X
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

ভূমধ্যসাগরে বাংলাদেশিসহ ৩৯৪ অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮:৫৯

ভূমধ্যসাগরে একটি অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই ছোট নৌকা থেকে ৩৯৪ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার হয়েছে। উত্তাল সাগরে টানা ছয় ঘণ্টার অভিযানের পর তাদের উদ্ধার করা হয়। এদের মধ্যে বাংলাদেশিসহ মরক্কো, মিশর এবং সিরিয়ার নাগরিক রয়েছেন।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়র্টাসের খবরে বলা হয়েছে, অবৈধ উপায়ে উত্তাল ভূমধ্যসাগর হয়ে স্বপ্নের ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রা করছিল অভিবাসন প্রত্যাশীরা। খবর পেয়ে উদ্ধারে অভিযানে নামে জার্মান এবং ফ্রেঞ্চ বেসামরিক জাহাজ সি-ওয়াচ-এর পাশাপাশি ওসেন ভাইকিং। উত্তর আফ্রিকার উপকূল থেকে ৬৮ কিলোমিটার দূরে তিউনিসিয়ার জলসীমানা থেকে উদ্ধার হয়।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানান, ইউরোপের দিকে যাত্রা করা অভিবাসন প্রত্যাশীদের দীর্ঘ প্রচেষ্টায় নিরাপদে আশ্রয়ে নেওয়া সম্ভব হয়েছে। কারও মৃত্যু হয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত করেনি।

অভিবাসন প্রত্যাশীদের উদ্ধার করা হচ্ছে

রয়র্টাস জানিয়েছে, কাঠের নৌকার ইঞ্জিন কাজ করছিল না। ১৪১ জনকে তুলে নেয় সি-ওয়াচ থ্রি, আর বাকি ২৫৩ জনকে নেয় ওশেন ভাইকিং। উদ্ধারকৃতদের মধ্যে কোন দেশের কতজন নাগরিক রয়েছেন তা নিশ্চিত করেনি সংশ্লিষ্টরা।

সম্প্রতি ভূমধ্যসাগর হয়ে অবৈধভাবে ইউরোপ প্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছে অভিবাসন প্রত্যাশীরা। এদের মধ্যে বাংলাদেশিসহ আফ্রিকার নাগরিক রয়েছে। জাতিসংঘ সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরে অবৈধভাবে সাগর পথে ইউরোপে প্রবেশ করতে গিয়ে এক হাজারের বেশি অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে। এদের অধিকাংশই আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের নাগরিক।

/এলকে/

সম্পর্কিত

সৌদির বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় বাংলাদেশিসহ আহত ১০

সৌদির বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় বাংলাদেশিসহ আহত ১০

ওমানে ঘূর্ণিঝড় শাহিনের তাণ্ডবে ৩ বাংলাদেশি নিহত

ওমানে ঘূর্ণিঝড় শাহিনের তাণ্ডবে ৩ বাংলাদেশি নিহত

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম ফেডারেল বিচারক হওয়ার পথে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম ফেডারেল বিচারক হওয়ার পথে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত

২৩ বছর আগে করা ধর্ষণের দায়ে লন্ডনে বাংলাদেশির কারাদণ্ড

২৩ বছর আগে করা ধর্ষণের দায়ে লন্ডনে বাংলাদেশির কারাদণ্ড

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩৩

পশ্চিমবঙ্গ ও কেরালার ১৮ বছর বয়সী তরুণ-তরুণীদের বাধ্যতামূলকভাবে সামরিক প্রশিক্ষণের দাবি জানিয়েছেন বিজেপি দলীয় একজন বিধায়ক। এ দাবিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে একটি চিঠিও পাঠিয়েছেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গের খড়গপুরের ওই বিধায়কের নাম হিরন্ময় চট্টোপাধ্যায় (হিরণ)। তার প্রস্তাব, সীমান্ত সংঘর্ষ এবং জঙ্গি হামলার ঘটনায় শহীদ জওয়ানদের পরিবারকে 'তেরঙ্গা পরিবারের' মর্যাদা দিক কেন্দ্রীয় সরকার।

দুই পাতার ওই চিঠির শেষে বিশেষত পশ্চিমবঙ্গ ও কেরালার ১৮ বছরের তরুণ-তরুণীদের বাধ্যতামূলক সামরিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

হিরণের ব্যাখ্যা, ‘বর্তমান প্রেক্ষাপটে কেরালা ও পশ্চিমবঙ্গে বিশেষত হিন্দু পরিবারগুলোর ওপর সাম্প্রদায়িক নির্যাতন এবং জেহাদি হামলা ঠেকাতে এমন পদক্ষেপ কার্যকরী হবে।’

চিঠিতে শহিদ জওয়ানদের পরিবারকে 'তেরঙ্গা পরিবার'-র মর্যাদার পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি। যেমন, রাজ্য, জেলা, মহকুমা, ব্লক, এমনকি পৌরসভা-পঞ্চায়েত স্তরেও ১৫ আগস্ট, ২৬ জানুয়ারির সরকারি অনুষ্ঠানে শহীদ সেনা পরিবারের সদস্যদের প্রধান অতিথি করা, শহীদদের নামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতালের নামকরণ, রেলস্টেশন-রাস্তা-সরকারি দফতরের সামনে সংশ্লিষ্ট এলাকার শহীদ জওয়ানদের নামে ফলক বসানো, শহীদ দিবসে অনুষ্ঠান করা। সূত্র: জি নিউজ, আনন্দবাজার।

/এমপি/

সম্পর্কিত

ভোটের পর রাজ্যের মর্যাদা ফিরে পাবে কাশ্মির: অমিত শাহ

ভোটের পর রাজ্যের মর্যাদা ফিরে পাবে কাশ্মির: অমিত শাহ

বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সিঙ্গাপুরের

বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সিঙ্গাপুরের

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা এরদোয়ানের

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা এরদোয়ানের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

ভোটের পর রাজ্যের মর্যাদা ফিরে পাবে কাশ্মির: অমিত শাহ

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩৩

আসন পুনর্বিন্যাসের পর আয়োজিত নির্বাচনের পর রাজ্যের মর্যাদা ফিরে পেতে পারে জম্মু-কাশ্মির। শনিবার তিনদিনের উপত্যকা সফরে গিয়ে একথা বলেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ২০১৯ সালের আগস্টে কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা ও সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের পর এই প্রথম সেখানে সফর করছেন তিনি।

অমিত শাহ এমন সময় কাশ্মির সফর করছেন যখন উপত্যকায় বেশ কয়েকজন সাধারণ নাগরিক নিহত হয়েছেন। হামলা চালানো হয়েছে অন্য রাজ্যের শ্রমিক ও কাশ্মিরের পণ্ডিতদের ওপর। এমন পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই সফর যথেষ্ট ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ করা হচ্ছে।

শ্রীনগরের যুব ক্লাবের সদস্যদের উদ্দেশ করে দেওয়া ভাষণে অমিত শাহ বলেন, কেন আমরা আসন পুনর্বিন্যাস থামাব? কিছুই থামবে না। পুনর্বিন্যাসের পর নির্বাচন হবে এবং পরে রাজ্যের মর্যাদা ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

অমিত শাহ বলেছেন, সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্ত অপরিবর্তনযোগ্য।

২০১৯ সালের ৫ আগস্টের পর কাশ্মিরে যোগাযোগ বন্ধ ও কারফিউ জারি সমর্থন করে ভারতীয় মন্ত্রী বলেন, জীবন বাঁচাতে এটি ছিল তিক্ত ওষুধ। কারফিউ কেন এবং ইন্টারনেট বন্ধ নিয়ে তখন অনেক সমালোচনা ছিল। আমি জবাব দিচ্ছি। প্রথমত আমি একটি প্রশ্ন করতে চাই। ৭০ বছর ধরে তিনটি পরিবার শাসন করছে। কেন কাশ্মিরে ৪০ হাজার মানুষ নিহত হলো? আপনাদের কাছে কোনও জবাব আছে?

অমিত শাহ আরও বলেন, ওই সময় মানুষকে উসকানি দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। একটি ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করা হয়েছে, কয়েকটি বিদেশি শক্তিও এতে জড়িত ছিল। আমরা কারফিউ জারি না করলে কতজন বাবা তাদের তরুণ ছেলের লাশ কাঁধে নিত। কারফিউ দিয়ে কাঁদের জীবন রক্ষা করা হয়েছে? কাশ্মিরের তরুণদের রক্ষা করা হয়েছে।

তার মতে, বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে কাশ্মিরকে জঙ্গিবাদ থেকে উন্নয়নে নিয়ে আসা হয়েছে। দুই বছর আগে কাশ্মিরের খবর ছিল জঙ্গিবাদ ও পাথর নিক্ষেপ। আজ তা উন্নয়ন, শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন ও তরুণদের অংশগ্রহণ। সূত্র: এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা

/এএ/

সম্পর্কিত

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

স্মার্টফোন কিনতে বিয়ের এক মাসের মধ্যেই স্ত্রীকে বিক্রি

স্মার্টফোন কিনতে বিয়ের এক মাসের মধ্যেই স্ত্রীকে বিক্রি

কাশ্মির সফরে অমিত শাহ, উপত্যকাজুড়ে নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা

কাশ্মির সফরে অমিত শাহ, উপত্যকাজুড়ে নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সিঙ্গাপুরের

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:০২

বাংলাদেশসহ ছয়টি দেশের ওপর থেকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিয়েছে সিঙ্গাপুর। বুধবার (২৭ অক্টোবর) থেকে এসব দেশের থেকে যাত্রীরা সিঙ্গাপুরে প্রবেশ করতে পারবে। শনিবার দেশটির সংবাদমাধ্যম স্ট্রেইট টাইমস এখবর জানিয়েছে।

বাংলাদেশ ছাড়া অপর দেশগুলো হলো ভারত, মিয়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা।

সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, স্বল্প মেয়াদের পর্যটক ছাড়া এই ছয়টি দেশে ১৪ দিনের ভ্রমণ থাকলেও দেশটিতে ভ্রমণ বা ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের জন্যও ভ্রমণ বিধিনিষেধ শিথিল করা হবে।

মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, এসব দেশের ভ্রমণকারীদের সিঙ্গাপুরের কঠোর সীমান্ত পদক্ষেপ মেনে চলতে হবে অর্থাৎ নির্ধারিত স্থানে দশ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এসব দেশের করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা গেছে কিছু দিন ধরে স্থিতিশীল আছে। তাই এসব দেশের ভ্রমণকারীদের এখানে আসা ঠেকাতে কঠোর বিধিনিষেধের প্রয়োজন নেই।

/এএ/

সম্পর্কিত

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা এরদোয়ানের

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা এরদোয়ানের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

স্কুলশিশুদের হোমওয়ার্কের চাপ কমাচ্ছে চীন

স্কুলশিশুদের হোমওয়ার্কের চাপ কমাচ্ছে চীন

যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা এরদোয়ানের

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২১:৫৮

তুরস্কে নিযুক্ত ১০ পশ্চিমা দেশের রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান। মানবপ্রেমী হিসেবে পরিচিত কারাবন্দি ওসমান কাভালার মুক্তির দাবি তোলায় তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

শনিবার এরদোয়ান জানান, ওসমান কাভালার মুক্তির দাবি তোলায় তিনি ১০ পশ্চিমা দেশের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন।

এই ১০টি দেশ হচ্ছে কানাডা, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, নিউ জিল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র। গত ১৮ অক্টোবার এক যৌথ বিবৃতিতে কাভালার মুক্তি নিশ্চিত করতে তুরস্কের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন আঙ্কারায় নিযুক্ত এই দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা।

এর পরপরই রাষ্ট্রদূতদের এমন আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এরদোয়ান। তিনি বলেন, এসব রাষ্ট্রদূতদের তুরস্কে জায়গা দেওয়া উচিত নয়।

গত মঙ্গলবার বিবৃতিদাতা রাষ্ট্রদূতদের তলব করে তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বিদেশি কূটনীতিকদের এমন আচরণকে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে অভিহিত করা হয়।

দোষী সাব্যস্ত না হলেও ২০১৭ সাল থেকে কারাগারে রয়েছেন মানবপ্রেমী কাভালা। ২০১৩ সালে তুরস্কজুড়ে বিক্ষোভের মামলায় গত বছর বেকসুর খালাস পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এই বছর আগের রায়টি খারিজ করে দেওয়া হয়েছে এবং ২০১৬ সালের অভ্যুত্থান চেষ্টার মামলায় এটিকে অঙ্গীভূত করা হয়েছে। তবে কোনও অন্যায় করার কথা অস্বীকার করে আসছেন কাভালা। 

তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তাঞ্জু বিলজিক বলেন, যেখানে নিয়োগ পেয়েছেন সেই দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো রাষ্ট্রদূতদের কাজ নয়। তাই স্বাধীন দেশ হিসেবে উপযুক্ত মনে করলে যে কোনও পদক্ষেপ নিতে পারে তুরস্ক।

/এমপি/

সম্পর্কিত

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সিঙ্গাপুরের

বাংলাদেশসহ ৬ দেশের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সিঙ্গাপুরের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

আরএসএস’র অনেক আদর্শই বামপন্থী, চাঞ্চল্যকর দাবি সাধারণ সম্পাদকের

স্কুলশিশুদের হোমওয়ার্কের চাপ কমাচ্ছে চীন

স্কুলশিশুদের হোমওয়ার্কের চাপ কমাচ্ছে চীন

শুধু সম্মেলন নয়, আমাদের প্রয়োজন জনগণের চাপ: গ্রেটা থুনবার্গ

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২১:২০

জলবায়ুকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ বলেছেন, জনগণের পক্ষ থেকে চাপ না থাকলে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পদক্ষেপ গ্রহণ শুধু সম্মেলন দিয়ে হবে না। শনিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেন।

কপ২৬ জলবায়ু সম্মেলনের আগে থুনবার্গ বলেছেন, জনগণের উচিত ব্যবস্থাকে সমূলে উৎপাটন করা। তার কথায়, মানুষ যখন চাইবে তখন পরিবর্তন হবে। তাই এসব সম্মেলন দিয়ে কিছু হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি না।

রাজনীতিকরা অজুহাত হাজির করছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

৩১ অক্টোবর থেকে ১২ নভেম্বর স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে কপ২৬ জলবায়ু সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ২০১৫ সালে প্যারিস চুক্তি স্বাক্ষরের পর এটিই বৃহত্তম জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক শীর্ষ সম্মেলন। প্রায় ২০০টি দেশকে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমণ কমানোর পরিকল্পনা হাজির করতে বলা হয়েছে। বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রধান কারণ এই গ্যাস।

থুনবার্গ সম্প্রদি জলবায়ু পরিবর্তনকে কেন্দ্রে রেখে একটি বৈশ্বিক সিরিজ কনসার্ট শুরু করেছেন ক্লাইমেট লাইভ শিরোনাম। তিনি বিবিসিকে জানিয়েছেন, কপ২৬ সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন। বিশ্বনেতাদের প্রতি তার বার্তা হলো সৎ থাকার জন্য।

থুনবার্গ বলেন, আমার মতে মানুষ যখন পরিস্থিতির গুরুত্ব এবং যে সংকটের মুখোমুখি আমরা তা বুজতে পারবে তখন সফলতা আসতে শুরু করবে। আমাদের বড় পরিবর্তন প্রয়োজন, আমাদের এই ব্যবস্থাকে উৎখাত করতে হবে কারণ তখনই কেবল পরিবর্তন আসবে।

তিনি বিশ্বাস করেন না ২০৫০ সালের মধ্যে যুক্তরাজ্যের গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমণ শূন্যে কমিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে। এমনকি যুক্তরাজ্য জলবায়ু নেতা হিসেবেও মানতে রাজি নন তিনি।

এই অ্যাক্টিভিস্ট বলেন, দুর্ভাগ্যবশত বর্তমানে আমাদের কোনও জলবায়ু নেতা নেই। কিন্তু এর মানে এই নয় যে তার আকস্মিক কোনও সিদ্ধান্ত পারবে না।

তিনি নিজের বিষয়ে বলেন, আমি নিজেকে জলবায়ু সেলিব্রেটি হিসেবে বিবেচনা করি না। আমি নিজেকে একজন জলবায়ু অ্যাক্টিভিস্ট হিসেবে দেখি। আমার কৃতজ্ঞ থাকা উচিত কারণ অনেক মানুষের কোনও প্ল্যাটফর্ম নেই এবং যাদের কথা কেউ শুনছে না, অনেকের কণ্ঠ স্তব্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

থুনবার্গের কথায়, ঘরোয়া জীবনে আমি একেবারে ভিন্ন মানুষ। ব্যক্তিজীবনে আমাদের অনেকেই চিনতে পারবে না। মিডিয়ায় আমি খুব রাগী কিন্তু ব্যক্তিজীবনে নিরীহ।

/এএ/

সম্পর্কিত

কোভিড প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হতে পারে হোম অফিস: বলছেন বিজ্ঞানীরা

কোভিড প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হতে পারে হোম অফিস: বলছেন বিজ্ঞানীরা

ন্যাটোর জন্য ক্ষতিকর জোট নিয়ে তুরস্কের হুঁশিয়ারি

ন্যাটোর জন্য ক্ষতিকর জোট নিয়ে তুরস্কের হুঁশিয়ারি

ইরানের বিরুদ্ধে পরমাণু সমঝোতা লঙ্ঘনের অভিযোগ ফ্রান্সের

ইরানের বিরুদ্ধে পরমাণু সমঝোতা লঙ্ঘনের অভিযোগ ফ্রান্সের

‘শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ন্যাটো তৈরি হয়নি’

‘শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ন্যাটো তৈরি হয়নি’

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সৌদির বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় বাংলাদেশিসহ আহত ১০

সৌদির বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় বাংলাদেশিসহ আহত ১০

ওমানে ঘূর্ণিঝড় শাহিনের তাণ্ডবে ৩ বাংলাদেশি নিহত

ওমানে ঘূর্ণিঝড় শাহিনের তাণ্ডবে ৩ বাংলাদেশি নিহত

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম ফেডারেল বিচারক হওয়ার পথে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম ফেডারেল বিচারক হওয়ার পথে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত

২৩ বছর আগে করা ধর্ষণের দায়ে লন্ডনে বাংলাদেশির কারাদণ্ড

২৩ বছর আগে করা ধর্ষণের দায়ে লন্ডনে বাংলাদেশির কারাদণ্ড

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

ভূমধ্যসাগরে ৫৭৬ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

ভূমধ্যসাগরে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

ভূমধ্যসাগরে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

উত্তাল ভূমধ্যসাগরে ৪৯ বাংলাদেশি উদ্ধার

উত্তাল ভূমধ্যসাগরে ৪৯ বাংলাদেশি উদ্ধার

আবারও ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী বোঝাই নৌকাডুবি, বাংলাদেশিসহ নিখোঁজ ৪৩

আবারও ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী বোঝাই নৌকাডুবি, বাংলাদেশিসহ নিখোঁজ ৪৩

সর্বশেষ

জালিয়াতি করে আড়াই কোটি টাকা তুলে নিলেন হিসাব সহকারী

জালিয়াতি করে আড়াই কোটি টাকা তুলে নিলেন হিসাব সহকারী

৫০ বলেই ম্যাচ জয় ইংল্যান্ডের

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ৫০ বলেই ম্যাচ জয় ইংল্যান্ডের

বেপরোয়া গতির ২ বাসের সংঘর্ষে প্রাণ গেলো মা-ছেলের

বেপরোয়া গতির ২ বাসের সংঘর্ষে প্রাণ গেলো মা-ছেলের

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

ক্যাম্পের দুষ্কৃতকারীরা রোহিঙ্গাদেরই অংশ

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

সামরিক প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করতে মোদিকে চিঠি

© 2021 Bangla Tribune