X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি পর্ব-৫

মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্যে বিবিএলসি, রফতানি হবে না জেনেও ঋণ!

আপডেট : ০৭ আগস্ট ২০২১, ১৫:৫৯

ব্যাংকিং খ্যাতের নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে মাত্রাতিরিক্ত ঋণ ও অনৈতিক সুবিধা দিয়েছে জনতা ব্যাংক। রফতানির সামর্থ নেই জেনেও কোনও প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে মোটা অঙ্কের ঋণ। ব্যাংকটির আর্থিক কেলেঙ্কারি নিয়ে বাংলা ট্রিবিউন-এর ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ থাকছে পঞ্চশ ও শেষ পর্ব।

অস্বচ্ছল গ্রাহক ও জামানতবিহীন প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিয়ে হাজার কোটি টাকারও বেশি ক্ষতি গুনছে জনতা ব্যাংক। মেসার্স নাসা স্পিনার্স লিমিটেডের নামে কুমিল্লা ইপিজেডের একটি প্রকল্পে ইস্যু করা ১৬৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকার ঋণ পুনঃতফসিল করেও টাকা আদায় করা যায়নি। মঞ্জুরিকৃত ঋণের বিপরীতে প্রকল্পের জমিটাও ছিল ইজারায় পাওয়া। তাই ওটাও জামানত হিসেবে নেওয়া যায়নি। ব্যক্তিগত গ্যারান্টির বিপরীতে বিপুল অংকের ঋণ মঞ্জুর ও বিতরণ গুরুতর অনিয়ম। জনতা ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ব্যর্থতাই এর জন্য দায়ী।

বাংলা ট্রিবিউনের হাতে পৌঁছা একাধিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, শাখা ও প্রধান কার্যালয়ের ক্রেডিট কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে পরিচালনা পর্ষদের ২০০৮ সালে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ৭০ কোটি টাকা দায় পরিশোধ করে জনতা ব্যাংক লোকাল অফিসে ৭০ কোটি টাকার প্রকল্প ঋণ তৈরি করা হয়। কার্যকরী মূলধন বাবদ ১৫ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন দেওয়া হয়।

পর্ষদে উপস্থাপিত স্মারকে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানের অনুমোদিত মূলধন ১০ কোটি টাকার বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন মাত্র ৫ কোটি টাকা।

নথিপত্রে বলা হয়েছে, মঞ্জুরিকৃত ঋণের বিপরীতে প্রকল্পের জমিও মর্টগেজ হিসাবে রাখা যায়নি। এতে ঋণটি হয়ে পড়েছে জামানতবিহীন।

আরও দেখা গেছে, ঋণের কিস্তি আদায়ে ব্যর্থ হয়ে ২০১১ সালে ঋণের দায় ১ম কিস্তি ২০১২ সালের মার্চ থেকে পরিশোধযোগ্য ধরে মেয়াদ তিন বছর বাড়িয়ে ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর নির্ধারণ করে পুনঃতফসিল করা হয়। সে অনুযায়ীও কিস্তি আদায় হয়নি। পরে ঋণ হিসাবটি ক্ষতিজনক শ্রেণিকৃত হয়।

জামানতবিহীন হওয়ায় এ ঋণের পুরোটাই ব্যাংকের ক্ষতি। গ্রাহক তার ঋণ হিসাবে ২০১৩ সালের মার্চের পর কোনও টাকাও জমা করেনি। কিন্তু এরপরও ২০১২ সালের ডিসেম্বর হতে ২০১৪ সালের জুন পর্যন্ত ঋণ হিসাবে অনিয়মিতভাবে ৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা সুদ হিসাবে দেখানো হয়েছে। যা ব্যাংকিং গুরুতর অনিয়ম।

জনতা ব্যাংক বলেছে, পর্ষদে প্রস্তাব অনুমোদনের পর গ্রাহককে ঋণ বিতরণ করা হয়। প্রকল্পটি কুমিল্লা ইপিজেড-এ প্রতিষ্ঠিত এবং ওই জমি ইপিজেড নাসা স্পিনার্স লিমিটেডকে ইজারা দেয়। লিজপ্রাপ্ত জমি ঋণের বিপরীতে জামানত হিসেবে নেওয়া যায় না। এক্ষেত্রে নাসা স্পিনার্স লিমিটেডের কাছ থেকে করপোরেট গ্যারান্টি নেওয়া হয়। ঋণ নীতিমালা অনুযায়ী পরিচালকদের গ্যারান্টি ও ব্যক্তিগত গ্যারান্টিও নেওয়া হয়েছিল।

জনতা ব্যাংকের এমন জবাব গ্রহণযোগ্য নয় বলে নিরীক্ষা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে গ্রাহকের সক্ষমতা বিবেচনা না করেই জামানতবিহীন ঋণ দেওয়া হয়েছে।

অস্বচ্ছল গ্রাহককেও জামানতবিহীন ঋণ
মেয়াদোত্তীর্ণ ও সন্দেহজনক দায় ছিল। রফতানি যে হবে না সেটাও ছিল পরিষ্কার। তারপরও ব্যাক টু ব্যাক ঋণপত্র (বিবিএলসি) স্থাপন করে তামান্না সোয়েটার লিমিটেডকে ঋণ দিয়েছে জনতা ব্যাংক। এতে ব্যাংকের ক্ষতি হয়েছে ৯ কোটি ১৭ লাখ টাকারও বেশি।

বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ করপোরেট শাখার গ্রাহক মেসার্স তামান্না সোয়েটর লিমিটেডের ঋণ সংক্রান্ত নথিপত্র অনুসন্ধান করে দেখা গেছে, গ্রাহকের অনুকূলে পর্ষদের ২০১২ সালে শ্রেণিকৃত এলটিআর (এফসি) খাতের প্রায় ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ৩য় বার এবং ডিমান্ড লোন (বিবিএলসি) খাতের প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ২য় বার পুনঃতফসিল করা হয়।

নিরীক্ষায় দেখা যায় যে, বিবিএলসি খোলার তারিখে গ্রাহকের হিসাবে মেয়াদোত্তীর্ণ দায় ছিল। এরপরও নতুন ঋণ দেওয়া ছিল গুরুতর আর্থিক অনিয়ম। আবার কোনও ক্ষেত্রে পণ্য জাহাজীকরণের তারিখ পার হওয়ার পরও বিবিএলসি স্থাপন করা হয়েছে। কোনও ক্ষেত্রে জাহাজীকরণের তারিখের ৪-৫ দিন আগেই বিবিএলসি স্থাপন করা হয়।

রফতানি হবে না জেনেও বিবিএলসি স্থাপন করে ইচ্ছাকৃতভাবে গ্রাহককে ব্যাংকের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে এতে।

২০১৫ সালের ২০ এপ্রিলের ব্যাংকের পরিদর্শন প্রতিবেদনে দেখা যায়, কারখানাটি বন্ধ। জামানতও কম। তাই বলা যায় প্রায় ১০ কোটি টাকা গচ্চা গেছে ব্যাংকটির।

শর্ত ভেঙে ঋণ, ক্ষতি ১৫৫১ কোটি টাকা!
বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে জনতা ব্যাংকের সম্পাদিত সমঝোতা চুক্তি ভঙ্গ করে ক্রিসেন্ট লেদার প্রোডাক্টস লিমিটেড ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঋণ দিয়েছে জনতা ব্যাংক। প্রতিষ্ঠানটির ক্রয়কৃত রফতানি বিল (এফডিবিপি) অপ্রত্যাবাসিত থাকা সত্ত্বেও নতুন রফতানি বিল (এফডিবিপি) ক্রয় করা হয়েছে। এতে ব্যাংকটির প্রায় এক হাজার ৫৫১ কোটি টাকা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

নিরীক্ষায় ঢাকার ইমামগঞ্জ করপোরেট শাখার গ্রাহক মেসার্স ক্রিসেন্ট লেদার প্রোডাক্টস লিমিটেড ও এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলোর ঋণ নথি পর্যালোচনায় দেখা যায় মেমোরেন্ডাম অব আন্ডারস্ট্যান্ডিং (এমওইউ)-এর শর্ত পালন না করে ঋণ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি এফডিবিপি অপ্রত্যাবাসিত থাকা সত্ত্বেও নতুন এফডিবিপি কেনায় ব্যাংকের বিপুল টাকা ঝুঁকিতে পড়েছে।

২০১৬ সালের নিরীক্ষা প্রতিবেদনে দেখা যায়, জনতা ব্যাংকের মোট মূলধন ৪ হাজার ৩১৮ কোটি ৯৮ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সম্পাদিত (এমওইউ)-এর ৪ নং অনুচ্ছেদ অনুয়ায়ী মূলধনের ভিত্তিতে একক বা গ্রুপ প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ফান্ডেড ঋণসীমা ১০ শতাংশ (এক্ষেত্রে ৪৩ কোটি ১৯০ লাখ টাকা)। ২০১৭ সালে আলোচ্য গ্রাহক ও তার সহযোগী প্রতিষ্ঠানের ফান্ডেড দায়ের পরিমাণ ছিল এক হাজর ৫৫১ কোটি ৬৪ লাখ টাকারও বেশি। এক্ষেত্রেও বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে জনতা ব্যাংকের সম্পাদিত চুক্তি মানা হয়নি।

আরও দেখা গেছে, ওই গ্রাহকের মেয়াদোত্তীর্ণ রফতানি বিল (এফডিবিপি) থাকা অবস্থাতেই নতুন করে রফতানি বিল (এফডিবিপি) ক্রয় করে গ্রাহকের দায় বাড়িয়ে চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন করা হয়েছে।

খেলাপির পথে আরও ৪৮৫ কোটি টাকা
ক্রয়কৃত রফতানি মূল্য (এডিবিপি) ম্যাচুরিটি তারিখের পর অপ্রত্যাবাসিত থাকা সত্ত্বেও নতুন রফতানি বিল ক্রয় (এডিবিপি) করায় জনতা ব্যাংকের ব্যাংকের প্রায় ৪৮৫ কোটি টাকা খেলাপির পথে রয়েছে। ব্যাংকটির রাজধানীর ইমামগঞ্জ করপোরেট শাখার গ্রাহক রিমেক্স ফুটওয়্যারের কাছে ব্যাংক এ টাকা পাবে। কোম্পানিটির রফতানি বিল ক্রয় সংক্রান্ত রেজিস্ট্রার ও বিবরণী নথি পর্যালোচনা করে এ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এফডিবিপি অপ্রত্যাবাসিত থাকা সত্ত্বেও নতুন এফডিবিপি করা হয়েছে।

অনিয়মগুলোর বিষয়ে ২০১৮ সালের ২৮ জুন অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর অগ্রিম অনুচ্ছেদ জারি করা হয় এবং তাগিদপত্র দেয়া হয়। ২০১৯ সালে সচিব বরাবর আধাসরকারি পত্র দেওয়া হয়। তবে এখনও জবাব পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জানতে জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুছ ছালাম আজাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি। ফোন রিসিভ করলেও এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. এসএম মাহফুজুর রহমান।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংক যখন কোনও ব্যাংকে অডিটে যায় তখন ওটাকে সামনে রেখে এক্সটার্নাল অডিট বা ইন্টার্নাল অডিট সব দেখে। এরপর বিবেচনা করে পদক্ষেপ নেয়। অডিট অধিদফতরের কমেন্ট ঠিক আছে কিনা সেটাও দেখা হয়।’

জানতে চাইলে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এর সঙ্গে বড় চক্র জড়িত। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দুর্বলতাও রয়েছে বলে আমার ধারণা।’

/এফএ/
টাইমলাইন: জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি
০৭ আগস্ট ২০২১, ১৫:৫৯
মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্যে বিবিএলসি, রফতানি হবে না জেনেও ঋণ!

সম্পর্কিত

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

ফেসবুকের ‘ভুয়া খবরেই’ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলা

ফেসবুকের ‘ভুয়া খবরেই’ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলা

সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার প্রতিবাদে সারা দেশে কর্মসূচি অব্যাহত

সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার প্রতিবাদে সারা দেশে কর্মসূচি অব্যাহত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৯

কোভিড-১৯, সংঘাত, ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্ব নানা সংকটে রয়েছে। এসব সংকট পরিষ্কার করে দিয়েছে যে সংহতির মাধ্যমেই এগিয়ে যেতে হবে। জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষে এক বার্তায় জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস এসব কথা বলেন।

গুতেরেস বলেন, ‘বড় চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আমাদের একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন।’

ওই বার্তায় তিনি বলেন, ‘৭৬ বছর আগের বিপর্যয়কর এক সংঘাতের ছায়া থেকে বিশ্বের উত্তরণের প্রত্যাশার বাহন হিসেবে জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠা পায়। আজ জাতিসংঘের নারী-পুরুষেরা সেই প্রত্যাশাকে বিশ্বজুড়ে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।’

জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে। এ জন্য বিশ্বের সব জায়গার সব মানুষকে কোভিড-১৯ এর টিকা নিশ্চিত করা জরুরি।’

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘ সনদকে  ৭৬ বছর ধরে শক্তি জুগিয়েছে যেসব মূল্যবোধ যেমন: শান্তি, উন্নয়ন, মানবাধিকার, সবার জন্য সমান সুযোগ—এগুলোর প্রয়োজনীয়তা কখনও ফুরিয়ে যাবে না।’

গুতেরেস বলেন, ’আজ এই জাতিসংঘ দিবস পালনের সময় আমি এসব আদর্শে সবাইকে একতাবদ্ধ হওয়ার এবং জাতিসংঘের প্রতিশ্রুতি, সম্ভাবনা ও এই বিশ্ব সংস্থার প্রতি প্রত্যাশা পূরণের আহ্বান জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সব মানুষের, বিশেষত দরিদ্রতম ও সবচেযে সুবিধাবঞ্চিত মানুষ, নারী ও মেয়েশিশু এবং শিশু ও তরণদের অধিকার ও মর্যাদা নিশ্চিত ও সুরক্ষিত করার মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। বিশ্বে সংঘাত নিরসনের পথ অনুসন্ধানের মাধ্যমে আমাদের অগ্রসর হতে হবে।’

গুতেরেস বলেন, ‘আমাদের এই গ্রহটাকে রক্ষা করতে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বড় ধরনের প্রতিশ্রুতি এবং তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে। অন্তর্ভুক্তিমূলক, আন্তঃসম্পর্কযুক্ত ও কার্যকর বৈশ্বিক সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আমাদের অগ্রসর হতে হবে, যার বিস্তারিত আমার সাম্প্রতিক প্রতিবেদন ‘আওয়ার কমন অ্যাজেন্ডা’য় আমি তুলে ধরেছি।’

 

/এসএসজেড/আইএ/

সম্পর্কিত

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

জাতিসংঘ দিবস আজ

জাতিসংঘ দিবস আজ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:২৪

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার সাতারকুল এলাকায় একটি গোডাউনে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর)  রাত সাড়ে ১১টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

এর আগে রাত ৯টা ৫৮ মিনিটের দিকে এ আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ করে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার কর্মকর্তা মো. রায়হান এসব তথ্য জানান।

রায়হান বলেন, ‘রাজধানীর উত্তর বাড্ডা সাতারকুল রোডের সাত তলা ভবনের নিচ তলায় আগুন লাগার সংবাদ পাই আমরা। ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে। পরে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো যাবে।’

ফায়ার সার্ভিস জানায়, সাতারকুলের জিএম বাড়ি এলাকার তিন তলা ভবনের নিচ তলায় জ্যোতি লিকার স্টোরের কেমিক্যাল হতে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। আগুনে দ্বিতীয় তলার কাপড়ের দোকান এবং তৃতীয় তলার ইলেকট্রনিক ওয়ার্কসপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

 

/আইটি/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

জাতিসংঘ দিবস আজ

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:০৫

আজ জাতিসংঘ দিবস। ১৯৪৫ সালের ২৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করে জাতিসংঘ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য গঠিত এই সংস্থা কালের পরিক্রমায় কলেবরে অনেক বেড়েছে। ৫১টি সদস্য রাষ্ট্র নিয়ে ১৯৪৫ সালে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা ১৯৩। সারা পৃথিবীব্যাপী বিভিন্ন দ্বন্দ্ব নিরসনে, শান্তি প্রতিষ্ঠায় ও উন্নয়নের জন্য কাজ করছে জাতিসংঘ। ১৯৪৫ সালে জাতিসংঘ ভবন

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা লাভের পর জাতিসংঘের সদস্য হওয়ার জন্য চেষ্টা করে বাংলাদেশ। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের আবেদন চীনের ভেটোর কারণে বাতিল হয়ে যায়। পরবর্তীতে ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ সদস্যপদ লাভ করে। ওই বছরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো বাংলায় জাতিসংঘে বক্তব্য রাখেন।

প্রথম থেকেই বহুপাক্ষিক ব্যবস্থার সমর্থক বাংলাদেশ সবসময় জাতিসংঘের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছে এবং করছে। শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনীতে অবদান রাখছে এমন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। তবে একই সঙ্গে সংস্থাটির বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে যেমন সমালোচনা রয়েছে তেমনি অনেক কাজ করতে সফল হয়নি বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে জেনেভাতে রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সমালোচনা ও অসফলতা থাকলেও জাতিসংঘের কোনো বিকল্প নেই।

এটি একমাত্র বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান যেখানে ধনী-গরিব, ছোট-বড় সব দেশই সদস্য এবং একমাত্র প্ল্যাটর্ফম যেখানে সবাই একসঙ্গে আলোচনা করতে পারে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, ছোট বা কম শক্তিশালী দেশগুলো এখানে তাদের কথা বলতে পারে যা অন্য জায়গায় বলা সম্ভব হয় না।

জাতিসংঘকে কিভাবে আরও সফল করা যায় ‑ জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতিসংঘ একটি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান এবং এটি ততটুকু সফল হবে যতটুকু এর সদস্য রাষ্ট্রগুলো চাইবে।

জাতিসংঘের সফলতা সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করে জানিয়ে তিনি বলেন, এজন্য সবচেয়ে বেশি দায়িত্ব তাদের।

/এসএসজেড/এমএস/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাংলাদেশে ‘সাম্প্রদায়িক হামলা’র নিরপেক্ষ তদন্ত চায় জাতিসংঘ

বাংলাদেশে ‘সাম্প্রদায়িক হামলা’র নিরপেক্ষ তদন্ত চায় জাতিসংঘ

মালিতে ১৪০ পুলিশ সদস্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা পদকে ভূষিত

মালিতে ১৪০ পুলিশ সদস্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা পদকে ভূষিত

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসায় ইউএনডিপি এবং আইওএম

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রশংসায় ইউএনডিপি এবং আইওএম

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৫২

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে’র কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনে সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার উপপ্রধান বার্তা সম্পাদক ওমর ফারুক এবং মহাসচিব পদে নাগরিক টিভির হেড অব নিউজ দীপ আজাদ নির্বাচিত হয়েছেন। খায়রুজ্জামান কামাল নির্বাচিত হয়েছেন কোষাধ্যক্ষ পদে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাতে ফল ঘোষণা করা হয়। এ দিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া, সহসভাপতি পদে মধুসূদন মণ্ডল, যুগ্ম মহাসচিব পদে শেখ মামুনুর রশিদ ও দফতর সম্পাদক পদে সেবিকা রানী নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাহী পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন চার জন; তারা হলেন, উম্মুল ওয়ারা সুইটি, উৎপল কুমার সরকার, নূরে জান্নাত আখতার ও শেখ নাজমুল হক সৈকত। 

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শাহজাহান সরদার। নির্বাচনে ভোট পর্যবেক্ষণের জন্য শ্রম অধিদফতরের প্রতিনিধি নিযুক্ত ছিলেন।

 

/এসটিএস/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:১০

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার সাতারকুল এলাকায় একটি ফার্নিচার গোডাউনে আগুন লেগেছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাত ৯টা ৫৮ মিনিটের দিকে এ আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে কাজ করছে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার কর্মকর্তা মো. রায়হান এসব তথ্য জানান।

রায়হান বলেন, ‘রাজধানীর উত্তর বাড্ডা সাতারকুল রোডের সাত তলা ভবনের নিচ তলায় আগুন লাগার সংবাদ পাই আমরা। এখন পর্যন্ত ৬টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলে পরে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো যাবে।’

ফায়ার সার্ভিস জানায়, সাতারকুলের জিএম বাড়ি এলাকার তিন তলা ভবনের নিচ তলায় জ্যোতি লিকার স্টোরের কেমিক্যাল হতে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। আগুনে দ্বিতীয় তলার কাপড়ের দোকান এবং তৃতীয় তলার ইলেকট্রনিক ওয়ার্কসপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

 

/আরটি/আইএ/

সম্পর্কিত

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন: গুতেরেস

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

বাড্ডার আগুন নিয়ন্ত্রণে

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক ও মহাসচিব দীপ আজাদ

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

বাড্ডায় ফার্নিচার গোডাউনে আগুন

ফেসবুকের ‘ভুয়া খবরেই’ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলা

ফেসবুকের ‘ভুয়া খবরেই’ দেশের সব সাম্প্রদায়িক হামলা

সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার প্রতিবাদে সারা দেশে কর্মসূচি অব্যাহত

সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার প্রতিবাদে সারা দেশে কর্মসূচি অব্যাহত

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে নারীবাদী সংগঠনের মশাল সমাবেশ

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে নারীবাদী সংগঠনের মশাল সমাবেশ

বাসের কনডাক্টর থেকে ৫০ কোটি টাকার মালিক

বাসের কনডাক্টর থেকে ৫০ কোটি টাকার মালিক

একশনএইডের ৩৮ বছর পথচলা উপলক্ষে দিনব্যাপী প্রদর্শনী 

একশনএইডের ৩৮ বছর পথচলা উপলক্ষে দিনব্যাপী প্রদর্শনী 

ফ্রান্সের প্রযুক্তিতে বদলাবে এয়ার ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা

ফ্রান্সের প্রযুক্তিতে বদলাবে এয়ার ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা

ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট করায় প্রাথমিকের শিক্ষক বরখাস্ত

ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট করায় প্রাথমিকের শিক্ষক বরখাস্ত

সবাই দ্রুত ও সুষ্ঠু বিচার পাওয়ার অধিকারী: প্রধান বিচারপতি

সবাই দ্রুত ও সুষ্ঠু বিচার পাওয়ার অধিকারী: প্রধান বিচারপতি

সর্বশেষ

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

সালমান এফ রহমানের ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

© 2021 Bangla Tribune