X
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৩ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

গার্মেন্টস পণ্য চুরি

কাভার্ডভ্যানে জিপিএস, মহাসড়কে সিসিটিভি

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৪১

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে একের পর এক গার্মেন্ট পণ্য চুরির ঘটনায় উদ্বিগ্ন পোশাক রফতানিকারকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট অভিযান চালিয়ে একাধিক চক্রকে গ্রেফতার করলেও থামানো যাচ্ছে না চুরি। পণ্যের চালান বিদেশি ক্রেতার কাছে পৌঁছার পরই মূলত ঘটনা জানাজানি হয়। যাতে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদের জরিমানা গোনার পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে দেশের সুনামও। এই অবস্থায় চুরি ঠেকাতে বিশেষ ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাভার্ডভ্যানে বাধ্যতামূলক জিপিএস বসানোসহ মহাসড়কে সিসিটিভি ক্যামেরাও বসানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে গত ১৩ জুলাই পোশাক রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে হাইওয়ে পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মল্লিক ফখরুল ইসলামকে প্রধান করে একটি কমিটি করা হয়। এরপরই উদ্যোগী হয় হাইওয়ে পুলিশ।

কমিটির সদস্য সচিব পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট) মোশারফ হোসেন মিয়াজী বলেন, ‘নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। শিগগিরই চুরি নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। এ সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করার প্রক্রিয়াও চলছে।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, গার্মেন্টস পণ্য চুরিতে মূলত কাভার্ডভ্যানের চালকরাই জড়িত থাকে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় রীতিমতো গোডাউন ভাড়া করে চোরাই পণ্য রাখে চক্রের সদস্যরা। কোনও কাভার্ডভ্যান যেন মহাসড়ক ছেড়ে আশপাশের গোডাউনে ঢুকতে না পারে সেজন্য জিপিএস সিস্টেম চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে গার্মেন্টস মালিকদেরও এ বিষয়ে জানানো হচ্ছে। জিপিএস প্রযুক্তি লাগানো থাকলে কাভার্ডভ্যানটি অন্য পথে যাচ্ছে কিনা বা কোথাও দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকছে কিনা তা নজরদারি করা যাবে।

হাইওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, জিপিএসের পাশাপাশি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ৪৯০টি পয়েন্টে অত্যাধুনিক সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হবে। এক কিলোমিটার পর পর বিভিন্ন দিকে তাক করা মোট ১৫৯০টি সিসিটিভি ক্যামেরা থাকবে। হাইওয়ে পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে পুরো বিষয়টি নজরদারি করা হবে। এতে মহাসড়কে সংঘটিত অন্য অপরাধও নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, কমিটির সভায় আরও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গার্মেন্ট কারখানা থেকে কাভার্ডভ্যানে পণ্য ওঠানোর আগে চালকের ছবি তুলে রাখা এবং মোবাইল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য সংরক্ষণ করা হবে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আরেক কর্মকর্তা জানান, চুরির বিষয়ে গার্মেন্ট কারখানা মালিকদেরও কিছু অবহেলা রয়েছে। কোটি কোটি টাকার পণ্য পাঠানোর সময় পরিবহনের সঙ্গে একজন প্রতিনিধি পাঠানো হলেও চুরি কিছুটা ঠেকানো যেতে পারে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ চালকের ওপর ভরসা করে পণ্য বন্দরে পাঠানোর ঝুঁকি নিচ্ছেন।

হাইওয়ে পুলিশের কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার রহমত উল্লাহ বলেন, ‘মহাসড়কে আমরা নিয়মিত টহল দিয়ে থাকি। আশা করছি চুরির ঘটনা শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসা যাবে।’

সম্প্রতি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গার্মেন্ট পণ্য চুরি চক্রের হোতাসহ সাত জনকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের সদস্যরা জানিয়েছে, অনেক কাভার্ডভ্যান চালক কারখানায় যাওয়ার আগে গাড়ির নম্বর প্লেট বদলে ভুয়া ড্রাইভিং লাইসেন্সের কপি দিয়ে আসে। যাতে চুরির পর চালককে শনাক্ত না করা যায়।

বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্য পরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব চৌধুরী জাফর আহম্মদ বলেন, ‘আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গার্মেন্ট কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বসে যৌথভাবে একটি নীতিমালা করছি। এটি বাস্তবায়ন হলে চুরি ঠেকানো যাবে।’

তিনি বলেন, ‘কাভার্ডভ্যান ভাড়া নেওয়ার আগে ওই চালক বা গাড়ির মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হওয়া এবং চালক কোনও ইউনিয়নের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে। সেক্ষেত্রে চুরি হলে চালককে শনাক্ত করা সহজ হবে। আরও কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আশা করছি সবাই মিলে চুরি ঠেকাতে পারবো।’

 

 

/এফএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

লক্ষ্মীপূজা আজ

লক্ষ্মীপূজা আজ

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

লক্ষ্মীপূজা আজ

আপডেট : ২০ অক্টোবর ২০২১, ০০:৩২

হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান শ্রী শ্রী লক্ষ্মীপূজা আজ বুধবার (২০ অক্টোবর)। শারদীয় দূর্গা উৎসবের পর হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান ধর্মী উৎসব এই লক্ষ্মীপূজা। 

লক্ষ্মী ধনসম্পদ তথা ঐশ্বর্যের দেবী হিসেবে পূজিত হন। এ ছাড়া উন্নতি (আধ্যাত্মিক ও পার্থিব), আলো, জ্ঞান, সৌভাগ্য, দানশীলতা, সাহস ও সৌন্দর্যের দেবীও তিনি। শারদীয় দুর্গোৎসব শেষ হওয়ার পরবর্তী পূর্ণিমা তিথিতে হিন্দু সম্প্রদায় লক্ষ্মীপূজা উদযাপন করে থাকে। হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম এই ধর্মীয় উৎসবটি কোজাগরি লক্ষ্মীপূজা নামেও পরিচিত। 

রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির, রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠ মন্দির, রামসীতা মন্দির, পঞ্চানন্দ শিব মন্দির, গৌতম মন্দির, রাধা মাধব বিগ্রহ মন্দির, রাধা গোবিন্দ জিও ঠাকুর মন্দিরসহ বিভিন্ন মন্দির এবং পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার, তাঁতীবাজার, সূত্রাপুর, ফরাশগঞ্জ, লক্ষ্মীবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় লক্ষ্মীপূজার বিভিন্ন ধর্মীয় কর্মসূচি আয়োজন করা হয়েছে।

/এমআর/

সম্পর্কিত

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ঢাবির সুফিয়া কামাল হলের আগুন নিয়ন্ত্রণে

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২২:০৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুফিয়া কামাল হলের আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাতে ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া সেলের কর্মকর্তা শাহজাহান শিকদার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাত সোয়া ৯টায় সুফিয়া কামাল হলের ১০ তলায় আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

রাত ৯ টা ১৮ মিনিটে আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি বলেও তিনি জানান।

/এআরআর/এমআর/

সম্পর্কিত

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সাহিত্যিক-শিল্পী ও সাংবাদিকদের বিক্ষোভ সমাবেশ

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সাহিত্যিক-শিল্পী ও সাংবাদিকদের বিক্ষোভ সমাবেশ

ভবনে ৬ মাসের মধ্যে সেপটিক ট্যাংক না বসালে ব্যবস্থা: মেয়র আতিক

ভবনে ৬ মাসের মধ্যে সেপটিক ট্যাংক না বসালে ব্যবস্থা: মেয়র আতিক

সব সম্প্রদায়ের ধর্ম পালনের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে: ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি

সব সম্প্রদায়ের ধর্ম পালনের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে: ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি

পুনর্বাসনের দাবিতে ফুলবাড়ীয়া রেলওয়ে কলোনি বস্তিবাসীর বিক্ষোভ

পুনর্বাসনের দাবিতে ফুলবাড়ীয়া রেলওয়ে কলোনি বস্তিবাসীর বিক্ষোভ

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২১:৫৭

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও গুলশান সোসাইটির মধ্যে পৃথক দুটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে এ চুক্তি সই সম্পন্ন হয়।

ঢাকার অন্যতম প্রসিদ্ধ আবাসিক কমিউনিটি গুলশান সোসাইটি। গুলশান এলাকার অধিবাসীদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত একটি সমাজ সেবামূলক প্রতিষ্ঠান এটি। রাজউক, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন, ডেসকো এবং ওয়াসার মতো সংস্থাগুলোর সঙ্গে সমন্বয় ও পার্টনারশিপের মাধ্যমে নাগরিক সমস্যা সমাধানে সক্রিয় গুলশান সোসাইটি। এরই ধারাবাহিকতায় গুলশান লেকপার্ক ও গুলশান-বনানী লেক ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে নতুন এ সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে।

সমঝোতা স্মারকে গুলশান সোসাইটির পক্ষে সই করেন সোসাইটির সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার শুক্লা সারওয়াত সিরাজ এবং রাজউকের পক্ষে সই করেন চেয়ারম্যান এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গৃহায়ন  ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ। 

এই সমঝোতা স্মারকের ফলে রাজউকের পক্ষ থেকে গুলশান-বনানী-বারিধারা লেকের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করবে গুলশান সোসাইটি। এছাড়া রাজউকের মালিকানাধীন গুলশান লেক পার্কের ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করবে সোসাইটি। রাজউক ও গুলশান সোসাইটির এই যৌথ কার্যক্রম পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের একটি প্রশংসনীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে ইতোমধ্যেই স্বীকৃতি লাভ করেছে।

এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার, রাজউকের মেম্বার ডেভলপমেন্ট মেজর অব.  শামছুদ্দীন আহমেদ চৌধুরী, ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মফিজুর রহমান।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন গুলশান সোসাইটির সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার শুক্লা সারওয়াত সিরাজ, সমাপনী বক্তব্য রাখেন গুলশান সোসাইটির ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট মাহিন খান। এ ছাড়া বক্তব্য রাখেন— গুলশান সোসাইটির লেক পার্ক  ম্যানেজমেন্ট কমিটির সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হোসনে আরা আহসান ও  ইভা রহমান।

 

/এসএস/এইপএইচ/

সম্পর্কিত

লক্ষ্মীপূজা আজ

লক্ষ্মীপূজা আজ

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২১:২৫

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তারা হলেন নজরুল ইসলাম (৬০) ও তার স্ত্রী সৈয়দা তামান্না শাহেরীন (৬৩)। এছাড়া তাদের সঙ্গে তামান্নার ভাই সৈয়দ হাসান শিবলীকে একই মামলায় আসামি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) দুদকের উপ-পরিচালক আশীষ কুমার কুণ্ডু বাদী হয়ে সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা-১-এ মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে অসৎ উদ্দেশে মানি লন্ডারিং, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ৬ কোটি ১৭ লাখ ৩১ হাজার ৭৬৩ টাকার সম্পদ অর্জন করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর ২৭ (১) ধারা এবং মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২-এর ৪(২) এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ১৯৪৭-এর ৫(২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, দুদকের অনুসন্ধানে সাবেক প্রকৌশলী নজরুল ইসলামের স্থাবর সম্পদ হিসাবে নিজ নামীয় দলিলে পল্লবী এলাকায় জমি এবং উত্তরা দিয়াবাড়ি এলাকায় তিন কাঠার একটি জমির সন্ধান পাওয়া গেছে। এছাড়া ঝিনাইদহে হেবামূলে প্রায় তিন শতাংশ জমিসহ তার প্রায় ৩০ লাখ টাকার মোট স্থাবর সম্পত্তির সন্ধান পাওয়া গেছে। এছাড়া অস্থাবর সম্পত্তি হিসাবে ইস্টার্ন ব্যাংকের প্রিন্সিপাল শাখা ও যমুনা ব্যাংকে ১৫টি ব্যাংক হিসাবে জামানত হিসাবে মোট ৮ কোটি টাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

দুদক কর্মকর্তারা জানান, সাবেক প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম ১৯৮৮ সালে সহকারী প্রকৌশলী হিসাবে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরে যোগ দেন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে তিনি তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন। তার অস্থাবর সম্পত্তির মধ্যে সরকারি চাকরির আগে সঞ্চয় ও চাকরি জীবনের সঞ্চয় ও অন্যান্য আয় হিসাবে ২ কোটি ৩৮ লাখ ১৩ হাজার ৯৩৭ টাকা গ্রহণযোগ্য বিবেচনা করা হয়েছে। ২০১০-১১ করবর্ষে নজরুল ইসলাম তার স্ত্রী তামান্না শাহেরীনের কাছ থেকে ২ কোটি টাকা এবং ২০১৯-২০ করবর্ষে ৪ কোটি টাকাসহ ৬ কোটি টাকা দান হিসাবে গ্রহণ করার কোনও গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি।

সূত্র জানায়, অনুসন্ধানে দুদক কর্মকর্তারা জানতে পারেন প্রকৌশলী নজরুল ইসলামের স্ত্রী সৈয়দা তামান্না শাহেরীন একজন গৃহিনী। তিনি আয়ের উৎস হিসেবে খামার ও মৎস্য চাষের কথা উল্লেখ করলেও এ বিষয়ে কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। সুতরাং তার পক্ষে স্বামী নজরুল ইসলামকে ৬ কোটি টাকা দানের বিষয়টি গ্রহণযোগ্য হিসেবে প্রতীয়মান হয়নি। এসব অর্থ ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে আয় করে এবং অবৈধ উৎস গোপন করার লক্ষ্যে নগদ এফডিআর করে মানি লন্ডারিং করা হয়েছে বলে দুদক মনে করছে।

দুদক কর্মকর্তার জানান, প্রকৌশলী সৈয়দা তামান্না শাহেরীনের নিজের নামে ঢাকার ধানমন্ডি ১৫ নম্বর সড়কের ১৭ নম্বর ভবনে একটি ফ্ল্যাটের সন্ধান পাওয়া গেছে। এছাড়া তার নামে নিকুঞ্জ আবাসিক এলাকায় ২ কাঠা ৮ ছটাক আয়তনের একটি প্লট পাওয়া গেছে। তার কোনও বৈধ আয় না থাকায় স্বামীর অবৈধ অর্থে নিজের নামে সম্পত্তি ক্রয় করে বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। এজন্য তাকেও মামলায় আসামি করা হয়েছে।

/এনএল/জেএইচ/

সম্পর্কিত

লক্ষ্মীপূজা আজ

লক্ষ্মীপূজা আজ

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২১:০৯

দেশে এ পর্যন্ত টিকা এসেছে মোট ৭ কোটি ১৫ লাখ ৭২ হাজার ৪২০ ডোজ। এর মধ্যে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) ৫ কোটি ৮৮ লাখ ১ হাজার ৫৫ ডোজ  দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই মুহূর্তে টিকা মজুত আছে আর ১ কোটি ২৭ লাখ ৬৯ হাজার ৩৬২ ডোজ। এ পর্যন্ত প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৩ কোটি ৯১ লাখ ৬৮ হাজার ৯৪৮ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ১ কোটি ৯৬ লাখ ৩২ হাজার ১০৭ জন। মঙ্গলবার একদিনে দুই ডোজ মিলিয়ে দেওয়া হয়েছে মোট ৫ লাখ ৬২ হাজার ২৭৪ ডোজ টিকা। 

এগুলো দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকা, চীনের তৈরি সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্নার টিকা।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেওয়া তথ্যমতে, আজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪১ হাজার ২২৯ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে এক হাজার ১২৯ জনকে।

পাশাপাশি আজ  ফাইজারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ২১ হাজার ৩ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে এক হাজার ৯৭৮ জনকে।

এছাড়া সিনোফার্মের টিকা আজ  প্রথম ডোজ নিয়েছেন দুই লাখ ৬৮ হাজার ৫২৮ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন দুই লাখ ২৮ হাজার ৪০৭ জন। 

এছাড়া মডার্নার টিকা আজও  কাউকে দেওয়া হয়নি।

সারা দেশে এ পর্যন্ত টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন মোট ৫ কোটি ৫০ লাখ ৩৫ হাজার ৬৭৬ জন।

/এসও/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

লক্ষ্মীপূজা আজ

লক্ষ্মীপূজা আজ

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

লক্ষ্মীপূজা আজ

লক্ষ্মীপূজা আজ

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

গুলশান সোসাইটি ও রাজউকের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ধূমপান প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির কোনও বিকল্প নেই: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ইভ্যালির তদন্ত থেকে সরে এলো দুদক

ইভ্যালির তদন্ত থেকে সরে এলো দুদক

প্রস্তাবিত ‘মেরিটাইম জোন আইন’ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মতামত নেওয়া হবে

প্রস্তাবিত ‘মেরিটাইম জোন আইন’ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মতামত নেওয়া হবে

শাহজালালে পাকস্থলীতে ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

শাহজালালে পাকস্থলীতে ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

ডিসেম্বরের মধ্যে করোনা টিকার আওতায় ৩০ শতাংশ মানুষ: সালমান এফ রহমান

ডিসেম্বরের মধ্যে করোনা টিকার আওতায় ৩০ শতাংশ মানুষ: সালমান এফ রহমান

সর্বশেষ

যুক্তরাষ্ট্রে বিমান বিধ্বস্ত, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো ২১ আরোহী

যুক্তরাষ্ট্রে বিমান বিধ্বস্ত, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো ২১ আরোহী

৫ গোলে জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ, আতলেতিকোকে হারালো লিভারপুল

৫ গোলে জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ, আতলেতিকোকে হারালো লিভারপুল

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

মেসির জোড়ায় পিএসজির রোমাঞ্চকর জয়

মেসির জোড়ায় পিএসজির রোমাঞ্চকর জয়

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

© 2021 Bangla Tribune