X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

আজ বন্ধু দিবস

ঘরে বসেই দেদার আড্ডা

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ০৭:৩০

আমেরিকান লেখক, সমাজকর্মী ও শিক্ষক হেলেন কেলার বলেছিলেন, ‘আলোকিত পথে একা হাঁটার চেয়ে বন্ধুর সঙ্গে অন্ধকারে হাঁটা ভালো।’ এই আলো-আঁধারি বলতে তিনি মূলত সুদিন আর দুর্দিন বুঝিয়েছেন। কিন্তু করোনাকালের হিসাবটা একটু আলাদা। আপাতত আজকের বন্ধু দিবসে বন্ধুর সঙ্গে হাঁটার চেয়ে দুজন ঘরে বসে অনলাইনে আড্ডা দেওয়াই শ্রেয়।

 

কবে থেকে বন্ধু দিবস?

বন্ধু মানেই ঠাট্টা-ভালোবাসা-দুষ্টুমি। বন্ধু ছাড়া জীবন চলতেই চায় না। তাই বন্ধুত্বকে ঘটা করে উদযাপন করতে চালু হয়েছিল বন্ধু দিবস।

প্যারাগুয়েতে ১৯৫৮ সালে বন্ধু দিবস পালনের প্রস্তাব রাখলেও, বড় পরিসরে এর চল শুরু হয় আমেরিকায়। বন্ধু দিবসের উৎপত্তি নিয়ে মতভেদও রয়েছে। অনেকের মতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা, বিশৃঙ্খলা ও হিংস্রতা মানুষের মধ্যে বন্ধ‍ুত্বের অভাব তৈরি করেছিল। সেটা ‍পূরণ করতেই বন্ধু দিবস পালনের ধারণা আসে।

আবার, ১৯১৯ সালের আগস্টের প্রথম রবিবার থেকেও কিছু দেশে চালু হয় বন্ধু দিবস। এদিন বন্ধুরা নিজেদের মধ্যে কার্ড, চকলেট ও ফুলসহ নানান উপহার বিনিময় করে।

আবার উপহার আদান-প্রদানের কথা মাথায় রেখে হলমার্কের প্রতিষ্ঠাতা জোয়েস হল ১৯৩০ সাল থেকে আগস্টের ২ তারিখ বন্ধু দিবসের ঘোষণা দেন। তার ঘোষণার পরপরই দিবসটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। রাতারাতি তার দোকানে কার্ড কেনার ধুম লেগে যায়৷ যদিও পরে মানুষ জানতে পারে এর পেছনের ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যের কথা।

১৯৯৮ সালে জাতিসংঘের এক অনুষ্ঠানে সাবেক জাতিসংঘ মহাসচিব কফি আনানের স্ত্রী ন্যানে আনান ডিজনি'র কার্টুন চরিত্র 'উইনি দ্যা পুহ'-কে বন্ধুত্বের মাস্কট হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেন।

আন্তর্জাতিকভাবে দিবসটি পালনের কথা তোলেন প্যারাগুয়ের চিকিৎসক রিম্যান আর্থেমিও ব্রেচকে। ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই বন্ধুদের নিয়ে এক নৈশভোজে বন্ধু দিবস পালনের প্রস্তাব তোলেন। সে রাতেই বিশ্বব্যাপী বন্ধুত্বের ঐক্য ছড়িয়ে দিতে ঘোষণা করা হয় 'ওয়ার্ল্ড ফ্রেন্ডশিপ ক্রুসেড।'

কিন্তু সমস্যা হলো একেক দেশে একেক তারিখে এ দিবস পালিত হচ্ছে। এই সমস্যা দূর করতে ২০১১ সালের ২৭ জুলাই জাতিসংঘের ৬৫তম সাধারণ সমাবেশে ৩০ জুলাইকে 'আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস' হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। তবে জাতিসংঘের ঘোষণার পরও আগস্টের প্রথম রবিবারই বন্ধু দিবস পালন করে বাংলাদেশ, ভারত ও মালয়েশিয়াসহ আরও কিছু দেশের মানুষ।

 

কার কী প্ল্যান?

আগে স্কুল যখন খোলা থাকতো, তখন স্কুলেই বন্ধুদের সাথে বন্ধু দিবস উদযাপন করতো রাজধানীর কলেজপড়ুয়া ইকরা। কে কতগুলো ফ্রেন্ডশিপ ব্যান্ড পেলো, এ নিয়ে চলতো কাড়াকাড়ি। অবশ্য শিক্ষকদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে খুব কম ব্যান্ডই সে নিজের কাছে রাখতে পারতো। এবার যেহেতু সামনা-সামনি দেখা হচ্ছে না, তাই ইকরা ও তার বন্ধুরা মিলে ঠিক করেছে ভিডিও কলে আড্ডা দেবে।

অন্যদিকে ভালো আঁকতে পারে দেখে বন্ধুমহলে সুখির বেশ সুনাম। তাই বন্ধু দিবসে সে তার প্রত্যেক বন্ধুকে কার্ড বানিয়ে উপহার দিতো। এবার হাতে হাতে কার্ড দিতে না পারার কারণে তার একটু মন খারাপ। কিন্তু বন্ধুদের সঙ্গে তোলা ছবিগুলো দিয়ে একটি ভিডিও বানিয়েছে সে। সেটা আপলোড দেবে ফেসবুকে।

রায়তা ঠিক করেছে জুম কলে একসঙ্গে বন্ধুদের সঙ্গে মজার কোনও সিনেমা দেখবে। সামনা-সামনি উপহার দিতে না পারায় জোয়া তার প্রিয় বন্ধু মালিহার জন্য অনলাইনে কেক ও বই অর্ডার করে পাঠিয়ে দিয়েছে তার বাসায়।

ঘরবন্দি হোক আর ঘরের বাইরে থেকে, বন্ধু দিবসের ষোলোআনা আনন্দটা আদায় করা চাই-ই।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০০

একটি প্রাণবন্ত হাসিখুশি ত্বক আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। তবে প্রায়ই অযত্নের কারণে ত্বক হারিয়ে ফেলে সজীবতা। ব্যস্ত জীবন থেকে কিছুটা সময় বের করে ত্বকের যত্ন নিতে গেলে নিচের কাজগুলো আপনাকে করতেই হবে।

 

ত্বক পরিষ্কার রাখুন

সঠিক পিএইচ-যুক্ত সাবান দিয়ে ত্বক প্রতিদিন পরিষ্কার করুন ও ত্বকে ময়েশ্চরাইজার ব্যবহার করুন। এতে ত্বক যথেষ্ট পুষ্টি পাবে এবং স্বাভাবিক আর্দ্রতা ও তৈলাক্ততা বজায় থাকবে। ত্বক থাকবে কোমল ও সুস্থ।

 

পরিমিত ও পুষ্টিকর খাবার

বলা হয়, আপনি যা খাবেন, সেটারই ছাপ দেখা যাবে ত্বকে। অর্থাৎ যতবেশি পুষ্টিকর খাবার খাবেন ত্বকও তত উজ্জ্বলতা ছড়াবে। দৈনন্দিন রুটিনে ফল এবং শাকসবজি বেশি রাখুন। ত্বকের স্বার্থে হলেও এড়িয়ে চলুন তেলজাতীয় খাবার।

 

পর্যাপ্ত পানি

ত্বকের সুস্থতার জন্য ত্বকের কোষে পানি থাকা চাই। আর এ জন্য পানি পানের বিকল্প নেই। পর্যাপ্ত পানি আমাদের শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করে। যা ত্বকেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। এতে ব্রণ বা ত্বকে সংক্রমণও কম হয়।

 

হাসিখুশি থাকুন

আমাদের মানসিক অবস্থা সরাসরি শরীরের ওপর প্রভাব ফেলে। স্বাভাবিক হাসি ত্বকের রক্তচলাচল বাড়ায়। এতে ত্বক আরও বেশি অক্সিজেন ও পুষ্টি পায়। তাই ত্বকের সৌন্দর্যে হাসুন কারণে-অকারণে।

 

হালকা ব্যায়াম না করলেই নয়

যখন আমরা নড়াচড়া একটু বেশি করি তখন আমাদের শরীরে এনডোরফিন হরমোন উৎপন্ন হয় বেশি। এটি সুখের অনুভূতি দেয়। যার ছাপ পড়ে ত্বকেও। ত্বকের যত্ন নিতে চাইলে তাই হালকা ব্যায়াম চালিয়ে যান।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

নিজেই বানান নারিকেল তেল

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০১

উপমহাদেশের কিছু রেসিপিতে নারিকেল তেল না হলে চলেই না। আমাদের দেশেও অনেক অঞ্চলে নারিকেলের মালাইকারির কদর অনেক। যদি নিজেই নারিকেল থেকে তেলটা বের করে নিতে পারেন, তবে তো কথাই নেই। আর রান্নায় যেহেতু চুলে মাখার তেল ব্যবহার করা যাচ্ছে না, তাই নিরাপত্তার খাতিরে নিজেই বানিয়ে ফেলুন।

 

যেভাবে বানাবেন নারিকেল তেল

  • নারিকেল কোরানো ঝামেলার কাজ মনে হলে আছে বিকল্প। দুভাগ করা নারিকেলটাকে ওভেনে মিনিট পাঁচেক মাইক্রোওয়েভ করুন। এতে খোল থেকে নারিকেল আলাদা করাটা সহজ হয়ে যাবে।
  • নারিকেলগুলোকে ছোট টুকরো করে কাটুন। তারপর সামান্য পানি মিশিয়ে কয়েক ব্যাচে ব্লেন্ড করুন। প্রতিবারে অন্তত ২ মিনিট করে ব্লেন্ড করুন। এতে নারিকেল দুধ তৈরি হবে।
  • পাল্পটা ছেঁকে তরল অংশটুকু একটি পাত্রে নিন। অল্প আঁচে জ্বাল দিতে থাকুন।
  • কিছুক্ষণ পর তরলের মধ্যে নারিকেলগুলো দলা পাকানো শুরু করবে। এটা স্বাভাবিক। ধীরে ধীরে আরও দলা পাকিয়ে আসবে। অল্প আঁচে জ্বলতে থাকুক চুলা।
  • এক পর্যায়ে দেখবেন নারিকেল থেকে তেল আলাদা হতে শুরু করেছে। প্রায় এক ঘণ্টা পর সম্পূর্ণ তেলটাই আলাদা হবে। এরপর চুলা বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হওয়ার পর সহজেই তেলটা ছেঁকে নিতে পারবেন।

 

নারিকেল তেলের স্বাস্থ্য উপকার

পরিমিত মাত্রায় নারিকেল তেল খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। শরীরে ভালো কোলেস্টেরলও বাড়ায় এটি। নারিকেল তেল হজমেও সহায়ক। আবার মুখগহ্বরের যত্নে নারিকেল মাউথওয়াশের কাজও করে।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:১৭

আসছে মটরশুঁটির মৌসুম। শীতের শস্য হিসেবে এর তুলনাই হয় না। আছে ভিটামিন এ, বি, সি, ই ও জিংক। ডায়াবেটিসসহ আরও অনেক রোগের জন্যই এটি উপকারী। এসব কারণে মৌসুম এলে মটরশুঁটি চলেও বেশ। আর সেটার সুযোগ নেয় অসাধুরা। তাই কারও কাছ থেকে বেশি পরিমাণে কেনার আগে কিংবা কেনার পর খাওয়ার আগে পরীক্ষা করে দেখে নিন, চকচকে সবুজ রঙটা প্রাকৃতিক নাকি রাসায়নিক?

 

যেভাবে পরীক্ষা করবেন

একটি স্বচ্ছ গ্লাসে পরিষ্কার পানি নিন। তাতে কিছু মটরশুঁটি রাখুন। অনেক নকল রঙ সঙ্গে সঙ্গে ঘষলেই কিন্তু বের হবে না। তাই অপেক্ষা করুন অন্তত আধা ঘণ্টা। রঙ নকল হলে দেখবেন পানি সবুজাভ হয়ে গেছে। আসল মটরশুঁটি হলে এমনটা কখনই হবে না।মটর

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৩৫

‘একবেলা খেলে কিছু হবে না’ এমন ফাঁদে পড়ে যারা প্রেসক্রিপশনের বাইরে একটু বেশিই কোলেস্টেরলযুক্ত খাবার খেয়ে ফেলেন তাদের জন্যও আছে সমাধান। চলুন দেখা যাক বিশেষজ্ঞরা কী টিপস দিচ্ছেন এ নিয়ে—

 

কুসুম গরম পানি

যখনই মনে হবে তেল-চর্বি জাতীয় খাবার একটু বেশিই গিলে ফেলেছেন, খাওয়ার ৩০-৩৫ মিনিট পর থেকে কুসুম গরম পানি পান করতে শুরু করুন। বিশেষজ্ঞদের মতে, কুসুম গরম পানি খাবার দ্রুত হজম করতে সাহায্য করে। এতে অপকারী উপাদানগুলোও ভেঙে শরীর থেকে বের করে দেয়। এমনিতে সবসময়ই হালকা গরম পানি পানের পরামর্শ দিয়ে থাকেন গবেষকরা।

 

লেবু পানি

তেল-চর্বি বেশি খাওয়ার পর যদি হাঁসফাস লাগে তবে লেবু পানি হতে পারে আদর্শ। খাবারের তেলজাতীয় উপাদানগুলোকে শরীর থেকে বের করে দিতেও এর জুড়ি নেই।

 

হাঁটুন

কোলেস্টেরল কমাতে হাঁটার বিকল্প নেই। তাই যখনই মনে হবে ‘আজ একটু বেশিই হয়ে গেছে’ চটজলদি হেঁটে আসুন মিনিট বিশেকের জন্য। পাকস্থলীর কার্যকারিতাও বাড়বে এতে।

 

প্রোবায়োটিক

শরীরের ওপর চাপ পড়ে এমন খাবার একগাদা খেয়ে ফেললে প্রোবায়োটিক জাতীয় খাবার যেমন টকদই খেতে দোষ নেই। উল্টো এটি আমাদের পাকস্থলী ও হজম ব্যবস্থাকে বাগে নিয়ে আসবে। এক্ষেত্রে ভারী খাবার খাওয়ার ২০ মিনিট পর দই খেলে উপকার মিলবে বেশি।

 

ফল

খাওয়ার পর ফল খাওয়াও ভালো। তবে তা যেন হয় কমপক্ষে এক ঘণ্টা পর। এতে হজমপ্রক্রিয়ার উপকারের পাশাপাশি দূর হবে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা।

 

পরের মিলটা মেপে মেপে

এক বেলা তো চাপে পড়ে খেয়েই ফেললেন, তো পরের মিলটা হবে একদম মেপে। এক্ষেত্রে স্যুপ বা সহজপাচ্য খাবারই রাখুন পাতে।

 

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৪৪

সহজ কিছু উপায়ে খাবার সংরক্ষণ করা যায় অনেকদিন। আজ জেনে নিই এমন পাঁচটি উপায়।

  • বিস্কুট, চানাচুর, মুড়ি, চিড়া ইত্যাদি অনেকদিন সংরক্ষণ করতে হয়। কিন্তু সমস্যা হলো এসব শুকনো খাবার দ্রুত নরম হয়ে যায় আর মচমচে ভাবটা থাকে না। তাই যে পাত্রে বা বয়ামে এসব শুকনো খাবার সংরক্ষণ করবেন তাতে সামান্য চিনি অথবা কিছু কাগজের টুকরো ছড়িয়ে দিন। কাগজের টুকরোগুলো মোটা এবং শুকনো হতে হবে। এতে বিস্কুট ও এ জাতীয় খাবার মচমচে থাকবে। 
  • লবণ গলে যাওয়া খুব বিরক্তিকর সমস্যা। এ সমস্যা এড়াতে লবণের পাত্রে চালের পুঁটলি রাখতে পারেন। পুঁটলিটা হবে বেশ ছোট। যেকোনো পাতলা সুতির কাপড়ে অল্প কিছু চাল নিয়ে মুখটি বন্ধ করে লবণের পাত্রে রেখে দিলেই হবে। এতে দীর্ঘদিন লবণ ঝরঝরে থাকবে, কারণ চাল আর্দ্রতা শোষণ করে দ্রুত।
  • রসুন বেশিদিন রেখে দিলে পচে যেতে থাকে। তবে একটা প্যাকেটে কিছু ছিদ্র করে তাতে রসুন ভরে প্যাকেটের মুখ আটকে রাখলে দীর্ঘদিন ভালো থাকবে রসুন।
  • হলুদ-মরিচের গুঁড়ো দীর্ঘদিন রাখলে দানা বেঁধে যায়। এ সমস্যা থেকে বাঁচতে হলুদ, মরিচ রাখার পাত্রে খানিকটা লবণ মিশিয়ে নিন। এতে গুঁড়ো দীর্ঘদিন ঝরঝরে থাকবে। আবার, ডালে দানা বাঁধা দূর করতে ডালে সামান্য সরিষার তেল মিশিয়ে রাখুন। 
  • ফ্রিজে লেবু রেখে দিলে কিছুদিন পর দেখা যায় লেবু শুকিয়ে গেছে, চিপলেও রস বের হয় না। তাই লেবু কাগজে মুড়ে একটা পলিব্যাগে ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

ত্বকটাকে খুশি রাখতে চান?

নিজেই বানান নারিকেল তেল

নিজেই বানান নারিকেল তেল

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

মটরশুঁটি রঙ করা কিনা বুঝবেন কী করে?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

তেল-চর্বি বেশি খেয়ে ফেললে কী করবেন?

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

খাবার দীর্ঘদিন ভালো রাখার ৫ উপায়

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

ঢাকা রিজেন্সিতে পর্যটন উৎসবে যত অফার

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

দুশ্চিন্তা কতভাবে শরীরের ক্ষতি করে?

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

ভাতে আছে বিপদ, বিষমুক্ত করবেন যেভাবে

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

পিজ্জাবার্গ ও ডনমেক-এ একদিন

ইয়োগায় যা করা যাবে না

ইয়োগায় যা করা যাবে না

সর্বশেষ

নিজ ঘরে রাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ

নিজ ঘরে রাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

‘করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে’

সাক্ষাৎকারে ড. ফেরদৌসী কাদরী ‘করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে’

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

© 2021 Bangla Tribune