X
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

‘নিরাপত্তাজনিত কারণে’ মাতৃদুগ্ধ থেকে বঞ্চিত হলো শিশু

আপডেট : ২৪ এপ্রিল ২০১৬, ১৪:৫৭
image

মাতৃদুগ্ধ মার্কিন নাগরিক জেসিকা কোয়াকলি মার্টিনেজ দুই সন্তানের জননী। ছোট সন্তানের বয়স আট মাস। সন্তানের জন্য অপরিহার্য প্রায় ১৫ লিটার মাতৃদুগ্ধ সঙ্গে নিয়ে লন্ডন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে সন্তানের কাছে যাচ্ছিলেন জেসিকা। কিন্তু বিপত্তি ঘটলো লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে। কর্তৃপক্ষ ওই মাতৃদুগ্ধ নেওয়ার অনুমতি দেবেন না। অপরদিকে, সন্তানের জন্য তা নিয়ে যেতে মরিয়া মা। শেষ পর্যন্ত ‘নিরাপত্তাজনিত কারণ’ দেখিয়ে কর্তৃপক্ষ জেসিকাকে তার সঙ্গে থাকা মাতৃদুগ্ধ নষ্ট করতে বাধ্য করে, যা ছিল তার শিশুর দুই সপ্তাহের আহার।
উল্লেখ্য, উন্নত বিশ্বে কর্মজীবী মায়েরা ব্রেস্ট পাম্পের মাধ্যমে মাতৃদুগ্ধ সংগ্রহ করে একটি বিশেষ মেশিনে সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন। বিশেষত যারা নিজের দুগ্ধপোষ্য শিশুকে কর্মস্থলে নিয়ে যেতে পারেন না তারা এভাবে শিশুকে মাতৃদুগ্ধ পান করিয়ে থাকেন। এছাড়া মাতৃদুগ্ধ সংরক্ষণ কেন্দ্রেও তারা ওই মাতৃদুগ্ধ গুণাগুণের কোনও তারতম্য ছাড়াই বেশ কিছুদিন ধরে সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন।
আরও পড়ুন: মার্কিন জোটের বিমান হামলায় চারমাসে নিহত মাত্র ২০ বেসামরিক ব্যক্তি!
ব্রিটেনের পরিবহন বিভাগের আইন অনুসারে, কোনও যাত্রী তরল বহন করতে চাইলে, তাকে ১০০ মিলি লিটারের স্বচ্ছ বোতলে বহন করতে হবে। তবে সঙ্গে শিশু থাকলে শিশুখাদ্য এবং মাতৃদুগ্ধ পরিবহনের ক্ষেত্রে আইন কিছুটা শিথিল। তবে জেসিকার সঙ্গের ঘটনা নিয়ে কর্তৃপক্ষের যুক্তি, যেহেতু তিনি সন্তানের সঙ্গে ভ্রমণ করছিলেন না, তাই আইনমতে তিনি ওই মাতৃদুগ্ধ সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন না।
আরও পড়ুন: আইএসের কারারক্ষী ছিলেন ব্রাসেলসের হামলাকারী!
সম্প্রতি ইউরোপে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ফলে লন্ডনসহ ইউরোপের বিভিন্নস্থানের বিমানবন্দরে নিরাপত্তাজনিত কারণে মালামাল পরিবহনে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। তবে জেসিকা প্রশ্ন তুলেছেন, নিরাপত্তা কার স্বার্থে?
ঘটনার পর জেসিকা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার অনুভূতি প্রকাশ করেছে। সেখানে তিনি লিখেছেন যে, ওই ঘটনায় তিনি অপমানিত বোধ করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছি, আমার রাগ প্রকাশ করেছি। কারণ একমাত্র এর মাধ্যমেই আমি এ বিষয়টিকে সামনে আনতে পারতাম।’

আরও পড়ুন: আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে রাবি শিক্ষক হত্যাকাণ্ডের খবর

জেসিকা বলেছেন, ‘কর্তৃপক্ষ আইনের কথা বলে নিরাপত্তার দোহাই দিয়েছে। নিরাপত্তা অবশ্যই জরুরি। কিন্তু নিরাপত্তাই একমাত্র লক্ষ্য হওয়া উচিত নয়, আর নিরাপত্তার কথা বলে মানুষজনকে শাস্তি দেওয়াটাও কোনওভাবেই উচিত নয়।’

জেসিকা বলেন, ‘একজন কর্মজীবী মায়ের পক্ষে শিশু সন্তানের জন্য মাতৃদুগ্ধ জমিয়ে রাখাটা খুবই জরুরি। অথচ আমার সন্তানের মুখ থেকে খাবার ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। এতে একজন মা হিসেবে আমি অপমানিত ও পরাস্ত বোধ করছি।’ সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।

/এসএ/বিএ/

সম্পর্কিত

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

ইন্দোনেশিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা অভিযানে নিহত

ইন্দোনেশিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা অভিযানে নিহত

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৪৯

তালেবান আফগানিস্তানে শুধু ছেলে ও পুরুষদের স্কুলে ফিরতে বলেছে এবং মেয়েদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ও মেয়েদের স্কুলে ফেরার প্রতি সমর্থন জানিয়ে অনেক ছেলে স্কুলে ফিরছে না। রবিবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

দশম শ্রেণির ১৮ বছর বয়সের রহুল্লাহ নামের এক ছাত্র বলে, নারীরা আমাদের সমাজের অর্ধেক জনগোষ্ঠী। মেয়েদের জন্য স্কুল খুলে দেওয়ার আগ পর্যন্ত আমি ক্লাসে যাব না।

কাবুলের একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক নাজিফে জানান, পুনরায় স্কুল চালুর জন্য তারা কিছু পরিবর্তন এনেছেন। তিনি বলেন, মেয়েরা সকালে এবং ছেলে দুপুরে ক্লাস করবে। পুরুষ শিক্ষকরা ছেলেদের এবং মেয়েদের পড়াবেন নারী শিক্ষকরা।

শনিবার প্রাথমিক স্কুলের অনেক মেয়ে শিক্ষার্থী স্কুলে গেছে। তবে মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ুয়া মেয়েরা এখনও জানে না তাদের জন্য স্কুল খোলা হবে কিনা।

মেয়েদের মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ানো শিক্ষক হাদিস রিজায়ি বলেন, মেয়েদের মন ভেঙে গেছে এবং পড়াশোনা পুনরায় শুরুর জন্য তারা সরকারের ঘোষণার অপেক্ষায় আছে।

একটি স্কুলের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ রেজা বলেন, মেয়েদের শিক্ষা হলো একটি প্রজন্মকে সঠিক পথে নিয়ে আসা। ছেলেদের শিক্ষা হয়ত পরিবারকে সহযোগিতা করে। কিন্তু মেয়েদের শিক্ষা পুরো সমাজকে প্রভাবিত করে। আমরা বিষয়টি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি যাতে করে মেয়েরা স্কুলে ফিরতে এবং নিজেদের পড়াশোনা সম্পূর্ণ করতে পারে।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, আফগানিস্তানে মেয়েদের শিক্ষা নিয়ে তারা গভীর উদ্বিগ্ন। জাতিসংঘ শিশু তহবিল বা ইউনিসেফ বলেছে, সব বয়সী মেয়েদের জন্য আর দেরি না করে পুনরায় শিক্ষা শুরু করার সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ।

/এএ/

সম্পর্কিত

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুষি মেরেছিলেন হাক্কানি’

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুষি মেরেছিলেন হাক্কানি’

‘শুধু ক্ষমা চাইলেই হবে না, যুক্তরাষ্ট্রকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে’   

‘শুধু ক্ষমা চাইলেই হবে না, যুক্তরাষ্ট্রকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে’   

আফগান মেয়েদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া উচিত না: ইউনিসেফ

আফগান মেয়েদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া উচিত না: ইউনিসেফ

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৭

মুদ্রার এক পিঠে খোদায় করা ব্রিটেনের রানী ভিক্টোরিয়ার ছবি। অন্য পিঠে ইংরেজি অক্ষরে লেখা ‘ওয়ান রুপি ইন্ডিয়া ১৮৮৫’। ভারতের ১৩৬ বছর আগের এমনই এক রুপি বিক্রি হয়েছে ১০ কোটি রুপিতে।

ভারতের অন্যান্য কয়েনের চেয়ে এই এক রুপি আকৃতিতে কিছুটা বড়। মুদ্রাটির বিশেষত্ব হল, এর এক পিঠে খোদাই করা রয়েছে ইংল্যান্ডের রানি ভিক্টোরিয়ার ছবি।

পুরনো কয়েন, নোট বা বিদেশ মুদ্রা জমানোর শখ অনেকেরই। অনলাইনের বিভিন্ন সাইটে পুরনো মুদ্রা কেনা-বেচার সুযোগ থাকে। তেমনই এক ওয়েবসাইটে নিজের সংগ্রহ থেকে ওই কয়েনের ছবিটি পোস্ট করেন এক সংগ্রাহক। ভারতে ব্রিটিশ শাসনকাল ১৮৮৫ সালে মুম্বইয়ের কোনও মিন্টে কয়েনটি বানানো হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগে, গত জুন মাসে ১৯৩৩ সালের যুক্তরাষ্ট্রের একটি কয়েন ১ কোটি ৮৯ লাখ ডলারে বিক্রি হয়েছিল। ভারতীয় মুদ্রায় যা প্রায় ১৩৮ কোটির সমান।

সূত্র: আনন্দবাজার

/এলকে/

সম্পর্কিত

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

মন্ত্রিসভা নিয়ে পদত্যাগ করলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর

অবশেষে তৃণমূলে বিজেপি সরকারের সাবেক মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

অবশেষে তৃণমূলে বিজেপি সরকারের সাবেক মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

ফ্রান্সের ২৪টি পুরাতন বিমান কিনতে যাচ্ছে ভারত

ফ্রান্সের ২৪টি পুরাতন বিমান কিনতে যাচ্ছে ভারত

মোদির জন্মদিনে দুই কোটি টিকা প্রয়োগের রেকর্ড ভারতের

মোদির জন্মদিনে দুই কোটি টিকা প্রয়োগের রেকর্ড ভারতের

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫০

আফগানিস্তানের নতুন সরকার গঠন নিয়ে সম্প্রতি রাজধানী কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে নেতাদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। আলোচনায় তালেবান সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী মোল্লা আব্দুল গণি বারাদারকে ঘুষি মারেন হাক্কানি নেটওয়ার্কের নেতা খলিল-উর-রহমান হাক্কানি। মার্কিন প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ব্লমবার্গের বরাতে খবর প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমস।

সরকার গঠন নিয়ে আলোচনার সময় সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীর প্রতিনিধিসহ ‘অন্তর্ভুক্তিমূলক’ একটি মন্ত্রিসভা গঠনের জন্য জোর দিচ্ছিলেন বারাদার। আলোচনার এক পর্যায়ে আফগান শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী খলিলুর রহমান হাক্কানি চেয়ার থেকে উঠে বারাদারকে ‘ঘুষি’ মারেন।

তালেবানের একটি সূত্র বিবিসি পশতুকে জানিয়েছে যে, মোল্লা বারাদার এবং শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী খলিল উর-রহমানের মধ্যে উত্তেজনাপূর্ণ বাক্য বিনিময় হয়। তখন সেখানে থাকা তাদের অনুসারীরাও পরস্পরের সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। খলিল উর-রহমান হাক্কানি আফগানিস্তানের সশস্ত্র গোষ্ঠী হাক্কানি নেটওয়ার্কের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

তালেবান নেতাদের এই টানাপড়েন পর্দার আড়ালে ঘটছে। তবে এই বিষয়ে জল্পনা দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট প্যালেসে দুই পক্ষের সহিংস সংঘর্ষের পর তার আরও জোরদার হয়। গুজব ছড়ায় বাস্তববাদী অংশের নেতা আবদুল গণি বারাদার নিহত হয়েছেন। পরে আফগানিস্তানের জাতীয় টেলিভিশনে সাক্ষাৎকারে হাজির হয়ে মৃত্যুর খবর উড়িয়ে দেন তিনি।

/এলকে/
টাইমলাইন: আফগানিস্তান সংকট
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:১১
‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১৮

সম্পর্কিত

আফগান মেয়েদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া উচিত না: ইউনিসেফ

আফগান মেয়েদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া উচিত না: ইউনিসেফ

‘সবকিছু অন্ধকার লাগছে’, স্কুলে যেতে না পারা আফগান মেয়ে

‘সবকিছু অন্ধকার লাগছে’, স্কুলে যেতে না পারা আফগান মেয়ে

তালেবান খুঁজে পেলে হত্যা করবে, আতঙ্কে সমকামীরা

তালেবান খুঁজে পেলে হত্যা করবে, আতঙ্কে সমকামীরা

২ হাজার বছর পুরনো ব্যাকট্রিয়ান সোনার খোঁজে তালেবান

২ হাজার বছর পুরনো ব্যাকট্রিয়ান সোনার খোঁজে তালেবান

ইন্দোনেশিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা অভিযানে নিহত

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:১০

জঙ্গি গোষ্ঠী ইস্ট ইন্দোনেশিয়া মুজাহিদিন (এমআইটি)-এর নেতাকে গুলি করে হত্যা করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। তিনি আইএসের সহযোগী ছিলেন। সুলাওয়েসি প্রদেশের সামরিক বাহিনীর প্রধান জানিয়েছেন, শনিবার বিকালে একটি গ্রামে সামরিক বাহিনী ও পুলিশ সদস্যদের যৌথ অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে আলী কালোরা নিহত হন।

নিহত ইস্ট ইন্দোনেশিয়া মুজাহিদিনের- এমআইটি নেতা আলী কালোরা

অভিযানে জাকা রমাদান নামে আরেক জঙ্গি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যাওয়ার ঘটনা নিশ্চিত করেন সুলাওয়েসি’র সামরিক বাহিনীর প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফরিদ মাকরুফ। অভিযানে জঙ্গিদের আস্তানা থেকে বিস্ফোরক, এম-১৬ রাইফেল ও চাপাতি উদ্ধার করা হয়। জঙ্গি তৎপরতায় ব্যবহৃত আরও অনেক আলামত পাওয়া গেছে।

আলী কালোরা জঙ্গি গোষ্ঠী ইস্ট ইন্দোনেশিয়া মুজাহিদিনের (এমআইটি)-এর নেতা ছিলেন। নিরাপত্তা বাহিনীর মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় ছিলেন তিনি। তার সঙ্গে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস-এর নিবিড় যোগাযোগ ছিল বলে দাবি করছে প্রশাসন। এর আগে ইস্ট ইন্দোনেশিয়ার মুজাহিদিন গোষ্টীটি সংখ্যালঘু পুলিশ কর্মকর্তাসহ একাধিক হত্যকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে। 

এদিকে এমআইটির আরও চার সদস্যের খোঁজে অভিযান অব্যাহত রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনী। 

/এলকে/

সম্পর্কিত

যুক্তরাজ্যে এক বাংলাদেশির ছুরিকাঘাতে আরেক বাংলাদেশি নিহত

যুক্তরাজ্যে এক বাংলাদেশির ছুরিকাঘাতে আরেক বাংলাদেশি নিহত

কাবুলে ড্রোন হামলাকে ‘মর্মান্তিক ভুল’ বললো যুক্তরাষ্ট্র

কাবুলে ড্রোন হামলাকে ‘মর্মান্তিক ভুল’ বললো যুক্তরাষ্ট্র

জাকার্তার বায়ু দূষণ রোধে ব্যবস্থা নেননি ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট: আদালত

বায়ু দূষণ মামলায় ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে যুগান্তকারী রায়

কারাগারে অগ্নিকাণ্ডে ইন্দোনেশিয়ায় অন্তত ৪১ জনের মৃত্যু

ইন্দোনেশিয়ার কারাগারে আগুন, অন্তত ৪১ জনের মৃত্যু

১০ হাজার হাইতির অভিবাসীকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১১

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের দক্ষিণাঞ্চলের ডেল রিও সীমান্তে অবস্থান করা হাইতি অভিবাসীদের চরম মানবিক সংকট দেখা দিয়েছে। ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় খোলা আকার নিচে কমপক্ষে ১০ মানুষ যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশের অপেক্ষায় আছেন। কিন্তু তাদের যত দ্রুত সম্ভব হাইতিতে ফেরত পাঠানো হবে জানিয়েছে প্রশাসন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছেন, মানবিক দিক বিবেচনায় কিছু অভিবাসীকে সাময়িক সময়ের জন্য সীমান্ত থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। কারণ স্থানীয় কর্মকর্তারা তাদের জন্য খাবার ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা করতে হিমশিম খাচ্ছেন।

বহু দূর থেকে আগত এসব অভিবাসীদের নিয়ে সমস্যায় যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সরকারের নীতি নির্ধারকরা বলছেন, এদের মধ্যে দুই হাজার লোককে ইমিগ্রেশন সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। তারা যেখান থেকে এসেছেন সেখানেই পাঠানোর বিষয়ে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় রবিবার থেকে তাদের প্রত্যাবাসনের কাজ শুরু হবে।

শনিবার হাইতির প্রধানমন্ত্রী এরিয়েল হেনরি অভিবাসীদের জন্য মানবিক সহায়তা পাঠিয়েছেন। তিনি বলেন, যারা ফিরে আসছে তাদের স্বাগত জানাতে আমরা প্রস্তুত।

অভিবাসীবিষয়ক সংগঠনগুলো জানিয়েছে, লাতিন ও উত্তর আমেরিকার অভিবাসীরা উন্নত জীবনের আশায় প্রায় সময়ই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের চেষ্টা চালান।

/এলকে/

সম্পর্কিত

মহাকাশ ঘুরে পৃথিবীতে ফিরলেন চার পর্যটক

মহাকাশ ঘুরে পৃথিবীতে ফিরলেন চার পর্যটক

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র মিথ্যাচার করেছে:  ফ্রান্স

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র মিথ্যাচার করেছে:  ফ্রান্স

ক্যাপিটল প্রাঙ্গণে ট্রাম্প সমর্থকদের মিছিল

ক্যাপিটল প্রাঙ্গণে ট্রাম্প সমর্থকদের মিছিল

সবচেয়ে সাদা রঙ আবিষ্কার, হবে এসির বিকল্প!

সবচেয়ে সাদা রঙ আবিষ্কার, হবে এসির বিকল্প!

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

এক রুপি বিক্রি হলো ১০ কোটিতে!

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

‘কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্যালেসে বারাদারকে ঘুসি মেরেছিলেন হাক্কানি’

ইন্দোনেশিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা অভিযানে নিহত

ইন্দোনেশিয়ার মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি নেতা অভিযানে নিহত

১০ হাজার হাইতির অভিবাসীকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র

১০ হাজার হাইতির অভিবাসীকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাজ্যে বিরল ‘ম্যাড কাউ’ রোগে গবাদি পশুর মৃত্যু

যুক্তরাজ্যে বিরল ‘ম্যাড কাউ’ রোগে গবাদি পশুর মৃত্যু

ইসরায়েলের জেল থেকে পালানো শেষ দুই ফিলিস্তিনি আটক

ইসরায়েলের জেল থেকে পালানো শেষ দুই ফিলিস্তিনি আটক

মহাকাশ ঘুরে পৃথিবীতে ফিরলেন চার পর্যটক

মহাকাশ ঘুরে পৃথিবীতে ফিরলেন চার পর্যটক

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র মিথ্যাচার করেছে:  ফ্রান্স

অস্ট্রেলিয়া-যুক্তরাষ্ট্র মিথ্যাচার করেছে:  ফ্রান্স

ক্যাপিটল প্রাঙ্গণে ট্রাম্প সমর্থকদের মিছিল

ক্যাপিটল প্রাঙ্গণে ট্রাম্প সমর্থকদের মিছিল

সর্বশেষ

কোনও মামলা নেই আমার ছাত্রদের জন্য এসেছি, আদালতে ডা. জাফরুল্লাহ

কোনও মামলা নেই আমার ছাত্রদের জন্য এসেছি, আদালতে ডা. জাফরুল্লাহ

নির্বাচনে কোনও সহায়তা করতে পারে কিনা জানতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়

নির্বাচনে কোনও সহায়তা করতে পারে কিনা জানতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

মেয়েদের সমর্থনে স্কুলে যাচ্ছে না অনেক আফগান ছেলে

বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক উদ্বাস্তু নীতি সমর্থন করে জাতিসংঘ

বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক উদ্বাস্তু নীতি সমর্থন করে জাতিসংঘ

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ : ছাত্র ও যুব অধিকারের ২০ নেতাকর্মীর জামিন

© 2021 Bangla Tribune