X
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

চাকরির আট বছরেই ১২ কোটি টাকার মালিক বিআরটিএ কর্মকর্তা

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৫

চাকরির বয়স মাত্র আট বছর। ২০১২ সালে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ-বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক হিসেবে যোগদান করেছিলেন। এরমধ্যেই তিনি বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন। ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে অর্জিত এসব স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ করেছেন পরিবারের সদস্যদের নামে। তবু শেষ রক্ষা হয়নি তার। প্রাথমিক তদন্ত শেষে ফারহানুল ইসলাম নামে বিআরটিএ’র ওই কর্মকর্তার নামে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। মামলায় আসামি করা হয়েছে তার ভাই রায়হানুল ইসলামকেও।

আজ বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা-১-এ সংস্থাটির উপ-পরিচালক রফিকুজ্জামান বাদী হয়ে ওই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। দুদকের সংশ্লিষ্ট সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

দুদক সূত্র জানায়, বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক ফারহানুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগতি থানাধীন রামদয়াল চরআলগী এলাকায়। ২০১২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর তিনি বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকেই তিনি ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে বিপুল অর্থ আয় করেন। দীর্ঘদিন ছিলেন মিরপুরের বিআরটিএ কার্যালয়ে। গত বছরের ২ নভেম্বর তিনি নোয়াখালী সার্কেলে বদলি হন। বিভিন্ন সময়ে অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ গচ্ছিত রাখার জন্য স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, ইউসিবিএল ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক এবং আইডিএলসিতে সঞ্চয়ী হিসাব, চলতি হিসাব ও ক্রেডিট কার্ড হিসাবসহ মোট দশটি হিসাব খুলে ১২ কোটি ৮৪ লাখ টাকা লেনদেন করেন। প্রাথমিক অনুসন্ধানে এসব অর্থের কোনও বৈধ উৎস তিনি দেখাতে পারেননি।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ৫ নভেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় বছর আট মাসের মধ্যে ছয়টি ব্যাংক হিসাব খোলেন। এসব ব্যাংক হিসাবের মধ্যে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের গুলশান শাখার একটি হিসাবে ছয় কোটি ৯২ লাখ টাকা, একই ব্যাংকের আরেকটি হিসাবে ১৪ লাখ টাকা, একটি ভিসা কার্ডের বিপরীতে ১৮ লাখ টাকা, একটি মাস্টার কার্ডের বিপরীতে ২৮ লাখ টাকা লেনদেন করেন। এছাড়া ফারহানুল ইসলাম তার আপন ছোট ভাই রায়হানুল ইসলামের নামে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের একই শাখায় নতুন একটি হিসাব খুলে এক কোটি ১৩ লাখ টাকা, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বসুন্ধরা শাখায় আরেকটি হিসাব খুলে ১১ লাখ টাকা লেনদেন করেন।

দুদক সূত্র জানায়, ফারহানুল ইসলাম তার মা লুৎফুন নাহারের নামে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের মিরপুর-১০ নম্বর শাখায় একটি ও আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডে একটি হিসাব খোলেন। এই দুটি ব্যাংক হিসাবে মা লুৎফুন নাহারের নামে ৪ কোটি ৮ লাখ টাকা লেনদেন করেন।

দুদকের এক কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিক অনুসন্ধানে রায়হানুল ইসলাম ও তার পরিবার সদস্যদের ১২ কোটি ৮৪ লাখ টাকার লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে। কিন্তু এসব অর্থের কোনও বৈধ উৎস দেখাতে পারেননি তারা।

দুদক সূত্র জানায়, মামলার তদন্তে আরও তথ্য পাওয়া গেলে সেসব যোগ করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হবে।

/এনএল/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ 

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫৪

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম ও ভূমি মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ করেছে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদেরের পরিবার। পাশাপাশি ক্ষতিপূরণ আদায় ও জানমাল রক্ষার্থে ৬ দফা দাবি জানায় পরিবারটি।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি তুলে ধরেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য নুরতাজ আরা ঐশী। এ সময় পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেম্মলনে বলা হয়, ডিএনসিসির মেয়র ও কর্মকর্তারা ক্ষমতার অপব্যবহার করে কলমিলতা বাজারের সম্পদ দখল করে রেখেছেন। এছাড়া নির্মাণাধীন ভাসানটেক প্রকল্প অবৈধভাবে বন্ধ করে ভাঙচুর করেছেন মেয়র আতিক ও ভূমি মন্ত্রণালয়ের লোকজন। এতে পাঁচ কোটি টাকার সম্পদ ধ্বংস হয়েছে।

নুরতাজ আরা ঐশী বলেন, ‌‌‘কলমিলতা বাজারের মালিক ডিএনসিসি নয়। বেআইনিভাবে দখল করায় হাইকোর্ট ওই সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ দিতে ডিএনসিসিকে নির্দেশ দিয়েছেন।’ ক্ষতিপূরণ দুই মাসের মধ্যে পরিশোধে হাইকোর্টের নির্দেশনা থাকলেও তা মানছেন না মেয়র আতিক।’

এছাড়া লালমাটিয়ার দুটি ফ্ল্যাট এবং সাভারে কলমা মৌজায় ৯ বিঘা জমি মেয়র আতিক তার বাহিনী দিয়ে দখল করে রেখেছেন বলে অভিযোগ করেন নুরতাজ আরা ঐশী। তিনি বলেন, ‌‘পরিবারটিকে চাপে রাখতে মেয়র আতিক এমনটা করছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে কলমিলতা বাজারের ক্ষতিপূরণ দিতে সংশ্লিষ্টদের যথাযথ নির্দেশ; ভাসানটেক প্রকল্প ব্যর্থ করার দায়ে সংশ্লিষ্টদের শাস্তি নিশ্চিতে বিচারপতির নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠনসহ শহীদ পরিবারের সদস্যদের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানানো হয়।

 

/জেডএ/আইএ/

সম্পর্কিত

ঢাকায় শুরু হলো রোহিঙ্গাদের শিল্প ও সংস্কৃতি বিষয়ক প্রদর্শনী

ঢাকায় শুরু হলো রোহিঙ্গাদের শিল্প ও সংস্কৃতি বিষয়ক প্রদর্শনী

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

ব্র্যাকের হাত ধরে স্বাস্থ্যবিধি শিখছে মানুষ

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

প্রকল্পের রেল গেট কিপারদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি স্কপের

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:০৫

স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়িচালক আব্দুল মালেক ওরফে মালেক ড্রাইভারের বিরুদ্ধে দায়ের করা অস্ত্র আইনের মামলায় দুই ধারায় ১৫ বছর করে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এই সাজা একইসঙ্গে হওয়ায় তাকে ১৫ বছর কারাভোগ করতে হবে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলমের আদালত এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে আদালতের বারান্দায় ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ অজ্ঞান হয়ে পড়েন।

মালেকের মা আয়েশা বেগমের দাবি, তার ছেলে নির্দোষ। তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। বাসায় কোনও কিছুই পাওয়া যায়নি।

মালেকের বোন বলেন, ‘আমার ভাই নির্দোষ। তাকে ফাঁসানো হয়েছে। ভাইয়ের সঙ্গে আমাকেও এরেস্ট করে নিয়ে যান। আমিও নির্দোষ ভাইয়ের সঙ্গে জেল খাটবো। আমার আর সহ্য হয় না। বাবা নেই; এই ভাই আমাদের বড়।’

এ দিন রায় ঘোষণার পর আদালতের এজলাসে থেকে মালেককে বের করার সময় সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে মালেক বলেন, ‘আমাকে বাসা থেকে ধরে নিয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। সব সাক্ষী মিথ্যা। কোনও অস্ত্র আমার কাছে ছিল না। মিথ্যা মামলায় আমাকে কারাভোগ করতে হবে।’

এর আগে ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলমের আদালত রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেন।

গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর তুরাগ থানাধীন কামারপাড়াস্থ ৪২ নম্বর বামনেরটেক হাজী কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলার বাসা থেকে আব্দুল মালেককে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, পাঁচ রাউন্ড গুলি, দেড় লাখ বাংলাদেশি জাল নোট, একটি ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয় বলে জানায় র‌্যাব। এ ঘটনায় র‌্যাব-১ এর পুলিশ পরিদর্শক আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে মামলা দুটি দায়ের করেন।

 

/এমএইচজে/আইএ/

সম্পর্কিত

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৩৩

চাঁদপুরে মিষ্টিবিক্রেতা নারায়ণ চন্দ্রকে হত্যা করে চুলের বস্তায় ভরে ডাস্টবিনে ফেলে দেয় একই এলাকার সেলুন কারিগর রাজু চন্দ্র শীল।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মালিবাগে পুলিশের সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান সংস্থাটির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর চাঁদপুর শহরের বিপণীবাগ মার্কেটের পৌর পানির পাম্পের স্টাফ রুমে নারায়ণ চন্দ্র ঘোষের বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত নারায়ণ চন্দ্র ঘোষ স্থানীয় বাজারে দই-মিষ্টি বিক্রি করতেন।

সেলুনে যেভাবে হত্যা করা হয় নারায়ণ চন্দ্রকে

বিপণীবাগ বাজারের নৈশপ্রহরী ইসমাইল বকাউলের বরাত দিয়ে মুক্তাধর বলেন, গত ১৫ সেপ্টেম্বর ওই বাজারের টিপটপ সেলুনের কর্মচারী রাজুকে পানি দিয়ে দোকান পরিষ্কার করতে দেখা যায়। রাজুর কাছে দোকান পরিষ্কারের কারণ জানতে চাইলে তিনি নৈশ প্রহরী ইসমাইলকে বলেন, ধর্মীয় উৎসব থাকার কারণে তিনি দোকান পরিষ্কার করে পুরনো জামা-কাপড়সহ অন্যান্য ময়লা জিনিসপত্র বস্তায় করে নিয়ে যাচ্ছেন। রাজু ওই বস্তাটি বিপণীবাগ মার্কেটের পশ্চিম পাশে শরিফ স্টিল ও পানির পাম্পের স্টাফ রুমের পূর্ব পাশে গলির ভেতরে ফেলে দেন। ওই বস্তা ফেলে রাজু আবারও দোকানে ফিরে আসেন। এরপর রাজু পানি দিয়ে ওই সেলুন পরিষ্কার করতে থাকেন। ১৬ সেপ্টেম্বর সেলুন থেকে ডাস্টবিন পর্যন্ত রক্তের দাগ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে সেলুনের মালিক শ্রীকৃষ্ণকে ডেকে আনলে তিনি দোকান খুলে সেলুনের মেঝেতে রক্তমাখা পানি দেখতে পান। এছাড়াও সেলুনের দেয়ালে, চেয়ারের কভারে, মেঝেতে ও বালতির মধ্যে রক্তের দাগ দেখা যায়। ওই ঘটনার পর পালিয়ে যান রাজু চন্দ্র শীল।

ঘটনাটি বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত হলে তা সিআইডির নজরে আসে। পরে সিআইডি তদন্ত শুরু করে। রাজুকে ধরতে বিভিন্ন জায়গায় চালানো হয় অভিযান। পরে সিলেট শহর থেকে অভিযুক্ত রাজুকে সিআইডি গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজু সিআইডিকে জানায়,  টাকা লেনদেনের কারণে তিনি নারায়ণকে হত্যা করেছেন। তবে কত টাকার লেনদেন ছিল সে বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি।

/এআরআর/এমএস/

সম্পর্কিত

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২৪

ঢাকা ওয়াসা কর্তৃপক্ষ গত দুই বছরে সুপেয় পানি পাওয়ার লক্ষ্যে দূষণের কবলে পড়া অঞ্চলগুলোতে কি কাজ করেছে, কি করছে এবং তাদের ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ২ নভেম্বরের মধ্যে তাদেরকে ওই কর্মপরিকল্পনা দাখিল করতে হবে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ।

প্রসঙ্গত, এর আগে এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে ২০১৮ সালের ৬ নভেম্বর হাইকোর্ট ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে ৪ সদস্যের কমিটি গঠন করার আদেশ দেন।

২০১৯ সালের ১৮ এপ্রিল স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিবকে আহ্বায়ক করে ৪ সদস্যের কমিটি গঠন করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

কমিটির সদস্যরা হলেন – আইসিডিডিআরবি’র জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী মনিরুল আলম, বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক এ বি এম বদরুজ্জামান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান সাবিতা রিজওয়ানা রহমান।

/বিআই/এমএস/

সম্পর্কিত

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:০৮

দেশের ই-কমার্স ব্যবসাকে তদারকি করার জন্য ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আইনজীবী মো. আনোয়ারুল ইসলাম বাধন এই রিট দায়ের করেন।

রিটে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিটিআরসির চেয়ারম্যান, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের চেয়ারম্যান ও ই-ক্যাবকে বিবাদী করা হয়েছে। বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও  বিচারপতি মুস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এই রিটের শুনানি হবে বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

এর আগে অন্য একটি মামলায় গত ১৯ সেপ্টেম্বর  শুনানিতে দেশের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির আদালতকে বলেন, ‘‘আমাদের দেশের ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিষয়টা এমন যে, প্রথমে তারা অফার দিবে একটা মোটরসাইকেলের টাকায় দুইটা মোটরসাইকেল কেনার। এরপর গ্রাহকরা টাকা দিয়ে মোটরসাইকেল পাবে এবং টাকাটা বাংলাদেশ ব্যাংকের গেইটওয়ে দিয়ে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানে চলে যাবে। এরপর আবার দুইটা কিনলে আরও দুইটা ফ্রি, চারটা কিনলে আরও চারটা ফ্রি পাবে এমন অফার আসে এবং গ্রাহক সে মোটরসাইকেল পায়। কিন্তু এক পর্যায়ে যখন গ্রাহক অধিক সংখ্যক যেমন, আটটা মোটরসাইকেল কিনলে আরও আটটা মোটরসাইকেল পাওয়ার জন্য টাকা দেয় তখন সে টাকা চলে যায়, কিন্তু মোটরসাইকেল আর আসে না।’’

আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির আদালতকে আরও বলেন, ‘‘আমাদের এখানে লোভের শিকার হয়ে এবং ই-কমার্সের প্রতিষ্ঠানের প্রতারণায় গ্রাহকেরা প্রতারিত হচ্ছে।’’ তখন হাইকোর্ট বলেন, ‘আপনারা তো পাবলিক ইন্টারেস্টের মামলা করেন। আপনাদের উচিত পাবলিকদের সচেতন করা, তারা যেন এক্ষেত্রে লোভ কমান।’

/বিআই/এমএস/

সম্পর্কিত

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

মিষ্টিবিক্রেতাকে খুন করে সেলুনের কারিগর

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

সিটি ইউনিভার্সিটিকে সাড়ে ৬২ লাখ টাকা জরিমানা

সিটি ইউনিভার্সিটিকে সাড়ে ৬২ লাখ টাকা জরিমানা

সর্বশেষ

রাশিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্দুক হামলা, নিহত ৮

রাশিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্দুক হামলা, নিহত ৮

মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ 

মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ 

ধারাবাহিক নাটকে ক্রিকেটার জাভেদ ওমর

ধারাবাহিক নাটকে ক্রিকেটার জাভেদ ওমর

প্রথমবারের মতো ভোট দিচ্ছে দেবীগঞ্জ পৌরসভার মানুষ

প্রথমবারের মতো ভোট দিচ্ছে দেবীগঞ্জ পৌরসভার মানুষ

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন ড্রাইভার মালেকের স্বজনরা

© 2021 Bangla Tribune