X
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

টিটোর সর্বাত্মক সমর্থন ঘোষণা

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২৯ জুলাইয়ের  ঘটনা।)

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুগোস্লাভিয়ায় প্রেসিডেন্ট মার্শাল টিটোর সঙ্গে শীর্ষ বৈঠক সমাপ্ত করেছেন। এদিন (২৯ জুলাই) বঙ্গবন্ধু ব্রিওলি ত্যাগ করেন। সেসময় প্রেসিডেন্ট টিটো বঙ্গবন্ধুকে আন্তরিক বিদায় সংবর্ধনা জানান। দ্বীপে ২৪ ঘণ্টা অবস্থানকালে বঙ্গবন্ধু প্রেসিডেন্ট  টিটোর সঙ্গে রাতে এক শীর্ষ বৈঠকে মিলিত হন এবং দুই বিশ্বনেতার মাঝে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে, বিশেষ করে উপমহাদেশ ও মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা  হয়। প্রেসিডেন্ট মার্শাল টিটো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নৈশভোজে নিমন্ত্রণ করেন। বঙ্গবন্ধুর সম্মানে প্রদত্ত অনুষ্ঠানের ভাষণে তিনি যেসব দেশ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়নি, সেই সব দেশকে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের বাস্তবতা মেনে নেওয়া এবং  অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

প্রেসিডেন্ট টিটো সাম্প্রতিক জোট নিরপেক্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশের যোগদান এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের ন্যায়সঙ্গত আসন লাভের বিষয়-সহ সব আন্তর্জাতিক বিষয়ে বাংলাদেশকে তার সর্বাত্মক সমর্থন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। বাংলাদেশের জাতীয় পুনর্গঠনে যুগোস্লাভিয়া সহযোগিতা প্রদানের কথাও ঘোষণা করেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ভাষণে আশা প্রকাশ করেন, যুগোস্লাভিয়ার অব্যাহত সমর্থন এবং অন্যান্য দেশের সহযোগিতায় পাকিস্তানে জোর করে আটকে রাখা বাঙালিরা ঘরে ফিরতে পারবে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশের পক্ষে সমর্থন দেওয়ায়  সরকার ও জনগণের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বঙ্গবন্ধু। তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের দিনগুলোতে তিনি যখন পাকিস্তানের বন্দিশালায় ছিলেন, তখন তাঁর প্রাণ রক্ষার জন্য যুগোস্লাভিয়া হস্তক্ষেপ করেছিল। বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের দিনে প্রেসিডেন্ট টিটো এবং যুগোস্লাভিয়ার জনগণ সমর্থন দিয়েছেন, বাংলাদেশের মানুষ কোনোদিন তা ভুলবে না।’ বাংলাদেশ আর যুগোস্লাভিয়া —এ দুটি দেশের মধ্যে সাদৃশ্য রয়েছে, তার উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুর বলেন, বাংলাদেশ ও যুগোস্লাভিয়ার মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে।’

দৈনিক ইত্তেফাক, ৩০ জুলাই ১৯৭৩ মার্শাল টিটো প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গতিশীল নেতৃত্বের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা প্রকাশ করেন এবং বাংলাদেশের জনগণের জন্য বঙ্গবন্ধুর অপরিসীম ত্যাগের কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের জনগণের ঐতিহাসিক বীরত্ব-সংগ্রামের তিনি প্রশংসা করেন।স তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠনে তাদের সমর্থন ও সহযোগিতা দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেন। বাংলাদেশকে তার দেশের কারিগরি ও অর্থনৈতিক সাহায্য দানের কথাও জানান তিনি।

ভারত-পাকিস্তান আলোচনার মেয়াদ বাড়লো

ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিদল সরকারি পর্যায়ে এ দিন  দীর্ঘ বৈঠকে মিলিত হয়। বৈঠক শেষে আভাস পাওয়া যায় যে, আরও বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। আড়াই ঘণ্টা বৈঠক শেষে ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতা পি এন হাকসার বলেন, ‘আমি এখনও আশাবাদী, যত দিন আমাদের প্রয়োজন হবে, তত দিন আমরা এখানে অবস্থান করবো।’ পাকিস্তানি বেতার জানায়, আরও আলোচনার সম্ভাবনা আছে। তবে তার জন্য কোনও সময়সীমা নির্দিষ্ট করা হয়নি। এদিন বৈঠকের পর এমন একটা জল্পনা সৃষ্টি হয়েছে যে, একটা ফর্মুলার ব্যাপারে দুই প্রতিনিধিদলেরই তাদের সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করার প্রয়োজন আছে।

ডেইলি অবজারভার, ৩০ জুলাই ১৯৭৩ এর আগে রাওয়ালপিন্ডি থেকে ইউএনআই-এর খবরে বলা হয়, ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিদল ১১ দফা আলোচনা বৈঠকে মিলিত হয়। কতিপয় প্রশ্নে পাকিস্তানের অনমনীয় মনোভাবের দরুন আলোচনার ভবিষ্যৎ এখনও অনিশ্চিত। কয়েকদফা বৈঠকের পর জানা গেছে যে, আরও এক দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে সেটা কখন অনুষ্ঠিত হবে তা নির্দিষ্ট হয়নি। ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতারা বৈঠক থেকে হোটেলে ফিরে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে যান। তবে আভাস দেন যে, আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে পিএন হাসকার বলেন, তিনি সব সময় আশা নিয়েই বেঁচে আছেন। আলোচনায় অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে কিনা, জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, আশা কি অচল অবস্থার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ!

গত দুদিন থেকে পর্যবেক্ষকদের ধারণা হচ্ছে, আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। তবে সমাধান থেকে কতদূর রয়েছে সে সম্পর্কে আভাস পাওয়া যায়নি। রাওয়ালপিন্ডি থেকে এপি’র খবরে বলা হয় যে, আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে গিয়েছে এবং ভারতীয় প্রতিনিধি দল তাদের নয়াদিল্লিতে যাত্রা পিছিয়েছে। ভারতীয় প্রতিনিধি দল নয়াদিল্লি এবং যুগোস্লাভিয়ায় সফররত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনে অসুবিধার কারণে আলোচনার পদ্ধতি এমন হচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যুদ্ধবন্দিদের প্রস্তাবিত বিচার স্থগিত রাখা এবং ভারত ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীর বিচারের জন্য বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করবে না, পাকিস্তান সেই প্রতিশ্রুতি আদায়ে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বলে মনে হয়।

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

করোনায় শনাক্ত নামলো হাজারের নিচে

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:০৪

করোনায় দৈনিক শনাক্ত নেমে এলো হাজারের নিচে। একদিনে ভাইরাসটিতে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৮১৮ জন। এর আগে গত ১৭ মে ৬৯৮ জন শনাক্তের কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। একই সময়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২৫ জন। তাদের নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে ভাইরাসটিতে মোট মারা গেলেন ২৭ হাজার ৩৯৩ জন। 

একদিনে নতুন শনাক্ত ৮১৮ জনকে নিয়ে দেশে করোনায় সরকারি হিসাবে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা সাড়ে ১৫ লাখ ছাড়িয়ে গেলো। দেশে এখন করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১৫ লাখ ৫০ হাজার ৩৭১।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় রোগী শনাক্তের হার চার দশমিক ৫৯ শতাংশ। আর আজকের শনাক্তের হার নিয়ে টানা পঞ্চম দিনের মতো দৈনিক শনাক্তের হার পাঁচ শতাংশের নিচে।

একই সময়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন ৯৬৫ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হলেন মোট ১৫ লাখ ১০ হাজার ১৬৭ জন। এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ১৫ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৪১ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা যাওয়া ২৫ জনের মধ্যে পুরুষ ১৪ জন আর নারী ১১ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৫৯৮ জন আর নারী মারা গেলেন নয় হাজার ৭৯৫ জন।

মারা যাওয়া ২৫ জনের মধ্যে বয়স বিবেচনায় ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে রয়েছেন দুই জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে সাত জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ছয় জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে চার জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন আর ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে রয়েছে একজন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৫ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১১ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ছয় জন, খুলনা বিভাগের চার জন আর সিলেট ও রংপুর বিভাগের আছেন দুই জন করে। তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১৯ জন আর বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ছয় জন।

/জেএ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

করোনায় মৃত্যুহীন দিন তিন বিভাগের

করোনায় মৃত্যুহীন দিন তিন বিভাগের

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে যুক্ত হলো বাংলাদেশ

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৯

নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের নতুন সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে যোগ দিয়েছে বাংলাদেশ। ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার সমন্বয়ে গঠিত নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (বিআরআইসিএস)। জোটের গত ২০ আগস্ট অনুষ্ঠিত বোর্ড অব গভর্নরস এর সভায় নতুন সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের যোগদান অনুমোদিত হয় এবং সে প্রেক্ষিতে ব্যাংকটির নিয়ম অনুযায়ী গত ১৬ সেপ্টেম্বর ব্রাজিল সরকারের নিকট ইন্সট্রুমেন্ট অব অ্যাকসেশন দাখিল করে বাংলাদেশ। ফলে ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে ব্যাংকটির সঙ্গে বাংলাদেশের যোগদান নিশ্চিত হয়।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে- নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট মার্কোস ট্রয়ো এক বার্তায় বিষয়টি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে অবহিত করেন এবং ঊষ্ণ অভিনন্দন জানান। বাংলাদেশের যোগদান নিশ্চিত হওয়ার মাধ্যমে ২০১৫ সালে স্থাপিত এ বহুজাতিক ব্যাংকে বিআরআইসিএস জোটের বাইরে এবারই প্রথম কোনও দেশ ব্যাংকটির সদস্যপদ লাভ করলো।

অর্থমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশের উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে বৈদেশিক সহায়তার চাহিদাও বাড়ছে। এ প্রেক্ষিতে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে বাংলাদেশের যোগদানের বিষয়টি উভয়ের জন্য লাভজনক হবে। উন্নয়নকে টেকসই করতে এবং বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সুখী-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের অর্থায়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক এ পর্যন্ত সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ভৌত ও সামাজিক অবকাঠামো এবং নগর উন্নয়ন সংক্রান্ত ৮০টি বিভিন্ন প্রকল্পে প্রায় ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা দিয়েছে। উদীয়মান বাজার অর্থনীতির কাতারে উন্নীত হতে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সহায়তা বাংলাদেশে বিশেষ ভূমিকা রাখবে এবং বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়নে সহায়ক হবে বলে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

 

/এসআই/এমআর/

সম্পর্কিত

করোনায় শনাক্ত নামলো হাজারের নিচে

করোনায় শনাক্ত নামলো হাজারের নিচে

সাগরে গভীর নিম্নচাপ, সারাদেশে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি 

সাগরে গভীর নিম্নচাপ, সারাদেশে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি 

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

চলে গেলেন কমলা ভাসিন

চলে গেলেন কমলা ভাসিন

সাগরে গভীর নিম্নচাপ, সারাদেশে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি 

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৪৭

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া সুস্পষ্ট লঘুচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবে সমুদ্রবন্দর ও নদীবন্দরে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ জন্য সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৩ নম্বর (তিন নম্বর) দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত এবং নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর (এক নম্বর) সর্তকতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এর ফলে ঢাকাসহ সারা দেশেই মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে, এরই মধ্যে রাজধানীর কোথাও কোথাও বৃষ্টি শুরু হয়েছে। 

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, পূর্ব মধ্য ও উত্তর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া সুস্পষ্ট লঘুচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে এখন উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। এর প্রভাবে খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায়, ঢাকা বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেটের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বৃষ্টি হতে পারে। 

এদিকে নদীবন্দরগুলোর জন্য এক সতর্ক বার্তায় বলা হয়, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী,  নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার অঞ্চলগুলোর ওপর দক্ষিণ-দক্ষিণ পূর্বদিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এ জন্য এসব এলাকার বন্দরগুলোকে ১ নম্বর (এক নম্বর) সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

সমুদ্রবন্দরগুলোর সতর্ক বার্তায় বলা হয়, গভীর নিম্নচাপটি পশ্চিয় ও উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও ঘনীভূত হতে পারে। নিম্নচাপটি এখন চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৪৮০ কিলোমিটার পশ্চিম ও দক্ষিণ পশ্চিম দূরে অবস্থান করছে। এছাড়া মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে  ৪৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে, পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৪০৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দর থেকে ৪১৫ কিলোমিটার পশ্চিম ও দক্ষিণ পশ্চিম দূরে অবস্থান করছে। এটি আরও পশ্চিম ও উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

গভীর নিম্নচাপের কেন্দ্রস্থলের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পযন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। গভীর নিম্নচাপের কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই উত্তাল।

এজন্য চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরগুলোকে ১ নম্বর (এক নম্বর) দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।পাশাপাশি গভীর সাগরে বিচরণ করতে না করা হয়েছে।

/এসএনএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

সাগরে গভীর নিম্নচাপ, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা

সাগরে গভীর নিম্নচাপ, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত, দক্ষিণাঞ্চলে ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত, দক্ষিণাঞ্চলে ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

৮ জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে

৮ জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে

নদীর পানি কমতে শুরু করেছে, বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির সম্ভাবনা

নদীর পানি কমতে শুরু করেছে, বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির সম্ভাবনা

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২৫ সেপ্টেম্বরের ঘটনা।)

অটোয়ায় কমনওয়েলথ সম্মেলন এবং আলজিয়ার্সে জোটনিরপেক্ষ শীর্ষ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু অসাধারণ কৃতিত্বের জন্য ১৯৭৩ সালের এই দিন জাতীয় সংসদ সদস্যরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন। তারা উল্লেখ করেন যে, বঙ্গবন্ধু দেশের রূপকল্পের উচ্চতা বিদেশে আকর্ষণীয়ভাবে তুলে ধরেছেন। সংসদ সদস্যরা বলেন যে, এই দুটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু সাত কোটি সন্তানের স্বপ্ন আশা-আকাঙ্ক্ষাকে কেবল তুলেই ধরেননি, বরং সারা বিশ্বের নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর বক্তব্যকে ভাষা দিয়েছেন। সংসদে এ প্রসঙ্গে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন, ডা. এম এ মালেক, কোরবান আলী, ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, অধ্যক্ষ হুমায়ুন খালেক, আব্দুল মোমিন তালুকদার, জালাল আহমেদ ও ড. আসহাবুল হক।

ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর গতিশীল নেতৃত্বে বিশ্বের দরবারে জাতির রূপকল্পকে সমৃদ্ধ করেছে। দুটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশগ্রহণ বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি গৌরবময় অধ্যায় সংযোজন করেছে।’ তিনি বলেন, ‘অটোয়ায় বঙ্গবন্ধুর গঠনমূলক ভূমিকা সকলের ব্যাপক প্রশংসা লাভ করে।’ তিনি উল্লেখ করেন যে, জোটনিরপেক্ষ শীর্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশের সর্বসম্মত অন্তর্ভুক্তি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর একটি অবিস্মরণীয় কৃতিত্ব।’

দৈনিক ইত্তেফাক, ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

ভৈরব সেতু উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ভৈরব রেল সেতু আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন। সব প্রস্তুতি সম্পন্নের কথা প্রকাশ করা হয় এদিন। মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে পাক বাহিনী কর্তৃক বিধ্বস্ত গুরুত্বপূর্ণ সেতুটি মেরামতে ভারতীয়রা সাহায্য-সহযোগিতা করেছে। সেতুটি পুনরায় চালু হলে ঢাকা থেকে কুমিল্লা, সিলেট ও চট্টগ্রামে রেল চলাচলের অসুবিধা দূর হবে বলে জানানো হয়।

বিশ্বব্যাপী সমঝোতায় যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতার আশ্বাস

যুক্তরাষ্ট্রের নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণে আশ্বাস বাক্য উচ্চারণ করে বলেন যে, ‘এশিয়া, আফ্রিকা এবং বিশ্বব্যাপী সর্বোচ্চ সমঝোতা প্রতিষ্ঠায় যুক্তরাষ্ট্র  সহযোগিতা করে যাবে। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আঞ্চলিক সংঘর্ষ পরিহারের জন্য চেষ্টা করবে।’ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সমঝোতায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি অভিমত প্রকাশ করেন যে, উপমহাদেশ অভিনন্দনযোগ্য সমঝোতার পথে অগ্রসর হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী সমঝোতার মনোভাব সৃষ্টিতে আমরা আমাদের প্রভাব প্রয়োগ এবং বাস্তব উৎসাহ প্রদানের জন্য প্রস্তুত আছি।’

মানবীয় মূল্যবোধের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে তিনি ঘোষণা করেন, সমঝোতা থেকে সহযোগিতা এবং সহযোগী অবস্থান থেকে সংহতি প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র কোনও প্রচেষ্টা বাদ দেবে না। আমরা এমন এক শান্তির অন্বেষায় সচেষ্ট—স্থিতিশীল শক্তির ভারসাম্য নয়, বরং আশা-আকাঙ্ক্ষার সমশরিকানা সুপ্রতিষ্ঠিত করবো।

ডেইলি অবজারভার, ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩

ভাষণে তিনি বলেন, ‘আমরা নিশ্চিত যে, মানবীয় মূল্যবোধের মূল কাঠামো মানবজাতির অধিকাংশেরই আশা পূরণে সমর্থ হবে না।’ মার্কিন পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার চেতনায় আমরা নতুন সম্পর্কের সন্ধান অব্যাহত রাখবো। জীবনের সঙ্গে সম্পর্ক রচনায় আমাদের প্রয়াস বহাল থাকবে।’

বাংলাদেশের পাসপোর্টে পাকিস্তানে যায় কীভাবে?

ইংরেজি সাপ্তাহিক হলিডে’র কার্যনির্বাহী সম্পাদকের পাকিস্তান যাওয়াকে কেন্দ্র করে জাতীয় সংসদের অধিবেশনে উত্তপ্ত আলোচনা হয় এদিন। সরকারদলীয় সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল কুদ্দুস মাখন স্পিকারের মাধ্যমে সরাসরি দৃষ্টি আকর্ষণ করে জানতে চান, তিনি কীভাবে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তান গমন করতে সক্ষম হলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মালেক উকিল সংসদকে নিশ্চয়তা প্রদান করেন যে, তিনি বিষয়টি তদন্ত করবেন এবং বিষয়টি সম্পর্কে সংসদকে অবহিত করবেন। আব্দুল কুদ্দুস মাখন বলেন, ‘পাকিস্তান বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়নি, বরং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অনমনীয় মনোভাব প্রদর্শন করে আসছে।’ তিনি প্রশ্ন রাখেন, এই পরিস্থিতিতে তিনি কীভাবে পাকিস্তান যান? আব্দুল কুদ্দুস মাখন সাপ্তাহিক হলিডে’র নাম উল্লেখ করে বলেন যে, ‘এই পত্রিকাটি বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে এবং দেশকে হতাশাগ্রস্ত করে তুলছে।’

/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

চলে গেলেন কমলা ভাসিন

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২১

উপমহাদেশের নারী আন্দোলনের পুরোধা, লেখক-কবি কমলা ভাসিন মারা গেছেন। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ভারতীয় সময় পৌনে ৩টার দিকে তিনি মারা যান বলে জানিয়েছেন তার বাংলাদেশি সহযোদ্ধারা।

নারী আন্দোলন কর্মী  শিরিন হক বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে কমলা অসুস্থ ছিলেন। সর্বশেষ শুক্রবার পরিস্থিতি খারাপ হলে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা জানান, তার ফুসফুসে পানি এসে গিয়েছিল।

কাজের সুবাদে তিনি প্রায় বাংলাদেশে আসতেন এবং বাংলাদেশে নারী আন্দোলনকে সাম্প্রতিক সময়ে সক্রিয় রাখতে তার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৬ সালে নারীর প্রতি সহিংসতাকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় যুদ্ধ আখ্যা দিয়ে এই অবস্থার পরিবর্তনে ভয়মুক্ত হয়ে নিজেদের বদলে ফেলার আহ্বান জানান উপমহাদেশের প্রখ্যাত নারী অধিকার নেত্রী কমলা ভাসিন।

নারীবাদী গণআন্দোলন মঞ্চ ‘উদ্যমে উত্তরণে শতকোটি’র উদ্যোগে রবিবার রাজধানীর ছায়ানট মিলনায়তনে ‘নারী শোষণের বিরুদ্ধে সংহতি’ শীর্ষক কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এই আহ্বান জানিয়েছিলেন। নারীবাদ নিয়ে তার ভাবনা ও বাস্তবায়ন পদ্ধতি অন্যরকম বলে বিবেচিত হয়ে থাকে।

কমলা ভাসিন ওই বক্তৃতায় বলেন, ‘তোমার-আমার ব্যক্তিগত জীবন না বদলালে পিতৃতন্ত্র চলে যাবে না। সুতরাং আমি নিজের দিকে আঙুল রাখছি, তোমরা নারী-পুরুষ নির্বিশেষে নিজের দিকে আঙুল রাখো।’

উল্লেখ্য, কিঁউকি ম্যায় লডকি হুঁ, মুঝে পঢ়না হ্যায় কবিতার জন্য তিনি সুপরিচিত। ১৯৯৫ সালে তিনি একটি সম্মেলনে জনপ্রিয় কবিতা আজাদীর (স্বাধীনতা) একটি পরিমার্জিত, নারীবাদী সংস্করণ আবৃত্তি করেন। তিনি ওয়ান বিলিয়ন রাইজিংয়ের দক্ষিণ এশিয়ার সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেছেন।

/ইউআই/এমএস/

সম্পর্কিত

সাত বিভাগীয় শহরে মোটর ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ পাবে নারীরা

সাত বিভাগীয় শহরে মোটর ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ পাবে নারীরা

মোদিকে ৭১টি গোলাপে শুভেচ্ছা জানালেন শেখ হাসিনা

মোদিকে ৭১টি গোলাপে শুভেচ্ছা জানালেন শেখ হাসিনা

ভারতীয় গণমাধ্যমে দিল্লিতে বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার উদ্বোধনের খবর

ভারতীয় গণমাধ্যমে দিল্লিতে বঙ্গবন্ধু মিডিয়া সেন্টার উদ্বোধনের খবর

ফ্লাইটে পাইলট নওশাদের জন্য নফল নামাজ পড়েন ক্রু

ফ্লাইটে পাইলট নওশাদের জন্য নফল নামাজ পড়েন ক্রু

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

‘বঙ্গবন্ধুর সাফল্য অসামান্য’ বলেছিলেন সংসদ সদস্যরা

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের হার

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

নেদারল্যান্ডসের রানির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

১৯৭৩ সালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আবারও নতুন পদক্ষেপ নিতে হয়

ভোক্তা প্রতারণা বন্ধে কার্যকর উপায় বের করার নির্দেশ রাষ্ট্রপতির

ভোক্তা প্রতারণা বন্ধে কার্যকর উপায় বের করার নির্দেশ রাষ্ট্রপতির

বৈশ্বিক সুদৃঢ় খাদ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

বৈশ্বিক সুদৃঢ় খাদ্য ব্যবস্থা গড়ে তোলার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

বিশ্বে ‘ভ্যাকসিন বিভাজন’ দূর করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বিশ্বে ‘ভ্যাকসিন বিভাজন’ দূর করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

‘দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে করোনার মধ্যে অর্থনীতির চাকা সচল’

‘দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে করোনার মধ্যে অর্থনীতির চাকা সচল’

সর্বশেষ

থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন‌: আইজিপি

থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন‌: আইজিপি

জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ভাষণে মুগ্ধ মার্কিন রাষ্ট্রদূত

জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ভাষণে মুগ্ধ মার্কিন রাষ্ট্রদূত

অগ্রসর হচ্ছে নিম্নচাপ ‘গুলাব’, সতর্ক অবস্থানে স্বেচ্ছাসেবকরা

অগ্রসর হচ্ছে নিম্নচাপ ‘গুলাব’, সতর্ক অবস্থানে স্বেচ্ছাসেবকরা

ইবি লেকের দুঃখগাথা

ইবি লেকের দুঃখগাথা

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

জাতিসংঘ অধিবেশনে ভাষণের সুযোগ পাচ্ছেন না তালেবান প্রতিনিধি

© 2021 Bangla Tribune