প্রি-পেইড গ্যাস মিটার নিরাপদ: নসরুল হামিদ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:০৮, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:১১, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯

প্রতিমন্ত্রীগ্যাসে প্রি-পেইড মিটার ব্যবহারের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, ‘প্রি-পেইড গ্যাস মিটার  নিরাপদ। প্রি-পেইড মিটারে লিকেজ থাকলে গ্যাস সরবারাহ বন্ধ হয়ে যায়। এতে গ্যাসের সাশ্রয় হয় এবং অযাচিত দুর্ঘটনাও রোধ হয়।’ সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) বিকেলে কারওয়ান বাজারে পেট্রো সেন্টারে আয়োজিত ‘আবাসিক পর্যায়ে খোলা বাজার থেকে প্রি-পেইড মিটার ক্রয় ও স্থাপন নীতিমালা-২০১৯’ শীষর্ক সেমিনারে  তিনি এসব কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘প্রি-পেইড মিটারের মাধ্যমে সঠিক মাপে গ্যাস ব্যবহারের ফলে বিলও তুলনামূলকভাবে কম আসে।’ তিনি আরও বলেন, ‘গ্যাস খাতের আধুনিকায়ন নিয়ে সরকার কাজ করছে।  গ্যাসের অপচয় রোধ করতে হবে। বেসরকারি খাতকে উৎসাহিত করতেই আজকের এ আয়োজন।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রি-পেইড মিটার বসাতে যারা যায়, তারা দেখেছেন, বেশিরভাগ বাসায় রাইজার থেকে চুলা পর্যন্ত লিকেজ। এটি খুবই ভয়ঙ্কর। এ ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে।’  তিনি বলেন, ‘শীতের কারণে অনেক জায়গায় গ্যাসের চাপ কমে যাওয়ার খবর পাচ্ছি। আমরা এসব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি। আমরা  ভালো সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি।’ তিনি বলেন, ‘বিদ্যুতে বিশেষ আইনকে কাজে লাগিয়ে অনেক বেসরকারি কোম্পানিকে কাজ দেওয়া হয়েছে। এতে বেসরকারি খাতে প্রচুর কর্মসংস্থানের তৈরি হয়েছে।’ 

সেমিনারে জানানো হয়, উদ্যোক্তারা মিটার আমদানি করে বা তৈরি করে খোলা বাজারে বিক্রি করতে পারবেন। আগে শুধু বিতরণ কোম্পানিগুলোই গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার বসিয়ে দিতো। ৪৩ লাখ গ্রাহকের মধ্যে মাত্র পৌনে তিন লাখের মতো গ্রাহকের প্রি-পেইড মিটার রয়েছে। সরকার নতুন করে গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেওয়ায় আবাসিকে নতুন প্রি-পেইড মিটার ৪০ লাখের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। এই পরিস্থিতিতে কোনও উদ্যোক্তা গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার তৈরির কারখানা বসাতে রাজি হবেন কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

সেমিনারে জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, ‘আমরা উদ্যোক্তাদের প্রি-পেইড মিটার আমদানি বা তৈরি করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। তারা আমদানি করবেন। দামও  ঠিক করবেন। গ্রাহক বাজার থেকে মিটার কিনে আমাদের ল্যাবে পরীক্ষা করে সংযুক্ত করবেন।’

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের যুগ্মসচিব ড. শাহ মো. সানাউল হক। তিনি গ্যাস মিটার, আমদানি, প্রস্তুত ও বাজারজাতকরণ নিয়ে করণীয় বিষয়ে একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান মো. রুহুল আমীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে  আরও বক্তব্য রাখেন  হাইড্রোকার্বন ইউনিটের মহাপরিচালক এ এস এম মঞ্জুরুল কাদির।

/এসএনএস/এমএনএইচ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ