X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

পাহাড়ে কচুর বাম্পার ফলন

আপডেট : ১০ আগস্ট ২০২১, ১৯:০৬

এক সময়ের ন্যাড়া পাহাড় এখন সবুজ আর সবুজ। তবে এই সবুজের সমারোহ গাছপালায় নয়, বেশির ভাগ পাহাড় ঢেকে আছে মুখী কচুর সবুজ পাতায়। চলতি বছর খাগড়াছড়ি জেলায় এই কচুর ব্যাপক চাষাবাদ হয়েছে। পাহাড়ে এটি ‘ছড়া কচু’ হিসেবে পরিচিত। কৃষি বিভাগ বলছে, জেলার চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম, ফেনী ও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রফতানি করা যাবে পাহাড়ে উৎপাদিত এই কচু।

খাগড়াছড়ি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়, খাগড়াছড়ি জেলায় চলতি বছর ৮৫৮ হেক্টর জায়গায় ছড়া কচুর চাষ করা হয়েছে। ফলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৯ হাজার ২৭২ মেট্রিক টন। কৃষি সম্প্রসারণ অফিসেরও একাধিক ছড়া কচু চাষের প্লট রয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে চাষের পাশাপাশি প্রত্যেক কৃষক, যাদের পাহাড়ে জায়গা আছে তারা ব্যক্তিগতভাবে পারিবারিক চাহিদা মেটানোর জন্য অল্প অল্প ছড়া কচু চাষ করেছেন। জেলায় চলতি বছর আবহাওয়া কচু চাষের উপযোগী ছিল। তাছাড়া পাহাড়ের মাটি দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ, তাই ছড়া কচুর বাম্পার ফলন হয়েছে। কিছু কিছু জায়গায় কচুর ছড়া তোলা হলেও বেশির ভাগ কৃষক অপেক্ষা করছেন বৃষ্টি শেষ হওয়ার। পাহাড়ের কচুর ছড়া খুবই সুস্বাদু ও পুষ্টিকর, এজন্য এর চাহিদা পুরো দেশজুড়ে।

জেলার গুইমারা উপজেলার গৈছড়ির কৃষক সোনাধন চাকমা জানান, চলতি বছর পাঁচ কানী জায়গায় ৪০ মণ বীজ রোপণ করেছেন তিনি। এতে খরচ হয়েছে পৌনে দুই লাখ টাকা। ফলন ভালো হয়েছে। পুঁজি উঠিয়ে দেড় থেকে দুই লাখ টাকা লাভের স্বপ্ন দেখছেন এই কৃষক। একই এলাকার কৃষক উদ্দীপন চাকমা জানালেন, ৩০ হাজার টাকা খরচ করে পাঁচ মণ বীজ রোপণ করেছেন। তিনি এক থেকে দেড় লাখ টাকা আয়ের আশা করছেন।

লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার কৃষক আবদুল আলী জানান, তিনি ১০ একর পাহাড়ে কচুর চাষ করেছেন। তার সব মিলিয়ে খরচ হয়েছে প্রায় তিন লাখ টাকা। যেভাবে এখন পর্যন্ত ফলন দেখা গেছে তাতে বিনিয়োগের দ্বিগুণ টাকা উঠবে বলে আশাবাদী তিনি।

লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘এবার ছড়া কচুর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি হেক্টরে ১৯ থেকে ২০ মেট্রিক টন। উপজেলা কৃষি অফিস পারিবারিক পুষ্টিবাগান প্রকল্পের আওতায় তিনটি প্রদর্শনী প্লট করেছে। ফলন অনেক ভালো হয়েছে।’

খাগড়াছড়ি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক মো. মর্ত্তুজ আলী জানান, ফেব্রুয়ারি মাসে বীজ বপনের করা হয়। অনেক সময় প্রথম বৃষ্টিপাতের পর পরই বীজ লাগানো হয়। বীজ লাগানোর কয়েক মাসের মধ্যে কৃষকরা ফলন পান। কচু চাষে পতিত জমি যেমন চাষের আওতায় আসছে, তেমনি কৃষকরাও আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:০৩

চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানা এলাকায় সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার ঘটনায় মিরসরাই সদর ইউনিয়ন জামায়াতের সাবেক আমির মো. কফিল উদ্দিন লতিফীকে (৪৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মিরসরাই পৌর সদর থেকে তাকে গ্রেফতার করে হাটহাজারী থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে মিরসরাই থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মিরসরাই থানার ওসি মজিবুর রহমান বলেন, হাটহাজারীতে মন্দিরে ভাঙচুর ও সহিংসতার মামলায় জামায়াত নেতা কফিল উদ্দিন লতিফীকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাকে হাটহাজারী থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

হাটহাজারী থানার এসআই আকরাম হোসেন বলেন, হাটহাজারী থানা এলাকায় মন্দিরে ভাঙচুর ও সহিংসতার ঘটনায় গত ১৪ অক্টোবর মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত মিলে ২০০ জনকে আসামি করা হয়। ওই মামলায় জামায়াত নেতা কফিল উদ্দিন লতিফীকে মিরসরাই থানা পুলিশের সহায়তায় গ্রেফতার করা হয়েছে। 

এর আগে, গত ১৭ অক্টোবর হাটহাজারী থানা এলাকায় মন্দিরে ভাঙচুর ও সহিংসতার ঘটনায় মিরসরাই পৌরসভা বিএনপির আহবায়ক ফকির আহম্মদ (৬০), যুগ্ম আহবায়ক মো. জাহিদ হুসাইন (৩০) ও বিএনপি নেতা নজরুল ইসলামকে (৩৫) গ্রেফতার করেছিল মিরসরাই থানা পুলিশ।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৪

পটুয়াখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সাবেক ইউপি সদস্য আশরাফুল আলম (৪৫) ও তার স্ত্রী খাদিজা বেগমকে (৪০) মারধরের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার জেরে ওই ইউপি সদস্যের বাড়ির প্রবেশপথের সড়ক কেটে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কেটে ফেলা হয়েছে তার শতাধিক গাছ। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের ঝিলনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের সময় ওই পরিবারটি জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল দিয়ে সাহায্য চায়। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগেই হামলাকারীরা পালিয়ে যায় । 

মারধরের শিকার ইউপি আশরাফুল আলম বলেন, পাঁচ বছর আগে আপোসে প্রতিবেশী মো. মোস্তফা আকনের জমি দিয়ে একটি রাস্তা নির্মাণ করেন তিনি। শর্ত ছিল এর পরিবর্তে তিনি মোস্তফা আকনকে  অন্যত্র জায়গা দেবেন। কিন্তু মোস্তফা আকন এখন ওই জমি নিতে রাজি না। এ কারণে মোস্তফার ছেলে মো. মামুন আকনের নেতৃত্বে  ৫-৬ জনের একটি দল বাড়ির প্রবেশপথের রাস্তা কেটে ফেলে। এ সময় আমার স্ত্রী খাদিজা বেগম বাধা দিলে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়। খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পৌঁছালে আমাকে মারধর করা হয়। এরপর মামুন তার সহযোগীদের নিয়ে রাস্তার পাশে শতাধিক ফলদ ও বনজ গাছ কেটে ফেলে। তাদের বেপরোয়া অবস্থা দেখে জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল করি। কিন্তু পুলিশ আসার আগেই ওরা পালিয়ে যায়।  

গাছও কেটে ফেলেন হামলাকারীরা এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোস্তফা আকনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার ভাই আবদুর রব আকন বলেন, রাস্তাটি আমাদের জমির ওপর দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। এ কারণে রাস্তা কেটে দিয়েছি।
 
বাউফল থানার ওসি আলম মামুন জানান, মারামারির ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

‘অপহরণ করে বিয়ে’, ৫ দিন পর শ্বশুরবাড়ি ছেড়েছেন ইশরাত

‘অপহরণ করে বিয়ে’, ৫ দিন পর শ্বশুরবাড়ি ছেড়েছেন ইশরাত

ভোলায় আগুনে ১০ দোকান পুড়ে ছাই

ভোলায় আগুনে ১০ দোকান পুড়ে ছাই

প্রণোদনা পেতে শের-ই-বাংলা মেডিক্যালের নার্সদের বিক্ষোভ

প্রণোদনা পেতে শের-ই-বাংলা মেডিক্যালের নার্সদের বিক্ষোভ

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কক্সবাজারে আটক ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লায় আনা হচ্ছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে তাকে নিয়ে কুমিল্লার উদ্দেশে রওনা হয় পুলিশ। 

গত ১৩ অক্টোবর ভোরে নানুয়াদিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়া যায়। এরপরই দেশের কয়েক স্থানে সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনার জেরে ওই দিন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচ জন নিহত হন। পরদিন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে মন্দির, মণ্ডপ ও দোকানপাটে হামলা–ভাঙচুর চালানো হয়। সেখানে হামলায় দুই জন নিহত হন। এরপর রংপুরের পীরগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বসতিতে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। এরইমধ্যে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকেও চিহ্নিত করে। 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

 

/এএম/

সম্পর্কিত

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৪

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। হতাহত সবাই রোহিঙ্গা। আহতদের মধ্যে চার জনকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোরে উখিয়ার ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন, উখিয়ার বালুখালী-২ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা মো. ইদ্রীস (৩২), ইব্রাহীম হোসেন (২২), আজিজুল হক (২৬) ও মো. আমীন (৩২)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। আমি ঘটনাস্থলে আছি। পরে বিস্তারিত জানাবো।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক পুলিশ সুপার শিহাব কায়সার বলেন, শুক্রবার ভোরে উখিয়া বালুখালী ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চার রোহিঙ্গা নিহত হয়। এ সময় আহত হয়েছে আরও ১০ রোহিঙ্গা। 

ঘটনার পরপরই এপিবিএন এবং জেলা পুলিশ বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার এবং অস্ত্রধারীদের আটকে অভিযান শুরু করেছে। পুলিশ এ পর্যন্ত একজনকে আটক করেছে বলে জানিয়েছেন শিহাব কায়সার।

/এএম/ইউএস/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৮

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে এক অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, যারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি মেনে নিতে পারছে না, তারাই দেশে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। বিভিন্ন স্থানে মণ্ডপে ভাঙচুর, হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা ঘটাচ্ছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাদের সব মুখোশ উম্মোচন করা হবে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে আবারও এদেশে অপশক্তিকে বিতাড়িত করতে সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।

বৃহস্পতিবার গাওসুল আযম বিএনএসবি আই হসপিটাল দিনাজপুর-এ গ্লুকোমা, রেটিনা ও কর্ণিয়া সাব-স্পেসিয়ালটি ইউনিট স্থাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, উন্নত চিকিৎসার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উদার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা জনগণের কল্যানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর এই দেশের সব মানুষ শান্তিতে বসবাস করে আসছে। করোনাকালেও উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা পিছিয়ে যায়নি। সব ক্ষেত্রেই উন্নয়ন করেছেন শেখ হাসিনা। সাম্প্রদায়িক অপশক্তিরা উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতেই হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে বিবাদ তৈরি করছে। কিন্তু শেখ হাসিনা ভয় পাওয়ার মানুষ নয়, সব অপশক্তিকে প্রতিহত করা হচ্ছে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, রংপুর বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয়ের পরিচালক আব্দুল মোতালেব সরকার, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুল লতিফ, সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস, বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি দিনাজপুরের সাধারণ সম্পাদক ডা. চৌধুরী মোসাদ্দেকুল ইজদানী প্রমুখ।

/এমপি/

সম্পর্কিত

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

মাজার থেকে যেভাবে কোরআন নিয়ে পূজামণ্ডপে যান ইকবাল

মাজার থেকে যেভাবে কোরআন নিয়ে পূজামণ্ডপে যান ইকবাল

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা সেই ইকবাল আটক

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা সেই ইকবাল আটক

‘খুঁজে বের করতে হবে ইকবালের পেছনে কে’

‘খুঁজে বের করতে হবে ইকবালের পেছনে কে’

সড়কে পলিটেকনিক শিক্ষকসহ নিহত ২

সড়কে পলিটেকনিক শিক্ষকসহ নিহত ২

সর্বশেষ

প্রেমিক থেকে ধর্ষণ মামলার আসামি

প্রেমিক থেকে ধর্ষণ মামলার আসামি

ফারহান ও ফারিণ দম্পতির গল্প...

ফারহান ও ফারিণ দম্পতির গল্প...

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

হাটহাজারীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় জামায়াত নেতা গ্রেফতার

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

© 2021 Bangla Tribune