সেকশনস

আসছে পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের নতুন প্রযুক্তি

আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২০, ১০:৪৩

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র (ফাইল ছবি) প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের ধারণার পরিরবর্তন ঘটছে। বিশ্বে অপেক্ষাকৃত ছোট আকারের এ ধরনের বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ শুরু হলেও দেশে বিষয়টি আলোচনার বাইরে রয়ে গেছে। নতুন এই প্রযুক্তির নাম মল্টেন সল্ট নিউক্লিয়ার রিয়েক্টর। সম্প্রতি ইন্দোনেশিয়াতে কয়লা সমৃদ্ধ ‘মলটেন সল্ট রিয়েক্টর’ বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের চুক্তি হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমাদের এখানেও ছোট আকারের এসব কেন্দ্র নির্মাণের কথা ভাবতে পারে সরকার। এতে বিনিয়োগ ও ঝুঁকি দুটোই নিয়ন্ত্রণে থাকে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এখন নতুন নতুন অনেক রিয়েক্টর আসছে। যেগুলো এখনও গবেষণার পর্যায়ে থাকলেও কোনও কোনোটি এরমধ্যে সফল হয়েছে বলে জানা গেছে। এদের একটি হচ্ছে মলটেন সল্ট রিয়েক্টর। ইন্দোনেশিয়াতে এই রিয়েক্টর দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরুর উদ্যোগের কথা জানা গেছে। আবার জাপান একই রিয়েক্টর চালু করতে ব্যর্থ হয়েছে। তবে রিসার্স রিয়েক্টর এবং পাওয়ার রিয়েক্টরের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। রিসার্স রিয়েক্টর সাধারণত ছোট আকারের হয়। এটা দিয়ে গবেষণার জন্য কম বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়। আর পাওয়ার রিয়েক্টরগুলো অনেক বড় আকারের হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের জিএমই সায়েন্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এধরনের রিয়েক্টরে কঠিন জ্বালানির পরিবর্তে তরল জ্বালানি ব্যবহার করা হয়। মূলত তরল জ্বালানি ব্যবহারকে নিরাপদ বলে দাবি করা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে। রিয়েক্টর বা পারমাণবিক চুল্লিতে তাপ উৎপন্ন হয়। সেই তাপ দিয়ে বাষ্প বা স্টিম তৈরি করা হয়। স্টিমের শক্তি দিয়ে যেভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয় এখানেও একইভাবে তা করা হয়।

জানতে চাইলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে কিছু শুনিনি। অনেক জায়গায় অনেক গবেষণা হয়। সেসব গবেষণা আমরা দেখে কী করবো। আমরা তো আমাদের দেশে তা এক্সপেরিমেন্ট করতে দেবো না। একেবারে পরীক্ষা করা,  জানাশোনা প্রযুক্তি বলেই আমরা রূপপুরের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি করছি। ছোট ছোট রিয়েক্টরের বিষয়ে আমরা চিন্তা করছি না।’

সম্প্রতি ইন্দোনেশিয়ার সরকারি কোম্পানি পিটি পিএএল ইন্দোনেশিয়া সে দেশের নিউক্লিয়ার কোম্পানি থরকন ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে নতুন এই প্রযুক্তির মাধ্যমে ৫০০ মেগাওয়াটের একটি নিউক্লিয়ার রিয়েক্টর স্থাপনের চুক্তি করেছে। নতুন এই প্রযুক্তির নাম মল্টেন সল্ট নিউক্লিয়ার রিয়েক্টর। ইন্দোনেশিয়ায় এটি একটি পানিতে ভাসমান জাহাজের ওপর স্থাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার একটি গণমাধ্যম নেক্সট বিজ ফিউচার তাদের ওই নিউজে এসব তথ্য জানায়। তাতে বলা হয়, এটি কয়লার চেয়ে অনেক বেশি সাশ্রয়ী।

থর ইন্টারন্যাশনাল নামক যুক্তরাষ্ট্রের ওই কোম্পানিটি জানায়, কয়লা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে যেখানে প্রতি কিলোওয়াটের দাম পড়ে ৫ সেন্ট, সেখানে এই রিয়েক্টরে দাম পড়বে ৩ সেন্ট। তারা এই রিয়েক্টর প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি করবে।  এরপর এটি তারা ইন্দোনেশিয়ায় নিয়ে আসবে। ২০২৩-২০২৫ সালের মধ্যে তারা এই রিয়েক্টর থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারবে বলে আশা করছে।

কয়লার চেয়ে সস্তা হওয়া বাংলাদেশ এই ধরনের ছোট ছোট রিয়েক্টর নিয়ে পরিকল্পনা করতে পারে কিনা জানতে চাইলে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ইজাজ হোসেইন জানান, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র অনেক অনেক বড়। সেখানে তাই ঝুঁকিও অনেক বেশি। কেন্দ্রের কিছু হলে ব্যাপক এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই প্রথম থেকে বিশেষজ্ঞরা ছোট ছোট রিয়েক্টর স্থাপনের বিষয়ে আলোচনা করেছিল। সেই সময় ভারতীয় বিশেষজ্ঞদের মতামতও নেওয়া হয়েছিল। তারাও ছোট রিয়েক্টর স্থাপনের কথা আলোচনা করে। কিন্তু সরকার একবারে একটি বড় কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু আমাদের অভিজ্ঞতা কম সেহেতু ছোট কেন্দ্র স্থাপন করে দেখা যেতে পারতো। এমন কী এখনও সেই সুযোগ আছে। চাইলে এখনও সরকার এই রিয়েক্টর স্থাপনের পরিকল্পনা করতে পারে।’

রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, মলটেন সল্ট রিয়েক্টর হচ্ছে এক ধরনের রিয়েক্টর। এখনও গবেষণা পর্যায়ে রয়েছে। অনেক দেশ চেষ্টা করছে। নানা ধরনের রিয়েক্টর তৈরি করতে এটাও সে ধরনের একটি রিয়েক্টর। তবে এটার সঙ্গে বড় পাওয়ার রিয়েক্টরের পার্থক্য রয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এখনও এটি পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আছে। তাই এখনই এটা বাংলাদেশে আনা যাবে কিনা তা বলা সম্ভব নয়। জাপানে এই ধরনের রিয়েক্টর স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি। ইন্দোনেশিয়াও সেই চেষ্টাই হয়তো করছে।’

এদিকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন,  ‘আমাদের তো কোনও অভিজ্ঞতা নেই। একটি কেন্দ্র স্থাপনের কাজ চলছে। এটি শেষ হোক। দেখি আমরা কতদূর যেতে পারি। এছাড়া এসব কেন্দ্র স্থাপনে বিনিয়োগও অনেক বেশি। তাই আমরা ধীরে এগুচ্ছি। দক্ষিণাঞ্চলে আরও একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের জন্য আমরা জরিপ করছি। নতুন কোনও প্রযুক্তি এলে সেটি যদি ঝুঁকি ও বিনিয়োগ কম হয় তাহলে আমরা হয়তো ভবিষ্যতের বিদ্যুৎ উৎপাদনে এই প্রযুক্তির ব্যবহার করবো। তবে প্রথম কেন্দ্রটির কাজের ওপর সবকিছু নির্ভর করছে।’ 

জানা যায়, গত কয়েক বছর আগে বাংলাদেশের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের অধীন আবাসিক এলাকায় এই ধরনের রিয়েক্টর স্থাপনের আগ্রহ দেখিয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছিল। কিন্তু তা অনুমোদন করা হয়নি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ছোট হলেও শহরের মধ্যে এই ধরনের একটি কেন্দ্র খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। তাই অনুমোদন করা হয়নি।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ মাহবুবুর রহমান বলেন, এই ধরনের ছোট রিয়েক্টর বসানো গেলে খরচ এবং ঝুঁকি দুই-ই কমবে। তবে যেহেতু এখনও এটি পরীক্ষামূলক। তাই সবদিক বিবেচনা করেই আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

/এসটি/এমএমজে/

সম্পর্কিত

‘ই-নামজারি ও মিসকেস মামলার শুনানি হবে ভিডিও কনফারেন্সে’

‘ই-নামজারি ও মিসকেস মামলার শুনানি হবে ভিডিও কনফারেন্সে’

প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি, এশিয়ানের শিক্ষার্থী বহিষ্কার

প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি, এশিয়ানের শিক্ষার্থী বহিষ্কার

বন্ধুদের নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

বন্ধুদের নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফ্রান্সে গিয়ে জড়ালো জঙ্গিবাদে!

বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফ্রান্সে গিয়ে জড়ালো জঙ্গিবাদে!

নাসিরনগরে ধর্ষণ ঘটনার প্রতিবেদনে গরমিল, ১৩ জনকে তলব

নাসিরনগরে ধর্ষণ ঘটনার প্রতিবেদনে গরমিল, ১৩ জনকে তলব

চতুর্থ ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী ৩২৯০

চতুর্থ ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী ৩২৯০

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

‘আন্তর্জাতিক বাজারে অদক্ষ কর্মীর চাহিদা কমে আসছে’

‘আন্তর্জাতিক বাজারে অদক্ষ কর্মীর চাহিদা কমে আসছে’

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনসহ অন্য দেশগুলোর আরও সম্পৃক্ততা চায় বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনসহ অন্য দেশগুলোর আরও সম্পৃক্ততা চায় বাংলাদেশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা শুরু

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা শুরু

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

সর্বশেষ

নীলফামারীজুড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

নীলফামারীজুড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

বাউফলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

বাউফলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

আগুন তাপাতে গিয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারী দগ্ধ

আগুন তাপাতে গিয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারী দগ্ধ

উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

বৃহত্তর চান্দগাঁও-মোহরাকে আধুনিক উপশহর করার প্রতিশ্রুতি ডা. শাহাদাতের

বৃহত্তর চান্দগাঁও-মোহরাকে আধুনিক উপশহর করার প্রতিশ্রুতি ডা. শাহাদাতের

হকারদের সুস্পষ্ট নীতিমালা করে পুনর্বাসন করা হবে: রেজাউল করিম চৌধুরী

হকারদের সুস্পষ্ট নীতিমালা করে পুনর্বাসন করা হবে: রেজাউল করিম চৌধুরী

কাউকেই নির্বাচনি সহিংসতা ঘটাতে দেওয়া হবে না: সিএমপি কমিশনার

কাউকেই নির্বাচনি সহিংসতা ঘটাতে দেওয়া হবে না: সিএমপি কমিশনার

নীলফামারীতে পৃথকভাবে ৩৫০ জনের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

নীলফামারীতে পৃথকভাবে ৩৫০ জনের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

জোহরা আলাউদ্দিন এমপি করোনায় আক্রান্ত

জোহরা আলাউদ্দিন এমপি করোনায় আক্রান্ত

ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার, কারবারি গ্রেফতার

ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার, কারবারি গ্রেফতার

কলাবাগানে কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সহপাঠীদের দেয়াল লিখন

কলাবাগানে কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সহপাঠীদের দেয়াল লিখন

বাস-ট্রাক মুখোমুখি, চালক নিহত

বাস-ট্রাক মুখোমুখি, চালক নিহত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

আর্জেন্টিনার সয়াবিন যাবে চীনে, বিপাকে বাংলাদেশ

আর্জেন্টিনার সয়াবিন যাবে চীনে, বিপাকে বাংলাদেশ

গ্রীষ্মে ফের লো ভোল্টেজে পড়বে উত্তরাঞ্চল

গ্রীষ্মে ফের লো ভোল্টেজে পড়বে উত্তরাঞ্চল

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

ব্যয় বাড়লেও মানুষ সঞ্চয় করছে বেশি

ব্যয় বাড়লেও মানুষ সঞ্চয় করছে বেশি

সর্বোচ্চ রফতানিকারকের পুরস্কার পেলো বেক্সিমকো

সর্বোচ্চ রফতানিকারকের পুরস্কার পেলো বেক্সিমকো


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.