X
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বেড়েছে শনাক্ত ও মৃত্যু

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৩

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন শনাক্ত হওয়া রোগী, মৃত্যু এবং শনাক্তের হার সবই বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩১ জন, যা গতকালের চেয়ে ৬ জন বেশি।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৩১০ জন, যা গতকাল (২৭ সেপ্টেম্বর) ছিল এক হাজার ২১২ জন।

২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার চার দশমিক ৪৯ শতাংশ। গতকাল শনাক্তের হার ছিল চার দশমিক ৩৬ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন শনাক্ত হওয়া এক হাজার ৩১০ জনকে নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসাবে মোট শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৫৩ হাজার ৮৭৩ জন আর মারা গেলেন ২৭ হাজার ৪৭০ জন।

করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ১৯৫ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট সুস্থ হলেন ১৫ লাখ ১৩ হাজার ৮৭৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ২৯ হাজার ৫০৫টি আর নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৯ হাজার ১৮৬টি।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৯৬ লাখ ৭৬ হাজার ১২৩টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৭১ লাখ ৩২ হাজার ৪৯০টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৫ লাখ ৪৩ হাজার ৬৩৩টি।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ছয় শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ আর মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৩১ জনের মধ্যে পুরুষ ১৭ জন আর নারী ১৪ জন।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৬৩৫ জন আর নারী ৯ হাজার ৮৩৫ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৩১ জনের মধ্যে ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে আছেন পাঁচ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে সাত জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আট জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছে একজন।

মারা যাওয়া ৩১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের আছেন ১৩ জন, চট্টগ্রাম ও খুলনা বিভাগের আছেন পাঁচ জন করে, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন দুই জন করে। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ২৭ জন আর নারী বেসরকারি হাসপাতালে চার জন।

/জেএ/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

বদলে গেছে সংক্রমণের মানচিত্র

বদলে গেছে সংক্রমণের মানচিত্র

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক যেকোনও অংশীদারের চেয়ে গভীরতর: শ্রিংলা

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৬:০৭

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আজ  অন্য যেকোনও কৌশলগত অংশীদারদের চেয়ে গভীরতর এবং দুই প্রতিবেশী দেশের জন্য এই সম্পর্ক একটি ‘রোল মডেল’।

তিনি বলেন, ‘সমকালীন বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক অনেক দূর এগিয়েছে। বিশেষ করে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারতীয় কূটনীতির দু’টি প্রধান স্তম্ভ-প্রতিবেশী ফার্স্ট এবং অ্যাক্ট ইস্ট পলিসি, যা বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের প্রাণবন্ত সম্পর্কের অভিব্যক্তির মধ্যে খুঁজে পাওয়া যাবে।’

বাংলাদেশে সাবেক ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রিংলা শনিবার (২৩ অক্টোবর) ব্যাঙ্গালুরুতে অনুষ্ঠিত ‘১৯৭১ সালের যুদ্ধে মানবিক, রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক দিক নিয়ে’ ‘স্বরনিম বিজয় বর্ষ কনক্লেভ: ২০২১’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকালে গড়ে ওঠা বন্ধুত্ব, বোঝাপাড়া ও পারস্পরিক শ্রদ্ধার চেতনা অব্যাহত থাকায় এই সম্পর্ক আরও বিভিন্ন দিকে প্রসারিত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে উভয় দেশের জনগণের সমৃদ্ধি এবং স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাংলাদেশ এবং ভারত একটি ‘সোনালী অধ্যায়’ বা স্বর্ণযুগের অংশীদার হয়েছে।’’

শ্রিংলা বলেন, ‘এই অংশীদারিত্বের পূর্ণ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে উভয় দেশের কৌশলগত, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি অব্যাহত রাখতে হবে, যা তৈরি হয়েছিল ৫০ বছর আগে।’

তিনি বলেন, ‘এই বছরটি বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের জন্য বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। এই বছরটি  বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং ভারত বাংলাদেশ কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০তম বার্ষিকী।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আজ  বিভিন্নভাবে সেই ইতিহাসের ধারাবাহিকতা, যা নির্ধারিত হয়েছিল ৫০ বছর আগে। মুক্তিযোদ্ধারা এখনও দুই দেশের মধ্যে সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করছে।’

‘মুক্তিবাহিনীর’ জোর লড়াইয়ের সমর্থনে ভারতীয় বিমান বাহিনী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে উল্লেখ করে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব শ্রিংলা তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। ১৯৭১ সালে প্রকৃতপক্ষে নিষ্ঠুর একনায়কের অত্যাচারের বিরুদ্ধে ন্যায়বিচারের লড়াই ছিল। খবর: বাসস

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

সম্রাটসহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল

সম্রাটসহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল

সাম্প্রদায়িক হামলা নিয়ে প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ

সাম্প্রদায়িক হামলা নিয়ে প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ

রাজধানীতে বাহনের চাপে সড়কে যানজট

রাজধানীতে বাহনের চাপে সড়কে যানজট

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৫৮

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শেষ হয়েছে। শুনানিতে মামলার ২৫ আসামির মৃত্যুদণ্ড দাবি করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামানের আদালতে এ মামলার রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শুরু হয়। এদিন রাষ্ট্রপক্ষ থেকে শুনানি শুরু করেন মামলার চিফ প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল।

এদিন তিনি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শেষে আদালতের কাছে আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড চেয়ে ন্যায়বিচার প্রার্থনা করেন। এরপর আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হবে বলে জানা গেছে সংশ্লিষ্ট আদালতের সূত্র থেকে।

এর আগে গত ২১ অক্টোবর রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি আবু আব্দুল্লাহ ভূঁইয়া তার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শেষ করেন। এরপর মামলার চিফ প্রসিকিউটর মোশারফ হোসেন কাজল যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শুরু করেন। কিন্তু এদিন তার শুনানি শেষ না হওয়ায় আদালত অবশিষ্ট শুনানির জন্য আজকের দিন ২৪ অক্টোবর ধার্য করেন।

গত ৮ সেপ্টেম্বর মামলায় অভিযুক্ত ২৫ আসামির বিরুদ্ধে পুনরায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। গত ১৪ মার্চ ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামানের আদালতে ২২ আসামি আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানিতে নিজেদের নির্দোষ দাবি করেন।

মামলায় মোট ৪৭ জন সাক্ষীর  সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে। গত  বছরের জানুয়ারিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বিচারের জন্য মামলাটি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদলির আদেশ দেন। এরপর মহানগর দায়রা জজ আদালত মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এ পাঠানোর আদেশ দেন।

২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন।

অভিযোগপত্রে ২৫ জনের মধ্যে এজাহারভুক্ত ১৯ জন এবং এর বাইরে তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে আরও ৬ জনের জড়িত থাকার প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়। এজাহারভুক্ত ১৯ জনের মধ্যে ১৭ জন এবং এজাহারের বাইরে থাকা ৬ জনের মধ্যে ৫ জনসহ মোট ২২ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাতক রয়েছেন ৩ জন। অভিযোগপত্রে ৬০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে এবং ২১টি আলামত ও ৮টি জব্দ তালিকা আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে।

এজাহারে থাকা আসামিরা হলেন— মেহেদী হাসান রাসেল, অনিক সরকার, ইফতি মোশাররফ সকাল, মেহেদী হাসান রবিন, মেফতাহুল ইসলাম জিওন, মুনতাসির আলম জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভির, মুজাহিদুর রহমান, মুহতাসিম ফুয়াদ, মনিরুজ্জামান মনির, আকাশ হোসেন, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মাজেদুল ইসলাম, শামীম বিল্লাহ, মোয়াজ আবু হুরায়রা, এএসএম নাজমুস সাদাত, মোর্শেদুজ্জামান জিসান ও এহতেশামুল রাব্বি তানিম।

এজাহারবহির্ভূত ৬ আসামি হলেন—ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, অমিত সাহা, মিজানুর রহমান ওরফে মিজান, শামসুল আরেফিন রাফাত, এসএম মাহমুদ সেতু ও মোস্তবা রাফিদ।

পলাতক তিন আসামি হলেন—মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম ও মোস্তবা রাফিদ। এদের মধ্যে প্রথম দুই জন এজাহারভুক্ত আসামি।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে আবরারকে তার কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে যান বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। তারা ২০১১ নম্বর কক্ষে নিয়ে গিয়ে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে রাত তিনটার দিকে শেরে বাংলা হলের সিঁড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই বছরের ৭ অক্টোবর রাজধানীর চকবাজার থানায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। পুলিশ পরে ২২ জনকে গ্রেফতার করে। এর মধ্যে আট জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এদের সবাই বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

আবরার বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শেরে বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।

/এমএইচজে/এমএস/

সম্পর্কিত

‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজশিক্ষক রুমাকে কারাগারে রাখার আবেদন পুলিশের

‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজশিক্ষক রুমাকে কারাগারে রাখার আবেদন পুলিশের

আট মাসেও রুলের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

আট মাসেও রুলের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজশিক্ষক রুমাকে কারাগারে রাখার আবেদন পুলিশের

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৩৮

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘ভুয়া’ ভিডিও ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক উসকানির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক রুমা সরকারকে রিমান্ড শেষে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেছে পুলিশ।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মো. শফিকুল ইসলাম আসামি রুমাকে দুই দিনের রিমান্ড শেষে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করেন। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তিনি।

ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরীর আদালতে এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে বলে সংশ্লিষ্ট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখা থেকে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ-উর-রহমানের আদালত আসামির দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

এর আগে বুধবার (২০ অক্টোবর) রুমা সরকারকে আটক করে র‌্যাব। দুর্গাপূজার সময় নোয়াখালীতে সাম্প্রদায়িক হামলা-সহিংসতার মধ্যে যতন সাহা নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুকে নিয়ে ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে তার বিরুদ্ধে রমনা থানায় মামলা করেছে র‌্যাব।

অভিযোগে বলা হয়, কয়েক মাস আগে রাজধানীর পল্লবীর সাহিনুদ্দীন হত্যাকাণ্ডের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ওই ভিডিওটি নতুন করে নোয়াখালীর ‘যতন সাহা হত্যাকাণ্ড’র বলে গুজব ছড়ান রুমা সরকার।

/এমএইচজে/এমএস/

সম্পর্কিত

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আট মাসেও রুলের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

আট মাসেও রুলের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

অর্থপাচার মামলা

আট মাসেও রুলের জবাব না পেয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:০৭

ক্যাসিনোকাণ্ডে যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটসহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থপাচার মামলায় জারি করা রুলের দীর্ঘ আট মাসেও জবাব না পাওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ অসন্তোষ প্রকাশ করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আব্দুল কাইয়ুম খান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

এর আগে গত ১৭ অক্টোবর যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভুঁইয়া ও বহিষ্কৃত কমিশনার মোমিনুল হক সাঈদের বিরুদ্ধে  প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। ওই প্রতিবেদনে আদালতে দাখিলের পর এ বিষয়ে শুনানি শুরু হয়।

শুনানির শুরুতে হাইকোর্ট এ মামলার বাকী ১৩ বিবাদী জবাব দাখিল না করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন। ১৩ বিবাদী হলেন- অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সচিব, পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয় সচিব, দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, ডেপুটি গভর্নর, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান এবং যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদফতরের রেজিস্ট্রার।

পরে আদালত আগামী ২১ নভেম্বর রুলের জবাব দাখিলের জন্য দিন ঠিক করে দেন আদালত।

আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে উদ্দেশ করে বলেন, কেন আদালতের আদেশ প্রতিপালন করা হয়নি? শুধু পুলিশ আদেশ প্রতিপালন করেছে, বাকিরা কোথায়? আমরা মামলাটি শুনানির দিন ঠিক করবো। এটা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

আদালত আরও বলেন, এটা ঠিক নয়; আমরা কোর্ট একটা আদেশ দিলাম। আমরা রুল দিয়েছি গত ২৮ ফেব্রুয়ারি। প্রায় এক বছর হয়ে গেল, রুলের জবাবটাই দাখিল করা হলো না। আর কি বলবো এ নিয়ে কিছু বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না।

আদালত বলেন, আমরা সবাই ঘুমিয়ে পড়েছি। এ বিষয়টি নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। শুধু আসলাম-গেলাম, তাতো না। দেশ ও জাতির জন্য কিছু করা দরকার, করতে হবে। ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য আপনাকেই করতে হবে। এটা নিয়ে শুধু সরকার করবে তা তো নয়, সরকারকে সহযোগিতা করার দায়িত্ব আমাদের।

এর আগে বিদেশে অর্থপাচারে জড়িতদের খুঁজে বের করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৭ অক্টোবর পুলিশের আইজি কর্তৃক প্রতিবেদনটি হাইকোর্টে আসে। প্রতিবেদন বলা হয়েছে, পাচার হওয়া বিপুল পরিমাণ এ অর্থ উদ্ধারের কাজ করছে বিএফআইইউ। 

ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট সহ সাতজনের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের প্রমাণ পেয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইডি। প্রতিবেদনে নাম আসা অন্যরা হলেন, খালিদ মাহমুদ ভুইয়া, এনামুল হক আরমান, রাজীব হোসেন রানা, জামাল ভাটারা, মোমিনুল হক সাঈদ ও শাজাহান বাবলু।

/বিআই/ইউএস/

সম্পর্কিত

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজশিক্ষক রুমাকে কারাগারে রাখার আবেদন পুলিশের

‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজশিক্ষক রুমাকে কারাগারে রাখার আবেদন পুলিশের

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

পরীমণির রিমান্ড: দুই বিচারককে ব্যাখ্যা দিতে একসপ্তাহ সময়

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বিষয়ে ত্বরিত ব্যবস্থা নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে এলজিইডির কর্মচারীদের ধর্মঘট

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৪:২৮

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে সংস্থাটির কর্মচারীরা।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) সকাল থেকে ‘এলজিইডি কর্মচারী ঐক্য পরিষদের’ ব্যানারে এই কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। কর্মসূচি থেকে ৩ হাজার ৭৯৮ জন কর্মচারীর চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানানো হয়।

এলজিইডি ঐক্য পরিষদের সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের চাকরি স্থায়ী করা না হলে আমরা এখান থেকে যাবো না এবং পরবর্তী সময়ে অনশন ধর্মঘট ডাক দেওয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পরও ৩ হাজার ৭৯৬ জন দক্ষ, নিষ্ঠাবান কর্মকর্তা-কর্মচারী মানবেতর জীবনযাপন করছেন। আমরা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্নভাবে চাকরি রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্তির দাবি জানিয়ে আসছি। অথচ একই রায়ে ৩ হাজার ৭২৮ জনের চাকরি রাজস্ব খাতে স্থানান্তর হলেও বাকী অর্ধেকেরও বেশি (৩ হাজার ৭৯৬) জনকে নেওয়া হয়নি। এতে করে আমরা পরিবার নিয়ে অনাহারে দিন কাটাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ, আমাদের চাকরি রাজস্ব খাতে অন্তর্ভুক্ত করে পরিবার নিয়ে বেঁচে থাকার সুযোগ দিন। চাকরি স্থায়ীকরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।’

কর্মসূচিতে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ফেনী, কুমিল্লা, গাজীপুর, নরসিংদী, সুনামগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, রাজশাহী,বরিশাল, বরগুনা, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মসূচিতে অংশ নেন।

/এসএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

নেতা চলে যাওয়ার পর ফাঁকা

নেতা চলে যাওয়ার পর ফাঁকা

ঈদের দিন বাস টার্মিনালে অবস্থান ধর্মঘট

ঈদের দিন বাস টার্মিনালে অবস্থান ধর্মঘট

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

টিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

সাক্ষাৎকারটিকার সমতা নিশ্চিত না হলে বিপদ: ডা. মুশতাক হোসেন

বদলে গেছে সংক্রমণের মানচিত্র

বদলে গেছে সংক্রমণের মানচিত্র

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

স্ত্রীসহ স্বাস্থ্যের সাবেক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে মামলা

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

পাঁচ কোটি ৮৮ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

ডিসেম্বরের মধ্যে করোনা টিকার আওতায় ৩০ শতাংশ মানুষ: সালমান এফ রহমান

ডিসেম্বরের মধ্যে করোনা টিকার আওতায় ৩০ শতাংশ মানুষ: সালমান এফ রহমান

চলতি মাসের ১৮ দিনে সাড়ে ৩ হাজার ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে

চলতি মাসের ১৮ দিনে সাড়ে ৩ হাজার ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে

সর্বশেষ

দক্ষ কর্মকর্তাকে প্রকল্প পরিচালক করার সুপারিশ

দক্ষ কর্মকর্তাকে প্রকল্প পরিচালক করার সুপারিশ

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক যেকোনও অংশীদারের চেয়ে গভীরতর: শ্রিংলা

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক যেকোনও অংশীদারের চেয়ে গভীরতর: শ্রিংলা

বিশ্বকাপ উত্তাপের মাঝেই এল ক্লাসিকো মহারণ

বিশ্বকাপ উত্তাপের মাঝেই এল ক্লাসিকো মহারণ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আবরার হত্যা মামলা: আসামিদের মৃত্যুদণ্ড চায় রাষ্ট্রপক্ষ

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে, কিউআর কোড বলছে ছেলে 

© 2021 Bangla Tribune