X
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তকরণ কতদূর?

আপডেট : ১৫ আগস্ট ২০২১, ১৮:০০
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি খন্দকার আব্দুর রশীদ ও রাশেদ চৌধুরীর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। আইনি জটিলতায় আটকে আছে বাকিদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার কাজ। তবে প্রক্রিয়া এগিয়ে চলছে বলে জানা গেছে। এখন সম্পত্তি শনাক্তকরণের কাজ চলছে। শনাক্তকরণ শেষ হলেই তাদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি পর্যায়ক্রমে বাজেয়াপ্ত হবে।

জাতীয় সংসদ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারী এবং দণ্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধীদের স্থাবর, অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে জাতীয় সংসদে গৃহীত হয়। তবে আইন পাসের আগেই পলাতক আসামিদের মধ্যে বরখাস্ত হওয়া লে. কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশিদ ও তার বাবা আব্দুল করিমের মালিকানাধীন ১৭ একর সম্পত্তি দুই দফায় বাজেয়াপ্ত হয়। প্রথম দফায় ১৯৯৬ সালের ১৯ ডিসেম্বর আদালতের নির্দেশে ১০ দশমিক ৮২ একর সম্পত্তি এবং দ্বিতীয় দফায় ২০১৫ সালের ১৪ জুন আরও ৬ দশমিক ১২ একর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত হয়। সব মিলিয়ে রশিদ ও তার পরিবারের প্রায় ১৭ একর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে সরকার।

অপরদিকে ২০১৪ সালের ২৮ এপ্রিল বঙ্গবন্ধুর আরেক খুনি বরখাস্ত হওয়া লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) এ এম রাশেদ চৌধুরীর ১ দশমিক ১৫ একর সম্পত্তি জব্দ করা হয়। এসব ভূমি বাজেয়াপ্ত করে খাস খতিয়ানভুক্ত করা হয়েছে। বাজেয়াপ্ত করা সম্পত্তিতে লাল পতাকা ও সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন, যারা এখনও পালিয়ে আছে তাদের শিগগিরই দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকর করা হবে। এ জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে। কয়েকজন খুনির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে এবং বাকিদের খোঁজ চলছে।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের বিষয়ে আমাদের প্রক্রিয়া এগিয়ে চলছে। প্রক্রিয়া শেষেই বাজেয়াপ্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে একদল বিপথগামী সেনাসদস্যের হাতে নৃশংসভাবে খুন হন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে বিচারের পথ খোলে। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসার পর ফের থেমে যায় হত্যামামলার গতি। ২০০৯ সালে পুনরায় ক্ষমতায় ফেরার পর আপিল বিভাগে এ মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়। মামলায় ১২ ঘাতককে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।

২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১২ জনের মধ্যে সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ, বজলুল হুদা, মহিউদ্দিন আহমেদ ও একেএম মহিউদ্দিনের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। বাকিদের মধ্যে পলাতক আজিজ পাশা ২০০১ সালে জিম্বাবুয়েতে মারা যায়। নূর চৌধুরী, আব্দুর রশিদ, শরিফুল হক ডালিম, এম রাশেদ চৌধুরী ও রিসালদার মোসলেম উদ্দিন পলাতক রয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর আরেক পলাতক খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে ২০২০ সালের ১১ এপ্রিল।

আবদুল মাজেদ ২৫ বছর ভারতে পালিয়ে ছিল। করোনাভাইরাসের মহামারি ছড়িয়ে পড়লে ২০২০ সালের ২৬ মার্চ ময়মনসিংহ সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করে মাজেদ। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ২০২০ সালের ৬ এপ্রিল মধ্যরাতে রাজধানীর মিরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

আইন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামিদের ফিরিয়ে আনতে আইনি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় ল’ফার্ম নিয়োগ করা হয়েছে। পাশাপাশি একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া ইন্টারপোলের মাধ্যমে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাজাপ্রাপ্ত খুনিদের ছবিসংবলিত তথ্য পাঠানো হয়েছে। যাতে খুনিদের অবস্থান চিহ্নিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখর জাপান

বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখর জাপান

বঙ্গবন্ধুর সফরে জাপানের বাড়িয়ে দেওয়া হাত

বঙ্গবন্ধুর সফরে জাপানের বাড়িয়ে দেওয়া হাত

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বঙ্গবন্ধু আরবদের সম্ভাব্য সব সাহায্য দিতে আবারও প্রতিশ্রুতি দিলেন

বঙ্গবন্ধু আরবদের সম্ভাব্য সব সাহায্য দিতে আবারও প্রতিশ্রুতি দিলেন

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:৫০

খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত হয়। পরে দলটির দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হয়।

 

প্রার্থী তালিকা

খুলনা বিভাগের মেহেরপুর জেলার সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নে মো. ইদ্রিস আলী, বুড়িপোতা ইউনিয়নে মো. শাহ্ জামান, গাংনী উপজেলার কাজীপুরে মো. রেজাউল হক, ষোলটাকায় মো. দেলবার হোসেন, ধানখোলায় মো. আব্দুর রাজ্জাক, রায়পুরে মো. গোলাম সাক লায়েন, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নে মো. আশরাফুজ্জামান, খাস মথুরাপুরে সর্দ্দার হাশিম উদ্দিন, ফিলিপনগরে এ কে এম ফজলুল হক, মরিচায় মো. শাহ্ আলমগীর, রামকৃষ্ণপুরে মো. সিরাজ মন্ডল, চিলমারিতে সৈয়দ আহম্মেদ, হোগলবাড়িয়ায় মো. সেলিম চৌধুরী, পিয়ারপুরে আবু ইউসুফ লালু, রিফাইতপুরে মো. জামিরুল ইসলাম, দৌলতপুরে মো. মহিউল ইসলাম, আদাবাড়িয়ায় মো. মকবুল হোসেন, বোয়ালিয়ায় মো. মহিউদ্দীন বিশ্বাস, খলিশাকুন্ডিতে সিরাজুল বিশ্বাস, আড়িয়ায় সাইদ আনছারী, চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার ভাংবাড়ীয়ায় মো. নাহিদ হাসনাত, হারদীতে মো. নুরুল ইসলাম, কুমারীতে মো. আবু সাইদ, বাড়াদীতে মো. আশাবুল হক, গাংনীতে মো. এমদাদুল হক, খাদিমপুরে মো. মোজাহিদুর রহমান জোয়ার্দ্দার, জেহালায় মো. হাসান উজ্জামান, বেলগাছিতে শ্রী সমীর কুমার দে, ডাউকীতে মো. তরিকুল ইসলাম, জামজামীতে মো. নজরুল ইসলাম, খাসকররায় মো. মোস্তাফিজুর রহমান, চিৎলাতে খোন্দকার আ. বাতেন, কালিদাশপুর মো. জয়নাল আবেদীন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার সাফদারপুরে মো. নওশের আলী, দোড়ায় মো. কাবিল উদ্দীন বিশ্বাস, কুশনায় মো. আব্দুল হান্নান, বলুহারে আ. মতিন, এলাঙ্গীতে মো. মিজানুর রহমান, কালিগঞ্জ উপজেলার সুন্দরপুর-দুর্গাপুর ইউনিয়নে ওহিদুল ইসলাম, জামারে মো. মোদাচ্ছের হোসেন, কোলায় মো. মনোয়ার হোসেন, নিয়ামতপুরে মো. রাজু আহাম্মেদ, শিমলা রোকনপুরে মো. নাছির উদ্দীন, ত্রিলোচনপুরে মো. নজরুল ইসলাম, রায়গ্রামে মো. আলী হোসেন, মালিয়াটে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস, রবাজারে আবুল কালাম আজাদ, কাষ্টভাংগাতে মো. আয়ুব হোসেন খান, রাখালগাছিতে মো. মহিদুল ইসলাম, যশোরের শার্শা উপজেলার ডিহিতে মো. আসাদুজ্জামান, লক্ষণপুরে মোছা. আনোয়ারা খাতুন, বাহাদুরপুরে মো. মিজানুর রহমান, পুটখালীতে মো. আ. গফফার সরদার, গোগাতে মো. আব্দুর রশিদ, কায়বাতে হাসান ফিরোজ আহমেদ, বাগআঁচড়াতে মো. ইলিয়াছ কবির (বকুল), উলশীতে মো. আয়নাল হক, শার্শায় কবির উদ্দীন আহম্মদ, নিজামপুরে মো. আব্দুল ওহাব, বাঘারপাড়া উপজেলার জহরপুরে মো. আসাদুজ্জামান, বন্দবিলাতে সনজীত কুমার বিশ্বাস, রায়পুরে মো. বিল্লাল হোসেন, নারিকেলবাড়ীয়ায় বাবলু কুমার সাহা, ধলগ্রামে মো. রবিউল ইসলাম, দোহাকুলাতে মো. ওয়াহিদুর রহমান/আবু মোতালেব, দরাজহাটে মো. জাকির হোসেন, বাসুয়াড়ীতে মো. আমিনুর সরদার, জামদিয়ায় শেখ আরিফুল ইসলাম তিব্বত, মনিরামপুর উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নে মো. হাফিজ উদ্দীন, কাশিমনগরে মো. তৌহিদুর রহমান, ভোজগাতীতে আছমা তুন্নাহার, ঢাকুরিয়ায় মো. এরশাদ আলী সরদার, হরিদাসকাটিতে বিপদ ভঞ্জন পাড়ে, মনিরামপুরে মো. এয়াকুব আলী, খেদাপাড়ায় মো. আব্দুল আলীম, ঝাঁপায় মো. সামছুল হক, মশ্বিমনগরে মো. আবুল হোসেন, চালুয়াহাটিতে মো. আবুল ইসলাম, শ্যামকুড়ে মো. আলমগীর হোসেন, খাঁনপুরে মো. আবুল কালাম আজাদ, দূর্বাডাঙ্গায় মো. মাযাহারুল আনোয়ার, কুলটিয়ায় শেখর চন্দ্র রায়, নেহালপুরে এম, এম, ফারুক হুসাইন, মনোহরপুরে মো. মশিয়ুর রহমান, মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর উপজেলার বাবুখালী ইউনিয়নে মীর মো. সাজ্জাদ আলী, বিনোদপুরে শিকদার মিজানুর রহমান, দীঘায় মো. খোকন মিয়া, রাজাপুরে মো. মিজানুর রহমান বিশ্বাস, বালিদিয়ায় মো. আবুল কালাম ফকির, মহম্মদপুরে রাবেয়া বেগম, পলাশবাড়ীয়ায় মো. আলা উদ্দীন মাহমুদ, নহাটাতে মো. আলী মিয়া, শালিখা উপজেলার ধনেশ্বরগাতীতে শ্রী বিমলেন্দু শিকদার, তালখড়িতে মো. সিরাজ উদ্দিন মন্ডল, আড়পাড়ায় মুন্সী আবু হানিফ, শতখালীতে মো. আনোয়ার হোসেন ঝন্টু, শালিখায় মো. বাবলু হোসেন, বুনাগাতীতে মো. বক্তিয়ার উদ্দিন, গঙ্গারামপুরে মো. আব্দুল হালিম মোল্লা, নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার বাবরা হাচলা ইউনিয়নে তারা মিয়া সরদার, পুরুলিয়ায় এস এম হারুনার রশীদ, হামিদপুরে পলি বেগম, সালামাবাদে শামীম আহম্মেদ, চাচুড়িতে মো. সিরাজুল ইসলাম হিরক, ইলায়াছাবাদে ফিরোজ মল্লিক, মাউলীতে রোজী হক, খাশিয়ালে মোসা. হালিমা বেগম, জয়নগরে মুন্সী আনোয়ার হোসেন, কলাবাড়িয়ায় তালুকদার রবিউল হাসান, বাঐসোনাতে শাহ মো. ফোরকান মোল্যা, পহরডাঙ্গায় নির্মল বিশ্বাস, খুলনা জেলার তেরখাদা উপজেলার আজগড়া ইউনিয়নে কৃষ্ণ মেনন রায়, বারাসাতে কে এম আলমগীর হোসেন, সাচিয়াদাহে মো. বুলবুল আহমেদ, তেরখাদায় এফ, এম অহিদুজ্জামান, ছাগলাদাহে আ. শুকুর শেখ, মধুপুরে মো. মোহসিন, রূপসা উপজেলার ঘাটভোটে সাধন অধিকারী চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা উপজেলার কুলিয়ায় মো. আসাদুল ইসলাম, পারুলিয়ায় মো. সাইফুল ইসলাম, সখিপুরে শেখ ফারুক হোসেন, নওয়াপাড়ায় মো. আলমগীর হোসেন, দেবহাটায় আলী মোর্তজা মো. আনোয়ারুল হক, কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগরে শ্যামলী অধিকারী, বিষ্ণুপুরে শেখ রিয়াজ উদ্দীন, চাম্পাফুলে মো. মোজাম্মেল হক, দক্ষিণশ্রীপুরে গোবিন্দ চন্দ্র মন্ডল, কুশুলিয়ায় শেখ আবুল কাশেম মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, নলতায় মো. আবুল হোসেন, তারালীতে মো. এনামুল হোসেন, ভাড়াশিমলায় মো. আবুল হোসেন, মথুরেশপুরে ফিরোজ আহমেদ, ধলবাড়িয়ায় গাজী শওকাত হোসেন, রতনপুরে এম, আলীম আল রাজী, মৌতলায় মো. রুহুল আমিন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

বরিশাল বিভাগের বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার রায়হানপুরে মো. মইনুল ইসলাম, নাচনাপাড়ায় মো. ফরিদ মিয়া, চরদুয়ানীতে মো. আবদুর রহমান, পাথরঘাটায় মো. আলমগীর হোসেন, পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার মাধবখালীতে কাজী মো. মিজানুর রহমান, মির্জাগঞ্জে মো. মনিরুল হক, আমড়াগাছিয়ায় সুলতান আহমেদ, দেউলিসুবিদখালীতে মোহাম্মাদ আনোয়ার হোসেন খান, কাকড়াবুনিয়ায় মো. মাহাবুব আলম (স্বপন), মজিদবাড়ীয়ায় মো. গোলাম সরওয়ার কিচলু, ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার অধ্যক্ষ নজরুল, নগর ইউনিয়নে মোহাম্মদ রুহুল আমিন হাওলাদার, ঢালচরে আবদুছ সালাম হাওরাদার, আবুবকরপুরে মো. সিরাজ জমদার, আব্দুল্লাহপুরে মোহাম্মদ আলে এমরান, ওসমানগঞ্জে আশরাফুল আলম, চর মানিকায় শফিউল্যাহ হাওলাদার, রসুলপুরে মো. জহিরুল ইসলাম পন্ডিত, চর কুকরীমুকরীতে আবুল হাসেম, বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়নে অমল মল্লিক, বামরাইলে মো. ইউছুব হাওলাদার, গুঠিয়ায় আবদুস সাত্তার মোল্লা, বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর ইউনিয়নে মুহাম্মদ আক্তার-উজ-জামান, বাটামারায় মো. সালাহ উদ্দিন, পিরোজপুর জেলার কাউখালী উপজেলার ছয়নারঘুনাথপুর ইউনিয়নে এইচ এম আর কে খোকন, চিড়াপাড়া পারসাতুরিয়া ইউনিয়নে মো. মাহমুদ খাঁন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

 

 

/ইএইচএস/এফএ/

সম্পর্কিত

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সফরকালে জাপানি গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রশংসা

সফরকালে জাপানি গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রশংসা

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:০১

গত বছর ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে তিন কোটি ডোজ করোনার টিকা কিনতে চুক্তি করে সরকার। আগাম অর্থও পরিশোধ করে। চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুনের মধ্যে প্রতি মাসে ৫০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহের কথা থাকলেও প্রথম মাসে ৫০ লাখ ও ফেব্রুয়ারিতে ২০ লাখ টিকার পর রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। সাত মাস পর আবার রফতানির অনুমতি দেওয়ায় অক্টোবরে ১০ লাখ টিকা সরবরাহ করে সেরাম। আশা করা হচ্ছে আগামী মাসগুলোতেও বাকি টিকাও আসতে থাকবে। এ প্রেক্ষাপটে নতুন করে আর টিকা সংগ্রহের পরিকল্পনা নেই বাংলাদেশের।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘এই মুহূর্তে সেরামকে নতুন করে অর্ডার দেওয়ার কথা চিন্তা করা হচ্ছে না। আমাদের পাইপলাইনে যা আছে, তাতে জানুয়ারি পর্যন্ত সমস্যা হবে না।’

ভারতের কাছে টিকা সরবরাহের শিডিউল চাওয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগামী মাসে আমরা তাদের চালান সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাবো—প্রতি মাসে ঠিক কতগুলো টিকা তারা দেবে।’

প্রতি মাসে একটি করে কনসাইনমেন্ট আসার কথা থাকলেও সেটা হয়নি। এখন আবার তা শুরু হয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, অন্যান্য দেশের সঙ্গেও তাদের প্রতিশ্রুতি দেওয়া আছে। আমরা মনে করি সেটাও তারা সরবরাহ করবে।

 

সিনোফার্মা থেকে সংগ্রহ

চীনের সিনোফার্মা থেকে সাড়ে সাত কোটি টিকা সংগ্রহ করছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে বাংলাদেশ এখন সন্তোষজনক পর্যায়ে রয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘আমাদের যদি আরও টিকা লাগে তবে সিনোফার্মার যথেষ্ট সক্ষমতা রয়েছে তা সরবরাহের। যদি আমাদের প্রয়োজন অনুভূত হয় তবে যে চুক্তি করা হয়েছে সেটির অধীনে খুব স্বল্পতম সময়ের ভেতরে আমরা সংগ্রহ করতে পারব।’

 

নতুন চুক্তি

গত চার-পাঁচ মাস আগেও কোভিড টিকার বাজার পুরোপুরি বিক্রেতাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু এখন আর তা নেই। কারণ এখন অনেক সরবরাহকারী বাজারে এসেছে। সক্ষমতাও বেড়েছে। এ কারণে নভেম্বরে দামের ওপর একটি প্রভাব দেখা যাবে বলে আশা করেন পররাষ্ট্র সচিব।

তিনি বলেন, ‘যে টিকা আমাদের আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে লাগবে, সেটার জন্য এখন চুক্তির দরকার নেই। আমরা কিছুদিন অপেক্ষা করবো।’

তিনি বলেন, ‘যদি তারা ঠিকমতো সরবরাহ করতে পারে, তা হলে নতুন করে আলোচনা হতে পারে। সেক্ষেত্রে দাম ও অন্যান্য শর্তের বিষয়ে পরিবর্তন আসার সম্ভাবনাই বেশি।’

উল্লেখ্য, গত মার্চে ভারতের সেরাম থেকে টিকার প্রাপ্যতা অনিয়মিত হওয়ার পরপরই বাংলাদেশ বিভিন্ন উৎস থেকে টিকা সংগ্রহের চেষ্টা করলে এগিয়ে আসে চীন। চীনের সিনোফার্মার কাছ থেকে প্রথমে দেড় কোটি ও পরে আরও ছয় কোটিসহ মোট সাড়ে সাত কোটি টিকা সংগ্রহের চুক্তি করেছে সরকার।

অন্যদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভ্যাক্স থেকে আরও ছয় কোটি টিকা পাওয়া যাবে বলে প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে। বাংলাদেশের ৭০ শতাংশ জনগণকে টিকার আওতায় আনার জন্য ২৬ কোটির বেশি টিকার প্রয়োজন হবে।

/এমএস/এফএ/

সম্পর্কিত

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সফরকালে জাপানি গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রশংসা

সফরকালে জাপানি গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রশংসা

সংস্কার করা সংসদ মেডিক্যাল সেন্টারের উদ্বোধন করলেন স্পিকার

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ২০:১১

জাতীয় সংসদ ভবনে সংস্কার করা সংসদ মেডিক্যাল সেন্টার ও এলডি হলের উদ্বোধন করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘মেডিক্যাল সেন্টারটি সংস্কারের ফলে উন্নত পরিবেশে চিকিৎসকরা আধুনিক চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন। একইসঙ্গে চিকিৎসকরা নির্বিঘ্নে কোভিড স্যাম্পল সংগ্রহ ও কোভিড ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম আরও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন।’

এর আগে সংস্কার করা মেডিক্যাল সেন্টার ও এলডি হল পরিদর্শন করেন স্পিকার।

অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি এবং পার্লামেন্ট মেম্বার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এ বি তাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রচনায় ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ অবলম্বনে মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ নির্মিত চলচ্চিত্রটির স্পেশাল স্ক্রিনিং করা হয় সংসদ ভবনের এলডি হলে। চলচ্চিত্রটি নির্মাণে সহায়তা করেছে বিএমআইটি সল্যুশনস লিমিটেড এবং প্রোলেন্সার স্টুডিও। পরিচালনা করেছেন সোহেল মোহাম্মদ রানা।

সংসদ সচিবালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ও চলচ্চিত্রটির পৃষ্ঠপোষক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্যবৃন্দ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, সংসদ মেডিক্যাল সেন্টারের চিকিৎসক এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫৪

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ২৩২ জন। এর আগে গত বছরের ১৫ এপ্রিল এর চেয়ে কম ২১৯ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিল অধিদফতর।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে দুই বা ততোধিক অঙ্কে রোগী শনাক্ত হয়েছেন তিন জেলায়। এর মধ্যে মহানগরসহ ঢাকা জেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১২১ জন, গাজীপুরে ১০ জন এবং রাজশাহীতে ১৩ জন। এক অঙ্কে রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩০ জেলায় এবং ৩১ জেলায় নতুন করে কেউ শনাক্ত হয়নি।

এক অঙ্কের রোগী শনাক্ত হয়েছে ঢাকা বিভাগের ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, শরীয়তপুর ও টাঙ্গাইল; ময়মনসিংহ বিভাগের ময়মনসিংহ, জামালপুর ও শেরপুর; চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাঙামটি, ফেনী, নোয়াখালী, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া; রাজশাহী বিভাগের নাটোর, পাবনা ও জয়পুরহাট; রংপুর বিভাগের রংপুর জেলা; খুলনা বিভাগের যশোর, ঝিনাইদহ, খুলনা ও সাতক্ষীরা; বরিশাল বিভাগের বরিশাল জেলা এবং সিলেট বিভাগের সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলায়।

আর ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ ও রাজবাড়ী; ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা; চট্টগ্রাম বিভাগের বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, লক্ষ্মীপুর ও কুমিল্লা; রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া; রংপুর বিভাগের পঞ্চগড়, নীলফামারী, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর ও গাইবান্ধা; খুলনা বিভাগের বাগেরহাট, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মাগুরা, মেহেরপুর ও নড়াইল; বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠি এবং সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় কেউ শনাক্ত হয়নি।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

৫৮ জেলায় করোনায় মৃত্যু নেই

৫৮ জেলায় করোনায় মৃত্যু নেই

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

একমাস ধরে করোনা পরিস্থিতি স্বস্তিদায়ক

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

দ্বিতীয় দিনের মতো আজও শনাক্তের হার ২-এর নিচে

২৪ ঘণ্টায় চার মৃত্যু, ১৭ মাসে সর্বনিম্ন

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৩৪

সংক্রমণের নিম্নগতির মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন রোগী শনাক্ত, শনাক্তের হার এবং মৃত্যু সবই আরও কমে এসেছে। সেই সঙ্গে দৈনিক মৃত্যু নেমে এসেছে পাঁচের নিচে। আর গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন চার জন। এর আগে গত বছরের ৬ মে করোনা আক্রান্ত হয়ে এর চেয়ে কম তিন জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ২৩২ জন। এর আগে গত বছরের ১৫ এপ্রিল এর চেয়ে কম ২১৯ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিল অধিদফতর।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়া ২৩২ জনকে নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসাবে শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৬৭ হাজার ১৩৯ জন এবং আজকের চার জনকে নিয়ে মোট মারা গেলেন ২৭ হাজার ৮০৫ জন।

করোনা থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৬৪ জন। তাদের নিয়ে দেশে মোট সুস্থ হলেন ১৫ লাখ ৩০ হাজার ৬৪৭ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী শনাক্তের হার এক দশমিক ৩৬ শতাংশ, আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৬৭ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ। 

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৭ হাজার ১০৫টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ১৭ হাজার ১০০টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে এক কোটি এক লাখ ৮৮ হাজার ৬২৩টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৭৪ লাখ ৩৯ হাজার ৯২২টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৭ লাখ ৪৮ হাজার ৭০১টি।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া চার জনের মধ্যে পুরুষ দুই জন এবং নারী দুই জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৮০৮ জন এবং নারী ৯ হাজার ৯৯৭ জন।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের বয়স বিবেচনায় ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে রয়েছেন তিন জন এবং ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন।

অধিদফতর জানাচ্ছে, মারা যাওয়া চার জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের দুই জন এবং চট্টগ্রাম ও বরিশাল বিভাগের রয়েছেন একজন করে। চার জনই সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন। 

 

/জেএ/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

সেরামকে নতুন অর্ডার দেবে না সরকার

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

৩১ জেলায় শনাক্ত হয়নি কেউ

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সড়কে দুর্ঘটনা বাড়ছেই

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখর জাপান

বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে জয়বাংলা ধ্বনিতে মুখর জাপান

বঙ্গবন্ধুর সফরে জাপানের বাড়িয়ে দেওয়া হাত

বঙ্গবন্ধুর সফরে জাপানের বাড়িয়ে দেওয়া হাত

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বঙ্গবন্ধু আরবদের সম্ভাব্য সব সাহায্য দিতে আবারও প্রতিশ্রুতি দিলেন

বঙ্গবন্ধু আরবদের সম্ভাব্য সব সাহায্য দিতে আবারও প্রতিশ্রুতি দিলেন

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ত্রিদলীয় জোটের কাজ কী হবে

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ত্রিদলীয় জোটের কাজ কী হবে

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ত্রিদলীয় ঐক্যজোট আত্মপ্রকাশের দিন ঘোষণা

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ত্রিদলীয় ঐক্যজোট আত্মপ্রকাশের দিন ঘোষণা

আরবদের পক্ষে বুমেদিনের কাছে বঙ্গবন্ধুর বাণী

আরবদের পক্ষে বুমেদিনের কাছে বঙ্গবন্ধুর বাণী

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জ্যাকসনের সাক্ষাৎ

বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জ্যাকসনের সাক্ষাৎ

আরব ভাইদের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু

আরব ভাইদের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু

সে বছর মেয়েদের জন্য পৃথক বাস চালু হয়েছিল

সে বছর মেয়েদের জন্য পৃথক বাস চালু হয়েছিল

সর্বশেষ

‘দাবিটা সরল, তালিবানকে বসতে দেবেন না’

‘দাবিটা সরল, তালিবানকে বসতে দেবেন না’

এক সপ্তাহে কলকাতায় করোনা রোগী দ্বিগুণ

এক সপ্তাহে কলকাতায় করোনা রোগী দ্বিগুণ

বিজেপির ফেক নেটওয়ার্ক বন্ধ করেনি ফেসবুক: বিস্ফোরক সোফি

বিজেপির ফেক নেটওয়ার্ক বন্ধ করেনি ফেসবুক: বিস্ফোরক সোফি

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

খুলনা ও বরিশাল বিভাগে আওয়ামী লীগের ইউপি প্রার্থী যারা

প্রপ গানও বিপজ্জনক, আসল বন্দুকের সঙ্গে পার্থক্য কী?

হলিউডে নিহতপ্রপ গানও বিপজ্জনক, আসল বন্দুকের সঙ্গে পার্থক্য কী?

© 2021 Bangla Tribune