X
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বিল গেটসের ফাউন্ডেশন থেকে পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশি তরুণী

আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:০৩

মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করায় প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ‘গোলকিপার্স গ্লোবাল গোল চেঞ্জমেকার অ্যাওয়ার্ড-২০২১’ পেয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ও ‘মনের স্কুল’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাইরুজ ফাইজা বিথার। বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে তাকে এই সম্মাননা পুরস্কার দেওয়া হয়।

পুরস্কার পাওয়ার পর মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) ‘মনের স্কুল’র ফেসবুক পেজে বিষয়টি জানানো হয়। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করার জন্য পদক্ষেপ নিচ্ছে এমন ব্যক্তিদের তিনটি বিভাগে পুরস্কার দেয় বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন। প্রথমবারের মতো কোনও বাংলাদেশি এই পুরস্কারটি পেয়েছেন।

ফাইজা বিথার পরিবর্তন আনার অনুপ্রেরণায় ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা দিয়ে এবং নেতৃত্বের জায়গায় থেকে ‘সুস্বাস্থ্য এবং মানুষের ভালো থাকা’র জন্য নিরলস কাজ (যা এসডিজির ৩নং লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক) করে যাচ্ছেন। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তাকে এ সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। ফাইরুজ ‘মনের স্কুল’ নামক একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্মের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। এই প্রতিষ্ঠান মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করে চলেছে। দেশব্যাপী মানসিক চিকিৎসার সমানাধিকার সুনিশ্চিত করাও তাদের কাজের উল্লেখযোগ্য বিষয়।

এদিকে, পুরস্কারটি পাওয়ায় এ তরুণীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন। এক বার্তায় তিনি তার সফলতা কামনা করে আগামীতে এমন সৃজনশীল কর্মকাণ্ডে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম বৃদ্ধি পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুরূপ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা, ব্যবস্থাপনা ও ব্যবসায় প্রশাসনের ডিন প্রফেসর প্রফেসর ড. মো. নূরুন্নবী, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, ব্যবসায় প্রশাসনের প্রধান প্রফেসর ড. ফিরোজ আহমদসহ সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

উল্লেখ্য, ফাইরুজ ফাইজা বিথার খুলনা সিটি করপোরেশনের ২৪নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর শহীদ ইকবাল বিথার এবং জাতীয় মহিলা সংস্থা খুলনা শাখার চেয়ারম্যান ও একই ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর অধ্যাপক রুনু বিথারের কন্যা।

/এফআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৩

চুয়াডাঙ্গায় গলায় মার্বেল আটকে সোয়াইদ হোসেন (১) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (২৭ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সদর উপজেলার বেলগাছী গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সে বেলগাছী গ্রামের রাজমিস্ত্রি সোহাগ আলীর ছেলে।

পরিবারের সদস্যরা জানান, সন্ধ্যায় মার্বেল নিয়ে খেলছিল শিশু সোয়াইদ। এ সময় সে একটি মার্বেল মুখে দিলে তা গলায় আটকে যায়। এতে শিশুটি কান্নাকাটি শুরু করে। পরিবারের লোকজন তার গলায় কোনও কিছু আটকে আছে কি-না সেটি দেখতে গেলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সাদিয়া আক্তার বলেন, ‘হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই শিশুটি মারা গেছে।’

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বিষয়টি আমাদের কেউ জানায়নি।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

পাবজি খেলতে ডেকে ৫ শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

পাবজি খেলতে ডেকে ৫ শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

এসএসসির ফরম পূরণের সময় জানলো জেএসসিতে ফেল

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৫

নবম ও দশম শ্রেণির লেখাপড়া শেষ করে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করতে গিয়ে শিক্ষার্থী মোসাদ্দেক আলী জানতে পারলো সে জেএসসিতে ফেল করেছে। এ ঘটনায় তার শিক্ষাজীবনের চরম বিপর্যয় ঘটলেও নির্বিকার বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। উল্টো তারা ওই বিদ্যালয়ের প্রয়াত প্রধান শিক্ষককে দোষারোপ করছেন।

মোসাদ্দেক নীলফামারী সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র এবং জামিল উদ্দিনের ছেলে।

বুধবার জামিল উদ্দিন বলেন, ‘মোসাদ্দেক এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী। কিন্তু কয়েক দিন আগে স্কুল থেকে জানানো হয়, সে পরীক্ষা দিতে পারবে না। কারণ সে জেএসসি পরীক্ষায় এক বিষয়ে সে ফেল করেছিল। ওই বিষয়ে সম্পূরক পরীক্ষা না দেওয়ায় তার জেএসসির সনদপত্র পাওয়া যায়নি। এদিকে, কয়েকদিন আগে স্কুলের অফিস সহকারী রাসেদুল ইসলাম বোর্ডে সামান্য ভুল আছে বলে তা সংশোধনের জন্য এক হাজার টাকা চেয়ে নেন আমার কাছে। প্রশ্ন হলো– আমার ছেলে অষ্টম শ্রেণিতে ফেল করলে তাকে কীভাবে নবম শ্রেণিতে ভর্তি করা হলো। কেমন করে সে নবম ও দশম শ্রেণিতে পড়াশোনা করলো এবং টেস্ট পরীক্ষা দিয়ে পাসও করলো? এতদিন তারা বিষয়টি কেন জানাননি? কেন তারা আমার ছেলের এত বড় ক্ষতি করলেন? এর দায় কার? এখন তারা বলছেন, এতদিন যা খরচ হয়েছে তা ফেরত দেওয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তারা কি আমার ছেলের বিগত সময়গুলো ফিরিয়ে দিতে পারবেন? পারবেন তার শিক্ষাজীবনের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে? অফিস সহকারী আমার ছেলেকে নবম শ্রেণিতে ভর্তি করেছে। কোনও ভুল হয়ে থাকলে তিনি তা করেছেন। তার কারণেই একজন শিক্ষার্থীর এই পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে। তিনি প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আমাদের বিপদে ফেলেছেন। তিনি যদি বিষয়টি আগেই যাচাই-বাছাই করতেন তাহলে এক বিষয়ে পরীক্ষা দিয়ে আমার ছেলে নবম শ্রেণিতে ভর্তি হতো। কিন্তু তিনি তা না করে এখন দোষারোপ করছেন সদ্যপ্রয়াত প্রধান শিক্ষককে। যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।’

এ ধরনের সমস্যা আরও কয়েকজনের হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে বোতলাগাড়ী মাঝাপাড়ার রমজান আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম, নাজমুল হকের ছেলেও একইভাবে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় জানতে পারে তারা জেএসসিতে পাস করেনি। এতে শিক্ষার্থীদের জীবন এখন প্রহসনে পরিণত হয়েছে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী রাসেদুল ইসলাম বলেন, ‘যা করেছি প্রয়াত প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমানের নির্দেশে করেছি। ভুল হয়ে থাকলে তা প্রধান শিক্ষকের। এ ক্ষেত্রে আমার কোনও দোষ নেই।’ নবম শ্রেণিতে ভর্তির সময় কেন কাগজপত্র যাচাই না করে তাকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ানো হলো? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা মিসটেক হয়েছে। অনেক সময় এমন হয়।’

এ বিষয়ে সৈয়দপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রেহানা ইয়াসমিন ফোনে জানান, এ ধরনের কোনও বিষয় তার জানা নেই। তবে এমন কিছু হয়ে থাকলে তা তা তদন্ত করে দেখতে হবে। অফিস সহকারী এর সঙ্গে জড়িত থাকলে তার ব্যাপারেও বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

প্রয়াত প্রধান শিক্ষক মোখলেছুর রহমানের স্ত্রী ও সৈয়দপুর মিস্ত্রিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা হালিমা বেগম বলেন, ‘আমার স্বামীর মৃত্যুর পর তাকে দোষারোপ করে অনেকে অপরাধ ঢাকতে চাচ্ছেন। কিন্তু আমার স্বামী কোনও ধরনের অনিয়ম-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতির অর্থ কমিটির লোকজন হাতিয়ে নিয়েছেন। এখন অফিস সহকারীও একই পথ ধরেছেন। তাদের অপকর্মের বিচার চাই। একজন মৃত ব্যক্তিকে মিথ্যা দোষারোপ করে তারা পার পাবেন না।’

/এমএএ/

সম্পর্কিত

কুড়িয়ে পাওয়া ২ লাখ টাকা ফিরিয়ে দিলেন ভ্যানচালক

কুড়িয়ে পাওয়া ২ লাখ টাকা ফিরিয়ে দিলেন ভ্যানচালক

বরাদ্দের আগেই প্রতীক নিয়ে প্রার্থীদের প্রচারণা

বরাদ্দের আগেই প্রতীক নিয়ে প্রার্থীদের প্রচারণা

ঘটনার বর্ণনা দিলেন চুল কেটে দেওয়া ভুক্তভোগী ১৪ শিক্ষার্থী

ঘটনার বর্ণনা দিলেন চুল কেটে দেওয়া ভুক্তভোগী ১৪ শিক্ষার্থী

আমদানি বাড়ায় কমেছে পেঁয়াজের দাম

আমদানি বাড়ায় কমেছে পেঁয়াজের দাম

হত্যা মামলার আসামিকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় ছাত্রলীগের বিক্ষোভ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩৪

ইউপি নির্বাচনে নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা হেভেন হত্যা মামলার প্রধান আসামি হাবিবুর রহমান হাবিবকে মনোনয়ন দেওয়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ। বুধবার (২৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় নবীগঞ্জ শহরের নতুন বাজার মোড়ে উপজেলা ছাত্রলীগের ব্যানারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রাজুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও যুবলীগের আহ্বায়ক ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- নিহত হেভেনের দাদা প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, চুনু মিয়া, মো. নুরুজ্জামান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু ছালেহ জীবন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, ছাত্রলীগ নেতা আবিদ হাসান তালুকদার, মিজান খান প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ২০১৪ সালে হাবিবুর রহমান হাবিবের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের ত্যাগী নেতা হেভেন চৌধুরীকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। তার রক্তের দাগ এখনও শুকায়নি, মা-বাবার চোখের পানি এখনও ঝরছে, অবিলম্বে হত্যাকারী হাবিবের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বাতিল করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এতে একাত্মতা পোষণ করতে মানববন্ধনে যোগ দেন নিহত ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরীর দাদা সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, নুরুজ্জামান, সাবেক ইউপি সদস্য মো. চুনু মিয়া।

এ সময় কান্না বিজড়িত কণ্ঠে হেভেনের দাদা সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা হেভেন চৌধুরীকে নির্মমভাবে হত্যা করে হাবিবসহ সন্ত্রাসীরা। ওই খুনি হাবিবকে ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ায় হেভেন হত্যা মামলার বিচারকার্য নিয়ে সংশয় রয়েছে।’ স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কাছে খুনি হাবিবের মনোনয়নপত্র বাতিলসহ তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

হত্যা মামলার বাদী হেভেনের বাবা মকবুল হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘হেভেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত ও অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্রলীগের একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে কাজ করেছে। ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় থাকায় হেভেনকে হত্যার ঘটনায় যেখানে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেওয়ার কথা ছিল, সেখানে হাবিবুর রহমান হাবিবকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিয়ে পুরস্কৃত করা হলো- এটি সত্যি বিষয়টি দুঃখজনক।’

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ৩ মার্চ নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা হেভেন চৌধুরীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি হাবিবুর রহমান হাবিব। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে। ২০১০ সালের ৭ মার্চ জলমহাল ইজারা নিয়ে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (বর্তমানে সড়ক ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব) সুলতানা ইয়াসমীনকে লাঞ্ছিত করেন হাবিবুর রহমান হাবিব। এ ঘটনায় ইউএনও বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করেন। এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলামের কাছ থেকে ব্যবসার কথা বলে ২০ লাখ টাকা এনে আত্মসাৎ করেন। এ ঘটনায় সাইফুল ইসলাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাবিবের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করেন। এই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে (সিআর ৬৩/২১) গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

সিলেটে জ্বালানি তেলের সংকট, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি 

সিলেটে জ্বালানি তেলের সংকট, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি 

বরাদ্দের আগেই প্রতীক নিয়ে প্রার্থীদের প্রচারণা

বরাদ্দের আগেই প্রতীক নিয়ে প্রার্থীদের প্রচারণা

ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় কুষ্টিয়ায় গ্রেফতার সিলেটের সাদি  

ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় কুষ্টিয়ায় গ্রেফতার সিলেটের সাদি  

চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাতিজার বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের সমর্থককে গুলির অভিযোগ

চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাতিজার বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের সমর্থককে গুলির অভিযোগ

বেতনভাতার দাবিতে পোশাকশ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২০:২৩

গাজীপুর মহানগরের দক্ষিণ সালনা এলাকায় বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে শ্যামলী পোশাক কারখানার শ্রমিকরা কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন। বুধবার (২৭ অক্টোবর) বিকাল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৩ ঘণ্টা তারা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। বিক্ষোভকারীরা কয়েকটি গাড়ির কাচ ভাঙচুর করে। সন্ধ্যায় পুলিশ টিয়ারশেল ছুড়ে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সড়ক অবরোধের কারণে ওই মহাসড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে ঢাকা ও ময়মনসিংহগামী যাত্রীদের দুর্ভোগ পড়তে হয়েছে। জরুরি প্রয়োজনে যাত্রীরা কেউ কেউ হেঁটে গন্তব্য রওনা দিয়েছেন।

সেলিম হোসেন, রাবেয়া আক্তার, জহিরুল ইসলামসহ আন্দোলনরত শ্রমিকরা জানান, তারা কয়েক মাসের বেতনভাতা পাওনা রয়েছেন। কর্তৃপক্ষ একাধিকবার আশ্বাস দিয়ে তারিখ নির্ধারণ করলেও পাওনাদি পরিশোধ করেনি। ২৫ অক্টোবর শ্রমিক-কর্মচারীদের সেপ্টেম্বর মাসের বকেয়া বেতনভাতা পরিশোধের নির্ধারিত তারিখ ছিল। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ ওই দিন শ্রমিকদের পাওনাদি না দিয়ে মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) পরিশোধের আশ্বাস দেয়। ওই দিনও বেতনভাতা পরিশোধ না করে ফের বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) পরিশোধের তারিখ নির্ধারণ করে। দুপুরের খাবারের বিরতির পর আড়াইটা পর্যন্ত অপেক্ষা করার পরও বকেয়া বেতনভাতা পরিশোধ না করায় শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে তারা বিকাল ৩টার দিকে সেপ্টেম্বর মাসের বকেয়াসহ চলতি মাসের বেতনভাতা পরিশোধের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন।

তারা কর্তৃপক্ষের সাড়া না পেয়ে কারখানা থেকে বের হয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় তারা মহাসড়কে বসে এবং গাছ ও ইট ফেলে অবরোধ সৃষ্টি করে। এতে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল মোনায়েম জানান, শ্রমিক অসন্তোষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানের জন্য কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি। পুলিশ সদস্যরা অবরোধকারী শ্রমিকদের বুঝিয়ে মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলেও শ্রমিকরা সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অবরোধ তুলে নেয়নি। প্রায় তিন ঘণ্টা অবরোধ অব্যাহত থাকায় মহাসড়কের উভয় দিকে যানবাহন আটকা পড়ে যানজটের সৃষ্টি হয় এবং যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হয়। সন্ধ্যায় আন্দোলনকারীরা অন্তত ৩৫/৪০টি গাড়ির কাচ ভাঙচুর করে। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়লে পুলিশের কয়েকজন সদস্য আহত হন। এক পর্যায়ে পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ছুড়ে আন্দোলনরতদের ছত্রভঙ্গ করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে এবং মহাসড়কে পুনরায় যানবাহন চলাচল শুরু হয়। শ্যামলী পোশাক কারখানায় প্রায় আড়াই হাজার শ্রমিক-কর্মচারী রয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা, সাবেক প্রেমিককে সন্দেহ পুলিশের

স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা, সাবেক প্রেমিককে সন্দেহ পুলিশের

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে শ্রীনগর থানার ওসি প্রত্যাহার

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে শ্রীনগর থানার ওসি প্রত্যাহার

ডোবার পানিতে বাবার মরদেহ, ২ ছেলে আহত

ডোবার পানিতে বাবার মরদেহ, ২ ছেলে আহত

কুমিল্লায় মণ্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা 

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২০:২৩

কুমিল্লা নগরীর নানুয়াদিঘির পাড়ে পূজামণ্ডপে ভাঙচুরের ঘটনায় আরও এক মামলা করা হয়েছে। পাশাপাশি হনুমানের কোলে কোরআন রেখে সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির ঘটনায় করা মামলাটি বুধবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সহিংসতার ঘটনায় মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) গভীর রাতে পূজামণ্ডপ কমিটির পক্ষ থেকে ২৫০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে কোতোয়ালি মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আনওয়ারুল আজিম।

পুলিশ জানায়, কুমিল্লায় কোরআন অবমাননা, পূজামণ্ডপ ভাঙচুর ও মন্দিরে হামলার ঘটনায় কোতোয়ালি, সদর দক্ষিণ, দাউদকান্দি ও দেবিদ্বার থানায় ১২টি মামলা হয়েছে। ১২ মামলায় এজাহারনামীয় ৯২ জনসহ ১১০২ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে গ্রেফতার হয়েছেন ৭২ জন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে দলীয় পরিচয়ে বিএনপির ৩৬ জন এবং জামায়াত ও শিবিরের ১৬ নেতাকর্মী।

সিআইডি কুমিল্লা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সাত দিনের রিমান্ডে থাকা ইকবাল হোসেন, ৯৯৯-এ পুলিশকে ফোন করা ইকরাম এবং দারোগাবাড়ি মাজারের সহকারী খাদেম হুমায়ুন কবির ও ফয়সাল আহমেদকে সিআইডি হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। 

রিমান্ডে থাকা চার আসামি মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা এবং হনুমানের মূর্তি থেকে নেওয়া গদা উদ্ধারের বাইরে নতুন তথ্য দিয়েছেন কিনা এই বিষয়ে কিছুই জানায়নি সিআইডি।

ওসি আনওয়ারুল আজিম বলেন, ১৩ অক্টোবর নানুয়াদিঘির উত্তর পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা ও পরবর্তীতে ভাঙচুরসহ সহিংসতার ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে পূজামণ্ডপ কমিটির পক্ষ থেকে স্থানীয় যুবক কান্তি মদন মিঠুন বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেছেন। এই মামলায় ২৫০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

কুমিল্লা সিআইডির পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজওয়ান বলেন, বুধবার দুপুরে মামলার সব ডকুমেন্টস আমাদের বুঝিয়ে দেয় পুলিশ। মামলাটি স্পর্শকাতর হওয়ায় সতর্কতার সঙ্গে তদন্তকাজ চলছে।

গত ১৩ অক্টোবর নগরীর নানুয়াদিঘির পাড় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনায় নগরের কয়েকটি পূজামণ্ডপে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এর জেরে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, নোয়াখালীর চৌমুহনী, রংপুরের পীরগঞ্জে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশের সংগ্রহ করা সিসিটিভি ফুটেজের মাধ্যমে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা প্রধান অভিযুক্ত ইকবালকে শনাক্ত করে। ২১ অক্টোবর ইকবালকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২২ অক্টোবর তাকে কুমিল্লায় এনে ২৩ অক্টোবর আদালতে হাজির করা হয়। আদালত ইকবাল, মাজারের দুই খাদেম ও ৯৯৯-এ কল করা ইকরামের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

তেলের ড্রাম তুলতে নেমে স্রোতে ভেসে গেলেন শ্রমিক

তেলের ড্রাম তুলতে নেমে স্রোতে ভেসে গেলেন শ্রমিক

ফ্লাইওভারের র‍্যাম্পের পিলারে ফাটল পায়নি বিশেষজ্ঞ দল

ফ্লাইওভারের র‍্যাম্পের পিলারে ফাটল পায়নি বিশেষজ্ঞ দল

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

প্রকাশ্যে হকার হত্যার প্রধান আসামি গ্রেফতার

নোয়াখালীতে সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার ঘটনায় ৮ আসামির রিমান্ড

নোয়াখালীতে সাম্প্রদায়িক বিশৃঙ্খলার ঘটনায় ৮ আসামির রিমান্ড

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের প্রয়োজন আছে: ইনু

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বিয়ে দিতে বাবার অসম্মতির কারণে ছেলের আত্মহত্যার অভিযোগ

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১৫টি ঘোড়া উপহার দিলো ভারত

পাবজি খেলতে ডেকে ৫ শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

পাবজি খেলতে ডেকে ৫ শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

বাবা-মা-মেয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা, আসামি অজ্ঞাত

বাবা-মা-মেয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা, আসামি অজ্ঞাত

খিচুড়ি খেয়ে হাসপাতালে একই পরিবারের ৮ সদস্য 

খিচুড়ি খেয়ে হাসপাতালে একই পরিবারের ৮ সদস্য 

খেজুর গাছ পরিচর্যায় ব্যস্ত চুয়াডাঙ্গার গাছিরা

খেজুর গাছ পরিচর্যায় ব্যস্ত চুয়াডাঙ্গার গাছিরা

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

সাতক্ষীরায় ১০ সাংবাদিক পেলেন মিডিয়া ফেলোশিপ

মাংস খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষে নববধূকে তালাক, পরদিন ফের বিয়ে

মাংস খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষে নববধূকে তালাক, পরদিন ফের বিয়ে

সর্বশেষ

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

গলায় মার্বেল আটকে এক বছরের শিশুর মৃত্যু

সুদানে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে চিকিৎসক ও তেলকর্মীরা

সুদানে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে চিকিৎসক ও তেলকর্মীরা

এসএসসির ফরম পূরণের সময় জানলো জেএসসিতে ফেল

এসএসসির ফরম পূরণের সময় জানলো জেএসসিতে ফেল

বাংলাদেশ কৃষি খাতে বিশ্বে ‘উন্নয়ন মডেল’ হিসেবে স্বীকৃত: খাদ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ কৃষি খাতে বিশ্বে ‘উন্নয়ন মডেল’ হিসেবে স্বীকৃত: খাদ্যমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার থেকে সচিবালয়ে দর্শনার্থী পাস ইস্যুর সিদ্ধান্ত

বৃহস্পতিবার থেকে সচিবালয়ে দর্শনার্থী পাস ইস্যুর সিদ্ধান্ত

© 2021 Bangla Tribune