X
সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

মুয়াজ্জিন হত্যাকাণ্ড: খুনিদের হদিস পাচ্ছে না পুলিশ

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০১৬, ২২:২৬

ঝব্বু খানম জামে মসজিদ. পুরান ঢাকার ইসলামপুরের ঝব্বু খানম জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন বেলাল হোসেন হত্যাকাণ্ডের কোনও কারণ খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ। সোমবার সকালে লাশ উদ্ধারের পর মসজিদের ইমাম ও দ্বিতীয় মুয়াজ্জিনসহ অনেককেই জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। কিন্তু এখনও হত্যাকাণ্ডের কারণ জানা যায়নি ও খুনিদের চিহ্নিত করা যায়নি।  
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও কোতোয়ালী থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) পারভেজ ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বলার মতো কোনও তথ্য এখনও পাইনি। সন্দেহভাজন হিসেবে থানায় নিয়ে অনেককেই জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। কিন্তু হত্যাকাণ্ডের কোনও ক্লু পাওয়া যায়নি। তদন্তের কোনও অগ্রগতি হয়নি।  
সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, মুয়াজ্জিনকে কী কারণে কারা হত্যা করা হয়েছে, তা জানা যায়নি। তবে, তাকে ব্যক্তিগত আক্রোশের কারণে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে এটা প্রায় নিশ্চিত। কারণ, ঘটনার সময় বৃষ্টি ছিল। মসজিদেরও কোনও অর্থ খোয়া যায়নি।

তদন্ত সংশ্লিষ্টদের ধারণা, খুনিদের চিনতেন মুয়াজ্জিন। তার সঙ্গেই খুনিরা মসজিদে ঢুকেছিলেন। কিন্তু মুয়াজ্জিনের কক্ষে ঢোকার আগেই তারা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাকে গলা টিপে ধরেন ও দু’হাত বেঁধে ফেলেন। পরে তাকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর খুনিরা চলে যান। কী কারণে তার ওপর খুনিদের এত আক্রোশ, তা এখনও জানতে পারেননি তারা।

মসজিদের মার্কেটের কেয়ারটেকার আবদুল আউয়াল বলেন, তারা এখনও বুঝতে পারছেন না—কী কারণে মুয়াজ্জিন বেলাল হোসেনেকে হত্যা করা হলো। তার প্রতি কার আক্রোশ সেটাই বুঝতে পারছেন না তারা। দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি এ মসজিদের মুয়াজ্জিন হিসেবে কাজ করছেন। কারও সঙ্গে কখনও মনোমালিন্য হতে দেখিনি। সবাই তাকে ভালো মানুষ হিসেবেই জানেন। তাহলে কেন তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো।
আবদুল আউয়াল আরও বলেন, ১৯৭১ সালের পর থেকে তিনি নিজেও ওই মসজিদ কমপ্লেক্সের কেয়ারটেকার হিসেবে কাজ করে আসছেন। মুয়াজ্জিন বেলাল হোসেনকে কেউ কখনও আগে সালাম দিতে পারেনি। মসজিদের হিসাব-নিকাশ তার কাছেই থাকত। এ জন্য কারও কোনও আক্রোশ রয়েছে কি না—সেটা খতিয়ে দেখতে তিনি অনুরোধ জানান। নামাজের জন্য মঙ্গলবার সকাল থেকেই মসজিদটি খুলে দিয়েছে পুলিশ।
রবিবার রাত সাড়ে ১০টার পর থেকে ভোর সোয়া পাঁচটার আগে যেকোনও সময়ে দুর্বৃত্তরা পরিকল্পিতভাবে মুয়াজ্জিন বেলাল হোসেনকে (৪৯) মসজিদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার মাঝের সিঁড়িতে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছেন বলে নিহতের সুরতহাল রিপোর্টে উল্লেখ করেছে পুলিশ। পরদিন সোমবার সকালে পুলিশ মসজিদের সিঁড়ি থেকে নিহতের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।


নিহত মুয়াজ্জিনের ছোটভাই আবুল বাশার জানান, তারা পাঁচ ভাই ও এক বোন। মুয়াজ্জিন বেলাল হোসেন সবার বড়। তার এক ছেলে হাফেজ ইয়াছিন রাজধানীর গেন্ডারিয়ার জামালুল কোরআন মাদ্রাসায় পড়েন। এক মেয়ে তাছলিমা গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জের স্থানীয় একটি কলেজে পড়ালেখা করেন। তারা প্রত্যেকেই নিজ-নিজ ক্ষেত্রে স্বাবলম্বী হলেও বড় ভাই মাওলানা বেলাল হোসেন তাদের অভিভাবকের মতো ছিলেন। সোমবার রাতেই মানিকগঞ্জের পূর্ব দাশড়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে বলে জানান তিনি। 

/এমএনএইচ/

সম্পর্কিত

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

সেই পিয়াসা আটক 

সেই পিয়াসা আটক 

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০২:২৯

‘পিয়াসা ও মৌ একটি সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্য। ওরা রাতের রানী বলেই সুপরিচিত। সারাদিন ঘুমিয়ে কাটাতেন। রাতে বিভিন্ন পার্টিতে গিয়ে উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের টার্গেট করে বাসায় ডেকে আনতেন। এরপর বাসায় গোপনে তাদের আপত্তিকর ছবি তুলতেন। সেই ছবি বাবা-মা বা পরিবারের সদস্যদের দেখানোর ভয় দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতেন।'

রবিবার (১ আগস্ট) রাতে বারিধারা ও মোহাম্মদপুরের পৃথক দুটি বাসায় অভিযান চালিয়ে আলোচিত ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা ও মরিয়ম আক্তার মৌকে আটকের পর এসব তথ্য জানান ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদ।

তিনি বলেন, আমরা পিয়াসা ও মৌয়ের বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেইল করার অনেকগুলো অভিযোগ তদন্ত করছিলাম। সেই তদন্তের অংশ হিসেবে ফারিয়া ও মৌয়ের বাসায় অভিযান চালানো হয়। তাদের বাসা থেকে বিদেশি মদ ও ইয়াবা পাওয়া গেছে। তাদের ব্ল্যাকমেইলিং করার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এছাড়া যেহেতু মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে, এজন্য গুলশান ও মোহাম্মদপুর থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হবে।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, রবিবার রাতে প্রথমে বারিধারার পিয়াসার বাসায় অভিযান চালানো হয়। তার বাসা থেকে মাদকদ্রব্যসহ পিয়াসাকে আটকের পর অভিযান চালানো হয় মোহাম্মদপুরের বাবর রোডের একটি বাসায়। সেখান থেকে অন্তত এক ডজন বিদেশি মদ, পাঁচ প্যাকেট ইয়াবাসহ মৌকে আটক করা হয়।

সরেজমিন মৌয়ের বাসায় গিয়ে দেখা যায়, গনমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতিতে ওই বাসায় অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছিল। মিরপুর রোড সংলগ্ন ২২/৯ বাবর রোডের ওই বাসার নিচতলায় থাকতেন মৌ। বাসার ভেতরে ড্রয়িং রুমের পাশেই একটি মিনি বার দেখা গেছে। বাসার ভেতরের বেডরুমের একটি ড্রয়ার থেকে পাঁচ প্যাকেট ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। এছাড়া ওই বেডরুমের ভেতরে আরেকটি ড্রেসিং রুম থেকে অন্তত এক ডজন বিদেশি মদ উদ্ধার করা হয়।

গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, গ্রেফতারকৃত মৌ ও পিয়াসা তাদের বাসায় মদের আসর বসাতো মূলত উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের ব্ল্যাকমেইল করার জন্য। এই বিষয়ে তদন্তে সত্যতা পেলে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের অভিযোগেও পৃথক মামলা দায়ের করা হয়।

‘আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে’

বাবর রোডের বাসা থেকে আটকের পর মডেল মৌ সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, ষড়যন্ত্র করে তাকে ফাঁসানো হচ্ছে। ভাসাবির জামানের বউ তাকে বাসায় পুলিশ পাঠিয়ে শায়েস্তা করার হুমকি দিয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি। মৌ সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, ‌'ভাসাবির জামানের বউ আমার পরিচিত। তাদের বিভিন্ন প্রোগ্রামে গিয়ে পিয়াসার সঙ্গেও আমার পরিচয় হয়। ভাসাবির জামানের বউ তানজি'র সঙ্গে ওদের কার যেন ঝামেলা হয়েছে, সেজন্য আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। আমার বাসায় এসব মদ আর ইয়াবা আগে থেকে ছিল না।

 

/এনএল/এফএএন/

সম্পর্কিত

সেই পিয়াসা আটক 

সেই পিয়াসা আটক 

করোনা থেকে মুক্তি: আনন্দে কাঁদলেন তিনি

করোনা থেকে মুক্তি: আনন্দে কাঁদলেন তিনি

ডা. ঈশিতার আকাশচুম্বী সাফল্য, ডিগ্রি, পুরস্কার ও খ্যাতি সবই ভুয়া

ডা. ঈশিতার আকাশচুম্বী সাফল্য, ডিগ্রি, পুরস্কার ও খ্যাতি সবই ভুয়া

মাদক মামলায় হেলেনার ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

মাদক মামলায় হেলেনার ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০০:৫০

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মালিকানাধীন ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের ৫০০টি বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন। বর্তমানে এই বেডগুলোতে সিলিন্ডারের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করে অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু এধরনের রোগী কম থাকায় হাসপাতালটির বেডে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী ৪ আগস্টের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে।

ডিএনসিসি হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য  জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে আইসিইউ’র চাহিদা বেড়েছে। আমাদের এসডিইউ যুক্ত বেডগুলোও ফাঁকা নেই। আইসিইউর প্রয়োজন এমন অনেক রোগী বেড খালি না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। যদিও সিলিন্ডারযুক্ত ৫০০ বেডের অধিকাংশই খালি। সে জন্য আমরা সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এরই মধ্যে কাজ শুরু হয়ে গেছে। আগামী ৪ আগস্টের মধ্যে কাজ শেষ হয়ে যাবে। তখন কোনও রোগীকেই আর ফেরত দেওয়া লাগবে না।’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, ডিএনসিসির এই হাসপাতালে  রয়েছে— ১১২টি আইসিইউ বেড, ২৫০ এইচডিইউ বেড। এ ছাড়াও ১৩৮টি আইসিইউ মানের বেড রয়েছে, যেগুলো কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সিস্টেমের সঙ্গে যুক্ত। হাসপাতালটিতে জরুরি ওয়ার্ডে ৫০টি বেড রাখা হয়েছে। মোট ৫৫০টি বেডের বাইরে আরও  ৪৫০টি বেড থাকবে, সেখানে মারাত্মক আক্রান্ত নন— এমন রোগীদের রাখা হবে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন হসপাতালের বর্তমান চিত্র তুলে ধরে বলেন, ‘আমাদের এখানে রবিবার সকালে ৫৬৪ জন রোগী ছিল। এখন (বিকালে) পর্যন্ত আরও রোগী ভর্তি হয়েছে। ২০৪ জন আইসিইউতে ছিল। ৪০ জনকে ছুটি দিয়েছি। আমাদের এখানে প্রতিদিনই রোগী ভর্তি হচ্ছে। কিছু রোগী মারাও যাচ্ছেন। আবার অনেকেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের যে এইচডিইউ বেড আছে, সেগুলো পুরণ হয়ে যাওয়ায় সিরিয়াস রোগীদের সিলেকশন করতে একটু বেগ পেতে হচ্ছে। আশা করছি, এই সমস্যা থেকে দ্রুত কেটে উঠতে পারবো। কারণ, আমাদের প্রায় ৫০০ বেডে নতুন করে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন যুক্ত করছি। কাজ দ্রুত চলছে। এটা হাই কেয়ার এরিয়া হিসেবে তৈরি করা হবে। সেখানে আমরা হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা যুক্ত করতে পারবো। তখন যাদের আবস্থা সিরিয়াস তাদেরকে নিতে পারবো।’

ব্রিগেডিয়ার নাসির উদ্দিন বলেন, ‘এক হাজার বেডের মধ্যে সেন্ট্রাল অক্সিজেট যুক্ত থাকলে যে সুবিধা, সেটা হচ্ছে আমরা সিরিয়াস রোগীদের আলাদা আলাদা রুমে রেখে চিকিৎসা দিতে পারবো। তাতে আমাদের সক্ষমতা বাড়বে। আমরা ওই প্রক্রিয়াতেই আগাচ্ছি। এই মুহূর্তে অসুস্থ রোগী আসছে, আমরা চেষ্টা করছি তাদের সবাইকে গ্রহণ করতে। আমাদের এখান থেকে খুব কম রোগীই ফিরে যাচ্ছেন। দুই-চার জন রোগী চলে যাচ্ছেন, যাদের অবস্থা খুবই সিরিয়াস বা যাদের ইমিডিয়েট আইসিইউ দরকার, কিন্তু আমরা দিতে পারছি না। তারা অন্যত্র ট্রাই করছেন।’

ডিএনসিসির এই হাসপাতালে পানির সমস্যা রয়েছে। রোগীদের অভিযোগ, তারা পর্যাপ্ত পানি ও বাথরুম পাচ্ছেন না। এই অভিযোগের বিষয়ে  পরিচালক বলেন, ‘আসলে এই ভবনটি আগে  মার্কেট ছিল। সেখান থেকে হাসপাতালে রূপান্তর করা হয়েছে। তবে আমরা এই সমস্যা অনুভব করছি। আমাদের কাজ শুরু হয়েছে। আশা করছি, দ্রুত সমাধান হবে। আর পানির সমস্যা সমাধানেও কাজ শুরু হচ্ছে। আমরা নির্দেশনা পেয়েছি। যদিও এগুলো আমাদের হাতে নেই— এটা হাসপাতালের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ দেখাশুনা করছে। এখন পানি ও টয়লেটের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। মোটা পাইপ লাগানো হচ্ছে।’

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

৮ সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা নেই আইসিইউ

৮ সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা নেই আইসিইউ

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সেই পিয়াসা আটক 

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০০:১৫

বনানীর রেইনট্রিতে ধর্ষণকাণ্ড ও গুলশানের মুনিয়া আত্মহত্যাকাণ্ডে আলোচনায় আসা সেই ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসাকে আটক করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ- ডিবি। 

রবিবার (১ আগস্ট) রাতে বারিধারার বাসা থেকে তাকে আটক করা হয়। 

ডিবির যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। 

পিয়াসা

ডিবি পুলিশ জানায়, পিয়াসার বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ আদায়ের অভিযোগে আটক করা হয়েছে। পিয়াসা ছাড়াও ডিবি পুলিশ মোহাম্মদপুরে আরেক মডেলকে আটকের জন্য অভিযান চালাচ্ছে। 

আরও পড়ুন: আবারও আলোচনায় সেই পিয়াসা

/এনএল/এনএইচ/

সম্পর্কিত

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

ডা. ঈশিতার আকাশচুম্বী সাফল্য, ডিগ্রি, পুরস্কার ও খ্যাতি সবই ভুয়া

ডা. ঈশিতার আকাশচুম্বী সাফল্য, ডিগ্রি, পুরস্কার ও খ্যাতি সবই ভুয়া

মাদক মামলায় হেলেনার ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

মাদক মামলায় হেলেনার ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

দুই মামলায় চিত্রনায়িকা একা কারাগারে

দুই মামলায় চিত্রনায়িকা একা কারাগারে

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২৩:১১

দেশে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পর এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে ১ কোটি ৩৪ লাখ ৫৯ হাজার ৮১১ ডোজ। এর মধ্যে এক ডোজ নিয়েছেন ৯০ লাখ ৩৫ হাজার ৬০২ জন এবং টিকার দুই ডোজ নিয়েছেন ৪৩ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৭ জন। এগুলো দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলায় ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড, চীনের তৈরি সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্নার ভ্যাকসিন। 

রবিবার (১ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়। এদিন মোট টিকা দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ ১৪ হাজার ৩৫০ ডোজ।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, রবিবার অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে এক হাজার ৭৭৩ জনকে।  এখন পর্যন্ত কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ২০ হাজার ৩৩ জন। আর  দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪২ লাখ ৯৯ হাজার ৮৫৯ জন। 

পাশাপাশি আজ ফাইজারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়নি কাউকে এবং  দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৭৮৬ জন। আর এখন পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে ৫২ হাজার ৫০৫ ডোজ ।

এছাড়া ২৫ লাখ ২৩ হাজার ১৮৯ ডোজ সিনোফার্মের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে এখন পর্যন্ত। এর মধ্যে  প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ২৪ লাখ ৭৩ হাজার ৬৩১ জনকে আর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪৯ হাজার ৫৫৮ জনকে। 

মডার্নার টিকা এখন পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে ৭ লাখ ৬৪ হাজার ২২৫ ডোজ, আর আজকে দেওয়া হয়েছে ৭৬ হাজার ৫৪৪ ডোজ।

আর এখন পর্যন্ত নিবন্ধন করেছে  ১ কোটি ৫৫ লাখ ৪ হাজার ১৫ জন।

/এসও/এমআর/

সম্পর্কিত

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

৮ সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা নেই আইসিইউ

৮ সরকারি হাসপাতালে ফাঁকা নেই আইসিইউ

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনা থেকে মুক্তি: আনন্দে কাঁদলেন তিনি

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২৩:০০

ঈদের ঠিক আগের দিন রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত ‘ডিএনসিসি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে’ ভর্তি হয়েছেন ঝিনাইদহের বৃদ্ধা সামছুন্নাহার। হাসপাতালে বেদনার সঙ্গেই কেটেছে ঈদ আনন্দ। মহামারি করোনার সঙ্গে দীর্ঘ ১৩ দিন যুদ্ধ করে রবিবার সুস্থ্য হয়েছেন সত্তোরোর্ধ এই বৃদ্ধি।

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর স্বজনরা তাকে হুইল চেয়ারে করে বের করে গ্রামের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। এসময় এই প্রতিবেদকের সঙ্গে সামান্য সময় কথা হয় তার। কেমন আছেন জনতে চাইলেই কেঁদে ফেলেন তিনি। বলেন, এখন ‍সুস্থ্য আছি। আল্লাহ ভালো করে দিয়েছেন। বাড়ি ফিরেছি। দোয়া করবেন। আর বেশি কথা বলতে পারবো না। এসময় তার চোখ থেকে অঝোরে পানি পড়েছে।

এসময় সামছুন্নাহারের আত্মীয়-স্বজনদের মুখও হাসি-খুশি দেখা গেছে। বাড়ি যাওয়ার তাড়ার কারণে বেশি কিছু না বললেও জানিয়েছেন তারা ‘ভাগ্যবান’। কারণ স্বজনের যে পরিস্থিতি ছিল তাতে তিনি তাদের মাঝে ফিরে নাও আসতে পারতেন। এসময় তাদেরকে বারবার সৃষ্টিকর্তার নাম স্মরণ করতে দেখা গেছে। স্বাস্থ্যবিধির দিকেও ছিল তাদের যথেষ্ট সচেতনতা।

সামছুন্নহারের মতো এমন আরও যারা করোনা থেকে মুক্তি পেয়ে বের হচ্ছেন তারাও সবাই ছিলেন হাসি-খুশি। তবে বেদনার কথা হচ্ছে এই সময়ের মধ্যেই বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স যোগে বেশ কিছু মুমূর্ষ রোগী এসেছে হাসপাতালে। অক্সিজেনের জন্য যারা খুব কষ্ট পাচ্ছেন। ডাক্তার ও নার্স ও হাসপাতালের কর্মীরাও তাদের নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। অ্যাম্বুলেন্সের শব্দই পরিস্থিতি কতটা ‘ভয়াবহ’ তার স্মরণ করিয়ে দেয় উপস্থিত মানুষকে।

হাসপাতালের বাহিরে বিপুল সংখ্যক অ্যাম্ব্যুলেন্স দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। অ্যাম্বুলেন্সের চালকরা জানান, প্রতিদিন ৮-১০ জন করে মারা যাচ্ছে। তাদেরকে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যেতে হয়। তাছাড়া যারা সুস্থ্য হয়ে ছুটি নেন তারাও অ্যাম্বুলেন্স যোগে বাড়ি ফিরেন। কারণ গণপরিবহন বন্ধ থাকায় তাদের জন্য বিকল্প কোনও বাহন নেই।

জানতে চাইলে ডিএনসিসি করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা কোনও রোগীকে অবহেলা করিনা। কোনও রোগী মারা গেলে আমাদের ডাক্তার ও নার্সরাও কষ্ট পায়। আর কোনও রোগী সুস্থ্য হয়ে উঠলে তারাও খুশি হন। অনেক রোগী জড়িয়ে ধরেন। আমরাও চাই সবাই সুস্থ হয়ে উঠুক।

/এফএএন/

সম্পর্কিত

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

মহামারিতে কী করছে ঢাবির সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো?

মহামারিতে কী করছে ঢাবির সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো?

কেন বারবার একই ভুল

কেন বারবার একই ভুল

‘দূরপাল্লার বাসে শ্রমিকরা আসতে চাইলে, সেই বাস পুলিশ ধরবে না’

‘দূরপাল্লার বাসে শ্রমিকরা আসতে চাইলে, সেই বাস পুলিশ ধরবে না’

সর্বশেষ

তালেবান অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগান বাহিনীর বোমাবর্ষণ

তালেবান অগ্রযাত্রা ঠেকাতে আফগান বাহিনীর বোমাবর্ষণ

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

ব্রাজিলের নির্বাচন ব্যবস্থা বদলের দাবি বলসোনারো সমর্থকদের

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

খুলনায় জুনের চেয়ে জুলাইয়ে তিন গুণ বেশি মৃত্যু

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

ট্যাংকারে হামলা নিয়ে ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

পর্নোগ্রাফিতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, স্বামীর কারাদণ্ড

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

সিআরবিতে নলকূপ স্থাপন বন্ধে ওয়াসার এমডির কাছে অভিযোগ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মা-মেয়ে নিহত, গুরুতর আহত ১

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

ফের হামাস প্রধান নির্বাচিত হলেন ইসমাইল হানিয়া

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

‘রাতের রানী পিয়াসা ও মৌয়ের কাজ ছিল ব্ল্যাকমেইল করা’

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

ডিএনসিসি করোনা হাসপাতালের ৫০০ বেডে যুক্ত হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন

সেই পিয়াসা আটক 

সেই পিয়াসা আটক 

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

রবিবার দেওয়া হয়েছে ৩ লাখ টিকা

করোনা থেকে মুক্তি: আনন্দে কাঁদলেন তিনি

করোনা থেকে মুক্তি: আনন্দে কাঁদলেন তিনি

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

করোনা: ৬ মাসেই গত বছরের দ্বিগুণ মৃত্যু

এসএসসির সংশোধিত অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

এসএসসির সংশোধিত অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

গণমাধ্যমকর্মীদের স্বাস্থ্যবিধি কোথায়?

গণমাধ্যমকর্মীদের স্বাস্থ্যবিধি কোথায়?

১৮ বছরের বেশি বয়সী শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দিতে নির্দেশ

১৮ বছরের বেশি বয়সী শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দিতে নির্দেশ

রাজধানীতে অকারণে বাইরে বের হওয়ায় গ্রেফতার ৩০৩

রাজধানীতে অকারণে বাইরে বের হওয়ায় গ্রেফতার ৩০৩

© 2021 Bangla Tribune