X
রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

দায় ও ব্যর্থতা কার?

আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৭
প্রভাষ আমিন আমাদের দেশে কোনও একটা ঘটনা ঘটলে রাজনীতিবিদদের প্রথম কাজ দায় অন্যের ঘাড়ে চাপানো। তদন্ত শুরুর আগেই তারা বলে দিতে পারেন, ঘটনাটি কে ঘটিয়েছে। এবার শারদীয় দুর্গোৎসবের সময় দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক তাণ্ডবের পরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। যথারীতি আওয়ামী লীগ এই ঘটনার জন্য দায়ী করেছে বিএনপি-জামায়াতকে। আর বিএনপি নেতারা বলছেন, জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতে সরকারই এই হামলা করিয়েছে।

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন অবমাননার অভিযোগ এবং তার প্রতিক্রিয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় পুলিশ অনেকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে, অনেককে গ্রেফতার করেছে। আমি পুলিশের তদন্তে আস্থা রাখতে চাই। তাই রাজনীতিবিদদের মতো চট করে কাউকে দায় দিতে চাই না। এমনিতে বাংলাদেশের রাজনীতিতে অসাম্প্রদায়িক ধারার নেতৃত্ব দেয় আওয়ামী লীগ। আর সাম্প্রদায়িক ধারার মূল নেতৃত্ব বিএনপির কাঁধে। কিন্তু সবসময় সবকিছু এমন সরল হিসাবে চলে না। নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করার উদাহরণও আমাদের সমাজে কম নয়।

পুলিশের তদন্তের ওপর আস্থা রাখার কথা আগেই বলেছিল। সেই আস্থার প্রতিদান তারা দিয়েছে। কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে কোনও সিসিটিভি ছিল না। কিন্তু আশপাশের একাধিক সিসিটিভির ফুটেজ মিলিয়ে ঘটনার ধারাক্রম তৈরি করেছে পুলিশ। তাতে ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করা গেছে। তাতে একটা বিষয় স্পষ্ট, পুরো ঘটনাটিই পরিকল্পিত এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার জন্যই এটা করা হয়েছে। গভীর রাতে ইকবাল হোসেন নামে এক যুবক পাশের মসজিদ থেকে একটি পবিত্র কোরআন শরিফ নিয়ে পূজামণ্ডপে ঢোকে এবং হনুমানের হাতের গদাটি কাঁধে করে বেরিয়ে আসে। তার মানে এই দুর্বৃত্ত কোরআন শরিফটি হনুমানের পায়ে রেখে সেখান থেকে গদাটি নিয়ে বেরিয়ে আসে। ভোরে ইকরাম নামে একজন পূজামণ্ডপে গিয়ে কোরআন শরিফ দেখে ৯৯৯-এ ফোন করে। পুলিশ আসার পর ফয়েজ নামের একজন ফেসবুকে লাইভ করে উত্তেজনা ছড়ায়।

পুলিশ ইকরাম আর ফয়েজকে আগেই গ্রেফতার করেছে। তবে ইকবালকে এখনও ধরা যায়নি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলো, আপাতত যে তিন জন এই ষড়যন্ত্রের সামনে আছে, তারা তিন জনই ইসলাম ধর্মাবলম্বী। ইকবালের মা আমেনা বিবি দাবি করেছেন, তার ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন। তবে স্রেফ মানসিক ভারসাম্যহীন বলে তার অপরাধকে খাটো করে দেখার কোনও সুযোগ নেই। ইকবাল উন্মাদ, তবে ধর্মোন্মাদ।

ইকবালের মতো ধর্মোন্মাদরাই বারবার বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করছে। ছেলেকে মানসিক ভারসাম্যহীন বললেও আমেনা বিবি তার শাস্তি চেয়েছেন, ধরে তাকে মেরে ফেলার দাবি করেছেন। এমনকি মা হয়ে ছেলের লাশও নেবেন না বলে জানিয়েছেন। তার ছেলের কারণে দেশের বিভিন্ন জায়গার সহিংসতার জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। এমন কুলাঙ্গার ছেলে জন্ম দিয়েছেন বলে নিজেকেই নিজে অভিশাপ দিয়েছেন।

‘অশিক্ষিত’ আমেনা বিবি তার সন্তানের অপরাধের জন্য অনুতপ্ত হলেও আমাদের দেশের একটি মহল পুরো ঘটনা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন। তারা জজ মিয়া নাটকের কথা বলছেন। সিসিটিভির ফুটেজ নিয়ে সন্দেহের কথা বলছেন। তাদের এই সন্দেহের কারণ, অপরাধের দায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর চাপানো যাচ্ছে না। ঘুরেফিরে মুসলিম নামধারী দুর্বৃত্তদের কাঁধেই চলে আসছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে আরও বেশি চাপে ফেলা গেলো না বলে অনেকের খুব আফসোস। আমি আগেও লিখেছি, কোনও ধর্মপ্রাণ মুসলমান এই কাজ করতে পারে না। কারণ, একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমানের পক্ষে কোনোভাবেই কোরআন অবমাননা করা সম্ভব নয়। আবার কোনও ধর্মপ্রাণ হিন্দুর পক্ষেও এটা করা সম্ভব নয়। কেউ চাইবে না নিজের বছরের সবচেয়ে বড় উৎসবটি মাটি হয়ে যাক। বিষয়টি পরিষ্কার, কিছু ধর্মোন্মাদ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার জন্য, হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ছুতো খোঁজার জন্য এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এক দু’জন ব্যক্তির অপরাধের দায় আমি কখনোই কোনও সম্প্রদায়ের ওপর দিতে চাই না। সেটা হিন্দু হলেও না, মুসলমান হলেও না। ইকবাল, ইকরাম, ফয়েজ মুসলিম ঘরের সন্তান হলেও তারা ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা পায়নি। তারা কোরআন অবমাননা করেছে, ইসলামকে খাটো করেছে। এরা দুর্বৃত্ত, এরা ধর্মোন্মাদ; এদের কঠিন শাস্তিই পারে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি বন্ধ করতে।

পর্দার সামনের তিন কুশীলবকে চিহ্নিত করা গেলো। তাদের দু’জনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি, পর্দার পেছনে আরও বড় কুশীলবরা রয়েছে। এই তিন যুবকের পক্ষেই এত বড় ঘটনার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। তাই পেছনের কুশীলবদেরও চিহ্নিত করতে হবে, ধরতে হবে। যাতে ভবিষ্যতে কেউ ধর্মের নামে সন্ত্রাস করার সাহস না পায়।

ঘটনার ধারাক্রম জানা গেলো। সামনের দায়ীদেরও পাওয়া গেলো। কিন্তু আমি ভাবছি, কুমিল্লার এই ঘটনা এবং তার প্রতিক্রিয়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের বছরের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবটি যে পণ্ড হয়ে গেলো; চাঁদপুর, চৌমুহনী, চট্টগ্রাম, পীরগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মণ্ডপ-মন্দির ভাঙচুর, হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা হলো, লুটপাট হলো, অগ্নিসংযোগ হলো, নারীদের নির্যাতন করা হলো; তার দায় কে নেবে? হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের হৃদয়ে যে নিরাপত্তাহীনতার গভীর ক্ষত তৈরি হলো, তার উপশম হবে কোন উপায়ে?

মুসলমান ভাইদের প্রতি আমার জিজ্ঞাসা, কুমিল্লার ঘটনার জন্য দায়ী কে সেটা না জেনেই আপনার চিলের পেছনে দৌড়ালেন, মন্দিরে হামলা করলেন, লুটপাট করলেন; এটা কি আপনার ধর্ম অনুমোদন করে, ইসলাম ধর্ম কি কখনও অন্য ধর্মের ওপর আঘাত করাকে সমর্থন করে? আপনারা যে না জেনে না বুঝে হামলা করলেন তার জন্য কি এখন আপনাদের মনে কোনও অনুশোচনা হচ্ছে, গ্লানি হচ্ছে?

আপনারা যে ধর্মের নামে অধর্ম করে পাপ করলেন, সেটা কি আপনারা বুঝতে পারছেন? তবে পরকালের পাপ হবে, এটুকু বলেই এই ধর্মোন্মাদদের ছেড়ে দেওয়া যাবে না। যারা ফেসবুকে উসকানি দিয়েছে, যারা হামলা করেছে; তাদের প্রত্যেককে চিহ্নিত করে ধরে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

কুমিল্লার ঘটনার তিন দায়ীকে চিহ্নিত করা গেলেও দায় কিন্তু সরকারকেও নিতে হবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ সহজাতভাবে আওয়ামী লীগের সমর্থক। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগকে ভোট দেওয়ার অপরাধে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের দেশজুড়ে নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে সংখ্যালঘুরা নিরাপদে থাকে, এমন ধারণা প্রচলিত আছে। কিন্তু রামু, নাসিরনগর, ভোলা, অভয়নগর, সুনামগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং সর্বশেষ শারদীয় দুর্গোৎসবের সময় দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর যে হামলা হয়েছে; তাতে সেই ধারণা অনেক দুর্বল হয়ে গেছে। প্রবল পরাক্রমশালী সরকারও সংখ্যালঘুদের পুরোপুরি নিরাপত্তা দিতে পারছে না। তাই শৈথিল্য, গোয়েন্দা ব্যর্থতার দায় সরকার এড়াতে পারবে না। কুমিল্লার ঘটনা না হয় সরকার টের পায়নি, কিন্তু কুমিল্লার ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানে যা হলো, সেটা প্রশাসন ঠেকাতে পারলো না কেন?

বিএনপি-জামায়াতকে সরকার রাস্তায়ই নামতে দেয় না। সেখানে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি কীভাবে মাইকে ঘোষণা দিয়ে, ফেসবুকে উত্তেজনা ছড়িয়ে হামলা চালালো? পুলিশ তাদের ঠেকাতে পারলো না কেন? কেন কুমিল্লার ঘটনার চার দিন পর রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়া সম্ভব হলো?

সরকারি দল হিসেবে যেমন আওয়ামী লীগের দায় আছে, তেমনি সংগঠন হিসেবেও আওয়ামী লীগকে দায় নিতে হবে। এখন তো দেশে আওয়ামী লীগের একচ্ছত্র আধিপত্য। কোথাও তাদের মুখের ওপর কথা বলার মতো কেউ নেই। ছাত্রলীগ-যুবলীগের ভয়ে সবাই অস্থির। কুমিল্লা, হাজীগঞ্জ, চৌমুহনী, পীরগঞ্জ– যেসব জায়গায় হামলা হয়েছে, সব জায়গায় আওয়ামী লীগের একক আধিপত্য। তাহলে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সেখানে প্রতিরোধ গড়তে পারলো না কেন? ঘটনা সব শেষ হয়ে যাওয়ার পর আওয়ামী লীগের সম্প্রীতি সমাবেশ আসলে সান্ত্বনা পুরস্কারের মতো।

ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের নিরাপত্তা দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের। ভোটের হিসাব-নিকাশ বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগকে অবশ্যই সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়তে হবে। সরকারকে জিরো টলারেন্সে সব সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিচার করতে হবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ তো বটেই, সব মানুষের মধ্যে নিরাপত্তাবোধ ফিরিয়ে আনতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।
 
লেখক: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ
/এসএএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা!

মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা!

‘আমি ক্রসফায়ারের পক্ষে’

‘আমি ক্রসফায়ারের পক্ষে’

‘খলের কখনও ছলের অভাব হয় না’

‘খলের কখনও ছলের অভাব হয় না’

কোন ‘কিলার’ কমাবে আমাদের ‘পেইন’?

কোন ‘কিলার’ কমাবে আমাদের ‘পেইন’?

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সর্বশেষ

মেয়র হানিফের পঞ্চদশ মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মেয়র হানিফের পঞ্চদশ মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নারায়ণগঞ্জে আগুনের ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জে আগুনের ঘটনায় আরও একজনের মৃত্যু

শেষ মুহূর্তের দুই গোলে ভিয়ারিয়ালকে হারালো বার্সেলোনা

শেষ মুহূর্তের দুই গোলে ভিয়ারিয়ালকে হারালো বার্সেলোনা

৪০ টাকার বিনিময়ে বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস

৪০ টাকার বিনিময়ে বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস

ভোটের সরঞ্জাম নিয়ে কেন্দ্রে যাওয়ার পথে সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার মৃত্যু

ভোটের সরঞ্জাম নিয়ে কেন্দ্রে যাওয়ার পথে সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার মৃত্যু

মোবাইল নম্বর ব্লকলিস্টে রাখায় স্কুলছাত্রীকে হত্যাচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার 

মোবাইল নম্বর ব্লকলিস্টে রাখায় স্কুলছাত্রীকে হত্যাচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার 

আন্তর্জাতিক যাত্রীদের জন্য পিসিআর টেস্ট বাধ্যতামূলক করলো যুক্তরাজ্য

আন্তর্জাতিক যাত্রীদের জন্য পিসিআর টেস্ট বাধ্যতামূলক করলো যুক্তরাজ্য

পঞ্চগড়ে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আটক

পঞ্চগড়ে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আটক

১০০৭ ইউপিতে ভোটগ্রহণ শুরু সকাল ৮টায়

১০০৭ ইউপিতে ভোটগ্রহণ শুরু সকাল ৮টায়

ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা পরিস্থিতি মূল্যায়নের সুযোগ করে দেবে: ফাউচি

ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা পরিস্থিতি মূল্যায়নের সুযোগ করে দেবে: ফাউচি

ফের শুরু হচ্ছে ফুডপ্যান্ডা’র সেলিব্রেটি কুকিং শো

ফের শুরু হচ্ছে ফুডপ্যান্ডা’র সেলিব্রেটি কুকিং শো

২০ হাজার টাকায় অন্যের ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে শিক্ষার্থী আটক

২০ হাজার টাকায় অন্যের ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসে শিক্ষার্থী আটক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune