X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

উপহার পেয়েও ঘরে উঠছেন না গৃহহীনরা

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১, ১১:০০

নানা সমস্যার কারণে শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায় মুজিব জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারের ঘরে হস্তান্তরের চার-পাঁচ মাস পরেও অনেক গৃহহীন ওঠেননি। আবার কেউ কেউ ঘরে উঠেও ফিরে গেছেন পুরনো ঠিকানায়। নির্মাণে নানা ত্রুটির কারণে এ পর্যন্ত দুইবার মেরামত করা হয়েছে ঘরগুলো। অনেক ঘরের সামনের পিলারে ফাটল ধরেছে। ফ্লোর ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। অত্যন্ত নিম্নমানের কাঠ ব্যবহার করা হয়েছে। এখনও চলছে জোড়াতালির কাজ।

ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দুই শতক জমি ও একটি সেমিপাকা ঘর উপহার হিসেবে দেওয়ার জন্য আশ্রয়ন-২ নামে একটি প্রকল্প চালু করা হয়। এ প্রকল্পের আওতায় উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ৬৬ ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ২৮টি ঘর নির্মাণ করে হস্তান্তর করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

সরেজমিন দেখা যায়, পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়নের দাইমী চরভয়রা বিলের ভেতর কৃষিজমিতে ২২টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে এ ঘরগুলো হস্তান্তর করা হয়েছে। কিন্তু ওই আশ্রয়ণের ঘরে যাওয়ার কোনও রাস্তা না থাকায় উপকার ভোগীরা থাকার আগ্রহ হারিয়েছেন। নির্মাণে জড়িতরা বর্ষার স্বাভাবিক পানির উচ্চতার স্তর বিবেচনায় না নিয়ে সেখানে ঘরগুলো নির্মাণ করেছেন। স্থানীয়দের আশঙ্কা, বর্ষার পানি বাড়লে ঘরগুলো পানিতে তলিয়ে যাবে। বসবাসের উপযোগী থাকবে না। তাছাড়া ডামুড্যা উপজেলা শহর থেকে অনেক দূরে বিচ্ছিন্ন জায়গায় ঘর নির্মাণ করায় শ্রমজীবী এসব মানুষের আয়-রোজগারে নতুন চ্যালেঞ্জ দেখা দিয়েছে। এ কারণেও অনেক পরিবার সেখানে ওঠেনি।

২২টি ঘরের মধ্যে মাত্র পাঁচটি ঘরে উপকারভোগীরা বসবাস করছে। বাকিদের মধ্যে কেউ কেউ পরিবার পরিজন নিয়ে ঘরে উঠেও নানা সমস্যার কারণে থাকতে পারেননি। আবার অনেকে এখনও ওঠেননি।

চরভয়রা পূর্ব ডামুড্যা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে ১৪টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। এ ঘরগুলো দ্বিতীয় পর্যায়ে উদ্বোধন শেষে হস্তান্তর করা হয়েছে। কিন্তু রাস্তার পাশে হলেও রাস্তা থেকে তিন ফুট গভীরে ঘরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। একটু বৃষ্টি হলেই পানিতে তলিয়ে যায়। একই ইউনিয়নের নওগাঁয় ১৩টি ও দারুল আমান ইউনিয়নের কাইলারা গ্রামে ১৪টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। সেগুলোও দ্বিতীয় পর্যায়ে উদ্বোধন শেষে হস্তান্তর করা হয়েছে। কিন্তু সেখানেও উপকার ভোগীরা উঠতে পারেনি।

এসব ঘর নির্মাণে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন তৎকালীন ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মর্তুজা আল মুঈদ এবং সাধারণ সম্পাদক ছিলেন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) তাহমিনা আক্তার চৌধুরী। 

দাইমী চরভয়রা আশ্রয়ণের উপকারভোগী কল্পনা বেগম বলেন, ‘আমি ঘরে উঠেছিলাম। আমার ঘরের সামনের তিনটি পিলারের দুটি ফেটে গেছে। বারান্দার মেঝে ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। আমি স্যারদের জানিয়ে, ভয়ে চলে গেছি। এখান থেকে বের হওয়ার কোনও রাস্তা নেই। একহাঁটু কাদাপানি ডিঙিয়ে মানুষের বাড়ি বাড়ি দিয়ে যেতে হয় রাস্তায়। এখনও বিদ্যুৎ সংযোগ পাইনি। থাকার পরিবেশ হলে ঘর মেরামত করার পরে এখানেই থাকবো।’

উপকারভোগী ভিক্ষুক মাজেদা বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেয়ে খুশি হয়েছি। সেই ঘরেই থাকি কিন্তু এখান থেকে বের হতে পারি না। ভিক্ষা ছাড়া আমার সংসার চালানোর কোনও উপায় নেই। এখন আমি বিপদে পড়েছি।’

উপকারভোগী জহুরা বেগম বলেন, ‘উদ্বোধনের পরেই আমরা ঘরে উঠেছি। কিন্তু এখনও বিদ্যুৎ সংযোগ পাইনি। প্রচুর মশা। মানুষ থাকার পরিবেশ নেই। এলাকায় কোনও কাজ নেই। তাই এখানে থাকলে না খেয়ে মরতে হবে। অনেকেই ঘরে উঠছিল। সমস্যার কারণে চলে গেছে। আমাদের যাওয়ারও জায়গা নেই। ঘরটা ফেটে যাওয়ার পরে সংস্কার করে দিয়েছে স্যারেরা।’

স্থানীয় বাসিন্দা উম্মে কুলসুম বলেন, ‘আমার বাড়িতে গত বছরই পানি উঠেছে। এটা তো অনেক নিচুতে রয়েছে। বর্ষা শুরু হলেই পানিতে তলিয়ে যাবে।’

ঘর মেরামতে কাজ করা কুড়িগ্রাম জেলার রাজমিস্ত্রি জুয়েল রানা বলেন, ‘ঘরের ফাটলগুলো জোড়া দিতে এসেছি। কাজ শেষ করতে আজকের পুরো দিন লেগে যাবে।’

এ বিষয়ে ঘর নির্মাণ কমিটির সভাপতি তৎকালীন ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুর্তজা আল মুঈদ বলেন, ‘আমরা দরদ দিয়েই ঘরের নির্মাণকাজ শেষ করেছি। ফেটে গেলে তো কিছু করার নেই। পাঁচতলা বিল্ডিংও ফেটে যায়। সরকার যদি বরাদ্দ দেয় তাহলে মেরামত করে দেবো।’

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) তহমিনা আক্তার চৌধুরীকে বারবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি।

সদ্য যোগদান করা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ বলেন, ‘জেলা প্রশাসক স্যারের নির্দেশে আমি আশ্রয়নের ঘরগুলো পরিদর্শন করে প্রকৃত অবস্থা তাকে জানিয়েছি। ছোটখাটো কিছু সমস্যা আছে, সেগুলো রিপেয়ার করার কাজ শুরু করেছি।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

‘৩ ডোজ টিকা নেওয়া’ সেই সৌদি প্রবাসী কোথায়?

‘৩ ডোজ টিকা নেওয়া’ সেই সৌদি প্রবাসী কোথায়?

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৬:০২

টাঙ্গাইলে টিকার নিবন্ধন নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে একজনকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে টাঙ্গাইলের র‌্যাব-১২ এর কর্মকর্তা এরশাদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আটক সাব্বির হোসেন রুবেল সদর উপজেলার নগরজলফৈ গ্রামের সামাদ মিয়ার ছেলে।

র‌্যাব কর্মকর্তা এরশাদুর রহমান বলেন, ‘করোনা টিকা নেওয়ার রেজিস্ট্রেশন (নিবন্ধন) করে দেওয়ার কথা বলে সাব্বির হোসেন রুবেল প্রত্যেক ব্যক্তির থেকে দেড় থেকে দুই হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছিলো। এমন অভিযোগ পেয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে নগরজালফৈ এলাকার আরাফ ফটোস্ট্যাট অ্যান্ড কম্পিউটারের দোকানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় তাকে আটক করা হয়।’

পরে মামলা দিয়ে তাকে সদর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান তিনি। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

আমিরাত থেকে আসা জাহাজের ৮ নাবিক করোনায় আক্রান্ত

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৬:০৫

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসা মোংলা বন্দরে অবস্থানরত একটি জাহাজের আট বিদেশি নাবিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের বুধবার (২৮ জুলাই) রাতে খুলনার গাজী মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের পতাকাবাহী ‘এম ভি ফাজাহ-১’ নামের জাহাজটির স্থানীয় শিপিং এজেন্ট সান সাইন বিজনেস লিমিটেডের নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোহাগ হোসেন বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ৩২০০ টন মেশিনারি পণ্য নিয়ে গত ২৬ জুলাই মোংলা বন্দরে আসে জাহাজটি। এ সময় জাহাজে থাকা আট জনের শরীরে জ্বর দেখা দিলে তাদের বন্দরের চিকিৎসক মো. কবিরুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এরপর তার পরামর্শে বুধবার রাতে তাদের খুলনায় পাঠানো হয়। সেখানে তাদের করোনা শনাক্ত হয়।’

তারা হলেন- ভারতের নুতান গাটিয়াল আনিউল্লাহ, আমিলি আনিকেট দাসারাম, রয় প্রবীর শাওপান, ঘুনটু চালাপাথিরাও, মান্ডাল সঞ্চিত; ফিলিপাইনের চেকর ওকাপ নাইল, বিউন ফ্লোর টালাম এবং ইথিওপিয়ার ইজাইনি টিলাউন মাহিরিটু।

এদিকে আট নাবিক আক্রান্তের খবরে বন্দরে অবস্থানরত ফাজাহ-১ জাহাজের সব কাজ বন্ধ রয়েছে বলে জানান হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন। জাহাজটিতে ১৬ জন নাবিক রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

/এফআর/

সম্পর্কিত

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:৪১

সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ নারীসহ ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ (সামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। এ নিয়ে জেলায় ২৯ জুলাই পর্যন্ত করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৫৩৩ জন। পাশাপাশি করোনায় মারা গেছেন ৮৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তিরা হলেন আশাশুনি উপজেলার চাপড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের স্ত্রী রিনা বেগম (৩০), কালিগঞ্জ উপজেলার শ্রীকলা গ্রামের মৃত আরমানের স্ত্রী রাবেয়া খাতুন (৭৫), একই উপজেলার নলতা গ্রামের আনছার গাজীর স্ত্রী মর্জিনা খাতুন (৫০), সাতক্ষীরা শহরের রসুলপুর এলাকার নজিবুল্লাহর স্ত্রী রত্না অধিকারী (২৮), সদর উপজেলার কাথন্ডা গ্রামের কবির হোসেনের স্ত্রী মাসকুরা (৪৫) ও শ্যামনগরের ধুমঘাট গ্রামের মোহাম্মাদ গাজীর ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৫০)।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টসহ করোনার নানা উপসর্গ নিয়ে গত ১১ জুলাই থেকে ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে সাতক্ষীরা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি হন এসব ব্যক্তি। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। 

এদিকে সাতক্ষীরায় গতকালের চেয়ে করোনা সংক্রমণের হার বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯৯টি নমুনা পরীক্ষায় ৬০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ১৫ শতাংশ। আগের দিন শনাক্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৮৯ শতাংশ।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মেডিক্যাল কর্মকর্তা ও জেলা করোনা বিষয়ক তথ্য কর্মকর্তা ডা. জয়ন্ত কুমার সরকার বলেন, এ পর্যন্ত সাতক্ষীরায় করোনা রোগীর সংখ্যা পাঁচ হাজার ৫৪৫ জন। জেলায় সুস্থ হয়েছেন চার হাজার ২৭৫ জন। বর্তমানে করোনা রোগী রয়েছেন এক হাজার ১৮৬ জন। হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীর সংখ্যা ৩২ জন। এদের মধ্যে সামেক হাসপাতালে ২৯ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে তিন জন ভর্তি আছেন। হোম আইসোলেশনে আছেন এক হাজার ১৫৪ জন। উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৪৩  জন। এর মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি ৪০ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি তিন জন। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৩৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৮ জন। করোনায় এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৮৪ জন। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৫৩৩ জন।

/এএম/

সম্পর্কিত

আমিরাত থেকে আসা জাহাজের ৮ নাবিক করোনায় আক্রান্ত

আমিরাত থেকে আসা জাহাজের ৮ নাবিক করোনায় আক্রান্ত

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

তলিয়ে গেছে মোংলা শহর, পানিবন্দি ৭ হাজার মানুষ

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১১ মৃত্যু

লকডাউনেও এক চাঁদের গাড়িতে ৭০ যাত্রী! 

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:৩৫

লকডাউন অমান্য করে একসঙ্গে ৭০ জন যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে জব্দ করা হয়েছে একটি জিপ (চাঁদের গাড়ি)। যাত্রীদেরকে সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সুপ্রিয় দেব।

সুপ্রিয় দেব বলেন, খাগড়াছড়িতে স্থানীয়রা লকডাউন মানতে চান না। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) খাগড়াছড়িতে হাটবার থাকে। লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাজার করে বাড়িতে ফিরবে এমনটা হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়নি।

তিনি জানান, বাজার শেষে সদরের নয়মাইল কৃষি গবেষণা সীমানাপাড়া যাওয়ার একটি চাঁদের গাড়িতে ৭০ জন যাত্রী পরিবহন করা হয়। বলা যায় একজনের ওপর আরেক যাত্রী তুলে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছিলো। গাড়িটি আদালত মোড়ে আসলে পুলিশ চেকপোস্টে থামানো হয়। পরে যাত্রীরা ক্ষমা চেয়ে ছাড় পায়। তবে গাড়িটি জব্দ করে খাগড়াছড়ি সদর থানায় নেওয়া হয় বলে জানান তিনি।

খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আবদুর রশিদ সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করে না। এরই সুযোগ নিয়ে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের ঘটনায় জিপ গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

ঘরের আড়ায় ঝুলছিল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ 

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

চাঁদপুর হাসপাতালে ৮ ঘণ্টায় ৭ মৃত্যু

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

কুমিল্লায় কাভার্ডভ্যান উল্টে দুই শ্রমিকসহ নিহত ৩ 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

লকডাউনে ছেলের বিয়ের আয়োজন, জরিমানা গুনলেন নারী মেম্বার 

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা, তিন ছেলেকে কুপিয়ে জখম

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ১৫:১৫

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে বরিশালের উজিরপুরে এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধার তিন ছেলেসহ চার জনকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের আটিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেন তালুকদার (৮০) আটিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। আহতরা হলেন তার ছেলে বিপ্লব তালুকদার, সোহাগ তালুকদার ও জুয়েল তালুকদার এবং বিপ্লবের স্ত্রী রোজিনা বেগম। আহতদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে সোনিয়া আক্তার বলেন, ‘প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা আমার বাবাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। হাসপাতালে আনার পর বাবার মৃত্যু হয়।’

শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, দেলোয়ার হোসেনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিপ্লব তালুকদার বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। সকালে নুরুল ইসলাম ৩০-৩৫ জন লোক নিয়ে বিরোধপূর্ণ জমিতে চাষাবাদ শুরু করে। খবর পেয়ে বাবা সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় নুুরুল ইসলামের সঙ্গে বাবার বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে নুরুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা পিটিয়ে ও কুপিয়ে বাবাকে জখম করে। খবর পেয়ে সেখানে গেলে আমাদেরও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত করা হয়।’

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরশেদ বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যায় জড়িতদের আটক করতে পুলিশের অভিযান চলছে। এরই মধ্যে ঘটনায় জড়িতরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

কুপিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিলেন অপর নেতা  

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১২ মৃত্যু

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা স্বীকার

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

টানা বৃষ্টিতে ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি-গাছ

সর্বশেষ

লোকবল নিচ্ছে ডাচ বাংলা ব্যাংক

লোকবল নিচ্ছে ডাচ বাংলা ব্যাংক

অনুমোদন পেল বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

অনুমোদন পেল বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেট

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

ফাঁকা শহরে বৃষ্টির আগমন (ফটোস্টোরি)

ফাঁকা শহরে বৃষ্টির আগমন (ফটোস্টোরি)

আমিরাত থেকে আসা জাহাজের ৮ নাবিক করোনায় আক্রান্ত

আমিরাত থেকে আসা জাহাজের ৮ নাবিক করোনায় আক্রান্ত

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫ নারীর মৃত্যু

গতবারের চেয়ে এবার কৃষিঋণ ২০০০ কোটি টাকা বেশি বিতরণ করতে চায় ব্যাংক

গতবারের চেয়ে এবার কৃষিঋণ ২০০০ কোটি টাকা বেশি বিতরণ করতে চায় ব্যাংক

‘দুই ম্যাচের একটি জিতিয়েছি, তবে আলোচনায় আসার মতো ইনিংস খেলিনি’

‘দুই ম্যাচের একটি জিতিয়েছি, তবে আলোচনায় আসার মতো ইনিংস খেলিনি’

আবারও শিল্প-কারখানা খুলে দেওয়ার দাবি গার্মেন্টস মালিকদের

আবারও শিল্প-কারখানা খুলে দেওয়ার দাবি গার্মেন্টস মালিকদের

লকডাউনেও এক চাঁদের গাড়িতে ৭০ যাত্রী! 

লকডাউনেও এক চাঁদের গাড়িতে ৭০ যাত্রী! 

চার দিন পর শিশুকে উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার

চার দিন পর শিশুকে উদ্ধার, অপহরণকারী গ্রেফতার

গার্মেন্টস কর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, দুজন গ্রেফতার

গার্মেন্টস কর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, দুজন গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

টিকার নিবন্ধনে জনপ্রতি নেওয়া হয় দেড় হাজার টাকা!

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

পুলিশের ধাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় ঝাঁপ দেওয়া তরুণের লাশ উদ্ধার 

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

নারী শ্রমিককে ধর্ষণ, বিচার চাইতে গিয়ে মা লাঞ্ছিত

‘৩ ডোজ টিকা নেওয়া’ সেই সৌদি প্রবাসী কোথায়?

‘৩ ডোজ টিকা নেওয়া’ সেই সৌদি প্রবাসী কোথায়?

শ্রীপুরে এক সপ্তাহে ৪ হত্যাকাণ্ড: স্থানীয়দের মাঝে উদ্বেগ

শ্রীপুরে এক সপ্তাহে ৪ হত্যাকাণ্ড: স্থানীয়দের মাঝে উদ্বেগ

কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় সড়কে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় সড়কে প্রাণ গেলো স্বামী-স্ত্রীর

যমজ দুই ভাইয়ের সঙ্গে যমজ বোনের বিয়ে

যমজ দুই ভাইয়ের সঙ্গে যমজ বোনের বিয়ে

টিকার ২ ডোজ নেওয়া সিভিল সার্জন করোনায় আক্রান্ত

টিকার ২ ডোজ নেওয়া সিভিল সার্জন করোনায় আক্রান্ত

বন্ধুর বাড়ি বেড়াতে এসে দোকানিকে গলা কেটে হত্যা

বন্ধুর বাড়ি বেড়াতে এসে দোকানিকে গলা কেটে হত্যা

© 2021 Bangla Tribune