সেকশনস

আজ ঠাকুরগাঁও মুক্তদিবস

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:১৭

ঠাকুরগাঁওয়ে নির্মিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্মারক

আজ ৩ ডিসেম্বর। ৪৮তম ঠাকুরগাঁও মুক্তদিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয় এ জেলা। ৯ মাস মরণপণ যুদ্ধ শেষে  বীরের বেশে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রবেশ করে জনমানবহীন শহরে নতুন করে প্রাণ সঞ্চারণ করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধারা । লক্ষ লক্ষ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত সংবর্ধনা আর জয় বাংলার ধ্বনি শুনে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েছিলেন তারা । উড়িয়েছিলেন স্বাধীন বাংলার পতাকা এই জেলার মাটিতে।

১৯৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কাল রাতে পাকসেনারা ঝাঁপিয়ে পড়ে নিরীহ বাংলাদেশি মানুষের ওপর। তাদের প্রতিরোধ করতে সারাদেশের মতো ঠাকুরগাঁওবাসীও গড়ে তুলেছিল দুর্বার আন্দোলন। মুক্তিকামী মানুষ তাই মুক্তির স্বাদ নিতে অংশ নিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধে।

প্রায় ৮ মাস যুদ্ধের পর ৩০ নভেম্বর পঞ্চগড় হাতছাড়া হওয়ার পর ঠাকুরগাঁওয়ে ঘাঁটি স্থাপন করে পাকবাহিনী। ২ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বালিয়ার ভুল্লী ব্রিজ উড়িয়ে দেন।  ২ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনে পিছু হটতে বাধ্য হয় পাকবাহিনী। ৩ ডিসেম্বর বিজয়ের বেশে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রবেশ করে মুক্তিযোদ্ধারা। ২৬ মার্চ আমরা পিছু হটলেও পরবর্তীতে আমরা বেশি শক্তি নিয়ে সম্মুখ যুদ্ধ করে বহু পাক সেনাকে খতম করি ।

এ ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বদরুদ্দোজা বদর বলেন, যুদ্ধে পাকসেনারা পিছু হটতে শুরু করে। ঠাকুরগাঁওয়ের অদূরে ভূল্লি ব্রিজ আমরা বোমা মেরে উড়িয়ে দিলে পাকসেনারা সৈয়দপুরে পালিয়ে যায় । আমরা বীরের বেশে প্রবেশ করি ঠাকুরগাঁও শহরে।

ঠাকুরগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম প্রধান সংগঠক প্রবীণ রাজনীতিবিদ মো. আকবর হোসেন বলেন, ‘ভারতীয় মিত্রবাহিনীর কমান্ডার এলাহাবাদী ডিসেম্বরের ১ তারিখে আমাদের বললেন, আগামী পরশু আমরা ঠাকুরগাঁওয়ে যেতে পারবো বলে আশা করছি।’ তিনি জানান, ‘পরবর্তীতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা জেনারেল জ্যাকব এর বইয়েও এই তথ্যের উল্লেখ পাওয়া যায়।’

পাকিস্তান হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা এই বধ্যভূমিতে হত্যা করে অসংখ্য নিরীহ বাঙালিকে।

উদীচী জেলা সংসদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও প্রশাসন দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করে থাকে। নতুন প্রজন্ম এভাবে নিজ জেলা মুক্ত হওয়ার ইতিহাস জানতে পেরে দেশপ্রেমে জাগ্রত হয়। এ বছর জেলা আওয়ামী লীগও জেলা প্রশাসনের সাথে যৌথভাবে দিবসটি পালনে কর্মসূচি দিয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের দার্শনিক ভিত্তি সম্পর্কে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মাহবুবুর রহমান বাবলু বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা কখনও এটা ভেবে জীবন উৎসর্গ করেননি যে একদিন তাঁরা ভাতা পাবেন, বিশেষ সম্মান পাবেন। তাঁরা দেশমাতা ও জনগণের সামগ্রিক মুক্তির জন্যই জীবনবাজি রেখে লড়াই করে গেছেন। তাই এদেশে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে একটি পৃথক দিবস ও প্রত্যেক জেলায় পৃথক গোরস্থানের দাবি জানান তিনি যাতে কোনও যুদ্ধাপরাধীর পাশে কোনও মুক্তিযোদ্ধার কবর না হয়।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বিজয় দিবসের পাশাপাশি ৩ ডিসেম্বর গর্বের সঙ্গে স্মরণ করুক এই জেলার মানুষ আর তা ছড়িয়ে পড়ুক প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে এই প্রত্যাশা সকলের।

 

/টিএন/

সম্পর্কিত

দিনাজপুরের ৩ পৌরসভার ২৮ কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

দিনাজপুরের ৩ পৌরসভার ২৮ কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

পেছনের দরজা দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন বেরোবি ভিসি!

পেছনের দরজা দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন বেরোবি ভিসি!

তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

ফের লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

ফের লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

চাহিদা নেই, হিলি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ

চাহিদা নেই, হিলি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ

অ্যাম্বুলেন্স চালক যখন চোর চক্রের হোতা

অ্যাম্বুলেন্স চালক যখন চোর চক্রের হোতা

গাইবান্ধায় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

গাইবান্ধায় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

সৈয়দপুরে মেয়র প্রার্থী আমজাদের মৃত্যু, নির্বাচন স্থগিত

সৈয়দপুরে মেয়র প্রার্থী আমজাদের মৃত্যু, নির্বাচন স্থগিত

কুড়িগ্রামে বাড়ছে শীত, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭.৬

কুড়িগ্রামে বাড়ছে শীত, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭.৬

একদিন কারাগারে থেকে জামিন পেলেন বড়পুকুরিয়ার ২২ কর্মকর্তা

একদিন কারাগারে থেকে জামিন পেলেন বড়পুকুরিয়ার ২২ কর্মকর্তা

মায়ের অপরাধে এগারো মাসের শিশুও জেলহাজতে!

মায়ের অপরাধে এগারো মাসের শিশুও জেলহাজতে!

সর্বশেষ

নাটোরে ৩ পৌরসভায় নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পন্ন

নাটোরে ৩ পৌরসভায় নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পন্ন

শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রুপের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগে আটক ৬

শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রুপের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগে আটক ৬

মসজিদের কমিটি গঠন নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১

মসজিদের কমিটি গঠন নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১

রাত পোহালেই দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভায় ভোট

রাত পোহালেই দ্বিতীয় ধাপে ৬০ পৌরসভায় ভোট

অর্ধকোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছে সঞ্চয় সমিতির পরিচালক

অর্ধকোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছে সঞ্চয় সমিতির পরিচালক

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

এসএসসি ২০০৬ ও এইচএসসি ২০০৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত 

এসএসসি ২০০৬ ও এইচএসসি ২০০৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত 

ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২

ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪২

আপাতত হচ্ছে না বার্সার সভাপতি নির্বাচন

আপাতত হচ্ছে না বার্সার সভাপতি নির্বাচন

শিশু তহবিল জালিয়াতি, নেদারল্যান্ড সরকারের পদত্যাগ

শিশু তহবিল জালিয়াতি, নেদারল্যান্ড সরকারের পদত্যাগ

রাজধানীতে র‌্যাবের অভিযানে ১৯ জুয়াড়ি গ্রেফতার

রাজধানীতে র‌্যাবের অভিযানে ১৯ জুয়াড়ি গ্রেফতার

নেতাকর্মীদের দেখতে গিয়ে বিএনপি নেতা কারাগারে

নেতাকর্মীদের দেখতে গিয়ে বিএনপি নেতা কারাগারে

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দিনাজপুরের ৩ পৌরসভার ২৮ কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

দিনাজপুরের ৩ পৌরসভার ২৮ কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ

পেছনের দরজা দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন বেরোবি ভিসি!

পেছনের দরজা দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন বেরোবি ভিসি!

তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

ফের লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

ফের লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

চাহিদা নেই, হিলি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ

চাহিদা নেই, হিলি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ

অ্যাম্বুলেন্স চালক যখন চোর চক্রের হোতা

অ্যাম্বুলেন্স চালক যখন চোর চক্রের হোতা

গাইবান্ধায় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

গাইবান্ধায় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

সৈয়দপুরে মেয়র প্রার্থী আমজাদের মৃত্যু, নির্বাচন স্থগিত

সৈয়দপুরে মেয়র প্রার্থী আমজাদের মৃত্যু, নির্বাচন স্থগিত

কুড়িগ্রামে বাড়ছে শীত, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭.৬

কুড়িগ্রামে বাড়ছে শীত, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭.৬


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.