অব্যাহত থাক বাংলা ট্রিবিউনের জয়যাত্রা

Send
বিভুরঞ্জন সরকার
প্রকাশিত : ১২:৪১, মে ১৪, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪২, মে ১৪, ২০১৮

বিভুরঞ্জন সরকারদেখতে দেখতে চার বছর পার করে পাঁচ বছরে পা দিলো বাংলা ট্রিবিউনডটকম নামের অনলাইন সংবাদমাধ্যমটি। কম কথা নয়। এই সময়ে আরও অনলাইন পোর্টাল হয়তো বের হয়েছে কিন্তু হয় সেগুলো পাঠকপ্রিয়তা পায়নি, নয়তো অব্যবস্থাপনা বা অন্য কোনও কারণে অকাল মৃত্যু ঘটেছে। বাংলা ট্রিবিউন টিকে আছে, নিয়মিত প্রকাশনা অব্যাহত আছে এবং ক্রমশই এর পাঠকসংখ্যা বাড়ছে বলে আমার ধারণা। আমি বাংলা ট্রিবিউনে লিখছি বছর দুয়েক হলো। ভালো লাগে বলেই লিখি।
নিউজ ছাড়াও আরও নানা বিষয়ভিত্তিক বিভাগ আছে এর। যার যে বিষয়ে আগ্রহ, তিনি নিশ্চয়ই সেটাতেই চোখ বোলান। গণমাধ্যমগুলো এখন এক ধরনের প্রতিযোগিতার মধ্যে পড়েছে। কার আগে কে পাঠককে কোন খবর দিতে পারবে, তার প্রতিযোগিতা। এই প্রতিযোগিতা সব সময় সুস্থ থাকে না। আগে খবর দিতে গিয়ে কখনও কখনও ভুল বা সঠিক তথ্যনির্ভর নয়, এমন খবরও পরিবেশিত হয়। বাংলা ট্রিবিউন এই কাজটি করে না। যাচাই-বাছাই না করে বাংলা ট্রিবিউন কোনও কিছু প্রকাশ করে না বলেই আমার বিশ্বাস।

গণমাধ্যমের কাজ হলো মানুষের কাছে দ্রুত কিন্তু সঠিক তথ্য পৌঁছে দেওয়া। জনমত গড়ে তোলা ও মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টিতে গণমাধ্যম সবসময় বড় ভূমিকা পালন করে। সেজন্যই গণমাধ্যমের দায়িত্ববান হওয়ার প্রশ্নটি এত গুরুত্বপূর্ণ। অসত্য, বিকৃত, উত্তেজক খবর পরিবেশন করে সস্তা বাহবা পাওয়ার নেশা যে বাংলা ট্রিবিউনের নেই সেজন্য তাদের ধন্যবাদ জানাতেই হবে।

আমার নিজের আগ্রহ হালনাগাদ খবর ও অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের প্রতি। আমি ফলোআপ রিপোর্টও নিয়মিত দেখতে চাই। আমাদের দেশে প্রায়ই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে। তা নিয়ে দিন কয়েক মিডিয়ায় মাতামাতি থাকে, তারপর সেটা হারিয়ে যায়। এটা হওয়া উচিত নয়। বিতর্কিত ইস্যু নিয়ে এমন গঠনমূলক আলোচনা চাই, যা পাঠকদের সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়ক হতে পারে। বিষয়-বিশেষজ্ঞদের অভিমতও চাই সংশ্লিষ্ট খবরের সঙ্গে।

রাজনীতিতে আমার আগ্রহ বেশি। আমি নিজে রাজনৈতিক বিষয়েই মূলত লিখে থাকি। রাজনৈতিক নেতাদের বক্তৃতা-বিবৃতি সম্পর্কে তাৎক্ষণিক ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও অভিমত প্রকাশের ব্যবস্থা থাকলে আমার ভালো লাগবে। 

মনে রাখতে হবে যে আমাদের মধ্যে এখন বিশ্বাসের সংকট চলছে। আমরা সহজে কিছু বিশ্বাস করতে চাই না। সবকিছুতেই সন্দেহ-সংশয়। গণমাধ্যমই পারে প্রকৃত তথ্য উপস্থাপন করে মানুষের মন থেকে সন্দেহ-সংশয় দূর করে আস্থার মনোভাব ফিরিয়ে আনতে।

আমার সব চাহিদা বা আকাঙ্ক্ষা বাংলা ট্রিবিউন রাতারাতি পূরণ করতে পারবে, তা আমি আশা করি না। লকলক করে বড় হওয়া গাছ নাকি ঝড়ে টেকে না। আমি তাই ধীরেসুস্থে শক্তপোক্ত হয়ে বেড়ে ওঠা গণমাধ্যম প্রত্যাশা করি।

গণমাধ্যম ও গণমাধ্যম কর্মীদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে নানা কারণে নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হচ্ছে। সাংবাদিক শব্দটি যখন বিকৃতভাবে সাংঘাতিক বলে উচ্চারিত হয়, তখন লজ্জাবোধ করি। পেশার মর্যাদা রক্ষার দায়িত্ব পালনেও বাংলা ট্রিবিউন ভূমিকা রাখুক, এটাও আমার একটি চাওয়া।

চাওয়ার পরিমাণ বেশি হলে আগাম ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। বাংলা ট্রিবিউন আমাদের গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধ ও বাঙালি চেতনাবিরোধী কোনও শক্তির সঙ্গে আপস না করে জয়যাত্রা অব্যাহত রাখবে, এই কামনা করে  সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানাই।  

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাংলা ট্রিবিউনকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

লেখক: কলামিস্ট

/এসএএস/এমওএফ/এমএনএইচ/

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব।

লাইভ

টপ