X
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

আফগানিস্তানে তালেবান শাসনে ‘কঠিন পরীক্ষা’র মুখে ত্রাণ সংস্থাগুলো

আপডেট : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:০৪

বিশ বছর যুদ্ধের পর গত মাসে মার্কিন ও ন্যাটো জোটের সেনারা আফগানিস্তান ছেড়ে চলে গেছে। ‘পরিত্যক্ত’ আফগানিস্তানে থাকেননি পশ্চিমাদের কোনও কূটনীতিক। এমনকি আফগান নাগরিকদেরও দেশ ছাড়ার ঢল নামে। কিন্তু তালেবানের কাবুল দখলের পরও দেশটিতে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কয়েকটি আন্তর্জাতিক ত্রাণ সংস্থার প্রধান।

দুই দশক ধরে সারা বিশ্বের সামরিক ও কূটনীতিক শক্তি কাবুলের সুরক্ষিত গ্রিন জোনে বসবাস করেছে। কিন্তু বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো আফগানিস্তানজুড়ে দারিদ্র নিরসনের পাশাপাশি স্বাস্থ্য ও শিক্ষার মতো প্রয়োজনীয় সেবা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে। তালেবান ক্ষমতা দখলের পর কয়েকটি জায়গায় স্কুল থেকে শুরু করে হেলথ ক্লিনিক পর্যন্ত সবকিছুই বন্ধ রাখা হয়েছে। অন্তত ছয়টি প্রদেশে নারীদের কাজ করতে দেওয়া হয়নি। কয়েকটি স্থানে তালেবান অলাভজনক সংস্থাগুলোতে গিয়ে কর্মী এবং সম্পদের হিসেব চেয়েছে।

অলাভজনক সংস্থাগুলো তালেবানের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার চেষ্টায় রয়েছে। তবে এই সম্পর্ক স্থাপনে কঠিন শর্ত দেওয়া হচ্ছে। নারীদের কাজে যেতে না দেওয়া কেবল তাদের অধিকার হরণই নয়, বরং এতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে ত্রাণ বন্টনও। কেবল নারীরাই মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের প্রয়োজন জানতে পারে। অন্যদের এই কাজে নিয়োগ করা হলে ত্রাণ বিতরণে বৈষম্যের আশঙ্কা রয়েছে।

এই মুহূর্তে যখন অন্য যেকোনও সময়ের চেয়ে আফগানিস্তান ত্রাণ সবচেয়ে বেশি দরকার, সেই সময়েই তাদের কূটনৈতিক দক্ষতার সবচেয়ে বড় পরীক্ষা দিতে হচ্ছে। এখন তারাই হয়ে উঠেছেন আফগানিস্তানে গত কয়েক দশক ধরে পশ্চিমা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের সবচেয়ে দৃশ্যমান প্রতিনিধি। এছাড়া হাজার হাজার আফগান কর্মী সেদেশে কীভাবে কাজ করবেন তা নিয়ে দর কষাকষির মাঠ পর্যায়ের প্রতিনিধিও তারা।

এবারের সংকটে দাতা সংস্থাগুলোর সবচেয়ে বড় প্রাথমিক উদ্বেগ ছিল লুট ঠেকানো। তালেবান তাদের নিরাপত্তা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কাজ চালিয়ে যেতে বলে। এমনকি সশস্ত্র লোকেরা এলে ফোন করার জন্য নম্বরও দিয়ে যায়। তবে রাজধানীর বাইরে তালেবানের মনোভাব ভিন্ন। আর সেকারণেই দেশটির ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে মাত্র চারটিতে কাজ শুরু করতে পেরেছে তারা।

আছে অনিশ্চয়তা

কোনও কোনও দাতা সংস্থায় দেড় হাজারের মতো স্থানীয় কর্মী রয়েছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষির মতো খাতে সহায়তা দিয়ে থাকেন এসব কর্মী। অপেক্ষাকৃত বড় সংস্থাগুলো বলছে তারা কখনোই পাততাড়ি গোটানোর কথা চিন্তাও করেনি। এর বদলে বিদেশি সরকার ও সংস্থার হয়ে কাজ করা হাজার হাজার কর্মীকে চলে যেতে দেখেছেন তারা।

একটি দাতব্য সংস্থার কান্ট্রি পরিচালক বলেন, ‘যখন তারা (তালেবান) কাবুলে ঢুকে পড়লো তখন তিন দিন পর্যন্ত আমি কিছু খেতে বা ঘুমাতে পারিনি। আতঙ্কিত ছিলাম। পুরোটা সময় কর্মীদের সঙ্গে থেকেছি।’

তার অফিসেও কয়েকজন তালেবান সদস্য ঢুকে পড়ে। মৌখিকভাবে তারা বিদেশি কর্মীদের আফগানিস্তান ছেড়ে যেতে বলে। সে সময় অনেক আফগান কর্মীও চলে গেলেও বেশিরভাগই থেকে যান।

আফগানিস্তানে অবস্থান করে নিজ নিজ সংস্থার ত্রাণ তৎপরতার নেতৃত্ব দেওয়া আট জনের মধ্যে সাত জনই নারী। তাদেরই একজন বলেন, ‘আমরা খুব বেশি সংখ্যক এখানে নেই। কিন্তু অনেক অনিশ্চয়তা আছে।’

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার প্রধান ফিলিপ্পো গ্রান্ডি বলেন, ‘আমাদের সম্পৃক্ত হওয়া দরকার, কেননা এটা সম্পৃক্ত হওয়ার এবং প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ সময়।’

‘কিন্তু আমার মনে হয় বিচারের জন্য আমাদের একটু রক্ষণশীল হওয়া দরকার’, বলেন তিনি।

নিউ ইয়র্ক টাইমস অবলম্বনে।

/এএ/

সম্পর্কিত

শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া

শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

অবৈধ শোধনাগারে বিস্ফোরণ, নাইজেরিয়ায় নিহত অন্তত ২৫

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৫

নাইজেরিয়ার রিভারস প্রদেশের একটি অবৈধ তেল শোধনাগারে বিস্ফোরণে কয়েকটি শিশুসহ অন্তত ২৫ জন নিহত হয়েছে। রবিবার স্থানীয় এক নেতা এবং এক বাসিন্দা ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, গত শুক্রবার ওই বিস্ফোরণ ঘটে।

স্থানীয় কমিউনিটি নেতা ইফায়েনি ওমানো বলেন, ‘হতাহতের সংখ্যা খুব বেশি... আমরা ২৫টি মরতেহ গুনেছি। তাদের পরিচয় সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত নই।’ নিহতদের মধ্যে শিশু থাকার কথা নিশ্চিত করেন তিনি।

ইফায়েনি ওমানো এবং স্থানীয় বাসিন্দা চিকওয়েম গডউইন জানান, শুক্রবার ভোরের দিকে ওই বিস্ফোরণে বেশ কয়েকটি জনগোষ্ঠীর মানুষ নিহত হয়েছে।

এর আগে স্থানীয় পুলিশের এক মুখপাত্র বিস্ফোরণের কথা জানান। তবে হতাহতের সংখ্যা প্রকাশ করেননি তিনি।

নাইজেরিয়ার তেল সমৃদ্ধ ডেল্টা অঞ্চলে অবৈধ শোধনাগার থাকা বেশ স্বাভাবিক ঘটনা। স্থানীয় দরিদ্র বাসিন্দারা পাইপলাইন থেকে তেল চুরি করে বিক্রি করে থাকে। অপরিশোধিত জ্বালানি তেল ড্রামে উত্তপ্ত করে শোধন করা হয়, যা খুবই বিপজ্জনক।

আফ্রিকার সবচেয়ে বড় তেল রফতানিকারক নাইজেরিয়া। কর্মকর্তাদের আশঙ্কা পাইপলাইন থেকে চুরির কারণে প্রতিদিন দেশটি গড়ে প্রায় ২ হাজার ব্যারেল তেল হারায়। যা দেশটির উৎপাদনের ১০ শতাংশের বেশি। তেল চুরি এবং পাইপলাইন নষ্টের কারণে পরিবেশেরও মারাত্মক ক্ষতি হয়ে থাকে।

/জেজে/

সম্পর্কিত

টাইগ্রে অঞ্চলে নতুন অভিযান শুরু ইথিওপিয়ার

টাইগ্রে অঞ্চলে নতুন অভিযান শুরু ইথিওপিয়ার

ব্রিটিশ সতর্কতা জারির পর উগান্ডায় বোমা হামলা

ব্রিটিশ সতর্কতা জারির পর উগান্ডায় বোমা হামলা

সহকর্মীকে গুলি, পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দিচ্ছেন না নার্সরা

সহকর্মীকে গুলি, পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দিচ্ছেন না নার্সরা

সেই মিশনারিদের জন্য ১ কোটি ৭০ লাখ ডলার মুক্তিপণ দাবি

সেই মিশনারিদের জন্য ১ কোটি ৭০ লাখ ডলার মুক্তিপণ দাবি

শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৩

তাজিকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্তে রাশিয়ার নেতৃত্বে ছয় দিনের সামরিক মহড়া শেষ হয়েছে। এই মহড়ার উদ্দেশ্য হলো দক্ষিণ দিক থেকে কোনও আগ্রাসন আসলে দুসানবে রক্ষায় রাশিয়ার প্রস্তুতি দেখানো।

কাবুলের তালেবান নেতৃত্বের সঙ্গে শুরু থেকেই তাজিকিস্তানের সম্পর্ক খারাপ। সীমান্তের উভয় পাশে সেনা সমাবেশে উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে মস্কো। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত দেশ তাজিকিস্তানে সামরিক ঘাঁটি  রয়েছে রাশিয়ার।

কালেক্টিভ সিকিউরিটি ট্রিটি অর্গানাইজেশন (সিএসটিও) আয়োজিত এই মহড়ায় বেলারুশ, আর্মেনিয়া, কাজাখাস্তান এবং কিরগিজস্তান অংশ নেয়। প্রায় চার হাজার সেনার পাশাপাশি ট্যাংক, কামান এবং বিমান অংশ নেয়।

তাজিক প্রতিরক্ষামন্ত্রী শেরালি মিরজো বলেন, প্রথমবারের মতো এতো বড় আকারে মহড়া অনুষ্ঠিত হলো।

সিএসটিও মহাসচিব স্টানিসলাভ জাস বলেন, এই মহড়ার লক্ষ্য হচ্ছে তাজিকিস্তানে কোনও আগ্রাসন সহ্য করা হবে না- তা দেখানো। তিনি বলেন, ‘বিপদের মুখে আমরা তাজিকিস্তানকে একা ছেড়ে যাবো না।’

লাখ লাখ তাজিক আফগানিস্তানে বসবাস করেন। তারাই আফগানিস্তানের দ্বিতীয় বৃহত্তম নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী। আফগানিস্তানে সরকার গঠনে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীকে অন্তর্ভুক্ত করতে ব্যর্থ হওয়ায় তালেবানের কঠোর সমালোচনা করেছেন তাজিকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমোমালি রাখমোন।

রুশ সংবাদমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে ইমোমালি রাখমোনের সরকার উৎখাতে নৃতাত্ত্বিক তাজিক সশস্ত্র গোষ্ঠীর সঙ্গে জোট গড়তে চাইছে তালেবান।

/জেজে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৩
শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া
২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৯
০৫ অক্টোবর ২০২১, ২০:১০
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৫
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২৯

সম্পর্কিত

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

পশ্চিম তীরে নতুন ১৩০০ বাড়ি বানাবে ইসরায়েল

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:১৪

দখলকৃত পশ্চিম তীরে ইহুদি দখলদারদের জন্য নতুন করে বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে ইসরায়েল। তাৎক্ষণিকভাবে ফিলিস্তিনিদের পাশাপাশি এই ঘোষণার নিন্দা জানিয়েছে প্রতিবেশি জর্ডান।

রবিবার ইসরায়েলের ডানপন্থী প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেন্নেত সরকারের কন্সট্রাকশন ও আবাসন মন্ত্রণালয়ের তরফে বলা হয়, পশ্চিম তীরে নতুন এক হাজার ৩৫৫টি বাড়ি নির্মাণে টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। ১৯৬৭ সালের ছয় দিনের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের সময় ওই এলাকা দখল করে ইসরায়েল।

আবাসনমন্ত্রী জেভ এলকিন এক বিবৃতিতে বলেন, জায়নবাদী দৃষ্টিভঙ্গির জন্য পশ্চিম তীরে ইহুদি উপস্থিতি বাড়ানো জরুরি।

ইসরায়েলি ঘোষণার পর মন্ত্রিসভার এক সাপ্তাহিক বৈঠকে এই পরিকল্পনা ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্য দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান ফিলিস্তিনি প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ সাতিয়াহ। এই বসতি নির্মাণ পরিকল্পনাকে তিনি ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর আগ্রাসন বলে আখ্যা দেন।

শুক্রবার মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেছেন আবাসন পরিকল্পনা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। উত্তেজনা বাড়াতে পারে এবং আলোচনার ভিত্তিতে দুই রাষ্ট্র ভিত্তিক সমাধানের পথে বাধা হতে পারে এমন এক পাক্ষিক পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকতে তিনি ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের প্রতি আহ্বান জানান।

পশ্চিম তীরে প্রায় চার লাখ ৭৫ হাজার ইহুদি বসবাস করে। এসব বসতি আন্তর্জাতিক আইনে অবৈধ বলে বিবেচিত।

/জেজে/

সম্পর্কিত

ইসরায়েলের সঙ্গে আরব দেশের সম্পর্ক ছিন্ন করা উচিত: খামেনি

ইসরায়েলের সঙ্গে আরব দেশের সম্পর্ক ছিন্ন করা উচিত: খামেনি

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

কানাডা উপকূলে ছড়াচ্ছে বিষাক্ত গ্যাস

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৯

কানাডার প্রশান্ত মহাসাগর উপকূলে একটি কন্টেইনার জাহাজে অগ্নিকাণ্ডের সেখান থেকে ১৬ জনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। জিম কিংসটন নামের জাহাজটি থেকে বিষাক্ত গ্যাস নির্গত হচ্ছে। তবে কর্মকর্তারা বলছেন, এর কারণে স্থলে থাকা মানুষদের কোনও নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই।

গত শনিবার রাতে অগ্নিকাণ্ড শুরুর সময়ে জাহাজটি ভ্যানকুভারের উদ্দেশে যাচ্ছিলো। উদ্ধারকারী জাহাজ রাতভর বাইরে থেকে পানি ছিটিয়ে কন্টেইনার জাহাজটিকে ঠান্ডা রাখার চেষ্টা করে। কিন্তু রাসায়নিক হওয়ায় আগুন নেভাতে সরাসরি পানি ছেটানো যায়নি।

কানাডার কোস্ট গার্ড জানিয়েছে, জাহাজে আগুন জ্বলছে আর বিষাক্ত গ্যাস নির্গত হচ্ছে। অগ্নিকাণ্ডে দশটি কন্টেইনার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও জানিয়েছে তারা।

কোস্ট গার্ড বলছে, ‘বর্তমানে তীরে থাকা মানুষের কোনও নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। তবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ অব্যাহত থাকবে।’

কানাডার কোস্ট গার্ড জানিয়েছি জাহাজটিতে ৫২ হাজারের বেশি কেজির রাসায়নিক রয়েছে। এসব রাসায়নিক আগুন ধরে যাওয়া দুইটি কন্টেইনারে রয়েছে।

/জেজে/

সম্পর্কিত

কলম্বিয়ার মাদক মাফিয়া আটক, পাঠানো হবে যুক্তরাষ্ট্রে

কলম্বিয়ার মাদক মাফিয়া আটক, পাঠানো হবে যুক্তরাষ্ট্রে

ভারতে তৈরি অ্যারোমাথেরাপি স্প্রে থেকে ছড়াচ্ছে বিরল রোগ: যুক্তরাষ্ট্র

ভারতে তৈরি অ্যারোমাথেরাপি স্প্রে থেকে ছড়াচ্ছে বিরল রোগ: যুক্তরাষ্ট্র

মহামারিতে মার্কিন বিলিয়নিয়ারদের মুনাফা ছাড়িয়েছে ২ লাখ কোটি ডলার

মহামারিতে মার্কিন বিলিয়নিয়ারদের মুনাফা ছাড়িয়েছে ২ লাখ কোটি ডলার

শুটিং সেটে অ্যালেক বল্ডউইনের প্রপ গানের গুলিতে চিত্রগ্রাহক নিহত

শুটিং সেটে অ্যালেক বল্ডউইনের প্রপ গানের গুলিতে চিত্রগ্রাহক নিহত

কলম্বিয়ার মাদক মাফিয়া আটক, পাঠানো হবে যুক্তরাষ্ট্রে

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০২:১২

কলম্বিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড মাদক পাচারকারী দাইরো অ্যান্টোনিও উসুগাকে গ্রেফতার করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। শনিবার তাকে আটক করা হয়। এরপরই কলম্বিয়া জানিয়েছে ওটোনিয়েল নামে পরিচিত এই পাচারকারীকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

দাইরো অ্যান্টোনিও উসুগা কলম্বিয়ার সবচেয়ে বড় অপরাধী চক্রের নিয়ন্ত্রক। সেনা, বিমান ও পুলিশ বাহিনীর এক যৌথ অভিযানে তাকে আটক করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের মাদক নিয়ন্ত্রণ দফতর তাকে বহু বছর ধরেই খুঁজছে। ওয়াশিংটন তার মাথার দাম ৫০ লাখ ডলার নির্ধারণ করেছে। ওয়াশিংটনের অভিযোগ ২০০৩ সাল থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে অন্তত ৭৩ মেট্রিক টন কোকেইন যুক্তরাষ্ট্রে পাচার করেছে কলম্বিয়ার এই ড্রাগ লর্ড।

কলম্বিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ডিয়েগো মোলানো বলেছেন, পরবর্তী ধাপ হলো কর্মকর্তারা যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যর্পণ আদেশ অনুসরণ করবেন। ড্রাগ লর্ড ওটোনিয়েলকে বর্তমানে রাজধানী বোগোতার একটি সামরিক ঘাঁটিতে রাখা হয়েছে।

টেলিভিশনে প্রচারিত এক ভিডিও বার্তায় ড্রাগ লর্ডকে আটকের প্রশংসা করেছেন কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভান ডুকু। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে মাদক পাচারকারীদের বিরুদ্ধে এটাই এই শতাব্দির সবচেয়ে বড় আঘাত। এই আঘাতের সঙ্গে কেবল ১৯৯০ দশকে পাবলো এসকোবারের পতনের তুলনা চলে।’

পানামা সীমান্তবর্তী অ্যান্টিকুয়া প্রদেশের দুর্গম আস্তানা থেকে ড্রাগ লর্ড ওটোনিয়েল আটক করা হয়। অভিযানে পাঁচশ’ সেনা সদস্যের পাশাপাশি ২২টি হেলিকপ্টার অংশ নেয়। নিহত হয় এক পুলিশ কর্মকর্তা।

দুর্গম এলাকায় সেফ হাউজের নেটওয়ার্কের মধ্যেই চলাফেরা করতেন ওটোনিয়েল। কর্তৃপক্ষকে ফাঁকি দিতে ফোন ব্যবহার করতেন না। এর বদলে যোগাযোগের জন্য বাহকদের ওপর নির্ভর করতেন তিনি।

পুলিশ প্রধান জর্জ ভার্গাস জানান, স্যাটেলাইটে পাওয়া ছবি ব্যবহার করে ৫০টিরও বেশি সংকেত বিশ্লেষণ করে গোয়েন্দারা ড্রাগ লর্ডের অবস্থান শনাক্ত করতে সক্ষম হয়। তল্লাশিতে যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যও অংশ নেয়।

/জেজে/

সম্পর্কিত

কানাডা উপকূলে ছড়াচ্ছে বিষাক্ত গ্যাস

কানাডা উপকূলে ছড়াচ্ছে বিষাক্ত গ্যাস

ভারতে তৈরি অ্যারোমাথেরাপি স্প্রে থেকে ছড়াচ্ছে বিরল রোগ: যুক্তরাষ্ট্র

ভারতে তৈরি অ্যারোমাথেরাপি স্প্রে থেকে ছড়াচ্ছে বিরল রোগ: যুক্তরাষ্ট্র

মহামারিতে মার্কিন বিলিয়নিয়ারদের মুনাফা ছাড়িয়েছে ২ লাখ কোটি ডলার

মহামারিতে মার্কিন বিলিয়নিয়ারদের মুনাফা ছাড়িয়েছে ২ লাখ কোটি ডলার

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া

শেষ হলো আফগান সীমান্তে রুশ নেতৃত্বাধীন মহড়া

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

‘ইরাকে সরকার গঠনে বিদেশি হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়’

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

আফগানিস্তানের প্রতিবেশীদের নিয়ে বৈঠক আহ্বান ইরানের

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে: পুতিন

কাজের বিনিময়ে গম কর্মসূচি চালু করলো তালেবান

কাজের বিনিময়ে গম কর্মসূচি চালু করলো তালেবান

আটকেপড়া ভারতীয়দের উদ্ধারে মোদিকে চিঠি

আটকেপড়া ভারতীয়দের উদ্ধারে মোদিকে চিঠি

সর্বশেষ

রূপসার শিয়ালীর মন্দিরে হামলা মামলায় ২৩ আসামি জেলে

রূপসার শিয়ালীর মন্দিরে হামলা মামলায় ২৩ আসামি জেলে

সোহেলেই আটকে আছে ই-অরেঞ্জের তদন্ত

সোহেলেই আটকে আছে ই-অরেঞ্জের তদন্ত

নির্মাণে নতুন দিন আনছে কংক্রিট ব্লক

নির্মাণে নতুন দিন আনছে কংক্রিট ব্লক

স্বামীর মৃত্যুর ১৫ মিনিট পর মারা গেলেন স্ত্রী 

স্বামীর মৃত্যুর ১৫ মিনিট পর মারা গেলেন স্ত্রী 

অর্থের চেয়ে প্রীতি-সদিচ্ছার গুরুত্ব বেশি: বঙ্গবন্ধু

অর্থের চেয়ে প্রীতি-সদিচ্ছার গুরুত্ব বেশি: বঙ্গবন্ধু

© 2021 Bangla Tribune