X
বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূল স্কোয়াডে রুবেল

আপডেট : ১০ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৪

বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্কোয়াডে যুক্ত হলেন পেসার রুবেল হোসেন। বিসিবির নির্বাচক প্যানেল আজ (১০ অক্টোবর) এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্কোয়াডের স্ট্যান্ডবাই সদস্য হিসেবে ওমান গেছেন রুবেল। দলের ট্রেনিং ক্যাম্পে ছিলেন তিনি। মাসকাটে ওমান একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে জিতেছে বাংলাদেশ একাদশ।

লাল-সবুজ জার্সি গায়ে ২৮টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন এই ডানহাতি পেসার। তাকে মূল স্কোয়াডে যুক্ত করার কারণ অবশ্য জানায়নি বিসিবি।

আইসিসির নিয়মনুযায়ী ১০ অক্টোবর পর্যন্ত বিশ্বকাপ দলে পরিবর্তন আনার সুযোগ রয়েছে। সেটি কাজে লাগিয়ে রুবেলকে দলে অন্তর্ভুক্ত করলো বিসিবি।

এর আগে গত ৯ সেপ্টেম্বর মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করে বিসিবি। সেই দলে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে ছিলেন রুবেল হোসেন ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। তবে হুট করেই রুবেল মূল স্কোয়াডে ডাক পেলেও দেশে ফিরে আসতে হচ্ছে আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে। নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন এমনটাই জানিয়েছেন।

শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে আগামীকাল (১১ অক্টোবর) সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি যাবে বাংলাদেশ। আগামী ১৫ অক্টোবর আবারও ওমানে ফিরবে টাইগাররা। ওইদিন থেকে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড শুরু হবে। 

আগামী ১৭ অক্টোবর স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ। ১৯ অক্টোবর স্বাগতিক ওমানের মুখোমুখি হওয়ার পর ২১ অক্টোবর পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে খেলবে মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকরা। প্রথম পর্ব পার হতে পারলে পরদিনই আবার রওনা দিতে হবে আরব আমিরাতের উদ্দেশে। সেখানে ২৫ অক্টোবর শারজায় আফগানিস্তান ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশের ‘মূল’ বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দল

মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, আফিফ হোসেন, নাঈম শেখ, নুরুল হাসান সোহান, শামীম হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, শরিফুল ইসলাম, শেখ মেহেদী হাসান, নাসুম আহমেদ ও রুবেল হোসেন।

/আরআই/জেএইচ/এমএস/

সম্পর্কিত

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

বিশ্বকাপে সেরা হতে সাকিবের দরকার এক উইকেট

বিশ্বকাপে সেরা হতে সাকিবের দরকার এক উইকেট

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২৩:০০

গত কয়েক মাস ধরেই খেলার মধ্যে আছেন সাকিব আল হাসান। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ শেষে ক্রিকেটাররা কয়েক সপ্তাহের বিশ্রাম পেলেও সাকিব ছিলেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ব্যস্ত। তবে টানা খেলার কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রভাব না পড়লেও সাকিব যে ক্লান্ত, সেটি স্পষ্টভাবেই বোঝা যাচ্ছে। ওমানের বিপক্ষে সিঙ্গেল নিতে গিয়ে রান আউট হয়েছিলেন। বৃহস্পতিবারও পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে ‘রানিং বিটুইন দ্য উইকেটে’ অস্বস্তিতে ভুগতে দেখা গেছে। পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে সাকিব নিজেই স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি।

টানা খেলার প্রসঙ্গ টেনে সাকিব পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে বলেছেন, ‘আমি কিছুটা ক্লান্ত। শেষ পাঁচ-ছয় মাস ধরে টানা ক্রিকেট খেলছি, ক্লান্তি আসাটা স্বাভাবিক। দীর্ঘ মৌসুম যাচ্ছে আমার। তার পরেও আশা করছি, টুর্নামেন্টে ভালো কিছু করবো।’

ওমানের বিপক্ষে জয়ের নায়ক ছিলেন সাকিব। বৃহস্পতিবার পিএনজির বিপক্ষে জয়ের নায়কও তিনি। এনিয়ে আইসিসি ইভেন্টে বাংলাদেশের টানা ছয় জয়ের সবগুলোতে ছিল ম্যাচসেরা অবদান। আজ ব্যাট হাতে ৪৬ রান করার পর বল হাতেও চার উইকেট নিয়েছেন।

ম্যাচ সেরার পুরস্কার হাতে পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে নিজের অনুভূতি জানাতে গিয়ে সাকিব বলেছেন, ‘প্রত্যেকেটি ম্যাচই আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়াচ্ছে। প্রথম ম্যাচের পর ধারাবাহিক ভাবে ভালো করা, আমাদের জন্য দারুণ কিছুই। এই ফরম্যাটে আসলে যেদিন যে ভালো খেলবে, তারাই জিতবে। এখন চাপ নেই, নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটাই খেলতে পারবো। এ ফরম্যাটে ফর্মে ফিরে আসা কঠিন। ভাগ্য ভালো আমি টপ অর্ডারে ব্যাটিং করার সুযোগ পাচ্ছি।’

/আরআই/এফআইআর/

সম্পর্কিত

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৬

সহযোগী সদস্য স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হার দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু করেছিল বাংলাদেশ। এরপর ওমানে জরুরি সভায় বসেন নাজমুল হাসান পাপনসহ বিসিবির বেশ কয়েকজন পরিচালক। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৪১ রান তাড়া করে ৬ রানে হারের কারণ জানাতে গিয়ে তিন সিনিয়র ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর কড়া সমালোচনা করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। বোর্ড সভাপতির এমন সমালোচনা মোটেও পছন্দ হয়নি বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের!

বৃহস্পতিবার পাপুয়া নিউ গিনিকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে সুপার-টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। এরপর সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন মিস্টার কুল খ্যাত মাহমুদউল্লাহ। রাগ, ক্ষোভ, কষ্ট নিয়ে প্রশ্ন করতেই তিনি বললেন, ‘শক্ত হওয়াটাই তো স্বাভাবিক। বিগত কয়েক দিনে...ঠিক আছে আমরাও মানুষ। আমরাও ভুল করি। এ কারণে একদম ছোট করে ফেলা ঠিক না। এটা আমাদের দেশ। আমরা সবাই এক দেশের জন্য খেলি। সবারই প্রত্যাশা থাকে এবং আমাদের যে পরিমাণ বেশি অনুভূতি, তা আর কারও নাই মনে করি। খারাপ খেললে সমালোচনা হবেই। কিন্তু একেবারে ছোট করে ফেলা ঠিক নয়। সব সেক্টরেই এমন হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, গণমাধ্যম ও বাইরে থেকেও।’

মাহমুদউল্লাহ মনে করেন সমালোচনা করতে গিয়ে কাউকে ছোট যেন করা না হয়, ‘সমালোচনা আমাদের স্পর্শ করে। আমরাও মানুষ, পরিবার আছে। আমাদের বাবা-মা রা’ও বসে থাকেন টিভির সামনে। আমাদের বাচ্চারাও খেলা দেখে। তারাও মন খারাপ করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তো এখন মানুষের হাতের নাগালে। সবার মোবাইল আছে, সমালোচনা তো হবেই। আমরাও আশা করি সমালোচনা হোক। আমরা খারাপ খেলেছি, সমালোচনা হবেই। কিন্তু সমালোচনার মাধ্যমে কেউ কাউকে ছোট করে ফেললে, সেটা কিন্তু খারাপ লাগে।’ 

সমালোচনা হলে সেটা যেন সুস্থ প্রকৃতির-ই হয়, এমনটি মনে করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক, ‘অনেক প্রশ্ন এসেছে। আমাদের ব্যাটিংয়ের স্ট্রাইক রেট, আমাদের তিন সিনিয়র ক্রিকেটারের স্ট্রাইক রেট নিয়ে। আমরা তো চেষ্টা করেছি। চেষ্টার বাইরে তো আমাদের কাছে কিছু নেই। এরকম না যে আমরা চেষ্টা করিনি। আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। কিন্তু ফল আমাদের পক্ষে আনতে পারিনি। সমালোচনা হবেই, এটা কাম্য। কিন্তু সুস্থ সমালোচনা হলে সবার জন্য ভালো। আমরাও অনুভব করি, বাংলাদেশের জার্সিটা যখন আমরা গায়ে দেই, তখন আমাদেরও সম্মান অনুভব হয়।’

ক্রিকেটপ্রেমী সাধারণ মানুষের সমালোচনা ক্রিকেটাররা গায়ে মাখেন না। কিন্তু বোর্ড সভাপতির বক্তব্য কষ্ট দিচ্ছে ক্রিকেটারদের, ‘সবারই ত্যাগ থাকে, কারো ব্যথা থাকে। কারো অনেক ইনজুরি থাকে। ওগুলো নিয়েই আমরা খেলি। দিনের পর দিন খেলি। পেছনের গল্পগুলো অনেকেই জানে না। এজন্য কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন করা ঠিক না। আশা করি, এখন কিছুটা স্বস্তি পাবো। সবচেয়ে বড় কথা, দলের ভেতরে যে উদ্বেগ ছিল ওটা নেই। এজন্য খেলোয়াড় এবং প্রত্যেক টিম ম্যানেজমেন্টকে কৃতিত্ব দেওয়া উচিত। শুধু আমরাই নই, আমাদের স্টাফ, সোহেল ভাই (ম্যাসাজম্যান), রমজান (থ্রোয়ার) প্রত্যেককে ক্রেডিট দিতে হবে। আশা করছি, ভালো কিছু হবে সামনে।’
 

/আরআই/এফআইআর/

সম্পর্কিত

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

এই জয়েও দুশ্চিন্তা কাটছে না

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩০

দেয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল বাংলাদেশের। স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে যাওয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম পর্বটাই হয়ে দাঁড়ায় কণ্টকাকীর্ণ! শেষ পর্যন্ত পাপুয়া নিউগিনিকে বড় ব্যবধানে উড়িয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে মাহমুদউল্লাহরা। তবে ৮৪ রানের দুর্দান্ত জয়ের পরও দুশ্চিন্তা কাটছে না!

নিখুঁত পারফরম্যান্সের বিষয় উঠে আসাতেই এত দুশ্চিন্তা। শুরুতে প্রতিপক্ষের টপ অর্ডার ব্যাটারদের দ্রুত ফিরিয়েও সুবিধা করতে পারছে না বাংলাদেশ। স্কটল্যান্ড ও পাপুয়া নিউগিনির ম্যাচে সেটাই দেখা গেছে। বড় দলগুলোর বিপক্ষে খেলতে নেমে এই ধরনের ভুলগুলো ভোগাতে পারে টিম বাংলাদেশকে।

পিএনজির মতো বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনেও স্কটল্যান্ডের ব্যাটারদের চেপে ধরেছিল বাংলাদেশ। ৫৩ রানে ৬ উইকেট তুলে নিয়ে দারুণ কিছু করার আভাস দিয়েছিলেন সাকিব-মেহেদীরা। কিন্তু বাকি চার উইকেট নিয়েই স্কোরবোর্ডে যথেষ্ট রান তুলে ফেলে স্কটল্যান্ড। শুরুতে চেপে ধরা বাংলাদেশের বোলাররাই অসহায় আত্মসমর্পণ করেছেন ক্রিস গ্রিভস-মার্ক ওয়াটদের কাছে। এই দুই ব্যাটারের কল্যাণে স্কটল্যান্ড স্কোরবোর্ডে ১৪০ রান তুলে ফেলে। লক্ষ্যটা খুব কঠিন না হলেও বাংলাদেশ ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্যাচটি হেরে যায়।

বৃহস্পতিবার অবশ্য স্কটল্যান্ডের মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। তবু ৯৭ রানে অলআউট হওয়া পিএনজিকে আরও আগেই অলআউট করা উচিত ছিল বোলারদের।

এদিন ২৯ রানে ৭ উইকেট হারায় আইসিসির সহযোগী সদস্য দেশটি। তার পরেও লোয়ার অর্ডারের বাকি তিন উইকেট নিয়ে পুরোটা সময় ব্যস্ত থাকতে হয়েছে বাংলাদেশকে। এই তিন ব্যাটার পিএনজির স্কোরবোর্ডে ৬৮ রান যোগ করেছেন। নিশ্চিতভাবেই সেখানে ব্যর্থতা ছিল বাংলাদেশি বোলারদের। লেট অর্ডারে নামা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান কিপলিন ডোরিগা মোস্তাফিজ-সাইফউদ্দিনকে নিয়ে একাই খেললেন অনেকক্ষণ! ৩৪ বলে ২ চার ও ২ ছক্কায় ৪৬ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে বাংলাদেশের সঙ্গে হারের ব্যবধান কমাতে ভূমিকা রেখেছেন তিনি। কিপলিন (৪৬) ও চ্যাড সপার (১১) ছাড়া কোনও ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেনি। পিএনজির ইনিংসে বেশিরভাগ সময় বাংলাদেশের বোলাররা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে রাখলেও স্লগ ওভারে এসে খেই হারায় তারা। বড় ম্যাচের আগেই এই জায়গায় উন্নতি খুব জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এর পাশাপাশি দল হিসেবে একসঙ্গে সব বোলার ক্লিক করতে পারছে না। আগের ম্যাচে ছন্নছাড়া বোলিং করেছেন তাসকিন-মোস্তাফিজ। আজ তাসকিনের উন্নতি হলেও মোস্তাফিজ ভালো বোলিং করতে পারেননি। আইপিএলের শেষ দিকের বেশ কয়েকটি ম্যাচ থেকেই ফর্মহারা এই বাঁহাতি। তবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ভালো বোলিংয়ের পর মনে করা হচ্ছিল, ফর্মেই আছেন তিনি। কিন্তু ওমান ও পিএনজির বিপক্ষে বোলিং দেখে মোস্তাফিজকে বেশ ক্লান্ত মনে হয়েছে। এ কারণেই মূল পর্বে লড়াইয়ের আগে বাংলাদেশের মূল অস্ত্র মোস্তাফিজের ফর্ম নিয়ে চিন্তিত হওয়া লাগছে।

তবে আশার কথা হচ্ছে, আগের দুই ম্যাচের তুলনায় বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের ব্যাটিংটা ভালোই হয়েছে। স্কটল্যান্ড ও ওমানের বিপক্ষে ব্যাটাররা পাওয়ার প্লে কাজে লাগাতে পারেননি। তবে আজ পিএনজির বিপক্ষে শুরুতে একটি উইকেট হারালেও পাওয়ার প্লে দারুণভাবে কাজে লাগাতে পেরেছে সাকিব-লিটন জুটি। এদিন প্রথম ৬ ওভারে বাংলাদেশ তুলেছে ৪৫ রান। তাই দুশ্চিন্তার বোলিংয়ের মাঝে পাওয়ার প্লেতে সফল হওয়াটা স্বস্তির খবর বটে!

/এফআইআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

বিশ্বকাপে সেরা হতে সাকিবের দরকার এক উইকেট

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২০:১৪

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের অপেক্ষা নিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিলেন সাকিব আল হাসান। কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরে ১০ উইকেট নিতে পারলেই বিশ্বকাপে শীর্ষ উইকেট শিকারি হয়ে যাবেন বাঁহাতি এই স্পিনার। ওমানে অনুষ্ঠিত প্রথম রাউন্ডের তিন ম্যাচে ৯ উইকেট শিকার করেছেন সাকিব।

বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ৩৪ ম্যাচ খেলে সর্বোচ্চ উইকেট পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির। তার উইকেট সংখ্যা ৩৯। সাকিবের উইকেট এখন ৩৯টি। তবে আফ্রিদির চেয়ে কম ম্যাচ খেলায় এক হিসেবে শীর্ষেই আছেন এই অলরাউন্ডার।

বৃহস্পতিবার পাপুয়া নিউ গিনির চার ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে পাকিস্তানের কিংবদন্তি অলরাউন্ডার আফ্রিদিকে ছুঁয়েছেন। পঞ্চম ওভারে সাকিবের হাতে বল তুলে দেন মাহমুদউল্লাহ। ওভারের প্রথম বলে নিজের ভক্ত চার্লস আমিনিকে সাজঘরে ফেরান তিনি। লংঅন থেকে দৌঁড়ে এসে নাঈম দুর্দান্ত এক ক্যাচ নেন। একই ওভারের চতুর্থ বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে সিমন আতাই মেহেদীর ক্যাচে সাজঘরে ফেরেন।

পরের বলেও উইকেট পেতে পারতেন সাকিব। কিন্তু উইকেটকিপার সোহান বলটি ঠিকমতো ধরতে পারেননি। নিজের দ্বিতীয় ওভারে অবশ্য ৩ রান খরচ করে উইকেট শূন্য ছিলেন। তৃতীয় ওভারের পঞ্চম বলে ফের নাঈমের ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফেরান সেসে বাউকে। নিজের শেষ ওভারের তৃতীয় বলে হিরি হিরিকে তুলে নিয়ে আফ্রিদিকে ছুঁয়ে ফেলেন এই অলরাউন্ডার। এদিন ৪ ওভার বোলিং করে ৯ রান খরচ করে ৪ উইকেট তুলে নেন বাঁহাতি স্পিনার।

বিশ্বকাপে সাকিবের এই সাফল্যের ধারে কাছে কেউ নেই। কেননা সাকিবের নিচে থাকা ৬জনের কেউই আর বিশ্বকাপ খেলছেন না। অন্যদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বীরা আছেন বেশ নিচের দিকে। কাছাকাছি আছেন ক্যারিবিয়ান দুই ক্রিকেটার ডোয়াইন ব্রাভো ও স্যামুয়েল বদ্রি। ব্রাভো ২৫ উইকেট নিয়ে ৯ নম্বরে আর বদ্রি ২৪ উইকেট নিয়ে আছেন ১০ নম্বরে।

সাকিব ২০০৭ সাল থেকে সবগুলো বিশ্বকাপে অংশ হয়েছিলেন। টানা সাত বিশ্বকাপ খেলা সাকিবের উইকেট ২৮ ম্যাচে ৩৯টি। তার চেয়ে ৬ ম্যাচ বেশি খেলে আফ্রিদির উইকেটও ৩৯টি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সাকিবের সেরা সাফল্য ছিল ২০১৬ সালে। সেবার বাঁহাতি এই স্পিনার পেয়েছিলেন ১০ উইকেট। ২০১৪ সালে ঘরের মাঠের বিশ্বকাপে বাঁহাতি স্পিনার পেয়েছিলেন ৮ উইকেট। এবার নিশ্চিতভাবেই সাকিব ছাড়িয়ে যাবেন ২০১৬ সালকে। ইতোমধ্যে ৩ ম্যাচে তার উইকেট ৯টি। আরও বাকি ৫ ম্যাচ। সাকিব এই বিশ্বকাপে নিজেকে কোথায় নিয়ে যান সেটিই দেখার!

/আরআই/এফআইআর/

সম্পর্কিত

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

বড় জয়ে সুপার ‍টুয়েলভে বাংলাদেশ

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২০:০১

বাংলাদেশের বিপক্ষে ইতিহাস গড়ার স্বপ্ন দেখছিল প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ রাষ্ট্র পাপুয়া নিউগিনি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে সেই দলটিই নাকানি-চুবানি খেলো পুরোপুরি। বাংলাদেশের ১৮২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে কোনোভাবেই ব্যাট হাতে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। তাদের ৮৪ রানে হারিয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। পিএনজিকে গুটিয়ে দিয়েছে ৯৭ রানে।     

অথচ পাওয়ার প্লেতে ১৪ রানে ৪ উইকেট তুলে তাদের চেপে ধরেছিল বাংলাদেশ। এরপর ২৯ রানে পতন হয় সপ্তম উইকেটের। পরিস্থিতি এমন ছিল যে তাদের অল্পতেই রুখে দেওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু বোলিংয়ের শুরুর ছন্দটা বাংলাদেশ ধরে রাখতে পারেনি। সেই সুযোগে কিপলিন ডরিগার দায়িত্বশীল ব্যাটিং হারের ব্যবধান কমায় মাত্র।

পিএনজির শুরুর আঘাতটা হানেন সাইফউদ্দিন। তৃতীয় ওভারে তুলে নেন ওপেনার সিয়াকার উইকেট। ফ্লিক করতে গিয়ে লেগ বিফোরে এই ওপেনার বিদায় নেন ৫ রানে। এক ওভার বিরতি দিয়ে হানা দেন পেসার তাসকিনও! অধিনায়ক আসাদ ভালাকে ৬ রানে গ্লাভসবন্দি করান তিনি। নুরুল হাসানের ক্যাচ নেওয়ার ভঙ্গিটাও ছিল দর্শনীয়।

ব্যাট হাতে আলো ছড়ানো সাকিব তাসকিনের পরের ওভারেই বল তুলে নেন। এসে সাজঘরে পাঠান চার্লস আমিনিকে। লং অনে তার দুর্দান্ত ক্যাচটি নিয়েছেন মোহাম্মদ নাঈম। দুই বল পর নতুন নামা সিমোন আতাইকেও সাকিব বিদায় দেন রানের খাতা খোলার আগেই।

ব্যাটিংয়ে কেঁপে ওঠা পিএনজির রক্ষাকর্তা পাওয়া যায়নি এরপর। সাকিবের বলে সেসে বাউ ৭ রানে ফিরলে স্কোর দাঁড়ায় ২৪ রানে ৫ উইকেট। আগের ম্যাচে ত্রাস ছড়ানো নরমান ভানুয়া আজ হাতই খুলতে পারেননি। শূন্য রানে তাকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন অফস্পিনার মেহেদী। সাকিব তার পর হিরি হিরিকে বিদায় দিয়ে তুলে নেন চতুর্থ উইকেট।

তার পর অবশ্য কিপলিন ডরিগার সঙ্গে জুটি করে কিছুটা ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছেন চ্যাড সপার। তবে ১১ রানের বেশি করতে পারেননি। তাকে বোল্ড করেছেন সাইফউদ্দিন। মরেয়া ৩ রানে ফিরলে ডরিগা একপ্রান্ত আগলে সান্ত্বনা পুরস্কারের খোঁজে ছিলেন। সেটা পেয়েছেনও। ৩৪ বলে ৪৬ রানে অপরাজিত থেকে হারের ব্যবধান কমিয়েছেন। তার ইনিংসে ছিল ২টি চার ও ২টি ছয়। তার প্রতিরোধে পিএনজিকে অলআউট করতে পারা নিয়েই সংশয় দেখা দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত রাভুকে নুরুল হাসানের ক্যাচ বানিয়ে পিএনজিকে ১৯.৩ ওভারে গুটিয়ে দিতে ভূমিকা রাখেন তাসকিন।

৪ ওভারে ৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন সাকিব। ব্যাট হাতেও ৪৬ রান করায় ম্যাচসেরা তিনি। এছাড়া ১২ রানে দুটি নিয়েছেন তাসকিন। সাইফউদ্দিন ২টি নিলেও রান দিয়েছেন ২১। ২০ রানে একটি নেন মেহেদী।  

এর আগে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিতের ম্যাচে আলো ঝলমলে পারফরম্যান্স দেখিয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটাররা। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের তো বটেই, প্রতিযোগিতারই সর্বোচ্চ স্কোর গড়েছে।

বৃহস্পতিবার ওমানের আল আমিরাত স্টেডিয়ামে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে টস জিতে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৮১ রান করে বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহর ঝড়ো হাফসেঞ্চুরি (২৮ বলে ৫০), সাকিব আল হাসানের কার্যকর ইনিংস (৩৭ বলে ৪৬) এবং আফিফ হোসেন (১৪ বলে ২১) ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের (৬ বলে ১৯*) ছোট ঝড়ে বড় সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। তবে সুবিধা করতে পারেননি নাঈম শেখ (০), মুশফিকুর রহিম (৫) ও নুরুল হাসান সোহান (০)। ২৩ বলে ২৯ রান করেছেন লিটন দাস।

পিএনজির তিন বোলার কাবুয়া মোরেয়া, দামিয়েন রাভু ও আসাদ ভালা নেন দুটি করে উইকেট।

/এফআইআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

সাকিব স্বীকার করলেন, টানা খেলায় কিছুটা ক্লান্ত তিনি

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

ভুল করতে পারি, তাই বলে ছোট করা উচিত নয়: মাহমুদউল্লাহ 

quiz
সর্বশেষসর্বাধিক
© 2021 Bangla Tribune