X
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

সাইক্লিং নিরাপদে ১০ সুপারিশ

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩২

আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস। দিবসটি উপলক্ষে সাইকেল র‌্যালির আয়োজন করেছে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) ও বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিং। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় জাদুঘরের সামনে থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে সংগঠন দুটি। সমাবেশে বক্তারার সাইক্লিং নিরাপদে ১০টি সুপারিশ করেছে।

সুপারিশগুলো হলো:

১. সাইকেল নেটওয়ার্ক তৈরি করা।

২. সাইকেলবান্ধব অবকাঠামো তৈরি।

৩. সাইকেল আরোহীদের আরও সচেতনভাবে সাইকেল চালানোর জন্য সতর্ক করা এবং নিয়ম মেনে সাইকেল চালাতে উৎসাহিত করা।

৪. সাইকেল লেন ব্যবহার করার প্রতি সচেতনতা সৃষ্টি করা।

৫. পরিবেশবান্ধব এই বাহনটি ব্যবহারের সুবিধা নিয়ে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সাইক্লিংয়ের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৬. দুর্ঘটনা রোধ করার জন্য নিরাপদ সড়ক ও সাইকেল লেনের ব্যবস্থা করা।

৭. যে স্বল্প পরিমাণ সাইকেল লেন আছে তা দখলমুক্ত করে নিরাপদ সাইক্লিং করার নিশ্চয়তা প্রদান করা।

৮. পারিবারিকভাবে সন্তানকে সাইকেল চালানোয় উৎসাহিত করার জন্য জনমত গড়ে তোলা।

৯. দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে সাইকেল পার্কিংয়ের সুব্যবস্থা রাখতে হবে।

১০. দেশি-বিদেশি ট্যুরিস্ট সাইক্লিস্টনের সরকারি সুযোগ সুবিধায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

 

/আইএ/

সম্পর্কিত

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

ধর্মের নামে উন্মাদনা সৃষ্টিকারীরা রাষ্ট্রকে অকার্যকর দেখাতে চায়: শাজাহান

ধর্মের নামে উন্মাদনা সৃষ্টিকারীরা রাষ্ট্রকে অকার্যকর দেখাতে চায়: শাজাহান

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

ফেরি দুর্ঘটনা তদন্তে ৭ সদস্যের কমিটি

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৭

রো রো ফেরি শাহ আমানত দুর্ঘটনার কারণ তদন্তে সাত সদস্যের কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে নৌপরিবহন সচিবের কাছে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাতে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার জাহাঙ্গীর আলম খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) সুলতান আব্দুল হামিদকে কমিটির আহ্বায়ক এবং বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক (কারিগরি) মো. রাশেদুল ইসলামকে সদস‍্য সচিব করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন— বিআইডব্লিউটিএ'র পরিচালক (আইসিটি)  রকিবুল ইসলাম তালুকদার, নৌপরিবহন অধিদফতরের নটিক‍্যাল সার্ভয়ার  অ্যান্ড এক্সামিনার ক্যাপ্টেন সাঈদ আহমেদ, মানিকগঞ্জ জেলার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক, বুয়েটের নেভাল আর্কিটেকচার অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের সহযোগী অধ‍্যাপক ড. জুবায়ের ইবনে আউয়াল এবং নৌপুলিশের ফরিদপুর অঞ্চলের পুলিশ সুপার মো. জসিম উদ্দিন।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় বুধবার এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করেছে।

 

/এসএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী নিতে কেন মরিয়া ইউজিসি?

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী নিতে কেন মরিয়া ইউজিসি?

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

বিমানের সিঙ্গাপুর ফ্লাইট শুরু ২৮ অক্টোবর

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৭

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুরে যাত্রী পরিবহন শুরু করতে যাচ্ছে। গত ৪ মে বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুরে যাত্রী পরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। তবে সিঙ্গাপুর থেকে যাত্রীরা  বাংলাদেশে আসতে পারতেন।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বিমান। ঢাকা থেকে সিঙ্গাপুর যেতে হলে যাত্রীদেরকে অবশ্যই সিঙ্গাপুর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক দেশটিতে প্রবেশের অনুমতিপত্র গ্রহণ করতে হবে।

বিমান জানিয়েছে, ২৮ অক্টোবর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত সপ্তাহে প্রতি বৃহস্পতিবার এবং ১৩ নভেম্বর থেকে সপ্তাহে প্রতি শনিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান। ঢাকা থেকে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টায় সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে বিমানের ফ্লাইট ছেড়ে যাবে এবং সিঙ্গাপুর থেকে সেখানকার স্থানীয় সময় বিকাল ৩টা ৫০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবে।

যাত্রীরা বিমানের যে কোনও সেলস অফিস এবং অনুমোদিত ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে টিকেট ক্রয় করতে পারবেন। সিঙ্গাপুর যেতে হলে যাত্রীদেরকে অবশ্যই সিঙ্গাপুর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক দেশটিতে প্রবেশের অনুমতিপত্র গ্রহণ করতে হবে।

তাছাড়া, অনুমোদিত কোভিড-১৯ এর টিকার পূর্ণ ডোজ সম্পন্ন করা থাকতে হবে যাত্রীদের। ফাইজার, মডার্না, অ্যাস্ট্রাজেনেকা, সেরামের কোভিশিল্ড, সিনোফার্ম, সিনোভ্যাক টিকার যে কোন একটির ২ ডোজ এবং জনসনের টিকার ক্ষেত্রে ১ ডোজ নেওয়ার কমপক্ষে ১৪ দিন পর থেকে সিঙ্গাপুরে যাওয়া যাবে।

২ বছরের বেশি বয়সী যাত্রীদেরকে ফ্লাইট ছাড়ার পূর্ববর্তী সর্বোচ্চ ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে এবং নেগেটিভ সনদ থাকতে হবে। সিঙ্গাপুর পৌঁছে ১০ দিন হোটেল কোয়ারেন্টাইন থাকতে হবে। কোয়ারেন্টাইনের তৃতীয় ও সপ্তম দিনে নিজ খরচে অ্যান্টিজেন র‍্যাপিড টেস্ট করাতে হবে এবং ১০ম দিনে নিজ খরচে কোভিড-১৯ পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য ভ্রমণে গেলে যাত্রীদেরকে চাঙ্গি বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে যার জন্য পূর্বেই অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন ও ফি প্রদান করতে হবে। সিঙ্গাপুর যাওয়ার পূর্বে মোবাইলে ‘Trace Together’ অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে।

সিঙ্গাপুর বিমানবন্দরে যাত্রীদেরকে অভ্যর্থনা জানানোর জন্য বাইরের কোন ব্যক্তি প্রবেশ করতে পারবেন না। সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে আসতে হলে ১২ বছরের বেশি বয়সী যাত্রীদেরকে ফ্লাইট ছাড়ার পূর্ববর্তী সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে এবং নেগেটিভ সনদ থাকতে হবে। করোনা টিকা নেওয়া না থাকলে বাসায় যেয়ে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর করোনার লক্ষণ দেখা গেলে যাত্রীকে সরকার নির্ধারিত হোটেলে নিজ খরচে কোয়ারেন্টাইন থাকতে হবে।

/সিএ/এমএস/

সম্পর্কিত

ফ্লাইটে যাচ্ছেন না পাইলটরা, বিমানের শিডিউল বিপর্যয়ের শঙ্কা

ফ্লাইটে যাচ্ছেন না পাইলটরা, বিমানের শিডিউল বিপর্যয়ের শঙ্কা

দিল্লি-কলকাতায় ফ্লাইট বাড়ালো বিমান

দিল্লি-কলকাতায় ফ্লাইট বাড়ালো বিমান

পুনরায় চালু হচ্ছে কুয়েত, কাঠমান্ডু ও মদিনা রুটে বিমানের ফ্লাইট

পুনরায় চালু হচ্ছে কুয়েত, কাঠমান্ডু ও মদিনা রুটে বিমানের ফ্লাইট

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী নিতে কেন মরিয়া ইউজিসি?

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৯

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন উপাচার্যরা। একই প্রশ্ন ট্রাস্টিদের সংগঠন বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির। চলমান সফল তিন সেমিস্টার পদ্ধতি কমিয়ে এনে কেন দুই সেমিস্টার করতে হবে তা বোধগম্য নয় কারও। তারা বলছেন, ‘হঠাৎ চাপিয়ে দেওয়া এই নির্দেশনা বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষার্থীদের ওপর আর্থিক চাপ তৈরি করবে। তাহলে কার স্বার্থে মরিয়া হয়ে দুই সেমিস্টার পদ্ধতি চালুর উদ্যোগ নিয়েছে ইউজিসি?’

গত ৯ আগস্ট দেশের সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারদের চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘২০২১ সালের পর বছরে দুই সেমিস্টার ছাড়া শিক্ষার্থী ভর্তি হলে কমিশনের কাছে তা গ্রহণযোগ্য হবে না।’ শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরির চিঠিতে এই নির্দেশনা জুড়ে দিয়েছে ইউজিসি। এতে ২০২২ সালের জুলাই থেকে দুই সেমিস্টার রাখার কথা বলা হয়।

ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক বিশ্বজিত চন্দ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আগের চিঠিতে বলা হয়েছিল ২০২১ সালের পর থেকে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে হবে। দ্বিতীয় চিঠিতে সেই সময় বাড়িয়ে ২০২২ সালের জুলাই থেকে করা হয়েছে। দ্বিতীয় চিঠি অনুসরণ করতে হবে।’

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি ও উপাচার্যদের মন্তব্য, ‘বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে তিন সেমিস্টার চালু আছে। কোথাও চার সেমিস্টারও রয়েছে। অথচ হঠাৎ বলা হচ্ছে, দুই সেমিস্টার ছাড়া শিক্ষার্থী ভর্তি গ্রহণযোগ্য হবে না। শিক্ষাক্রমের বিষয়ে কোনও আলোচনা ছাড়াই এমন সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটি অনাকঙ্ক্ষিত ও দুঃখজনক।’

বিশ্বের অন্যান্য দেশে তিন সেমিস্টার থাকার বিষয়টি জানিয়ে মন্তব্য চাইলে ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীরের দাবি, ‘বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তিন সেমিস্টার আছে ঠিকই, কিন্তু শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয় দুই সেমিস্টারে।’

শিক্ষার্থীদের ইউনিক পরিচিতি নম্বর প্রসঙ্গে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মোফিজুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের একটি নিবন্ধন নম্বর থাকেই। তাহলে কেন হঠাৎ এত বড় একটি পরিচিতি নম্বর তৈরি হচ্ছে? পৃথিবীর অন্য কোথাও কিন্তু এত বড় নম্বর নেই।’

সংশ্লিষ্টদের মতে, দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক বিষয় অনুমোদন দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল। অ্যাকাডেমিক বিষয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তির শর্তারোপ আইনে নেই, এ কারণে শিক্ষার্থী ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর নতুনভাবে চাপ সৃষ্টি হবে। একইসঙ্গে শিক্ষাক্রমে বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে।

ইউজিসি’র নতুন শর্ত জুড়ে দেওয়ার বিষয়ে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে নিজের অভিমত ব্যক্ত করেছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির সভাপতি শেখ কবির হোসেন। তার মন্তব্য, ‘যারা নতুন বিষয় চালু করতে চায় তাদের এই শর্ত দেওয়া হচ্ছে, যা আইনের মধ্যে পড়ে না। দুই সেমিস্টার হলে শিক্ষার্থীদের একসঙ্গে বেশি টাকা দিতে হবে। এতে শিক্ষার্থীদের ওপর আর্থিক চাপ পড়বে।’

একই মন্তব্য করেছেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ-এর ট্রাস্টি বোর্ডের জ্যেষ্ঠ অ্যাডভাইজার অধ্যাপক ড. এইচ এম জহিরুল হক। তিনি বলেন, ‘দুই সেমিস্টার চালালে শিক্ষার্থীদের ওপর আর্থিক চাপ সৃষ্টি হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। তাছাড়া তিন সেমিস্টার সফলভাবেই চলে আসছে। সফলভাবে চলা একটি নীতি বাদ দিয়ে নতুন প্রক্রিয়া শুরু না করাই শ্রেয়।’

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির সভাপতির দাবি, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তো সেভাবে ছুটি নেন না। সরকারি বা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা মাসের পর মাস ছুটিতে থাকেন। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সবসময় খোলা থাকে।’

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মোফিজুর রহমানের মতে, ‘আমাদের দেশে যেসব বিশ্ববিদ্যালয় ভালো করছে সেগুলোর অধিকাংশই ট্রাই-সেমিস্টার পদ্ধতিতে চলে আসছে। দুই সেমিস্টার পদ্ধতি চালু হলে একজন শিক্ষার্থীকে ছয়-সাতটি কোর্স নিতে হবে। ফলে তাদের বেশি কোর্সের চাপ নিয়ে পড়াশোনার বিষয়টি ভাবা প্রয়োজন। এসব সামাল দিতে সেকশন বেশি রাখতে হবে, ক্লাসরুম বেশি দরকার, শিক্ষকও বেশি লাগবে। আমার মতে এর কোনও মানে নেই।’

অ্যাকাডেমিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের ক্ষমতা থাকলেও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে নির্দেশনা দেয় ইউজিসি। সংশ্লিষ্টদের মতে, ‘এটি ইউজিসির ক্ষমতা দেখানো ছাড়া আর কিছুই নয়।’

এ প্রসঙ্গে বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে কথা বলেছেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. এম. আনিছুর রহমান। তার অভিমত, ‘করোনাকালে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিপর্যয়ের মধ্যে রয়েছে। এর মধ্যে কোনও আলোচনা ছাড়াই দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তির নির্দেশনায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচিতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হবে। নতুন করে পাঠ্যক্রমে পরিবর্তন আনতে হলে চাপে পড়বে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থীদেরও দুই দফায় পুরো বছরের টাকা পরিশোধ করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এমনিতেই ছাত্র-ছাত্রী পাচ্ছে না, সেখানে হঠাৎ এমন সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় আরও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে।’

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থীর মন্তব্য, ‘দুই সেমিস্টার করা হলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দুইবারেই একবছরের টাকা নিয়ে নেবে। সেক্ষেত্রে আমাদের ওপর আর্থিক চাপ বাড়বে। যদি তিন বা চার ভাগে টাকা নেয় তাহলে আমাদের জন্য সুবিধাজনক। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সেই সুযোগ রাখতে পারবে বলে আমার মনে হয় না।’

দুই সেমিস্টারের কারণে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচিতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির শঙ্কার বিষয়টি তুলে ধরলে ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক বিশ্বজিৎ চন্দ উল্লেখ করেন, দুই সেমিস্টারের পাঠ্যসূচির জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তার পরামর্শ, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রয়োজনে সেকশন করতে পারে, আসন বাড়াতে পারে। শিক্ষক ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো বিবেচনায় তা করা যেতে পারে। কিন্তু তিন সেমিস্টারে ভর্তি করানো যাবে না।’

ইউজিসি’র আরেক সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীর নতুন নির্দেশনা নিয়ে বাংলা ট্রিবিউনের সঙ্গে কথা বলেছেন । তার ভাষ্য, ‘একটি শিক্ষাবর্ষে তিন সেমিস্টার থাকতেই পারে। তবে মূল সেমিস্টার হবে দুটি। মূল দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে হবে। যদি কোনও কারণে কোনও শিক্ষার্থী খারাপ করে তাহলে একটি সংক্ষিপ্ত সেমিস্টার থাকতে পারে। ফেল করা শিক্ষার্থীরা সংক্ষিপ্ত ওই সেমিস্টারের মাধ্যমে কাভার করবে। তৃতীয় সেমিস্টারে সংক্ষিপ্ত কোর্স চালানো যেতে পারে, তবে সাধারণ ভর্তি নয়। তিনটি সেমিস্টার হলে একটি সেমিস্টার শেষ না হতেই আরেকটি সেমিস্টার শুরু হয়ে যায়। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তিন সেমিস্টারেই শিক্ষার্থী ভর্তি করায়। সে কারণে ছাত্রদের সময় কম থাকে। পাঠদান করা যায় না।’

দুই সেমিস্টারের ফলে বরং শিক্ষার্থীদের লাভ দেখছেন অধ্যাপক আলমগীর, ‘দুই সেমিস্টার করে চার বছরে শিক্ষার্থীরা শেষ করবে। বছরে দুইবার সেমিস্টারের ফি দিতে হবে তাদের। কিন্তু তিন সেমিস্টার থাকলে বছরে তিনবার সেমিস্টার ফি দিতে হবে। বাকি ক্রেডিটের টাকা তো একই থাকে। একজন শিক্ষার্থী কি শুধু ক্লাস করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়? একটি সেমিস্টার শেষের পর শিক্ষার্থীর জন্য একটি বিরতি দরকার। বিদেশে তো তিন মাস বন্ধই থাকে বিশ্ববিদ্যালয়। যারা ফেল করে ওই সময় তারা তৃতীয় সেমিস্টারে কাভার করে নেয়। পাস করা শিক্ষার্থীদের তার দরকার হয় না।’

 

 

 

 

    

/এসএমএ/এসএএস/জেএইচ/

সম্পর্কিত

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

প্রশ্নফাঁসের গুজব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী

প্রশ্নফাঁসের গুজব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা: সাংবাদিক ইমন কারাগারে

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪৬

ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সাবেক সভাপতি জাকির হোসেন ইমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসীর আদালত ওই আদেশ দেন। আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখা থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

আজ বুধবার (২৭ অক্টোবর) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আসামিকে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করেন। এরপর তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী জামিনের জন্য আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দিবাগত রাতে রামপুরার নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি এক নারী সহকর্মীর ব্যক্তিগত ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে অপপ্রচার চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগে এ মামলা হয়।’

‘ইমন তার সহকর্মীর ব্যক্তিগত কিছু ছবি ও তথ্য গণমাধ্যমের কালোবিড়াল নামের একটি ফেসবুক পেজে পোস্ট দেন। এছাড়াও একই বার্তা ও পেজ লিঙ্ক শতাধিক সহকর্মীকে ইনবক্সে পাঠান।’ রাতভর জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এসব কথা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন ওসি রফিকুল ইসলাম।

/এমএইচজে/এমএস/

সম্পর্কিত

মাদকের নতুন রুটের বিষয়ে ভারতকে জানালো বাংলাদেশ

মাদকের নতুন রুটের বিষয়ে ভারতকে জানালো বাংলাদেশ

‘একাত্তরের মতো আগামী দিনেও সাম্প্রদায়িক শক্তিকে পরাজিত করবো’

‘একাত্তরের মতো আগামী দিনেও সাম্প্রদায়িক শক্তিকে পরাজিত করবো’

যাত্রাবাড়ীতে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রাণ গেলো নারী পথচারীর

যাত্রাবাড়ীতে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রাণ গেলো নারী পথচারীর

ইউনিফর্ম পরা দেখলেই ডিবি বা র‌্যাব মনে করবেন না: হারুন

ইউনিফর্ম পরা দেখলেই ডিবি বা র‌্যাব মনে করবেন না: হারুন

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪২

২০২২ সালের পর ঢাকা শহরে যত্রতত্র, উন্মুক্ত স্থানে আর বর্জ্য থাকবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) দক্ষিণ সিটির ৬৩ ও ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ ঘোষণা দেন।

মেয়র বলেন, ‘আজ  ৫৩ নম্বর ও ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডে ২টি বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের উদ্বোধন করলাম। এর মাধ্যমে এ পর্যন্ত ৪২টি অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি।

তিনি বলেন, ‘এ বছরের মধ্যে ৭৫টি ওয়ার্ডেই বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্র নির্মাণ সম্পন্ন করার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।  ৭৫টি ওয়ার্ডেই বর্জ্য সেবা সংগ্রহকারী নিবন্ধন সম্পন্ন করেছি। তাদের মাধ্যমে বর্জ্য সংগ্রহ করে সেগুলো অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রে নিয়ে আসবো। সেখান থেকে আমরা মাতুয়াইল কেন্দ্রীয় ভাগাড়ে বর্জ্য স্থানান্তর করবো। সুতরাং, ২০২২ সালের পর ঢাকা শহরের উন্মুক্ত স্থানে আর বর্জ্য থাকবে না।’

যত্রতত্র বর্জ্য পড়ে থাকার ফলে বাসযোগ্যতার তালিকায় ঢাকা শহর একেবারে নিম্ন সারিতে অবস্থান করছে জানিয়ে তাপস বলেন, ‘বাসযোগ্যতার ভিত্তিতে শহরগুলোর যে তালিকা প্রণয়ন করা হয় সেখানে দেখা যায়, ঢাকা সর্বনিম্নে অবস্থান করে। এর একটি অন্যতম কারণ হলো— ঢাকা শহরের যেখানে-সেখানে, রাস্তার ওপরে, নর্দমার ভেতরে-বাইরে, খালে-বিলে সব জায়গায় বর্জ্য উপচে পড়ছে। যত্রতত্র উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য পড়ে থাকে। সে জায়গা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আমরা ওয়ার্ডভিত্তিক একটি করে অন্তবর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্র নির্মাণের কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। আমাদের ৭৫টি ওয়ার্ডেই এই কার্যক্রম নেওয়া হয়েছে। অনেকগুলো ওয়ার্ডে এই কার্যক্রম চলমান রয়েছে।’

এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, ‘আমাদের ব্যাপক কার্যক্রমের ফলে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় ডেঙ্গু রোগীর হার একেবারে নিম্ন পর্যায়ে রয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় মাত্র ১০ জন ডেঙ্গু রোগী ছিল। কিন্তু আমরা দেখছি, ঢাকার অন্যান্য এলাকাসহ আশপাশের এলাকা ও অন্যান্য জেলায় ডেঙ্গু রোগীর বিস্তার বেড়েছে। এতে দক্ষিণ সিটিতে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা হ্রাস পেলেও দেশের বিভিন্ন জেলায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এছাড়াও আগামী মাসের ১ তারিখ থেকে কিউলেক্স মশার বিস্তার রোধে আমরা কার্যক্রম শুরু করবো।’

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য কাজী মনিরুল ইসলাম মনু, ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম, করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর সিতওয়াত নাঈমসহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

 

/এসএস/ এপিএইচ/

সম্পর্কিত

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী নিতে কেন মরিয়া ইউজিসি?

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী নিতে কেন মরিয়া ইউজিসি?

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

‘টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি’

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

করোনা আক্রান্ত হলে হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী 

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় ১১ নভেম্বর

রেইনট্রিতে শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলার রায় ১১ নভেম্বর

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

‘২০২২ সালের পর রাজধানীতে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না’

ধর্মের নামে উন্মাদনা সৃষ্টিকারীরা রাষ্ট্রকে অকার্যকর দেখাতে চায়: শাজাহান

ধর্মের নামে উন্মাদনা সৃষ্টিকারীরা রাষ্ট্রকে অকার্যকর দেখাতে চায়: শাজাহান

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

টিকা নিতে ঢামেকে উপচেপড়া ভিড়

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

‘ঢাকা মেয়র কাপ আন্তওয়ার্ড ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর ২২ ডিসেম্বর

রাজধানীর বংশালে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

রাজধানীর বংশালে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

ধানমন্ডির আড্ডা রেস্তোরাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

‘জনপ্রতিনিধিদের সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া উচিত’

‘জনপ্রতিনিধিদের সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া উচিত’

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে পদযাত্রা

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে পদযাত্রা

৭ তলা থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

৭ তলা থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

সর্বশেষ

ফেরি দুর্ঘটনা তদন্তে ৭ সদস্যের কমিটি

ফেরি দুর্ঘটনা তদন্তে ৭ সদস্যের কমিটি

বিমানের সিঙ্গাপুর ফ্লাইট শুরু ২৮ অক্টোবর

বিমানের সিঙ্গাপুর ফ্লাইট শুরু ২৮ অক্টোবর

সিলেটে জ্বালানি তেলের সংকট, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি 

সিলেটে জ্বালানি তেলের সংকট, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি 

ব্যবসায়ীর গুদামে গরিবের ১০ হাজার ৭০০ কেজি চাল

ব্যবসায়ীর গুদামে গরিবের ১০ হাজার ৭০০ কেজি চাল

‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ কেন প্রয়োজন?

‘ফেসবুক প্রটেক্ট’ কেন প্রয়োজন?

© 2021 Bangla Tribune