X
মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

একান্ত সাক্ষাৎকারে শবনম ফেরদৌসী

মুক্তিযুদ্ধের বেশিরভাগ ইতিহাস চাপা পড়ে আছে

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০১৬, ১২:২৫




শবনম ফেরদৌসী
মুক্তিযুদ্ধে বিজয় লাভের পর বীরাঙ্গনাদের জন্য এদেশ কিছু করতে পারেনি বলে মনে করেন নির্মাতা শবনম ফেরদৌসী। তার মতে, যে সমাজ ‘লজ্জা ঢাকতে’ এতোগুলো সদ্যজাত শিশুকে ‘হত্যা’ করতে পারে, সে সমাজ মানবিক নয়, নিষ্ঠুর। অন্তত মুক্তিযোদ্ধারাতো সত্যটা জানতেন, তারা কয়জন শিশুর দায়িত্ব নিয়েছেন? যে শিশুদের মাদার তেরেসা হোমসের মাধ্যমে বিদেশ পাঠানো হলো, বড় হয়ে তারা মাকে খুঁজতে বাংলাদেশে এসেছে, কেউতো বাবাকে খুঁজতে পাকিস্তান যায়নি। এই ক্ষোভ এই ক্রোধ নিয়ে তিনি তৈরি করেছেন যুদ্ধশিশুদের নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র ‘জন্মসাথী’। ২০০০ সাল থেকে কাজ শুরু করে ১৮টি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেছেন শবনম। তিনি মনে করেন, মুক্তিযুদ্ধের বেশিরভাগ ইতিহাসই চাপা পড়ে আছে। মুক্তিযুদ্ধ, জীবনযুদ্ধ এবং নির্মাণ নিয়ে বাংলা ট্র্র্রিবিউনের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন।

জন্মসাথীর কাজ শুরু হলো কবে?
কাজটা শেষ করার পর এখন মনে হচ্ছে, শুরু আমার জন্মকে ঘিরে, জন্ম থেকেই।

একটু খুলে বলুন...
মা খুব ভাল গল্প বলতে পারতেন। প্রতি সন্ধ্যায়, রাতে, খেতে খেতে মা আমাদের গল্প শোনাতেন। আমাদের জন্মের ইতিহাসটা তিনিই এতো সুন্দর করে গল্পের মতো করে বলেছেন। তাই সে সময় যা ঘটেছে আমরা তার পুরোটা চিত্রিত করতে পারি। আমার জন্ম ১৯৭২ সালের জানুয়ারিতে হলিফ্যামিলি হাসপাতালে। ওইদিন সেখানে ১৩ টা বাচ্চা জন্মেছিল, তার মধ্যে ৩/৪জন যুদ্ধশিশু ছিল। মা এই গল্প শোনাতে শোনাতে আমাদের বড় করেছেন। শুরুতে হয়তো বুঝতাম না কেন তারা গুরুত্বপূর্ণ। পরে গল্প শোনার কারণেই আমি মনে মনে তাদের খুঁজেছি, তারা কোথায়, সবাই জন্মদিন পালন করে কিনা, ছেলে না মেয়ে। এভাবেই আমার জন্মের গল্পকে ঘিরে এদের জানা, তাই মনে হয় এর শুরুও সেই জন্ম থেকেই।

‘জন্মসাথী‘ প্রামাণ্যচিত্র বানানোর সময় বীরাঙ্গনার সঙ্গে

এই যে আপনি শুরুতে মনে মনে এবং পরে প্রামাণ্যচিত্র বানানোর জন্য এই ১২ জনকে খুঁজতে গেলেন, পেলেন কি?
আমি একই সময়ে একই দিনে জন্ম নেওয়া আমার হারিয়ে যাওয়া সঙ্গীদের খুঁজতে চাইলাম। কিন্তু তাদের কাউকে পাইনি। তাদের পাওয়া যাবে না, এটা বেশ আগেই বুঝতে পেরেছি। কারণ কোনও নথিপত্র রাখা হয়নি, কারও জন্মের কোনও ইতিহাস রক্ষিত নেই। এমনকি সেইদিন ওই একই হাসপাতালে আমিও যে জন্মেছিলাম সেই চিহ্নও নেই, কেবল আমাদের কাছে তখনকার নেওয়া ছোট যে জন্মকার্ড আছে সেটা ছাড়া।

যুদ্ধশিশু শামসুন্নাহারের সঙ্গে

এই যে কোনও দালিলিক চিহ্ন নেই, তাহলে কাজটা শুরু করলেন কীভাবে?
এ ছবির শুটিং হয়েছে এক বছর ধরে। শুটিং করে এসেই এডিটিংয়ে বসেছি। একটা থেকে একটা সূত্র খুলে গেছে। তথ্যের পেছনে ছুটতে ছুটতে নির্মাতার সামনে একটা মুহূর্ত আসে যখন সব খুলে যায়। বিষয়গুলো নিয়ে নিয়মিত পড়াশোনা করছিলাম, এইসময় মনোয়ারা ক্লার্ককে পাওয়া গেল। ঠিক তখন কেমন করে আরেকজন ‘যুদ্ধশিশু’ সুধীরকে পেলাম, হঠাৎই। আর শামসুন্নাহার যেহেতু যুদ্ধাপরাধ মামলার সাক্ষী, তাকে পেলাম প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজের মাধ্যমে। শুরু থেকেই আমি চেয়েছিলাম, দেশে যারা বেড়ে উঠেছেন তাদের জীবনটা কেমন কাটলো সেটা খুঁজে দেখতে।

কিন্তু তারা ক্যামেরার সামনে কি কথা বলতে চাইলেন?
আমি খুব ভয়ে ছিলাম, রাজি হবে কি না। কিন্তু ওদের সঙ্গে মিশে, কথা বলে দেখলাম, ওরা এখন জানাতে চায়। প্রক্রিয়াটা শুরুর সময় একবার খুব স্বাভাবিক মনে হয়েছে ওদের, আবার কোথায় যেন অন্যরকম। প্রথম দেখায় আমরা কেউ কারও সঙ্গে কথা বলিনি। একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে থেকেছি। কিন্তু ওই তাকিয়ে থাকাতেই দ্রুত আমাদের বন্ধুত্ব হয়েছে এবং এই যে বন্ধুত্ব-সখীত্ব, সেখান থেকেই আমার ছবির নাম বেরিয়ে এলো ‘জন্মসাথী’। প্রথমে নাম ছিল ‘জন্মেছি এই বঙ্গে’।

 

 

শবনম ফেরদৌসীর সঙ্গে প্রতিবেদক

 

সম্প্রতি আমিও বীরাঙ্গনাদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে দেখেছি, কেউ তাদের পরিচয় দিতে এখনও চান না। আমরা যে তাদের ‘বীরাঙ্গনা’ নামটা দিলাম, এটা কি তাদের চোটের ওপর আরও আঘাত হিসেবেই সে সময় এসেছিল বলে মনে করেন, নাকি সঠিক মূল্যায়নই হয়েছে?
আমরা অনেকেই ‘বীরাঙ্গনা’ বলার বিপক্ষে কথা বলি। সেই দলে পুরুষরা নেই। তারা ভিকটিম হিসেবে দেখতে চান। আমার কথা হলো, ঠিক আছে ভিকটিমই বলেন, এই ভিকটিমদের জন্য কী করেছেন? একটা নাম দিয়ে সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। একজন আহত ব্যক্তি যদি আহত মুক্তিযোদ্ধা হন, তাহলে ওই নারীরা কেন মুক্তিযোদ্ধার সম্মান পেলেন না শুরু থেকে? এতোদিন পরে বীরাঙ্গনাদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নতুন করে পরিচয় করাতে চাওয়ার মানেই হলো- সে সময় নামকরণ ঠিক ছিল না, এটা এখন প্রমাণিত। আজকে তাদের স্বীকৃতি দিলেই কি না দিলেই কি। তারা যে ৪৫ বছর কাটিয়ে এলেন, সেটা কি আমরা ধারণ করি। আমাদের অনেক কৃষক আছেন হাল ছেড়ে যুদ্ধ করতে গেছেন, ফিরে এসে লাঙল নিয়েছেন, সার্টিফিকেটের জন্য অপেক্ষা করেননি। মুক্তিযোদ্ধারা কখনও কোনও বীরাঙ্গনার খোঁজ নিয়েছেন, তারাতো সত্যটা জানতেন। এই কাজটা করতে গিয়ে মনে হয়েছে, আমাদের আশেপাশেই কিন্তু তারা হয়তো কষ্ট চেপে জীবন পার করেছেন, আমরা জানিও না।

ছবি: নাসিরুল ইসলাম

/এজে/

সম্পর্কিত

বাবার লাশ আর সাদা হাতাকাটা গেঞ্জিই একমাত্র স্মৃতি: তাপস

বাবার লাশ আর সাদা হাতাকাটা গেঞ্জিই একমাত্র স্মৃতি: তাপস

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২০:৫০

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে  ‘মুজিব বর্ষ’ উদযাপনের অংশ হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের ওপরে  চার দিনব্যাপী দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়েছে।

সিউলে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে এবং ইয়াংওয়ান করপোরেশনের সহযোগিতায় এই কোম্পানির সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আয়োজিত আলোকচিত্র প্রদর্শনীটি ৬ আগস্ট পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) দূতাবাস থেকে পাঠানো সংবাদি বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দক্ষিণ কোরিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম এবং ইয়াংওয়ান করপোরেশনের চেয়ারম্যান সাং কি-হাক ফিতা কেটে যৌথভাবে প্রদর্শনীটির উদ্বোধন করেন।

প্রদর্শনীটি আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম বলেন, ‘এই প্রদর্শনী দক্ষিণ কোরিয়ার বন্ধুপ্রতিম জনগণকে তথা তরুণ প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর এবং তাঁর রূপকল্প, দর্শন ও মতাদর্শ সম্পর্কে জানতে অনুপ্রাণিত করবে।’

উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে কোরিয়ান কালচার অ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায়  প্রথম আলোকচিত্র প্রদর্শনীটি চলতি বছরের ৯ থেকে ১৩ জুলাই সিউল শহরের প্রাণকেন্দ্র গাংনামের থিও গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত হয়।  

/এসএসজেড/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

আক্রান্তদের হোটেলে রাখার পরিকল্পনা

আক্রান্তদের হোটেলে রাখার পরিকল্পনা

স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে অর্ডিন্যান্স

স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে অর্ডিন্যান্স

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

আক্রান্তদের হোটেলে রাখার পরিকল্পনা

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২০:২৮

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, করোনায় আক্রান্ত যেসব রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করার প্রয়োজন পড়ে না, তাদের হোটেলে রেখে চিকিৎসা দেওয়া কথা চিন্তা করছে সরকার। কারণ, হাসপাতালে জায়গা নেই। তিনি বলেন, ‘আমরা এখন হোটেল খুঁজছি, যেখানে একটা ব্যবস্থা করতে পারি। যারা মৃদু আক্রান্ত হয়েছে, তাদের রাখতে পারি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ কাজটি করবে।’

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘মাইল্ড কেস, যেসব রোগীর হাসপাতালে ভর্তি করার প্রয়োজন পড়ে না, তাদের জন্য আমরা আলাদা হোটেল ভাড়া করার চিন্তা করেছি। যে হোটেলে ডাক্তার, নার্স এবং ওষুধপত্র থাকবে। কিছু অক্সিজেনের ব্যবস্থাও আমরা রাখবো। তারা সেখানে চিকিৎসা নিয়ে ভালো হয়ে গেলে বাড়ি চলে যেতে পারবেন। সেই ব্যবস্থাটুকু আমরা হাতে নিয়েছি।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘হাসপাতালগুলোর ৯০ শতাংশ সিটে রোগী আছে। আইসিইউ ৯৯ শতাংশ ভরে গেছে। এই চিন্তা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা ফিল্ড হাসপাতাল তৈরি করছি। সেটার কাজ চলমান আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘চীনের সিনোফার্ম ও বাংলাদেশের একটি কোম্পানির সঙ্গে এই টিকা উৎপাদন করার কার্যক্রম অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আইন মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তিপত্রও আমরা পেয়ে গেছি। ভ্যাকসিনের পাশাপাশি মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সাত দিনে প্রায় এক কোটি টিকা আমরা দেবো, এটাই আমাদের উদ্দেশ্য। টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রামের যারা বয়স্ক, তাদের অগ্রাধিকার দেবো। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তাদের জন্য জন্মনিবন্ধনপত্র বা এসএসসির সনদ নিয়ে টিকা দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

/এসআই/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে অর্ডিন্যান্স

স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে অর্ডিন্যান্স

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

করোনায় আরও ২৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৭৭৬

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ২০:১৬

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২৩৫ জন। এদের নিয়ে দেশে করোনায় সরকারি হিসাবে মোট মারা গেলেন ২১ হাজার ৩৯৭ জন।

এর আগে গতকাল ২৪৬ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়। তার আগের দিন (১ আগস্ট) তা ছিল ২৩১ জন। তার আগের দিন (৩১ জুলাই) ছিল ২১৮ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৭৭৬ জন। গতকাল শনাক্ত হয়েছিলেন ১৫ হাজার ৯৮৯ জন। তার আগের দিন (১ আগস্ট) তা ছিল ১৪ হাজার ৮৪৪ জন। আর তার আগের দিন শনাক্ত হয়েছিলেন নয় হাজার ৩৬৯ জন।

নতুন ১৫ হাজার ৭৭৬ জনকে নিয়ে দেশে করোনায় সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ১২ লাখ ৯৬ হাজার ৯৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৬ হাজার ২৯৭ জন। এদের নিয়ে দেশে করোনা থেকে মোট সুস্থ হলেন ১১ লাখ ২৫ হাজার ৪৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৫৭ হাজার ২৯৭টি আর পরীক্ষা হয়েছে ৫৫ হাজার ২৮৪টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৭৮ লাখ ৯৯ হাজার ১৬৯টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৫৮ লাখ ১৮ হাজার ৭৭০টি আর বেসরকারিভাবে ২০ লাখ ৮০ হাজার ৩৯৯টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৪১ শতাংশ।

শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ৮০ শতাংশ আর মৃত্যুর হার এক দশমিক ৬৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৩৫ জনের মধ্যে পুরুষ ১৪০ জন আর নারী ৯৫ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট পুরুষ মারা গেলেন ১৪ হাজার ৪১৯ জন আর নারী ছয় হাজার ৯৭৮ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে, ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে রয়েছেন চার জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১১ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৪১ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৮০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৫৪ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ২৫ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৫ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে চার জন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছে একজন।

এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৭৩ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৬৫ জন, রাজশাহী বিভাগের ২১ জন, খুলনা বিভাগের ৩২ জন, বরিশাল বিভাগের আট জন, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের রয়েছেন ১২ জন করে।

২৩৫ জনের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১৭৩ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ৪৬ জন, বাড়িতে ১৫ জন। হাসপাতালে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছে একজনকে।

/জেএ/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

দেশে পৌঁছেছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ছয় লাখ ডোজ টিকা

দেশে পৌঁছেছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ছয় লাখ ডোজ টিকা

দেশে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমোদন পেলো ভারতীয় টিকা কোভ্যাক্সিন

দেশে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমোদন পেলো ভারতীয় টিকা কোভ্যাক্সিন

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় শনাক্ত ৭৬৬০ জন

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় শনাক্ত ৭৬৬০ জন

দেশে করোনায় মৃত্যু ২১ হাজার ছাড়ালো

দেশে করোনায় মৃত্যু ২১ হাজার ছাড়ালো

দেশে পৌঁছেছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ছয় লাখ ডোজ টিকা

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৮:১০

জাপান থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ছয় লাখ ১৬ হাজার ৭৮০ ডোজ করোনার টিকা দেশে পৌঁছেছে।

আজ মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে গত ৩০ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভ্যাকসিন ডেপ্লয়মেন্ট কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে জানিয়েছিলেন, শনিবার (৩১ জুলাই) ও মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ১৩ লাখ ডোজ টিকা আসছে।

এর আগে জাপানের টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে, সোমবার জাপানের স্থানীয় সময় রাত সোয়া ৯টায় নারিতা বিমানবন্দর থেকে তৃতীয় দফায় ছয় লাখ ১৬ হাজার ৭৮০ ডোজ টিকা নিয়ে অল নিপ্পন এয়ারওয়েজের (এএনএ) একটি কার্গো ফ্লাইট ছেড়ে আসে। এরপর হংকং হয়ে “ক্যাথে প্যাসিফিক এয়ারওয়েজের কার্গো ফ্লাইটে মঙ্গলবার দেশে পৌঁছাবে তৃতীয় চালানের টিকা।”

সে অনুযায়ী, ৩১ জুলাইতে টিকা আসার পর আজ মঙ্গলবারও এ টিকা দেশে এলো।

৩০ জুলাই কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় জাপান থেকে এ টিকা আসবে বলে জানিয়ে ডা. শামসুল হক বলেছিলেন, ‘১৩ লাখ ডোজের ভ্যাকসিন দুইবারে অর্থাৎ শনিবার এবং বুধবারে ভাগ হয়ে আসছে।’

এর আগে গত ২৪ জুলাই কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় জাপান সরকারের উপহার দেওয়া দুই লাখ ৪৫ হাজার ২০০ ডোজ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা দেশে পৌঁছায়।

সে সময় জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, আগামী ১ মাসের মধ্যে আরও প্রায় ২৮ লাখ টিকা জাপান থেকে বাংলাদেশে আসবে।

উল্লেখ্য, জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তোশিমিৎসু মোতেগি ১৫টি দেশের জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার এক কোটি ১০ লাখ ডোজ টিকা কোভ্যাক্সের আওতায় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। জাপানের উপহার পাবে এমন দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের নাম। তালিকা অনুযায়ী অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২৯ লাখ টিকা পাবে বাংলাদেশ। এরই প্রথম চালান এলো শুক্রবার।’

দেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। শুরুতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত ও ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি কোভিশিল্ড দিয়ে এ কর্মসূচি শুরু হলেও ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞার পরে টিকার সংকট শুরু হয় দেশে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, এ টিকার প্রথম ডোজ নেওয়া ৫৮ লাখ ২০ হাজার ৩০ জনের মধ্যে সাড়ে ১৪ লাখের বেশি মানুষের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া নিয়ে তৈরি হয় সংকট। তবে এবারে জাপান সরকারের উপহার দেওয়া এ টিকার মাধ্যমে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় থাকাদের সংশয় কেটে যাবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

‘কোভ্যাক্স’র পূর্ণাঙ্গ রূপ হলো কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্লোবাল অ্যাকসেস ফ্যাসিলিটি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ছাড়াও উদ্যোগটির সঙ্গে রয়েছে কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশন এবং দাতব্য সংস্থা গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশন (জিএভিআই)। এ উদ্যোগের লক্ষ্য হচ্ছে, ভ্যাকসিন মজুত করে না রেখে ধনী-গরিব নির্বিশেষে সর্বোচ্চ ঝুঁকির দেশগুলোতে তা বণ্টন করার জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারকে উৎসাহিত করা।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এর আগে জানিয়েছেন, টিকা পেতে গত জুনে কোভ্যাক্সকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ। সে হিসেবে আমাদের পর্যায়ক্রমে প্রায় সাত কোটি টিকা দেওয়ার কথা রয়েছে। চিঠি পেয়েছি, তারা আমাদের ২৫ লাখ ভ্যাকসিন দেবে।

/জেএ/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনায় আরও ২৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৭৭৬

করোনায় আরও ২৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৭৭৬

দেশে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমোদন পেলো ভারতীয় টিকা কোভ্যাক্সিন

দেশে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমোদন পেলো ভারতীয় টিকা কোভ্যাক্সিন

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় শনাক্ত ৭৬৬০ জন

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় শনাক্ত ৭৬৬০ জন

দেশে করোনায় মৃত্যু ২১ হাজার ছাড়ালো

দেশে করোনায় মৃত্যু ২১ হাজার ছাড়ালো

স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে অর্ডিন্যান্স

আপডেট : ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৮:২০

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানিয়েছেন, যারা করোনা প্রতিরোধে জারি করা স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না, আবেদন-নিবেদনে কাজ না হলে, অর্ডিন্যান্স জারি করে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে। বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। টিকাও নিতে হবে। এক্ষেত্রে খামখেয়ালির কোনও সুযোগ নেই। সরকার মনে করে, আইন দিয়ে সবকিছু হয় না। সচেতনতা দরকার। সরকার সেই চেষ্টাই করছে। 

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয় সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভা শেষে এসব তথ্য জানান তিনি। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, মন্ত্রিপরিষদ সচিব আনোয়ারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘এক্ষেত্রে নাগরিকদের মাস্ক ব্যবহার ও ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে বয়স্কদের টিকা গ্রহণে উৎসাহ দিতে পাড়া-মহল্লায় সবার অংশগ্রহণে কমিটি করা হবে। যাদের কাজ হবে সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মানানোর ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা। স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘিত হলেও কমিটি তা প্রতিহত করবে। কমিটিতে জনপ্রতিনিধির সঙ্গে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, ছাত্র-শিক্ষক, মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিত, কৃষক, যুবক সবাই থাকবেন। এত কিছুর পরেও এত আবেদন-নিবেদনের পরেও যদি কেউ করোনা প্রতিরোধে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে উদাসীনতা প্রদর্শন করে, তাহলে অর্ডিন্যান্স জারি করে, তাদের শাস্তির বিধান নিশ্চিত করা হবে।’

যেহেতু সংসদ অধিবেশন চলছে না, সেহেতু রাষ্ট্রপতির অর্ডিন্যান্স জারি করে শাস্তির বিষয়টি আইনের আওতায় আনা হবে বলেও জানান তিনি। মন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাসের টিকা নিতে হাসপাতাল বা কেন্দ্রে দৌড়াতে হবে না। দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে প্রতিটি ওয়ার্ডে ২-৫টি টিকাকেন্দ্র খোলা হবে। সংশ্লিষ্ট লোকজনই জনগণকে টিকা দিয়ে আসবে। রেজিস্ট্রেশন করে, এনআইডি কার্ড দেখিয়ে টিকা নেওয়া যাবে। যাদের এনআইডি নাই, তাদেরও বিশেষ পদ্ধতিতে টিকা দেবে সরকার।’ 

তিনি বলেন, ‘আগামী ১ সপ্তাহে ১ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিনেটেড করবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। মানুষকে ভ্যাকসিন নিতে দৌড়াতে হবে না, আমাদের লোকজনই তাদের কাছে পৌঁছে যাবে।’

/এসআই/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

আক্রান্তদের হোটেলে রাখার পরিকল্পনা

আক্রান্তদের হোটেলে রাখার পরিকল্পনা

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

সোমবার টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ডোজ

সর্বশেষ

করোনার টিকা ছাড়াই সুই পুশ, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক বরখাস্ত

করোনার টিকা ছাড়াই সুই পুশ, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক বরখাস্ত

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

অবশেষে অস্ট্রেলিয়া-বধ

দিল্লিতে দলিত শিশুকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা, পুরোহিত গ্রেফতার

দিল্লিতে দলিত শিশুকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা, পুরোহিত গ্রেফতার

কুমিল্লায় একদিনে সর্বোচ্চ ১১৯০ জনের করোনা শনাক্ত

কুমিল্লায় একদিনে সর্বোচ্চ ১১৯০ জনের করোনা শনাক্ত

বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ খাতের খবর জানলো বিশ্বব্যাংক

বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ খাতের খবর জানলো বিশ্বব্যাংক

শুধু নারী রোগীদের জন্য করোনা ইউনিট চালুর সিদ্ধান্ত

শুধু নারী রোগীদের জন্য করোনা ইউনিট চালুর সিদ্ধান্ত

টাইগ্রে-সুদান সীমান্তের নদীতে ভাসছে মরদেহ

টাইগ্রে-সুদান সীমান্তের নদীতে ভাসছে মরদেহ

পুলিশের অনুরোধে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার

পুলিশের অনুরোধে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার

খুলে দেওয়া হচ্ছে লেবুখালী ঝুলন্ত সেতু

খুলে দেওয়া হচ্ছে লেবুখালী ঝুলন্ত সেতু

মানিকগঞ্জ করোনা হাসপাতালে সাংবাদিক প্রবেশ নিষেধ

মানিকগঞ্জ করোনা হাসপাতালে সাংবাদিক প্রবেশ নিষেধ

ভয়াবহ বন্যার কবলে পশ্চিমবঙ্গ, ১৬ জনের মৃত্যু

ভয়াবহ বন্যার কবলে পশ্চিমবঙ্গ, ১৬ জনের মৃত্যু

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টিতে গর্জন বাংলাদেশের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বাবার লাশ আর সাদা হাতাকাটা গেঞ্জিই একমাত্র স্মৃতি: তাপস

বাবার লাশ আর সাদা হাতাকাটা গেঞ্জিই একমাত্র স্মৃতি: তাপস

© 2021 Bangla Tribune