X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

প্রণোদনা ও সুদমুক্ত ঋণসহ ১১ দফা দাবি কৃষক-খেতমজুর সংগ্রাম পরিষদের

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪২

করোনা মহামারি ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও খেতমজুরদের নগদ আর্থিক প্রণোদনা এবং সুদমুক্ত ঋণ প্রদানসহ ১১ দফা দাবি জানিয়েছে কৃষক-খেতমজুর সংগ্রাম পরিষদ।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাজধানীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে সংগঠনটি এ কথা জানায়।

সংগঠনের নেতারা বলেন, করোনা প্রণোদনা প্যাকেজে কৃষকদের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ হলেও প্রকৃত কৃষক (ভূমিহীন, গরিব ও বর্গা কৃষক) এ প্রণোদনার অর্থ পায়নি। সরকার দলীয় বিবেচনায় কৃষি কার্ডধারী অকৃষক ও প্রভাবশালীরাই স্বল্প সুদের কৃষিঋণ, সার, বীজ ও অন্যান্য আর্থিক সুবিধা ভোগ করছে। করোনা মহামারির মধ্যে গ্রামের খেতমজুর, দিনমজুর ও অন্যান্য শ্রমজীবীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেনি সরকার।

তারা বলেন, মোট গ্রামীণ শ্রমশক্তির ৬০% নিয়োজিত কৃষিতে। জিডিপির প্রায় ১৬% আয় আসে কৃষি থেকে। অথচ কৃষক উৎপাদিত ফসলের লাভজনক মূল্য থেকে বঞ্চিত। বোরো আউশ আমন মৌসুমে সরকার সিংহভাগ ধান কৃষকদের কাছ থেকে না কিনে মিল মালিক, ব্যবসায়ী ও দলীয় নেতা-কর্মীদের নিকট থেকে কিনছে। ফলে অধিকাংশ কৃষক সর্বস্ব হারিয়ে ভূমিহীনে পরিণত হচ্ছে। খেতমজুর ও গরিব মানুষেরা শহরে এসে কাজ খুঁজছে এবং মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

করোনার মধ্যে দরিদ্রতা বেড়েছে উল্লেখ করে তারা বলেন,  আগের ৪ কোটি দরিদ্রের সাথে আরও আড়াই কোটি দরিদ্র যোগ হয়েছে। ধনী ও গরিবের বৈষম্য অকল্পনীয়ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশে চাল, ডাল, তেল, চিনি, গমসহ সকল পণ্য সামগ্রীর দাম পাগলা ঘোড়ার মতো লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলছে। সরকার ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণে একেবারে ব্যর্থ হয়েছে।

অতীতের মতো এবছরও উজানে ভারত কর্তৃক প্রায় সকল নদীর উপর নির্মিত বাঁধের গেট খুলে দেওয়ায় এখন বাংলাদেশ বন্যায় সয়লাব হয়ে গেছে -  অভিযোগ করে সংগঠনটি থেকে বলে, নদী ভাঙ্গনে কৃষি জমি ও জনপদ ধ্বংস হচ্ছে। প্রায় ৪ কোটি মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগে পতিত হয়েছে। সরকারের নতজানু নীতির কারণে ভারতের কাছ থেকে অভিন্ন নদীর পানির হিস্যা আদায় করা যাচ্ছে না।

তারা বলেন, করোনার সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের ব্যবস্থাপত্র অনুসারে সকল রাষ্ট্রায়ত্ত্ব পাটকল ও ৬টি চিনিকল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে অর্থনীতিতে ভয়াবহ বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এ প্রক্রিয়ায় অন্যান্য রাষ্ট্রায়ত্ত্ব খাতও ক্রমান্বয়ে বন্ধ করে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে।

মানববন্ধন থেকে তারা দাবি জানায়, উৎপাদন খরচের সাথে বাড়তি ৪০% যুক্ত করে কৃষি ফসলের লাভজনক দাম নিশ্চিত করে মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করতে হবে। কৃষি উপকরণের দাম কমানোসহ কৃষি জমি ধ্বংস রোধ করতে হবে।

এছাড়াও, করোনা মহামারি ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও খেতমজুরদের নগদ আর্থিক প্রণোদনা এবং সুদমুক্ত ঋণ দানসহ আরও ১১ দফা দাবির কথা জানান তারা।

/জেডএ/এমএস/

সম্পর্কিত

ডেমরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে রঙমিস্ত্রির মৃত্যু

ডেমরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে রঙমিস্ত্রির মৃত্যু

‘জলবায়ু সম্মেলনে দেশের স্বার্থরক্ষার কৌশল আরও জোরদার করতে হবে’

‘জলবায়ু সম্মেলনে দেশের স্বার্থরক্ষার কৌশল আরও জোরদার করতে হবে’

মুগদা হাসপাতালে এসি বিস্ফোরণে নার্সসহ দগ্ধ ৯

মুগদা হাসপাতালে এসি বিস্ফোরণে নার্সসহ দগ্ধ ৯

সেবা সম্পর্কে স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশ ও প্রচারের চর্চা নগণ্য: টিআইবি

সেবা সম্পর্কে স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশ ও প্রচারের চর্চা নগণ্য: টিআইবি

জাপানি শিশুদের নিয়ে বাবা-মায়ের টানাপড়েন: উভয়পক্ষের রিটের শুনানি ২৮ অক্টোবর

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২২:০২

তিন কন্যা সন্তানের জিম্মা চেয়ে জাপানি মা ডা. এরিকো নাকানো ও বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক ওই শিশুদের বাবা ইমরান শরীফের দায়ের করা পৃথক রিটের শুনানির জন্য আগামী ২৮ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট। একইদিন উভয়পক্ষকে লিখিতভাবে তাদের যুক্তিতর্ক আদালতে দাখিল করতে বলেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে শিশুদের বাবার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ফাওজিয়া করিম ফিরোজ। অন্যদিকে জাপানি মায়ের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির।

এর আগে দুই মেয়েকে হাইকোর্টে হাজির করাতে রিট করেছিলেন জাপান থেকে আসা ডা. এরিকো নাকানো। ওই রিটের প্রেক্ষিতে দুই মেয়েকে হাজিরের পর এখন গুলশানের একটি ভাড়া বাসায় দিন ও রাত হিসাব করে এরিকো ও ইমরান শরীফ মেয়েদের দেখাশোনা করছেন।

গত ১৯ আগস্ট শরীফ ইমরানের জিম্মায় থাকা দুই শিশু সন্তানকে ৩১ আগস্ট হাজির করার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে তাদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন আদালত। শিশুদের মা জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকোর করা রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট এসব আদেশ দেন।

পরে দুই শিশুকে নির্যাতনের অভিযোগে তাদের মা পৃথক মামলা দায়ের করলে শিশুদের উদ্ধার করে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ সিআইডি। এরপর তাদেরকে তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছিলো।

এরপর শরীফ ইমরানের জিম্মা থেকে দুই শিশু সন্তানকে সিআইডি কর্তৃক উদ্ধারের পর গত ৩১ আগস্ট পর্যন্ত তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে উন্নত পরিবেশে রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত তাদের মা ও বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বাবা শিশুদের সঙ্গে সময় কাটাতে পারবেন বলেও আদালত সময় বেধে দিয়েছিলেন। এছাড়াও ৩১ আগস্ট শিশুদেরকে হাইকোর্টে হাজির করতে এবং এ সময়ের মধ্যে আদালত উভয়পক্ষের আইনজীবীদের বিষয়টি সমাধান করতে ভূমিকা রাখার প্রচেষ্টা চালাতে পরামর্শ দিয়েছিলেন।

গত ৩১ আগস্ট বাংলাদেশি বাবা ও জাপানি মায়ের দুই শিশুকে তেজগাঁওয়ের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের পরিবর্তে গুলশানস্থ বাসায় একসঙ্গে ১৫ দিন বসবাস করার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ঢাকার সমাজ সেবা অধিদফতরের উপ-পরিচালক পদের একজনকে বিষয়টি তদারকির নির্দেশ দেন। পাশাপাশি ডিএমপি কমিশনারকে তাদের পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বলা হয়।

ওই সময়ের মধ্যে তাদেরকে বিষয়টির সুরাহা করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন আদালত। পরবর্তীতে দ্বিতীয় দফায় দুপক্ষের আইনজীবীদের আলোচনায় বসার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। তবে এ বিষয়ে কোন সুরাহা না হওয়ায় মামলাটি পুনরায় শুনানিতে ওঠে।

এদিকে জাপানে থাকা তার তৃতীয় ছোট কন্যাকে হাজির করানোর ও দেখা করার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে পৃথক আরেকটি রিট দায়ের করেন শিশুদের বাবা ইমরান শরীফ।

/বিআই/এমএস/

সম্পর্কিত

সাম্প্রদায়িক হামলাকারীদের আইনি সহায়তা না দেওয়ার আহ্বান সুপ্রিম কোর্ট বারের

সাম্প্রদায়িক হামলাকারীদের আইনি সহায়তা না দেওয়ার আহ্বান সুপ্রিম কোর্ট বারের

৬ মাস পাওনা টাকা চাইতে পারবেন না ইভ্যালির গ্রাহকরা: হাইকোর্ট

৬ মাস পাওনা টাকা চাইতে পারবেন না ইভ্যালির গ্রাহকরা: হাইকোর্ট

যৌনকর্মীদের খুনের নেপথ্যে তাদের ‘বাবুরা’

যৌনকর্মীদের খুনের নেপথ্যে তাদের ‘বাবুরা’

মণ্ডপে হামলার উসকানিদাতা মাওলানা রহিম বিপ্লবী গ্রেফতার

মণ্ডপে হামলার উসকানিদাতা মাওলানা রহিম বিপ্লবী গ্রেফতার

ধর্মব্যবসায়ীদের প্রতিহত করতে হবে: মেয়র আতিক

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:৫০

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মিলে ধর্মব্যবসায়ীদের প্রতিহত করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজধানীর উত্তরা কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত উত্তরা আর্টিস্ট অ্যাসোসিয়েশনে প্রণোদনা সহযোগিতা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি ধর্মকে পুঁজি করে রাজনীতি করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে, এ বিষয়ে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করতে হবে, প্রতিষ্ঠা করতে হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা।

ডিএনসিসি মেয়র প্রধান অতিথির বক্তৃতা শেষে উত্তরা আর্টিস্ট অ্যাসোসিয়েশনে ভালবাসার প্রণোদনা হিসেবে ৭ লাখ টাকার একটি চেক তুলে দেন।

এই প্রণোদনায় ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ২ লাখ টাকা, ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. আফসার উদ্দিন ১ লাখ টাকা, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. ইসহাক মিয়া ১ লাখ টাকা, ৪৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জয়নাল আবেদীন ৫০ হাজার টাকা, ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জাইদুল ইসলাম মোল্লা ৫০ হাজার টাকা, ৫০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ডিএম শামীম ৫০ হাজার টাকা এবং ১, ১৭ ও ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর হাছিনা বারী চৌধুরী ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন।

/এসএস/এমএস/

সম্পর্কিত

ভবনে ৬ মাসের মধ্যে সেপটিক ট্যাংক না বসালে ব্যবস্থা: মেয়র আতিক

ভবনে ৬ মাসের মধ্যে সেপটিক ট্যাংক না বসালে ব্যবস্থা: মেয়র আতিক

রূপনগর খাল পুনরুদ্ধারে ডিএনসিসির অভিযান

রূপনগর খাল পুনরুদ্ধারে ডিএনসিসির অভিযান

‘নতুন ওয়ার্ডে একটি করে রাস্তা নির্মাণ শুরু ২০ নভেম্বর’ 

‘নতুন ওয়ার্ডে একটি করে রাস্তা নির্মাণ শুরু ২০ নভেম্বর’ 

ডিএনসিসি এলাকায় ১১ মামলায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা

ডিএনসিসি এলাকায় ১১ মামলায় ৫ লাখ টাকা জরিমানা

সাম্প্রদায়িক হামলাকারীদের আইনি সহায়তা না দেওয়ার আহ্বান সুপ্রিম কোর্ট বারের

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৭

দেশব্যাপী মন্দির, হিন্দুদের ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর অগ্নিসংযোগ ও নাশকতায় জড়িতদের আইনি সহায়তা না দিতে আইনজীবীদের প্রতি আহবান জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নেতারা।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির মূল ভবনের সামনে “সংঘাত নয়, ঐক্যের বাংলাদেশ চাই” দাবিতে এক সম্প্রীতি সমাবেশে বক্তারা এ আহ্বান জানান। সমাবেশটির আয়োজন করে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, দেশে চলমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট, অগ্নিসংযোগ, লুটপাটের সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। একইসঙ্গে তাদের মদতদাতা স্বাধীনতাবিরোধী ধর্মান্ধ জামাত-শিবির ও তাদের দোসর ‑ যারা জড়িত, তাদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় এনে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী আন্দোলন জোরদার করতে হবে। আইনজীবীসহ সকল ধর্ম, বর্ণ, পেশার বিবেকবান মানুষ, আলেম-ওলামাদের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য যার যার অবস্থান থেকে ভূমিকা রেখে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে হবে। এছাড়াও সকল ধর্মের মধ্যে সম্প্রীতি বৃদ্ধির জন্য দলমতের ঊর্ধ্বে থেকে ভূমিকা রাখা এবং ভবিষ্যতে এরূপ সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে সরকারের পাশাপাশি সচেতন সব নাগরিককে সজাগ থাকার জন্য সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে আহবান জানানো হয়।

পাশাপাশি সমাবেশ থেকে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সদস্যদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনের জন্য জোর দাবি জানানো হয়।

বক্তারা দেশব্যাপী মন্দির, হিন্দুদের ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর অগ্নিসংযোগ ও নাশকতায় জড়িতদের আইনি সহায়তা প্রদান না করা এবং চলমান সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসে ক্ষতিগ্রস্তদের আইনি সহায়তা প্রদানের জন্য সারা দেশের আইনজীবীদের প্রতি আহবান জানান।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও অ্যাটর্নি জেনারেল বিদেশে অবস্থান করেও চলমান পরিস্থিতির বিষয়ে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখছেন এবং সমাবেশের বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা ও পরামর্শ প্রদান করছেন বলে সমিতির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ শফিক উল্যা তার বক্তব্যে জানান।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন দেশের বাইরে অবস্থান করায় ওই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সমিতির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ শফিক উল্যা।

এসময় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন - সমিতির ট্রেজারার অ্যাডভোকেট ড. ইকবাল করিম, সদস্য মাহফুজুর রহমান রোমান, এ.বি.এম. শিবলী সাদেকীন, মিন্টু কুমার মণ্ডল, ব্যারিস্টার মুনতাসির উদ্দিন আহমেদ, সাবেক সম্পাদক ড. বশির আহমেদ, সাবেক সম্পাদক ড. মো. মোমতাজউদ্দিন আহমেদ মেহেদী, সাবেক সহসম্পাদক মো. মোতাহার হোসেন সাজু, আইনজীবী নেতা অ্যাডভোকেট আবদুন নুর দুলাল, অ্যাডভোকেট শাহ মঞ্জুরুল হক, বিভাষ চন্দ্র বিশ্বাষ, প্রবীর রঞ্জন হালদার, জয়া ভট্টাচার্য, চিত্রা রায়, জেসমিন সুলতানা, জগলুল কবীর প্রমুখ।

/বিআই/এমএস/

সম্পর্কিত

জাপানি শিশুদের নিয়ে বাবা-মায়ের টানাপড়েন: উভয়পক্ষের রিটের শুনানি ২৮ অক্টোবর

জাপানি শিশুদের নিয়ে বাবা-মায়ের টানাপড়েন: উভয়পক্ষের রিটের শুনানি ২৮ অক্টোবর

৬ মাস পাওনা টাকা চাইতে পারবেন না ইভ্যালির গ্রাহকরা: হাইকোর্ট

৬ মাস পাওনা টাকা চাইতে পারবেন না ইভ্যালির গ্রাহকরা: হাইকোর্ট

যৌনকর্মীদের খুনের নেপথ্যে তাদের ‘বাবুরা’

যৌনকর্মীদের খুনের নেপথ্যে তাদের ‘বাবুরা’

মণ্ডপে হামলার উসকানিদাতা মাওলানা রহিম বিপ্লবী গ্রেফতার

মণ্ডপে হামলার উসকানিদাতা মাওলানা রহিম বিপ্লবী গ্রেফতার

এক সপ্তাহে ৪ কোটি শিশু পাবে কৃমির ওষুধ

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:২৭

আগামী ৩০ অক্টোবর থেকে ৫ নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২৫তম জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম চলবে। আর এসময়ে পাঁচ থেকে ১৬ বছর বয়সী তিন ৯৪ লাখ ৩২ হাজারের বেশি শিশুকে টিকা খাওয়ানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ কথা জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার ( ২১ অক্টোবর) কৃমি নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম উদ্বোধনকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা জানান।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার অধীনে ফাইলোরিয়াসিস নির্মূল, কৃমি নিয়ন্ত্রণ ও ক্ষুদে ডাক্তার কার্যক্রমের এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, ১ লাখ ২০ হাজার প্রাথমিক এবং ৩৩ হাজার মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই কার্যক্রম চালানো হবে।

অনুষ্ঠানে জাহিদ মালেক বলেন, দেশের স্বাস্থ্যখাত দেশ অনেক ভালো অবস্থানে আছে। যে কারণে কৃমির সংক্রমণ আগের চেয়ে অনেক কমেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের কৃমিনাশক কর্মসূচির আওতায় কৃমি সংক্রমণ শূন্যে নামিয়ে আনা হবে।

আগে আমরা গ্রামেগঞ্জে গেলে দেখতাম অনেক ছেলেমেয়েরা খালি পায়ে হাঁটছে, হাত-পা চিকন, পেটটা অনেক বড় মন্তব্য করে তিনি বলেন,  এখন এটা তেমন দেখা যায় না। কারণ আগে আমাদের দেশে স্যানিটেশনের অবস্থা ভালো ছিল না। এখন প্রায় শতভাগ বাড়িতে স্যানিটারি ল্যাট্রিন। এখন পুকুরের পানি কেউ পান করে না। স্বাস্থ্যসেবাও মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে।

তিনি বলেন, আগে ৮০ শতাংশ ছেলেমেয়ের কৃমির সংক্রমণে ভুগতো, এই কার্যক্রমের ফলে এখন তা ৮ শতাংশের নিচে নেমে গেছে। এটা বিরাট অর্জন। আশা করি এভাবে কাজ করলে শূন্যে নেমে আসবে।

অনুষ্ঠানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যের বরাত দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, বাংলাদেশে শূন্য থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের সাত শতাংশ, পাঁচ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুদের ৩২ শতাংশ, ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী ১৫ শতাংশ, ২৫ থেকে ৪৪ বছর থেকে ৫৫ বছর বয়সীদের পাঁচ শতাংশ এবং ৫৫ বছরের ঊর্ধ্বে ব্যক্তিদের চার শতাংশের কৃমির সংক্রমণ রয়েছে। কৃমির সংক্রমণ ঠেকাতে ২০০৫ সালে প্রথম এই কর্মসূচি শুরু হয়েছে, বর্তমানে সারাদেশের ৬৪টি জেলায় এই কার্যক্রম চলছে।

 

/জেএ/এমআর/

সম্পর্কিত

সাড়ে সাত লাখ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

সাড়ে সাত লাখ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

করোনায় মৃত্যুহীন ৫৬ জেলা

করোনায় মৃত্যুহীন ৫৬ জেলা

ডেঙ্গুতে আরও এক মৃত্যু  

ডেঙ্গুতে আরও এক মৃত্যু  

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় বারডেমের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক নবায়ন  

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় বারডেমের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক নবায়ন  

সাড়ে সাত লাখ টিকা দেওয়া হয়েছে আজ

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ২১:২২

দেশে এখন পর্যন্ত টিকা এসেছে ৭ কোটি ৭০ লাখ ৭২ হাজার ৪২০ ডোজ। এর মধ্যে ৫ কোটি ৯৫ লাখ ৫৫ হাজার ৬৩৬ ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। মজুত আছে ১ কোটি ৭৫ লাখ ১৬ হাজার ৭৮৪ ডোজ। এখন পর্যন্ত প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৬১ হাজার ১৬২ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ১ কোটি ৯৯ লাখ ৯৪ হাজার ৪৭৪ জন। আর আজ দুই ডোজ মিলিয়ে দেওয়া হয়েছে ৭ লাখ ৫৪ হাজার ৫৮১ ডোজ টিকা। 

এগুলো দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকা, চীনের তৈরি সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্নার টিকা। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেওয়া তথ্য মতে, বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ৭২ হাজার ২৪৪ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে এক হাজার ৮৬২ জনকে। পাশাপাশি ফাইজারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ২৫ হাজার ৯১৯ জনকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ছয় হাজার ৭৯২ জনকে। এছাড়া সিনোফার্মের টিকা প্রথম ডোজ নিয়েছেন দুই লাখ ৯৪ হাজার ৫১ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন তিন লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৩ জন।  এছাড়া মডার্নার টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৫ হাজার ৭৫০ জনকে। 

এখন পর্যন্ত নিবন্ধন করেছেন ৫ কোটি ৫৫ লাখ ৪২ হাজার ৩১ জন।

/এসও/এমআর/

সম্পর্কিত

এক সপ্তাহে ৪ কোটি শিশু পাবে কৃমির ওষুধ

এক সপ্তাহে ৪ কোটি শিশু পাবে কৃমির ওষুধ

করোনায় মৃত্যুহীন ৫৬ জেলা

করোনায় মৃত্যুহীন ৫৬ জেলা

ডেঙ্গুতে আরও এক মৃত্যু  

ডেঙ্গুতে আরও এক মৃত্যু  

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় বারডেমের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক নবায়ন  

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় বারডেমের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক নবায়ন  

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ডেমরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে রঙমিস্ত্রির মৃত্যু

ডেমরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে রঙমিস্ত্রির মৃত্যু

‘জলবায়ু সম্মেলনে দেশের স্বার্থরক্ষার কৌশল আরও জোরদার করতে হবে’

‘জলবায়ু সম্মেলনে দেশের স্বার্থরক্ষার কৌশল আরও জোরদার করতে হবে’

মুগদা হাসপাতালে এসি বিস্ফোরণে নার্সসহ দগ্ধ ৯

মুগদা হাসপাতালে এসি বিস্ফোরণে নার্সসহ দগ্ধ ৯

সেবা সম্পর্কে স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশ ও প্রচারের চর্চা নগণ্য: টিআইবি

সেবা সম্পর্কে স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশ ও প্রচারের চর্চা নগণ্য: টিআইবি

ফেসবুকে ‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজ শিক্ষক রুমা রিমান্ডে

ফেসবুকে ‘ভুয়া’ ভিডিও প্রচার: কলেজ শিক্ষক রুমা রিমান্ডে

সামিয়া রহমানের গবেষণা জালিয়াতি সংক্রান্ত সব নথি হাইকোর্টে

সামিয়া রহমানের গবেষণা জালিয়াতি সংক্রান্ত সব নথি হাইকোর্টে

মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

পীরগঞ্জে হামলার প্রতিবাদ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির

পীরগঞ্জে হামলার প্রতিবাদ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির

ইউপি সচিবদের বেতন দশম গ্রেডে উন্নীত করতে চায় স্থানীয় সরকার বিভাগ

ইউপি সচিবদের বেতন দশম গ্রেডে উন্নীত করতে চায় স্থানীয় সরকার বিভাগ

মহামারিতে প্রথম মৃত্যুহীন দিন ঢাকা বিভাগের

মহামারিতে প্রথম মৃত্যুহীন দিন ঢাকা বিভাগের

সর্বশেষ

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ২৪ কোটি ৩২ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ২৪ কোটি ৩২ লাখ ছাড়িয়েছে

প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সেলফি তোলায় পুলিশ সদস্যদের নোটিস

প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সেলফি তোলায় পুলিশ সদস্যদের নোটিস

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

© 2021 Bangla Tribune