X
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

প্রেমিকাকে আইফোন কিনে দিতে বাবার সঙ্গে অপহরণ নাটক

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ০০:৪৭

বগুড়ায় প্রেমিকার আইফোনের আবদার পূরণে আত্মগোপন করে অপহরণ নাটক সাজিয়ে বাবার কাছে মুক্তিপণ দাবি করেছে এক কলেজছাত্র। এ ঘটনায় ওই কলেজছাত্র ও তার বন্ধুকে আটক করেছে র‌্যাব।

তারা হলো সোনাতলা উপজেলার বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা ওবায়দুল সরকারের ছেলে সরকারি আজিজুল হক কলেজের শিক্ষার্থী রাকিবুল হাসান রিয়াদ (১৯), তার সহপাঠী বন্ধু জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার মোলামগাড়িহাটের প্রবাসী মইফুল আকন্দের ছেলে মুন্না হাসান (১৮)। 

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) তাদের অভিভাবকদের জিম্মায় দিয়ে মুচলেকা নেওয়া হয়। বগুড়া র‌্যাব-১২-এর কোম্পানি কমান্ডার (লেফটেন্যান্ট কমান্ডার) আব্দুল্লাহ আল মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

র‌্যাব জানায়, রিয়াদের সঙ্গে এক মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক আছে। প্রেমিকা তার কাছে একটি আইফোন উপহার চায়। আবদার পূরণের বিষয়ে মুন্নার সঙ্গে আলোচনা করে রিয়াদ জানতে পারে আইফোনের দাম প্রায় লাখ টাকা। তখন বন্ধুর পরামর্শে অপহরণ নাটক সাজিয়ে বাবা ওবায়দুল সরকারের কাছ থেকে মুক্তিপণ হিসেবে লাখ টাকা আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পরিকল্পনা অনুযায়ী ২৪ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয় রিয়াদ। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। রাতে বাড়ি না ফেরায় স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করেও সন্ধান পাননি। পরদিন রিয়াদের মা সোনাতলা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

২৬ জুলাই সকালে রিয়াদের মোবাইল নম্বর থেকে বাবার মোবাইলে কল আসে। অপরপ্রান্ত থেকে বলা হয়, রিয়াদকে জীবিত ফেরত পেতে হলে এক লাখ টাকা লাগবে। তখন রিয়াদ কান্নাকাটি করে জানায় অপহরণকারীরা টাকার জন্য তাকে মারপিট করছে। ছেলের কান্না শুনে বাবা টাকা দিতে রাজি হন। সেই সঙ্গে ছেলে অপহরণ হয়েছে জানিয়ে বগুড়া র‌্যাবের সহযোগিতা চান ওবায়দুল।

ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে র‌্যাব জানতে পারে রিয়াদ ও তার বন্ধু মুন্না টাকা আদায়ের জন্য অপহরণ নাটক সাজিয়েছে। অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর সোমবার মধ্যরাতে বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় অভিযান চালিয়ে দুই জনকে আটক করা হয়। পরে নাটক সাজানোর বিষয়টি স্বীকার করে তারা।

র‌্যাব কমান্ডার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে রিয়াদ জানায় প্রেমিকাকে আইফোন কিনে দিতে অপহরণ নাটক সাজিয়ে বাবার কাছে মুক্তিপণ চেয়েছিল। পরিকল্পনা করে মোবাইল ফোন বন্ধ রেখে রিয়াদকে নিয়ে বগুড়া ও জয়পুরহাটের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরেছে মুন্না। তাদেরকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ভবিষ্যতে এমন কর্মকাণ্ডে জড়াবে না বলে মুচলেকা দিয়েছে তারা।

/এএম/

সম্পর্কিত

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

আ.লীগকে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসার আহবান জোনায়েদ সাকির

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৫

রাজনৈতিক পরিবেশের উন্নয়নে ক্ষমতাসীন দলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে নতুনভাবে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসতে হবে। আমরা বলছি আসুন, আমরা নতুন রাজনৈতিক চুক্তি করে সমঝোতায় আসি। যাতে দেশের চলমান সংকট থেকে উত্তরণ হয়।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রংপুর নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে গণসংহতি আন্দোলন রংপুর জেলা শাখার উদ্যোগে দলীয় কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ ২০২৩ সালে ২০১৮-এর মতো নির্বাচন করতে তৎপর হয়ে উঠেছে। তারা নানান কৌশল আঁটছে কীভাবে জনগণকে ধোঁকা দেওয়া যায়। প্রতারণার নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা কুক্ষিগত করতে চেষ্টা করছে তারা। তবে দেশের জনগণ তার ভোট দখলের চেষ্টা সফল হতে দেবে না। এটা করলে দেশে বড় ধরনের গলঅভ্যুত্থান মোকাবেলা করতে হবে বলে হুঁশিয়ার করেন তিনি। 

গণসংহতি আন্দোলনের রংপুরের জেলা সমন্বয়কারী তৌহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সদস্য দীপক রায়, প্রত্যয় মিজান প্রমুখ।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বেরোবি কর্তৃপক্ষ

১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বেরোবি কর্তৃপক্ষ

বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ ২ জনের যাবজ্জীবন

স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ ২ জনের যাবজ্জীবন

দেড় মাস পর হিলি দিয়ে এলো কাঁচা মরিচ

দেড় মাস পর হিলি দিয়ে এলো কাঁচা মরিচ

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৪৬

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার একটি বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মাধ্যমিকের সরকারি বই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকালে রানীর হাট বাজারে একজনের কাছে বইগুলো দেখা যায়।

খবর পেয়ে রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তাড়াশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফকির জাকির হোসেন অফিস সহকারী মাহমুদুল আলমকে পাঠিয়ে ওই ক্রেতার কাছ থেকে ৯০৩ কপি বই জব্দ করেন।
 
স্থানীয়রা জানায়, শনিবার বিকালে রানীর হাট সিরাজগঞ্জ বাজার দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোমিন বিদ্যালয় ছুটির পর বিদ্যালয়ে একাই অবস্থান করেন। পরে তিনি গোপনে স্টোররুমে সংরক্ষিত ২০১৯-২০২০ ও ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের ১৬৩ কেজি ওজনে সরকারি বিনামূল্যের ৯০৩টি বই বগুড়ার শেরপুর উপজেলার পাঁচদৈলী গ্রামের ফেরিওয়ালা সাব্বির হোসেনের কাছে বিক্রি করে দেন। বিকালে ফেরিওয়ালা সাব্বির হোসেন তার কেনা বইগুলো রানীর হাট বাজারে টঙ দোকানের সামনে রেখে দেন। বাজারে আগত লোকজন সরকারি বই দোকানে দেখতে পেয়ে ফেরিওয়ালা সাব্বির হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনা সামনে আসে।

রানীর হাট বাজারে একজনের কাছে বইগুলো দেখা যায়

ফেরিওয়ালা সাব্বির হোসেন জানান, তিনি রানীর হাট সিরাজগঞ্জ বাজার দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোমিনের কাছ থেকে ১৩ টাকা কেজি দরে ১৬৩ কেজি বই দুই হাজার ১০০ টাকার বিনিময়ে কিনেছেন।
 
সরকারি বই বিক্রির কথা স্বীকার করে আব্দুল মোমিন বলেন, বিদ্যালয়ের অপ্রয়োজনীয় কাগজের সাথে পুরাতন বইগুলো বিক্রি করে দিয়েছেন। বই বিক্রির টাকায় ছাত্রীদের ব্যবহারের অনুপযোগী ওয়াশরুম মেরামত করা হবে বলে জানান তিনি।
 
তাড়াশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফকির জাকির হোসেন জানান, সরকারি বই বিক্রি করা অপরাধ। আমরা বিক্রি করা বইগুলো জব্দ করেছি। বিষয়টি ইউএনও ও ওসিসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া  

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৩৯

কসবা উপজেলার নবগঠিত যুবদলের কমিটির মিছিলে পুলিশি বাধায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় বিএনপির অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হন। বেশ কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মীও এসময় আহত হন। সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক ইমুকে আটক করেছে পুলিশ। 

পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা বলেন, গত ১২ জুন কসবা উপজেলা যুবদল ও পৌর যুবদলের আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে এই কমিটির তথ্য গত ৯ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে প্রকাশ করা হয়। কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে সোমবার সকালে কসবা উপজেলা যুবদলের নবগঠিত কমিটির আহবায়ক মাসুদুল হক দীপুর নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা অনন্তপুরের বালুর মাঠ থেকে মিছিল বের করে। পরে অনুমোদন না থাকায় পুলিশ মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

 এসময় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় নবগঠিত কমিটির আহবায়ক মাসুদুল হক দীপু, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক ইমু, কর্মী সাজেদুল হক, আকরামসহ অন্তত ১০ জন নেতাকর্মী আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক ইমুকে আটক করেন।

এছাড়া মোহনা টিভির কসবা প্রতিনিধি সাংবাদিক হারুন অর রশিদ ডালি, সময় টিভির ক্যামেরাপারসন জুয়েল রহমান, এটিএন নিউজের ব্যুরো প্রধান পীযুষ কান্তি আচার্য ঢিলের আঘাতে আহত হন। 

 কসবা উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মাসুদুল হক দীপু বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে নবগঠিত কমিটির পক্ষে মিছিল করছিলাম। এসময় বিনা উসকানিতে পুলিশ আমাদের মিছিলে বাধা দেয়। লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে আমাদের অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আমরা ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং আটক নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবি করছি। 

কসবা থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিল করার অনুমতি ছিল না। এ কারণে পুলিশ তাদেরকে বাধা দেয়। তারা বাধা না মানার কারণে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় পুলিশ ছাত্রদলের এক নেতাকে আটক করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে ‌বলে জানান তিনি। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বেরোবি কর্তৃপক্ষ

১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বেরোবি কর্তৃপক্ষ

মোবাইলফোনে তালাক দিলেন স্বামী, শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা

মোবাইলফোনে তালাক দিলেন স্বামী, শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা

সচেতন সেবায় পর্যটনের ক্ষতি পুষিয়ে ওঠার চেষ্টা 

সচেতন সেবায় পর্যটনের ক্ষতি পুষিয়ে ওঠার চেষ্টা 

৩১ বছরের পুরোনো শতাধিক গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগ

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৭

ঢাকার ধামরাইয়ে একটি বেসরকারি সংস্থার চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সড়কের পাশ থেকে ১৩২টি গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলা বন কর্মকর্তা মোতালেব হোসেন বাদী হয়ে ধামরাই থানায় এই মামলা করেন।

অভিযুক্তরা হলেন—বেসরকারি এনজিও সংস্থার (সজাগ) পরিচালক আব্দুল মতিন (৬২), ম্যানেজার মো. মাসুদুর রহমান মাসুদ (৫০), গাছ ক্রেতা মো. হানিফ আলী বেপারী (৩০) ও সাধু বেপারী (৬০)।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বন বিভাগের অনুমতি ছাড়াই শনিবার সোমভাগ ইউনিয়নের চাপিল এলাকা থেকে নওগাঁও পর্যন্ত তিন কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশের ১০৭টি গাছ এবং কুশুরা ইউনিয়নের বান্নাখোলা এলাকা থেকে পথহারা এক কিলোমিটার রাস্তার ২৫টি গাছসহ মোট ১৩২টি গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। পরে সেই গাছ বিক্রি করে দেয় স্থানীয় সজাগ নামের একটি এনজিও। খবর পেয়ে বন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে বাঁধা দিয়েও গাছ কাটা বন্ধ করতে পারেনি। এক পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে অতিরিক্ত জনবল নিয়ে সেখান থেকে গাছ কাটার যন্ত্রপাতি উদ্ধার করা হয়।

বন কর্মকর্তা মোতালেব হোসেন বলেন, ১৯৯০ সালে  ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের (ডব্লিউএফপি) আওতায় সড়কের পাশে গাছ লাগানো হয়। কিন্তু এ বিষয়ে সজাগ এনজিওর সঙ্গে তাদের কোনও চুক্তি হয়নি। হঠাৎ করেই কোনও অনুমতি না নিয়ে ওই এনজিও তাদের সড়কের ১৩২টি মেহগনি গাছ কেটে নিয়েছে, যেগুলোর বাজারমূল্য প্রায় নয় লাখ ১০ হাজার টাকা। 

এ বিষয়ে কথা বলতে সজাগের পরিচালক আব্দুল মতিনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করেও পাওয়া যায়নি।

ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতিকুর রহমান বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে মামলা করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ডায়িং মেশিনের গরম পানিতে ঝলসে ৩ শ্রমিক আহত

ডায়িং মেশিনের গরম পানিতে ঝলসে ৩ শ্রমিক আহত

আট কেজির ঢাই মাছ বিক্রি হলো ২৫ হাজারে

আট কেজির ঢাই মাছ বিক্রি হলো ২৫ হাজারে

পদ্মার ৩৭ কেজির বাগাড় ৪৮ হাজারে বিক্রি

পদ্মার ৩৭ কেজির বাগাড় ৪৮ হাজারে বিক্রি

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

পদ্মায় কম থাকলেও বাজার ভরে গেছে ‘পদ্মার ইলিশে’

বিকৃত জাতীয় পতাকা প্রদর্শন

১৯ শিক্ষক-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বেরোবি কর্তৃপক্ষ

আপডেট : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৫৮

বিজয় দিবসে বিকৃত জাতীয় পতাকা প্রদর্শনের ঘটনায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিযুক্ত ১৯ শিক্ষক ও কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাসেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এমনকি শিক্ষা মন্ত্রণালয় চিঠি দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দীর্ঘ ৭ মাসেও কোনও জবাব দেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে জাতীয় পতাকা অবমাননা মামলার ১৮ শিক্ষক ও এক কর্মকর্তাসহ ১৯ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠনের পরেও আসামিদের সাময়িক বরখাস্ত না করার অভিযোগ উঠেছে।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ২০১৮ সালের সরকারি চাকরি আইনের ৩৯ (২) ধারা অনুযায়ী কোনও কর্মকর্তা কর্মচারী গ্রেফতার, আটক অথবা তার বিরুদ্ধে আদালত কর্তৃক অভিযোগ গঠনের দিন থেকে আসামিদের বরখাস্ত করতে হবে কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনও পদক্ষেপ নেয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে ২০২০ সালের ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয়ে দিবসের সকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের স্বাধীনতা স্মারকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ শিক্ষক ও এক কর্মকর্তা বিকৃত জাতীয় পতাকা প্রদর্শন করেন। সেই ছবি আবার ফেসবুকে দেন তারা। এ ঘটনার পরেও তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহ জাতীয় পতাকা অবমাননাকারীদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেননি। 

এ ঘটনায় রংপুর জেলা প্রশাসন একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উপস্থিত সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অভিযুক্তদের সাক্ষ্যগ্রহণ করে। পরে জাতীয় পতাকা অবমাননার দায়ে ১৯ জন শিক্ষক কর্মকর্তাকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

অভিযুক্তরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক আর এম হাফিজুর রহমান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তাবিউর রহমান প্রধান, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পরিমল চন্দ্র বর্মণ, মার্কেটিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাসুদ উল হাসান, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাম প্রসাদ বর্মণ, পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রশিদুল ইসলাম, ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শামীম হোসেন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক রহমতউল্লাহ, রসায়ন বিভাগের প্রভাষক মোস্তফা কাইয়ুম শারাফাত, ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রভাষক সোহাগ আলী, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আবু সায়েদ, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কামরুজ্জামান, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সদরুল ইসলাম সরকার, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক প্রদীপ কুমার সরকার, পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাহ জামান, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মোরশেদ হোসেন, পরিসংখ্যান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক চার্লস ডারউন, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নুর আলম সিদ্দিক এবং পরিসংখ্যান বিভাগের সেকশন অফিসার (গ্রেড-১) শুভঙ্কর। 

পরে এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক মাহমদুল হক ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বাদী হয়ে নগরীর তাজহাট থানায় জাতীয় পতাকা অবমাননার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তদন্ত শেষে পুলিশ ১৯ শিক্ষক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে (স্মারক নম্বর ৬৩ তারিখ ৪/২/২১) উপসচিব নুর-ই আলম স্বাক্ষরিত একটি চিঠি দেওয়া হয়। চিঠিতে জাতীয় পতাকা বিকৃত করে প্রদর্শনকারী শিক্ষক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চাওয়া হয়। তবে সাবেক উপাচার্য কলিম উল্লাহ কোনও ব্যবস্থা নেননি। বরং অভিযুক্তদের বেশ কয়েকজনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়ন করেন বলে মামলার বাদী শিক্ষক মাহমুদুল হক অভিযোগ করেন। 

তিনি আরও অভিযোগ করেন, জাতীয় পতাকা অবমাননা মামলার প্রধান আসামি তাবিউর রহমানকে সহকারী অধ্যাপক পদ থেকে পদোন্নতী দিয়ে সহযোগী অধ্যাপক করা হয়েছে। শুধু তাই নয় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষক হাফিজুর রহমান সেলিমকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ ও হিসাব দফতরের পরিচালক করা হয়েছে। একইভাবে শিক্ষক মাসুদুল হাসানকে শারীরিক শিক্ষা বিভাগের পরিচালক, রাম প্রসাদকে শহীদ মুখতার এলাহী হলের সহকারী প্রভোস্ট, রহমত উল্লাহকে বঙ্গবন্ধু হলের সহকারী প্রভোস্ট, প্রদীপ কুমার সরকারকে সাইবার সেন্টারের পরিচালক, শাহ জামানকে পরিসংখ্যান বিভাগের প্রধান, ড. রশিদুলকে শহীদ মুখতার এলাহী হলের প্রভোস্টের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এদিকে গত ২১ সেপ্টেম্বর জাতীয় পতাকা অবমাননা মামলায় রংপুরের মেট্রোপলিটান আমলী আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট আল মেহমুদ মামলার আসামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯ শিক্ষক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে ২৩ নভেম্বর সাক্ষ্যগ্রহনের দিন ধার্য করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট রফিক হাসনাইন।

তবে আসামিদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের হওয়া এবং অভিযোগপত্র দাখিল এবং অভিযোগ গঠনের পরেও আসামিদের সাময়িক বরখাস্ত না করায় আইনের ব্যত্যয় হয়েছে বলে জানান রংপুরের সিনিয়র আইনজীবী রইছ উদ্দিন বাদশা। 

সরকারি কর্মচারী আইন-২০১৮ সালের ৩৯(২) ধারা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, কোনও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ফৌজদারি মামলায় আটক গ্রেফতার হলে অথবা তার বিরুদ্ধে আদালত কর্তৃক অভিযোগ গঠন করা হলে সেই দিন থেকে আসামিকে চাকরি থেকে সাসপেন্ড করার কথা। কিন্তু পাঁচ দিন অতিবাহিত হবার পরেও আসামিদের সাসপেন্ড না করা আইনের প্রতি কর্তৃপক্ষের অবজ্ঞা বলে মনে করছি।

মামলার বাদী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাহমুদুল হক বলেন, আইন অনুযায়ী আসামিদের সাসপেন্ড করার কথা। আশাকরি, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেবে। 

সার্বিক বিষয় জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান আইন কর্মকর্তা রেহেনা আখতার মনির মোবাইলফোনে একাধিকাবর কল করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তাকে এসএমএস করেও কোনও জবাব মেলেনি। 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হাসিবুর রশীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। 

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

আ.লীগকে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসার আহবান জোনায়েদ সাকির

আ.লীগকে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসার আহবান জোনায়েদ সাকির

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-যুবদল কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া  

বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

মোবাইলফোনে তালাক দিলেন স্বামী, শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা

মোবাইলফোনে তালাক দিলেন স্বামী, শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

বগি লাইনচ্যুত, বিকল্প লাইনে ঢাকায় গেলো সুন্দরবন এক্সপ্রেস

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

কালভার্ট আছে রাস্তা নেই, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র করোনায় আক্রান্ত

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির তিন শীর্ষ নেতার জামিন

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির তিন শীর্ষ নেতার জামিন

৪ ঘণ্টা পর পাবনা-রাজশাহী রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

৪ ঘণ্টা পর পাবনা-রাজশাহী রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

রামেকের করোনা ইউনিটে ২৬ দিনে ১৫০ জনের মৃত্যু

রামেকের করোনা ইউনিটে ২৬ দিনে ১৫০ জনের মৃত্যু

৭০ বছর পর মায়ের সন্ধান পেলেন কুদ্দুস

৭০ বছর পর মায়ের সন্ধান পেলেন কুদ্দুস

আমি আপনাদের বেতনভুক্ত চাকর: পলক

আমি আপনাদের বেতনভুক্ত চাকর: পলক

মাতব্বরদের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া বাউল

মাতব্বরদের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া বাউল

সর্বশেষ

টেস্ট ক্রিকেট ছাড়ছেন মঈন আলী

টেস্ট ক্রিকেট ছাড়ছেন মঈন আলী

আ.লীগকে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসার আহবান জোনায়েদ সাকির

আ.লীগকে রাজনৈতিক সমঝোতায় আসার আহবান জোনায়েদ সাকির

আফগানিস্তানে নারীর অধিকার লঙ্ঘনে জাতিসংঘের দফতরে সামনে বিক্ষোভ

আফগানিস্তানে নারীর অধিকার লঙ্ঘনে জাতিসংঘের দফতরে সামনে বিক্ষোভ

নওয়াজুদ্দিনের ডিকশনারিতে সুপারস্টারের অর্থটা অন্যরকম

নওয়াজুদ্দিনের ডিকশনারিতে সুপারস্টারের অর্থটা অন্যরকম

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

১৩ টাকা কেজিতে বিদ্যালয়ের বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

© 2021 Bangla Tribune