X
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

স্কুল খুলছে, নতুন জুতা লাগবেই 

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:২১

খন্দকার সাইফুল জামান তার দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ছেলে আহনাফকে নিয়ে এসেছেন জুতার শোরুমে। তবে জুতার সাইজ না মেলায় বেশ চিন্তিত তিনি। জানান, স্কুল থেকে বলে দিয়েছে নতুন জুতা পরেই আসতে হবে। তাছাড়া দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় আগের জুতা পায়ে ছোট হয়ে গেছে, মাঝে কেনাও হয়নি। তাই এখন তড়িঘড়ি করে কিনতে আসা। 

জুতার শোরুমে ভিড়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ায় শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) হঠাৎ করে ভিড় বেড়েছে রাজধানীর বিভিন্ন জুতার শোরুমে। শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। রাজধানীর বেশ কয়েকটি শোরুম ঘুরে দেখা যায় একই দৃশ্য। 

মিরপুর-১০ নম্বরে বাটার শোরুমে সরেজমিনে দেখা যায়, বিক্রয়কর্মীরা রীতিমতো হাঁপিয়ে উঠছে ক্রেতাদের সাইজ ও পছন্দসই জুতা এনে দিতে। তারা জানান, তিন-চার দিন ধরে এই ভিড় শুরু হয়েছে এবং প্রতিনিয়ত এখন ভিড় বাড়ছে। 

জুতার শোরুমে ভিড়।

তবে বন্নী নামে এক অভিভাবক কিছুটা অভিযোগের সুরে বলেন, এভাবে হঠাৎ করে স্কুল খুলে দেওয়াটা মোটেই ঠিক হয়নি। তার মতে, মাস দুয়েক আগে স্কুল খোলার ঘোষণা দিলেও তারা এক ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখতেন। এখন হঠাৎ করে বাচ্চাদের জুতা-ড্রেস কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন। 

আরিফ নামে আরেকজন ক্রেতা বলেন, বাসা থেকে বের হওয়ার সময় ছোট ভাইয়ের জন্য জুতা কিনতে মা টাকা দিয়েছেন। তাই সরাসরি চলে এসেছেন জুতার শোরুমে। 

জুতার শোরুমে ভিড়।

এদিকে ভিড় থাকলেও অনেক শিশুদের মাঝেই স্কুল খোলার আনন্দ লক্ষ্য করা গিয়েছে। জুতার দোকানের ভিড়ের পাশাপাশি স্কুল ব্যাগের দোকানগুলোতেও ভিড় দেখা গেছে। 

/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বুড়িগঙ্গা রক্ষায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান 

বুড়িগঙ্গা রক্ষায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান 

সিআরবি রক্ষায় সাংস্কৃতিক প্রতিবাদে মুখর শাহবাগ

সিআরবি রক্ষায় সাংস্কৃতিক প্রতিবাদে মুখর শাহবাগ

‘ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা নিতে হবে’

‘ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা নিতে হবে’

ডিজিটাল নিরাপত্তায় ৯৯৯ সংযুক্তির দাবি

ডিজিটাল নিরাপত্তায় ৯৯৯ সংযুক্তির দাবি

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৪৬

রাজধানীর দারুস সালাম থানা এলাকা থেকে সিআইডির ভুয়া ইন্সপেক্টর পরিচয় দেওয়া একজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) দারুস সালাম থানা পুলিশ। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতের নাম মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার অভি। তার বাড়ি ঢাকার সাভারে।

এ সময় তার কাছ থেকে স্পেশাল ডিশন সিবি হরনেট-১৬০আর মোটরবাইক, একটি ওয়াকিটকি, একটি পাসপোর্ট একটি পোকো মোবাইল সেট জব্দ করা হয়।

দারুস সালাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জামাল হোসেন বলেন, শুক্রবার দারুস সালাম থানার গাবতলি তিন রাস্তার মোড়ে ট্রাফিক পুলিশ বক্সের পাশে পুলিশ সার্জেন্ট ও টহল পুলিশের সমন্বিত তল্লাশি চৌকিতে একজন মোটর আরোহীকে থামার সিগন্যাল দেওয়া হয়। চালক মোটরবাইক থামালে কর্তব্যরত অফিসার গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাইলে সে নিজেকে সিআইডির পুলিশ ইন্সপেক্টর হিসেবে পরিচয় দেন। তখন পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে বাইক নিয়ে দ্রুত চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে গ্রেফতার করা হয়। 

/আরটি/এনএইচ/

সম্পর্কিত

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১১

কাঁধের একটি ব্যাগ আর একটি কার্টন নিয়ে বিমানবন্দরে এসেছিলের  স্বপন মাতব্বর। তিনি যাবেন সৌদি আরবের দাম্মামে। তবে তার সৌদি আরব যাওয়া হয়নি।  শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিমানবন্দরে ব্যাগেজ স্ক্যানিংয়ের সময় তার কার্টনে ধরা পড়ে ইয়াবা। তাকে ইয়াবাসহ আটক করা হয়।

জানা গেছে, সৌদিগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-৪০৪৯ ফ্লাইটের যাত্রী ছিলেন স্বপন। বোর্ডিং শেষে চেক ইন ব্যাগেজ স্ক্যানিং এর সময় তার সঙ্গে থাকা একটি কার্টনে ইয়াবা শনাক্ত হয়। কার্টনের কার্বন পেপারে মুড়িয়ে আলাদা লেয়ার করে ২২ হাজার ৪৯০ পিস ইয়াবা লুকানো ছিল।

সূত্র জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে স্বপন মাতব্বর জানিয়েছেন, তার বাড়ি মাদারীপুরে। সৌদি আরবে থাকা পরিচিত একজন তাকে অনুরোধ জানিয়েছিলেন তার ভাইয়ের কাছ থেকে একটি সবজিসহ কার্টন নিয়ে আসার জন্য। 

বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তৌহিদ-উল আহসান বলেন, বিমানবন্দরে ডি সারিতে স্ক্রিনার নুরুজ্জামান ও ইউনুস আলী ওই যাত্রীর ব্যাগ স্ক্যানিং করেন। এরপর তার ব্যাগ তল্লাশি করে ইয়াবা আটক করেন তারা। আটক যাত্রীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

/সিএ/এমআর/

সম্পর্কিত

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্তকরণে বিলম্ব নয়

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৩

ট্রান্সফ্যাটের ক্ষতিকর প্রভাব এবং ট্রান্সফ্যাটমুক্ত বাংলাদেশ অর্জনে প্রক্রিয়াধীন ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা দ্রুততম সময়ের মধ্যে চূড়ান্ত করার তাগিদ দিয়েছেন সাংবাদিকরা।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) গ্লোবাল হেলথ অ্যাডভোকেসি ইনকিউবেটর (জিএইচএআই)-এর সহায়তায় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) ভবনের শহীদ ডাক্তার শামসুল আলম খান মিলন সভাকক্ষে ‘ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা: অগ্রগতি ও করণীয়’ শীর্ষক সাংবাদিক  কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী সাংবাদিকরা এ তাগিদ দেন। 

অ্যাডভোকেসি ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রজ্ঞা (প্রগতির জন্য জ্ঞান) আয়োজিত কর্মশালায় প্রিন্ট এবং অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত ২৯ জন সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালায় প্রজ্ঞা’র পক্ষ থেকে মূল উপস্থাপনা তুলে ধরেন ট্রান্সফ্যাট নির্মূল প্রকল্পের টিমলিডার হাসান শাহরিয়ার এবং প্রকল্প সমন্বয়ক মাহমুদ আল ইসলাম শিহাব।

এ সময় প্রজ্ঞার নির্বাহী পরিচালক এবিএম জুবায়ের, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ইপিডেমিওলজি অ্যান্ড রিসার্চ বিভাগের অধ্যাপক ডা. সোহেল রেজা চৌধুরী, ব্রাক ইউনিভার্সিটির অ্যাসোসিয়েট সায়েন্টিস্ট আবু আহমেদ শামীম, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ’র (বিএফএসএ) সদস্য মঞ্জুর মোর্শেদ, জিএইচএআই’র বাংলাদেশ কান্ট্রি লিড রূহুল কুদ্দুস উপস্থিত ছিলেন।

প্রজ্ঞার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রজ্ঞা জানিয়েছে, খাদ্যে উচ্চমাত্রার শিল্পোৎপাদিত ট্রান্সফ্যাটের কারণে প্রতিবছর পৃথিবীতে প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ হৃদরোগে মৃত্যুবরণ করেন। ডব্লিওএইচও’র প্রতিবেদন অনুযায়ী ট্রান্সফ্যাটঘটিত হৃদরোগে মৃত্যুর সর্বাধিক ঝুঁকিপূর্ণ ১৫টি দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম থাকলেও ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণের খসড়া নীতিমালাটি এখনো চূড়ান্ত করতে পারেনি সরকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০২৩ সালের মধ্যে বিশ্বের খাদ্য সরবরাহ শৃঙ্খল থেকে ট্রান্সফ্যাট নির্মূলের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে এবং এলক্ষ্যে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বিএফএসএ) ‘খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্স ফ্যাটি এসিড নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা, ২০২১’ প্রণয়নে কাজ করছে।

কর্মশালায় আবু আহমেদ শামীম বলেন, ডালডা বা বনস্পতি ঘি এবং তা দিয়ে তৈরি বিভিন্ন খাবার, ফাস্টফুড ও বেকারি পণ্যে ট্রান্সফ্যাট থাকে। অধ্যাপক ডা. সোহেল রেজা চৌধুরী বলেন, “আমাদের গবেষকদল ঢাকার ডালডা নমুনার ৯২ শতাংশে ডব্লিউএইচও সুপারিশকৃত ২% মাত্রার চেয়ে বেশি ট্রান্সফ্যাট (ট্রান্স ফ্যাটি এসিড) পেয়েছেন, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক।

মঞ্জুর মোর্শেদ জানিয়েছেন, খাদ্য মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যেই খসড়া প্রবিধানমালাটি চূড়ান্ত করতে ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। আমরা আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে এটি চূড়ান্ত হবে।

রূহুল কুদ্দুস বলেন, ‘ট্রান্সফ্যাট নির্মূলের অর্থনৈতিক গুরুত্বও অনেক। আমাদের প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের রফতানি বাজার দিন দিন বাড়ছে। ট্রান্সফ্যাটমুক্ত পণ্য তৈরি করতে না পারলে আমরা আন্তর্জাতিক বাজার হারাবো এবং দেশ অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

 

/এসআই/এফএএন/

সম্পর্কিত

ঢাকার কূটনৈতিক এলাকায় জঙ্গি হামলার চেষ্টা

ঢাকার কূটনৈতিক এলাকায় জঙ্গি হামলার চেষ্টা

মাস্ক ব্যবহারে অনীহা বেড়েছে

মাস্ক ব্যবহারে অনীহা বেড়েছে

রাসেলের মুক্তি দাবি

রাসেলের মুক্তি দাবি

নির্বাচন কমিশন গঠনে আইনের দাবি

নির্বাচন কমিশন গঠনে আইনের দাবি

‘হাসপাতাল দরকার আছে তবে প্রাকৃতিক হাসপাতালকে ধ্বংস করে নয়’ 

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০০

আমাদের দেশে হাসপাতাল দরকার আছে। সেটা সরকারি হাসপাতাল। কিন্তু প্রাকৃতিক হাসপাতালকে ধ্বংস করে নয়-বলে মন্তব্য করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ। 

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সিআরবিতে গাছ কেটে বাণিজ্যিক হাসপাতাল নির্মাণের প্রতিবাদে ‘প্রাণ-প্রকৃতি ধ্বংস করে বাণিজ্যিক স্থাপনা বন্ধ করো, সিআরবি বাঁচাও’ ব্যানারে আয়োজিত সাংস্কৃতিক সমাবেশে উপস্থিত থেকে তিনি একথা বলেন। 

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, সিআরবি নামক একটি জীবন্ত জায়গাকে নষ্ট করে বাণিজ্যিক হাসপাতাল নির্মাণের  যে চক্রান্ত তার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন চলছে। হাসপাতালের কথা বলা হচ্ছে, হাসপাতাল হবে মানুষের চিকিৎসার জন্য।  কিন্তু অসুস্থতা কোত্থেকে আসে, মানুষ কেন অসুস্থ হয়, সেই জায়গাটি যেন আমরা খেয়াল করি। বুড়িগঙ্গা নদীতে যদি স্বচ্ছ পানি প্রবাহিত হতো, ঢাকা শহরে যদি গাছপালা থাকতো, তাহলে ঢাকা শহরের মানুষ যেসকল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে যেমন,ফুসফুস, কিডনি,হৃৎপিণ্ড, মস্তিষ্ক, পাকস্থলীসহ বিভিন্ন ধরনের নিউরোলজিকাল সমস্যা যেগুলো আছে তার অর্ধেকও থাকতো না। একটা অসুখ তৈরির কারখানা তৈরি হয়েছে বাংলাদেশ। বিভিন্ন প্রকল্প আসলে হচ্ছে অসুখ তৈরির কারখানা।

দেশে  হাসপাতালের দরকার আছে তবে সেটা প্রকৃতি ধ্বংস করে নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রকৃতি নষ্ট করে কিছু লোকের ব্যবসা করার জন্য, মুনাফা অর্জন করার জন্য হাসপাতাল নামে দখল বৈধতা দেওয়ার বিরুদ্ধে আমাদের কঠিন প্রতিরোধ অব্যাহত রাখতে হবে।

/এমআর/

সম্পর্কিত

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্তকরণে বিলম্ব নয়

ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্তকরণে বিলম্ব নয়

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

‘পারিবারিক নির্যাতন কমাতে মোটিভেশন চলছে’

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৫৯

১৩ মাসে মিরপুর ডিভিশনের দায়িত্ব পালন করে ১১ বারই ডিএমপিতে শ্রেষ্ঠ ডিসি হয়েছেন উপ-পুলিশ কমিশনার এএসএম মাহাতাব। মিরপুরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) তার সঙ্গে কথা হয় বাংলা ট্রিবিউনের।

বাংলা ট্রিবিউন: সামাজিক কিংবা পারিবারিক নির্যাতন কমাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কেমন ব্যবস্থা নিচ্ছে? বিশেষ করে মিরপুর জোনের পরিস্থিতি কেমন?

এএসএম মাহাতাব: মিরপুরে ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ থাকে। ডিএমপির সবচেয়ে বড় বিভাগ এটি। নিম্ন, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তের লোকজনও এখানে বেশি। ভাসমান লোকও প্রচুর। তুচ্ছ ঘটনায় সামাজিক এবং পারিবারিক কারণে যেন কারও ক্ষতি না হয় তা নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে মোটিভেশনের কাজটি করে আসছি। সম্পর্কের ভাঙন ও এর বিপদ সম্পর্কে পরিবারগুলোকে জানাচ্ছি। পারিবারিক কিংবা সামাজিক নির্যাতনের ঘটনায় অনেকেই আমাদের কাছে আসছেন সহায়তার জন্য। আমরা আমাদের কর্মপরিকল্পনার কিছু সময় এ কাজে রাখি। এতে আমি মনে করি অন্য অপরাধের প্রবণতাও কমে আসবে।

বাংলা ট্রিবিউন: পারিবারিক বা সম্পর্কজনিত অপরাধে নতুন কোনও ট্রেন্ড কি দেখতে পাচ্ছেন?

এএসএম মাহাতাব: বিভিন্ন সময় ধর্ষণের অভিযোগে যারা থানায় মামলা করতে আসেন তাদের অনেকের ঘটনা তদন্তে দেখা যায়, পূর্ব সম্পর্কের জেরে তারা শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছিলেন। পরে কোনও কারণে মনোমালিন্য হলে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করতে চাচ্ছেন। এসব আমরা খতিয়ে দেখি। পরিবারের সঙ্গে কথা বলি আবার আইনানুগ ব্যবস্থাও নিই। ইদানিং দেখা যাচ্ছে অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যেও অনেকে নির্যাতনের মামলা দায়েরের চেষ্টা করছে। এ ধরনের সেনসিটিভ বিষয়গুলো এখন সতর্কতার সঙ্গে দেখছি।

বাংলা ট্রিবিউন: মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানে কেমন সাফল্য রয়েছে মিরপুরে?

এএসএম মাহাতাব: মাদক তো গোটা দেশে ছড়িয়ে আছে। মিরপুর বিভাগে মাদকের যে ট্রেন্ড তাতে পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব না হলেও নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। আগের চেয়ে ৪০ থেকে ৪৫ ভাগ মাদক-মামলা বেড়েছে। বড় কয়েকজন কারবারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বাংলা ট্রিবিউন: সন্ত্রাস-চাঁদাবাজিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে কেমন অ্যাকশনে যাচ্ছেন?

এএসএম মাহাতাব: এ সবে জড়িতদের তালিকা আমরা গণমাধ্যমে প্রকাশ করি না। তবে অনেকের তথ্য রয়েছে। তালিকা হালনাগাদ করা হচ্ছে। বিভিন্ন ঘটনা বিশ্লেষণ করে দেখতে পেয়েছি, অনেক ক্ষেত্রে ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহার করা হচ্ছে এই চাঁদাবাজির ঘটনা। কাউকে ফাঁসানো বা বিব্রত করতে কিংবা জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধেও চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা করা হচ্ছে। তদন্ত করে এসব জানতে পেরেছি। আবার ‘বড় সন্ত্রাসী’ পরিচয়ে চাঁদা চাইলে অনেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আসতে চান না। অথচ চাঁদাবাজি বা সন্ত্রাসের প্রশ্নে দ্বিমত বিবেচনা করা হয় না। সবাইকে বলবো- কেউ চাঁদা চাইলে দ্রুত পুলিশের সহায়তা নিন।

বাংলা ট্রিবিউন: রাজধানীতে ঢোকার মুখে মিরপুর বেড়িবাঁধ ও গাবতলীর নিরাপত্তায় কী ধরনের নজরদারি রয়েছে?

এএসএম মাহাতাব: গাবতলী এলাকায় সার্বক্ষণিক তল্লাশি চলে। এই কাজে দারুসসালাম থানা, টেকনিক্যাল পুলিশ বক্স, দারুসসালাম পুলিশ ফাঁড়ি, গাবতলী পুলিশ বক্স-এ দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা নিয়োজিত থাকেন। মিরপুর বেড়িবাঁধে আমাদের বিশেষ নজরদারি রয়েছে। বিশেষ করে রাতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

বাংলা ট্রিবিউন: গাবতলী বাস টার্মিনাল কেন্দ্রিক ভ্রাম্যমাণ ছিনতাই ঠেকাতে কী ব্যবস্থা রাখা হয়েছে?

এএসএম মাহাতাব: এই টার্মিনালের নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিয়োজিত রয়েছেন। মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে সমন্বয় করে আমাদের কার্যক্রম চলছে। আগের চেয়ে গাবতলী টার্মিনালে চুরি-ছিনতাই কমেছে। সন্ধ্যার পর রাত অবধি যেসব বাস গাবতলী থেকে বিভিন্ন জায়গা ছেড়ে যায়, সেগুলোর যাত্রীদের ভিডিও ধারণ করা হয় মালিক ও পরিবহন শ্রমিক নেতাদের সহায়তায়। এতেও অনেকে অপরাধ করার সাহস পায় না।

বাংলা ট্রিবিউন: থানাগুলোকে জনবান্ধব করার কোনও পরিকল্পনা আছে?

এএসএম মাহাতাব: অনেকেই তো বলে ‘পুলিশ খারাপ’। তথাপি, থানায় প্রতিদিন মামলা হচ্ছে, জিডি হচ্ছে। তবে কেউ কেউ থানাকে নিজের মতো করে ব্যবহার করতে চান। মানবিক, ব্যক্তিগত বা এখতিয়ারের বাইরের কোনও কাজে থানা সম্পৃক্ত হয় না। এটাও অনেকে মানতে চান না। আবার কেউ যদি মিথ্যা মামলা করতে চান আর বিষয়টি যদি ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জেনে থাকেন তবে অবশ্যই ওই মামলা তিনি নেবেন না। অনেকে এই ক্ষোভ থেকেও বলেন থানায় মামলা বা জিডি নেয় না। সত্যিকারের ভুক্তভোগীরা ঠিকই থানায় আসেন। পুলিশি সেবাও পেয়ে থাকেন।

বাংলা ট্রিবিউন: ভুইফোঁড় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে নজরদারি রয়েছে কি?

এএসএম মাহাতাব: নামসর্বস্ব কয়েকটি পত্রিকার পরিচয় দিয়ে অনেকেই পুলিশের কাজে ব্যাঘাত ঘটানোর চেষ্টা করেন। বিষয়টি আমাদের নজরে আছে। কিছুদিন আগে পল্লবী থানায় চাঁদাবাজি করতে আসা নামসর্বস্ব একটি পত্রিকার দুই সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ছাড়া মিরপুর সাংবাদিক ক্লাব নামে একটি সংগঠন একজনের জমি দখল করে কার্যালয় নির্মাণ করেছিল। সেটাও আমরা উচ্ছেদ করেছি।

বাংলা ট্রিবিউন: সামাজিক নির্যাতনের ঘটনাগুলো কী কারণে আপনার নজরদারিতে এলো?

এএসএম মাহাতাব: আমি ২০২০ সালের ৯ আগস্ট  মিরপুর বিভাগে জয়েন করি। এখানে জয়েন করার সময় আমি দিনে অন্তত ৪০-৫০টি নারী নির্যাতন বিষয়ক অভিযোগ পেতাম। পরে দেখলাম ৭০ ভাগই স্রেফ ক্ষোভের বশে মামলা করতে আসেন। মামলা না নিলে চলে তদবির। এ সময় ভেবে দেখলাম ঘটনার গুরুত্ব সাপেক্ষে তাৎক্ষণিকভাবে যদি তাদের বোঝাতে পারি তবে অনেক সমস্যার দ্রুত সমাধান হয়ে যায়।

বাংলা ট্রিবিউন: আপনাকে ধন্যবাদ।

এএসএম মাহাতাব: পুলিশের বিভিন্ন বিষয়গুলো তুলে ধরার জন্য বাংলা ট্রিবিউনকেও ধন্যবাদ।

মিরপুরের সাত থানার অপরাধচিত্র

চলতি বছরের ১-১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মিরপুরের ৭টি থানায় যত মামলা হয়েছে—  ২টি হত্যাকাণ্ড, ৮টি ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা ৭টি, ছিনতাইয়ের ২টি, চুরির ১৩টি, মাদকের ১১৩টি, অন্যান্য ঘটনায় ৩১টি। এসব মামলায় ৩১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

ওয়াকিটকি-মোটরবাইকসহ ভুয়া ইন্সপেক্টর গ্রেফতার

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

সবজির আড়ালে সৌদিতে ইয়াবা পাচারের চেষ্টা 

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, অতঃপর প্রতারণা

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

ইসলামি বক্তা মুফতি রিজওয়ান রফিকী গ্রেফতার

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বুড়িগঙ্গা রক্ষায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান 

বুড়িগঙ্গা রক্ষায় সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান 

সিআরবি রক্ষায় সাংস্কৃতিক প্রতিবাদে মুখর শাহবাগ

সিআরবি রক্ষায় সাংস্কৃতিক প্রতিবাদে মুখর শাহবাগ

‘ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা নিতে হবে’

‘ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা নিতে হবে’

ডিজিটাল নিরাপত্তায় ৯৯৯ সংযুক্তির দাবি

ডিজিটাল নিরাপত্তায় ৯৯৯ সংযুক্তির দাবি

রাজধানীতে নির্মাণাধীন প্রজেক্ট থেকে শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে নির্মাণাধীন প্রজেক্ট থেকে শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

গুলিস্তানে ভ্যান উল্টে চালকের মৃত্যু

গুলিস্তানে ভ্যান উল্টে চালকের মৃত্যু

ফাইজার-মডার্নার টিকা না পাওয়ায় প্রবাসীদের বিক্ষোভ

ফাইজার-মডার্নার টিকা না পাওয়ায় প্রবাসীদের বিক্ষোভ

সৌদিগামী যাত্রীর ব্যাগে ১৮ হাজার ইয়াবা

সৌদিগামী যাত্রীর ব্যাগে ১৮ হাজার ইয়াবা

চোখে ছানি অপারেশনে ফ্রি ক্যাম্প (ফটোস্টোরি)

চোখে ছানি অপারেশনে ফ্রি ক্যাম্প (ফটোস্টোরি)

রাজধানীতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে কেউ পার পাবে না: ডিএমপি

রাজধানীতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে কেউ পার পাবে না: ডিএমপি

সর্বশেষ

ঘুরছে বাংলা কারের চাকা, ৮ লাখেই নতুন মডেল

ঘুরছে বাংলা কারের চাকা, ৮ লাখেই নতুন মডেল

অস্কার ব্রুজনের ‘আগুনের গোলায় ঝাঁপ’

অস্কার ব্রুজনের ‘আগুনের গোলায় ঝাঁপ’

বিদ্যালয়ের টয়লেট থেকে ছাত্রী উদ্ধার, প্রধান শিক্ষককে শোকজ

বিদ্যালয়ের টয়লেট থেকে ছাত্রী উদ্ধার, প্রধান শিক্ষককে শোকজ

এহসান গ্রুপে ৪০ লাখ টাকা রেখেছেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা

এহসান গ্রুপে ৪০ লাখ টাকা রেখেছেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা

বান্দরবানে যাত্রীবাহী গাড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণ

বান্দরবানে যাত্রীবাহী গাড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণ

© 2021 Bangla Tribune