X
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
২০ আষাঢ় ১৪২৯

৫ বছরেও জন্মায়নি শিশু, এক বিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থী

আপডেট : ১৭ মে ২০২২, ১৬:৪৬

ডুমুরিয়া উপজেলার ময়নাপুর গ্রামে ২৯টি পরিবারের বসবাস। গ্রামের বাসিন্দাদের শিশু সন্তানদের পড়াশোনার সুবিধায় ১৯৯১ সালে গড়ে ওঠে ময়নাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্কুলটি ২০১০ সালে নিবন্ধিত হয়। ২০১৩ সালে হয় সরকারিকরণ। কিন্তু গত পাঁচ বছর গ্রামে কোনও শিশুর জন্ম হয়নি। বর্তমানে স্কুলটির দ্বিতীয় শ্রেণিতে রয়েছে মাত্র একজন শিক্ষার্থী। তবে প্রতিষ্ঠানটিতে একজন শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন তিন শিক্ষক। এছাড়া উপজেলার আরও ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫০ জনের নিচে বলে জানা গেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ডুমুরিয়া উপজেলার ২১৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে আগের ১১০টির সঙ্গে নতুন জাতীয়করণকৃত ১০৪টি বিদ্যালয়ে ২২ হাজার ৬১৭ জন ছাত্র-ছাত্রী আছে। এর মধ্যে ২১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫০ জনের নিচে। এর মধ্যে ময়নাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে মাত্র একজন শিক্ষার্থী।

ময়নাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক স্বপ্না রানী বলেন, ২৯টি পরিবার নিয়ে আমাদের ময়নাপুর গ্রাম। গত পাঁচ বছর গ্রামে কােনও শিশু জন্ম নেয়নি। এতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়েনি। 

ধীরে ধীরে স্কুলটির শিক্ষার্থী কমে এসেছে জানিয়ে ময়নাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক তাপস কুমার মণ্ডল বলেন, ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠার সময় এ স্কুলে ১১৫ জন শিক্ষার্থী ছিল। তখন এ গ্রামে ৪১টি পরিবার ছিল। ২০১০ সালে নিবন্ধিত হওয়ার পর শিক্ষার্থী ছিল ৬৫। তখন এ গ্রামে মাত্র ২৯টি পরিবারে বসবাস ছিল। বাকি ১২টি পরিবার গ্রাম ত্যাগ করে অন্যত্র চলে যায়। ২০১৩ সালে সরকারিকরণের পর শিক্ষার্থী ৫০-এর নিচে নেমে আসে। এরপর থেকে শিশু না জন্মের কারণে স্কুলে শিক্ষার্থী কমতে থাকে। এ বছর স্কুলে ভর্তি হওয়ার মতো ছয়টি শিশু ছিল। কিন্তু পাঁচ জনের জন্ম নিবন্ধন সনদ নেই। এ কারণে তারা ভর্তি হতে পারেনি। ফলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে ওই একজন ছাত্রই রয়েছে।

ডুমুরিয়া উপজেলার ময়নাপুর ক্লাস্টারের পরিবার পরিকল্পনা মাঠকর্মী সাদিয়া আক্তার শোভা বলেন, ময়নাপুর গ্রামে ২৯টি পরিবার রয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে এ গ্রামে শিশু জন্মের হার খুবই কম। ২০১৯ সালে দুটি, ২০২০ সালে একটি, ২০২১ সালে একটি ও ২০২২ সালে একটি শিশুর জন্ম হয়। ফলে এ গ্রামে শিশুর সংখ্যা খুবই কম। গ্রামে জনবসতি কম ও পরিবার প্রতি সন্তান থাকায় নতুন শিশু নেওয়ায় কম আগ্রহের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। 

এদিকে শিক্ষার্থী কমে আসায় ময়নাপুর স্কুলটি বন্ধ করে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। ডুমুরিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিকদার আতিকুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থী সার্ভের পর গত মার্চ মাস ময়নাপুর স্কুলটি বন্ধের জন্য জেলা শিক্ষা অফিসে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখনও সিদ্ধান্ত আসেনি। 

খুলনা জেলা শিক্ষা অফিসার মাে. সিরাজুদ্দােহা বলেন, ওই স্কুলটি বন্ধ করে সেখানকার শিক্ষকদের অন্যত্র বদলির জন্য ঢাকায় লিখেছি। সিদ্ধান্ত বা নির্দেশনা পেলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ময়নাপুর স্কুল ছাড়াও উপজেলার আরও ২০টি স্কুলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫০ এরও নিচে রয়েছে। এরমধ্যে আরবিডি স.প্র.বিদ্যালয়ে ৪৫ শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন চার জন শিক্ষক। ৬ নম্বর মাগুরাঘানা ইউনিয়ন কুড়ঘাটা স.প্র.বিদ্যালয়েও ৪৫ শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন চার জন শিক্ষক। ৭ নম্বর শােভনা ইউনিয়ন পল্লীশ্রী স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক রয়েছেন চার জন এবং শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছেন ৪১ জন। 

খাররাবাদ স.প্র.বিদ্যালয়ে ৪২ শিক্ষার্থীর বিপরীতে শিক্ষক চার, বলাবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে ৪৬ শিক্ষার্থীকে পড়ান চার জন শিক্ষক। ৮ নম্বর শরাফপুর ইউনিয়ন জালিয়াখালী চাঁদগড় স.প্র.বিদ্যালয়ের চার শিক্ষক পড়ান ৪২ শিক্ষার্থীকে। ৯ নম্বর সাহস ইউনিয়ন লতাবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে ২৫ শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন চার শিক্ষক, চরচরিয়া নারায়ণ চন্দ্র স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক পাঁচ জন, শিক্ষার্থী ৪০। ১০ নম্বর ভান্ডারপাড়া ইউনিয়ন খড়িবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক ৩৪ শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন চার শিক্ষক। ধানিবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে ৩৭ শিক্ষার্থীর বিপরীতে রয়েছেন চার শিক্ষক।

এছাড়া তালতলা কুশারহুলা স.প্র.বিদ্যালয়ে চার শিক্ষক পড়াচ্ছেন ৩২ শিক্ষার্থীকে, বকুলতলা ধানিবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষক পড়ান ৪২ শিক্ষার্থীকে, লাহাইডাঙ্গা স.প্র.বিদ্যালয়ে চার শিক্ষকের বিপরীতে রয়েছেন ৪৩ শিক্ষার্থী ও জাবড়া ওড়াবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে পাঁচ শিক্ষক পড়ান ৩৮ শিক্ষার্থীকে। ১২ নম্বর রংপুর ইউনিয়ন সাড়াভিটা নরেদ্রনাথ স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক রয়েছেন চার জন, শিক্ষার্থী ৪৫। ১৪ নম্বর মাগুরখালি ইউনিয়ন কাড়াকাটা শুকুরমারী স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক চার, শিক্ষার্থী রয়েছে ৩৯, বাগারদাইড় স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক চার, শিক্ষার্থী ৪৩। কপুকুরিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক চার, শিক্ষাথী ৩৬। লাঙ্গলমাড়া খাগড়াবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক চার, শিক্ষার্থী ৪৬ ও পূর্ব পাতিবুনিয়া স.প্র.বিদ্যালয়ে শিক্ষক চার এবং শিক্ষার্থী রয়েছেন ৩৭ জন।
  

/টিটি/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
হাটে উঠছে ‘টাঙ্গাইলের সম্রাট’, ওজন ৩০ মণ
হাটে উঠছে ‘টাঙ্গাইলের সম্রাট’, ওজন ৩০ মণ
‘আমাদের জন্য শিরোপা কঠিন হয়ে গেলো’
‘আমাদের জন্য শিরোপা কঠিন হয়ে গেলো’
বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা
বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা
ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনায় একজনের মৃত্যু
ময়মনসিংহ মেডিক্যালে করোনায় একজনের মৃত্যু
এ বিভাগের সর্বশেষ
সড়কে গাছ ফেলে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ২
সড়কে গাছ ফেলে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ২
নড়াইলে অধ্যক্ষকে লাঞ্ছনা: তিন দিনের রিমান্ডে ৪ জন
নড়াইলে অধ্যক্ষকে লাঞ্ছনা: তিন দিনের রিমান্ডে ৪ জন
ঘের থেকে উঠছে গ্যাস, চলছে রান্না
ঘের থেকে উঠছে গ্যাস, চলছে রান্না
নড়াইল সদর থানার ওসি প্রত্যাহার
নড়াইল সদর থানার ওসি প্রত্যাহার
নড়াইলে অধ্যক্ষকে লাঞ্ছনা: জেলা প্রশাসনের তদন্ত প্রতিবেদন জমা
নড়াইলে অধ্যক্ষকে লাঞ্ছনা: জেলা প্রশাসনের তদন্ত প্রতিবেদন জমা