X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

পান চাষে আমজাদের চমক

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:২১

সন্তানের বিয়েতে ব্যয় করেছেন সাত লাখ টাকা। তৈরি করেছেন ১২ লাখ টাকায় গড়ে তুলেছেন পাকা ঘর। স্বচ্ছল দিন কাটাচ্ছেন। আর এ সবই সম্ভব হয়েছে পান চাষ করে। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের মস্তবাপুর গ্রামের আমজাদ আলী গাজী এখন এলাকায় সফল পানচাষির উজ্জ্বল উদাহরণ।

আমজাদ আলী জানান, ১৫ বছর আগে ১০ কাঠা জমিতে পানের চাষ শুরু তারা। লাভজনক হওয়ায় আরও দেড় বিঘা জমিতে চাষ শুরু করেন। এখন তার নিজেরই আছে ২ বিঘা জমি। তাতে চাষ করছেন দেশি ভাবনা জাতের পান, ইন্ডিয়ান এলসি ও ঝাল পান। নিয়মিত সার, বালাইনাশক ও সঠিক পরিচর্যায় তার পান আকারে বড় ও বেশ মোটাও হচ্ছে।

আমজাদ জানান, ‘একসময় বেশ দরিদ্র ছিলাম। পরের ক্ষেতে কাজ করে চালাতাম সংসার। পান চাষের পর অবস্থা বদলে গেছে। এখন দুই ছেলে মাধ্যমিকে পড়াশোনা করছে। পড়ার ফাঁকে তারা আমার সঙ্গে শিখে নিচ্ছে পানের চাষ ও ব্যবসা।’

চাষপদ্ধতি নিয়ে আমজাদ জানান, ভাবনা জাতের পান পৌষ-মাঘে লাগাতে হয়। বিনা চাষে পানের গেঁড় লাগাতে হয়। বরজের চারপাশ ও ওপরের অংশ ঢেকে ছায়া করতে হয়। লাগানোর তিন থেকে চারা মাস পর পান তোলা যায়। স্থানীয় বাজারে সারা বছরই বিক্রি হয়। ফাল্গুন চৈত্র মাসের পান ঢাকায় চলে যায়। আবার এলসি জাতের পান আষাঢ় মাসে লাগাতে হয়। এ পান চাষে একটু বেশি পরিচর্ষা লাগে। সপ্তাহে অন্তঃত দুবার কীটনাশক স্প্রে করতে হয়।

পান গাছের প্রধান খাবার খৈল। যা বর্ষাকালে প্রয়োগ করা হয়। ফাল্গুন চৈত্রে খৈল প্রয়োগ করতে হয় না।

আমজাদ জানালেন, এলসি পানের দাম সব সময় বেশি থাকে। ঝাল পানেরও চাহিদা অনেক। চাষাবাদ পদ্ধতি প্রায় একই। তবে শীতকালে ঝাল পান ঝরে যায়।

বর্তমানে পানের বাজার খানিকটা মন্দা। যে কারণে লাভ খুব একটা হচ্ছে না। মাসখানেক পর দাম বাড়বে বলে আশা করছেন আমজাদ আলী।

কালীগঞ্জ উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা এনায়েত কবীর জানান, এ অঞ্চলের চাষিরা পান চাষ করে বেশ সফল। তবে অনেকে রাসায়নিক সার ব্যবহার শুরু করায় পানের পড় পচে যাচ্ছে। তাই চাষিদের পানের বরজে ভার্মি কম্পোস্ট তথা কেঁচোসার প্রয়োগে উৎসাহিত করছি।

/এফএ/

সম্পর্কিত

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

লোকালয় থেকে অসুস্থ ঈগল উদ্ধার

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫১

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার লোকালয় থেকে অসুস্থ অবস্থায় একটি বিপন্ন প্রজাতির ঈগল পাখি উদ্ধার করা হয়েছে। প্রায় দুই ফুট উচ্চতার ঈগলটির ওজন এক কেজি ৮০০ গ্রাম বলে জানা গেছে। শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আসলামপুর ইউনিয়নের মুজিবনগর গ্রাম থেকে ঈগলটি উদ্ধার করা হয়।

বর্তমানে ঈগলটি লালমোহন উপজেলার রমাগঞ্জ ইউনিয়নের চৌমুহনি বাজারের পাখিপ্রেমী যুবক মোরশেদ আলম সুজনের কাছে রয়েছে। তিনি ঈগলটিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তুলছেন। তবে এখনও এটি উড়তে পারছে না। সুজন ঈগলটির নিবিড় পরিচর্যা করে চলেছেন। দু-একদিনের মধ্যে সুস্থ হতে পারে।

সুজন বলেন, ‘শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) চরফ্যাশনে অসুস্থ অবস্থায় একটি ঈগল বিলে পড়ে রয়েছে জানতে পেরে সেটি উদ্ধার করে নিয়ে আসি। বর্তমানে ঈগলটিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। পুরোপুরি সুস্থ হলে ঈগলটিকে বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

এ ব্যাপারে লালনমোহন বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা আশিষ কুমার বলেন, ‘ঈগল উদ্ধারের খবর পেয়েছি। এটি সুস্থ হলে বনে অবমুক্ত করা হবে। এর আগে তিন মাস আগে লালমোহন থেকে আরও একটি ঈগল উদ্ধার করা হয়েছিল। সেটিকেও বনে অবমুক্ত করা হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, বন ও পরিবেশ থেকে এ ধরনের পাখি এখন অনেকটা বিপন্ন। এটি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার পাশাপাশি সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

পায়রা বন্দরের আবাসন কেন্দ্রের কক্ষে ঝুলছিল প্রকৌশলীর লাশ

পায়রা বন্দরের আবাসন কেন্দ্রের কক্ষে ঝুলছিল প্রকৌশলীর লাশ

২৪টি খাল ভরাট করে স্থাপনা, বৃষ্টি হলেই ডোবে বরিশাল

২৪টি খাল ভরাট করে স্থাপনা, বৃষ্টি হলেই ডোবে বরিশাল

সাপুড়ের বাড়িতে মিললো ২৫ 'পদ্ম গোখরা' 

সাপুড়ের বাড়িতে মিললো ২৫ 'পদ্ম গোখরা' 

ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সিঙ্গাপুর প্রবাসীর আত্মহত্যা

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩৬

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে শরিফুল ইসলাম (২৮) নামের এক সিঙ্গাপুর প্রবাসী আত্মহত্যা করেছেন। শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার সোনালিয়া রেলক্রসিং এলাকায় বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন তিনি।

নিহত শরিফুল ইসলাম সখীপুর উপজেলার দেওবাড়ী গ্রামের আলাল মিয়ার ছেলে। বাবা আলাল মিয়া বলেন, ‘ছয় মাস আগে শরিফুল সিঙ্গাপুর থেকে ছুটিতে বাড়িতে আসে। সে তিন মাস আগে বাসাইল উপজেলার নাইকানীবাড়ী গ্রামের আমেনা নামের এক মেয়েকে বিয়ে করে। শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) শরিফুল শ্বশুর বাড়িতে যায়। আজ খবর পাই, শরিফুল মারা গেছে।’

স্থানীয়রা জানান, বিকালে বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে রাজশাহী যাওয়ার সময় সোনালিয়া রেলক্রসিং এলাকায় এলে শরিফুল ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন। খবর পেয়ে তার বাবাসহ পরিবারের লোকজন এসে সেখানেই কান্নায় ভেঙে পড়েন এবং বারবার মূর্ছা যান।

বাসাইল থানার এসআই মজিবুর রহমান বলেন, ‘খবর পেয়ে নিহতের লাশ রেলওয়ে পুলিশ নিয়ে গেছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক কোনও ঝামেলার কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।’

/এফআর/

সম্পর্কিত

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

ইজিবাইকে ছিনতাইয়ের জন্যই কি হত্যা?  

ইজিবাইকে ছিনতাইয়ের জন্যই কি হত্যা?  

ক্রিকেট বল কুড়াতে গিয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

ক্রিকেট বল কুড়াতে গিয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:১৫

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার মোমিনপুর গ্রামে স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। ওই নারীর বিরুদ্ধে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার। শনিবার উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ এবং নলডাঙ্গা থানার ওসি শফিকুল ইসলাম মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ব্যক্তি আব্দুর রাজ্জাক মুদি ব্যবসায়ী। আটক নারীর নাম সালমা বেগম।

নিহতের বাবা হামেদ আলী বলেন, ‘নিহত রাজ্জাক এক ছেলে ও এক মেয়ের বাবা। ছেলেমেয়েরা পড়ালেখা করে। বেশ কিছুদিন থেকে মোমিনপুর বাজারের আসামপাড়ার তুলা নামে এক ব্যক্তির ছেলে অবিবাহিত আহমদ আলীর সঙ্গে সালমার প্রেমের সম্পর্ক হয়। বিষয়টি জানার পর রাজ্জাকের সঙ্গে সালমার মনোমালিন্য শুরু হয়। এক পর্যায়ে তারা পৃথক ঘরে থাকতো। শুক্রবার রাত ১১টার দিকে রাজ্জাক তার ঘরে ঘুমিয়েছিল, সকালে তার মৃত্যুর কথা প্রচার করে সালমা। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে।’ হামেদ আলীর দাবি, প্রেমের জেরে আব্দুর রাজ্জাককে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে সালমা।

ওসি জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সালমাকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। তদন্তের পর হত্যার সঠিক কারণ জানা যাবে।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

নারীকে বাঁচাতে যাওয়ায় সাংবা‌দি‌ককে মারধর, গ্রেফতার ১ 

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:১৫

দিনাজপুর সদর ও বিরল উপজেলায় বজ্রাঘাতে শিশুসহ দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও তিন জন। তাদের মধ্যে দুই জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে বজ্রাঘাতের ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলো সদরের চেহেলগাজী ইউনিয়নের রামনগর মাঝাডাঙ্গা গ্রামের মৃত কামিল উদ্দীনের ছেলে বুলবুল হোসেন (৩৪) ও বিরলের রাজারামপুর ইউনিয়নের গফরাইল গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে সুজ্জাত (১২)। সুজ্জাত পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। 

আহতরা হলেন রামনগর মাঝাডাঙ্গা গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে জামাল (৩৮), একই এলাকার সিরাজুল আলীর ছেলে নাঈম (২৫) ও গফরাইল গ্রামের রবিউল ইসলাম (৪০)।

চেহেলগাজী ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পাভেল ইমরান ও রাজারামপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য জামিল উদ্দীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, বিকালে রামনগর মাঝাডাঙ্গা এলাকার আলুর ক্ষেতে কাজ করছিলেন কয়েকজন কৃষক। বজ্রাঘাত শুরু হলে তারা একটি গাছের নিচে আশ্রয় নেন। সেখানে বজ্রাঘাত হলে তিন জন আহত হন। স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে বুলবুলের লাশ উদ্ধার করে এবং বাকি দুই জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল হাসপাতালে পাঠায়।

এদিকে, বাবার সঙ্গে মাঠে কাজ করছিল সুজ্জাত। বৃষ্টির পাশাপাশি বজ্রাঘাতের সময় মারা যায় সে। এ ঘটনায় তার বাবা রবিউল ইসলাম আহত হয়েছেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

ত্রিশালে সড়ক দুর্ঘটনা

পরিবারের ৪ জনকে হারিয়ে সড়কে বসেই বিলাপ

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:১২

‘ব্যস্ততার কারণে কোরবানির ঈদে বাড়িতে যাওয়া হয়নি। ফলে নাতি আব্দুল্লাহর খৎনাও করানো সম্ভব হয়নি। ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে সবাই একসঙ্গে যাচ্ছিলাম। আশা ছিল, আব্দুল্লাহর খৎনা করিয়ে এলাকাবাসীকে দাওয়াত করে ধুমধাম অনুষ্ঠান করবো। কিন্তু কপালে আর সইলো না। পরিবারের বাবা, মা, ছোটবোনসহ আব্দুল্লাহ বাস দুর্ঘটনায় দুনিয়া ছেড়েই চলে গেলো। এখন বাড়ি গিয়ে বড় ভাইকে কী জবাব দেবো?’

কথাগুলো বলছিলেন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশালের চেলেরঘাটে ট্রাকের সঙ্গে বাসের ধাক্কায় নিহত ফজলুল হক ওরফে হুজু’র চাচা আব্দুর রশিদ। এই দুর্ঘটনায় নিহত ছয় জনের চার জনই ওই পরিবারের।

আব্দুর রশিদ রাস্তায় বসে বিলাপ করতে করতে জানান, নিহত ফজলুল হক তার আপন বড় ভাই কমর উদ্দিনের ছেলে। ভাতিজার পরিবারসহ তিনি ঢাকায় সবজির ব্যবসা করেন। সবাই একসঙ্গেই থাকেন। সুযোগ পেলেই তারা বাড়িতে যান। করোনার কারণে গত কোরবানির ঈদে বাড়ি যাননি। ১০ বছর বয়সী আব্দুল্লাহ প্রাইমারি স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। আর নিহত আজমিনা (৮) প্রথম শ্রেণিতে পড়তো।

তিনি আরও জানান, ভাতিজা ফজলুর বড় শখ ছিল, গ্রামের বাড়িতে গিয়ে ছেলের খৎনা করিয়ে আত্মীয়-স্বজন ও এলাকাবাসীকে দাওয়াত করে খাওয়াবেন। এটা আর হয়ে উঠলো না। মনের দুঃখ রয়েই গেলো।

উল্লেখ্য, শনিবার (১৬ অক্টোবর) ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের চেলেরঘাটে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের চার জনসহ ছয় জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। 

শেরপুরগামী রহিম পরিবহনের একটি বাস (ময়মনসিংহ গ ১১-০৯৪৮) ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল উপজেলার চেলেরঘাট নামক স্থানে ওভারটেকের সময় দাঁড়িয়ে থাকা বালুবাহী ড্রাম ট্রাককে (ঢাকা মেট্রো ট ১৫-৮৪৪৩) ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচ জন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন ১০ জন। তাদের ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে আরেকজন মারা যান।

নিহতরা হলেন- ফুলপুর উপজেলা হুজু (৩০), তার স্ত্রী ফাতেমা (২৮), ছেলে আব্দুল্লাহ (১০) ও মেয়ে আজমিনা (৮)। বাকি দুই জনের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি। আহতরা ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এর মধ্যে নিগোরকান্দা গ্রামের ফাহাদ, বাবুল ও ফুলপুর উপজেলার রফিকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

/এফআর/

সম্পর্কিত

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

‘পাবজি খেলাকে কেন্দ্র করে’ স্কুলছাত্রকে হত্যা

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে বাসের ধাক্কায় নিহত ৬

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

মাগুরায় চার খুনপুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

মাটিতে পড়ে থাকা বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু

মাটিতে পড়ে থাকা বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজের ২ প্রভাষক নিহত 

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজের ২ প্রভাষক নিহত 

পূজা দেখতে যাওয়ার পথে ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

পূজা দেখতে যাওয়ার পথে ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

বিএনপি-জামায়াতের ইন্ধনেই কুমিল্লার ঘটনা: হানিফ

বিএনপি-জামায়াতের ইন্ধনেই কুমিল্লার ঘটনা: হানিফ

সুন্দরবনে মাছ ও কাঁকড়া ধরায় ১১ জেলে আটক

সুন্দরবনে মাছ ও কাঁকড়া ধরায় ১১ জেলে আটক

ঝিনাইদহে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

ঝিনাইদহে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

সর্বশেষ

লোকালয় থেকে অসুস্থ ঈগল উদ্ধার

লোকালয় থেকে অসুস্থ ঈগল উদ্ধার

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

পাকিস্তান এয়ারলাইনকে নিষিদ্ধের হুমকি তালেবানের

খুলছে হাবিপ্রবির হল, থাকছে না গণরুম

খুলছে হাবিপ্রবির হল, থাকছে না গণরুম

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

© 2021 Bangla Tribune