X
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

কোরবানি না দিলেও বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যায় মাংস

আপডেট : ২১ জুলাই ২০২১, ২১:৫৮

কোরবানির পশুর গোশত নিম্ন আয়ের মানুষের হাতে পৌঁছে দিতে অন্যরকম এক ব্যবস্থা চলে আসছে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বন্দবিলা ইউনিয়নের মথুরাপুর গ্রামে। এই গ্রামে কোরবানির পশুর মাংস এক জায়গায় জড়ো করে গ্রামের যারা কোরবানি দেয়নি তাদের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়।  

ঈদের দিন দুপুর দেড়টার দিকে মাংসের ব্যবস্থাপনায় থাকা মথুরাপুর গ্রামের ওষুধ দোকানি মো. আশরাফুল ইসলামের ফোনে একটি কল আসে। ওপাশ থেকে জানানো হয়, তাদের মাংস হয়েছে ৫ মণ ২১ কেজি। ঠিক ১৫ মিনিট পরেই ভ্যানযোগে বস্তা ও গামলায় ৬০ কেজি মাংস দিয়ে যান একই গ্রামের বাসিন্দা আতিয়ার রহমান ও তার অংশীজনরা।

এভাবে ধীরে ধীরে মাদ্রাসা এলাকায় আসেন ইসলাম, মাহবুব, আক্তারসহ অন্যরা। তারা কেউ সাইকেলে, কেউ মোটরসাইকেলে, কেউ ভ্যানে কিংবা কেউ পায়ে হেঁটে তাদের মাংস দিয়ে যান এখানে।

২২ বছর ধরে এই গ্রামের বাসিন্দা, যারা কোরবানি দেন, তারা মাংসের তিনভাগের একভাগ এখানে দিয়ে যান। 

গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী মোহাব্বত আলী জীবন বলেন, বছর ২২-২৩ আগে এক ঈদে মুরুব্বি কয়েকজনের সঙ্গে বাঘারপাড়ার দোহাকুলা গ্রামে এক কাজে গিয়েছিলাম। সেখানে দেখি, কোরবানির লুটের মাংস (কোরবানির তিনভাগের একভাগ মাংস, যা গরিবদের দেওয়া হয়) এক জায়গায় জমা হচ্ছে। পরে সেগুলো ভাগ করে গ্রামের অন্য বাসিন্দা, যারা কোরবানি দেয়নি বা গরিব মানুষ, তাদের মধ্যে বণ্টন করা হয়। পদ্ধতিটি আমার ও মুরুব্বিদের বেশ মনে ধরে। পরে এলাকায় ফিরে পরের বছর থেকে আমরাও একই প্রক্রিয়ায় মাংস দেওয়া শুরু করি।

তিনি আরও বলেন, প্রথমদিকে কোরবানি আমাদের মাদ্রাসা প্রাঙ্গণেই হতো। সেখানে জমা করা মাংস গ্রামের মানুষদের আমরা ভ্যানযোগে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিতাম। তবে মাদ্রাসার পরিবেশ রক্ষার্থে এখন যারা কোরবানি দিতে চান, তারা পছন্দসই স্থানে কোরবানি দিয়ে লুটের মাংস মাদ্রাসায় পাঠিয়ে দেন। এরপর গ্রামের যারা কোরবানি দেননি, তাদের পরিবারের লোকসংখ্যার ওপর নির্ভর করে দেড় থেকে আড়াই কেজি কিংবা আরও বেশি মাংস বণ্টন করা হয়। এর আগে স্থানীয় মুরুব্বিদের উপস্থিতিতে তালিকা প্রস্তুত করা হয়—যোগ করেন তিনি।

একই গ্রামের বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব ইমারত হোসেন। তিনি কোরবানি দিয়েছেন একটি ছাগল। জমাকেন্দ্রে মাংস দিয়েছেন সাড়ে ৫ কেজি। তিনি বলেন, ২০ বছর ধরে এখানে মাংস দিই। যারা কোরবানি দিতে পারে না কিংবা কারও কাছে যেতে পারে না, এখান থেকে তাদের বাড়িতে মাংস পৌঁছে দেওয়া হয়। ঈদের আনন্দ যেন সবাই উপভোগ করতে পারে, সে লক্ষ্যেই এই প্রক্রিয়া চলে আসছে বলে জানান তিনি। এখানে মাংস দিলে সবাই পায়।

যুবক আক্তারুজ্জামান বলেন, আমার চাচা, ভাইসহ জ্ঞাতিরা এবার তিন জায়গায় কোরবানি দিয়েছি। যথারীতি মাংস মাদ্রাসায় পাঠানো হয়েছে। বুদ্ধি হওয়ার পর থেকেই আমরা দেখছি মাদ্রাসায় মাংস দিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ব্যবস্থাপনা কমিটি সেই মাংস প্যাকেটজাত করে পরিবারের লোকসংখ্যা অনুযায়ী দেড় কেজি, দুই বা আড়াই কেজি করে বণ্টন করেন। তালিকায় থাকা কেউ মাংস না নিলে তার বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয়। 

মথুরাপুর বাজারের চা দোকানি তরিকুল ইসলাম বলেন, বছর তিন আগে আমি গ্রামে ফিরি। বর্তমানে দোকানদারি করে কোনও রকমে চলছি। তখন থেকেই প্রতি কোরবানির ঈদে কমিটির লোকজন আমাকে মাংস দিয়ে আসছে। এতে অন্যদের সঙ্গে আমরাও ঈদ আনন্দে শামিল হতে পারি। 


গত পাঁচ বছর ধরে মাংস সংগ্রহ ও বণ্টনের কাজ করে আসছেন ওষুধ দোকানি মো. আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে এলাকার মানুষদের তালিকা তৈরি করা হয়। মুরুব্বিরা এসে সেই মাংস যারা এখানে উপস্থিত থাকে, তালিকা অনুযায়ী তাদের হাতে দিয়ে দেন। যারা অনুপস্থিত থাকেন, তাদের বাড়িতে স্বেচ্ছাসেবকরা মাংস পৌঁছে দেন।

তিনি জানান, এই বছর গ্রামের ৪৩ জন কোরবানি দিয়েছেন। তাদের পাঠানো মাংসের পরিমাণ ৫৫৫ কেজি। এরমধ্যে গরুর মাংস ৫১০ কেজি ও ছাগলের মাংস ৪৫ কেজি। এবার ২৭৫ ঘরে মাংস দেওয়া হয়েছে। আর গত বছর আমাদের ৩১ জন কোরবানির মাংস দিয়েছিলেন। মাংসের পরিমাণ ছিল ৫৬১ কেজি। এরমধ্যে গরুর মাংস ছিল ৪৫৮ কেজি ও ছাগলের মাংস ১০৩ কেজি। ২৫০ ঘরে আমরা মাংস পৌঁছে দিতে পেরেছিলাম।

বন্দবিলা ইউপি চেয়ারম্যান সবদুল হোসেন খান বলেন, বাঘারপাড়ায় আরও কয়েকটি স্থানে এভাবে কোরবানির মাংস বণ্টন হয়ে আসছে। মথুরাপুরেরটি বেশ ক’বছর ধরে চলে আসছে। এটি একটি ভালো উদ্যোগ। এতে ধনী-গরিব সবাই ঈদ আনন্দ ভাগ করে নিতে পারছেন। 

/টিটি/এমওএফ/

সম্পর্কিত

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, মোংলা বন্দরে সংকেত

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, মোংলা বন্দরে সংকেত

খুলনা বিভাগে আরও ৩০ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩০ জনের মৃত্যু

লকডাউনে বগুড়া থেকে হিলিতে চকলেট কিনতে যাওয়ায় জরিমানা

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০২:২৭

লকডাউন উপেক্ষা করে বগুড়া থেকে প্রাইভেট কার নিয়ে হিলিতে চকলেট কিনতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন তিন জন। তাদের সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় আরও ১৩ জনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্রবার (২৩ জুলাই) দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত হিলি বাজার মহিলা কলেজ, সিপি রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ ও বিজিবির সহায়তায় অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করা হয়। 

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নূর-এ আলম। এ সময় হাকিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নূর-এ আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সারাদেশে করোনা সংক্রমণের হার বাড়ছে। সংক্রমণরোধে ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হিলিতে আমরা অভিযান চালিয়েছি। লকডাউন উপেক্ষা করে অকারণে যারা রাস্তায় বেরিয়েছেন তাদের জরিমানা করেছি। এর মধ্যে অভিযানের সময় দেখেছি, বগুড়া থেকে প্রাইভেট কার নিয়ে তিন জন হিলিতে চকলেট কিনতে এসেছেন। তাদের জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি না মানায় আরও ১৩ জনকে জরিমানা করা হয়েছে। সবমিলে ১৬ জনকে চার হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা করা হয়। জনস্বার্থে এ অভিযান চলবে।

/এএম/

সম্পর্কিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

মদপানে ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫

মদপানে ২ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

লকডাউন অমান্য করায় ব্যবসায়ীর ৭ দিনের জেল

সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে গরু বিক্রির ১৫ লাখ টাকা লুট

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০১:২৪

ফেনীতে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে গরু ব্যবসায়ীর হাত-পা বেঁধে প্রায় ১৫ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় শুক্রবার (২৩ জুলাই) ফেনী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী গরু ব্যবসায়ী শাহজাহান মিয়া। 

এর আগে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সদর উপজেলার ফরহাদনগর ইউনিয়নের দক্ষিণ কাটা মোবারক ঘোনা এলাকার খালেক মাঝির বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

শাহজাহান মিয়া থানায় অভিযোগ করেন, গভীর রাতে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে দুর্বৃত্তরা। অস্ত্র ঠেকিয়ে তার হাত-মুখ ও চোখ বেঁধে ফেলে বুকের ওপর বসেছিল তিন দুর্বৃত্ত; যেন চিৎকার করতে না পারেন। পরে গরু বিক্রির সাড়ে ১৪ লাখ টাকা নিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। 

ফরহাদনগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন টিপু বলেন, ঘটনার পর গরু ব্যবসায়ী শাহজাহান বিষয়টি আমাকে জানিয়েছেন। তবে দুর্বৃত্তদের চিনতে পারেননি তিনি। এজন্য থানায় অভিযোগ দিতে বলেছি।

ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। টাকা লুটের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিসোর্টে ঘুরতে গিয়ে জরিমানা গুনলেন ২৫ জন

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

ভারতের পর্যাপ্ত টিকা থাকার পর বাংলাদেশকে দেওয়া হবে: ভারতীয় হাই কমিশনার

ভারতের পর্যাপ্ত টিকা থাকার পর বাংলাদেশকে দেওয়া হবে: ভারতীয় হাই কমিশনার

ঈদের পর বিধিনিষেধের প্রথমদিনে ফাঁকা মহাসড়ক 

ঈদের পর বিধিনিষেধের প্রথমদিনে ফাঁকা মহাসড়ক 

তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০১:৩৯

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার মেয়ারচর গ্রামে এক তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে হাতেনাতে আটক যুবককে থানায় সোপর্দ না করে সালিশের নামে ছেড়ে দিয়েছেন স্থানীয় মাতব্বররা। একই সঙ্গে অভিযুক্ত যুবকের গলায় জুতার মালা পরিয়ে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন সালিশদারেরা।

অভিযোগ আছে, জরিমানার ৪০ হাজার টাকা পরিশোধ করে সটকে পড়ে যুবক। ওই টাকা রয়েছে সালিশদারদের পকেটে। 

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) রাত ১০টার দিকে এক জেলের ঘরে ঢুকে তার মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করে স্থানীয় যুবক বেল্লাল রাঢ়ি। এ সময় তরুণীর পরিবারের সদস্যরা বেল্লালকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। রাতে ওই যুবককে তরুণীর বাড়ির উঠানের গাছের সঙ্গে শিকল বেঁধে মারধর করা হয়। বিষয়টি রাতেই স্থানীয় গণ্যমান্যদের মাঝে জানাজানি হয়।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকালে স্থানীয় মামুন চৌকিদার, জসিম খান, কবির খাঁ, আনোয়ার চৌকিদার ও মো. জহিরসহ অন্যান্যদের উপস্থিতিতে তরুণীর বাড়িতে সালিশ বৈঠক বসে। সালিশে বেল্লালকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা এবং জুতার মালা গলায় পরানো হয়। বেল্লালের পরিবার তাৎক্ষণিক ৪০ হাজার টাকা সালিশদারদের কাছে দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নেয়। তবে ওই অর্থ তরুণীর পরিবার পায়নি।

সালিশ করার কথা স্বীকার করলেও জরিমানা করা হয়নি বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সালিশদার মামুন চৌকিদার। তিনি বলেন, ‘ওই ছেলে এবং মেয়ে পরস্পরকে ভালোবাসে। ওই রাতে বেল্লাল তার প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে যায়। এ সময় প্রেমিকার পরিবারের সদস্যরা তাকে ধরে গাছে বেঁধে মারধর করেন। খবর পেয়ে সকালে সালিশ করে বেল্লালকে মুক্তির ব্যবস্থা করা হয়। এ সময় শর্ত দেওয়া হয়, ওই ছেলে কিংবা মেয়ে ভবিষ্যতে; যে আগে মোবাইলে কল দেবে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে।’

মেহেন্দিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম জানান, তিনি এই ধরনের কোনও খবর জানেন না। এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেবেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

বিয়ের রাত কাটলো লঞ্চের ডেকে

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

উপহারের ঘর তৈরিতে নামমাত্র নির্মাণসামগ্রী

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৫ মৃত্যু

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

এক ঘণ্টায় ছাড়লো ১১টি লঞ্চ, যাত্রী কানায় কানায় পূর্ণ

করোনায় শিক্ষা কর্মকর্তার মৃত্যু

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০০:৫৪

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী আব্দুল মোকিম। শুক্রবার (২৩ জুলাই) দুপুরে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ডামুড্যা উপজেলা শাখা।

জানা গেছে, কাজী আব্দুল মোকিম ১৯৯৩ সালে চাকরিতে যোগ দেন। তিনি আইন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। রাজশাহীর আলুপট্টি এলাকার বাসিন্দা ছিলেন।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ডামুড্যা উপজেলার সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন মাঝি ও সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

প্রিমিয়ার সিমেন্টকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ড

প্রিমিয়ার সিমেন্টকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ড

পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা, থানায় জিডি

পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা, থানায় জিডি

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

চাকরির প্রলোভনে টঙ্গীতে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

চাকরির প্রলোভনে টঙ্গীতে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রিমিয়ার সিমেন্টকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ড

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ০০:২৩

মুন্সীগঞ্জে লকডাউন অমান্য করে কারখানা খোলা রাখায় প্রিমিয়ার সিমেন্টকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় প্রিমিয়ার সিমেন্ট মিলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) নজরুল ইসলামকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডও দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হামিদুর রহমান এ জরিমানা ও কারাদণ্ড দেন।

জেলার অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) শিলু রায় এ খবর নিশ্চিত করে জানান, জরিমানা অনাদায়ে আরও একমাস কারাদণ্ড হবে। আগামী ১৩ দিন কারখানা সিলগালা থাকবে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় মুন্সীগঞ্জ শহরের পশ্চিম মুক্তারপুরে অবস্থিত প্রিমিয়ার সিমেন্টের কারখানায় কর্মরত এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। ওই শ্রমিকের নাম মো. শাহাবুল (৩৮)। এতে লকডাউনে কারখানা খোলা রাখায় বিকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানে অভিযান চালায়। তিনি গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম শিবরামপুরের মৃত শামসুদ্দিনের ছেলে। কারখানায় কর্মরত অবস্থায় ক্লিংকার টানার ফিতায় পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

এদিকে, প্রিমিয়ার সিমেন্ট মিলস লিমিটেডের প্রশাসন বিভাগের পক্ষ থেকে কারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের উদ্দেশে জারি করা একটি নোটিশ বাংলা ট্রিবিউনের মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধির হাতে এসেছে। নোটিশে শ্রমিকদের ঈদের ছুটি কাটিয়ে ২৩ জুলাই সকাল ৬টার মধ্যে কর্মস্থলে ফেরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে কোম্পানি কঠোর ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে বলে ঘোষণা দেয়।

/এফআর/

সম্পর্কিত

করোনায় শিক্ষা কর্মকর্তার মৃত্যু

করোনায় শিক্ষা কর্মকর্তার মৃত্যু

পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা, থানায় জিডি

পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা, থানায় জিডি

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

মাছের ড্রামের ভেতরে লুকিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলেন তারা

সম্পর্কিত

‘কঠোরতম’ লকডাউনের দ্বিতীয় দিন চলছে

‘কঠোরতম’ লকডাউনের দ্বিতীয় দিন চলছে

আ. লীগ বলছে জোট অটুট, শরিকরা বলছে অকার্যকর

আ. লীগ বলছে জোট অটুট, শরিকরা বলছে অকার্যকর

ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে স্পিকার ও মন্ত্রীদের শোক

ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে স্পিকার ও মন্ত্রীদের শোক

আজ থেকে বাংলাদেশ গণসংগীতহীন হলো: ফেরদৌস ওয়াহিদ

স্মরণে ফকির আলমগীরআজ থেকে বাংলাদেশ গণসংগীতহীন হলো: ফেরদৌস ওয়াহিদ

গণসংগীতের জন্য ফকির আলমগীর স্মরণীয় হয়ে থাকবেন: প্রধানমন্ত্রী

গণসংগীতের জন্য ফকির আলমগীর স্মরণীয় হয়ে থাকবেন: প্রধানমন্ত্রী

করোনায় প্রাণ হারালেন গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর

করোনায় প্রাণ হারালেন গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

লকডাউনে সীমিত পরিসরে চলবে হাইকোর্টের বিচার

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন বাতিল, আর কত হারাবেন তারা?

একদিনে ঢাকায় ফিরলো ৮ লাখ সিম কার্ড

একদিনে ঢাকায় ফিরলো ৮ লাখ সিম কার্ড

বেতন ৩০ হাজার, ব্যাংকে লেনদেন শত কোটি টাকা!

বেতন ৩০ হাজার, ব্যাংকে লেনদেন শত কোটি টাকা!

সর্বশেষ

‘কঠোরতম’ লকডাউনের দ্বিতীয় দিন চলছে

‘কঠোরতম’ লকডাউনের দ্বিতীয় দিন চলছে

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

হাইতির নিহত প্রেসিডেন্টের শেষকৃত্যেও গুলির শব্দ

ক্ষমা চাইলেন সেই জার্মান সাংবাদিক

ক্ষমা চাইলেন সেই জার্মান সাংবাদিক

শহীদ মিনারে ফকির আলমগীরকে জানানো হবে শেষ শ্রদ্ধা 

শহীদ মিনারে ফকির আলমগীরকে জানানো হবে শেষ শ্রদ্ধা 

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

প্রবল বর্ষণে মহারাষ্ট্রে মৃত বেড়ে ১১০

লকডাউনে বগুড়া থেকে হিলিতে চকলেট কিনতে যাওয়ায় জরিমানা

লকডাউনে বগুড়া থেকে হিলিতে চকলেট কিনতে যাওয়ায় জরিমানা

শেষ জন্মদিনে যে কথা দিয়েছিলেন অসহায়দের...

স্মরণে ফকির আলমগীরশেষ জন্মদিনে যে কথা দিয়েছিলেন অসহায়দের...

শনিবার তালতলা কবরস্থানে সমাহিত হবেন ফকির আলমগীর

শনিবার তালতলা কবরস্থানে সমাহিত হবেন ফকির আলমগীর

সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে গরু বিক্রির ১৫ লাখ টাকা লুট

সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে গরু বিক্রির ১৫ লাখ টাকা লুট

জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় মুখ্য হিট অফিসার নিয়োগ

জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় মুখ্য হিট অফিসার নিয়োগ

আ. লীগ বলছে জোট অটুট, শরিকরা বলছে অকার্যকর

আ. লীগ বলছে জোট অটুট, শরিকরা বলছে অকার্যকর

তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

গোসল করতে পুকুরে নেমে তলিয়ে গেছেন সাবেক ক্যাডেট

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, মোংলা বন্দরে সংকেত

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ, মোংলা বন্দরে সংকেত

খুলনা বিভাগে আরও ৩০ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩০ জনের মৃত্যু

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

খাগড়াছড়িতে বিচারক আক্রান্ত, প্রাণ গেছে আইনজীবীর

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

দাম নেই, বগুড়ায় চামড়া গেছে ভাগাড়ে

ময়লার ভাগাড় ও রাস্তায় পড়ে আছে চামড়া

ময়লার ভাগাড় ও রাস্তায় পড়ে আছে চামড়া

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

রংপুরে আরও ১৫ মৃত্যু, খালি নেই আইসিইউ বেড

খুলনার পাঁচ হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

খুলনার পাঁচ হাসপাতালে মৃত্যু কমেছে

© 2021 Bangla Tribune