X
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ত্রিদলীয় জোটের কাজ কী হবে

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ১৪ অক্টোবরের ঘটনা।)

 

বাংলাদেশে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অগ্রসর হওয়ার পথে বাধাগুলো দূর করা, জাতীয় শত্রুদের প্রতিরোধ করতে সংগ্রাম গড়ে তোলা এবং জনগণের সমস্যাগুলো অবিলম্বে দূর করার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (মোজাফফর), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির এক যুক্ত ঘোষণার মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় মূলনীতির ভিত্তিতে একটি ঘোষণার কথা জানায়।

আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাংবাদিক সম্মেলনে এই ঘোষণা করেন।

সম্মেলনে ১৯ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় পরিষদের নাম ঘোষণা করা হয়। আওয়ামী লীগের ১১ জন, ন্যাপ মোজাফফরের ৫ জন এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির তিনজন সদস্য নিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান সম্মেলনের ঘোষণাপত্রটির সঙ্গে পরিষদের সদস্যদের পরিচয় করিয়ে দেন।

পরে এক প্রশ্নের জবাবে কোরবান আলী বলেন, তিন দলের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট দলের সাধারণ সম্পাদকগণ এই যুক্ত ঘোষণায় স্বাক্ষর করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনুমোদনের পরই যুক্ত ঘোষণাটি সাধারণের জন্য প্রকাশ করা হয়।

দৈনিক বাংলা, ১৫ অক্টোবর ১৯৭৩

যুক্তফ্রন্ট গঠনের পটভূমি ব্যাখ্যা করে বলা হয়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে দেশপ্রেমী রাজনৈতিক সংগঠনসমূহকে ঐক্যবদ্ধভাবে জাতির সমস্যা ও শত্রুদের মোকাবিলার যে আহ্বান জানিয়েছিলেন তার প্রতি সাড়া দিয়ে এই ঐক্য গঠন করা হয়েছে।

ঘোষণায় বলা হয়, আওয়ামী লীগ এর নেতৃত্বে থাকবে এবং জোটভুক্ত রাজনৈতিক দলগুলোর দলীয় ছাত্র এবং নিজ নিজ আদর্শ কর্মসূচির ভিত্তিতে কাজ করার অধিকার অক্ষুণ্ন থাকবে।

কোনও রাজনৈতিক দল আস্থা ও আনুগত্য প্রকাশ করে জোটে যোগদান করতে চাইলে তাদের গ্রহণ করা যেতে পারে।

ঘোষণায় বঙ্গবন্ধু সরকারের বৈদেশিক নীতির প্রতি পূর্ণ সমর্থন জ্ঞাপন করা হয় এবং দেশের অভ্যন্তরে যে সব দল ও ব্যক্তি বন্ধুরাষ্ট্র ভারত ও সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে, দেশের স্বাধীনতা অগ্রগতির স্বার্থে তাদের রুখে দাঁড়ানো জরুরি বলে বিবেচনা করা হয়।

ঘোষণায় কর্তব্য নির্ধারণ প্রসঙ্গে বলা হয়, দেশে যে ডাকাতি রাহাজানি গুপ্তহত্যা ও রাজনৈতিক সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপ চলছে, তাতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতির জন্য সর্বাধিক গুরুত্ব আরোপ করে প্রশাসনযন্ত্রকে মুক্ত করতে হবে। স্বাধীন ও স্বনির্ভর অর্থনীতি গড়ে তোলার জন্য উৎপাদন বৃদ্ধির আন্দোলন করতে হবে।

সর্বোপরি দুর্নীতির মূল উৎস প্রশাসনযন্ত্রকে গণমুখী করে তুলতে হবে। ঘোষণায় বলা হয়, উল্লিখিত কর্তব্যগুলো সম্পাদনের জন্য বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে পরিচালিত আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে ঐক্যজোটের সহযোগিতামূলক সম্পর্ক স্থাপন করা দরকার।

ডেইলি অবজারভার, ১৫ অক্টোবর ১৯৭৩

সাংবাদিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি কোরবান আলী ছাড়াও তিনটি সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জানান, কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য যথেষ্ট ক্ষমতা দেওয়া হবে এবং সরকার এর সহযোগিতায় কাজ করবে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের মতামত চাপিয়ে দেওয়া চলবে না। আলোচনার মাধ্যমে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ভিত্তিতেই ঐক্যজোট গঠিত হয়েছে এবং যুক্ত ঘোষণায় উল্লেখ করা না হলেও দলের অভ্যন্তরে এখন থেকে এই মূলমন্ত্রকে মুজিববাদ বলে অভিহিত করা হবে।

ন্যাপ প্রধান মোজাফফর আহমেদ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘নামে কী এসে যায়।’ কিন্তু কমরেড আব্দুস সালাম বলেন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি মার্কসবাদ-লেনিনবাদের প্রতি অবিচল থেকেই জোটে যোগ দিয়েছে। তবে রাষ্ট্রীয় আদর্শ হিসেবে চারটি মূলনীতি গ্রহণ করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে কোরবান আলী বলেন, রাজনৈতিক দল ও সরকার সম্পূর্ণ পৃথক জিনিস। জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগ ঐক্যজোট সম্পর্কিত কোনও প্রশ্নের জবাব দেবে না।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মহানবী (সা.)- এর শিক্ষা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয়: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৭

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ধর্মীয় ও পার্থিব জীবনে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)- এর শিক্ষা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয়। বুধবার (২০ অক্টোবর) ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) দেওয়া এক বাণীতে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার দৃঢ় বিশ্বাস, মহানবী (সা.)- এর সুমহান আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই মুসলমানদের অফুরন্ত কল্যাণ, সফলতা ও শান্তি নিহিত। তিনি বলেন, বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব, বিশ্বমানবতার মুক্তির দিশারি, বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম এবং ওফাতের পবিত্র স্মৃতি বিজড়িত ১২ রবিউল আউয়াল তথা ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) বিশ্ববাসী বিশেষত মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত পবিত্র ও মহিমান্বিত দিন। এ উপলক্ষে আমি বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল মুসলিম উম্মাহকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, মহান আল্লাহ তাআলা আমাদের প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে এ পৃথিবীতে প্রেরণ করেছেন শান্তি, মুক্তি, প্রগতি ও সামগ্রিক কল্যাণের জন্য ‘রাহমাতুল্লিল আলামীন’ তথা সারা জাহানের রহমত হিসেবে। মুহাম্মদ (সা.) এসেছিলেন তওহিদের মহান বাণী নিয়ে। সব ধরনের কুসংস্কার, অন্যায়, অবিচার, পাপাচার ও দাসত্বের শৃঙ্খল ভেঙে মানবসত্তার চিরমুক্তির বার্তা বহন করে এনেছিলেন তিনি। বিশ্ববাসীকে তিনি মুক্তি ও শান্তির পথে আসার আহ্বান জানিয়ে অন্ধকার যুগের অবসান ঘটিয়েছিলেন এবং সত্যের আলো জ্বালিয়েছেন। তিনি বিশ্বভ্রাতৃত্ব প্রতিষ্ঠা, ন্যায় ও সমতাভিত্তিক সমাজ গঠন এবং মানবকল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করে বিশ্বে শান্তির সুবাতাস বইয়ে দিয়েছিলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বশান্তির অগ্রনায়ক রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, নাগরিকদের মধ্যে শান্তি-সম্প্রীতি বজায় রাখাসহ নানা দিক বিবেচনা করে প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করেন মানব ইতিহাসের প্রথম প্রশাসনিক সংবিধান ‘মদিনা সনদ’। বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় মহানবী (সা.)-এর অনবদ্য ভূমিকার আরেকটি অনন্য স্মারক হুদায়বিয়ার সন্ধি। বাহ্যিক পরাজয়মূলক হওয়া সত্ত্বেও কেবল শান্তি প্রতিষ্ঠার স্বার্থে তিনি এ সন্ধিতে স্বাক্ষর করেন।

তিনি বলেন, তার অমিত সাহস, ধৈর্য ও বিচক্ষণতা তখনকার মানুষকে যেমন বিমুগ্ধ করে, তেমনি অনাগত মানুষদের জন্যও শান্তি প্রতিষ্ঠার আদর্শ ও অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকে। মুহাম্মদ (সা.)-এর শান্তিপূর্ণ ‘মক্কা বিজয়’ মানব ইতিহাসের এক চমকপ্রদ অধ্যায়। কার্যত তিনি বিনাযুদ্ধে, বিনা রক্তপাতে মক্কা জয় করেন। শত অত্যাচার-নির্যাতন ও যুদ্ধ করে আজীবন যে জাতি নবী করিম (সা.)-কে সীমাহীন কষ্ট দিয়েছে, সেসব জাতি ও গোত্রকে মক্কা বিজয়ের দিন তিনি অতুলনীয় ক্ষমা প্রদর্শন করে তাদের সঙ্গে উদার মনোভাব দেখিয়ে সমাজে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করেন। ক্ষমা ও মহত্ত্বের দ্বারা মানুষের মন জয় করে শান্তি ও শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার এমন নজির বিশ্বে দুর্লভ।

প্রধানমন্ত্রী পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)- এর এই দিনে দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহ্ তথা বিশ্ববাসীর শান্তি, মঙ্গল ও সমৃদ্ধি কামনা করে বলেন, ‘মহান আল্লাহ আমাদেরকে মহানবী (সা.)- এর সুমহান আদর্শ ও সুন্নাহ যথাযথভাবে অনুসরণের মাধ্যমে দেশ, জাতি ও মানবতার কল্যাণ কাজ করার তৌফিক দান করুন।’ খবর বাসস।

/এমআর/

সম্পর্কিত

রাসেলের স্বপ্ন ছিল সেনা কর্মকর্তা হবে: প্রধানমন্ত্রী

রাসেলের স্বপ্ন ছিল সেনা কর্মকর্তা হবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মুসলিম উম্মাহকে রাষ্ট্রপতির শুভেচ্ছা

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩৯

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে দেশবাসীসহ মুসলিম উম্মাহকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। বুধবার (২০ অক্টোবর) ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) দেওয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও ওফাতের স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) সারাবিশ্বের মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত পবিত্র ও মহিমান্বিত দিন। মহান আল্লাহ তাআলা হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে ‘রহমাতুল্লিল আলামীন’ তথা সমগ্র বিশ্বজগতের রহমত হিসেবে প্রেরণ করেন। দুনিয়ায় তার আগমন ঘটেছিল ‘সিরাজাম মুনিরা’ তথা আলোকোজ্জ্বল প্রদীপরূপে।

তিনি বলেন, তৎকালীন আরব সমাজের অন্যায়, অবিচার, অসত্য ও অন্ধকারের বিপরীতে তিনি মানুষকে আলোর পথ দেখান এবং প্রতিষ্ঠা করেন সত্য, সুন্দর ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা। আল্লাহর প্রতি অতুলনীয় আনুগত্য, অগাধ প্রেম ও ভালোবাসা, অনুপম চারিত্রিক গুণাবলি, অপরিমেয় দয়া ও মহৎ গুণের জন্য তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হিসেবে অভিষিক্ত। 

বিশ্বের ইতিহাসে সর্বপ্রথম লিখিত সংবিধান  ‘মদিনা সনদ’ ছিল মহানবী (সা.) এর বিজ্ঞতা ও দূরদর্শিতার প্রকৃষ্ট দলিল উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এ দলিলে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের জনগণের ন্যায্য অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার সার্বজনীন ঘোষণা রয়েছে। ধর্মীয় ও পার্থিব জীবনে তার শিক্ষা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয়। মহানবী (সা.)-এর জীবনাদর্শ আমাদের সকলের জীবনকে আলোকিত করুক,  আমাদের চলার পথের পাথেয় হোক, মহান আল্লাহর কাছে এ প্রার্থনা করি। মহান আল্লাহ আমাদেরকে মহানবী (সা.) এর সুমহান আদর্শ যথাযথভাবে অনুসরণের মাধ্যমে দেশ, জাতি ও মানবতার কল্যাণে কাজ করার তৌফিক দিন। খবর বাসস।

/এমআর/

সম্পর্কিত

কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে: রাষ্ট্রপতি 

কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে: রাষ্ট্রপতি 

ভোক্তার আস্থা অর্জনে বিএসটিআইকে আরও দায়িত্বশীল হতে হবে: রাষ্ট্রপতি

ভোক্তার আস্থা অর্জনে বিএসটিআইকে আরও দায়িত্বশীল হতে হবে: রাষ্ট্রপতি

মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি যথাযথ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি যথাযথ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

জার্মানি গেলেন রাষ্ট্রপতি

জার্মানি গেলেন রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩২

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জার্মানির  রাজধানী বার্লিন থেকে লন্ডনে এসে পৌঁছেছেন। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রেস মিনিস্টার আশেকুন নবী চৌধুরী বাসসকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে দুপুর দেড়টায় (স্থানীয় সময়) এখানে এসে পৌঁছেছেন।’

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানান। রাষ্ট্রপতির স্ত্রী রাশিদা খানমও  রাষ্ট্রপতির সঙ্গে রয়েছেন।

এর আগে, রাষ্ট্রপ্রধান স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং চোখের চিকিৎসার জন্য জার্মানি ও যুক্তরাজ্যে (ইউকে)  ১২ দিনের সফরে  ৯ অক্টোবর ঢাকা ত্যাগ করেন। আগামী ২২ অক্টোবর তার দেশে ফেরার কথা ছিল, কিন্তু বঙ্গভবনের তথ্যমতে, সংশোধিত সময় সূচি অনুযায়ী, আগামী ২৬ অক্টোবর লন্ডন থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের নিয়মিত ফ্লাইটে রাষ্ট্রপতির দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

এর আগে, ৭৭ বছর বয়সী রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ দীর্ঘদিন ধরে গ্লুকোমা রোগে ভুগছিলেন।

তিনি জাতীয়  সংসদে (পার্লামেন্ট) স্পিকার থাকাকালীন লন্ডন ও জার্মানিতে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতেন।খবর: বাসস

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৮

পরিবেশ দূষণের জন্য দায়ীদের কাছ থেকে আদায় করা জরিমানার টাকা থেকে দূষণে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা হয়।

কমিটি বলছে, জরিমানার টাকা সরকারি কোষাগারে যায়। সেই টাকা পরিবেশ দূষণে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয় করলে তাদের পাশে দাঁড়ানো যায়।

বৈঠক শেষে সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‌‘পরিবেশ অধিদফতর দূষণকারীদের বিরুদ্ধে সবসময় ব্যবস্থা নিচ্ছে। তাদের কাছ থেকে জরিমানাও আদায় করা হচ্ছে। কিন্তু দূষণের কারণে যারা ক্ষতির শিকার হচ্ছে তাদের জন্য কিছু করা হচ্ছে না।’

এ প্রসঙ্গে তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘একটি নদী যদি কোনও কারখানা দূষণ করে, তবে তার কাছ থেকে জরিমানা আমরা আদায় করছি। কিন্তু দূষিত ওই নদীর পানি ব্যবহার করে অনেকের চর্মরোগসহ নানা ব্যাধি হচ্ছে। কমিটি মনে করে, এই ক্ষতিগ্রস্তদের চিকিৎসা ব্যয় জরিমানার অর্থ থেকে করা গেলে ভালো হয়। তাহলে তাদের পাশে দাঁড়ানো হয়।’

মন্ত্রণালয় সংসদীয় কমিটির এই সুপারিশের সঙ্গে নীতিগতভাবে একমত পোষণ করেছে জানিয়ে সাবের হোসেন বলেন, ‘জরিমানার অর্থ সরকারি কোষাগারে যাচ্ছে। সরকার জনগণের জন্যই কাজ করে। যে জরিমানা আদায় হচ্ছে সেটা ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের জন্য খরচ করা হলে ভালো হয়।’

গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গত ১০ বছরে পরিবেশ অধিদফতর ৩৮৫ কোটি টাকা জরিমানা ধার্য করেছে। পরিবেশ অধিদফতরের বার্ষিক প্রতিবেদন ২০১৭-১৮ থেকে জানা গেছে, ওই বছরে অধিদফতর  দূষণকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ১১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করেছে।

ট্যানারিতে ‘ছাড় নয়’

এদিকে সোমবারের সংসদীয় কমিটির বৈঠকে সাভারের চামড়া শিল্প নগরী বন্ধ নিয়ে আবারও আলোচনা হয়। এর আগে ২৩ অগাস্ট পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে না হওয়ায় সাভারের চামড়া শিল্প নগরী ‘আপাতত বন্ধ রাখার’ সুপারিশ করে।

কমিটির সুপারিশের পর পরিবেশ অধিদফতর বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) কাছে চিঠি দেয়। চামড়া শিল্প নগরী ‘কেন বন্ধ করা হবে না’, তা বিসিকের কাছে জানতে চায় সংসদীয় কমিটি।

কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন বলেন, ‘আমরা যে সুপারিশ করেছিলাম তা বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয় তৎপর। এ বিষয়ে কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে মন্ত্রণালয় তা জানিয়েছে। বিসিক বলতে চাচ্ছে, তারা এ বিষয়ে বিভিন্ন মেয়াদে কার্যক্রম গ্রহণ করবে। আমরা বলেছি, ভবিষ্যতে কী করবে সেটা পরের বিষয়। এই মুহূর্তে দূষণ হচ্ছে। এটা বন্ধ করতে হবে। ক্রোমিয়াম ট্রিটমেন্টের প্লান্ট নেই। এগুলো করতে হবে। যে জরিমানা করা হয়েছে, সেগুলো আদায় করতে হবে।’

সাভারের চামড়া শিল্প নগরীতে দৈনিক ৪০ হাজার ঘনমিটার বর্জ্য উৎপাদন হয়। যেখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা রয়েছে ২৫ হাজার ঘনমিটার।

অর্থাৎ দৈনিক ১৫ হাজার ঘনমিটার বর্জ্য পরিবেশে মিশছে। গত তিন বছরে এক কোটি ৬৪ লাখ ঘনমিটার বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বাইরে থেকে গেছে। এর বাইরে ক্রোমিয়াম শোধনের ব্যবস্থাও নেই সেখানে। এসব যুক্তিকে অগাস্ট মাসে সাভারের ট্যানারি বন্ধ করার সুপারিশ করে সংসদীয় কমিটি।

গত সেপ্টেম্বর মাসে ‘চামড়া শিল্প খাতের উন্নয়নে সুপারিশ তৈরি ও কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণের লক্ষ্যে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় টাস্কফোর্স’ এক বৈঠক করে বলেছে, তারা এই শিল্পের জন্য আলাদা কর্তৃপক্ষ চায়। চামড়া শিল্প নগরী বন্ধ না করে পরিবেশসম্মত ও দূষণমুক্ত করার পক্ষে টাস্কফোর্স।

সাবের হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটি সদস্য পরিবেশনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, তানভীর শাকিল জয়, জাফর আলম, মো. রেজাউল করিম বাবলু, খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন এবং শাহীন চাকলাদার অংশ নেন।

 

/ইএইচএস/আইএ/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ২০:২৪

চীনের সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা দেশে আসবে। আগামী বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) রাত ১১টায় এই টিকা আসার কথা রয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, গতকাল সোমবার (১৮ অক্টোবর) রাত ১১টায় সিনোফার্মের ১০ লাখ ডোজ এবং রাত ১২টায় নেদারল্যান্ডস থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ১০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেশে আসে।

 

/জেএ/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

রাষ্ট্রপতি বার্লিন থেকে লন্ডনে পৌঁছেছেন

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

পরিবেশ দূষণের জরিমানার টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয়ের সুপারিশ

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ ডোজ টিকা আসছে বৃহস্পতিবার

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

ই-কমার্সে যুক্তদের নিবন্ধন-মনিটরিং করা হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

রাসেলের স্বপ্ন ছিল সেনা কর্মকর্তা হবে: প্রধানমন্ত্রী

রাসেলের স্বপ্ন ছিল সেনা কর্মকর্তা হবে: প্রধানমন্ত্রী

পীরগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য শুকনো খাবার-ঢেউটিন-নগদ টাকা বরাদ্দ

পীরগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য শুকনো খাবার-ঢেউটিন-নগদ টাকা বরাদ্দ

পীরগঞ্জের ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি গঠন 

পীরগঞ্জের ঘটনা তদন্তে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কমিটি গঠন 

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

সব ধর্মের মানুষ নিজ ধর্ম পালন করবে স্বাধীনভাবে: প্রধানমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গণমাধ্যম এড়িয়ে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সর্বশেষ

যুক্তরাষ্ট্রে বিমান বিধ্বস্ত, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো ২১ আরোহী

যুক্তরাষ্ট্রে বিমান বিধ্বস্ত, অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো ২১ আরোহী

৫ গোলে জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ, আতলেতিকোকে হারালো লিভারপুল

৫ গোলে জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ, আতলেতিকোকে হারালো লিভারপুল

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

যুক্তরাজ্যে আবারও বাড়ছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

মেসির জোড়ায় পিএসজির রোমাঞ্চকর জয়

মেসির জোড়ায় পিএসজির রোমাঞ্চকর জয়

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

ইয়েমেন যুদ্ধে ১০ হাজার শিশু হতাহত : ইউনিসেফ

© 2021 Bangla Tribune