X
মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

করোনাকালীন ১০ কোটি উদ্যোক্তার গল্প

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:১৯

ফাতেমা আবেদীন এই শিরোনাম পড়ে নিশ্চয় পাঠক হিসেবে আপনি চোখ কুঁচকে ফেলেছেন। ১৬ কোটি (আনঅফিসিয়ালি ১৭  বা ১৯ কোটি) জনগণের দেশে ১০ কোটি উদ্যোক্তা! নিশ্চয়ই আপনি ধন্দে পড়ে গেছেন। ব্যক্তিগতভাবে একজন অনলাইন উদ্যোক্তা হিসেবে আমিও এই হিসাবের মারপ্যাঁচে পড়ে আছি।

আসলে কত অনলাইন এবং কতজন অফলাইন উদ্যোক্তা আছেন বাংলাদেশে, সেই তথ্য কারও জানা নেই। হুজুগের দেশে এই মুহূর্তের ট্রেন্ড অনলাইন উদ্যোগ। মোবাইলে ৯ টাকায় এক জিবি ডাটা, ৯৯৯ টাকার টাচফোন আর বউয়ের বা বোনের রান্না করা কৈ মাছের বাটি চচ্চরির বিনিয়োগ আপনাকে উদ্যোক্তা বানিয়ে ছাড়বে। এই হুজুগ বা ট্রেন্ডই এই মুহূর্তে চলছে।

সম্প্রতি মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো জানিয়েছে, এই করোনাকালে মোবাইল কলের চেয়ে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে প্রায় ১০ গুণ। ২০১৮ সালে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাংলাদেশি ছিলেন ৩ কোটি, ৩ বছরে সেটি বেড়েছে তিনগুণের বেশি। এই মুহূর্তে ১০ কোটির বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী।

সম্প্রতি বিটিআরসি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, জুলাই মাস শেষে দেশে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৯ কোটি ৮৭ লাখ ৪০ হাজার। জুন মাস শেষে যা ছিল ৯ কোটি ৪৯ লাখ ৫ হাজার। এই হিসাব থেকে দেখা যায়, দেশে এক মাসে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে ২৯ লাখ ৩৫ হাজার। তবে দেশে মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ কোটি ৬৪ লাখ ১০ হাজার। অবশিষ্ট ৮৫ লাখ ৭১ হাজার হলো ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহারকারী। (তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন।)

মনে রাখবেন, এসব ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর প্রত্যেকেই ‘ঝানু ব্যবসায়ী’। আর প্রত্যেকেই অন্তর্জালে একেকজন ‘ঝানু ব্যবসায়ী’– এই বাক্যটিকে নেহায়েত তির্যক মন্তব্য বলে বিবেচনা করলে লেখাটি সুখপাঠ্য হবে। এসব ‘ঝানু’ অন্তর্জালিক (অনলাইন) ব্যবসায়ীদের সম্পর্কে পড়ার আগে কিছু তথ্য জেনে রাখা ভালো।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) জানায়, ২০১৭ সালে অনলাইন ব্যবসা বা অন্তর্জালিক কেনাবেচার লেনদেন এক হাজার কোটির বেশি। এরমধ্যে নারী উদ্যোক্তাদের আয় ৩০০ কোটি টাকার বেশি। (তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন)। তবে পর পর দুই বছর এই লেনদেনে ২/৪ কোটির মতো বেড়েছে।

কিন্তু ২০২০ সালে এই চিত্র একেবারেই পাল্টে গেছে বলে জানিয়েছে ই-ক্যাব। এক হাজার কোটির সামান্য বেশি  লেনদেন বছরের প্রথমার্ধেই চার হাজার কোটির দিকে এগিয়েছে। এ বছর বাজারের আকার দাঁড়াচ্ছে ১৬ হাজার ৬১৬ কোটি টাকা। ২০১৯ সালে এর আকার ছিল ১৩ হাজার কোটি টাকার (তথ্যসূত্র: প্রথম আলো)।

মাত্র ৬ মাসে করোনার স্থবির হয়ে যাওয়া অর্থনীতিকে একা হাতে সচল রেখেছেন এই ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা। যিনি শিক্ষক ছিলেন, করোনায় আয় বন্ধ হয়ে গেছে, অনলাইনে কোচিং চালাচ্ছেন, বা কাঁচা তরকারি হোম ডেলিভারি দিচ্ছেন। যিনি ডাক্তার ছিলেন, চেম্বার বন্ধ, আয় বন্ধ। তিনি হোমশেফ হয়ে যাচ্ছেন। কিংবা করোনার প্রভাবে ছাঁটাই হয়েছেন, তিনিও স্টার্টআপ ব্যবসা শুরু করেছেন। করোনার এই বন্দি সময়ে যখন একদল পেশাজীবী ব্যবসায়ীতে রূপান্তরিত হয়ে অর্থনীতির লাগাম টেনে ধরেছেন, তখন সম্ভাবনার পাশাপাশি আতঙ্কও ভর করে।

নিশ্চিতভাবেই পরিস্থিতি করোনাময় থাকবে না। স্বাভাবিক সময় বা নিউ নরমালে মানিয়ে নেওয়ার অবস্থা সময়ের সঙ্গে সঙ্গেই হবে। সেই সময় ছাঁটাই হওয়া বা বেতন বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো নিশ্চয়ই আবার চালু হবে। পেশায় ফিরতে হবে পেশাজীবীদের। চিকিৎসকটি নিশ্চয়ই চেম্বারে ফিরে যাবেন। গার্মেন্টসের অর্ডার কমে গেছে বলে চাকরিচ্যুত হওয়া লোকটিও নিশ্চিতভাবেই সরিষার তেল আর মধু বিক্রি বন্ধ করে কাজে ফিরে যাবেন। যেতেই হবে, কারণ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই বিশ্বে কাপড়ের চাহিদা বাড়বে। গার্মেন্টস আরও বড় ভেঞ্চারে যাবে। ট্রাভেল এজেন্সি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যিনি বাড়িতে মমো বিক্রি করছিলেন হোমমেকার হিসেবে, তিনিও নিশ্চয় আবার টিকিট/ট্রাভেল জোরদারভাবে শুরু হলে পুরনো কাজে ফিরেই যাবেন। এই ফিরে যাওয়া মানুষগুলোর সংখ্যা ৭৫ শতাংশ।

৭৫ শতাংশ করোনাকালীন স্টার্টআপ উদ্যোক্তা কীভাবে জানলাম, এই প্রশ্ন আসতেই পারে।

গত তিন বছরের ১ হাজার কোটি টাকার ব্যবসা যখন মাত্র ৬ মাসে ৪ হাজার কোটিতে উন্নীত হয়, তখন সেটি ৭৫ শতাংশ আয়। তাহলে হিসাবের খাতায় বাকি থাকে ২৫ শতাংশ লোক। এই ২৫ শতাংশ মানুষও যে খুব দক্ষতার সঙ্গে ব্যবসা করছেন তা কিন্তু নয়। তাদের ৯৯ শতাংশই এফ কমার্সভিত্তিক। অর্থাৎ ফেসবুকের জোরে ব্যবসা চলছে। যদি কখনও ফেসবুক বন্ধ করা হয়, সেদিন কয়েক মুহূর্তের মধ্যে অনলাইন ব্যবসায় লেনদেন ৯০ শতাংশ বা তারও বেশি কমে আসবে।

হাতে গোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ছাড়া কমবেশি সবারই অনলাইন ব্যবসা এফ কমার্সভিত্তিক। তাই বুঝে নিতে হবে কী তুমুল ঝুঁকির ওপর দাঁড়িয়ে আছে অনলাইনের ১৬ হাজার কোটি টাকার বাজার।  

আরও ভয়ংকর দিক হচ্ছে, অনলাইন ব্যবসার নামে সুবিশাল অঙ্ক লেনদেন হচ্ছে দেশের মূল অর্থনীতিকে স্পর্শ না করে।  ১৬ হাজার কোটি টাকার যে বাজার তৈরি হয়েছে তার ৯০ শতাংশ স্টার্টআপ উদ্যোক্তা। যাদের লাইসেন্স, ব্যবসায়িক অনুমোদন নেই। কারা এসব এফ-কমার্স, ই-কমার্সকে অনুমোদন দেবে সেই প্রতিষ্ঠানও গড়ে ওঠেনি। ই-ক্যাবের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো হয় নিজ উদ্যোগে কিছু তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছে কিন্তু তাদের অনুমোদন দেবে কে, সেই হদিস গত ১০ বছরে হয়নি। এমন কোনও উদ্যোগ কোনও সংগঠন বা রাষ্ট্র থেকে নেওয়া হয়নি, যাতে এই সম্ভাবনাময় বিশাল বাজার টিকে যেতে পারে। চরম দুর্যোগ মুহূর্তে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থাকতে পারে।

মৌসুমি ব্যবসায়ীরা যখন খুশি আসছেন, কিছু দিন ব্যবসা করছেন, এরপর পুরনো পেশায় ফিরে যাচ্ছেন। তাদের নিয়ন্ত্রণ বা অনুমোদন দেওয়ার বালাই থাকছে না। ফলে রাজস্বের বাইরে থাকছে এই ১৬ হাজার কোটি টাকার হিসাব।

তবে অনেক অনলাইন উদ্যোক্তাই নিজেদের উদ্যোগকে প্রতিষ্ঠিত করতে ট্রেড লাইসেন্স নেওয়ার আবেদন করেন। কিন্তু সেই আবেদনপত্রে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের এস্টাবলিশমেন্ট ঠিকানা চাওয়া হয়। কিন্তু এফ-কমার্সে তো ঠিকানা বলতে ওই ফেসবুক। তাহলে তাদের ব্যবসার জন্য কেন এখনও নীতিমালা করা হলো না।

অপার সম্ভাবনার আই বাণিজ্য খাতটিকে হেলায় না হারিয়ে সামান্য কয়েকটি নিয়ম তৈরি করে বাজার নিয়ন্ত্রণে এনে অনায়াসে রাজস্ব বৃদ্ধির সুব্যবস্থা করা যাবে।

এদিকে তরুণ উদ্যোক্তাদের প্রতিও একান্ত অনুরোধ, হুটহাট ব্যবসায় নেমে একটু ভ্যাকুয়াম তৈরি করার আগে কয়েকবার ভেবে নেবেন। সারা জীবন যে কৈ মাছ ফ্রি পেয়ে আসছেন, অনলাইনে ১০০ টাকায় বিক্রি করা যায় বলেই হুজুগে মেতে উঠবেন না।

যে বাজার দাঁড়াতে যাচ্ছে সেটিকে দাঁড়াতে দিন। নতুবা সেই ফেসবুকে শেয়ার করা বন্ধুর স্ট্যাটাসটিরই পুনরাবৃত্তি করি- পেইজে ইনভাইটেশন দিচ্ছেন দেন। ভালোবেসে লাইক দিবো। উদ্যোক্তা হওয়ার হোন, সামর্থ্য অনুযায়ী সাহায্য দিবো। কিন্তু করোনা শেষ, সব ছেড়ে চাকরির লাইনে দাঁড়িয়েছেন তো...।

লেখক: সাংবাদিক ও উদ্যোক্তা।

[email protected]

 

/এসএএস/এমওএফ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

সর্বশেষ

‘সংবাদপত্র রুগ্ন হয়ে পড়েছে’

‘সংবাদপত্র রুগ্ন হয়ে পড়েছে’

প্যান্ডোরা পেপার্সে ৮ বাংলাদেশির নাম

প্যান্ডোরা পেপার্সে ৮ বাংলাদেশির নাম

গ্রামপুলিশকে যৌন হয়রানি, ইউপি সচিবের ১ বছর কারাদণ্ড

গ্রামপুলিশকে যৌন হয়রানি, ইউপি সচিবের ১ বছর কারাদণ্ড

সৌদিতে কর্মীদের সমস্যা সমাধানে প্রতি মাসে যৌথসভা করার সিদ্ধান্ত

সৌদিতে কর্মীদের সমস্যা সমাধানে প্রতি মাসে যৌথসভা করার সিদ্ধান্ত

সিনহা হত্যা মামলা: যুক্তিতর্ক শুনানির দিন ধার্য

সিনহা হত্যা মামলা: যুক্তিতর্ক শুনানির দিন ধার্য

চলন্ত সিএনজির ওপর বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে যাত্রী নিহত

চলন্ত সিএনজির ওপর বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে যাত্রী নিহত

চার কারণে মডেল মসজিদ স্থাপন প্রকল্পে সংশোধন

চার কারণে মডেল মসজিদ স্থাপন প্রকল্পে সংশোধন

বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে একসঙ্গে কাজ করতে হবে: স্পিকার

বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে একসঙ্গে কাজ করতে হবে: স্পিকার

জবিতে ভর্তির আবেদনকারীদের মেধাতালিকা প্রকাশ 

জবিতে ভর্তির আবেদনকারীদের মেধাতালিকা প্রকাশ 

বিএনপি নেতা বাবু হত্যা: ১৪ আসামি কারাগারে

বিএনপি নেতা বাবু হত্যা: ১৪ আসামি কারাগারে

ব্রাজিলিয়ান-জাদুতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আবাহনী

ব্রাজিলিয়ান-জাদুতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আবাহনী

ডা. মুরাদের পদত্যাগে সরিষাবাড়ীতে আনন্দ মিছিল

ডা. মুরাদের পদত্যাগে সরিষাবাড়ীতে আনন্দ মিছিল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune