X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

দুই মাসে মেডিক্যাল ভিসায় ভারতে সর্বোচ্চ যাতায়াত

আপডেট : ২৮ আগস্ট ২০২১, ১৫:৫৩

শর্ত মেনে বেনাপোল বন্দর দিয়ে মেডিক্যাল ভিসায় চিকিৎসা নিতে ভারতে যাত্রী যাতায়াত বাড়ছে। নিষেধাজ্ঞার পর বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে চিকিৎসা নিতে ভারতে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও ভ্রমণ ভিসা এখনও চালু হয়নি। এর আগে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে শুধু রাষ্ট্রীয়কাজে সীমিত পরিসরে যাতায়াতের সুযোগ ছিল।

শুক্রবার (২৭ আগস্ট) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বেনাপোল দিয়ে মেডিক্যাল ভিসায় ভারতে গেছেন ৩০৯ জন বাংলাদেশি। গত দুই মাসে এটি সর্বোচ্চ। এ নিয়ে গত দুই মাসে মেডিক্যাল ভিসায় ভারত গেলেন দুই হাজার ৬৬৮ বাংলাদেশি।

বাংলাদেশিদের ভারতে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে না হলেও ভারতফেরত বাংলাদেশিদের বেনাপোল ও যশোরের বিভিন্ন হোটেলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়। বাংলাদেশিরা ভারতে যাওয়ার পর সরাসরি গন্তব্যে যেতে পারছেন। গত রবিবার থেকে শর্ত কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। দুই ডোজ করোনার টিকা নেওয়া, ক্যানসার রোগীরা ভারত থেকে দেশে এলে ১৪ দিনের  কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয় না। ভারতে যাওয়ার সময় লাগে না স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণায়ের অনুমতি।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা যায়, ভারতে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ সরকার গত ২৬ এপ্রিল থেকে দেশটিতে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এতে বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমণ বন্ধ হয়ে যায়। এক্ষেত্রে জটিল রোগে আক্রান্তরা বিপাকে পড়েন। চিকিৎসা করাতে না পেরে অনেক রোগী যন্ত্রণায় ভুগতে থাকেন। একপর্যায়ে দুই মাস পর মানবিক দিক বিবেচনায় চিকিৎসাসেবা প্রত্যাশীদের শর্তসাপেক্ষে ভারত ভ্রমণের সুযোগ দেয় সরকার। ভারত সরকারও ইতিবাচক সাড়া দিয়ে ভিসা দেয়।

ভারত ভ্রমণে যাওয়ার পথে বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রী ধীমান সরকার বলেন, আমার মেয়ে জটিল রোগে আক্রান্ত। তিন মাস আগে একবার ভারতে গিয়েছিলাম চিকিৎসার জন্য। এক মাস পর যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে ভারত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞায় পড়ে যেতে পারিনি। এখন দু’দেশের সরকার রোগীদের কথা চিন্তা করে ভিসা দেওয়ার জন্য একমত হয়েছে। আগের নিয়মে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করানো পরীক্ষার নেগেটিভ সনদসহ বিভিন্ন শর্ত পালনের প্রতিশ্রুতি দিতে হয়েছে। আমার মতো শত শত মানুষ ভারতে যেতে পারছেন।

পাসপোর্টযাত্রী ঝুমুর বেগম বলেন, দেশে চিকিৎসাসেবা উন্নত না হওয়ায় করোনাকালীন সময়েও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসার জন্য ভারতে যেতে হচ্ছে। দেশে চিকিৎসাসেবা উন্নত হলে ভারতে যাওয়ার দরকার হতো না। এতে যেমন খরচ কমতো তেমনি সময়ও বাঁচতো। দেশে চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতিতে সরকারকে গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানাই।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব বলেন, বর্তমানে জটিল রোগে আক্রান্তরা ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনার নেগেটিভ সনদ নিয়ে ভারতে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। বাংলাদেশি যারা ভারত থেকে ফিরছেন, তারা ভারতে থাকা বাংলাদেশ দূতাবাসের বিশেষ ছাড়পত্র নিয়ে দেশে ফিরছেন। নিজ দেশে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন না হলেও ভারতে বাংলাদেশি দূতাবাস থেকে আনতে হয়।

তিনি আরও বলেন, গত চার মাসে ভারত থেকে দেশে ফিরেছেন সাত হাজার ৬৬১ জন বাংলাদেশি। এ সময়ের মধ্যে বাংলাদেশি ও ভারতীয় মিলে প্রায় পাঁচ হাজার ভারত গেছেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

ইউপি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ

ইউপি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ

ভারত থেকে ফিরেছেন পাচার হওয়া ১৯ তরুণী

ভারত থেকে ফিরেছেন পাচার হওয়া ১৯ তরুণী

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৪

পটুয়াখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সাবেক ইউপি সদস্য আশরাফুল আলম (৪৫) ও তার স্ত্রী খাদিজা বেগমকে (৪০) মারধরের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার জেরে ওই ইউপি সদস্যের বাড়ির প্রবেশপথের সড়ক কেটে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কেটে ফেলা হয়েছে তার শতাধিক গাছ। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের ঝিলনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের সময় ওই পরিবারটি জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল দিয়ে সাহায্য চায়। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগেই হামলাকারীরা পালিয়ে যায় । 

মারধরের শিকার ইউপি আশরাফুল আলম বলেন, পাঁচ বছর আগে আপোসে প্রতিবেশী মো. মোস্তফা আকনের জমি দিয়ে একটি রাস্তা নির্মাণ করেন তিনি। শর্ত ছিল এর পরিবর্তে তিনি মোস্তফা আকনকে  অন্যত্র জায়গা দেবেন। কিন্তু মোস্তফা আকন এখন ওই জমি নিতে রাজি না। এ কারণে মোস্তফার ছেলে মো. মামুন আকনের নেতৃত্বে  ৫-৬ জনের একটি দল বাড়ির প্রবেশপথের রাস্তা কেটে ফেলে। এ সময় আমার স্ত্রী খাদিজা বেগম বাধা দিলে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়। খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পৌঁছালে আমাকে মারধর করা হয়। এরপর মামুন তার সহযোগীদের নিয়ে রাস্তার পাশে শতাধিক ফলদ ও বনজ গাছ কেটে ফেলে। তাদের বেপরোয়া অবস্থা দেখে জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল করি। কিন্তু পুলিশ আসার আগেই ওরা পালিয়ে যায়।  

গাছও কেটে ফেলেন হামলাকারীরা এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোস্তফা আকনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার ভাই আবদুর রব আকন বলেন, রাস্তাটি আমাদের জমির ওপর দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। এ কারণে রাস্তা কেটে দিয়েছি।
 
বাউফল থানার ওসি আলম মামুন জানান, মারামারির ঘটনা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

‘অপহরণ করে বিয়ে’, ৫ দিন পর শ্বশুরবাড়ি ছেড়েছেন ইশরাত

‘অপহরণ করে বিয়ে’, ৫ দিন পর শ্বশুরবাড়ি ছেড়েছেন ইশরাত

ভোলায় আগুনে ১০ দোকান পুড়ে ছাই

ভোলায় আগুনে ১০ দোকান পুড়ে ছাই

প্রণোদনা পেতে শের-ই-বাংলা মেডিক্যালের নার্সদের বিক্ষোভ

প্রণোদনা পেতে শের-ই-বাংলা মেডিক্যালের নার্সদের বিক্ষোভ

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কক্সবাজারে আটক ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লায় আনা হচ্ছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে তাকে নিয়ে কুমিল্লার উদ্দেশে রওনা হয় পুলিশ। 

গত ১৩ অক্টোবর ভোরে নানুয়াদিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়া যায়। এরপরই দেশের কয়েক স্থানে সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনার জেরে ওই দিন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচ জন নিহত হন। পরদিন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে মন্দির, মণ্ডপ ও দোকানপাটে হামলা–ভাঙচুর চালানো হয়। সেখানে হামলায় দুই জন নিহত হন। এরপর রংপুরের পীরগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বসতিতে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। এরইমধ্যে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকেও চিহ্নিত করে। 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

 

/এএম/

সম্পর্কিত

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৪

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। হতাহত সবাই রোহিঙ্গা। আহতদের মধ্যে চার জনকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোরে উখিয়ার ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন, উখিয়ার বালুখালী-২ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা মো. ইদ্রীস (৩২), ইব্রাহীম হোসেন (২২), আজিজুল হক (২৬) ও মো. আমীন (৩২)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। আমি ঘটনাস্থলে আছি। পরে বিস্তারিত জানাবো।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক পুলিশ সুপার শিহাব কায়সার বলেন, শুক্রবার ভোরে উখিয়া বালুখালী ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চার রোহিঙ্গা নিহত হয়। এ সময় আহত হয়েছে আরও ১০ রোহিঙ্গা। 

ঘটনার পরপরই এপিবিএন এবং জেলা পুলিশ বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার এবং অস্ত্রধারীদের আটকে অভিযান শুরু করেছে। পুলিশ এ পর্যন্ত একজনকে আটক করেছে বলে জানিয়েছেন শিহাব কায়সার।

/এএম/ইউএস/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৮

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে এক অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, যারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি মেনে নিতে পারছে না, তারাই দেশে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। বিভিন্ন স্থানে মণ্ডপে ভাঙচুর, হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা ঘটাচ্ছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাদের সব মুখোশ উম্মোচন করা হবে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে আবারও এদেশে অপশক্তিকে বিতাড়িত করতে সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।

বৃহস্পতিবার গাওসুল আযম বিএনএসবি আই হসপিটাল দিনাজপুর-এ গ্লুকোমা, রেটিনা ও কর্ণিয়া সাব-স্পেসিয়ালটি ইউনিট স্থাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, উন্নত চিকিৎসার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উদার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা জনগণের কল্যানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর এই দেশের সব মানুষ শান্তিতে বসবাস করে আসছে। করোনাকালেও উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা পিছিয়ে যায়নি। সব ক্ষেত্রেই উন্নয়ন করেছেন শেখ হাসিনা। সাম্প্রদায়িক অপশক্তিরা উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতেই হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে বিবাদ তৈরি করছে। কিন্তু শেখ হাসিনা ভয় পাওয়ার মানুষ নয়, সব অপশক্তিকে প্রতিহত করা হচ্ছে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, রংপুর বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয়ের পরিচালক আব্দুল মোতালেব সরকার, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুল লতিফ, সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস, বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি দিনাজপুরের সাধারণ সম্পাদক ডা. চৌধুরী মোসাদ্দেকুল ইজদানী প্রমুখ।

/এমপি/

সম্পর্কিত

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৩

নোয়াখালীর চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলার দায় রাজনৈতিক নেতারা এড়িয়ে যেতে পারেন না বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা।

বৃহস্পতিবার বিকালে নোয়াখালী সার্কিট হাউস মিলনায়তনে নোয়াখালীর সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, চৌমুহনীর মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের মধ্য দিয়ে বোঝা গেলো দেশে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিকাশ ঘটছে। দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য তারা বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে।তৃণমূল পর্যায়ে ১৪ দল এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করা না গেলে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে না।

সভায় ১৪ দল নেতৃবৃন্দ চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের শুক্রবার থেকে প্রয়োজনীয় খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি প্রশাসনিকভাবে পূর্ণ নিরাপত্তা দেওয়ার দাবি জানান।

সভায় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এমপি, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি, জাসদের যুগ্ম সম্পাদক মো. মহসীন, জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ এএইচএম খায়রুল আনম সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদ উল্লাহ খানসহ সনাতন ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

এর আগে দুপুরে ১৪ দল নেতৃবৃন্দ চৌমুহনীতে ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির পরিদর্শন করেন এবং সনাতন সম্প্রদায়ের লোকজনের খোঁজখবর নেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ইউপি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ

ইউপি নির্বাচন: বিদ্রোহী প্রার্থীর অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ

ভারত থেকে ফিরেছেন পাচার হওয়া ১৯ তরুণী

ভারত থেকে ফিরেছেন পাচার হওয়া ১৯ তরুণী

চাকা পাংচার হয়ে খাদে বাস, নিহত এক আহত ১০

চাকা পাংচার হয়ে খাদে বাস, নিহত এক আহত ১০

আমরা চাই নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হোক এবং হচ্ছেও: সিইসি

আমরা চাই নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হোক এবং হচ্ছেও: সিইসি

যশোরের শরীফুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন

যশোরের শরীফুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন

বাগেরহাটে ভেসে গেছে ৮ শতাধিক চিংড়ি ঘের

বাগেরহাটে ভেসে গেছে ৮ শতাধিক চিংড়ি ঘের

বন বিভাগ জানে না সুন্দরবনে কত বন্যপ্রাণী

বন বিভাগ জানে না সুন্দরবনে কত বন্যপ্রাণী

বেনাপোল-পেট্রাপোলে আমদানি-রফতানি বন্ধ 

বেনাপোল-পেট্রাপোলে আমদানি-রফতানি বন্ধ 

সর্বশেষ

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

জমি নিয়ে বিরোধে ইউপি সদস্যকে মারধর, কাটা হলো বাড়ির সড়ক 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য মক্কার দুই মসজিদে ব্রেইল কোরআন শরিফ

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য মক্কার দুই মসজিদে ব্রেইল কোরআন শরিফ

৮০ কোটি টাকায় যেভাবে বদলে যাবে ধূপখোলা মাঠ

৮০ কোটি টাকায় যেভাবে বদলে যাবে ধূপখোলা মাঠ

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

© 2021 Bangla Tribune