X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বিশ্ববিদ্যালয় খুলে না দিলে উন্মুক্ত জায়গায় ক্লাস

আপডেট : ২৪ আগস্ট ২০২১, ১৯:৩৮

সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ধাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয় না খুলে দিলে উন্মুক্ত স্থানে শিক্ষকরা প্রতীকী ক্লাস নেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছে ‘বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক’।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) জুম অ্যাপের মাধ্যমে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক। সংবাদ সম্মেলনটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. গীতি আরা নাসরীন।

এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাইদুল ইসলাম।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার দাবিতে শিক্ষক নেটওয়ার্ক ১১টি প্রস্তাব পেশ করে। প্রস্তাবগুলো হচ্ছে—

১.  বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে ধাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। সেটি না করলে  প্রতিবাদ  কর্মসূচি হিসেবে শিক্ষকরা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের  ক্যাম্পাসে উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতীকী ক্লাস নেওয়া শুরু করবেন। 

২. ১ সেপ্টেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খুলে দিতে হবে।  আবাসিক  হলে প্রথমে  শুধু অনার্স এবং মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের অনুমতি থাকবে। আবাসিক হলে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত না করে কোনোভাবে  পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরু করা যাবে না।  এসব ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা কার্যক্রম শেষ হয়ে গেলে, পরবর্তী ব্যাচগুলোর ধাপে ধাপে পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে।

৩. আবাসিক হলগুলোতে গণরুম তুলে দিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। সেই সঙ্গে আবাসিক হল ব্যবস্থাপনা পরিপূর্ণভাবে শিক্ষকদের মাধ্যমে পরিচালিত হতে হবে, ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের মাধ্যমে নয়।

৪. বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলোতে শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টেস্ট  এবং টিকাদানের ব্যবস্থা করতে হবে, যাতে হলে প্রবেশ করা শিক্ষার্থীরা কোভিড টেস্ট এবং টিকাগ্রহণে অগ্রাধিকার পায়। ক্যাম্পাসে ব্যবস্থা করা গেলে সবচাইতে ভালো হয়, তাতে শিক্ষার্থীরা ভিড় এড়িয়ে টিকা নিতে পারবে।  

৫. ক্যাম্পাসগুলোতে অবস্থিত মেডিক্যাল সেন্টারগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি, আইসোলেশনের ব্যবস্থা, অসুস্থ হলে শিক্ষার্থীদের দেখাশুনার ব্যবস্থা উন্নত করার কোনও বিকল্প নেই। এ বিষয়ে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে হবে। 

৬. পরীক্ষার কার্যক্রম শেষ হয়ে যাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে নিয়মিত পাঠদানের কার্যক্রম শুরু করতে হবে। তবে এখানেও করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে  ৫০% অনলাইন এবং ৫০% অফ লাইন ক্লাস চালু করা যেতে পারে। ৫০% অফ লাইন ক্লাসের মধ্যে ব্যবহারিক ক্লাস এবং অন্যান্য কার্যক্রম যেগুলো অনলাইনে করা কঠিন, সেসব  থাকতে পারে। 

৭. অনলাইন ক্লাসেও হাইব্রিড পদ্ধতি চালু করা যেতে পারে। যে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে আসতে পারবে, তারা সশরীর অনসাইট ক্লাস করবে। যারা পারবে না তারা অনলাইন ক্লাসে অংশ নেবে। যে ক্লাসে এসেছিল সে অসুস্থ হলে সে অনলাইনে চলে যাবে। পরিস্থিতি বেশি খারাপ হলে, আবারও পুরো অনলাইনে যাওয়া যেতে পারে।

৮. শিক্ষকদের অনলাইন টিচিং লার্নিং ম্যানেজমেন্টের সিস্টেম তৈরি করার জন্য প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা কমিটি গঠন করে এর কাজ শুরু করতে হবে এবং শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। 

৯. শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

১০. অনলাইনে সুষ্ঠুভাবে পড়াশুনা চালিয়ে নেওয়ার জন্য  শিক্ষার্থীদের জন্য স্বল্পমূল্যে দ্রুত গতির ইন্টারনেট সার্ভিসের বিশেষ প্যাকেজ ব্যবস্থা চালু করতে হবে। 

১১. ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের খুঁজে বের করে তাদের শিক্ষায় ফিরিয়ে আনার সেফটি নেটের ব্যবস্থা করতে হবে।   

এ সময় আলোচনা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক অধ্যাপক ড. আনু মোহাম্মদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কামরুল হাসান মামুন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক  আবদুল্লাহ হারুন চৌধুরী , বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (গোপালগঞ্জ) শিক্ষক আরাফাত রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কাজী মারুফুল ইসলাম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নাসির উদ্দিন।

সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘সেপ্টেম্বরের শুরুতে বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধাপে ধাপে খুলে দেওয়া হোক। আমরা বলছি না, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান একযোগে খুলতে হবে। আমাদের দাবি হলো, সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্যকেন্দ্রকে শক্তিশালী করে খুলে দেওয়া হোক, যেখানে টিকা, টেস্ট এবং আইসিইউ’র ব্যবস্থা থাকবে।’

তিনি আরেও বলেন, ‘হলগুলোতে গণরুমের ব্যবস্থা বাদ দিয়ে সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করে ধাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়া হোক। সরকার যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে আরও গড়িমসি করে, তাহলে আমরা প্রতিবাদ হিসেবে উন্মুক্ত স্থানে প্রতীকী ক্লাস নেবো। ইতোমধ্যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ক্লাস নিয়েছেন। আমরাও নেবো। প্রতীকী ক্লাস নেওয়ার আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।’

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

পরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

পরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:১১

প্রতিষ্ঠার শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রত্যক্ষ করে পৃথিবীর এক ভয়ংকর রূপ। পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও হানা দেয় মহামারি করোনা। অন্য দেশগুলোর মতো এখানেও থমকে যায় সব কিছু। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে শিক্ষার্থীদের ফিরতে হয় বাড়িতে। সুনসান হয়ে পড়ে পুরো ক্যাম্পাস। প্রায় দুই বছর এভাবেই থমকে ছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রাঙ্গণ।

তবে গত ৫ অক্টোবর শর্তসাপেক্ষ অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য হল খোলার পর থেকে আবারও জমে ওঠতে শুরু করে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি)। এরপর ১৭ অক্টোবর থেকে সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর পুরোদমে জমে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রাঙ্গণ। মানানসই চেনা রূপে ফিরে টিএসসি।

প্রায় দুই বছর পর শুক্রবার (২২ অক্টোবর) টিএসসিতে অনুষ্ঠিত কনসার্ট। তাছাড়া, গান-কবিতাসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সহিংসতার প্রতিবাদ জানানো হয় এই প্রাঙ্গণে। যেন প্রাণ ফিরেছে এক মৃতপুরীতে!

বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী সামলান সাগর বলেন, "টিএসসি এমন একটি জায়গা যেখানে এলে আমাদের সকল ক্লান্তি-অবসাদ কেটে যায়। এখানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় কাটালেও কোনও ধরনের বিরক্তি আসে না। বহুদিন এই প্রিয় আঙ্গিনাটাকে মিস করেছি। ক্যাম্পাস খোলার পর আবার সেই চেনা রূপে প্রিয় আঙিনাকে দেখে সত্যিই খুব ভালো লাগছে।"

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ফারিয়া শান্তা বলেন, "গত দেড় বছরে এই জায়গাটাকে, এর পরিবেশকে ভীষণ মিস করেছি। এখন আবারও টিএসসিকে সরব দেখে খুবই আনন্দিত।"

টিএসসি এলাকায় চা বিক্রি করেন কালাম হোসেন। তিনি বলেন, "এই দোকানের আয় দিয়ে সংসার চালাতে হয়। অনেকদিন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় আয় অনেক কমে গিয়েছিলো। সংসার চালাতে খুবই কষ্ট হতো। বিশ্ববিদ্যালয় আবার খোলার পর আয় বেড়েছে। আগের চেয়ে একটু ভালো চলছি।"

/এমএস/

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:০২

প্রতিষ্ঠার শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রত্যক্ষ করে পৃথিবীর এক ভয়ংকর রূপ। পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও হানা দেয় মহামারি করোনা। অন্য দেশগুলোর মতো এখানেও থমকে যায় সব কিছু। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে শিক্ষার্থীদের ফিরতে হয় বাড়িতে। সুনসান হয়ে পড়ে পুরো ক্যাম্পাস। প্রায় দুই বছর এভাবেই থমকে ছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রাঙ্গণ।

তবে গত ৫ অক্টোবর শর্তসাপেক্ষ অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য হল খোলার পর থেকে আবারও জমে ওঠতে শুরু করে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি)। এরপর ১৭ অক্টোবর থেকে সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর পুরোদমে জমে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রাঙ্গণ। মানানসই চেনা রূপে ফিরে টিএসসি।

প্রায় দুই বছর পর শুক্রবার (২২ অক্টোবর) টিএসসিতে অনুষ্ঠিত কনসার্ট। তাছাড়া, গান-কবিতাসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সহিংসতার প্রতিবাদ জানানো হয় এই প্রাঙ্গণে। যেন প্রাণ ফিরেছে এক মৃতপুরীতে!

বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী সামলান সাগর বলেন, "টিএসসি এমন একটি জায়গা যেখানে এলে আমাদের সকল ক্লান্তি-অবসাদ কেটে যায়। এখানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় কাটালেও কোনও ধরনের বিরক্তি আসে না। বহুদিন এই প্রিয় আঙ্গিনাটাকে মিস করেছি। ক্যাম্পাস খোলার পর আবার সেই চেনা রূপে প্রিয় আঙিনাকে দেখে সত্যিই খুব ভালো লাগছে।"

বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ফারিয়া শান্তা বলেন, "গত দেড় বছরে এই জায়গাটাকে, এর পরিবেশকে ভীষণ মিস করেছি। এখন আবারও টিএসসিকে সরব দেখে খুবই আনন্দিত।"

টিএসসি এলাকায় চা বিক্রি করেন কালাম হোসেন। তিনি বলেন, "এই দোকানের আয় দিয়ে সংসার চালাতে হয়। অনেকদিন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় আয় অনেক কমে গিয়েছিলো। সংসার চালাতে খুবই কষ্ট হতো। বিশ্ববিদ্যালয় আবার খোলার পর আয় বেড়েছে। আগের চেয়ে একটু ভালো চলছি।"

/এমএস/

সম্পর্কিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ ও জড়িতদের বিচার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ ও জড়িতদের বিচার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ

১২ হাজার ভর্তি পরীক্ষার্থীর ৩৮০০ জনই অনুপস্থিত

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২৭

কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (২৩ অক্টোবর) বেলা ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের  একাডেমিক ভবনগুলোতে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় উপস্থিতির হার ৬৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

রাবির কলা অনুষদের ডিন ও ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের রাবি কেন্দ্রের প্রধান অধ্যাপক ফজলুল হক বলেন, ‘ঢাবির ঘ ইউনিটে পরীক্ষার্থী ছিলেন ১২ হাজার ছয় জন। এর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আট হাজার ২০৬ পরীক্ষার্থী। তিন হাজার ৮০০ জন পরীক্ষা দিতে আসেননি। এই হিসাবে উপস্থিতির হার ৬৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ ও অনুপস্থিতির হার ৩১ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

উল্লেখ্য, গত ১, ২ ও ২২ অক্টোবর যথাক্রমে ‘ক’ এবং ‘খ’ ও ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে নাট্য পরিবেশন (ফটোস্টোরি)

সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে নাট্য পরিবেশন (ফটোস্টোরি)

ঢাবির থিয়েটার বিভাগের ‘শৈল্পিক’ প্রতিবাদ

ঢাবির থিয়েটার বিভাগের ‘শৈল্পিক’ প্রতিবাদ

সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ ঢাবি শিক্ষক সমিতির

সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ ঢাবি শিক্ষক সমিতির

হল খোলার দাবিতে বুয়েট শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ২০:০৪

আগামী পহেলা নভেম্বরের মধ্যে আবাসিক হল ও ক্যাম্পাস খুলে দেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল এগারোটায় বুয়েট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা একত্রিত হয়ে এ দাবি জানায়। যে সকল শিক্ষার্থী অন্তত এক ডোজ করোনার টিকা পেয়েছে তাদের জন্য পহেলা নভেম্বরের মধ্যে হল-ক্যাম্পাস খুলে দেওয়ার আহ্বান জানায় শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, "আমরা জাতীয় দৈনিক সংবাদপত্রে দেখেছি বর্তমানে বুয়েটের ৮০ ভাগের বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থী দুই ডোজ ভ্যাক্সিন গ্রহণ করেছে। শিক্ষার্থীদের মতে, এই সংখ্যাটি আরও বড়,  কেননা নানাবিধ সমস্যার কারণে অনেক শিক্ষার্থীই এখন পর্যন্ত বি.আই.আই.এস’র মাধ্যমে নিজের ভ্যাক্সিনেশনের অবস্থা জানাতে পারেনি। অর্থাৎ, বুয়েটের প্রায় সকল শিক্ষার্থীই এখন অন্তত এক ডোজ ভ্যাক্সিনপ্রাপ্ত। যেহেতু আগামী ১৩ নভেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে। আবাসিক হল না খুলে ক্লাস শুরু করলে গত সেমিস্টারের মতই অনেক শিক্ষার্থী ক্লাস করতে অপারগ হবে। তাই যত দ্রুত সম্ভব হল খুলে ক্লাস নেওয়া হোক।

হল খোলার স্বার্থে যদি কোন শিক্ষার্থীর ভ্যাক্সিন নেওয়া বাকি থাকে সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেই শিক্ষার্থীর ভ্যাক্সিন নেওয়ার ব্যবস্থা করার দাবিও এসময় জানানো হয়।

মানববন্ধন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিদফতরের পরিচালক মিজানুর রহমান বরাবর ২৫০০ এর বেশি ছাত্রের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন তারা।

/এমএস/

সম্পর্কিত

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

১২ হাজার ভর্তি পরীক্ষার্থীর ৩৮০০ জনই অনুপস্থিত

১২ হাজার ভর্তি পরীক্ষার্থীর ৩৮০০ জনই অনুপস্থিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির 'ঘ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১৫:১৩

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত 'ঘ' ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শেষ হলো।

আজ শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চলে ঢাবির সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত বিভাগ পরিবর্তন ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা।

সকাল সোয়া এগারোটায় সামাজিক বিজ্ঞান ভবনের দু'টি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে সাতটি বিভাগীয় শহরের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।  বেশ কয়েকজন উপাচার্য আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, তাদের পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সুন্দর ব্যবস্থাপনার মধ্যে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কোথাও কোনও অনাকাঙ্ক্ষিত তথ্য আমাদের কাছে নেই। আজকের ইউনিটটি সবচেয়ে বড় ইউনিটভিত্তিক পরীক্ষা। ১ লক্ষ ১৫ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে। তবে আসন সংখ্যা মাত্র সাড়ে পনের শ।"

প্রথম বর্ষের রেজাল্ট ও ক্লাস শুরু হওয়ার প্রশ্নে তিনি বলেন, "মহামারি পরবর্তী পরিস্থিতি বিবেচনায় ভর্তি কার্যক্রম অতি দ্রুত শেষ করা হবে। লস রিকভারি প্লানের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী আমরা সব কিছু শেষ করবো। তবে এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় যেহেতু গুণগত মানের দিকে সর্বোচ্চ নিয়মনীতি মেনে চলে, তাই অতি অল্প সময়ে ভর্তি কার্যক্রম শেষ করা সম্ভব না। এছাড়াও লিখিত পরীক্ষা দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। সেই দিকটিও বিবেচনায় নিতে হচ্ছে আমাদের। তবে আমরা পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় এবছর দ্রুততম সময়ে ভর্তি কার্যক্রম শেষ করে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু করবো।"

এসময় উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) ড. মোহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, প্রক্টর ড. একেএম গোলাম রব্বানী, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার সমন্নয়ক ড. সাদেকা হালিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এবার প্রথমবারের মতো রাজধানীর বাইরের সাতটি কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মোট আট বিভাগের ৮ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভর্তি পরীক্ষা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া রাজধানীর বাইরে আরও ৭ বিশ্ববিদ্যালয়ে হচ্ছে এবারের ঢাবি ভর্তি পরীক্ষা।

ঢাকার বাইরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ), খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (সিলেট), বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (রংপুর) হচ্ছে ভর্তি পরীক্ষা।

/এমএস/

সম্পর্কিত

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

আবারও মুখর ঢাবির টিএসসি

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবি ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুক্রবার, প্রতি আসনে লড়বেন ২২ শিক্ষার্থী

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ ও জড়িতদের বিচার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধ ও জড়িতদের বিচার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

১৯ মাস পর প্রাণ ফিরেছে জাবি ক্যাম্পাসে

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় ঢাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

পরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

রাবির ‘বি’ ইউনিটে ভর্তিপরীক্ষা দিয়েও ১৬০০ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত, ওয়েসাইট থেকে সরলো ফল

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

চবিতে ১৯ অক্টোবর ক্লাস শুরুর পর ১৬ দিনের ছুটি

সব বর্ষের শিক্ষার্থীরা ঢাবি হলে, ফুল-চকলেট-মাস্কে বরণ

সব বর্ষের শিক্ষার্থীরা ঢাবি হলে, ফুল-চকলেট-মাস্কে বরণ

ঢাবি হলে প্রথম-দ্বিতীয়-তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা (ফটোস্টোরি)

ঢাবি হলে প্রথম-দ্বিতীয়-তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা (ফটোস্টোরি)

হাবিপ্রবিতে ছয় মাসের সেমিস্টার শেষ হবে ৪ মাসে 

হাবিপ্রবিতে ছয় মাসের সেমিস্টার শেষ হবে ৪ মাসে 

দেড় বছর পর আবারও মুখরিত মধুর ক্যান্টিন

দেড় বছর পর আবারও মুখরিত মধুর ক্যান্টিন

সর্বশেষ

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

ক্যাম্পে ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় মামলা

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

উগ্রবাদের স্থান বাংলাদেশে হবে না: হানিফ

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

মালদ্বীপে আকর্ষণীয় হলিডে প্যাকেজ ঘোষণা ইউএস-বাংলার

‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

সালমান এফ রহমানের ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন‘ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে’

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

© 2021 Bangla Tribune