X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

এলপিজির দাম এত বাড়লো কেন?

আপডেট : ১০ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৫

আন্তর্জাতিক বাজারে এলপিজির দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়া এবং এলপিসি অপারেটরদের দাবিতে ডিস্ট্রিবিউশন চার্জ, রিটেইলার চার্জসহ সব খাতের চার্জ বৃদ্ধি করায় একধাপে প্রতি ১২ কেজি বোতলের দাম ২২৬ টাকা বেড়ে গেছে।

চলতি মাসের জন্য বেসরকারি পর্যায়ে এলপিজি মূসকসহ প্রতি কেজি ৮৬ টাকা ৭ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১০৪ দশমিক ৯২ টাকা করার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি), যা আজ ১০ অক্টোবর থেকেই কার্যকর হবে। এর আগের মাসে অর্থাৎ সেপ্টেম্বর মাসে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম ছিল এক হাজার ৩৩ টাকা। অক্টোবরে সেই দাম বেড়ে হলো ১ হাজার ২৫৯ টাকা। ফলে মোট বাড়লো ২২৬ টাকা।

একই সঙ্গে বেড়েছে অটোগ্যাস, রেটিকুলেটেড এলপিজির দাম। বেড়েছে অন্যান্য এলপিজি সিলিন্ডারের দামও। সাড়ে ৫ কেজি সিলিন্ডার ৪৭৩ থেকে বাড়িয়ে ৫৭৭ টাকা, সাড়ে ১২ কেজি এক হাজার ৭৬ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৩১২ টাকা, ১৫ কেজি এক হাজার ২৯১ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৫৭৪ টাকা, ১৬ কেজি এক হাজার ৩৭৭ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৬৭৯ টাকা, ১৮ কেজি এক হাজার ৫৪৯ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৮৮৮ টাকা, ২০ কেজি এক হাজার ৭২২ থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার ৯৯ টাকা, ২২ কেজি এক হাজার ৮৯৩ থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার ৩০৯ টাকা, ২৫ কেজি দুই হাজার ১৫১ থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার ৬২২ টাকা, ৩০ কেজি দুই হাজার ৫৮৩ থেকে বাড়িয়ে ৩ হাজার ১৪৭ টাকা, ৩৩ কেজি দুই হাজার ৮৪১ থেকে বাড়িয়ে ৩ হাজার ৪৬২ টাকা, ৩৫ কেজি তিন হাজার ১৩ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩ হাজার ৬৭৩ এবং ৪৫ কেজি তিন হাজার ৮৭৩ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪ হাজার ৭২১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

রবিবার (১০ অক্টোবর) কমিশনের আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (ইআরসি) আট খাতে এলপিজি অপারেটরদের ৪২ টাকা ৮৮ পয়সার অতিরিক্ত সুবিধা দিয়েছে। আগস্ট মাসের হিসাব ধরে এই সুবিধা দেওয়া হয়েছে। কারণ, গত ১৩ সেপ্টেম্বর অপারেটরদের আবেদনের ওপর গণশুনানি করেছিল কমিশন। সেই শুনানিতে যেসব চার্জ উপস্থাপন করা হয় সেগুলোর ওপর ভিত্তি করেই নতুন এই চার্জ নির্ধারণ করা হয়েছে।

আগে যেখানে বোতলজাত, মজুতসহ সব খাতে মোট চার্জ ১৪৩ টাকা ছিল, এখন সেটা বাড়িয়ে ১৮৫ টাকা ৮৮ পয়সা করা হয়েছে। ১২ কেজি সিলিন্ডারের ক্ষেত্রে চার্জের বাইরে আছে মূসক (কর) ২৪ টাকা এবং সৌদি সিপি অনুযায়ী এলপিজির ১২ কেজির দর ৮১৮ টাকা, যা আগে ছিল মূসক ২০ টাকা , এলপিজি ছিল ৬৭০ টাকা। এ হিসাবে সৌদি সিটির এলপিজির দাম বেড়েছে ১৪৮ টাকা।

এদিকে ১২ কেজির একটি সিলিন্ডারে জাহাজ ভাড়া এবং ট্রেডারের প্রিমিয়াম চার্জ ৯৭ থেকে ১ টাকা বাড়িয়ে ৯৮ টাকা, বিক্রয়, বিপণন, বিতরণ, প্রশাসনিক ও সাধারণ ব্যয় ০ দশমিক ৫৩ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৩২ পয়সা, ইমপোর্ট প্যারিটি প্রাইস ৭৭৩ টাকা থেকে ১৪৯ টাকা বাড়িয়ে ৯২২ টাকা, মজুত ও বোতলজাতকরণ পর্যায়ের দাম (কর-পূর্ব)  ৯১৬ টাকা থেকে ১৯২ টাকা বাড়িয়ে ১ হাজার ১০৮ টাকা, এলপিজির মজুতকরণ ও বোতলজাতকরণ পরবর্তী মূল্য (কর-উত্তর) ৯৮২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ হাজার ১৮৬ টাকা, ডিস্ট্রিবিউশন চার্জ (পরিবহন ব্যয়সহ) ২৪ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩৪ টাকা, রিটেইলার চার্জ ২৭ টাকা থেকে ৩৮ টাকা নির্ধারণ করেছে বিইআরসি।

এতদিন অপারেটররা বলছিল, এই চার্জগুলো অযৌক্তিক, অবাস্তবভাবে তৈরি করেছে কমিশন। এরপর শুনানি করে নতুন এই চার্জ নির্ধারণ করা হয়েছে। গত ১২ এপ্রিল প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে দেয় কমিশন। এরপর প্রতিমাসেই দাম ঘোষণা করে আসছে। এ পর্যন্ত মোট ৫টি দামের ঘোষণা দিয়েছে তারা। এরমধ্যে একটিও বাস্তবায়ন করেনি ব্যবসায়ীরা। বাজারের কেউ মানছে না এই দাম।

অপারেটরদের পক্ষে আজ শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা এলপিজির সেলস অব হেড জাকারিয়া জালাল। তাদের দাবি অনুযায়ী এলপিজির দাম ও চার্জ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এখন তারা এই দাম মানবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা যে দাবি করেছিলাম, এটা তার কাছাকাছি। আর একটু বাড়ালে ভালো হতো। আমরা এবার চেষ্টা করবো দাম কার্যকর করতে।

/এসএনএস/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

‘কম দামে’ বিলাসবহুল গাড়ি বিক্রি করবে কাস্টমস, নিতে পারবেন যে কেউ

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৫:১৭

কারনেট সুবিধায় আসা ১১০টি বিলাসবহুল গাড়ি নিলামে বিক্রি করবে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস। আগামী ৩ ও ৪ নভেম্বর এই নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। ইলেকট্রনিক নিলামের (ই-অকশন) মাধ্যমে ওই গাড়িগুলো বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে কাস্টম হাউস। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ১ থেকে ৩ কোটি টাকা মূল্যের এসব গাড়ি নিলামে কম দামে পাওয়া যাবে।

গাড়িগুলোর মধ্যে রয়েছে- মিৎশুবিশি ২৬টি, মার্সিডিজ বেঞ্চ ২৫টি, বিএমডব্লিউ ২৫টি, ল্যান্ডরোভার ৭টি, ল্যান্ডক্রুজার ৭টি, একটি সিআরভি, লেক্সস ৬টি, ফোর্ড ৫টি, জাগুয়ার ৩টি, একটি দাইয়ু ও একিট হোন্ডাসহ বিশ্বের নামিদামী ব্রান্ডের গাড়ি। 

শনিবার (১৬ অক্টোবর) চট্টগ্রাম কাস্টমসের কমিশনার মো. ফখরুল আলম নিলামের এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস সূত্র জানায়, পর্যটক সুবিধায় চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে এক দশক আগে এসব গাড়ি এনেছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ পর্যটকেরা। শুল্কমুক্ত সুবিধার অপব্যবহারের কারণে গাড়িগুলো আটকে যায়। ব্যাংক গ্যারান্টি দিয়ে খালাসের শর্ত আরোপ করা হলেও খালাস না করায় বন্দরে পড়ে থাকে দিনের পর দিন।

কাস্টমসের নিলাম শর্ত অনুযায়ী, যে কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান অংশ নিতে পারবে। টেন্ডারে অংশ নেওয়ার সময় শিডিউলের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে হালনাগাদ ট্রেড লাইসেন্স, ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন সনদ অথবা টিআইএন সার্টিফিকেটের কপি জমা দিতে হবে। আর ব্যক্তির ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি ও টিআইএন সার্টিফিকেটের কপি জমা দিতে হবে।

জানা গেছে, আগ্রহী কেউ গাড়ি কিনতে চাইলে টেন্ডার জমা দিতে হবে। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও মোংলায় কাস্টমস অফিসে রাখা টেন্ডার বাক্সে টেন্ডার আবেদন খামবন্ধ অবস্থায় জমা দিতে হবে। এছাড়া আগ্রহী কেউ গাড়ি দেখতে চাইলে জাতীয় পরিচয় কিংবা পাসপোর্টের ছবিসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে আবেদন করে আগে থেকে পাস নিতে হবে।

গাড়ি পরিদর্শনের তিনদিন আগে পাসের আবেদন করতে হবে বলে জানিয়েছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। বলা হয়েছে, গাড়ি পরিদর্শনের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ২৭ থেকে ২৮ অক্টোবর এবং ৩১ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর। অনলাইনে নিলামে অংশ নেওয়ার জন্য প্রশিক্ষণেও অংশ নিতে পারবেন ক্রেতারা। আগামী ১৮ অক্টোবর সশরীরের বা অনলাইন প্ল্যাটফর্মে এই প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হবে। 

আগ্রহী দরদাতাদের আগামী ৩ নভেম্বর সকাল ৯টা থেকে ৪ নভেম্বর দুপুর ১টা পর্যন্ত কাস্টম হাউসের ওয়েবসাইট www.chc.gov.bd অথবা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের www.nbr.gov.bd ওয়েবসাইটের ই-অকশন লিংকে প্রবেশ করে দরপত্র দাখিল করতে পারবেন।

/জিএম/ইউএস/

সম্পর্কিত

দেশের রাস্তায় চলবে বৈদ্যুতিক গাড়ি

দেশের রাস্তায় চলবে বৈদ্যুতিক গাড়ি

কঠোর লকডাউনেও খোলা থাকবে সব শুল্ক স্টেশন

কঠোর লকডাউনেও খোলা থাকবে সব শুল্ক স্টেশন

রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধা চায় বারভিডা

রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধা চায় বারভিডা

শেয়ার বাজারে হঠাৎ ক্রেতা কম

আপডেট : ১৫ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩৭

হঠাৎ করেই ছন্দ পতন ঘটেছে শেয়ার বাজারে। সপ্তাহের শেষ দিন বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) বিক্রেতার তুলনায় ক্রেতা কম থাকায় পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে। সব ধরনের সূচকের পাশাপাশি কমেছে লেনদেনের পরিমাণও। বৃহস্পতিবার দিন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন দেড় হাজার কোটি টাকার নিচে নেমে আসে, যা গত আড়াই মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

তথ্য বলছে, দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসই’র প্রধান সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারের দামও। এর মধ্য দিয়ে টানা চার দিন পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, গেলো সপ্তাহে কিছুটা মন্দার মধ্যে দিয়ে পার করেছে দেশের শেয়ার বাজার। এতে প্রধান শেয়ার বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বাজার মূলধন দুই হাজার কোটি টাকা কমেছে। সেই সঙ্গে কমেছে সবক’টি মূল্যসূচক ও লেনদেন। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসই’র বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৮০ হাজার ১১২ কোটি টাকা, যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৫ লাখ ৮২ হাজার ১২৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ গেলো সপ্তাহে ডিএসই’র বাজার মূলধন কমেছে ২ হাজার ১২ কোটি টাকা।

অবশ্য এর আগে টানা তিন সপ্তাহ ডিএসই’র বাজার মূলধন বেড়েছে। আগের তিন সপ্তাহে ডিএসই’র বাজার মূলধন বাড়ে ৭ হাজার ৫৪৯ কোটি টাকা। এই হিসাবে সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন বাড়ার পর দুই হাজার কোটি টাকা কমলো। তথ্য বলছে,

বাজার মূলধন কমার পাশাপাশি গেলো সপ্তাহে ডিএসইতে যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে প্রায় তার দ্বিগুণ। সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১২৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। দাম কমেছে ২৩১টির। আর ২৩টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এর ফলে গত সপ্তাহে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৯৯ দশমিক ৭০ পয়েন্ট।  আগের সপ্তাহে সূচকটি বেড়েছিল ১৩ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট।

বাজারের তথ্য বলছে,  প্রধান মূল্যসূচকের পাশাপাশি গেলো সপ্তাহে কমেছে ইসলামি শরিয়াহ ভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই শরিয়াহ্ সূচকও। গত সপ্তাহজুড়ে সূচকটি কমেছে ২৮ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বেড়েছিল ৩ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট। আর বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকটি কমেছে ৪৮ দশমিক ২৫ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বেড়েছিল ৫৬ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট।

ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৮১২ কোটি ৪২ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৫৪৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা।

আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৯ হাজার ৬২ কোটি ১১ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১২ হাজার ৭২৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। সেই হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ৩ হাজার ৬৬২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

/এপিএইচ/

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

আপডেট : ১৫ অক্টোবর ২০২১, ১৫:২৪

ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গণশুনানির পর এলপিজির দর নির্ধারণের ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। সবাই আশা করেছিল, এবার অন্তত বিইআরসি ঘোষণা কার্যকর হবে। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নির্ধারিত দরের চেয়ে অতিরিক্ত দামে এখনও এলপিজি বিক্রি হচ্ছে। দর নিয়ন্ত্রণে বার বার হস্তক্ষেপের ঘোষণা দিলেও বিইআরসি এবং সরকার কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি।

কমিশনের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল এলপিজির দরের আদেশের সংবাদ সম্মেলনেই জানিয়েছিলেন, কমিশনের জনবল মাত্র ৩৫ জন। এত স্বল্প জনবল দিয়ে তাদের পক্ষে সারাদেশে দর নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। এরপরও সীমিত আকারে হলেও তারা এবার মাঠে নামবেন।

একইসঙ্গে তিনি জানান, দর কার্যকরে সবচেয়ে বড় ভূমিকা নিতে হবে সরকারকে। জেলা প্রশাসন যদি এ বিষয়ে সহায়তা করে তাহলে সারাদেশে কমিশনের ঘোষণা বাস্তবায়ন সম্ভব। কমিশন আদালতের আদেশে সারাদেশে এলপিজির দর নির্ধারণ করছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা যে আদেশ মানছেন না —সে বিষয়টি এখনও আদালতের নজরে আনেনি কমিশন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যেহেতু আদালত দর নির্ধারণের নির্দেশ দিয়েছিল তাই বিষয়টি আদালতকে জানানো উচিত ছিল। এক্ষেত্রে আদালত কোনও নির্দেশনা দিলে তা মানা সবার জন্য বাধ্যতামূলক হতো। এক্ষেত্রে আদালত সরকারকেও কমিশনের আদেশ বাস্তবায়নের কার্যকর নির্দেশ দিতে পারতো। অতীতে দেখা গেছে বিভিন্ন সময়ে আদেশ অমান্যকারীদের আদালত ডেকে পাঠিয়েছে। এক্ষেত্রে তেমন কিছু হলে মাঠ পর্যায়ে সাধারণ জনগণ উপকৃত হতো।

গত ১০ অক্টোবর কমিশন এক সংবাদ সম্মেলন করে বেসরকারি এলপিজির ১২ কেজি সিলিন্ডারের দাম ১ হাজার ২৫৯ টাকা নির্ধারণ করে। একইভাবে বাজারে বিক্রি হওয়া নানা ওজনের যেমন সাড়ে ৫ থেকে শুরু করে ৩৫ কেজি সিলিন্ডারের নতুন দাম ঘোষণা করা হয়। এর আগে প্রথমবার ১২ এপ্রিল এই দাম ঘোষণার উদ্যোগ নেয় তারা। এরপর ধাপে ধাপে পাঁচ বার দাম ঘোষণা করেছে। এরমধ্যে বেসরকারি ব্যবসায়ীরা তাদের বোতলজাতকরণ, মজুতকরণসহ চার্জগুলো ঠিক হয়নি বলে এতদিন কমিশনের নির্ধারিত দাম মানেনি।

সর্বশেষ গত ১০ অক্টোবর অপারেটরদের দাবিতে নতুন করে শুনানি করে তাদের এসব চার্জের টাকাও বাড়িয়েছে কমিশন। একইসঙ্গে সরকারি এলপিজির দামও ঘোষণা করেছে, আমদানি করা হয় না বলে একই দাম রেখেছে। কিন্তু বৃহস্পতিবারও (১৪ অক্টোবর) বাজারে গিয়ে দেখা যায়, আগেরই মতো ‘যার যা ইচ্ছা’ দামে এলপিজি বিক্রি করছেন। ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কোথাও সরকারি নির্দেশিত দরে এলপিজি বিক্রি হচ্ছে না।

কাঁঠালবাগান বাজারের একজন খুচরা এলপিজি সিলিন্ডার বিক্রেতা জানান, ১২ কেজি এলপিজির সিলিন্ডার ১ হাজার ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায় বিক্রি করছেন। কেন সরকারি দামের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, দামতো ১ হাজার ২৫৯ টাকা করেছেন। আমাদের তো কিছু লাভ রাখতেই হয়। খুব বেশি তো আমরা রাখছি না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বসুন্ধরা এলপিজির সেলস অব হেড জাকারিয়া জালাল বলেন, আমরা যা দাবি করেছিলাম তার পুরোটা কমিশন রাখেনি। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে যে হারে দাম বাড়ছে তাতে করে ভবিষ্যতে এলপিজি গ্রাহকই আমরা হারাতে পারি। তাই এর চেয়ে বেশি দামে এলপিজি আমরা বিক্রি করতেও চাই না। বাজারে এখনও আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।’

আপনারা কোনও নির্দেশনা দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আপনারা (গ্রাহক) এমন কিছু পেলে মামলা করে দেন। আমরা কোনও নির্দেশনা দেইনি। আমরা চাই না এর (নির্ধারিত দর) চেয়ে বেশি দামে এলপিজি বিক্রি করতে।’

বাজারে যে নির্দেশনা মানা হচ্ছে না এ বিষয়ে কমিশনের কি করার আছে জানতে চাইলে কমিশনের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল বলেন, আমরা অভিযোগ পেলেই বিইআরসির আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো। জনবল না থাকায় সবাইকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি জেলা প্রশাসনসহ সবাইকে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলছি আমরা।

ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) জ্বালানি উপদেষ্টা শামসুল আলম বলেন, এবার কমিশন যে দাম নির্ধারণ করেছে তা একেবারেই ব্যবসায়ীদের পক্ষে। এই দাম ভোক্তা স্বার্থে করা হয়নি। আমরা পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছি। পরবর্তী করণীয় বিষয়ে সবাইকে জানানো হবে।

/এমআর/ইউএস/

সম্পর্কিত

শেয়ার বাজারে হঠাৎ ক্রেতা কম

শেয়ার বাজারে হঠাৎ ক্রেতা কম

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ২২:১৯

এখন থেকে পেঁয়াজ আমদানিতে কোনও শুল্কারোপ করবে না জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। এই পণ্যটির দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় সমুদয় শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। অর্থাৎ আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত পেঁয়াজ আমদানিতে কোনও শুল্ক দিতে হবে না। এতদিন ৫ শতাংশ হারে আমদানি শুল্ক দিতে হতো। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

এর আগে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন পেঁয়াজ ও চিনির ওপর শুল্ক কমানোর সুপারিশ করেছিল। পরে পেঁয়াজ, চিনি ও ভোজ্যতেলে শুল্ক কর কমানোর জন্য এনবিআর-কে অনুরোধ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে গত সোমবার আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠক করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

পেঁয়াজের আকাশচুম্বী দাম উঠলে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এনবিআর পেঁয়াজের ওপরে আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করেছিল। তখন শুল্ক প্রত্যাহারের মেয়াদ ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। চলতি বছরের এপ্রিল মাস থেকে আবারও পেঁয়াজের আমদানি শুল্ক ৫ শতাংশ পুনর্বহাল করা হয়।

এদিকে অপরিশোধিত চিনি আমদানিতে শুল্ক কমানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এনবিআরের আরেকটি প্রজ্ঞাপনে এ সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করা হয়। বর্তমানে চিনির ওপরে নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক ৩০ শতাংশ। এটি কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে। ২০২২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমদানি পর্যায়ে কম হারে নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক দিতে হবে।

 

/জিএম/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেয়ার বাজারে হঠাৎ ক্রেতা কম

শেয়ার বাজারে হঠাৎ ক্রেতা কম

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ১২ বছর শুল্ক সুবিধা চায় বিজিএমইএ

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় লোকসানে বিপিসি

এহসান গ্রুপ ও কিউকমসহ ১০ প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব স্থগিত

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৬:৪৪

সুদবিহীন বিনিয়োগের কথা বলে গ্রাহকদের অর্থ হাতিয়ে নেওয়া এহসান গ্রুপের ৮ প্রতিষ্ঠান ও ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান কিউকম,  জেএমআর ডিজিটাল ইন্টারন্যাশনালসহ মোট ১০ প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাব স্থগিত করা হয়েছে। একইসঙ্গে স্থগিত করা হয়েছে এসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আরও ৮ ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব।  বুধবার (১৩ অক্টোবর) আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এই ব্যাংক হিসাবগুলো স্থগিত করেছে। এদিন বিএফআইইউর পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়ে দেশের সব তফসিলি ব্যাংকে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ (সংশোধিত-২০১৫) সালের ২৩ (১) (গ) ধারার ক্ষমতা বলে ব্যাংক হিসাবগুলো ৩০ কার্যদিবসের জন্য স্থগিত থাকবে। এ সময় এসব প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব থেকে আর কোনও টাকা উত্তোলন করা যাবে না।

হিসাব স্থগিত করা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- এহসান গ্রুপ, এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডার্স, এহসান এমসিএস লিমিটেড, এহসান মাল্টিপারপাস কো অপারেটিভ, নুরে মদিনা ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট একাডেমি, মেসার্স নুর জাহান ইন্টারন্যাশনাল ক্যাডেট একাডেমি, মেসার্স আল্লারদান বস্ত্রালয়, মেসার্স পিরোজপুর বস্ত্রালয়, কিউকম লিমিটেড ও জেএমআর ডিজিটাল ইন্টারন্যাশনালের ব্যাংক হিসাব স্থগিত করা হয়েছে।

এছাড়া এহসান গ্রুপের চেয়ারম্যান রাগীব আহসান ও তার ভাই আবুল বাশার খান শামীম এহসানসহ হিসাব স্থগিত করা তালিকায় রয়েছে মাহমুদুল হাসান, সালমা হাসান, সুমনা হক রানী, সাইফুল হক এবং কিউকমের মালিক রিপন মিয়ার নাম।

একইদিন পুলিশের পরিদর্শক সোহেল রানাসহ আরও ১৯ জনের হিসাব তলব করা হয়েছে। এসব ব্যক্তির হিসাব খোলার ফরম, কেওয়াইসি প্রোফাইল, শুরু থেকে হালনাগাদ লেনদেন বিবরণীও পাঠাতে হবে।

হিসাব তলব করা ব্যক্তির মধ্যে রয়েছে ই-অরেঞ্জের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পুলিশের পরিদর্শক গ্রেফতার হওয়া শেখ সোহেল রানা, সনিয়া মেহজাবিন, ই-অরেঞ্জের মালিক বিথী আক্তার, এমএম ইস্পাহানির এক্সিকিউটিভ মোমেনা আক্তার মাসুমা, গ্রুপ ১৯৭১ এর পরিচালক নাজমা সুলতানা পিয়া, মোহাম্মদ জায়েদুল ফিরোজ, অনিরুদ্ধ রাজবংশী, প্রতিমা রাজবংশী, শুভাশিস রাজবংশী, জোছনা রাজবংশী, আতিকুল ইসলাম, লিপি ইসলাম, মোর্শেদা আক্তার রতনা, নিলুফা বেগম,  মিজানুর রহমান, রেহেনা আক্তার, জিনাত ফাতেমা, আসানুল আজিম এবং নাসিম।

/জিএম/এমআর/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের লোকসানি শাখা বাড়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উদ্বেগ

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের লোকসানি শাখা বাড়ায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উদ্বেগ

অনিয়মের ঋণকে খেলাপি হিসেবে দেখানোর নির্দেশ

অনিয়মের ঋণকে খেলাপি হিসেবে দেখানোর নির্দেশ

প্রি-শিপমেন্ট ক্রেডিট খাতের তহবিল থেকে ঋণ নেওয়ার সময় বাড়লো

প্রি-শিপমেন্ট ক্রেডিট খাতের তহবিল থেকে ঋণ নেওয়ার সময় বাড়লো

চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো

সম্পর্কিত

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

‘এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতে নিষ্পত্তি হওয়াই ভালো’

‘এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতে নিষ্পত্তি হওয়াই ভালো’

এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি ১৩ সেপ্টেম্বর

এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি ১৩ সেপ্টেম্বর

বেড়েই চলেছে এলপিজি ও অটোগ্যাসের দাম, বিইআরসির নতুন দাম ঘোষণা

বেড়েই চলেছে এলপিজি ও অটোগ্যাসের দাম, বিইআরসির নতুন দাম ঘোষণা

এলপিজির দাম নির্ধারণে আবারও গণশুনানি

এলপিজির দাম নির্ধারণে আবারও গণশুনানি

সর্বশেষ

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

খুলছে হাবিপ্রবির হল, থাকছে না গণরুম

খুলছে হাবিপ্রবির হল, থাকছে না গণরুম

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

রাশিয়ায় করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

রাশিয়ায় করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

ওমানে বিশ্বকাপে নামছে বাংলাদেশ, দেশে বসে থাকছেন না মুমিনুল-শান্তরাও

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

কমিশনের নির্ধারিত এলপিজির দাম কার্যকর করবে কে?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির দর নিয়ে ভোগান্তি কি শেষ হবে না?

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

এলপিজির মূল্য নির্ধারণ নিয়ে আইনি জটিলতায় বিইআরসি

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বৃদ্ধির সুপারিশ

‘এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতে নিষ্পত্তি হওয়াই ভালো’

‘এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতে নিষ্পত্তি হওয়াই ভালো’

© 2021 Bangla Tribune