X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

বিয়ে করে ইরাকে বিক্রি

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৪৫

লিটন মিয়া। প্রায় তিন দশক আগে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। দেশের একটি সরকারি হাসপাতালে মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে চাকরি করতেন। অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কারণে সেখান থেকে চাকরিচ্যুত হন। এরপর চলে যান ইরাকে। সেখানে গিয়ে নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দেন। দেশে বিভিন্ন জায়গায় সেই পরিচয়ে বিয়ে করেন ছয়টি। বিয়ে করে এসব নারীদের ইরাকে চাকরি দেওয়ার কথা বলে বিক্রি করে দিতেন। অবশেষে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন এই নারী পাচারকারী। 

কে এই লিটন মিয়া?

১৯৯২ সালে ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠান থেকে এইচএসসি পাস করেন লিটন মিয়া। দেশের সরকারি একটি সরকারি হাসপাতালে মেডিক্যাল অ্যাসিসটেন্ট হিসেবে চাকরি শুরু করেন। মিথ্যা প্ররোচনা ও অনৈতিক কাজের জন্য সেখান থেকে তার চাকরি চলে যায়।

২০০২ সালে লিটন ইরাকে যান। এসময় নিজেকে ইরাকের বাগদাদে একটি স্বনামধন্য হাসপাতালে চাকরি করতেন বলে দেশে পরিচয় দিতেন। পরবর্তীতে কয়েকজন মিলে ইরাকে নারী পাচার সিন্ডিকেট গড়ে তুলেন। লিটন মধ্যপ্রাচ্য থেকে ২০১৩ সালের দিকে ইতালি চলে যান। ২০১৮ সাল পর্যন্ত সেখানে ছিলেন। এসময় ইরাক, দুবাই তার আসা যাওয়া ছিল।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে ঢাকার উত্তরা থেকে র‌্যাব লিটন মিয়া ও তার সহযোগী আজাদকে গ্রেফতার করে।

যেভাবে নারীদের পাচার করা হতো

লিটন দেশের নারীদের সঙ্গে প্রথমে বিভিন্ন মাধ্যমে পরিচয় হতেন। তার দেশি সিন্ডিকেটও নারীদের বিদেশে পাঠানোর কথা বলে তার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতো। তাদের কাছে নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিতেন লিটন। মোবাইল ফোন, টেলিফোন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সখ্যতা গড়ে তুলতেন। এরপর ইরাকে মেডিক্যালে চাকরির প্রলোভন দেখাতেন। এভাবে সখ্যতা গড়ে বিয়ের প্রস্তাব দিতেন। কখনও টেলিফোনে, কখনও দেশে এসে সরাসরি বিয়ে করতেন। এভাবে অন্তত ছয়জনকে বিয়ে করেন। এরপর তাদের টুরিস্ট ভিসায় দুবাই এবং দুবাই থেকে ইরাকে নিয়ে যেতেন লিটন। এদের মধ্যে পাঁচজনকে ইরাকে পাচার করে বিক্রি করে দিয়েছেন।

বিশেষ করে বিউটি পার্লারের কাজ জানা নারী ও নার্সিং পেশায় নিয়োজিত নারীদের পাচার করেছেন লিটন। বিদেশের হাসপাতাল, বিউটি পার্লার ও সুপারশপে চাকরির প্রলোভনে নারীদের পাচার করতো লিটনের চক্র।

ইরাক, দুবাইসহ বিভিন্ন দেশে নিয়ে জিম্মি করে দেশে থাকা ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করা হতো।

ইরাক ও দুবাইসহ বিভিন্ন দেশে এই সিন্ডিকেটের একাধিক সেফহাউজ রয়েছে। এখন পর্যন্ত প্রায় দুই শতাধিক নারী-পুরুষকে তারা তারা পাচার করেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

ভুক্তভোগীদের বক্তব্য

সর্বশেষ পাচার হওয়া এক নার্স বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমাকে ইরাকে পাচার করে বিক্রি করা হয়েছিল। সেখানে একটি সেফ হাউজে রাখা হয়েছিল। সেই সেফহোমে আরও ১৫-২০ নারীকে দেখেছি। যাদের পাচার করে সেখানে নেওয়া হয়েছে।’

সেফ হাউজ থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর এই নারী ইরাকের একটি হাসপাতালে চাকরি করতেন। লিটন তাকে বিয়ে করে ইরাকে নিয়েছিলেন। পরবর্তীতে সেখান থেকে পালিয়ে দেশে ফিরে আসেন।

আজাদ

লিটনের অন্যতম সহযোগী আজাদ

লিটনের অন্যতম সহযোগী আজাদ। র‌্যাব শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে মিরপুর থেকে তাকেও গ্রেফতার করা হয়। আজাদ দেশেই সিন্ডিকেটটির পরিচালনা করতেন। দেশে তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই এসব নারী-পুরুষকে পাচার করা হয়েছে। তিনি নারীদের পাসপোর্ট প্রস্তুত, টাকা নেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় দেখতেন। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একটি বিলাসবহুল প্রাইভেট করা, বিয়ার, দেশি-বিদেশি জাল টাকা, পাসপোর্ট ও বিভিন্ন সিল।

র‌্যাবের বক্তব্য

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, নারীদের মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে যাওয়ার পর সুযোগ বুঝে বিক্রি করে দেওয়া হতো। চক্রের দশজন সদস্যের মধ্যে সাতজন ইরাকসহ মধ্যপ্রাচ্যে আর বাকিরা দেশে এই কাজ করছিল। তিন থেকে চার লাখ টাকার বিনিময়ে এসব নারীদের চাকরির আশ্বাসে মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে যাওয়া হতো। মানব পাচারের প্রথম ধাপে ট্যুরিস্ট ভিসায় দুবাই এরপর ভিজিট ভিসার মাধ্যমে ইরাকে নেওয়া হতো। চক্রটি ৩০-৪০ জন নারীকে পাচার করেছে।

গ্রেফতারকৃত লিটন মিয়া ২০১৯ সালের পর আর ইরাকে যেতে পারেননি। সর্বশেষ দেশেই বালুর ব্যবসাসহ সাধারণ মানুষের প্রতারণা করে আসছিলেন। ভুক্তভোগী কয়েকজন নারী দেশে ফিরে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলে র‌্যাব তাকে গ্রেফতার করে।

আরও পড়ুন: মানবপাচারে জড়িত লিটন ও আজাদ গ্রেফতার

/এমআর/

সম্পর্কিত

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে ডিজিটাল অপরাধও বেড়েছে: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৫

দেশে ইন্টারনেট নির্ভরতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ডিজিটাল অপরাধও বাড়ছে বলে মনে করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। এ প্রেক্ষাপট বিবেচনায় ডিজিটাল অপরাধ প্রতিরোধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ অপরিহার্য বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেছেন, ডিজিটাল অপরাধ শনাক্ত  ও তা দমনে ডিজিটাল প্রযুক্তিই ব্যবহার করতে হবে। প্রচলিত পদ্ধতিতে ডিজিটাল অপরাধ মোকাবিলা সম্ভব নয়।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, শুধু তাই নয়, সবার আগে জনগণের মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে, এর কোনও বিকল্প নেই। 

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর রমনাস্থ বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের (আইইবি) কম্পিউটার কৌশল বিভাগের উদ্যোগে আইইবি সদর দফতরের কাউন্সিল হলে ‘নিরাপদ ইন্টারনেট : চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক এক সেমিনারে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। 

আইইবি’র কম্পিউটার কৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. তমিজ উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে এবং কম্পিউটার কৌশল বিভাগের সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার সঞ্জয় কুমার নাথের সঞ্চালনায় এ সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন, আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সাবেক প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর, ভাইস প্রেসিডেন্ট (এইচআরডি) ইঞ্জিনিয়ার মো. নূরুজ্জামান এবং টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মো. সাহাব উদ্দিন। সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, আইইবি’র সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু)।

এ সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সিটিটিসি’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইঞ্জিনিয়ার সাইদ নাসিরুল্লাহ। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন, আইইবি কম্পিউটার কৌশল বিভাগের ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার খান মোহাম্মদ কায়ছার।

মন্ত্রী বলেন, দেশে এখন ১১ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। কিন্তু  এদের মধ্যে স্বল্প-সংখ্যক মানুষ প্রযুক্তির সাথে খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা রাখেন। 

মাত্র কয়েক বছর আগেও ডিজিটাল নিরাপত্তা বলতে কোনও প্রযুক্তি কিংবা অন্য কোনও কৌশল বা সুনির্দিষ্ট আইন ছিল না উল্লেখ করে ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশের অগ্রদূত মোস্তাফা জব্বার বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সাইবার থ্রেড ডিটেকশন ও রেসপন্স কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। এর ফলে ইতোমধ্যে ২২ হাজার পর্নো সাইট এবং ৪ হাজার জুয়ার সাইটসহ আরও সহস্রাধিক আপত্তিকর সাইট বন্ধ করা হয়েছে। 

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘দেশে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের প্রক্রিয়া চলছে। ভারত ও সৌদি আরবে আমরা ব্যান্ডউইডথ রফতানি করছি। ওরা আমাদের কাছ থেকে আরও ব্যান্ডউইথ নেবে। প্রতিবেশি ভূটান ও নেপালেও ব্যান্ড উইথ রফতানির প্রক্রিয়া চলছে, এটা আমাদের জন্য গর্বের।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘চলতি বছরেই আমরা সীমিত পরিসরে ফাইভজি চালু করতে যাচ্ছি। দেশের ৫টি অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিটিসিএল ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক স্থাপনে কাজ করে যাচ্ছে। টেলিটকও ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক নিয়ে কাজ করছে।’

/ইউএস/

সম্পর্কিত

উন্নত প্রযুক্তির নিরাপত্তা পণ্য ভালো শর্তে ক্রয়ে আগ্রহী বাংলাদেশ

উন্নত প্রযুক্তির নিরাপত্তা পণ্য ভালো শর্তে ক্রয়ে আগ্রহী বাংলাদেশ

কক্সবাজারের সাথে রেল যোগাযোগ চালু হবে ২০২২ সালে: রেলমন্ত্রী

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৬

আগামী ২০২২ সালের বিজয় দিবসের আগেই সারাদেশের সাথে কক্সবাজারের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। তিনি বলেন, সেই লক্ষ্যে এগিয়ে চলছে দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ কাজ।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রেল লাইনের বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন ও কক্সবাজার শহরতলীর ঝিলংজা এলাকায় নির্মাণাধীন রেলওয়ে স্টেশনের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন শেষে গণমাধ্যমের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, কক্সবাজার যেহেতু একটি পর্যটন এলাকা, সে কারণে এখানে পর্যটকদের যাতায়াতের জন্য আলাদা ট্যুরিস্ট ট্রেন চালু করা হবে। চকরিয়া থেকে মাতারবাড়ি পর্যন্ত ১৮ কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণ করে বন্দরের সাথে সংযুক্ত করা হবে। এতে করে অর্থনীতির নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হবে। আর এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু দারিদ্র্য ক্ষুধামুক্ত যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন সে স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

মন্ত্রী কক্সবাজার শহরতলীর ঝিলংজা এলাকায় নির্মাণাধীন আইকনিক রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শন করেন। এরপর রামুর কয়েকটি নির্মাণাধীন ব্রিজ, রামুর জংশন এলাকা পরিদর্শন শেষে রামু রশিদ নগর এলাকায় ৬ কিলোমিটার রেললাইন পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে মন্ত্রী বলেন, রেললাইন এখনও নির্মাণাধীন, তাই পানি নিষ্কাশনসহ পরিবেশগত কোনও সমস্যা থাকলে তা এখনই সংশোধন করা হবে।

এ সময় কক্সবাজার-রামু আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল, চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত রেললাইন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বৃহস্পতিবার রামু উপজেলার পানির ছড়া এলাকার রেলওয়ে ট্র্যাক নির্মাণের অগ্রগতি এবং দুলহাজারায় নির্মাণাধীন রেলওয়ে স্টেশন ভবন এবং অন্যান্য স্থাপনা পরিদর্শন পরিদর্শন করবেন। খবর বাসস

/ইউএস/

সম্পর্কিত

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

আধুনিক পাবলিক টয়লেটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন রেলমন্ত্রী

আধুনিক পাবলিক টয়লেটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন রেলমন্ত্রী

টিকিট শেষ, তবুও অপেক্ষা (ফটোস্টোরি)

টিকিট শেষ, তবুও অপেক্ষা (ফটোস্টোরি)

এক সপ্তাহের জন্য ট্রেন চলবে

এক সপ্তাহের জন্য ট্রেন চলবে

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭

শুল্ক ফাঁকি দিয়ে স্বর্ণ ‘চোরাচালান করতে গিয়ে’ ধরা পড়েছেন এক সৌদি আরব প্রবাসী। ২ কেজি ৯০০ গ্রাম স্বর্ণবারসহ মোহাম্মদ রিপন নামের ওই প্রবাসীকে আটক করে কাস্টম হাউজের প্রিভেন্টিভ দল।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ যাত্রীকে আটক করা হয় বলে জানান ঢাকা কাস্টম হাউজের ডেপুটি কমিশনার (প্রিভেন্টিভ) মো. সানোয়ারুল কবীর।

আটককৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজার মূল্য ২ কোটি টাকা উল্লেখ করে সানোয়ারুল কবীর জানান, শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভিযান চালিয়ে সৌদি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট থেকে এক যাত্রীকে আটক করা হয়। যাত্রীর হাতে থাকা হুডি জ্যাকেটের হাতা থেকে স্বর্ণবারগুলো পাওয়া যায়। ফ্লাইটটি রাত ১১টা ১২ মিনিটের দিকে অবতরণ করে।

পাসপোর্ট অনুসারে যাত্রীর নাম মোহাম্মদ রিপন। আটককৃত যাত্রীর বিরুদ্ধে কাস্টমস আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা ও বিধি মোতাবেক ফৌজদারি মামলা দায়ের করে থানায় হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান এই কাস্টমস কর্মকর্তা।

/সিএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

গার্মেন্টস পণ্য চুরি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০০

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একের পর এক গার্মেন্ট পণ্য চুরির ঘটনায় উদ্বিগ্ন পোশাক রফতানিকারকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট অভিযান চালিয়ে একাধিক চক্রকে গ্রেফতার করলেও থামানো যাচ্ছে না চুরি। পণ্যের চালান বিদেশি ক্রেতার কাছে পৌঁছার পরই মূলত ঘটনা জানাজানি হয়। যাতে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদের জরিমানা গোনার পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে দেশের সুনামও। এই অবস্থায় চুরি ঠেকাতে বিশেষ ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাভার্ডভ্যানে বাধ্যতামূলক জিপিএস বসানোসহ মহাসড়কে সিসিটিভি ক্যামেরাও বসানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে গত ১৩ জুলাই পোশাক রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে হাইওয়ে পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মল্লিক ফখরুল ইসলামকে প্রধান করে একটি কমিটি করা হয়। এরপরই উদ্যোগী হয় হাইওয়ে পুলিশ।

কমিটির সদস্য সচিব পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট) মোশারফ হোসেন মিয়াজী বলেন, ‘নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। শিগগিরই চুরি নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। এ সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করার প্রক্রিয়াও চলছে।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, গার্মেন্টস পণ্য চুরিতে মূলত কাভার্ডভ্যানের চালকরাই জড়িত থাকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় রীতিমতো গোডাউন ভাড়া করে চোরাই পণ্য রাখে চক্রের সদস্যরা। কোনও কাভার্ডভ্যান যেন মহাসড়ক ছেড়ে আশপাশের গোডাউনে ঢুকতে না পারে সেজন্য জিপিএস সিস্টেম চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে গার্মেন্টস মালিকদেরও এ বিষয়ে জানানো হচ্ছে। জিপিএস প্রযুক্তি লাগানো থাকলে কাভার্ডভ্যানটি অন্য পথে যাচ্ছে কিনা বা কোথাও দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকছে কিনা তা নজরদারি করা যাবে।

হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, জিপিএসের পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ৪৯০টি পয়েন্টে অত্যাধুনিক সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এক কিলোমিটার পর পর বিভিন্ন দিকে তাক করা মোট ১৫৯০টি সিসিটিভি ক্যামেরা থাকবে। হাইওয়ে পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে পুরো বিষয়টি নজরদারি করা হবে। এতে মহাসড়কে সংঘটিত অন্য অপরাধও নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, কমিটির সভায় আরও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গার্মেন্ট কারখানা থেকে কাভার্ডভ্যানে পণ্য ওঠানোর আগে চালকের ছবি তুলে রাখা এবং মোবাইল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য সংরক্ষণ করা হবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আরেক কর্মকর্তা জানান, চুরির বিষয়ে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদেরও কিছু অবহেলা রয়েছে। কোটি কোটি টাকার পণ্য পাঠানোর সময় পরিবহনের সঙ্গে একজন প্রতিনিধি পাঠানো হলেও চুরি কিছুটা ঠেকানো যেতে পারে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ চালকের ওপর ভরসা করে পণ্য বন্দরে পাঠানোর ঝুঁকি নিচ্ছেন।

হাইওয়ে পুলিশের কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার রহমত উল্লাহ বলেন, ‘মহাসড়কে আমরা নিয়মিত টহল দিয়ে থাকি। আশা করছি চুরির ঘটনা শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসা যাবে।’

সম্প্রতি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গার্মেন্ট পণ্য চুরি চক্রের হোতাসহ সাত জনকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের সদস্যরা জানিয়েছে, অনেক কাভার্ডভ্যান চালক কারখানায় যাওয়ার আগে গাড়ির নম্বর প্লেট বদলে ভুয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সের কপি দিয়ে আসে। যাতে চুরির পর চালককে শনাক্ত না করা যায়।

বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব চৌধুরী জাফর আহম্মদ বলেন, ‘আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গার্মেন্ট কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বসে যৌথভাবে একটি নীতিমালা করছি। এটি বাস্তবায়ন হলে চুরি ঠেকানো যাবে।’

তিনি বলেন, ‘কাভার্ডভ্যান ভাড়া নেওয়ার আগে ওই চালক বা গাড়ির মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হওয়া এবং চালক কোনও ইউনিয়নের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে। সেক্ষেত্রে চুরি হলে চালককে শনাক্ত করা সহজ হবে। আরও কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আশা করছি সবাই মিলে চুরি ঠেকাতে পারবো।’

 

 

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

চলতি অর্থবছরে জিডিপি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ: এডিবি

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৪৫

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ৮ শতাংশ, এমন পূর্বাভাস দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক-এডিবি।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) এডিবির ঢাকা কার্যালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এডিবি জানায়, শিল্প খাতে শক্তিশালী পুনরুদ্ধারের কারণে এমন প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে বাংলাদেশ। এছাড়া বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার হচ্ছে এবং সরকারি উৎপাদন-বান্ধব নীতিমালার কারণে জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়বে। এ বছর মূল্যস্ফীতি হতে পারে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ।

এডিবি তাদের এক প্রতিবেদনে বলেছে, প্রবৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে বর্তমানের প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে করোনাভাইরাস মহামারি। এই অভিঘাত মোকাবিলা করেও বিদায়ী ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছিল। এর মধ্যে শিল্প কারখানা ও রফতানি খাত ঘুরে দাঁড়ানোয় চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সরকার জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করেছে ৭ শতাংশের বেশি। দেশের সামগ্রিক অর্থনীতি বিবেচনায় নিয়ে এশীয় ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকও মনে করে, বাংলাদেশ এই অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির ইতিবাচক ধারায় ফিরবে।

এডিবির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এডিবি বাংলাদেশে তার কর্মসূচির অগ্রাধিকার পুনর্বিন্যাস করেছে। স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষা, দক্ষতা এবং গ্রামীণ উন্নয়ন, পানি ও স্যানিটেশন এবং অর্থ খাতের ওপর জোর দিচ্ছে। ২০২০ সালের প্রথম দিকে কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে সামাজিক সুরক্ষা, কর্মসংস্থান, ভ্যাকসিন সংগ্রহ এবং জরুরি ব্যবস্থাপনার জন্য ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার অনুমোদিত হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ বলেন, ‘জীবিকা রক্ষায় জীবন বাঁচানোর জন্য সরকারের নীতিগুলো বাংলাদেশের পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করেছে, যা সাম্প্রতিক কঠিন সময়ে প্রশংসনীয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় রাখা বিশ্বের কয়েকটি দেশের মধ্যে একটি। বিচক্ষণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা, উদ্দীপক ব্যবস্থা এবং সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির দক্ষ বাস্তবায়ন বাংলাদেশের এ অবস্থায় টিকে থাকতে সাহায্য করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য অব্যাহত প্রচেষ্টা, দ্রুত ভ্যাকসিন দেওয়া এবং অভ্যন্তরীণ সম্পদ সংগ্রহের উন্নতি পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়াকে আরও ত্বরান্বিত করবে।’

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের কাজ শুরু

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

বৃহস্পতিবারের সমাবেশ স্থগিত

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

জ্যাকেটের হাতায় ২৫টি স্বর্ণবার, সৌদি প্রবাসী আটক

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

গার্মেন্টস পণ্য চুরিকাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

‘সর্ব রোগের মহৌষধ’ বলে প্রতারণা: ১৭ জন গ্রেফতার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মিরপুরে স্কুলশিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

রাজধানীতে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু

রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা: যা আছে এজাহারে

রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা: যা আছে এজাহারে

ইভ্যালির সম্পত্তি বিক্রি ও হস্তান্তরে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

ইভ্যালির সম্পত্তি বিক্রি ও হস্তান্তরে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় আল আমিনকে খুন করে ডায়মন্ড

প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় আল আমিনকে খুন করে ডায়মন্ড

রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার, একজন গ্রেফতার

রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার, একজন গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ী থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নাহিদ গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ী থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নাহিদ গ্রেফতার

সর্বশেষ

ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে ডিজিটাল অপরাধও বেড়েছে: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে ডিজিটাল অপরাধও বেড়েছে: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

কক্সবাজারের সাথে রেল যোগাযোগ চালু হবে ২০২২ সালে: রেলমন্ত্রী

কক্সবাজারের সাথে রেল যোগাযোগ চালু হবে ২০২২ সালে: রেলমন্ত্রী

রোনালদোবিহীন ম্যান ইউর বিপক্ষে ‘প্রতিশোধ’ নিলো ওয়েস্ট হাম

রোনালদোবিহীন ম্যান ইউর বিপক্ষে ‘প্রতিশোধ’ নিলো ওয়েস্ট হাম

পিএসজিকে শেষ মুহূর্তে জেতালেন হাকিমি

পিএসজিকে শেষ মুহূর্তে জেতালেন হাকিমি

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

করোনার টিকাকে ‘বৈশ্বিক জনস্বার্থ সামগ্রী’ ঘোষণার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

© 2021 Bangla Tribune