X
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত অধিকাংশের বয়স ষাটোর্ধ্ব

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১৭:১৯

চট্টগ্রামে করোনায় বয়স্কদের মৃত্যুর হার বাড়ছে। মৃতদের অধিকাংশের বয়স ৬০ বছরের বেশি। এই পর্যন্ত চট্টগ্রামে গড়ে ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে থাকা ৫৫ দশমিক ২৫ শতাংশ করোনা রোগী মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি।

এদিকে চট্টগ্রামে বয়স্করা বেশি মারা গেলেও করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে যুবকরা। ২১ থেকে ৪০ বছর বয়সীরাই বেশি আক্রান্ত হয়েছেন। মোট আক্রান্তের ৪৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ এই বয়সী।

সেখ ফজলে রাব্বি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে যুবকদের আক্রান্তের হার বেশি। মোট আক্রান্তের ২৩ দশমিক ১৪ শতাংশের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছর। এর পরই রয়েছে ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সীরা। মোট আক্রান্তের ২০ দশমিক ২৩ শতাংশ এই বয়সী। অন্যদিকে মৃতদের মধ্যে ৬১ বছর থেকে তার বেশি যাদের বয়স, তারা সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন। মোট মৃতদের ৫৫ দশমিক ২৫ শতাংশ ৬০ বছরের বেশি বয়সী।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রামে আক্রান্তদের মধ্যে শূন্য থেকে ১০ বছর বসয়ী রয়েছেন দুই হাজার ৫৩ জন, যা মোট আক্রান্তের দুই দশমিক ৭২ শতাংশ। ১১ থেকে ২০ বছর বয়সী পাঁচ হাজার ৭৭৫ জন, যা মোট আক্রান্তের সাত দশমিক ৬৬ শতাংশ। ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের সংখ্যা ১৫ হাজার ২৫০ জন, যা মোট আক্রান্তের ২০ দশমিক ২৩ শতাংশ। ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সী ১৭ হাজার ৪৪৬ জন, যা মোট আক্রান্তের ২৩ দশমিক ১৪ শতাংশ। ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী ১৩ হাজার ২৩১ জন, যা মোট আক্রান্তের ১৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সী ১১ হাজার ১৭৩ জন, যা মোট আক্রান্তের ১৪ দশমিক ৮২ শতাংশ। ৬১ বছরের ঊর্ধ্বে আক্রান্ত ১০ হাজার ৪৩৫ জন, যা মোট আক্রান্তের ১৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ।

এদিকে মৃতদের মধ্যে শূন্য থেকে ১০ বছর বয়সী চার জন, যা মোট আক্রান্তের দশমিক ৪৫ শতাংশ। ১১ থেকে ২০ বছর বয়সী নয় জন, যা মোট আক্রান্তের এক দশমিক ০২ শতাংশ। ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সী ১৭ জন, যা মোট আক্রান্তের এক দশমিক ৮০ শতাংশ। ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সী ৪২ জন, যা মোট আক্রান্তের চার দশমিক ৭৪ শতাংশ। ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী ১১৬ জন, যা মোট আক্রান্তের ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সী ২০৮ জন, যা মোট আক্রান্তের ২৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ। ৬১ বছরের ঊর্ধ্বে মারা গেছেন ৪৮৯ জন, যা মোট আক্রান্তের ৫৫ দশমিক ২৫ শতাংশ।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

হেলপার ঘুমাচ্ছিলেন ট্রাকের নিচে, চালক উঠে দিলেন টান

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪৬

চুয়াডাঙ্গায় ট্রাকচাপায় ইব্রাহিম হোসেন (১৫) নামের এক ট্রাক হেলপার নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টার দিকে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার হাটকালুগঞ্জ ইমরান ফিলিং স্টেশনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ইব্রাহিম হোসেন সদর উপজেলার গাইটঘাট গ্রামের রেলপাড়ার শরিফ উদ্দিনের ছেলে। তিনি ওই ট্রাকের চালকের সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ঘটনাস্থল থেকে ট্রাক ও চালক সাইদুল ইসলামকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

পুলিশ জানায়, বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা থেকে মালবোঝাই ট্রাকটি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দিকে যাচ্ছিল। এ সময় চালকের ঘুম এলে ইমরান ফিলিং স্টেশনের সামনে গাড়িটি রাখেন চালক। পরে চালক সাইদুল ইসলাম ভেতরে এবং সহকারী ইব্রাহিম ট্রাকের নিচে বিছানা করে ঘুমিয়ে পড়েন। সকালে চালকের ঘুম ভাঙলে তিনি ট্রাকটি চালু করে সামনে নিতে গেলে ইব্রাহিম ঘুমন্ত অবস্থায় চাকার নিচে পিষ্ট হন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এ সময় আটক করা হয় চালক সহিদুলকে ও ট্রাকটি জব্দ করা হয়।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মুক্তি দেওয়া হয়েছে আটক ট্রাকচালককে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

বিকেএসপিতেই শেষ হতে পারতো আফিফের ক্যারিয়ার 

বিকেএসপিতেই শেষ হতে পারতো আফিফের ক্যারিয়ার 

মায়ের ওষুধ নিয়ে ফেরা হলো না

মায়ের ওষুধ নিয়ে ফেরা হলো না

১৫ বছর আগে মেহেদীকে বলা হাথুরুর কথাই সত্যি হলো

১৫ বছর আগে মেহেদীকে বলা হাথুরুর কথাই সত্যি হলো

বিকেএসপিতেই শেষ হতে পারতো আফিফের ক্যারিয়ার 

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:২২

পঞ্চ পাণ্ডবের পর বাংলাদেশ ক্রিকেটকে যারা প্রতিনিধিত্ব করবেন তাদের মধ্যে অন্যতম তরুণ ক্রিকেটার আফিফ হোসেন ধ্রুব। একাধারে ব্যাটিং-বোলিংয়ে প্রতিপক্ষকে নাস্তানাবুদ করা আফিফ বর্তমান সময়ের সেরা একজন অলরাউন্ডার। তবে খুলনা মহানগরীর ছোট বয়রার করিমনগরে জন্ম নেওয়া আফিফের ক্রিকেট ক্যারিয়ার হয়তো শুরুতেই শেষ হয়ে যেতো। ২০১২ সালে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি) অধ্যয়নরত অবস্থায় নিয়ম ভাঙার জন্য তাকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। পরে জরিমানা দিয়ে ফের বিকেএসপিতে ভর্তি করা হয় ক্রিকেট পাগল আফিফকে। এরপর আর ফিরে আসা হয়নি, এগিয়ে যাওয়ার পথে যুক্ত হয়েছে সাফল্যের নতুন নতুন পালক।  

আফিফের বাবার নাম মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মা হেলেনা বেগম। ধ্রুব তাদের একমাত্র ছেলে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটার আফিফ হোসেন ধ্রুবর জন্ম খুলনায় হলেও ক্রিকেট ক্যারিয়ার গড়ে ওঠে বিকেএসপিতে। 

বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলে খেলেছেন বিকেএসপির হয়ে। যদিও বয়সভিত্তিক অনূর্ধ্ব-১৪ দলে খেলেছিলেন খুলনার হয়ে। পরবর্তীতে খুলনা বিভাগের হয়ে জাতীয় দলেও খেলেছেন এই ক্রিকেটার। ইতোমধ্যে দেশের হয়ে ২৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ব্যাট হাতে করেছেন ৩২৪ রান, আর ঝুলিতে রয়েছে ছয় উইকেট।

আফিফের বাবা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, তৃতীয় শ্রেণিতে থাকা অবস্থায় সে ক্রিকেটের জন্য পাগলামি শুরু করে। এ সময় তাকে মোহামেডান ক্লাবের সেলিম স্যারের কাছে নিয়ে ভর্তি করি। এরপর ২০১০ সালে বিকেএসপিতে ক্রিকেটের অডিশন দিয়ে শীর্ষ স্থান নিয়ে ভর্তি হয় আফিফ। সেখান থেকে ২০১৬ সালে এইচএসসি পাশ করে বের হয়। পরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এআইইউবিতে বিবিএতে ভর্তি হয় আফিফ। পাশাপাশি চলে তার খেলাধুলা। 

২০১৮ সালে জাতীয় দলে তার অভিষেক হয়। এরপর ধারাবাহিক সাফল্যের অংশ হিসেবে বিশ্ব আসরে খেলার সুযোগ পেয়েছে সে। ক্রিকেটার হওয়ার তার স্বপ্ন পূরণ হ লো। এখন তার সামনে এগিয়ে যাওয়ার পালা। আমি বাবা হিসেবে তার সাফল্য কামনা করি।

তবে আফিফের ক্রিকেট ক্যারিয়ার হয়তো বিকেএসপিতেই শেষ হয়ে যেতো। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অপরাধে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে আফিফের বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ২০১২ সালের মাঝামাঝি সময়ে আফিফ বিকেএসপি থেকে বহিষ্কার হয়। কারণ ছিল নিষেধ থাকার পরও আফিফ সেখানে মোবাইল ব্যবহার করে এবং ধরা পড়ে। সে ঘটনার পর আমি, ওর নানা, বড় খালা বিকেএসপিতে গিয়ে অধ্যক্ষের সঙ্গে কথা বলি। আমরা যাওয়ার পর জানা যায়, বিকেএসপির মধ্যে আগে বহিষ্কার হওয়া এক ছেলে ব্যট দিয়ে আফিফকে প্রহার করে। সব মিলিয়ে আফিফ গো ধরে আর বিকেএসপিতে পড়বে না। শিক্ষকরা সে ঘটনা জানার পর ওই বহিষ্কৃত ছেলেকে বিকেএসপির মাঠ থেকে বের করে দেয়। আর আলোচনার পর ৩০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে আফিফকে পুনরায় বিকেএসপিতে ভর্তি করানো হয়। এরপর আফিফকে নিয়ে আমরা বান্দরবান ঘুরতে যাই এবং সেখানে এক সপ্তাহ থেকে তাকে স্বাভাবিক করি। এটা ছিল সবচেয়ে কষ্টকর ঘটনা।

ছেলের সাফল্যের টুকরো স্মৃতির কথা বলতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, খুলনার জোড়াগেটে একটি স্পোর্টসে লটারিতে প্রথম পুরস্কার ছিল টিভি। আফিফ সে সময় পাঁচটি টিকিট কেটেছিল। আর আমি ছিলাম লটারি তোলার দায়িত্বে। আফিফ আমার হাতে দায়িত্ব দেখে বলেছিল ‘দেখো বাবা প্রথম পুরস্কারটা তোমার হাত ধরে আমিই পাবো। লটারির শেষে দেখা গেলো প্রথম পুরস্কারের টিকিটটা ছিল আফিফের হাতেই।

/টিটি/

সম্পর্কিত

১৫ বছর আগে মেহেদীকে বলা হাথুরুর কথাই সত্যি হলো

১৫ বছর আগে মেহেদীকে বলা হাথুরুর কথাই সত্যি হলো

চাকরি দেওয়ার কথা বলে ডেকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

চাকরি দেওয়ার কথা বলে ডেকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

মায়ের ওষুধ নিয়ে ফেরা হলো না

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৯

বগুড়ার সোনাতলায় অসুস্থ মায়ের জন্য ওষুধ কিনতে গিয়ে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী কলেজছাত্র আবদুর রশিদ (২৫) নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার কলেজ স্টেশন বটতলা কালিমন্দির সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, নিহত আবদুর রশিদ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার সিহিপুর গ্রামের ছবিবর রহমানের ছেলে। তিনি বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ থেকে ডিগ্রি পাস করেন। আজ দুপুরে অসুস্থ মায়ের জন্য ওষুধ
কিনতে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। পার্শ্ববর্তী গাবতলীর ওষুধের দোকানে যাওয়ার পথে সোনাতলা কলেজ স্টেশন বটতলায় পৌঁছালে পেছন থেকে একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দেয়। এতে রশিদ রাস্তায় ছিটকে পড়লে মাথায় গুরুতর আঘাত পান। পথচারীরা উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি মারা যান।

সোনাতলা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বকুল মিয়া জানান, নিহত কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘাতক ট্রাক ও চালককে শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। সোনাতলা থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

ঘুষ চাওয়ায় স্যানিটারি পরিদর্শককে পিটুনি, তদন্তে কমিটি

ঘুষ চাওয়ায় স্যানিটারি পরিদর্শককে পিটুনি, তদন্তে কমিটি

প্রাইভেট কার খালে পড়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ নিহত ২

প্রাইভেট কার খালে পড়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ নিহত ২

রামেকের করোনা ইউনিটে ১৬ দিনে ১০৩ জনের মৃত্যু

রামেকের করোনা ইউনিটে ১৬ দিনে ১০৩ জনের মৃত্যু

রূপপুর প্রকল্পে কর্মরত রুশ নাগরিকের লাশ উদ্ধার

রূপপুর প্রকল্পে কর্মরত রুশ নাগরিকের লাশ উদ্ধার

সুদিনের মৌমাছিদের কমিটিতে স্থান নেই: কৃষিমন্ত্রী

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৮

অসৎ, সুযোগসন্ধানী ও সুদিনের মৌমাছির মতো যারা দলে ভিড়েছে, তাদেরকে কোনোমতেই কমিটিতে স্থান দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেছেন, ‘কমিটিতে তৃণমূলের পরীক্ষিত, নিবেদিত ও দুঃসময়ে যারা পাশে ছিলেনে সেসব কর্মীদেরকে জায়গা দিতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ দেড় বছর ধরে চলা করোনার প্রকোপের কারণে আওয়ামী লীগের অনেক জেলা, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড সম্মেলন করা সম্ভব হয়নি। অনেক কমিটিই মেয়াদোত্তীর্ণ। এই মুহূর্তে করোনার সংক্রমণ অনেকটা কমে এসেছে। এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ শুরু করতে হবে। দলকে সুসংগঠিত করতে অতিদ্রুত সম্মেলন করা হবে। একইসঙ্গে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষকলীগসহ দলের সহযোগী সংগঠনকেও আরও সুসংগঠিত করতে হবে।’

স্থানীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘সামনে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরা যাতে বিজয়ী হতে পারে, সে লক্ষ্যে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। সবাইকে দলের শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। যারা আওয়ামী লীগ করেও নৌকার প্রার্থীদের হারানোর চেষ্টায় বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মধুপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় সাধারণ সম্পাদক ও  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান আবু, পৌর মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

গাজীপুরে একদিনে ৩ জনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

গাজীপুরে একদিনে ৩ জনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

কক্সবাজারে ১৩ আ.লীগ নেতাকে বহিষ্কার

কক্সবাজারে ১৩ আ.লীগ নেতাকে বহিষ্কার

মেয়রের বাড়ির দেয়ালসহ ৪০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

মেয়রের বাড়ির দেয়ালসহ ৪০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

‘বঙ্গবন্ধুর ছবি আদর্শ ও অনুপ্রেরণার উৎস’

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:২৩

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবির দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, ‘এটা কোনও ব্যক্তির নয়, এটা বাংলাদেশের ছবি, আদর্শের ছবি, অনুপ্রেরণার ছবি। ব্যক্তিকে অতিক্রম করে সেই ছবি হয়ে উঠেছে আমাদের সকল প্রেরণার উৎস।’

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে জামালপুরের সরিষাবাড়ী কামারাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক স্মরণসভায় প্রধান অতিথির ব্ক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মুজিব আদর্শ বাস্তবায়নে নিরন্তরভাবে কাজ করে যাওয়া প্রয়াত আবুল কালাম মন্ডল স্মরণে এ সভার আয়োজন করা হয়।

মুরাদ হাসান বলেন, ছবির পেছনের মহানায়ক, আমরা মুক্তিযুদ্ধের পরের প্রজন্ম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি আমাদের পথ দেখায়, জনসেবায় আত্মনিয়োগ করতে উৎসাহ যোগায়। এই ছবিতে নিহিত আছে আদর্শ। এই আদর্শের পথ বেয়ে আজকের বাংলাদেশ ও আগামীর সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ। 

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা দেখেছেন তারা সৌভাগ্যবান, যারা দেখেননি সেই ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য প্রতি ঘরে ঘরে তার ছবি রাখা উচিত। ইতিহাসের হাত ধরেই আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে, আমাদের যেতে হবে সমৃদ্ধির সর্বোচ্চ শিখরে। বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বে মুক্তিকামী মানুষের জন্য এক অনন্য ইতিহাস। একটি ছবি যখন অনুপ্রাণিত করে, সেই ছবি আমাদের দৃষ্টিতে থাকা উচিত। কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয়, নিজেকে আদর্শবান ও নৈতিকতায় বলীয়ান করে অন্যায়ের প্রতিবাদী হতে সাহসও যোগাবে।

কামরাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আখতার হোসাইনের সভাপতিত্বে এবং নূরুল ইসলামের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, উপজেলা চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন পাঠান ও মেয়র মনির উদ্দিন প্রমুখ।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

‘সাহস থাকলে দেশে আসুন, আপনার সঙ্গে খেলতে চাই’

‘সাহস থাকলে দেশে আসুন, আপনার সঙ্গে খেলতে চাই’

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

ময়মনসিংহে বিএনপির ১১ আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা 

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

মাদক ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে গোলাগুলি, আহত ১

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে নিখোঁজের পরদিন মিললো লাশ

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

কেন প্রতিবছর ডুবে যায় রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু?

রামেকের করোনা ইউনিটে ১৬ দিনে ১০৩ জনের মৃত্যু

রামেকের করোনা ইউনিটে ১৬ দিনে ১০৩ জনের মৃত্যু

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

চট্টগ্রামে আরও ১১২ জনের করোনা শনাক্ত 

স্রোতে ভেসে যাওয়া মা-মে‌য়ের লাশ উদ্ধার, ছেলে নিখোঁজ

স্রোতে ভেসে যাওয়া মা-মে‌য়ের লাশ উদ্ধার, ছেলে নিখোঁজ

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে ২ বছর কারাভোগ, পাচ্ছেন মুক্তি

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে অভিভাবকরা ভিড় করলে আইনানুগ ব্যবস্থা

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে অভিভাবকরা ভিড় করলে আইনানুগ ব্যবস্থা

সর্বশেষ

শনাক্তের হার ৬ শতাংশের নিচে

শনাক্তের হার ৬ শতাংশের নিচে

হেলপার ঘুমাচ্ছিলেন ট্রাকের নিচে, চালক উঠে দিলেন টান

হেলপার ঘুমাচ্ছিলেন ট্রাকের নিচে, চালক উঠে দিলেন টান

ইভ্যালির চেয়ারম্যান-সিইও’র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২১ অক্টোবর

ইভ্যালির চেয়ারম্যান-সিইও’র বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২১ অক্টোবর

নিউ ইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

নিউ ইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ইভ্যালির রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা গ্রেফতার

ইভ্যালির রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা গ্রেফতার

© 2021 Bangla Tribune