করোনার ক্ষতি কাটাতে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৭:১৮, মার্চ ২৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৮, মার্চ ২৯, ২০২০

 

প্রজ্ঞা-আত্মা

করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে অ্যান্টি টোব্যাকো মিডিয়া অ্যালায়েন্স (আত্মা)। এছাড়াও আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সুনির্দিষ্ট কর পদ্ধতি প্রবর্তন, সিগারেটে দুটি মূল্যস্তরসহ প্রস্তাবিত কর ও দাম বাড়ানোর মাধ্যমে তামাক পণ্যের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে  তামাকবিরোধী জোটটি।

রবিবার (২৯ মার্চ) তামাক কর ও মূল্যবৃদ্ধির দাবিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এর কাছে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব জমা দিয়েছে অ্যান্টি টোব্যাকো মিডিয়া অ্যালায়েন্স (আত্মা)। তামাকবিরোধী জোটটির পক্ষে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রজ্ঞা’র নির্বাহী পরিচালক এ বি এম জুবায়ের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আত্মা বলেছে, এই প্রস্তাব বাস্তবায়ন করা হলে প্রায় ২০ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক ধূমপায়ী ধূমপান ছেড়ে দিতে উৎসাহিত হবে, দীর্ঘমেয়াদে ৬ লাখ বর্তমান ধূমপায়ীর অকাল মৃত্যু রোধ করা সম্ভব হবে এবং সরকারের প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত রাজস্ব আয় অর্জিত হবে যা সরকার করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় ব্যবহার করতে পারবে।

প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, প্রথমত সিগারেটের বর্তমান চারটি মূল্যস্তরকে দুইটিতে (নিম্ন এবং প্রিমিয়াম) নামিয়ে এনে একত্রিত করে নিম্নস্তরে নিয়ে এসে নিম্নস্তরে ১০ শলাকা সিগারটের খুচরা মূল্য ন্যূনতম ৬৫ টাকা নির্ধারণ করে ৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং ১০ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা।

দ্বিতীয়ত ৯৩+ টাকা ও ১২৩+ টাকা এই দুইটি মূল্যস্তরকে একত্রিত করে প্রিমিয়াম স্তরে নিয়ে আসা। প্রিমিয়াম স্তরে ১০ শলাকা সিগারেটের খুচরা মূল্য ন্যূনতম ১২৫ টাকা নির্ধারণ করে ৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং ১৯ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা।

প্রস্তাবনায় আরও বলা হয়েছে,  বিড়ির ফিল্টার এবং নন-ফিল্টার মূল্য বিভাজন তুলে দেওয়া। ফিল্টারবিহীন ২৫ শলাকা বিড়ির খুচরা মূল্য ৪০ টাকা নির্ধারণ করে ৪৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ও ৬ দশমিক ৮৫ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা, এবং ফিল্টারযুক্ত ২০ শলাকা বিড়ির খুচরা মূল্য ৩২ টাকা নির্ধারণ করে ৪৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক এবং ৫ দশমিক ৪৮ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা।

ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্যের (জর্দা ও গুল) মূল্য বাড়ানো। প্রতি ১০ গ্রাম জর্দার খুচরা মূল্য ৪০ টাকা এবং প্রতি ১০ গ্রাম গুলের খুচরা মূল্য ২৩ টাকা নির্ধারণ করে ৪৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা, এবং প্রতি ১০ গ্রাম জর্দা ও গুলের ওপর যথাক্রমে ৫ দশমিক ৭১ টাকা এবং ৩ দশমিক ৪৫ টাকা সুনির্দিষ্ট সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা। প্রজ্ঞার প্রস্তবনায় সকল তামাকপণ্যের খুচরা মূল্যে ১৫ শতাংশ ভ্যাট বহাল রাখার কথা বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এনবিআর’র সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে এবছর ই- মেইলের মাধ্যমে এই বাজেট প্রস্তাব জমা দেওয়া হয়।

 

/এসআই/টিএন/

লাইভ

টপ