X
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

যে কারণে ওয়ার্ল্ড র‌্যাকিংয়ে স্থান পাচ্ছে না দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:২৭

যথাযথভাবে তথ্য উপস্থাপন না করতে পারায় বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ওয়ার্ল্ড র‌্যাকিংয়ে স্থান পাচ্ছে না বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ও টাইমস হায়ার এডুকেশন (টিএইচই)-এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল ওয়েবিনারে এ কথা জানানো হয়।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত ওয়েবিনারে সভাপতিত্ব করেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। ইউজিসি সদস্য ড. দিল আফরোজা বেগম, অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ ও অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের ওয়েবিনারে যুক্ত ছিলেন।

সভাপতির বক্তব্যে ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাকিংয়ে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অবস্থান সুসংহত নয়। র‌্যাকিংয়ে ভালো অবস্থানে যেতে হলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে স্ব-উদ্যোগে আবশ্যিক কিছু তথ্য দিতে হয়। অনেক সময় বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উল্লেখ করার মতো সাফল্য থাকলেও যে সকল তথ্য আবশ্যিকভাবে দিতে হয় সে সম্পর্কে ধারণা না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো র‌্যাকিংয়ে স্থান পাচ্ছে না। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকদের এ সম্পর্কে জানতে করতে হবে।’

অধ্যাপক মুহাম্মদ আলমগীর আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের উচ্চাশিক্ষা প্রতিষ্ঠান উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। পাবলিক ও প্রাইভেট ব্যবস্থাপনায় ১৫৯টি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে। উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ছে প্রায় ৪৩ লাখ শিক্ষার্থী। এসব প্রতিষ্ঠানে মানসম্পন্ন শিক্ষা ও গবেষণা পরিচালনার দিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ওয়ার্ল্ড র‌্যাকিংয়ের বিভিন্ন শর্ত ও প্যারামিটার সম্পর্কে জানানো গেলে র‌্যাংকিংয়ে স্থান করে নেওয়ার ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করার মাধ্যমে তারা তা অর্জনে নিরলসভাবে কাজ করবেন।’

স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং অ্যান্ড কোয়ালিটি অ্যাশিউরেন্স (এসপিকিউএ) বিভাগের পরিচালক ড. মো. ফখরুল ইসলাম ওয়েবিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন। টাইমস হায়ার এডুকেশন (টএইচই), এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ও মহাব্যবস্থাপক রিতিন মালহোত্রার সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এসপিকিউএ বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক জেসমিন পারভীন।

ইম্প্যাক্ট র‌্যাকিং বিষয়ে মাস্টারক্লাস পরিচালনা করেন টাইমস হায়ার এডুকেশন-এর চিফ নলেজ অফিসার ফিল ব্যাটি, এমডি কনসাল্ট্যান্সি এলিজাবেথ শেফার্ড এবং ডাটা এনালিসিস অফিসার হানাহ পিকক।

/এসএমএ/এফএ/

সম্পর্কিত

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ৭৪ শিক্ষার্থী

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ৭৪ শিক্ষার্থী

জবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, শিক্ষককে দায়ী করছেন স্বজন ও সহপাঠীরা

জবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, শিক্ষককে দায়ী করছেন স্বজন ও সহপাঠীরা

সব শিক্ষা অফিসের ইন্টারনেট সেবা সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছে সরকার

সব শিক্ষা অফিসের ইন্টারনেট সেবা সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছে সরকার

প্রাথমিকের অফিসে ই-ফাইলিং শুরু ৩১ অক্টোবর

প্রাথমিকের অফিসে ই-ফাইলিং শুরু ৩১ অক্টোবর

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৪

বাংলাদেশকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি, গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাস, লবণাক্ততা রোধ, উন্নয়ন কার্যক্রম এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় অভিযোজন ও প্রশমন প্রচেষ্টা সংক্রান্ত ইস্যুগুলোতে সহায়তা দেবে সুইডেন। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক বৈঠকে বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডিশ রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্ডার বার্গ ভন লিন্ডে এ কথা বলেন।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে  ওই বৈঠকে সুইডিশ রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, সুইডেন ২০২৫ সাল নাগাদ তার জলবায়ু অর্থায়ন দ্বিগুণ করবে।

আলোচনা সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহমেদ শামিম আল রাজী এবং অতিরিক্ত সচিব (জলবায়ু পরিবর্তন) সঞ্জয় কুমার ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।

তারা ইকোসিস্টেম ব্যবস্থাপনা, টেকসই পরিবেশ, জীববৈচিত্রের সংরক্ষণ এবং বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিরূপ প্রভাব মোকাবিলাসহ আরও কয়েকটি ক্ষেত্রে সহযোগিতার ব্যাপারেও আলোচনা করেন।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সভায় দুদেশের মধ্যে সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলোকে চিহ্নিত করা এবং ভবিষ্যতে একসাথে সামনে এগিয়ে যাওয়ার ওপর জোর দেওয়া হয়।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, তার মন্ত্রণালয় বর্ধিত এনডিসি এবং এনএপি চূড়ান্তকরণ ও বঙ্গবন্ধু জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা পেশ করেছে। জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সম্মেলন কপ২৫ সফল করতে বাংলাদেশ আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ধনী দেশগুলোর উন্নয়নশীল দেশগুলোকে বছরে ১০০ বিলিয়ন ডলার দেওয়ার দাবিতে সোচ্চার হবে। খবর বাসস

/ইউএস/

সম্পর্কিত

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:১২

মসজিদে একই ওয়াক্তে একই সময়ে সামনে-পেছনে একাধিক জামাত করা যাবে না। আব্দুর রহমান বিন মুজবার থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি সালেম ইবনে আব্দুল্লাহর সঙ্গে এমন সময় জুমার মসজিদে প্রবেশ করলাম যখন তাদের (মুসল্লি) জামাত শেষ। তারা বললেন, তোমরা কি জামাত করবে না? সালেম বললেন, কোনও মসজিদে এক নামাজের দুই জামাত নেই। (ই‘লাউস সুনান ৪/ ২৮০)।

তবে কেউ যদি পুনরায় জামাত করে ফেলে তা হলে তার নামাজ আদায় হবে। সেক্ষেত্রে কাজটি মাকরুহ তথা অপছন্দীয় হবে। বরং মসজিদে জামাত হয়ে গেলে তার জন্য বাড়িতে এসে বা মূল মসজিদের বাইরে জামাত করার অনুমতি আছে।

আবু বাকরাহ (রা.) থেকে বর্ণিত যে, রাসুল (সা.) মদিনার উপকণ্ঠ থেকে ফিরে নামাজ পড়তে চাইলেন অথচ লোকেরা (সাহাবীগণ) সবেমাত্র জামাত শেষ করেছে, তখন তিনি ঘরে ফিরে গেলেন এবং বাড়ির লোকদের একত্র করে জামাতে নামাজ পড়ালেন। (তাবরানি ৪৬০১)

শরিয়তে পুনরায় জামাত না করার প্রতি উদ্বুদ্ধ করার কারণ হলো, যেন মসজিদের প্রধান জামাতের গুরুত্ব হ্রাস না পায়। আর এ কারণে মসজিদটি যদি বাজার, পাবলিক প্লেস, রেল স্টেশন, বাসস্ট্যান্ড, বিমানবন্দর, লঞ্চঘাট ইত্যাদি জায়গায় হয়, তা হলে সেখানে একাধিকবার জামাত করা যাবে। তবে, দ্বিতীয় জামাতের জন্য আজান দেওয়া যাবে না। (ফতোয়ায়ে হিন্দিয়া, পৃষ্টা: ১৪১, খণ্ড: ১)

তথ্যসূত্র: দারুল উলুম দেওবন্দের উর্দু ওয়েবসাইট অবলম্বনে।
লেখক: শিক্ষক-মারকাযুদ দিরাসাহ আল ইসলামিয়্যাহ ঢাকা

/এফএ/

সম্পর্কিত

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৪

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে নোয়াখালী, কুমিল্লা, রংপুরসহ সারাদেশে সংগঠিত ‘সাম্প্রদায়িক হামলার’ প্রতিবাদে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে গণঅবস্থান কর্মসূচি পালন করছে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ৬টা থেকে তারা শাহবাগ জাতীয় জাদুঘর চত্বরে অবস্থান নেন।

সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই অবস্থান কর্মসূচি দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলবে এবং এরপর সংগঠনটি একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করার মাধ্যমে অবস্থান কর্মসূচি শেষ হবে।

সকাল ৭টার দিকে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাথে সংহতি প্রকাশের জন্য উপস্থিত হন সাবেক তথ্যমন্ত্রী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) নেতা হাসানুল হক ইনু। সংহতি জানিয়ে দেওয়া বক্তব্যে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক হামলার জন্য দুঃখ ও নিন্দা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘যারা এই আক্রমণ চালিয়েছে, তারা ধর্মান্ধ, জঙ্গি, সন্ত্রাসী এবং এই আক্রমণ ছিল পরিকল্পিত। এটা তাৎক্ষণিক কোনও উত্তেজনার ঘটনা নয়। তারা হিন্দু-মুসলিম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগাতে চেয়েছিল। কিন্তু বাংলাদেশের মুসলিম সমাজ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হস্তক্ষেপে দাঙ্গা লাগানো সম্ভব হয়নি।’

ইনু বলেন, ‘সমাজের দিকে যখন আমি তাকিয়েছি, তখন দেখেছি গ্রামে, পাড়ায়, মহল্লায় হিন্দু-মুসলিম সদভাব বজায় রাখছেন। এটাই হচ্ছে আশার কথা, এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। সাম্প্রদায়িক শক্তি, যারা আক্রমণ পরিচালনা করে তাদের একটা মাত্রা আছে। তারা পাকিস্তান পন্থায় বিশ্বাস করে, তারা একাত্তরের রাজাকারদের সাথে সম্পৃক্ত, জামায়াতে ইসলামীর সাথে সম্পৃক্ত ও সম্পর্কিত এবং বিএনপির সাথে তারা সম্পৃক্ত। বিএনপি রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী ও ধর্মান্ধদের ছাতা ধারাবাহিকভাবে ধরে রেখেছে এবং এরফলে জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। 

গণঅবস্থানে বক্তব্য রাখছেন হাসানুল হক ইনু

এধরনের ‘সাম্প্রদায়িক হামলা’র পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সেজন্য ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে জাসদের এই নেতা আরও বলেন, ‘হামলা ঠেকাতে না পারার জন্য দায়ী প্রশাসনের একটি অংশ। এই হামলার প্রতিবেদন দেখে আমার মনে হয়েছে এই হামলা ঠেকাতে কিছু ক্ষেত্রে ব্যর্থতা আছে, কিছু ক্ষেত্রে অদক্ষতা আছে, কিছু ক্ষেত্রে গাফেলতি আছে। নোয়াখালীসহ বেশ কয়েক জায়গায় আমি দেখেছি প্রশাসনের উদ্দেশ্যমূলক নিষ্ক্রিয়তা। এটা খুবই ভয়াবহ ঘটনা। এই ধরনের হামলা ঠেকাতে সাম্প্রদায়িক জঙ্গি গোষ্ঠীকে আর ছাড় দেওয়া যায় না।’

গণঅবস্থানে উপস্থিত হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, ‘কোরআন অবমাননার জন্য হিন্দুদের ওপর হামলা চালানো হয়নি। বরং তাদের ওপর হামলা চালানোর উদ্দেশ্যেই কোরআনকে তাদের মন্দিরে রেখে আসা হয়। হিন্দু-মুসলিম সম্প্রীতি পুনরুদ্ধারের জন্য রাজনৈতিক নেতাদের ভুমিকা রাখতে হবে। এবারের এই ঘটনা আমাদের মনে করিয়ে দিয়েছে শুধু প্রতিবাদ করলে হবে না, প্রতিরোধও গড়ে তুলতে হবে।

গণঅবস্থান কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেছেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিন্দ চন্দ্র ভৌমিক।

/ইউএস/

সম্পর্কিত

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২১

ইতিহাসের ধারবাহিকতায় জাতীয় প্রেসক্লাব আগামী দিনগুলোতেও দেশপ্রেম, গণতন্ত্র ও মানবিক মূল্যবোধে উদ্দীপ্ত থেকে বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা অব্যাহত রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

জাতীয় প্রেসক্লাবের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজধানীর তোপখানা রোডে ক্লাব প্রাঙ্গণে আয়োজিত কেক কাটা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মন্ত্রী প্রেসক্লাব সদস্যদের আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান এবং তাদের উজ্জ্বল কর্মময় জীবন কামনা করেন।

ড. হাছান বলেন, আমাদের পূর্বসুরীরা যে স্বপ্নে আপন প্রাণের মায়া ত্যাগ করে এদেশ স্বাধীন করে গেছেন, সবাই মিলে দেশকে সেই স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছে দেবার মধ্যেই আমাদের কর্মের সার্থকতা নিহিত।

অনুষ্ঠানে জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বিস্তারিতভাবে ক্লাবের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন। এসময় সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, সহ-সভাপতি হাসান হাফিজ ও রেজওয়ানুল হক রাজা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাইনুল আলম ও মো. আশরাফ আলী, কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা কমিটি ও বিভিন্ন উপকমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আমন্ত্রিত সাংবাদিক ও অতিথিদের মধ্যে সিনিয়র সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, শওকত মাহমুদ, মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, বিএফইউজে সভাপতি মোল্লা জালাল, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আবদুল মজিদ, ডিইউজে সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু প্রমুখ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

১৯৫৪ সালের ২০ অক্টোবর পূর্ব পাকিস্তান প্রেসক্লাব হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় জাতীয় প্রেসক্লাব। নীতিমালা অনুযায়ী নির্বাচিত কমিটির মাধ্যমে পরিচালিত এ ক্লাবের প্রথম আজীবন সদস্য হলেন এন এম খান এবং ক্লাবের প্রথম সভাপতি ছিলেন মুজীবুর রহমান খাঁ। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি বাহিনীর অপারেশন সার্চলাইটের সময় পুরো ক্লাব ভবনটি বিধ্বস্থ হয়ে যায়। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ৫ মার্চ তৎকালীন সভাপতি আবদুল আউয়াল খানের সভাপতিত্বে আনুষ্ঠানিক ক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় ক্লাবের নাম ‘জাতীয় প্রেসক্লাব’ হয়। খবর বাসস

/ইউএস/

সম্পর্কিত

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

সাক্ষাৎকার

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০০

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমছে। কিন্তু সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির শঙ্কা এখনও উড়িয়ে দিচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা। নিম্নমুখী ধারাটা অব্যাহত রাখতে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, করোনার এই নিম্নগতিতে আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই। মেনে চলতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। সেই সঙ্গে সমানতালে চালিয়ে যেতে হবে টিকাদান কর্মসূচি।

 

বাংলা ট্রিবিউন: সংক্রমণ পরিস্থিতি এখন কেমন?

ডা. মুশতাক হোসেন: দেশে এই মুহূর্তে সংক্রমণ নিম্নমুখী। এতে সন্দেহ নেই। মৃত্যুর সংখ্যাও কম। কিন্তু সংক্রমণ পরিস্থিতি পুরো বিশ্বজুড়েই রয়েছে। বিশ্বের কোথাও কোথাও আমাদের চেয়ে বেশি সংক্রমণ রয়েছে। আমাদের সংক্রমণ কমেছে, ভালো কথা। এটা বজায় রাখতে হলে শনাক্ত রোগীর ব্যবস্থাপনাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। অবহেলার কোনও সুযোগ নেই। সেই সঙ্গে বেশি টিকা দিলে, সংক্রমণ বাড়লেও মৃত্যুর সংখ্যা সে অনুপাতে না-ও বাড়তে পারে। মোদ্দা কথা, শনাক্ত রোগীর ব্যবস্থাপনা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং টিকাদান কর্মসূচি—সমানতালে চালিয়ে যেতে হবে।

বিশ্বের সব জায়গায় নিয়ন্ত্রণ না হলে কোনও একটি দেশ এককভাবে করোনা নিয়ন্ত্রিত থাকতে পারে না। নতুন ভ্যারিয়েন্টের উদ্ভব হতে পারে। সেটা আবার আক্রমণ করতে পারে।

যদি যথেষ্ট পরিমাণে সারা বিশ্বে টিকা না দেওয়া হয়, কোনও দেশ যদি একাই সব টিকা নিয়ে বসে থাকে, তাতেও কাজ হবে না। ভুটানের মতো দেশে বাংলাদেশের চেয়ে সংক্রমণ বেশি। এ কারণে বাংলাদেশে ভুটান থেকে কেউ এলে তাদেরকে সাত দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হচ্ছে।

 

বাংলা ট্রিবিউন: ভুটানের ব্যবস্থাপনায় কি ত্রুটি ছিল?

ডা. মুশতাক হোসেন: ভুটানের ব্যবস্থাপনা খুবই ভালো। কিন্তু ভ্যারিয়েন্টের উদ্ভব হয়েছে। সেই ভ্যারিয়েন্ট আক্রমণ করেছে। তাদের প্রস্তুতিতে আঘাত হেনেছে। কাজেই পুরো পৃথিবীর মানুষ যদি ভ্যাকসিন না পায়, সেক্ষেত্রে ভ্যারিয়েন্টের উদ্ভব হতে পারে। তখন ‘আপাত নিরাপদ’ দেশও আক্রান্ত হতে পারে।

 

বাংলা ট্রিবিউন: শিশুদের টিকা প্রদান নিয়ে কী ভাবছেন?

ডা. মুশতাক হোসেন: টিকার জন্য সারা বিশ্বে সমতা আনতে হবে। সমতা থাকতে হবে দেশের ভেতরও। দেশে বয়োজ্যেষ্ঠরা ঝুঁকিপূর্ণ। তাদেরকে টিকার আওতায় আরও বেশি করে আনার জন্য সরকারের বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া দরকার।

দেশে যারা প্রান্তিক মানুষ, দুর্গম এলাকা ও গ্রামে থাকেন, তারা যদি টিকা না পান, সংক্রমণ যদি আবার বাড়ে, তবে মৃত্যুর সংখ্যা কিন্তু আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো না।

এখনও বিপুল সংখ্যক ষাটোর্ধ্ব মানুষ টিকার আওতায় আসেননি। স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া হচ্ছে, এটা ভালো কথা। কিন্তু জোর দিতে হবে ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের ওপর। যদিও বাংলাদেশে ৫৫ বছর বলা হয়েছে। তথাপি, এই জনগোষ্ঠী যেন টিকার আওতার বাইরে না থাকে।

সেই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের পরিবার, বাড়ি, প্রতিবেশীরাও যেন টিকার বাইরে না থাকে। দুর্গম, প্রান্তিক ও গ্রামের মানুষদের টিকার নিবন্ধনে সহায়তা করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া দরকার। দেশের ভেতরে যদি আমরা সাম্যতা নিশ্চিত করতে না পারি, সেটা সমপরিমাণ বিপদ ডেকে আনবে।

দূরবর্তী অঞ্চলে ষাটোর্ধ্ব যারা রয়েছেন—সেখানে নিবন্ধন করাতে স্বাস্থ্যকর্মীদের নির্দেশ দিতে হবে। ইপিআই (সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি) ও রেড ক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবী যারা রয়েছেন তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিবন্ধন করিয়ে নেবেন। ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের ফোনে এসএমএস না এলেও তারা যেন কেন্দ্রে এসে টিকা নিতে পারেন সেই ব্যবস্থা করতে হবে।

টিকার এসএমএস অনেকেই পাচ্ছে না। কারণ যত মানুষ নিবন্ধন করেছেন, তত টিকা নেই। তাই বয়োজ্যেষ্ঠদের জন্য এটা উন্মুক্ত রাখা উচিত।

 

প্রসঙ্গত, দেশে ৫৫ কিংবা তদূর্ধ্ব বয়সসীমার ব্যক্তিদের জন্য সুযোগ রেখে করোনাভাইরাসের টিকার নিবন্ধন শুরু হয়েছিল চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি। পরে দ্বিতীয় দফায় বয়সসীমা কমিয়ে ৪০ বা তদূর্ধ্ব করা হয়। তৃতীয় দফায় ৩৫ বছর, চতুর্থ দফায় ৩০ বছর করা হয় ১৯ জুলাই। এরপর ২৯ জুলাই বয়সসীমা আরও কমিয়ে ২৫ বছর করা হয়।

২০ অক্টোবর টিকা নিতে নিবন্ধনের বয়স কমিয়ে ১৮ বছরে নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় সম্মুখসারিতে যারা কাজ করছেন, তাদের জন্য এই বয়সসীমা প্রযোজ্য নয়।

১৪ অক্টোবর মানিকগঞ্জের কয়েকটি স্কুলের ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী ১২০ জন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষামূলকভাবে ফাইজারের টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে।

সেদিন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, পর্যবেক্ষণ শেষে সারাদেশে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের করোনাভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে। ২১ অক্টোবর তিনি বলেছেন, ৩০ অক্টোবরের মধ্যে ১২-১৭ বছর বয়সীদের তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে আইসিটি মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর কথা রয়েছে। এই তালিকা পেলে এ মাসেই ওই বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান শুরু হবে।

/এমএস/এফএ/

সম্পর্কিত

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

মসজিদে একই ওয়াক্তে একাধিক জামাত করা যাবে কি?

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

সকাল ৬টা থেকে শাহবাগে গণঅবস্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ  

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

জাতীয় প্রেসক্লাব বহুমাত্রিক সমাজ নির্মাণে ভূমিকা রাখবে, প্রত্যাশা তথ্যমন্ত্রীর

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

রাজধানীতে ট্রেনের ধাক্কা ও কাটা পড়ে তিনজনের মৃত্যু

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ৭৪ শিক্ষার্থী

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে প্রায় ৭৪ শিক্ষার্থী

জবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, শিক্ষককে দায়ী করছেন স্বজন ও সহপাঠীরা

জবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, শিক্ষককে দায়ী করছেন স্বজন ও সহপাঠীরা

সব শিক্ষা অফিসের ইন্টারনেট সেবা সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছে সরকার

সব শিক্ষা অফিসের ইন্টারনেট সেবা সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছে সরকার

প্রাথমিকের অফিসে ই-ফাইলিং শুরু ৩১ অক্টোবর

প্রাথমিকের অফিসে ই-ফাইলিং শুরু ৩১ অক্টোবর

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের সাপ্তাহিক সূচি প্রকাশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের সাপ্তাহিক সূচি প্রকাশ

বৃহস্পতিবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

বৃহস্পতিবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু বৃহস্পতিবার

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু বৃহস্পতিবার

সবক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ নাম ব্যবহারের নির্দেশ

সবক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পূর্ণ নাম ব্যবহারের নির্দেশ

৬ নভেম্বর বুয়েটে ভর্তির মূল লিখিত পরীক্ষা দুই ঘণ্টা

৬ নভেম্বর বুয়েটে ভর্তির মূল লিখিত পরীক্ষা দুই ঘণ্টা

শিগগিরই ওয়াইফাই সংযোগ পাবে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়

শিগগিরই ওয়াইফাই সংযোগ পাবে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়

সর্বশেষ

মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা নিহত

মার্কিন ড্রোন হামলায় আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা নিহত

এখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজএখনও প্রণোদনার টাকা পাননি ৬৬ শতাংশ চিকিৎসক-নার্স

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাদ্রাসায় ‘ট্রেনিং সেন্টার’ করতে চেয়েছিল সন্ত্রাসীরা 

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাদ্রাসায় ‘ট্রেনিং সেন্টার’ করতে চেয়েছিল সন্ত্রাসীরা 

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত

তুষারপাত ও বৈরী আবহাওয়ায় ভারতে ১১ পর্বতারোহীর মৃত্যু

তুষারপাত ও বৈরী আবহাওয়ায় ভারতে ১১ পর্বতারোহীর মৃত্যু

© 2021 Bangla Tribune