X
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে উত্তেজনা

কানহাইয়ার শুনানি চলাকালে আবারও হামলা

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, ১৫:৩৫
image

``রাষ্ট্রদ্রোহী স্লোগান` দেওয়া শিক্ষার্থীদের খোঁজে পুলিশের অভিযান জওহর লাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান দেওয়া’ সব শিক্ষার্থীকে খুঁজে বের করতে ভারতের ৫টি রাজ্যে ব্যাপক তল্লাশি চালাচ্ছে ভারতীয় পুলিশ। তাদের দাবি, বহিরাগতরাও এ ঘটনায় জড়িত বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। এদিকে বুধবার কানহাইয়া কুমারের বিরুদ্ধে মামলার শুনানির সময় আবারও দিল্লির একটি আদালত প্রাঙ্গণে আইনজীবীদের দু পক্ষের সংঘর্ষ এবং সাংবাদিকের ওপর হামলা হয়েছে। আর আজই (বুধবার) আদালত প্রাঙ্গণে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের ওপর আইনজীবীদের আগের হামলার ঘটনায় সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা পিটিশনের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। যে স্লোগানকে ‘রাষ্ট্রবিরোধী’ উল্লেখ করে নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ সভাপতি কানহাইয়া কুমারকে গ্রেফতার করা হয়েছে সে একই স্লোগান প্রতিধ্বনিত হয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কণ্ঠেও। আর গোটা পরিস্থিতি নিয়ে উত্তপ্ত ভারতের রাজনৈতিক ময়দান।
গত ৯ ফেব্রুয়ারি ভারতের পার্লামেন্টে হামলার দায়ে দোষী সাব্যস্ত আফজাল গুরুকে ২০১৩ সালে ফাঁসিতে ঝোলানোর বর্ষপূর্তি পালন করে ভারতের জওহরলাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল শিক্ষার্থী। সেসময় তারা রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান দেন বলে অভিযোগ ওঠে। বিজেপি নেতা মহেশ গিরি ও বিজেপির ছাত্র শাখা এবিভিপির দায়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি কানহাইয়া কুমারকে গ্রেফতার করা হয়।

৫ রাজ্যে ব্যাপক তল্লাশি চলছে

বুধবার, ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিযুক্ত সব শিক্ষার্থীকে খুঁজতে দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, বিহার, মহারাষ্ট্র এবং জম্মু-কাশ্মিরে দিল্লি পুলিশের অভিযান চলছে।

পুলিশের দাবি ‘রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান দেওয়া’ সব শিক্ষার্থীকে শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন তারা। ওই শিক্ষার্থীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে প্রমাণ না থাকায় পুলিশ পিছু হটেছে বলে যে গুঞ্জন উঠেছে তা নাকচ করে দিয়েছেন দিল্লি পুলিশের প্রধান বিএস বাস্যি। তিনি বলেন, ‘ঘটনার মূল চত্রান্তকারীদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছি আমরা। বহিরাগতদের জড়িত থাকার ইঙ্গিতও আমরা পেয়েছি।’

দিল্লি কোর্ট প্রাঙ্গণে উত্তেজনা

আদালত প্রাঙ্গণে আবারও হামলা

বুধবার কানহাইয়া কুমারের বিরুদ্ধে মামলার শুনানি চলার সময় আবারও দিল্লির পাটিয়ালা হাউজ আদালত প্রাঙ্গণে আইনজীবীদের হামলা হয়েছে। এর আগে গত সোমবারও এখানে আইনজীবীরা সাংবাদিক ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়েছিলেন। এনডিটিভি জানায়, আদালতে সহিংসতা ঠেকাতে শুনানির সময় কড়া বিধি নিষেধ আরোপ করে সুপ্রিম কোর্ট। আদালতের ভেতরে কেবল ৫ জন রিপোর্টার ও দুজন শিক্ষার্থী অবস্থান করতে পারবেন বলে ঘোষণা করা হয়। তবে সুপ্রিম কোর্টের সে কড়াকড়ি আরোপ সত্ত্বেও এদিন তারিক আনোয়ার নামে ফার্স্ট পোস্টের এক রিপোর্টারকে পিটিয়েছে আইনজীবীদের একটি দল। তারিকের অভিযোগ, আগের দিনের মতো বুধবারও হামলার সময় পুলিশ নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। তিনি জানান, এদিন আইনজীবীদের দুটি পক্ষ পরস্পরের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে পড়ে।  এক পক্ষ কানহাইয়ার পক্ষে আর আরেক পক্ষ কানহাইয়ার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিতে থাকে। পরে আইনজীবীদের দু পক্ষের সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ওই সাংবাদিককে পেটানো হয়। সোমবারের মতোই বুধবারের হামলার জন্য বিক্রম চৌহানকে দায়ী করা হয়েছে।

আদালত প্রাঙ্গণে আগের হামলার ঘটনায় শুনানি

আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিক ও শিক্ষার্থীদের ওপর আইনজীবীদের হামলার বিরুদ্ধে নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের করা আবেদনের ব্যাপারে বুধবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এনডি জয়প্রকাশের দায়ের করা ওই পিটিশনে ওই ধরনের হামলার ঘটনা যেন ভবিষ্যতে না ঘটে তা নিশ্চিত করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও দিল্লি পুলিশকে নির্দেশনা দেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার সাংবাদিকদের একটি দলও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেন। তাদের অভিযোগ, আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের উপস্থিতিতেই জেএনইউর শিক্ষার্থী-শিক্ষক ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালিয়েছে বেশ কিছু লোক। পুলিশ হামলা থামাতে কোন ভূমিকা নেয়নি।

ঘটনার ভিডিওতে দেখা যায়, আইনজীবীদের একটি দল হামলার সময় ‘ভারত দীর্ঘজীবী হোক, জেএনইউ নিপাত যাক’ স্লোগান দেন। বিজেপির সাংসদ ওপি শর্মাকেও আদালতের বাইরে এক ব্যক্তিকে হামলা করতে দেখা যায়। শর্মার অভিযোগ ওই ব্যক্তি পাকিস্তানের পক্ষে স্লোগান দিচ্ছিলেন।   এক আইনজীবীকে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ওপর হামলার সময় আদালতের ভেতর এক ব্যক্তিকে লাথি দিতে দেখা যায়। এ সময় সাংবাদিকরা হামলা ও হুমকির শিকার হন। অনেকের মোবাইলও কেড়ে নেওয়া হয়।




যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ

এদিকে মঙ্গলবার বিকালে পার্লামেন্টে দোষী সাব্যস্ত আফজাল গুরুর ফাঁসির বিরোধিতা করে এবং নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ সভাপতি কানহাইয়ার মুক্তির দাবিতে মিছিল করে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থী। গোলপার্ক থেকে শুরু হওয়া মশাল মিছিলে তারা কাশ্মিরের স্বাধীনতার দাবিতেও স্লোগান দেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। এরইমধ্যে ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সমর্থনে বিক্ষোভ

কানহাইয়া আদৌ রাষ্ট্রদ্রোহী স্লোগান দিয়েছেন কিনা তা নিয়ে সংশয়

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম স্ক্রল.ইনের খবরে বলা হয়েছে, আফজাল গুরুর ফাঁসি কার্যকরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমার সম্ভবত রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান দেননি; এমন দাবি করেছে খোদ ভারতের নিরপত্তা সূত্র। স্ক্রল.ইনের দাবি, জওহরলাল  নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট ইউনিয়নের এই সভাপতির গ্রেফতার নিয়ে যখন ভারতজুড়ে তোলপাড় চলছে, ঠিক তখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ দিল্লির কিছু পুলিশ কর্মকর্তার অতি উৎসাহী ভূমিকার ফল হতে পারে।  তবে এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত কানহাইয়াকে রাষ্ট্রবিরোধী মনে করার অবস্থানে অনড় রয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। মঙ্গলবার জওহর লাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক ঘটনা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে দিল্লি হাইকোর্টকে জানানো হয়, ‘ওই ঘটনা তরুণদের ভুল নাকি আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অংশ সে ব্যাপারে তদন্ত চলছে’।

পক্ষে-বিপক্ষের মত

কানহাইয়াকে গ্রেফতার ও নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ধরপাকড়ের ঘটনা নিয়ে উত্তপ্ত রয়েছে রাজনীতির ময়দান। রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করেন না বলে দাবি করলেও জওহর লাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিরোধী দলীয় নেতাদের অনেকে। তবে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার দায় দিয়ে আসলেও নিজ দলের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন বিজেপি নেতা শত্রুঘ্ন সিনহা। অবিলম্বে কানহাইয়ার মুক্তির দাবি তুলেছেন তিনি। টুইটারে বিজেপি সাংসদ লিখেছেন, ‘কানহাইয়া কোনও দেশবিরোধী অথবা সংবিধানবিরোধী কথা বলেননি। জেএনইউ-তে সমস্যার কারণ আসলে কী, তা খুব ভালভাবেই জানেন রাজনৈতিক নেতারা।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক খ্যাতি রয়েছে। কোনও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আলটপকা মন্তব্য করার আগে প্রত্যেকের সতর্ক হওয়া উচিত।’

এদিকে পদ্মবিভূষণ পুরস্কারবিজয়ী  আধ্যাত্মিক নেতা শ্রী শ্রী রবি শংকর বলেন, যে কোনও মূল্যে মত প্রকাশের অধিকারের সুরক্ষা দেওয়ার পক্ষপাতী তিনি। তবে তিনি মনে করেন, রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান কোনও গণতান্ত্রিক ও সভ্য সমাজে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া, এবিপি আনন্দ

/এফইউ/বিএ/

সম্পর্কিত

ইস্যু আফগানিস্তান: ৩ দিনের ভারত সফরে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ইস্যু আফগানিস্তান: ৩ দিনের ভারত সফরে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৪৬

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান। রবিবার নিউ ইয়র্কে তার্কিশ আমেরিকান ন্যাশনাল স্টিয়ারিং কমিটি (টিএএসসি) আয়োজিত এক সম্মেলনে অংশ নিয়ে এমন মন্তব্য করেন তিনি। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম ডেইলি সাবাহ।

এরদোয়ান বলেন, মুসলিমবিদ্বেষ এবং বিদেশিদের বিরুদ্ধে অসহিষ্ণু মনোভাব পশ্চিমের রাজনীতিকে জিম্মি করে রেখেছে। এই বিদ্বেষ ও অসহিষ্ণুতা মুসলমানদের দৈনন্দিন জীবনকে ব্যাহত করছে।

তিনি বলেন, ইসলামোফোবিয়া এবং জেনোফোবিয়া এই উভয় মতাদর্শই রাষ্ট্রীয় নীতি ঠিক করে দিচ্ছে। এটি একটি ধ্বংসাত্মক ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে যা সামাজিক শান্তির জন্য সরাসরি হুমকি।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমরা একটি মারাত্মক ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। কোভিডের মতোই বিপজ্জনক এই ভাইরাসের নাম ইসলামোফোবিয়া। যেসব দেশ বহু বছর ধরে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার গহ্বর হিসেবে চিত্রিত হয়েছে সেসব দেশেই এই ভাইরাস অত্যন্ত দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে।’

এরদোয়ান বলেন, ইসলামোফোবিয়া এবং আইএসের সন্ত্রাসবাদ একই ধরনের আদর্শিক ধর্মান্ধতা।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম সম্প্রদায় বিশেষ করে ৯/১১-এর পরে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে। অথচ তারা বৈধ ও গণতান্ত্রিক উপায়ে ঘৃণা ও বিদ্বেষের বিরুদ্ধে সাড়া দিয়েছে।

/এমপি/

সম্পর্কিত

রাশিয়ার সাধারণ নির্বাচনেও বাজিমাত পুতিনের

রাশিয়ার সাধারণ নির্বাচনেও বাজিমাত পুতিনের

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সফরে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সফরে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

জালালাবাদে বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের

জালালাবাদে বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

রাশিয়ার সাধারণ নির্বাচনেও বাজিমাত পুতিনের

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৫

রাশিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচনের ফলাফল আসতে শুরু করেছে। সেখানেও বাজিমাত করেছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এ পর্যন্ত পাওয়া ফলাফলের ভিত্তিতে তার দল ইউনাইটেড রাশিয়া ব্যাপক ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে। সোমবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

৬৪ শতাংশ ব্যালট গণনার পর ইলেকশন কমিশন জানিয়েছে, গণনাকৃত ভোটের প্রায় ৪৮ শতাংশ পেয়েছে ইউনাইটেড রাশিয়া। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কমিউনিস্ট পার্টি পেয়েছে ২১ শতাংশ ভোট। জাতীয়তাবাদী এলডিপিআর পার্টি পেয়েছে আট শতাংশ ভোট। ফেয়ার রাশিয়া পার্টির ঝুলিতে গেছে প্রাপ্ত ভোটের সাত শতাংশ। ইউনাইটেড রাশিয়ার বাইরে বাকি তিনটি দলও বেশিরভাগ বিষয়ে পুতিন সরকারকে সমর্থন দিয়ে থাকে।

আলেক্সি নাভালনির নেতৃত্বাধীন বিরোধীদের কঠোর হাতে দমনের পর রবিবার তিন দিনব্যাপী নির্বাচনের চূড়ান্ত পর্যায়ের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নাভালনি সমর্থক নেতারা জনগণের প্রতি পুতিনের দলকে প্রত্যাখ্যান এবং দলটির বিরুদ্ধে যেখানে যার বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সেখানে তাকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এমনকি অনেক জায়গায় তারা কমিউনিস্টদেরও ভোট দিতে বলেছেন। তবে বিশেষ করে অনলাইনে নাভালনি সমর্থকদের তৎপরতা বন্ধে সচেষ্ট ছিল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে সোমবার আংশিক ফল ঘোষণার পর উল্লাসে ফেটে পড়ে ইউনাইটেড রাশিয়ার সমর্থকরা। মস্কোর মেয়র সের্গেই সোবিয়ানিনকে দলের প্রধান কার্যালয়ে সমর্থকদের নিয়ে স্লোগান দিতে দেখা যায়।

৪৫০ আসনের রুশ পার্লামেন্টে বর্তমানে প্রায় তিন চতুর্থাংশই ইউনাইটেড রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে। ২০২০ সালে এই সংখ্যাগরিষ্ঠতার বলে সংবিধানে একটি নতুন সংস্কার আনা হয়। এতে ভ্লাদিমির পুতিনকে আরও দুই মেয়াদে অর্থাৎ, ২০৩৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার সুযোগ রাখা হয়। সমালোচকদের মতে, ওই সংস্কার ছিল পুতিনকে আমৃত্যু ক্ষমতায় রাখার একটি অপকৌশল মাত্র।

/এমপি/

সম্পর্কিত

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সফরে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সফরে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

সাবমেরিন উত্তেজনা, ম্যাক্রোঁর সঙ্গে কথা বলবেন বাইডেন

সাবমেরিন উত্তেজনা, ম্যাক্রোঁর সঙ্গে কথা বলবেন বাইডেন

কাবুল বিমানবন্দর নিয়ে বাইডেনের সঙ্গে বসছেন এরদোয়ান

কাবুল বিমানবন্দর নিয়ে বাইডেনের সঙ্গে বসছেন এরদোয়ান

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র সফরে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৫১

ফ্রান্সের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে যাত্রা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। মার্কিন নেতৃত্বাধীন চীন-বিরোধী সামরিক জোট কোয়াডের সম্মেলনে অংশ নিতেই তার এ সফর। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

কোয়াড শব্দটি হচ্ছে মূলত ইংরেজি কোয়াড্রিলেটারেল বা চতুর্পাক্ষিকের সংক্ষিপ্ত রূপ। বাস্তবেও এটি চার দেশের সামরিক জোট। এর সদস্য দেশগুলো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারত। এই সবকটি দেশের সঙ্গেই চীনের সম্পর্কে উত্তেজনা বা অস্থিরতা রয়েছে।

আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কোয়াড শীর্ষ সম্মেলন। ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মের বাইরে জোটের নেতাদের সরাসরি অংশগ্রহণে এটিই প্রথম কোনও কোয়াড সম্মেলন। তবে এ ধরনের জোট আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলার জন্য ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেছে চীন।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এমন সময়ে এ সম্মেলনে অংশ নিতে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে যাত্রা করলেন যখন কয়েকশ‌’ কোটি ডলারের সাবমেরিন নির্মাণের চুক্তি নিয়ে ফ্রান্সের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়েছে দেশটি।

চীনকে মোকাবিলায় সম্প্রতি অকাস নামের একটি নিরাপত্তা চুক্তিতে উপনীত হয় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া। এতে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের পক্ষ থেকে অস্ট্রেলিয়াকে পারমাণবিক সাবমেরিন নির্মাণের জন্য উন্নত প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। ওই চুক্তির পরপরই প্যারিসের সঙ্গে কয়েকশ‌’ কোটি ডলারের সাবমেরিন নির্মাণ চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দেয় ক্যানবেরা। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ফ্রান্স। যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূতদেরও দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

/এমপি/

সম্পর্কিত

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

রাশিয়ার সাধারণ নির্বাচনেও বাজিমাত পুতিনের

রাশিয়ার সাধারণ নির্বাচনেও বাজিমাত পুতিনের

সাবমেরিন বিতর্কে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করলো ফ্রান্স

যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা বৈঠক বাতিল

জালালাবাদে বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫৫

আফগানিস্তানের জালালাবাদে গত দুই দিনে তালেবান সদস্যদের লক্ষ্য করে বিস্ফোরণ ঘটানোর দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস। রবিবার জঙ্গিদের প্রপাগান্ডা মাধ্যম আমাকে প্রকাশিত পৃথক দুই বিবৃতিতে এ দায় স্বীকার করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, শনি ও রবিবার তালেবানের গাড়ি লক্ষ্য করে পৃথক তিনটি বোমা হামলা চালিয়েছে ইসলামিক স্টেট-খোরাসান (আইএস-কে)।

সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, রবিবার তালেবান সরকারের বর্ডার পুলিশের গাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে প্রাথমিকভাবে দুই বেসামরিকসহ অন্তত পাঁচজন নিহতের কথা জানা গেছে।

আগের দিন শনিবার একই শহরে একাধিক বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই অন্তত দুই তালেবান কর্মকর্তা নিহত হন। এতে আহত হন আরও ১৯ জন। তবে আহতদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক। সূত্র: রয়টার্স, হিন্দুস্তান টাইমস।

/এমপি/

সম্পর্কিত

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়বেন বক্সিং স্টার

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়বেন বক্সিং স্টার

তালেবান শাসনে নিজেদের যেভাবে মানিয়ে নিচ্ছে আফগানরা

তালেবান শাসনে নিজেদের যেভাবে মানিয়ে নিচ্ছে আফগানরা

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জঙ্গিবিমান কিনছে আর্জেন্টিনা

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২২

পাকিস্তানের কাছ থেকে ১২টি জেএফ-১৭ থান্ডার জঙ্গিবিমান কেনার পরিকল্পনা করেছে আর্জেন্টিনা। এগুলো কিনতে ২০২২ সালের খসড়া বাজেটে ৬৪ কোটি ৪০ লাখ ডলার অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এরইমধ্যে প্রস্তাবিত এ বাজেট দেশটির পার্লামেন্টে তোলা হয়েছে। এর অর্থ এই নয় যে, চুক্তিটি চূড়ান্ত। কারণ আর্জেন্টিনা এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি স্বাক্ষর করেনি। তবে পাকিস্তান থেকে জঙ্গিবিমান কিনতে দেশটির আগ্রহের বিষয়টি স্পষ্ট।

গত কয়েক বছর ধরে আর্জেন্টিনা বেশ কয়েকটি দেশের কাছ থেকে জঙ্গিবিমান কেনার চেষ্টা করে আসছে। কিন্তু অর্থের ঘাটতি কিংবা যুক্তরাজ্যের আপত্তির কারণে এসব চেষ্টা বিফলে যায়। সর্বশেষ গত বছর দক্ষিণ কোরিয়ার কাছ থেকে জঙ্গিবিমান কেনার প্রচেষ্টা আটকে দিয়েছিল যুক্তরাজ্য। ওই সময়ে আর্জেন্টিনার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিটিশ সরকারের পদক্ষেপকে ‘সাম্রাজ্যবাদী অহংকার’ বলে মন্তব্য করেছিলেন।

উল্লেখ্য, জেএফ-১৭ থান্ডার হচ্ছে চীন ও পাকিস্তানের যৌথ প্রচেষ্টায় তৈরি এক ইঞ্জিনের মাল্টি রোল যুদ্ধবিমান। এ বিমান ইন্টারসেপশন, গ্রাউন্ড অ্যাটাক, জাহাজে হামলা ও নজরদারির কাজে ব্যবহার করা যায়। এর শতকরা ৪২ ভাগ চীনে তৈরি আর বাকিটা পাকিস্তানে। তবে চূড়ান্তভাবে অ্যাসেম্বলির কাজ হয় পাকিস্তানে। সূত্র: পার্স টুডে।

/এমপি/

সম্পর্কিত

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

পশ্চিমা দুনিয়ার রাজনীতি ইসলামবিদ্বেষের কাছে জিম্মি: এরদোয়ান

জালালাবাদে বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের

জালালাবাদে বিস্ফোরণের দায় স্বীকার আইএসের

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়বেন বক্সিং স্টার

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়বেন বক্সিং স্টার

তালেবান শাসনে নিজেদের যেভাবে মানিয়ে নিচ্ছে আফগানরা

তালেবান শাসনে নিজেদের যেভাবে মানিয়ে নিচ্ছে আফগানরা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ইস্যু আফগানিস্তান: ৩ দিনের ভারত সফরে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ইস্যু আফগানিস্তান: ৩ দিনের ভারত সফরে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

পাঞ্জাবের নতুন মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চান্নি

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

অবশেষে তৃণমূলে বিজেপি সরকারের সাবেক মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

অবশেষে তৃণমূলে বিজেপি সরকারের সাবেক মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

ফ্রান্সের ২৪টি পুরাতন বিমান কিনতে যাচ্ছে ভারত

ফ্রান্সের ২৪টি পুরাতন বিমান কিনতে যাচ্ছে ভারত

মোদির জন্মদিনে দুই কোটি টিকা প্রয়োগের রেকর্ড ভারতের

মোদির জন্মদিনে দুই কোটি টিকা প্রয়োগের রেকর্ড ভারতের

সম্পর্কের উন্নতি চাইলে সীমান্তের সেনা প্রত্যাহার করুন: চীনকে ভারত

সম্পর্কের উন্নতি চাইলে সীমান্তের সেনা প্রত্যাহার করুন: চীনকে ভারত

তৃতীয় ডোজের প্রয়োজনীয়তার কোনও প্রমাণ নেই: আদর পুনাওয়ালা

তৃতীয় ডোজের প্রয়োজনীয়তার কোনও প্রমাণ নেই: আদর পুনাওয়ালা

দিল্লিতে বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ

দিল্লিতে বাড়ছে ডেঙ্গুর প্রকোপ

সর্বশেষ

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

সুপেয় পানি নিশ্চিতে ওয়াসার কর্মপরিকল্পনা দেখতে চায় হাইকোর্ট

মেসির অসন্তুষ্টি, ব্যাখ্যা দিলেন পচেত্তিনো

মেসির অসন্তুষ্টি, ব্যাখ্যা দিলেন পচেত্তিনো

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

ই-কমার্স রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে রিট

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

টেকনাফে সংঘাত, দুই কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

টেকনাফে সংঘাত, দুই কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

© 2021 Bangla Tribune