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনা সিটি করপোরেশন পরিচালিত বায়তুন নূর জামে মসজিদে দুইটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে, সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রথম ও ৯টা ১৫ মিনিটে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল ৭টায়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) সকাল সাড়ে ৭টায় এবং সরকারি বিএল কলেজ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় একটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

তারের পুকুর আল-হেরা জামে মসজিদে প্রথম জামাত ৭টায় এবং দ্বিতীয় জামাত সাড়ে ৭টায়, মুজগুন্নি বায়তুন নাজাত জামে মসজিদে ৭টা ও ৮টায়, রায়পাড়া মসজিদে ৮টায়, আমতলা মসজিদে প্রথম জামাত ৭টা ও ৮টা ১৫ মিনিটে, মতি মসজিদে প্রথম জামাত ৭টা ও ৮টায়, খানজাহান আলী জামে মসজিদে সাড়ে ৭টায়, মোল্লাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে ৭টা ১৫ মিনিটে, হাজী মালেক কবরখানা জামে মসজিদে সাড়ে ৭টায়, লবণচরা হাজী আব্দুল মালেক জামে মসজিদে সকাল ৮টায় এবং খুলনা মহানগরীর মৌলভীপাড়া জামে মসজিদে সাড়ে ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া খুলনা সিটি করপোরেশনের ৩১টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে সিটি করপোরেশনের সহায়তায় ও ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের তত্ত্বাবধানে পৃথক পৃথকভাবে নিজেদের সময় অনুযায়ী মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা জেলার সব উপজেলার মসজিদেও বিভিন্ন সময়ে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

টাউন জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ সালেহ বলেন, ঈদের জামাতে সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে আসতে হবে। মুসল্লিদের মাস্ক পরিধান করার পাশাপাশি সম্ভব হলে জায়নামাজ সঙ্গে নিয়ে আসার জন্য মসজিদ পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

রংপুরে প্রথম ত্বীন চাষ, সাত মাসে লাখ টাকা আয়

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৩:০৬

মরু অঞ্চলের জনপ্রিয় ফল ত্বীন চাষে রংপুরের তরুণ উদ্যোক্তা দুই সহোদর সাফল্য পেয়েছেন। করোনা পরিস্থিতিতে স্বল্প সময়ে পুষ্টি ও ওষুধিগুণ সম্পন্ন এ ফলের চাষ করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন তারা। ফল ও চারা বিক্রি করে তারা সাত মাসে লাখ টাকার ওপরে আয় করেছেন। তবে দেশে অপ্রচলিত এ ফলের সঠিক দাম পেতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার দাবি করেছেন ত্বীন ফল চাষি দুই ভাই।

জানা যায়, রংপুরে প্রথমবারের মতো ডুমুর সদৃশ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এ ফলের চাষ হয়েছে মিঠাপুকুর উপজেলার শাল্টিগোপালপুরে। তরুণ উদ্যোক্তা ইনাম হাসান রাহাত ও তার বড় ভাই আসিফ হাসান রাতুল চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে তিনশ’ চারা দিয়ে ৩৩ শতাংশ জমিতে ত্বীনের আবাদ শুরু করেন। রোপণের তিন মাসের মাথায় শুরু হয় ফল সংগ্রহ। এখন পর্যন্ত ৭০ হাজার টাকা ব্যয় করে সাত মাসের মধ্যে লাভের মুখ দেখেছেন তারা। বিষমুক্ত উপায়ে ত্বীন উৎপাদনে বাগানে ব্যবহার করা হচ্ছে জৈব বালাইনাশক। করোনা পরিস্থিতিতে এলাকার কর্মহীন হয়ে যাওয়া ছয় জন শ্রমিকও এ বাগানে নিয়মিত কাজ করছেন।

তরুণ উদ্যোক্তা ইনাম হাসান রাহাত জানান, সৌদি আরবসহ মরু অঞ্চলে পবিত্র ফল হিসেবে ত্বীনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ডুমুর সদৃশ এই ত্বীন ফল যেমন সুস্বাদু তেমনি পুষ্টি সমৃদ্ধ। মুসলিম অধ্যুষিত মরু অঞ্চলে এই ফল পবিত্র হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়। এ ফল ওষুধ হিসেবেও ব্যবহার করেন মরু অঞ্চলের মানুষ। 

রাহাত বলেন, মরু অঞ্চলের এই পবিত্র ফলের অনেক গল্প শুনেছি। এরপর সৌদি আরব থেকে এক ব্যক্তির মাধ্যমে বীজ সংগ্রহ করি। দুই ভাই মিলে নিজেদের ৩৩ শতক জমিতে শুরু করি ত্বীন চাষ। আমাদের এলাকা বালুময় না হলেও লালমাটি সমৃদ্ধ এলাকা। প্রথমদিকে ভেবেছিলাম হয়তো এখানে এই ফলের চাষ ভালো হবে না। কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই ত্বীন ফলের গাছ পুষ্ট হয়ে বড় হতে থাকে। ছয় মাসের মধ্যে সেই গাছে ত্বীন ফল আসে। দেখতে অনেকটা আমাদের দেশের ডুমুর ফল মনে হলেও গোলাপী রঙ ধারণ করা এক একটি ত্বীন ফল খেতে বেশ সুস্বাদু।

ত্বীন ফলের চাষের কথা জানাজানি হওয়ায় দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসছেন ফলের গাছ দেখতে। অনেকেই ত্বীন চাষে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানান তিনি।

রাহাতের বড় ভাই রাতুল বলেন, আমরা ফল বিক্রির পাশাপাশি বাগান থেকে উচ্চমূল্যে চারা বিক্রি শুরু করেছি। ইতোমধ্যে ফল ও চারা বিক্রি করে লাখ টাকারও বেশি আয় হয়েছে বলে জানান তারা। 

রাতুল বলেন, এখন পর্যন্ত বাগান তৈরি ও ফল উৎপাদনে আসতে ৭০ হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে। প্রতিকেজি ফল ৮০-১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে চারা বিক্রি করে ৭০ হাজার টাকার বেশি আয় করেছি। তিন মাস পর পর ফল আসে। এছাড়া চারা বিক্রি করেও ভালো লাভ হচ্ছে। তবে অপ্রচলিত এ ফলের দেশীয় চাহিদা সৃষ্টি হলে আরও ভালো দাম পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি। এ জন্য তিনি সরকারি সহায়তা ও পৃষ্ঠপোষকতার কথা বলেন।  

তিনি আরও জানান, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ত্বীন ফলের চাষ করা হলে লাভবান হওয়া যাবে। তারা দুই ভাই আরও জমিতে ত্বীন চাষ করে স্বাবলম্বী হতে চান। ফল বিক্রির পাশাপাশি চারা বিক্রি করে রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ত্বীন ফলের চাষ ছড়িয়ে দিতে চান।  

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আফজালুল হক জানান ত্বীন ফল মরু অঞ্চলে ব্যাপক জনপ্রিয় ও পবিত্র ফল হিসেবে পরিচিত। এর ওষুধিগুণও অনেক। এ ফলের বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষাবাদ করলে অনেক অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। একইসঙ্গে যেহেতু এ ফলের বিশ্বব্যাপী ব্যাপক চাহিদা রয়েছে সে কারণে ত্বীন ফল চাষ করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৭ মৃত্যু

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১২:২৯

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে যশোরের ঝিকরগাছায় নয়ন (২৫) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (২৪ জুলাই) বিকাল ৫টার দিকে ঝিকরগাছার টাওরা কদমতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নয়ন ঝিকরগাছা উপজেলার টাওরা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

এদিকে এ ঘটনায় জহিরুল (৩৩),  শামিম (৪০), মামুন (১৭) ও আশা (২০) নামে চারজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে জহিরুলকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

নিহতের চাচাতো ভাই সুজন জানান, গত শুক্রবার বিকালে টাওরা প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে টাওরা ও পাশের গ্রাম নীলকণ্ঠনগরের যুবকদের মধ্যে ফুটবল খেলা হয়। খেলার একপর্যায়ে দুই গ্রামের সমর্থকর মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। শনিবার বিকালে নয়ন ও জহিরুলসহ অন্যরা খালপাড়ে গল্প করছিলেন। এ সময় পানিসারা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর সরোয়ারের উপস্থিতিতে জাহিদুল, বকুল ও মেহেদিসহ কয়েকজন তাদেরকে কুপিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ঝিকরগাছা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সন্ধ্যার পর তাদের দুই জনকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক অমিয় দাস জানান, হাসপাতালে আনার আগেই নয়ন মারা যান। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হতে পারে। আহত অপরজন শঙ্কামুক্ত।

এ বিষয়ে ঝিকরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট দ্বন্দ্বে শুক্রবার এই পক্ষ মেম্বারের ছেলেকে মারধর করে। ওই ঘটনার জের ধরে শনিবার অপরপক্ষ হামলা চালায়। এ ঘটনায় থানায় লিখিত কোনও অভিযোগ দেয়নি কেউ। তবে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িতদের আটকে তৎপরতা শুরু করেছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:৪২

খুলনার সরকারি-বেসরকারি চারটি হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ফের মৃত্যু বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার সকাল ৮টা থেকে রবিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) এই হাসপাতালগুলোতে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

এর মধ্যে খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে পাঁচ, শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এক ও গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে তিন জন মারা গেছেন।

খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর বাবুখান রোডের আ. বারেক (৭২), খালিশপুরের খাদিজা (৫০), ডুমুরিয়ার নাসিমা (৪৫), বটিয়াঘাটার রোকসানা (৩৫) ও বাগেরহাটের ফকিরহাটের মারুফা বেগম। হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১১০ জন। তাদের মধ্যে রেড জোনে ৩৯, ইয়েলো জোনে ৩৮ ও আইসিইউতে ২০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন আট জন। আর সুস্থ হয়েছেন আট জন।

আবু নাসের হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ দেবনাথ জানান, হাসপাতালে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- নগরীর ১০ সুলতান আহমেদ রোডের রায়হান চৌধুরী (৪০) ও গোয়ালখালী ১৪১ মেইন রোডের সুফিয়া বেগম (৫৮)। করোনা ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন ৪১ জন। তার মধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ১০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ জন ভর্তি হয়েছেন। আর সুস্থ হয়েছেন চার জন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে বাগেরহাটের শরণখোলার মো. ইব্রাহিম (৩৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন, তার মধ্যে ২০ জন পুরুষ ও ১৫ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন নয় জন। আর সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

গাজী মেডিক্যাল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন- নগরীর আমতলা মোড়ের নুরুন্নাহার (৪৪), জোড়াকল বাজারের রামকৃষ্ণ সাহা (৭৫) ও নড়াইলের দুর্গাপুরের অসীম ভট্ট (৪৭)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন সাত জন।

এদিকে সিটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় কোনও রোগীর মৃত্যু হয়নি। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৬৮ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১০ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ জন। আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন সাত জন।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

ময়মনসিংহ মেডিক্যালের করোনা ইউনিটে বাড়লো ২৪ শয্যা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:২০

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটে রোগীর চাপ বেড়েছে। এ অবস্থায় রোগী সামাল দিতে আইসিইউ সমমানের আরও ২৪টি শয্যা বাড়ানো হয়েছে। পঞ্চম তলায় আইসিইউ ইউনিটের পাশেই বাড়তি ২৪টি শয্যায় ক্রিটিক্যাল রোগীদের হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা দিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। 

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন করোনা ইউনিটে সাড়ে চারশ’ রোগীর উপরে চিকিৎসা নিচ্ছেন। রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শয্যার সংখ্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়। আগের সাড়ে ৪শ’-সহ বর্তমানে ২৪টি সংযুক্ত করে মোট শয্যা সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৭৪টি।

তিনি আরও জানান, এছাড়া বাড়তি রোগীর চাপ সামলাতে ট্রায়াজ সিস্টেম এবং ফ্লু কর্নারকে আরও সক্রিয় করা হয়েছে। 

ডা. মহিউদ্দিন খান বলেন, বর্তমানে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৪৭৮ জন এবং আইসিইউতে ২১ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া ৩২ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। 

জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৬৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় ১৮৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে করোনা শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা হচ্ছে ১২ হাজার ৪৮৫জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ১৮৩ জন।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

সৌদি থেকে ফিরে কৃষিকাজ করে মাসে আয় ৩ লাখ

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ১৫ মৃত্যু

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:১৩

সাতক্ষীরায় কঠোর বিধিনিষেধ অমান্য করে ঢাকায় যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে কালিগঞ্জে একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার (২৪ জুলাই) রাত ৮টার দিকে কালিগঞ্জ উপজেলার তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকা থেকে মাইক্রোবাসটি আটকের পর সেটি বাজেয়াপ্ত করা হয়।

জানা যায়, শ্যামনগর থেকে ১০ জন যাত্রী নিয়ে একটি টয়োটা হাইয়েস মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো-চ-১১-৮৪৯৬) ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। মাইক্রোবাসটি তারালী চৌরাস্তা মোড় এলাকায় পৌঁছায়। এসময় সেখানে থাকা করোনা এক্সপার্ট টিমের সদস্যরা মাইক্রোবাসটিতে তল্লাশি চালিয়ে যাত্রী বহনের বিষয়টি নিশ্চিত হন। বিধিনিষেধ অমান্য করে যাত্রী বহনের বিষয়টি দায়িত্বরত সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীরকে জানানো হলে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মাইক্রোবাসটি সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করেন।

সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শাহনেওয়াজ তানভীর সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করায় একটি মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন।

/টিটি/

সম্পর্কিত

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

সর্বশেষ

টোকিও অলিম্পিকে আরও খারাপ করলেন বাকী

টোকিও অলিম্পিকে আরও খারাপ করলেন বাকী

রংপুরে প্রথম ত্বীন চাষ, সাত মাসে লাখ টাকা আয়

রংপুরে প্রথম ত্বীন চাষ, সাত মাসে লাখ টাকা আয়

করোনামুক্ত হয়েও ধকল বয়ে বেড়াচ্ছেন তারা

করোনামুক্ত হয়েও ধকল বয়ে বেড়াচ্ছেন তারা

সৃজিতের নির্মাণে আড়াই মিনিটের রহস্যময় বাঁধন (ভিডিও)

সৃজিতের নির্মাণে আড়াই মিনিটের রহস্যময় বাঁধন (ভিডিও)

আ’লীগের উপ-কমিটি থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে অব্যাহতি

আ’লীগের উপ-কমিটি থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে অব্যাহতি

সাগরে লঘুচাপ, কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

সাগরে লঘুচাপ, কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

রামপুরায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রামপুরায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

মতিঝিলে গাড়ির গ্যারেজে আগুন

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

বাংলাদেশ সফর থেকে ছিটকে গেলেন ফিঞ্চ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু ২৮ জুলাই

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

ফুটবল খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

খুলনার ৪ হাসপাতালে ফের মৃত্যু বেড়েছে

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

বিধিনিষেধ না মেনে যাত্রী পরিবহন, মাইক্রোবাস বাজেয়াপ্ত

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

এক হাসপাতালেই ১৯ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

যশোর জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭ মৃত্যু

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

ভারত থেকে ট্রেনে এলো ২০০ মেট্রিক টন অক্সিজেন

পুকুর থেকে ক্যাডেট কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

পুকুর থেকে ক্যাডেট কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune