X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

চাপ নয়, শিক্ষা হোক আনন্দের

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৩৬

প্রভাষ আমিন আমার প্রথম স্কুল চাঁদগাও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি আমাদের বাড়ির লাগোয়া। লাগোয়া মানে কখনও কখনও আমাদের বাগান ছিল স্কুলের শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ। আবার স্কুলের সামনের মাঠটিও ছিল আমাদের সারাবছরের খেলার মাঠ। এখন তো প্লে, কেজি ইত্যাদি করে ক্লাস ওয়ানে উঠতে তিন বছর লেগে যায়। আমাদের সময় বয়স পাঁচ হলে সরাসরি ক্লাস ওয়ান। বাড়ির লাগোয়া বলে স্কুলকে ঠিক স্কুল মনে হতো না। তো ক্লাস ওয়ানে থাকতেই একবার স্কুলে গিয়ে কিছুক্ষণ পর ফিরে এলাম। আম্মা জানতে চাইলেন, ফিরে এলাম কেন? আমি বললাম, স্কুলে জায়গা নেই। আম্মা কিছু বললেন না, খালি খাটের সঙ্গে বেধে আমাকে দিলেন বেদম পিটুনি। তারপর থেকে আর কখনও স্কুলে জায়গার অভাব হয়নি। হাইস্কুলে উঠে একবার রাষ্ট্রপতি প্রার্থী জেনারেল ওসমানীকে দেখতে স্কুল ফাঁকি দিয়েছিলাম। এছাড়া বরাবরই স্কুল ছিল আমাদের আনন্দের উৎস। 

আমার প্রাইমারি স্কুল দুটি। বাবার চাকরির সুবাদে চট্টগ্রামের মুরাদপুর এলাকার মোহাম্মদিয়া প্রাইমারি স্কুলেও কিছুদিন পড়েছি। প্রথম স্কুল বাড়ির লাগোয়া হলেও হাইস্কুল ছিল বেশ দূরে। গৌরিপুর সুবল আফতাব উচ্চ বিদ্যালয়ে যেতে আমাদের বাসে প্রথমে গৌরিপুর যেতে হতো। পরে রিকশা বা হেঁটে যেতে হতো স্কুলে। প্রাইমারি স্কুলের মতো আমার হাইস্কুলও দুইটা। মামার শিক্ষকতার আমি এসএসসি পাস করেছি চৌদ্দগ্রামের মুন্সীরহাট হাইস্কুল থেকে, যেটি বাড়ি থেকে প্রায় ১০০ মাইল দূরে। আমি খুবই সৌভাগ্যবান, আমার দুটি হাইস্কুলের ক্যাম্পাসই ছিল বড়, খোলামেলা, একাধিক বড় মাঠ ছিল। কারণে-অকারণে শিক্ষকদের মার খেয়েছি প্রচুর। তবে বন্ধুদের সাথে আড্ডা, খেলাধুলা, বিতর্ক, মারামারি, খুনসুটি- সব মিলে স্কুল ছিল মজার জায়গা।

শিশুদের সেই আনন্দের জায়গাটাই আমরা কেড়ে নিতে চেয়েছিলাম। ঢাকার ফ্ল্যাট বাড়ির স্কুলগুলো শিশুদের আনন্দের জায়গা হতে পারেনি। কারও কারও জন্য স্কুল মানেই যেন জেলখানা। আগের মতো এখন আর শিক্ষকদের পিটুনির ভয় নেই বটে, তবে স্কুল মানেই পড়াশোনার অনন্ত চাপ; ক্লাস, কোচিং, পরীক্ষা; দম ফেলার ফুরসত নেই কারও। দেড়বছর পর স্কুলে যেতে পেরে সবাই এখন উৎফুল্ল। কিন্তু পরীক্ষার চাপ এলেই সেই উচ্ছ্বাসটা হারিয়ে যেতে পারে। শহরের একটা ছেলের রুটিন দেখলে আমার কান্না পায়। ভোরে ঘুম থেকে উঠে যুদ্ধ শুরু। ঘুম চোখেই নাস্তা সারতে হয়; তাও নিজের পছন্দে নয়, মায়ের পছন্দে। তারপর ব্যাগ নিয়ে দৌড়। সেই ব্যাগেও থাকে নিজের নয়, মায়ের পছন্দের টিফিন। স্কুল ছুটি হয় দুপুর ২ টায়। দৌড়ে বাসায় এসে গোসল-খাওয়া শেষ করতে করতে কোচিংয়ের সময় হয়ে যায়। ৩টা থেকে ৬টা কোচিং খোয়াড়ে বন্দী। সেখান থেকে বাসায় ফিরে স্বাভাবিক হতে হতে দিনের ১২ ঘণ্টা শেষ। তারপর হোমওয়ার্ক। হোমওয়ার্ক করতে করতে একেটা শিশু ক্লান্তিতে ঢলে পড়ে। 

ছুটির দিনেও মাফ নেই। শুক্রবার সকালে কোচিং, যেদিন কোচিং থাকে না, সেদিনও বাসায় টিচার আসে। তাদের রুটিনে খেলা নেই, গান নেই, আউট বই পড়ার সুযোগ নেই। শুধু ছুটে চলা। কিসের পেছনে? আমি নিশ্চিত নই। পড়াশোনা? আসলে কি পড়াশোনা; নাকি নিছক রোল নম্বর আর সার্টিফিকেট? আসলে কোনটা সাফল্য, কোনটা ব্যর্থতা, আমি নিশ্চিত নই। তাহলে আমরা কিসের পেছনে ছুটছি, সন্তানদের ঠেলে দিচ্ছি কিসের রেসে। সাফল্য মানে আসলে কী?  আমরাই তো সন্তানদের শৈশব থেকে আনন্দ কেড়ে নিয়ে সেখানে ভর্তি করে দিচ্ছি অনন্ত চাপ। সাফল্য চাই, আরো সাফল্য। বোঝো আর না বোঝো সব মুখস্ত করতে হবে। তারপর পরীক্ষার খাতায় সব উগড়ে দিতে হবে। অমুক কেন তোমার চেয়ে ভালো, তমুক কেন নম্বর বেশি পেলো। 

যে হতে পারতো গানের পাখি, আমরা তাকেই বানাতে চাই তোতা পাখি। হাজার হাজার তোতা পাখি কিচির মিচির করছে আমাদের চারপাশে। আমরা বলি, শুধু পড়ো আর পড়ো। আমরা জানতে চাই না বা জানাতেও চাই না, আমাদের সন্তান গান শুনতে চায় কিনা, ফুল ভালোবাসে কিনা, প্রকৃতি তাকে টানে কিনা, শীতের সকালে শিশিরে পা ভেজাতে চায় কিনা, বৃষ্টিতে ভিজতে তার কেমন লাগে, গাছপালা-নদীনালার সৌন্দর্য্য আবিষ্কারের আনন্দ সে পেতে চায় কিনা। পরীক্ষায় ভালো করতে হবে; গোল্ডেন জিপিএ ৫ না পাওয়া বিরাট ব্যর্থতা। সুমনের গানের মতো ‘একটু পড়া, অনেক খেলা/গল্প শোনার সন্ধ্যাবেলা’ আর কারও জীবনে আসে না।

নীতি-নির্ধারকদের ধন্যবাদ। তারা শিশুদের এই পরীক্ষার চাপ থেকে মুক্তি দিতে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। কথায় কথায় আমরা বৈপ্লবিক পরিবর্তন বলি বটে, কিন্তু শিক্ষা ব্যবস্থার এই পরিবর্তন সত্যিই বৈপ্লবিক। ২০২৩ সাল থেকে ধাপে ধাপে নতুন ব্যবস্থা কার্যকর হওয়ার কথা। এতদিন একটি শিশু বোঝার আগেই তার ওপর চেপে বসতো পরীক্ষার চাপ। নতুন পরিকল্পনায় তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত কোনও পরীক্ষাই থাকছে না। আর দশম শ্রেণির আগে কোনও পাবলিক পরীক্ষা হবে না। এতদিন পঞ্চম শ্রেণিতে পিইসি আর অষ্টম শ্রেণিতে জেএসসি নামে দুটি চাপের পাহাড় ছিল শিশুদের কাঁধে। সেই পাহাড় দুটি সরিয়ে দিলে তারা একটু মাথা উঁচু করে, মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবে। আর দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা হবে অভিন্ন বিষয়ে। সায়েন্স, আর্টস, কমার্সের বিভাজনটা শুরু হবে একাদশ শ্রেণি থেকে। একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির দুটি পরীক্ষার ভিত্তিতে দেওয়া হবে এইচএসসির ফল। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা না থাকলেও শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ধারাবাহিক মূল্যায়নের ভিত্তিতে। চতুর্থ শ্রেণির পর প্রথম পরীক্ষা শুরু হলে গুরুত্ব বেশি থাকবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপরই। সব মিলিয়ে পরীক্ষায় যেনতেনভাবে ভালো করার চাপের বদলে নিয়মিত ক্লাসরুমের পারফরম্যান্স গুরুত্ব পাবে বেশি। শিক্ষার্থীরা আনন্দের সঙ্গে নিজেদের মতো পড়াশোনা করবে। শিক্ষকরা তাদের মূল্যায়ন করবেন।

নতুন পরিকল্পনা অবশ্যই উচ্চাভিলাসী। তবে শিশুদের স্বার্থে এই পরিকল্পনার সুষ্ঠু বাস্তবায়ন জরুরি। তবে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জও আছে। যেহেতু শিক্ষকদের মূল্যায়নের গুরুত্বটাই সবচেয়ে বেশি। তাই তাদের যোগ্যতা, দক্ষতা বাড়ানোটা জরুরি। তারচেয়ে বেশি জরুরি শিক্ষকদের নৈতিক মান বাড়ানো। শিক্ষকদের ধারাবাহিক মূল্যায়নই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে, এটা শোনার পর আমি রীতিমত আতঙ্কিত হয়েছি। শিক্ষকদের কাছে প্রাইভেট না পড়লে ক্লাস পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি বা ফেল করিয়ে দেওয়ার উদাহরণ ভুরি ভুরি। এই বিষয়টার প্রতি খেয়াল রাখতে হবে সবচেয়ে বেশি। প্রশিক্ষণ দিয়ে শিক্ষকদের যোগ্যতা, দক্ষতা হয়তো একটা পর্যায় পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। কিন্তু শিক্ষকদের নৈতিকতার মানদণ্ড রক্ষা করাটাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। শিক্ষার্থীরা স্কুলে শুধু পাঠ্যবই শিখতে যায় না। সেখানে তাদের জীবন শেখানো হয়। তাই শিক্ষকদের কাছ থেকে নৈতিকতা শিখবে, মূল্যবোধ শিখবে। প্রাইভেট-কোচিংয়ের ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করতে হলে শিক্ষকদের বেতন কাঠামো নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। শিশুদের জন্ম নেয় নিষ্পাপ হিসেবে। আমরা তাদের নানা প্রতিযোগিতায় ঠেলে দেই। ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পয়সা দিয়ে কিনে সন্তানের হাতে তুলে দেই। কীভাবে পাশের বন্ধুকে ল্যাং মেরে সামনে এগিয়ে যেতে হবে, আমরা সন্তানদের সেই শিক্ষা দেই। গাইড বই, নোট বই আমরাই কিনে তাদের জাতে তুলে দেই। তারা শিখে যায়, ফল ভালো করতে হলে অমুক শিক্ষকের কাছে কোচিং করতে হবে। এভাবে ঘরে-বাইরে, স্কুলে শিশুদের অনৈতিকতা শেখাই। তাদের ভবিষ্যৎ গড়ার বদলে শৈশবেই তা ধ্বংস করে দেই। 

চ্যালেঞ্জ আছে বলে থেমে থাকা যাবে না। সামনে যত বাধাই আসুক শিশুদের স্বার্থে সব বাধা পেরিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আমরা চাই আমাদের প্রতিটি সন্তান মানুষের মতো মানুষ হোক। তারা শিক্ষায়, জ্ঞানে, মানবিকতার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। কেউ কাউকে ল্যাং মেরে এগিয়ে যাবে না। সবাই সবার পাশে থাকবে, একসাথে এগিয়ে যাবে। তাদের জীবনটা যুদ্ধের না হোক, হোক আনন্দের, সৃষ্টিশীলতার। দেশের ভবিষ্যতটা তো তাদেরই হাতে। তাই তাদের পেছনেই আমাদের সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ করতে হবে।

লেখক: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

/এসএএস/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

৪০ এতিম কন্যার যৌতুকবিহীন বিয়ে
৪০ এতিম কন্যার যৌতুকবিহীন বিয়ে
বিবিধ চেষ্টার পরও পতন থামছে না শেয়ার বাজারে
বিবিধ চেষ্টার পরও পতন থামছে না শেয়ার বাজারে
গৃহবধূর ভিডিও ধারণ করে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের সাবেক নেতা গ্রেফতার
গৃহবধূর ভিডিও ধারণ করে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের সাবেক নেতা গ্রেফতার
৯ ব্যাটারের শূন্য রানে লজ্জার রেকর্ড বাংলাদেশের
৯ ব্যাটারের শূন্য রানে লজ্জার রেকর্ড বাংলাদেশের
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ