সেকশনস

যাবজ্জীবন মানেই ৩০ বছরের কারাদণ্ড, ক্ষেত্রবিশেষে আমৃত্যু কারাবাস

আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:৫৭

হাইকোর্ট



আদালতের রায়ে আমৃত্যু উল্লেখ না থাকলে যাবজ্জীবন সাজা মানে ৩০ বছরের কারাবাস হবে বলে রায় ঘোষণা করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। রায়ে আদালত বলেন, প্রাথমিকভাবে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বলতে বুঝায়, দণ্ডিত ব্যক্তির স্বাভাবিক মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত পুরো সময় কারাবাস। যদি দণ্ডবিধির ৪৫ ও ৫৩ ধারার সঙ্গে ৫৫ ও ৫৭ ধারা এবং ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৫-এ একসঙ্গে পড়া হলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বলতে ৩০ বছর কারাদণ্ড বোঝায়। তবে যদি কোনও আদালত, ট্রাইব্যুনাল এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আমৃত্যু কারাদণ্ড দেন তাহলে ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৫-এ এর বিধানটি (৩০ বছরের কারাদণ্ড) এ ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না।

এ সংক্রান্ত আপিলের রায়ের বিরুদ্ধে করা রিভিউয়ের শুনানি শেষে মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে সাত বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও শিশির মুহাম্মদ মনির। রাষ্ট্রপক্ষের শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

পরে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘রায়ে আপিল বিভাগ বলেছে, যাবজ্জীবন বলতে একজন মানুষের স্বাভাবিক জীবন যতদিন ততদিন কারাদণ্ড হবে। কিন্তু আইনের বিধান অনুযায়ী একজন যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত আসামিকে কমপক্ষে ৩০ বছরের সাজা ভোগ করতে হবে। সেক্ষেত্রে আসামি আইনের অন্যান্য রেয়াত পাবে, যদি না আদালত বিশেষভাবে আদেশ দেন যে তাকে আমৃত্যু জেলে থাকতে হবে।’

এর আগে গত ২৪ এপ্রিল সাভারের এক হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের ৯২ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়ে ‘যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস’ বলে মন্তব্য করেন আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ মন্তব্য করেন। এরপর ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর ওই রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদন করা হয়।

মামলার বিবরণী থেকে জানা যায়, ২০০১ সালের ১৬ ডিসেম্বর জামান ইয়াসিনকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ওই হত্যার ঘটনায় জামানের বাবা সিরাজুল ইসলাম সাভার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। ২০০৩ সালের ১৫ অক্টোবর ঢাকার একটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ওই মামলার তিন আসামিকে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করেন।

ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন আসামি আতাউর ও আনোয়ার। পলাতক থাকায় আপিল করার সুযোগ পাননি কামরুল। একই সঙ্গে মামলাটি ডেথ রেফারেন্স আকারে হাইকোর্টে আসে। ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি শেষে ২০০৭ সালের ৩০ অক্টোবর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ আপিল খারিজ করে দিয়ে তিন আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন।

হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন আতাউর ও আনোয়ার। আপিলে ফাঁসির দণ্ড মওকুফ চাওয়া হয়। সোমবার শুনানি শেষে আসামিদের আবেদন খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে মৃত্যুদণ্ডের পরিবর্তে যাবজ্জীবন সাজা দেন।

/বিআই/এসটি/এমএমজে/

সম্পর্কিত

‘মিয়ানমার তোষণ নীতির কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ব্যাহত হচ্ছে’

‘মিয়ানমার তোষণ নীতির কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ব্যাহত হচ্ছে’

আবরার হত্যা মামলা: দ্বিতীয় তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ

আবরার হত্যা মামলা: দ্বিতীয় তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ

সিরিয়া ফেরত জঙ্গি রিমান্ডে

সিরিয়া ফেরত জঙ্গি রিমান্ডে

নিষিদ্ধ ঘোষিত চার জঙ্গি তিন দিনের রিমান্ডে

নিষিদ্ধ ঘোষিত চার জঙ্গি তিন দিনের রিমান্ডে

ফরিদপুর মেডিক্যালে যন্ত্রপাতি ‘নষ্ট করার প্রবণতা’ পেয়েছে সংসদীয় কমিটি

ফরিদপুর মেডিক্যালে যন্ত্রপাতি ‘নষ্ট করার প্রবণতা’ পেয়েছে সংসদীয় কমিটি

ডাকাতির পর হত্যা, ২ আসামির দোষ স্বীকার

ডাকাতির পর হত্যা, ২ আসামির দোষ স্বীকার

যুবকের পা ভেঙে দু’চোখ নষ্ট করে দেওয়ার অভিযোগ

যুবকের পা ভেঙে দু’চোখ নষ্ট করে দেওয়ার অভিযোগ

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন কুষ্টিয়ার এসপি

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন কুষ্টিয়ার এসপি

একমুখী শিক্ষার পথ তৈরি করছি: শিক্ষামন্ত্রী

একমুখী শিক্ষার পথ তৈরি করছি: শিক্ষামন্ত্রী

মেয়র আতিকসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা

মেয়র আতিকসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা

কারাগারে নারীসঙ্গ: এবার জেল সুপার ও জেলারকে প্রত্যাহার

কারাগারে নারীসঙ্গ: এবার জেল সুপার ও জেলারকে প্রত্যাহার

সর্বশেষ

ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের হুঁশিয়ারি ইতালির

ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের হুঁশিয়ারি ইতালির

মানসিক চাপ বাড়িয়ে দেয় যেসব খাবার

মানসিক চাপ বাড়িয়ে দেয় যেসব খাবার

শিক্ষকরা দেশের আলোকিত মানবসম্পদ উৎপাদনের কারিগর: চবি উপাচার্য

শিক্ষকরা দেশের আলোকিত মানবসম্পদ উৎপাদনের কারিগর: চবি উপাচার্য

খুবি শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে ইবিতে মানববন্ধন

খুবি শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে ইবিতে মানববন্ধন

৬০০ পর্বে ‘চাপাবাজ’

৬০০ পর্বে ‘চাপাবাজ’

অনশনরত শিক্ষার্থীদের ক্ষমা চেয়ে আবেদনের আহ্বান কেসিসি মেয়রের

অনশনরত শিক্ষার্থীদের ক্ষমা চেয়ে আবেদনের আহ্বান কেসিসি মেয়রের

বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেলো স্কুলছাত্রী

বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেলো স্কুলছাত্রী

রায়পুরায় আড়িয়াল খাঁ নদে সেতু নির্মাণের দাবি

রায়পুরায় আড়িয়াল খাঁ নদে সেতু নির্মাণের দাবি

খুবিতে অনশনরত দ্বিতীয় শিক্ষার্থীও হাসপাতালে

খুবিতে অনশনরত দ্বিতীয় শিক্ষার্থীও হাসপাতালে

বাপা’র সভাপতি মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল

বাপা’র সভাপতি মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল

একাদশে আসছে পরিবর্তন, কারা খেলছেন?

একাদশে আসছে পরিবর্তন, কারা খেলছেন?

‘করপোরেট গভর্ন্যান্স এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড’ পেলো গ্রামীণফোন

‘করপোরেট গভর্ন্যান্স এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড’ পেলো গ্রামীণফোন

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আবরার হত্যা মামলা: দ্বিতীয় তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ

আবরার হত্যা মামলা: দ্বিতীয় তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ

সিরিয়া ফেরত জঙ্গি রিমান্ডে

সিরিয়া ফেরত জঙ্গি রিমান্ডে

নিষিদ্ধ ঘোষিত চার জঙ্গি তিন দিনের রিমান্ডে

নিষিদ্ধ ঘোষিত চার জঙ্গি তিন দিনের রিমান্ডে

ডাকাতির পর হত্যা, ২ আসামির দোষ স্বীকার

ডাকাতির পর হত্যা, ২ আসামির দোষ স্বীকার

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন কুষ্টিয়ার এসপি

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন কুষ্টিয়ার এসপি

মেয়র আতিকসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা

মেয়র আতিকসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা

কামরাঙ্গীরচরে নারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কামরাঙ্গীরচরে নারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

পিকে হালদারের আরও দুই সহযোগী গ্রেফতার

পিকে হালদারের আরও দুই সহযোগী গ্রেফতার

নথি ‘জালিয়াতি’ করে জামিন চেয়েছিলেন পাপুলের স্ত্রী-কন্যা

নথি ‘জালিয়াতি’ করে জামিন চেয়েছিলেন পাপুলের স্ত্রী-কন্যা

লালমনিরহাটে পুড়িয়ে হত্যা: ৪ আসামির জামিন আবেদন খারিজ

লালমনিরহাটে পুড়িয়ে হত্যা: ৪ আসামির জামিন আবেদন খারিজ


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.