X
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন

এমপিদেরও প্লট দেওয়া হবে না

আপডেট : ২৬ মার্চ ২০১৬, ১৮:১৬

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন শুধু সাধারণ মানুষই নয়,এমপিদেরও আর প্লট দেবে না রাজউক।এখন থেকে শুধু ফ্ল্যাট দেওয়া হবে।অল্প জমিতে যাতে বেশি মানুষের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা যায় সেজন্যেই এ উদ্যোগ।রাজধানী ও এর আশপাশের এলাকায় জমি সংকটের কারণে শুধু ফ্ল্যাট প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে এগুচ্ছে সরকার।

বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে একথা বলেছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। তার সাক্ষাৎকারের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরা হলো:

বাংলা ট্রিবিউন: রাজউকের অধীনে আর নতুন কোনও আবাসিক এলাকা করার পরিকল্পনা আছে কিনা?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: আমরা আর আবাসিক এলাকা নির্মাণ করব না। কোনও প্লটও কাউকে দেওয়া হবে না। এখন থেকে রাজউক কেবল স্যাটেলাইট শহর করে সেখানে অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

বাংলা ট্রিবিউন: গত বছর আপনি জাতীয় সংসদে বলেছিলেন যে, এমপিদের প্লট দিতে নতুন প্রকল্প হাতে নেবেন? আর এখন বলছেন প্লট নয়,ফ্ল্যাট দেবেন। এর কারণ কী?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: এখন তো ঢাকার চারপাশে কোনও জমি খালি নেই। বেসরকারি হাউজিং কোম্পানিগুলো একের পর এক প্রকল্প করছে। আমরা জমি পাবো কোথায়? আপনারাই দেখুন ঢাকার মধ্যে এখন কি আর কোনও জমি খালি আছে?

রাজউক ইতোমধ্যে অনেক প্লট বরাদ্দ দিয়েছে। ১৯৯৬ সালের সরকারে আমি মন্ত্রী থাকাবস্থায় কেরানীগঞ্জে ঝিলমিল, উত্তরায় তৃতীয় পর্ব, পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প হাতে নিই। মাত্র একশ’ কোটি টাকায় ঝিলমিল প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিই। তিনশ’ কোটি টাকার প্রকল্প ছিল উত্তরা তৃতীয় পর্ব। কিন্তু এখন কি এই দামে কোথাও জমি পাবো? নিশ্চয়ই না। তাই আমরা প্লটের চিন্তা বাদই দিয়েছি। আর একটা প্লটও কাউকে বরাদ্দ দেওয়া হবে না।

বাংলা ট্রিবিউন: তাহলে এমপিদের কী হবে?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: তারাও ফ্ল্যাট পাবেন। প্রয়োজনে তাদেরকে গ্রুপ করে ২০ কাঠা জমি দেবো। বলব ওই জমিতে ফ্ল্যাট নির্মাণ করতে।সেখানে অনেক এমপির বাসস্থান হবে।আগে যেমন একজনকেই পাঁচ-দশ কাঠা জমি দেওয়া হতো,আগামীতে এটা আর হবে না।

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বাংলা ট্রিবিউন:এমপিদের না হয় ফ্ল্যাট দেবেন,সাধারণ মানুষরা যাবে কোথায়?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: সাধারণ মানুষের জন্য তো স্যাটেলাইট টাউন হচ্ছে। এই যেমন উত্তরায় পনের হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।এর মধ্যে একটি ব্লকের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। বাকি কাজ বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়া সরকারের মধ্যে জি-টু-জি পদ্ধতিতে নির্মাণ করা হবে।মালয়েশিয়ানরা আমাদের ফ্ল্যাটগুলো নির্মাণ করে দেবে। চুক্তি অনুযায়ী তারা কিছু লাভ পাবে। চার বছরের মধ্যে ফ্ল্যাট রেডি হয়ে যাবে। এ কাজটি দ্রুত এগিয়ে চলেছে। এরপর আমরা পূর্বাচল ও ঝিলমিলেও অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণ কাজ শুরু করব।

প্রসঙ্গত,রাজউকের উত্তরা তৃতীয় পর্বের ১৮ নম্বর সেক্টরে ২১৪.৪৪ একর জমির ওপর ফ্ল্যাট প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ‘এ, বি এবং সি’- এ তিনটি ব্লকে ফ্ল্যাট হবে ১৫ হাজার ৩৬টি। প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৯ হাজার ৩০ কোটি ৭২ লাখ টাকা। প্রকল্পে ১৭৯টি ষোলতলা ভবন হবে। বর্তমানে চলমান ‘এ’ ব্লকের কাজ শেষ হলে পর্যায়ক্রমে ‘বি’ এবং ‘সি’ ব্লকে কাজ শুরুর কথা রয়েছে। ‘এ’ ব্লকের ৭৯টি ভবনে ফ্ল্যাট হবে ৬৬৩৬টি।

বাংলা ট্রিবিউন: আবাসনের ব্যবস্থা কি শুধু রাজউক করছে?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: রাজউকের পাশাপাশি জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও এ কাজটি করছে। জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ ঢাকার লালমাটিয়া ও মিরপুর এলাকায় সাধারণ জনগণ ও সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

বাংলা ট্রিবিউন: ঢাকা শহরের ভেতর বিভিন্ন ভবন মালিকরা নকশার ব্যতিক্রম ঘটিয়ে ভবন নির্মাণ করেছেন।পার্কিংয়ের জায়গায় দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তুলে চালাচ্ছেন। এসবের বিরুদ্ধে আপনাদের বর্তমান অবস্থান কী?

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন: এর বিরুদ্ধে আমাদের উচ্ছেদ অভিযান চলমান আছে। রাজউককে বলে দিয়েছি এ ব্যাপারে ‍যেন কারও কথা না শোনে। আসলে ঢাকার সর্বনাশ আমরা নিজেরাই করেছি। অথচ রাজউক খুব পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছিল। এই যেমন গুলশান এলাকার কথাই ধরুন। সেখানে সুন্দর সুন্দর লেক আছে। অথচ এই লেক ভরাট করেই প্রভাবশালীদের জন্য প্লট তৈরি করা হয়েছে। শুধু তাই নয়,লেকের জমিতে প্লট করার পর লেকের ওপর বস্তিও করা হয়েছে।এই বস্তিতে থাকে বিভিন্ন বাসাবাড়ির কাজের বুয়ারা।

এবার আমার নির্দেশে গুলশানকে জঞ্জালমুক্ত করা হচ্ছে। আর একটা প্লটও যাতে গুলশান লেকে তৈরি হতে না পারে, সে জন্য লেকের চারদিকে ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে।গুলশান লেক উন্নয়নে রাজউক কাজ করছে। এক সময় দেখবেন কি সুন্দর হয় এই লেক।

 

ওএফ/ এপিএইচ/

শিক্ষাপ্রযুক্তির উন্নয়নে ১৩ লাখ মার্কিন ডলার পেলো ‘শিখো’ 

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২৩:১৮

অনলাইনে শিক্ষাকে সহজ ও সাশ্রয়ী করে তুলতে বাংলাদেশ ভিত্তিক শিক্ষাপ্রযুক্তি (এডটেক) স্টার্টআপ ‘শিখো’ ১৩ লাখ মার্কিন ডলার বৈশ্বিক বিনিয়োগ পেয়েছে। শিক্ষাপ্রযুক্তির উন্নয়নে পাওয়া এই বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।  বুধবার (২৮ জুলাই) প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। 

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এই অর্থ বিনিয়োগ করেছে সিলিকন ভ্যালি ভিত্তিক এডটেক বিনিয়োগ বিশেষজ্ঞ লার্ন ক্যাপিটালের সিড ফান্ড লার্নস্টার্ট এবং প্রাথমিক পর্যায়ের ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম অ্যাঙ্করলেস বাংলাদেশ।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কেন্দ্রিক ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম ওয়েভমেকার পার্টনার্সের দেশে এটি প্রথম বিনিয়োগ। শীর্ষস্থানীয় আমেরিকান এডটেক টিচেবল’র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আঙ্কুর নাগপালও এ রাউন্ডের ফিন্যান্সিংয়ে  অংশ নেন।  বৈশ্বিক প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সহায়তার মাধ্যমে ‘শিখো’ পণ্য ও সেবার মান উন্নয়নের পাশাপাশি উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন টিম সম্প্রসারণেরও পরিকল্পনা করছে।

শিখো’র সহ-প্রতিষ্ঠাতা শাহীর চৌধুরী (সিইও) বলেন, দেশের ১৬.৫ কোটি মানুষের অর্ধেকই ২৫ বছরের নিচে হওয়ার পরও শিক্ষার্থী ও তরুণদের জন্য দেশে মানসম্পন্ন শিক্ষার অভাব রয়েছে। বিশ্বমানের আধুনিক শিক্ষার অভিজ্ঞতায় শিক্ষার্থীদের সুযোগ গ্রহণ নিশ্চিত করতে ডিজিটাল লার্নিং ইকোসিস্টেম গড়ে তুলছে শিখো।

/এসএমএ/এমআর/

সম্পর্কিত

প্রাথমিকের আউট সোর্সিং কর্মচারীদের টিকার ব্যবস্থা করতে নির্দেশ

প্রাথমিকের আউট সোর্সিং কর্মচারীদের টিকার ব্যবস্থা করতে নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

প্রাথমিকের ২০২২ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবইয়ের চাহিদা এন্ট্রির নির্দেশ

প্রাথমিকের ২০২২ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবইয়ের চাহিদা এন্ট্রির নির্দেশ

ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে প্রাথমিকের নির্দেশনা

ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে প্রাথমিকের নির্দেশনা

অক্সিজেনের চাহিদা বেড়েছে ৩০ ভাগ, নানামুখী উদ্যোগ

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২২:৪৯

করোনা পরিস্থিতিতে দেশে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে জরুরি মেডিক্যাল অক্সিজেনের চাহিদা বেড়েছে ৩০ শতাংশেরও বেশি। আর সেই চাহিদা মেটাতে নানামুখী উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। আমদানিকারকদের দেওয়া হচ্ছে সব ধরনের সহযোগিতা। সারাদেশে জরুরি মেডিক্যাল অক্সিজেনের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ অব্যাহত রাখতে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে রেলপথ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়ে সহযোগিতা চেয়েছে চাওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে রেলপথে অক্সিজেনের সরবরাহ শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, জুন মাসেও দেশে জরুরি মেডিক্যাল অক্সিজেনের সরবরাহ ছিল স্বাভাবিক। এরইমধ্যে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার পর অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যায়। হিমশিম খেতে হচ্ছে অক্সিজেন আমদানি ও প্রস্তুতকারকদের। তবে এই মুহূর্তে দেশে অক্সিজেনের কোনও সংকট নেই বলে জানিয়েছে দেশের দুই বৃহৎ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান লিন্ডে বাংলাদেশ এবং স্পেক্ট্রা অক্সিজেন লিমিটেড। এই দুটি কোম্পানি দেশের সব সরকারি হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ করে। তারা জানিয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়েছে দ্বিগুণের বেশি। একইসঙ্গে মেডিক্যাল অক্সিজেন সরবরাহ ঠিক রাখতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রেখেছেন তারা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা শাখা থেকে রেলপথ মন্ত্রণালয়কে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, বর্তমানে কোভিড-১৯ ভাইরাস দেশব্যাপী অধিকহারে ছড়িয়ে পড়ায় জীবন রক্ষাকারী মেডিক্যাল অক্সিজেনের চাহিদা আগের তুলনায় ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। লিন্ডে বাংলাদেশ লিমিটেড ভারত থেকে সড়কপথে তরল অক্সিজেন আমদানিপূর্বক দেশের অক্সিজেনের চাহিদা পূরণ করার চেষ্টা করছে। সরবরাহ ব্যবস্থাকে দ্রুত, নির্ভরযোগ্য ও পরিমাণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে সড়ক পথের পাশাপাশি রেল পরিবহণ ব্যবস্থাকে ব্যবহার করার পরিকল্পনা গ্রহণ করতে চাচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে তরল অক্সিজেন সরবরাহের পরিমাণ বৃদ্ধিসহ দ্রুততা ও নির্ভরযোগ্যতার সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিতে লিন্ডে বাংলাদেশ লিমিটেডের অভিজ্ঞতা ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান লিন্ডে ইন্ডিয়া লিমিটেডরে পরামর্শক্রমে কিছু প্রস্তাবনা বাস্তবায়নের সুপারিশ করেন। এ অবস্থায়, কোভিড মহামারি পরিস্থিতিতে জরুরি তরল মেডিক্যাল অক্সিজেনের সরবরাহ দ্রুততর, নির্ভরযোগ্য ও পরিমাণ বাড়াতে সড়ক পথের পাশাপাশি রেল পরিবহন ব্যবস্থাকে ব্যবহার করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়।

আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান লিন্ডে বাংলাদেশ লিমিটেডের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা সুফিয়া আক্তার ওহাব বুধবার (২৮ জুলাই) বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দেশে বর্তমানে অক্সিজেনের কোনও সংকট নেই। সরবরাহ রয়েছে পর্যাপ্ত। তবে আগের তুলনায় চাহিদা বেড়ে গেছে। এজন্য সড়ক পথের পাশাপাশি তারা রেলপথ ব্যবহার করে অক্সিজেন আমদানি করছেন। এ পর্যন্ত দুদফায় ৪০০ টন অক্সিজেন তারা আমদানি করেছেন।

বুধবার (২৮ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে ভারতীয় রেলওয়ের ‘অক্সিজেন এক্সপ্রেস’ ১০টি কনটেইনার নিয়ে দ্বিতীয় দফায় বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছায়। সেখান থেকে আনলোড করে আগের মতোই সড়কপথে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের দুপ্তারা এলাকায় লিন্ডে বাংলাদেশ উৎপাদন ও বিক্রয় কেন্দ্রে নিয়ে সংরক্ষণ করা হবে। সেখান থেকে সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করা হবে। এর আগে গত ২৫ জুলাই প্রথম দফায় অক্সিজেন এক্সপ্রেসের একটি ট্রেন ২০০ টন তরল মেডিক্যাল অক্সিজেন নিয়ে আসে বাংলাদেশে। দেশের বহুজাতিক অক্সিজেন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান লিন্ডে উৎপাদনের পাশাপাশি ভারত থেকে লিকুইড অক্সিজেন আমদানি করে। তাদের দেশে উৎপাদন সক্ষমতা ৯৫ টন। ভারতে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় আমদানি বন্ধ হওয়ার আড়াই মাস পর আবারও আমদানি শুরু হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, দেশে অক্সিজেনের চাহিদা একেক সময় একেক রকম। রোগী বাড়লে চাহিদা একরকম থাকে। আর কম থাকলে আরেকরকম। তবে এর আগে সর্বোচ্চ চাহিদা ছিল ২০০ থেকে ২২০ টনের মধ্যে। রোগী এভাবে বাড়তে থাকলে সেটি বেড়ে কতো হবে তা এখনও অনুমান করা যাচ্ছে না। শুধু দুটি কোম্পানি লিন্ডে এবং স্পেক্ট্রা বর্তমানে সরবরাহ করছে ১৭০ টন পর্যন্ত। বাকি চাহিদা অন্যান্য কোম্পানি থেকে সরবরাহ করে পূরণ করা যাচ্ছে আপাতত। তবে এই মুহূর্তে সংকট নেই অক্সিজেনের। যদি চাহিদা আরও বেড়ে যায় তাহলে দেশের বিভিন্ন ভারী শিল্প কারখানায় অবস্থিত প্ল্যান্টের মাধ্যমে অক্সিজেনের সরবরাহের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

/জেইউ/এমআর/

সম্পর্কিত

ভারত থেকে এলো ১৮০ টন অক্সিজেন

ভারত থেকে এলো ১৮০ টন অক্সিজেন

রোগী বেড়ে গেলে অক্সিজেন চ্যালেঞ্জ হতে পারে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

রোগী বেড়ে গেলে অক্সিজেন চ্যালেঞ্জ হতে পারে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

অক্সিজেন ব্যবহার করলে রোজা ভেঙে যাবে?

অক্সিজেন ব্যবহার করলে রোজা ভেঙে যাবে?

শিল্প প্রতিষ্ঠানে অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ

শিল্প প্রতিষ্ঠানে অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ

নগরবাসীর কাছে ১০ মিনিট সময় চান আতিকুল ইসলাম

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২২:১১

এডিস মশা বাহিত ডেঙ্গু জ্বর নিয়ন্ত্রণে নগরবাসীর কাছে সপ্তাহের প্রতি শনিবার ১০ মিনিট করে সময় চেয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন- ডিএনসিসি’র মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘প্রতি শনিবার সকাল ১০টা থেকে ১০টা ১০ মিনিট পর্যন্ত নগরবাসী যদি একযোগে নিজ নিজ বাসা পরিষ্কার করেন, তাহলে আমার বিশ্বাস— ডেঙ্গু থেকে আমরা নিস্তার পেতে পারি।’

বুধবার (২৮ জুলাই) রাতে মেয়র আতিকুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে একথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সারা ঢাকায় ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়েছে। আমি চাই, নগরবাসী নিজেরা সচেতন হোক। সবাই যদি তার নিজ বাড়ি এবং তার বাসার আঙ্গিনা পরিষ্কার করেন, তাহলে আমরা নিস্তার পাবো।’

আতিকুল ইসলাম বলেন,  ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের জন্য আমরা নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এবং চিরুনি অভিযান পরিচালনা করছি। আমাদের কর্মীরাও কাজ করছেন। আমি মনে করি, নিজ বাসার আঙ্গিনা যদি পরিষ্কার না থাকে, তাহলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আনা কঠিন হবে।’

ডিএনসিসির মেয়র বলেন,  ‘আমি মানুষকে সচেতন করতে চাই। নগরবাসীর সবাই যদি এই কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করেন তাহলে আমরা সফল হবো।’ আগামী শনিবার থেকে প্রতি শনিবার এই কর্মসূচি চলবে বলেও জানান ডিএনসিসি মেয়র।

 

/এসএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে শিগগিরই চার্জশিট

ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে শিগগিরই চার্জশিট

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

ঢাকায় গ্রেফতার বেড়েছে

ডিজিটাল আর্থিক লেনদেনে ‘ট্যাপ’র উদ্বোধন করলেন সেনাপ্রধান

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২২:১৬

দেশের ডিজিটাল আর্থিক লেনদেনে নতুন মাত্রা যোগ করতে এবং গ্রাহকদের নিরাপদ সেবা প্রদানের লক্ষ্যে চালু হলো নতুন মোবাইল ফিন্যানসিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) ‘ট্রাস্ট আজিয়াটা পে’ বা ‘ট্যাপ’। বুধবার (২৮ জুলাই) দুপুরে ট্রাস্ট ব্যাংকের হেড অফিসে এই বাণিজ্যিক কার্যক্রম উদ্বোধন করেন ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) জানায়, ট্যাপ সেবাটি ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড (টিবিএল) এবং আজিয়াটা ডিজিটাল সার্ভিসেসের (এডিএস) যৌথ উদ্যোগে গঠিত ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল লিমিটেডের একটি উদ্যোগ। সেবাটির আওতায় গ্রাহকরা অর্থ জমা ও লেনদেন, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, বিমার কিস্তি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফি এবং তিন বাহিনীর নিয়োগ সংক্রান্ত ফি জমা, রেমিট্যান্স গ্রহণ, অনলাইনে মার্চেন্ট পেমেন্টসহ সব মোবাইল ফোন অপারেটরের রিচার্জ সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। ট্যাপ-এর বিশেষত্ব হচ্ছে, গ্রাহকরা শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র ও সেলফির মাধ্যমে সেবাটি গ্রহণের জন্য নিবন্ধন করতে পারবেন।

সেনাবাহিনী প্রধান জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এই শুভক্ষণে এমন একটি সেবা চালু করতে পেরে গভীর সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান প্রযুক্তির যুগে মোবাইল ফিন্যানসিয়াল সার্ভিস বা এমএফএস একটি অত্যাধুনিক ও উপযোগী প্রযুক্তি। এমএফএস প্রযুক্তি ব্যবহার করে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের একটি কোম্পানি ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড এবং আজিয়াটা ডিজিটাল সার্ভিসের যৌথ উদ্যোগে ট্রাস্ট আজিয়াটা পে বা ট্যাপ (tap) সেবাটি চালু করার মাধ্যমে গ্রাহক সেবার মান বহুগুণে বৃদ্ধি পাবে।’ শিগগিরই ট্যাপ-এর এই সেবা দেশের জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন সেনাপ্রধান।

ট্রাস্ট ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মিসেস হুমায়রা আজম বলেন, ‘দেশের মানুষকে সেরা ব্যাংকিং সুবিধাটি প্রদান করাই ট্রাস্ট ব্যাংকের লক্ষ্য। এই ভাবনা থেকেই আজিয়াটা গ্রুপের সঙ্গে আমাদের যুক্ত হওয়া। আমার বিশ্বাস, আজিয়াটা গ্রুপের সাহায্যে আমরা বাংলাদেশের মানুষকে লেনদেনে ডিজিটাল সুবিধা দেওয়ার ক্ষেত্রে অনেকখানি এগিয়ে যেতে পারবো।’

ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল লিমিটেডের ভারপ্রাপ্ত সিইও দেওয়ান নাজমুল হাসান বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশনকে সামনে রেখে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর প্রাক্কালে ট্যাপ চালু করতে পেরে আমরা আনন্দিত। আমাদের বিশ্বাস বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাবে সর্বস্তরের জনগণ। মোবাইলে অর্থ লেনদেনে আস্থার প্রতীক হয়ে উঠবে ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল লিমিটেড।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও অংশগ্রহণ করেন আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল মনসুর মো. আশরাফ খান এবং আজিয়াটা ডিজিটাল সার্ভিসেসের চিফ ফিন্যানসিয়াল অফিসার এন্থনি শেয়ান্থা আবেকুন, বোর্ড অব ডিরেক্টরস সুব্বারমন বৈদ্যনাথন, চিফ স্ট্রাটেজি অফিসার তোমু মারুয়ামাসহ অতিথিরা।

 

 

 

/জেইউ/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে প্রাথমিকের নির্দেশনা

ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে প্রাথমিকের নির্দেশনা

লকডাউনে ঢাকায় ফেরার গল্প (ভিডিও স্টোরি)

লকডাউনে ঢাকায় ফেরার গল্প (ভিডিও স্টোরি)

শফিকুল ইসলামের একক চিত্র প্রদর্শনী চলছে মৃন্ময় আর্ট গ্যালারিতে

শফিকুল ইসলামের একক চিত্র প্রদর্শনী চলছে মৃন্ময় আর্ট গ্যালারিতে

কঠোর লকডাউনেও থেমে নেই লাভ রোডের আড্ডা

কঠোর লকডাউনেও থেমে নেই লাভ রোডের আড্ডা

ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে শিগগিরই চার্জশিট

আপডেট : ২৮ জুলাই ২০২১, ২২:৩৯

সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রস্তুত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক। এই মামলার তদন্ত গুছিয়ে এনেছেন দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা। তদন্তে হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনার নামে ১৩ কোটি টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পেয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সম্প্রতি আরও কিছু নথিপত্র চেয়ে উত্তম কুমার বড়ুয়ার কাছে আরেকটি চিঠি পাঠিয়েছেন দুদকের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১৭-১৮ এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সাজানো দরপত্রের মাধ্যমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া ও মেসার্স এএসএল -এর স্বত্বাধিকারী আফতাব আহমেদ পরস্পর যোগসাজশে ১৩ কোটি ১৭ লাখ ৯১ হাজার ৬৪৯ টাকা আত্মসাৎ করেন। সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের জন্য যন্ত্রপাতি কেনার নামে ক্রয় নীতিমালা ভঙ্গ করে সাজানো দরপত্রের মাধ্যমে তারা এই টাকা আত্মসাৎ করেছেন। দুদকের তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা  মেডিক্যাল যন্ত্রপাতির প্রকৃত আমদানিকারক, সরবরাহকারী ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মাধ্যমে এসব যন্ত্রপাতির মূল্য যাচাই-বাছাই করে অর্থ আত্মসাতের প্রমাণ পেয়েছেন।

দুদকের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা জানান, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে পৃথক তিনটি মামলা হয়েছে। এর একটি মামলার তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে। অল্প কিছু কাজ বাকি রয়েছে। খুব শিগগিরই এই মামলার চার্জশিট দেওয়া হবে।

জানা গেছে, গত বছরের শুরুর দিকে সোহারাওয়ার্দী হাসপাতালের কেনাকাটায় অনিয়ম নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। অনুসন্ধানে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় উত্তম কুমার বড়ুয়াসহ মেডিক্যাল যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী পৃথক দুটি প্রতিষ্ঠান মেসার্স এএসএল-এর মালিক আফতাব আহমেদ ও মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের মালিক মুন্সী ফররুখ আহমেদের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা দায়ের করে দুদক। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদফতরও অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার বিরুদ্ধে মেডিক্যাল যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় অনিয়মের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। সেই কমিটির তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর গত বছরের অক্টোবরে একটি বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়।

দুদক সূত্র জানায়, গত ১৫ জুলাই উত্তম কুমারের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক থাকাকালীন ভারী যন্ত্রপাতি কেনার আর্থিক সীমা, যন্ত্রপাতি কেনার ক্ষমতা এবং রাজস্ব, উন্নয়ন ও থোক বরাদ্দ বাজেটের অর্থ দিয়ে যন্ত্রপাতি কেনার নীতিমালা, বিধিবিধান ও প্র্যাকটিস সংক্রান্ত নথিপত্র সাত দিনের মধ্যে জমা দিতে বলা হয়। এছাড়া ওই চিঠিতে প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির সভাপতি হিসেবে উত্তম কুমার বড়ুয়ার নিজের আর্থিক ক্ষমতার সীমা সংক্রান্ত নথি, দুটি দরপত্রের তথ্য, ঠিকাদারের দাখিল করা বিল ও হিসাব রক্ষণ অফিসে পাঠানো নথিপত্র এবং মেসার্স এএসএল-এর দরপত্র জমা থেকে মূল্যায়ন ও তুলনামূলক বিবরণীসহ যাবতীয় নথিপত্র জমা দিতে বলা হয়েছে।

দুদকের একজন কর্মকর্তা জানান, চিঠি প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে এসব নথিপত্র জমা দিতে বলা হয়েছে। গত ২৭ জুলাই এই চিঠি সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গ্রহণ করেছে। এসব নথিপত্র দুদক কার্যালয়ে জমা হলে তা জব্দ তালিকায় নথিভুক্ত করে মামলার কার্যক্রম গুছিয়ে আনা হবে।

সূত্র জানায়, দুদকের মামলা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভাগীয় মামলা দায়েরের পরপরই অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়াকে গত বছরের ৩ নভেম্বর বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়। দুদকের তদন্ত বিষয়ে একাধিকবার অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

নগরবাসীর কাছে ১০ মিনিট সময় চান আতিকুল ইসলাম

নগরবাসীর কাছে ১০ মিনিট সময় চান আতিকুল ইসলাম

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

কমিউনিটি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভা অনুষ্ঠিত

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের ১১ আগস্টের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশ

সর্বশেষ

করোনায় আটকে আছে ত্রিদেশীয় বৈঠক

করোনায় আটকে আছে ত্রিদেশীয় বৈঠক

কিউকম ও রানার এর মধ্যে ব্যবসায়িক চুক্তি

কিউকম ও রানার এর মধ্যে ব্যবসায়িক চুক্তি

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

বলপূর্বক কাবুল দখল করলে তালেবান স্বীকৃতি পাবে না: যুক্তরাষ্ট্র

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

বিলের মাঝখানে উপহারের ঘর, ডুবলো পানিতে

নতুন রূপে ‘বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের’ পথ চলা

নতুন রূপে ‘বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের’ পথ চলা

পাকিস্তান-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৯ ওভারের ম্যাচটিও শেষ হলো না

পাকিস্তান-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৯ ওভারের ম্যাচটিও শেষ হলো না

দেয়ালেও করোনাভাইরাস, সাতক্ষীরা মেডিক্যালের ল্যাব বন্ধ

দেয়ালেও করোনাভাইরাস, সাতক্ষীরা মেডিক্যালের ল্যাব বন্ধ

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় পরিবেশমন্ত্রীর

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় পরিবেশমন্ত্রীর

সেই লাকী আক্তারের কণ্ঠে কন্যা ও কান্নার গল্প (ভিডিও)

সেই লাকী আক্তারের কণ্ঠে কন্যা ও কান্নার গল্প (ভিডিও)

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের দেখভালে জাতিসংঘ-সরকার একমত

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের দেখভালে জাতিসংঘ-সরকার একমত

খালাস শেষে অক্সিজেন নিয়ে নারায়ণগঞ্জের পথে শেষ ট্যাংকলরিটি

খালাস শেষে অক্সিজেন নিয়ে নারায়ণগঞ্জের পথে শেষ ট্যাংকলরিটি

ভারতকে হারিয়ে শ্রীলঙ্কার সমতা

ভারতকে হারিয়ে শ্রীলঙ্কার সমতা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

© 2021 Bangla Tribune