X
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ১৮:৫৪

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ১৯১ জন। গত দেড় বছরের মহামারিকালে একদিনে এত রোগী আর শনাক্ত হয়নি। একইসঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৪৭ জন। একদিনে এটাই এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ মৃত্যু।

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়া ১৫ হাজার ১৯১ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন ঢাকা বিভাগে। এ বিভাগে শনাক্ত হয়েছেন সাত হাজার ৯৫৩ জন, ময়মনসিংহ বিভাগে ৫৯৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে দুই হাজার ৪৬৭ জন, রাজশাহী বিভাগে ৯০৮ জন, রংপুর বিভাগে ৬৭৮ জন, খুলনা বিভাগে এক হাজার ১৮৬ জন, বরিশাল বিভাগে ৮৪১ জন এবং সিলেট বিভাগে শনাক্ত হয়েছেন ৫৬৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৪৭ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন ঢাকা বিভাগে। এ বিভাগে মারা গেছেন ৭২ জন। এছাড়াও চট্টগ্রাম বিভাগের ৬১ জন, রাজশাহী বিভাগের ২১ জন, খুলনা বিভাগের ৪৬ জন, বরিশাল বিভাগের ১২ জন, সিলেট বিভাগের ১৪ জন, রংপুর বিভাগের ১৬ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের মারা গেছেন পাঁচ জন।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

ডিসেম্বরের মধ্যে দেওয়া হবে ১০ কোটি টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডিসেম্বরের মধ্যে দেওয়া হবে ১০ কোটি টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২৭ সেপ্টেম্বরের ঘটনা।)

মুক্তিযুদ্ধকালে ধ্বংসপ্রাপ্ত ভৈরব রেল সেতু পুনর্নির্মাণের পর উদ্বোধনের উদ্দেশ্যে ১৯৭৩ সালের এদিন বঙ্গবন্ধু ভৈরব যান। ভৈরব ও আখাউড়াসহ ছোট-বড় পথসভাসহ ছয় স্থানে বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু। সবক’টি সভায় সমাজবিরোধী ও দুষ্কৃতকারীদের ঠেকাতে আরও কঠোর হওয়ার বিষয়ে জনমত জানতে চাইলে উপস্থিত জনতা দু’হাত তুলে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে একাত্মতা ব্যক্ত করেন।

 

ভৈরবের জনসভায় বঙ্গবন্ধুর হুঁশিয়ারি

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদিন এক বিরাট জনসভায় ঘোষণা করেন, সমাজবিরোধী ও দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আঘাত হানা হবে। সেই আঘাত হানার সময় এসেছে বলেও জানান তিনি। বঙ্গবন্ধু বলেন, দুর্নীতিপরায়ণ, ঘুষখোর, রিলিফ চোর ও দুষ্কৃতকারীরা অমানুষ, এদের ধ্বংস করতে হবে।

ভৈরব সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন। পথিমধ্যে টঙ্গী-ঘোড়াশাল ও নরসিংদীতে আয়োজিত জনসভায় বিশাল জনতার কাছে দুষ্কৃতকারী ও সমাজবিরোধীদের দমনে সরকারের দৃঢ়সংকল্পের কথা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। প্রতিটি জনসভায় জনতা তার প্রতি সমর্থন জানায়।

জনসভায় বঙ্গবন্ধু বলেন, সংশোধনের প্রচেষ্টাকে দুর্বৃত্তরা দুর্বলতা মনে করে। স্বাধীনতা সংগ্রামের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি শুরুতেই কঠোর হতে চাননি। তিনি আশা করেছিলেন, দেশের মানুষ যেমন তার কথা শোনে, সেভাবেই দুষ্কৃতকারী ও সমাজবিরোধীরা অপকর্ম থেকে নিবৃত্ত হবে। কিন্তু অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে বাংলার মানুষ নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারে না। গরিবের সম্পত্তিও নিরাপদ নয়। এবার কঠোর আঘাত হানতে হবে। এ কাজে মানুষের সহযোগিতা ও সমর্থন আছে কিনা, বঙ্গবন্ধু এমনটা জানতে চাইলে জনসাধারণ দুই হাত তুলে তাদের রায় জানায়।

তিনি বলেন, সমাজ থেকে দুর্নীতি নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত জনতাকে সঙ্গে নিয়ে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। ভৈরবে বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করেন, পাকিস্তান সেনাবাহিনী যে হাজার হাজার সেতু নষ্ট করেছে, আজ সবক’টির পুনর্নির্মাণ ও মেরামত সমাপ্ত হলো। তিনি বলেন, পাকিস্তানি বাহিনী যেভাবে ধ্বংস করেছে তা একদিনে ঠিক করে ফেলা সম্ভব নয়, সময় লাগবে। তিনি আরও বলেন, শত্রুদের ৫০ লাখ লোকের না খেয়ে মরার হিসাবকে আমরা মিথ্যা প্রমাণ করেছি। ২০ মাসে ৩৮ লাখ টন খাদ্য জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

দ্য অবজারভার, ২৮ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

‘প্রধানমন্ত্রীর জীবন কারাগারের জীবনের মতোই’

বঙ্গবন্ধু স্মরণ করেন, স্বাধীনতার পর আমাদের কোনও বৈদেশিক মুদ্রা ও গুদামে খাবার ছিল না। সবকিছুই বিদেশ থেকে আনতে হয়েছে। কিন্তু বেশি দিন বিদেশি সাহায্যের ওপর নির্ভরশীল থাকা যাবে না। দেশে খাদ্য উৎপাদন ও কলকারখানায় উৎপাদন বাড়াতে হবে। তিনি আরও বলেন, বাংলার মানুষের ভাত-কাপড়ের ব্যবস্থা করাই হলো আমার জীবনের সাধনা। দেশ গঠনের জন্য নিজেদের তৈরি করার আহ্বান জানান তিনি। বঙ্গবন্ধু বলেন, বাংলাদেশে আজ স্বাধীনতার পতাকা উড়ছে। ১১০টি দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতাবিরোধীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চায়।

বঙ্গবন্ধু বলেন, তিনি সারা জীবন জনতার পাশে সংগ্রাম করেছেন। প্রধানমন্ত্রিত্বের জন্য রাজনীতি করেননি। বাংলাদেশের অবস্থাই তাকে প্রধানমন্ত্রিত্ব নিতে বাধ্য করেছে। প্রধানমন্ত্রীর জীবন তার কাছে কারাগারের জীবনের মতোই লাগছে।

বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘শেখ মুজিব কোনোদিন দেশবাসীর সঙ্গে বেইমানি করেনি। ইয়াহিয়ার ফাঁসির কাষ্ঠ আমাকে বিচলিত করতে পারেনি। যতদিন বাঁচি, জনতার সঙ্গে আছি, থাকবো। আপনাদের ভালোবাসা নিয়েই যেন মরতে পারি দোয়া করবেন।’

ভৈরব সেতু নির্মাণে ভারত ও যুক্তরাজ্যের সাহায্য-সহযোগিতাকে অভিনন্দন জানান বঙ্গবন্ধু। ভারতীয় এবং বাংলাদেশের কর্মচারীদের কাজের প্রশংসাও করেন তিনি।

দৈনিক বাংলা, ২৮ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

ভৈরব সেতুর নাম বঙ্গবন্ধু সেতু রাখার প্রস্তাব

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জনগণ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রেলওয়ে সেতুটির নাম বঙ্গবন্ধু সেতু রাখার প্রস্তাব করে। এদিন আশুগঞ্জে এক জনসভায় বঙ্গবন্ধুকে প্রদত্ত মানপত্রে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জনগণ এই প্রস্তাব করেন। বঙ্গবন্ধু এই জনসভায় ভাষণ দেন বলে এনার খবরে উল্লেখ করা হয়।

স্টেশনে ঢল

এদিন বিকাল তিনটার দিকে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিশেষ ট্রেনটি ভৈরব পৌঁছালে হাজার হাজার লোক তাকে স্বাগত জানায়। বিশেষ ট্রেনটি সকাল সাড়ে নয়টায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ভৈরব যাত্রা করে। ৫৩ মাইল পাড়ি দিতে সময় লেগেছিল ৬ ঘণ্টা।

এদিন আশুগঞ্জে দুটি বিরাট জনসভায় বঙ্গবন্ধু ভাষণ দেন। পথে পাঁচটি স্টেশনেও সংক্ষিপ্ত ভাষণ দেন বঙ্গবন্ধু। সভাগুলোতে হাজার হাজার লোক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের প্রতি আস্থা জ্ঞাপন করেন।

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:০৬

আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন। এ উপলক্ষে ওইদিন বুড়িগঙ্গায় নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এ আয়োজন করেছে।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ২৮ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) বিকাল ৪টায় কেরানীগঞ্জের বরিশুর লঞ্চঘাটে নৌকাবাইচ উদ্বোধন করবেন।

অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়।

 

/এসআই/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

ডিসেম্বরের মধ্যে দেওয়া হবে ১০ কোটি টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৪৫

আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনে দেশে ফের অনুষ্ঠিত হবে গণটিকাদান কর্মসূচি। এ দিনের পরিকল্পনা ঘোষণা করতে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, ডিসেম্বরের মধ্যে প্রায় ১০ কোটি টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ভার্চুয়ালি এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। 

জাহিদ মালেক জানান, গণটিকাদান কর্মসূচির বিশেষ দিনে ৮০ লাখ টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এই কার্যক্রমে অধিকাংশ টিকা দেওয়া হবে সিনোফার্মের। 

এর আগে গত ৭ আগস্ট থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত প্রথম ধাপে গণটিকা দেওয়া হয়। আর সেপ্টেম্বরে গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন। এই দিনেই টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে। আপাতত একদিনের জন্য ক্যাম্পেইন চলবে। ক্যাম্পেইনে নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়া পর্যন্ত টিকাদান চলবে। প্রয়োজনে একাধিক শিফটে টিকা দেওয়া হবে।

এর পাশাপাশি নিয়মিত চলমান কর্মসূচিও চলবে বলে জানান জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, বর্তমানে নিয়মিত কর্মসূচিতেও প্রতিদিন ছয় লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ এই দিনে যারা গ্রামে থাকে, দরিদ্র জনগোষ্ঠী, বয়স্ক- তারা এই কার্যক্রমে টিকা নিতে পারবে। তবে এই কার্যক্রমে শুধু প্রথম ডোজের টিকার দেওয়া হবে। এদিন গর্ভবতী নারী ও দুগ্ধদানকারী মায়েরা টিকা পাবেন না। ইউনিয়ন, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকায় ৬ হাজারের বেশি কেন্দ্রে টিকা কার্যক্রম চলবে।

দেশে এখন পর্যন্ত কত টিকা এসেছে সে পরিসংখ্যান তুলে ধরে জাহিদ মালেক বলেন, অনেক দিন ধরেই সরকার টিকা পাওয়ার চেষ্টা করে এসেছে। শুরুতে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে টিকার জন্য চুক্তি হয়। কিছু টিকা সেখান থেকে পাওয়াও গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, তবে মাঝপথে সেটা বন্ধ হয়ে যায়।

এরপর চীন থেকে সাত কোটি টিকার চুক্তি হয়েছে। কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় ফাইজারের টিকা আসা শুরু হয়েছে। সব মিলিয়ে টিকা নিয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছি জানিয়ে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত সাড়ে ৫ কোটি ডোজ টিকা হাতে পাওয়া গেছে। এরমধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ মিলিয়ে দেওয়া হয়েছে ৪ কোটি ডোজ। আর হাতে রয়েছে দেড় কোটি ডোজ টিকা।

পরিকল্পনার বিস্তারিত জানানোর পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। অনেকেই টিকা নিতে নিবন্ধন করে অপেক্ষায় আছেন মাসের পর মাস; তারা টিকাদান কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে টিকা নিতে পারবেন কিনা, এমন প্রশ্নে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যারা অনেক দিন আগে নিবন্ধন করেছেন কিন্তু টিকা পাননি এবং অপেক্ষায় আছেন, তাদের অবশ্যই আমরা অগ্রাধিকার দেবো। আপনারা জানেন, প্রথম দিকে নিবন্ধন একেবারে অনেক বেশি হয়ে গিয়েছিল। যে কারণে আমাদের একটি জট তৈরি হয়েছিল। কোনও কোনও দিন ২০ থেকে ২৫ লাখ লোকের নিবন্ধনও হয়। এখন আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা আছে, আর জট থাকবে না।

আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের ১০ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এটি একটি আনুমানিক হিসাব। এটি নির্ভর করছে টিকাপ্রাপ্তি সাপেক্ষে। ১০ কোটি দেওয়া না হলেও সর্বোচ্চ যত দেওয়া যায়, সে চেষ্টা করা হবে। আশা করছি, মাসে ২ কোটি ডোজ টিকা দিতে পারবো। নভেম্বর-ডিসেম্বরে এটি আরও বাড়বে। টিকা প্রাপ্তিই বড় বিষয়।

সরকার প্রতি মাসে দুই কোটি করে করোনার টিকা দেওয়ার লক্ষ্য ঠিক করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতি মাসে দুই কোটি টিকা দেওয়ার যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে; তার মধ্যে প্রায় এক কোটি ডোজ টিকা এই বিশেষ কার্যক্রমের মাধ্যমে দেওয়া হবে। ডিসেম্বর পর্যন্ত আরও অনেক টিকা পাওয়া যাবে। সেক্ষেত্রে দুই কোটির বেশি টিকা দেওয়াও সম্ভব হতে পারে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নভেম্বর-ডিসেম্বর পর্যন্ত অনেক টিকা পাবো, তখন আরও বেশি টিকা দেওয়া যাবে’।

সিনোফার্মের টিকা নিয়ে সৌদি আরবে যেতে বুস্টার ডোজ লাগবে। কিন্তু বাংলাদেশে এখনও বুস্টার ডোজ দেওয়ার বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। এক্ষেত্রে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানতে চাইলে সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে টিকা কার্যক্রম চলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নির্দেশনা মেনে। ডব্লিউএইচও এখনও বুস্টার ডোজের বিষয়ে নির্দেশনা দেয়নি। সৌদি আরবে যেতে বুস্টার ডোজ লাগলে ডব্লিউএইচও’র সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। সে দেশে যাওয়ার বিষয়ে প্রবাসীদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে।  

‘যদি সে ধরনের পরিস্থিতির উদ্ভব হয় (যদি সৌদি আরবে যেতে বুস্টার ডোজ লাগে), সেক্ষেত্রে অবশ্যই আমরা বিষয়টি বিবেচনা করবো এবং ডব্লিউএইচওসহ যেখানে কথা বলা প্রয়োজন বলবো’—যোগ করেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের কর্মীরা যাতে কষ্ট না পান এবং তাদের সৌদি আরবে যাওয়ার যে শর্ত সেটি যেন তারা পূরণ করতে পারেন; সে বিষয়ে আমরা তাদের পূর্ণ সহযোগিতা প্রদান করবো। 

করোনার টিকার নিবন্ধন ও সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম চলছে সুরক্ষা অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। টিকা দেওয়ার পরে সনদ পেতে অনেকেরই ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে এবং টিকা সনদে তথ্য বিভ্রাট থাকছে। তাই সুরক্ষা অ্যাপ ও ওয়েবসাইট স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পরিচালনা করা হবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পরামর্শ-আলোচনা করেই আইসিটি বিভাগ অ্যাপ পরিচালনা করছে। সনদ পেতে দীর্ঘসূত্রতা ও তথ্য সংশোধনে ভোগান্তি কমাতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। তবে সুরক্ষা অ্যাপটি আইসিটি বিভাগই চালাবে।

/জেএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

করোনায় শনাক্ত নামলো হাজারের নিচে

করোনায় শনাক্ত নামলো হাজারের নিচে

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৪

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬১-তে। এই সময়ে নতুন ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৪২ জন। এরমধ্যে ঢাকায় ১৮৫ জন এবং ঢাকার বাইরে ৫৭ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন। আর চলতি মাসে মোট ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন ৭ হাজার ১ জন।

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দেওয়া তথ্য থেকে এসব জানা গেছে।  

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, সারাদেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে বর্তমানে ১ হাজার ৪৩ জন রোগী ভর্তি আছে। এরমধ্যে ঢাকাতেই আছেন ৮১৪ জন, আর বাকি ২২৯ জন ঢাকার বাইরে অন্য বিভাগে। এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৭ হাজার ৩৫৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এরমধ্যে ছাড়া পেয়েছেন ১৬ হাজার ২৫৩ জন।

/এসও/ইউএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

বাংলাদেশকে বুঝতে শুরু করেছে তুরস্ক

আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২২

২০০৮ সালের নির্বাচনের পর যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া জোরেশোরে শুরু করে আওয়ামী লীগ সরকার। তখন এটাকে ভালো চোখে দেখেনি তুরস্ক। একপর্যায়ে বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে তারা। জবাবে বাংলাদেশও নিজেদের রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার করে। কূটনৈতিক সম্পর্কের এমন টানাপড়েন চলতে থাকে বেশ কিছু দিন। পরে ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা ইস্যুকে কেন্দ্র করে ঢাকার সঙ্গে সম্পর্ক জোড়া লাগানোর চেষ্টা করে আঙ্কারা। রোহিঙ্গা ঢলের দুই সপ্তাহের মধ্যে তুরস্কের ফার্স্টলেডি এমিন এরদোয়ানসহ দেশটির আরও কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ঢাকা সফর করেন। এরপর দিনে দিনে সম্পর্ক আরও ঝালাই হয়েছে। এখন ঢাকার মন বুঝেই সামনে এগুতে চাইছে আঙ্কারা। বাংলাদেশও তুরস্কের কাছ থেকে ‘ন্যাটো স্ট্যান্ডার্ড’ নিরাপত্তা পণ্য কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। যা কয়েক বছর আগেও আলোচনায় ছিল না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে কিছু চড়াই-উৎরাই ছিল। কিন্তু এখন মোটামুটি আমাদের অবস্থান আঙ্কারার কাছে অনেকটা পরিষ্কার। আমাদের স্পর্শকাতর বিষয়গুলো তারা বুঝতে শুরু করেছে।’

তুরস্কের উচ্চাকাঙ্ক্ষা রয়েছে এবং বাংলাদেশেরও আগ্রহের জায়গায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে মিল রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ একটি শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হচ্ছে এবং বিষয়টি তুরস্ক অনুভব করতে পারছে। আবার অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্য এবং ওআইসিতে তুরস্ক উদীয়মান শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি বলবো রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে আমরা দুই দেশ একে অপরের কাছে এসেছি।’

‘বাংলাদেশ ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। ওআইসিতে বাংলাদেশের ভারসাম্যমূলক অবস্থান নিচ্ছে।’ বিষয়টিও হয়তো তুরস্ক পর্যবেক্ষণে নিয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, এসব উপাদানের কারণে আমাদের আগ্রহ অবশ্যই আছে। তুরস্কের আগ্রহেও কমতি নেই।

কৌশলগত সম্পর্ক

বর্তমানে বাংলাদেশ তুরস্ক থেকে বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তা সামগ্রী কিনেছে। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘তাদের নিরাপত্তা পণ্য ন্যাটোর মানসম্পন্ন। দামও কিছুটা কম হতে পারে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, এই ক্রয়ের সঙ্গে বিশেষ কোনও শর্ত জুড়ে দেওয়া হবে না।’

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে উচ্চ প্রযুক্তির অস্ত্র কেনা হলে সেটার সঙ্গে বিভিন্ন শর্ত জুড়ে দেওয়া হয় (যেমন, যেকোনও সময় ওই অস্ত্র পরিদর্শন করতে দেওয়া)।

দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক কৌশলগত হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দুটো দেশ মুসলিম হওয়ায় অনেক সাধারণ উপাদান আছে এখানে।’

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

রাষ্ট্রীয় সফরে তুরস্কে গেলেন সেনাপ্রধান

ঢাকা-আঙ্কারা পর্যটন সহায়তা বাড়ানোর আহ্বান

ঢাকা-আঙ্কারা পর্যটন সহায়তা বাড়ানোর আহ্বান

ঢাকা-আঙ্কারা সম্পর্ক: ‘রিব্যালান্সিং করতে গিয়ে অফ-ব্যালান্সিং যেন না হয়’

ঢাকা-আঙ্কারা সম্পর্ক: ‘রিব্যালান্সিং করতে গিয়ে অফ-ব্যালান্সিং যেন না হয়’

নিরাপত্তা সরঞ্জাম কিনতে তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি

নিরাপত্তা সরঞ্জাম কিনতে তুরস্কের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

ছোট-বড় মিলিয়ে একদিনে ছয় জনসভায় বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নৌকাবাইচ

ডিসেম্বরের মধ্যে দেওয়া হবে ১০ কোটি টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডিসেম্বরের মধ্যে দেওয়া হবে ১০ কোটি টিকা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

ডেঙ্গুতে আরও দুজনের মৃত্যু, এ মাসে রোগী ছাড়ালো ৭ হাজার

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া রোধে আরও জনবল চায় রেল

করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

করোনায় চার মাস পর সর্বনিম্ন মৃত্যু

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

এবারের গণটিকা কর্মসূচিতে প্রাধান্য পাচ্ছেন যারা

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

গণমানুষের সমর্থনের প্রতি বিশ্বাসই প্রধানমন্ত্রীর চালিকাশক্তি: স্পিকার

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

আসছে মাস্টারপ্ল্যান, বদলে যাবে পর্যটনের চিত্র

সর্বশেষ

‘কক্সবাজার হবে বিশ্বের অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটন নগরী’

‘কক্সবাজার হবে বিশ্বের অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটন নগরী’

আন্দোলনে বিএনপির নেতা কে, জানতে চান ওবায়দুল কাদের

আন্দোলনে বিএনপির নেতা কে, জানতে চান ওবায়দুল কাদের

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দারুণ খেলুক শামীম প্রত্যাশা চাঁদপুরবাসীর 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দারুণ খেলুক শামীম প্রত্যাশা চাঁদপুরবাসীর 

‘করোনাকালে তথ্য অধিকারের সংকোচন ঘটেছে’

‘করোনাকালে তথ্য অধিকারের সংকোচন ঘটেছে’

পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ে চাকরি, নেবে ২৫ জন

পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ে চাকরি, নেবে ২৫ জন

© 2021 Bangla Tribune