সেকশনস

লিবিয়ায় গুলি করে মার্কিন ড্রোন ভূপাতিত করলো রাশিয়া

আপডেট : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:০০

লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির আকাশ থেকে গত নভেম্বরে নিখোঁজ হওয়া যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোনটি আসলে গুলি করে ভূপাতিত করেছিল রাশিয়া। এমনটাই মনে করে ওয়াশিংটন। এখন মস্কোর কাছে ওই ড্রোনের ধ্বংসাবশেষ ফেরত দেওয়ার দাবি জানিয়েছে মার্কিন বাহিনী। ৭ ডিসেম্বর শনিবার ইউএস আফ্রিকা কমান্ডের পক্ষ থেকে এ দাবি জানানো হয়।
এর আগে গত ২২ নভেম্বর ইউএস আফ্রিকা কমান্ডের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ত্রিপোলির আকাশ থেকে তাদের একটি ড্রোন নিখোঁজ হয়েছে। স্থানীয় নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং উগ্র গোষ্ঠীগুলোর তৎপরতা নজরদারি করতে ড্রোনটি সেখানে পাঠানো হয়েছিল বলে বিবৃতিতে দাবি করা হয়।

ওই বিবৃতিতে ড্রোনটির ভাগ্যে কি ঘটেছে সে সম্পর্কে কোনও উপসংহার না টেনে বলা হয়, এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু হয়েছে।

শনিবার মার্কিন বাহিনীর আফ্রিকা কমান্ডের প্রধান জনোরেল স্টিফেন টাউনসেন্ড বলেন, ত্রিপোলিতে মোতায়েন রুশ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থেকে নিক্ষিপ্ত গুলির আঘাতে ড্রোনটি বিধ্বস্ত হয়েছে। তবে গুলি করার ময় এটি যে মার্কিন ড্রোন দৃশ্যত রুশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তা বুঝতে পারেনি।

জেনারেল টাউনসেন্ড বলেন, ভূপাতিত হওয়ার পর তারা নিশ্চয়ই জেনেছে ড্রোনটি কাদের ছিল। এর ধ্বংসাবশেষ ফেরত দিতে তিনি রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানান। একইসঙ্গে ত্রিপোলিতে চলমান সহিংসতার জন্যও রাশিয়াকে দায়ী করেন তিনি।

জীবনযাপনের মানের দিকে থেকে তেল-সমৃদ্ধ লিবিয়া এক সময় আফ্রিকার শীর্ষে ছিল। স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা ছিল পুরোপুরি রাষ্ট্রের দায়িত্ব। তবে যে রাজনৈতিক এবং সামাজিক স্থিতিশীলতা ওই ঐশ্বর্য নিশ্চিত করেছিল, সেটি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায় ২০১১ সালে যখন পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহীদের হাতে কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতন হয়। তারপর থেকে লিবিয়ায় চলছে সীমাহীন সংঘাত। গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত ও নিহত হওয়ার পর ত্রিপোলিতে জাতিসংঘ সমর্থিত একটি মনোনীত সরকার ক্ষমতায় আসে। ওই কর্তৃপক্ষকে জাতীয় ঐকমত্যের সরকার বা জিএনএ নামে অভিহিত করা হয়। তবে দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর হাতে রয়ে গেছে। পশ্চিমাঞ্চলে জিনএনএ-র কর্তৃত্ব থাকলেও পূর্ব ও দক্ষিণের বেশিরভাগ অঞ্চল হাফতার বাহিনী এলএনএ-র দখলে। গত এপ্রিলে এ বাহিনী লিবিয়ায় আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। হাফতার বাহিনী এখনও ত্রিপোলী দখল করতে না পারলেও দুই পক্ষের মধ্যে মাঝেমধ্যেই ব্যাপক সংঘর্ষের খবর পাওয়া যায়।

প্রায় পাঁচ বছর ধরে লিবিয়ায় দুটি সরকার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এদের মধ্যে ত্রিপোলির আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত জিনএনএ সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে জাতিসংঘ, তুরস্ক, কাতার, ইতালি ও যুক্তরাজ্য। অন্যদিকে ফিল্ড মার্শাল হাফতারের নেতৃত্বাধীন বাহিনীকে সমর্থন দিচ্ছে রাশিয়া, ফ্রান্স, সৌদি আরব, মিসর ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। তবে আন্তর্জাতিক সমর্থনের বিষয়টি স্পষ্ট নয়। যেমন যুক্তরাষ্ট্র আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারকে (জিএনএ) সমর্থন করে এবং শান্তি আলোচনার আহ্বান জানায়। কিন্তু গত এপ্রিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প খলিফা হাফতারকে ফোন দিয়ে লিবিয়ার ব্যাপারে ‘যৌথ স্বপ্নের’ কথা বলেন। সূত্র: রয়টার্স, পার্স টুডে, আল জাজিরা।

/এমপি/

সম্পর্কিত

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

বিক্ষোভে উত্তাল ফ্রান্স

বিক্ষোভে উত্তাল ফ্রান্স

অভিষেকের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অভিবাসন নীতি বদলাবেন বাইডেন

অভিষেকের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অভিবাসন নীতি বদলাবেন বাইডেন

দেশে ফিরেই আটক রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি

দেশে ফিরেই আটক রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৯ কোটি ৫৪ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৯ কোটি ৫৪ লাখ ছাড়িয়েছে

সর্বশেষ

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করছেন না ব্যবসায়ীরা

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করছেন না ব্যবসায়ীরা

জনগণের কাছে না যাওয়ায় বিএনপি আস্থা হারিয়েছে

জনগণের কাছে না যাওয়ায় বিএনপি আস্থা হারিয়েছে

ঘন কুয়াশায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, আহত ২০

ঘন কুয়াশায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, আহত ২০

সাংবাদিক বালু হত্যার বিস্ফোরক অংশে ৫ জনের যাবজ্জীবন

সাংবাদিক বালু হত্যার বিস্ফোরক অংশে ৫ জনের যাবজ্জীবন

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

প্রধানমন্ত্রীর চরিত্রে থাকছেন না হিমি

প্রধানমন্ত্রীর চরিত্রে থাকছেন না হিমি

যে ৫ উপাদান চুল ও ত্বকের যত্নে অনন্য

যে ৫ উপাদান চুল ও ত্বকের যত্নে অনন্য

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

সাপ চাষে বিধিমালা আসছে, করা যাবে বাণিজ্যিক খামার

সাপ চাষে বিধিমালা আসছে, করা যাবে বাণিজ্যিক খামার

ওয়াজ-মাহফিলে গ্রন্থের রেফারেন্স বাধ্যতামূলক চেয়ে আইনি নোটিশ 

ওয়াজ-মাহফিলে গ্রন্থের রেফারেন্স বাধ্যতামূলক চেয়ে আইনি নোটিশ 

শেষ দিন ৯ ওভার ব্যাট করেই ইংল্যান্ডের জয়

শেষ দিন ৯ ওভার ব্যাট করেই ইংল্যান্ডের জয়

ভারত কিছু ভ্যাকসিন উপহার দেবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ভারত কিছু ভ্যাকসিন উপহার দেবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ট্রাম্প সমর্থকদের সশস্ত্র মহড়া

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

নাভালনির মুক্তি দাবি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর

বিক্ষোভে উত্তাল ফ্রান্স

বিক্ষোভে উত্তাল ফ্রান্স

অভিষেকের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অভিবাসন নীতি বদলাবেন বাইডেন

অভিষেকের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অভিবাসন নীতি বদলাবেন বাইডেন

দেশে ফিরেই আটক রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি

দেশে ফিরেই আটক রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.