X
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

স্কুল বন্ধ, বেতন না পেয়ে শিক্ষক এখন রাজমিস্ত্রি

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১, ১৭:১৬

করোনাভাইরাসের কারণে দেশের অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো দিনাজপুরের হিলিতেও দীর্ঘদিন ধরে সব কিন্ডারগার্টেন বন্ধ। এই সময়ে বেতন-ভাতা না পাওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আর্থিক সহযোগিতা পেলেও তারা থেকে গেছেন বাইরে। তাদের পক্ষে সংসার চালানোয় কঠিন হয়ে পড়েছে। তাই বাধ্য হয়ে শিক্ষকতা ছেড়ে অনেকেই মুদি দোকানি ও রাজমিস্ত্রির কাজ করছেন।

হিলিতে মোট ২১টি কিন্ডারগার্টেন রয়েছে। এগুলোতে শিক্ষক রয়েছেন ৩০০ জনের মতো। স্কুলগুলো করোনা মহামারি শুরুর পর থেকেই বন্ধ। দু-একটি স্কুল অনলাইনে পাঠদানের মাধ্যমে তাদের কার্যক্রম চালু রেখেছে। ইতোমধ্যে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা দিতে না পেরে এবং স্কুলের ভাড়া পরিশোধ করতে না পারে অনেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে।

সংসার চালাতে বাধ্য হয়ে রাজমিস্ত্রির কাজ করছেন আজিজুল
 
বাংলাহিলি ড্রিমল্যান্ড কিন্ডারগার্টেনের সহকারী শিক্ষক ছিলেন আজিজুল হক। বর্তমানে সংসার চালাতে বাধ্য হয়ে তিনি রাজমিস্ত্রির কাজ করছেন।

আজিজুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ২০২০ সালের ১৬ মার্চ থেকে করোনার কারণে স্কুল বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় আমরা কোনও জায়গা থেকে অনুদান বা সাহায্য পাইনি। দীর্ঘদিন ধরে বসে থাকতে থাকতে বেতন-ভাতা না পেয়ে বাধ্য হয়ে আমাদের নিজেদের চলার জন্য পরিবারকে চলার জন্য শিক্ষকতা ছেড়ে রাজমিস্ত্রির পেশা বেছে নিয়েছি।

তিনি বলেন, শিক্ষকতা একটি মহান পেশা। সে কারণেই এই পেশায় আসা। কিন্তু এখন এমন অবস্থা হবে তা ভাবতে পারিনি। যে হাত দিয়ে ছেলেমেয়েদের পড়ালেখার জন্য বই-খাতা-কলম ধরেছিলাম, এখন সেই হাত দিয়ে কুর্নি ধরতে হচ্ছে। পেট তো মানে না! তাই বাধ্য হয়ে পেশা পরিবর্তন করেছি।

আজিজুল হক আরও বলেন, রাজমিস্ত্রির কাজ করে এখন যা পাই তাই দিয়ে কোনোরকম সংসার চলে যাচ্ছে। এখন কতদিন করোনা থাকবে আর কতদিনে যে স্কুল-কলেজ খুলবে, তার সঠিক খবর নেই। যদি আবারও ভালোভাবে স্কুল খোলে, তাহলে শিক্ষকতা পেশায় ফিরে যাবো।

মুদি দোকান দিয়েছেন অনেকে
একই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন জয় বসাক বর্তমানে মুদি দোকানি। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিন যে স্কুলে চাকরি করতাম সেটা বন্ধ রয়েছে। একে তো স্কুল বন্ধ, যে কারণে বেতন-ভাতাও বন্ধ। তাই বর্তমানে করুণ অবস্থার মধ্যে রয়েছি। যে অবস্থা তাতে এই মুহূর্তে স্কুল খোলার কোনও সম্ভাবনাও নেই। ভবিষ্যতে কী হবে তা জানি না।

তিনি আরও বলেন, আমরা খুব শোচনীয় অবস্থার মধ্যে দিনাতিপাত করছি। এই অবস্থায় শিক্ষকতা বাদ দিয়ে নতুন পেশাকে বেছে নিতে হয়েছে। এখন একটি মুদি দোকান দিয়েছি। এখান থেকে যা আয় হচ্ছে তাই দিয়ে কোনোরকমে সংসার চালিয়ে নিচ্ছি।
 
ডাঙ্গাপাড়া মডেল স্কুলের সহকারী শিক্ষক আঙ্গুর বেগম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমি আগে বেসরকারি স্কুলে শিক্ষকতা করতাম। দীর্ঘদিন ধরে স্কুল বন্ধ তাই বর্তমানে বসেই আছি। এখন আর কী করবো? পরিবার তো চালাতে হবে? স্কুল খোলা থাকলে মাস শেষে যে টাকা পেতাম তাই দিয়ে নিজে যেমন চলতে পারতাম, সংসারেও কিছু করতে পারতাম। এখন সেটা আর হচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে এখন হাতের কাজ করছি। এগুলো বিক্রি করে যা আয় হচ্ছে তাই দিয়ে চলছি।

বাধ্য হয়ে এখন হাতের কাজ করছেন শিক্ষিকারা
 
একই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা সূচনা ইসলাম বলেন, আমি এই প্রতিষ্ঠানটি ছোট পরিবারের মতো শুরু করি। আমরা নয় জন শিক্ষক-শিক্ষিকা মিলে স্কুলটি চালানো শুরু করি। তখন বেশ ভালোই চলছিলো। কিন্তু এই করোনা এসে গোটা বিশ্ব যেমন থমকে দিয়েছে, তেমনি আমাদেরকেও থমকে দিয়েছে। আমি আমার স্কুলের শিক্ষকদের বেতন দিতে পারছি না। তারা এতদিন বসে থেকে কী করবে? আমি তো সামান্য সহযোগিতাও করতে পারছি না! তাই তারা বাধ্য হয়ে বিভিন্ন কাজে নিয়োজিত হয়েছেন যে যেভাবে পারছেন, তাদের সংসার চালিয়ে নিচ্ছেন।
 
তিনি আরও বলেন, এতদিন হয়ে গেলো কোনো কিছু্ই পাচ্ছি না। আমাদেরকে তা সরকার সাধারণ জনগণ হিসেবেও মূল্যায়ন করতে পারে। সেটাও করছে না। সাধারণ জনগণ এ পর্যন্ত কাছে কিছু না কিছু অনুদান পেয়েছে। কিন্তু আমরা যারা বেসরকারি স্কুলে চাকরি করি, তারা কিছুই পাচ্ছি না।

ডাঙ্গাপাড়া চাইল্ড কেয়ারের প্রধান শিক্ষক শাহিন হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কিন্ডারগার্টেনগুলো প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ রয়েছে। এ পর্যন্ত আমরা যে অবস্থানে রয়েছি, তা বর্ণনা করার মতো না। অবস্থা এমন হয়ে গেছে যে, শিক্ষক-কর্মচারী যারা রয়েছেন, তারা অনেকে অনেক ধরনের পথ বেছে নিয়েছেন। কেউ কেউ সংসার জীবনে চলে গেছে কেউ কেউ জীবিকা নির্বাহের জন্য যা যা করা দরকার, সেই পথ বেছে নিয়েছেন তারা। বেঁচে থাকাটাই মুশকিল হয়ে পড়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
 
হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নূর-এ আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনাকালীন বিভিন্ন পেশাভিত্তিক লোকজনের আয়ের প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়েছে। আমাদের বেশকিছু কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষক জীবিকা নির্বাহের জন্য শিক্ষকতা ছেড়ে ভিন্ন পেশায় গিয়েছেন। তাদের যদি কোনও সমস্যা হয়, যদি তারা আর্থিক দিক দিয়ে কোনও সমস্যায় পড়েন, তাহলে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে যে আর্থিক সহায়তা আমাদের কাছে আছে, আমরা সেটা অবশ্যই তাদের কাছে পৌঁছে দেবো। 

তিনি আরও বলেন, যদি তারা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন বা প্রয়োজন মনে করেন, তাদের তথ্য নিয়ে প্রয়োজনীয় সহায়তা করতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। ইতোপূর্বে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে সহায়তা করা হয়েছে। এবারও যদি শিক্ষকদের এমন প্রয়োজন পড়ে আমরা অবশ্যই সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবো।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

‘রোহিঙ্গা’ বলায় মাইক্রোচালককে পিটিয়ে হত্যা!

‘রোহিঙ্গা’ বলায় মাইক্রোচালককে পিটিয়ে হত্যা!

সুনামগঞ্জে ৮ চিকিৎসক-নার্স করোনায় আক্রান্ত

সুনামগঞ্জে ৮ চিকিৎসক-নার্স করোনায় আক্রান্ত

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৫ মৃত্যু

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৫ মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০২:০৬

কুমিল্লায় স্বামীর নির্মম নির্যাতনে পিংকি আক্তার (২২) নামে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার রাতে নগরীর ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের টিক্কাচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় স্বামী বিল্লাল হোসেনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা। বিল্লাল একই এলাকার বারেক মিয়ার ছেলে এবং পিংকি আক্তার সাহিদ মিয়ার মেয়ে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, চার বছর আগে প্রেম করে বিল্লালকে বিয়ে করেন পিংকি। এর আগে একাধিক বিয়ের বিষয়টি গোপন রাখে বিল্লাল। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন করতো। এরই মধ্যে গাড়ি কেনা ও ঘর তৈরির জন্য যৌতুক হিসেবে কয়েক দফায় তাকে টাকা দেওয়া হয়। এর আগে একাধিকবার স্ত্রী ও শাশুড়িকে কুপিয়ে আহত করেছে বিল্লাল।

শুক্রবার রাতে আবারও যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে পিটিয়ে আহত করে। এতে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়রা কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। গভীর রাতে সেখানে পিংকির মৃত্যু হয়।

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) কমল কৃষ্ণ ধর বলেন, এ ঘটনায় নিহতের মা রেহেনা বেগম বাদী হয়ে বিল্লাল হোসেনকে আসামি করে মামলা করেছেন। শনিবার তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। 

/এএম/

সম্পর্কিত

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০১:৩৯

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে একদিনেই বেলায়েত হোসেন রিপন নামে এক যুবক হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হলেন শাহরাস্তির গঙ্গারামপুর গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৪৫) ও তার স্ত্রী আমেনা বেগম (৩০)।

শনিবার (২৪ জুলাই) তাদের গ্রেফতার করা হয়। দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানান, হত্যাকাণ্ডের শিকার বেলায়েত হোসেন রিপনের (৩৫) সঙ্গে আমেনা বেগমের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। সম্পর্কের সূত্র ধরে গত বৃহস্পতিবার রাতে আমেনার সঙ্গে দেখা করতে যান রিপন। আমেনার স্বামী ফজলুর রহমান দেখে ফেললে রিপন দৌড় দেন। এ সময় জালে আটকা পড়েন। সঙ্গে সঙ্গে ফজলুর তার হাতে থাকা বাঁশের লাঠি দিয়ে রিপনের মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এরপর ফজলুর ও আমেনা মিলে রিপনের গলায় রশি লাগিয়ে বিলের মধ্যে পানিতে ভাসিয়ে দেন।

পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বলেন, শুক্রবার সকালে রিপনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এরপর ঘটনার রহস্য উন্মোচনে কাজ শুরু করে পুলিশ। একদিনেই ঘটনার রহস্য জানা যায়। 

এর আগে শুক্রবার (২৩ জুলাই) উপজেলার রায়শ্রী উত্তর ইউনিয়নের উত্তর গঙ্গারামপুর মাঠ থেকে রিপনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রিপন বিবাহিত ছিলেন। তার দুই কন্যা ও এক ছেলে রয়েছে।

রিপনের ফুফাতো ভাই মো. আবুল কালাম বলেন, রিপন কৃষক ছিলেন। মাঝেমধ্যে মাটি ও চামড়ার ব্যবসা করতেন। হত্যাকাণ্ডের পর পরকীয়ার বিষয়টি জানতে পারি আমরা।

শাহরাস্তি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল মান্নান বলেন, রিপনের গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। রশি কিংবা কাপড় দিয়ে শ্বাসরোধ করা হয়েছে। তার মাথায়ও আঘাতের চিহ্ন আছে।

/এএম/

সম্পর্কিত

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০১:৩৫

করোনাভাইরাস রোধে সরকার আরোপিত কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে শনিবার (২৪ জুলাই) ময়মনসিংহ জেলায় ৪৩৫ মামলায় দুই লাখ চার হাজার ৭০৫ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

এর মধ্যে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৮৩ মামলায় ৯৪ হাজার ৫০ টাকা, উপজেলা প্রশাসন পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত ২২৩ মামলায় এক লাখ তিন হাজার ৪৫৫ টাকা এবং সিটি করপোরেশন ২৯ মামলায় সাত হাজার ২০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা হক জানান, কঠোর লকডাউন সফল করতে এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এবারের লকডাউন বাস্তবায়নে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

/এফআর/

সম্পর্কিত

লকডাউনেও জমজমাট পশুর হাট

লকডাউনেও জমজমাট পশুর হাট

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

পোশাক কারখানার বাইরে তালা ভেতরে চালু

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

জরিমানা ও ব্যবস্থাপকের কারাদণ্ডে যা বললো প্রিমিয়ার সিমেন্ট

মাছটি বিক্রি হলো সাড়ে ৪ লাখ টাকায়

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০০:৫০

বঙ্গোপসাগরে জেলেদের জালে ধরা পড়েছে ২৮ কেজি ওজনের একটি ভোল মাছ। সেটি বিক্রি হয়েছে চার লাখ ৬২ হাজার ৭০০ টাকায়। শনিবার (২৪ জুলাই) দুপুরে বাংলাদেশের বৃহত্তম মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র বরগুনার পাথরঘাটা বিএফডিসি মৎস্য ঘাটে ছয় লাখ ৬১ হাজার টাকা মণ হিসেবে ২৮ কেজি ওজনের এই ভোল মাছটি ডাকের মাধ্যমে বিক্রি করা হয়।

মৎস্য ঘাটের ব্যবসায়ীরা জানান, বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার মাসুম কোম্পানির মালিকানাধীন এফবি আলাউদ্দিন হাফিজ ট্রলার বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই বঙ্গোপসাগরের গভীরে মাছ শিকারের উদ্দেশে জাল পাতলে জেলেরা তাৎক্ষণিক ভোল মাছটির উপস্থিতি টের পান। সঙ্গে সঙ্গে জাল টেনে তুললে তারা বৃহৎ এই মাছটি পেয়ে মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে নিয়ে আসেন। এরপর আজ নিয়মিত ডাকে মাছটি বিক্রি করা হয়। বিভিন্ন স্থানের ব্যবসায়ীরা ডাকে অংশ নিলেও মাছটি শেষ পর্যন্ত কেনেন খুলনার মৎস্য ব্যবসায়ী মো. জুয়েল।

এফবি আলাউদ্দিন হাফিজ ট্রলারের মাঝি আবু জাফর বলেন, গভীর সমুদ্রে জাল ফেলার সঙ্গে সঙ্গেই জাল টানাটানি শুরু হয়। জাল টানা দেখে মনে হয়েছে বড় কোনও মাছ আটকা পড়েছে। তাই তাৎক্ষণিক আমরা জাল টানতেই বড় মাছটি পাই। আমরা আর দেরি না করে দ্রুত ঘাটে আসি। শনিবার সকাল থেকেই মাছ প্রকাশ্যে ডাক শুরু হলে দুপুর ১২টার দিকে ছয় লাখ ৬১ হাজার মণ দরে ২৮ কেজি ওজনের মাছটি চার লাখ ৬২ হাজার ৭০০ টাকায় বিক্রি করা হয়।

ক্রেতা মো. জুয়েল বলেন, আমি এই ঘাটে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছি, সচরাচর এত বড় ভোল মাছ আমি দেখিনি। তাই মাছটি দেখে লোভ সামলাতে পারলাম না। মাছটি প্রকাশ্যে ডাকে উঠলে আমিও কেনার উদ্দেশে দাম হাঁকাতে থাকি। একপর্যায়ে মাছটি আমি কিনতে সক্ষম হই। মাছটি খাবো না বিক্রি করবো সে বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেইনি। দেখা যাক কী হয়।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, ভোল মাছ সচরাচর পাওয়া যায় না। মূলত এ মাছের বালিশের চাহিদা অনেক বেশি।

জানা গেছে, এ মাছের বালিশ দিয়ে বিদেশিরা জুস বানিয়ে খেয়ে থাকেন। তাই মাছটির দাম এত বেশি হাঁকানো হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ট্রলারডুবির ১৮ ঘণ্টা পর ১৬ জেলে জীবিত উদ্ধার

ট্রলারডুবির ১৮ ঘণ্টা পর ১৬ জেলে জীবিত উদ্ধার

পাওনাদারের লাশ নিয়ে দেনাদারের বাড়িতে স্বজনরা

পাওনাদারের লাশ নিয়ে দেনাদারের বাড়িতে স্বজনরা

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১১ জনের মৃত্যু

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১১ জনের মৃত্যু

তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে যুবকের গলায় জুতার মালা

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ০০:৪৫

খুলনার পাইকগাছার মানিকতলা এলাকায় চার বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় মোক্তার গোলদার (৭০) নামে এক বৃদ্ধকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ভুক্তভোগী শিশুটিকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এজাজ শফী বলেন, অভিযোগ পেয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে শুক্রবার রাতে শিশুটিকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়। শিশুটি বর্তমানে ওসিসিতে রয়েছে। একই সঙ্গে অভিযুক্ত মোক্তারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন।

মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে ওসি এজাজ শফী বলেন, ‘শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে শিশুটি মানিকতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সহপাঠীদের সঙ্গে খেলা করছিল। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মোক্তার গোলদার চকলেট দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে শিশুটিকে তার বাড়ি নিয়ে যায়। এরপর বাড়ির ছাদে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। শিশুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা বিষয়টি জেনে যায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় মোক্তারকে গ্রেফতার করে থানায় আনে পুলিশ। একই সঙ্গে শিশুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।’

/এএম/

সম্পর্কিত

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

সর্বশেষ

চীনে আগুনে পুড়ে ১৪ জনের মৃত্যু

চীনে আগুনে পুড়ে ১৪ জনের মৃত্যু

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

সিরিয়ায় হামলায় তুর্কি সেনা নিহত, আঙ্কারার হুঁশিয়ারি

লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দেশে দেশে

লকডাউন বিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল দেশে দেশে

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

১৫৫ কিলোমিটার বেগে চীনে আঘাত হানছে টাইফুন 'ইন-ফা'

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া, পিটিয়ে হত্যার পর ভাসিয়ে দিলেন লাশ

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ময়মনসিংহে ৪৩৫টি মামলা

মাছটি বিক্রি হলো সাড়ে ৪ লাখ টাকায়

মাছটি বিক্রি হলো সাড়ে ৪ লাখ টাকায়

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ৭০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

তালেবানের উত্থান, আফগানিস্তানে কারফিউ জারি

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

খেলায় লাল কার্ড দেখানো নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘রোহিঙ্গা’ বলায় মাইক্রোচালককে পিটিয়ে হত্যা!

‘রোহিঙ্গা’ বলায় মাইক্রোচালককে পিটিয়ে হত্যা!

সুনামগঞ্জে ৮ চিকিৎসক-নার্স করোনায় আক্রান্ত

সুনামগঞ্জে ৮ চিকিৎসক-নার্স করোনায় আক্রান্ত

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৫ মৃত্যু

রংপুর বিভাগে করোনায় আরও ১৫ মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

খুলনা বিভাগে আরও ৩৩ জনের মৃত্যু

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

পদ্মা সেতুর পিলারে বার বার ফেরির ধাক্কা কেন?

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

করোনায় যশোরে আরও ৬ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১৪ মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় আরও ১৪ মৃত্যু

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১১ জনের মৃত্যু

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ১১ জনের মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune