আশুলিয়ায় বিজিবি মোতায়েন, ১২০ শ্রমিক বরখাস্ত

Send
নাদিম হোসেন, সাভার
প্রকাশিত : ১৬:২৫, ডিসেম্বর ২১, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২৫, ডিসেম্বর ২১, ২০১৬

আশুলিয়ায় বিজিবি মোতায়েনবাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র ঘোষণা অনুযায়ী সাভারের আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে ৫৫টিরও বেশি পোশাক কারখানা বুধবার (২১ ডিসেম্বর) সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে। কারখানাগুলোর প্রধান গেটের সামনে অনির্দিষ্টকালের বন্ধের নোটিশ ঝুলিয়ে দিয়েছে কারখানার মালিকপক্ষ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর দশ প্লাটুন সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে।

এদিকে আশুলিয়ার উইন্ডি গ্রুপের পোশাক কারখানার ১২০ শ্রমিককে বরখাস্ত করেছে মালিকপক্ষ। বুধবার সকালে কারখানার মূল ফটকের সামনে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের বিষয়ে নোটিশ ঝুলিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। টানা ১০ দিন ধরে শ্রমিক অসন্তোষ ও ভাঙচুরের ঘটনায় আশুলিয়া থানায় কারখানার শ্রমিক জীবন মিয়া,আসাদুজ্জামান, হাফিজুর রহমান, সুরুজ মিয়া, সুলতানা আক্তারসহ ২০ জনের নাম উল্লেখ করে এবং শতাধিক শ্রমিককে অজ্ঞাত আসামি করে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। কারখানার প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও শিল্প পুলিশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।কারখানা বন্ধের নোটিশ

সকাল থেকে আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কে দূরপাল্লার ও আঞ্চলিক গণপরিবহণ চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল। একমাত্র রিকশা ও মাহেন্দ্র চলাচল করছে। চরম দুর্ভোগ আর ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে সাধারণ যাত্রীদের। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শিল্প পুলিশ, জেলা পুলিশ, দাঙ্গা পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি’র সঙ্গে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীকে সড়কে মহড়া দিতে দেখা গেছে।

এর আগে মঙ্গলবার (২০ ডিসেম্বর) বিকালে রাজধানীর কাওরান বাজারে বিজিএমইএ -এর সভাকক্ষে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান তার মালিকানাধীন স্টার্লিং অ্যাপারেলস,  স্টার্লিং  ক্রিয়েশন, স্টার্লিং স্টাইল ও বান্দ ডিজাইনসহ বিভিন্ন মালিকের ৫৫টি পোশাক কারখানা শ্রম আইনের ১৩(১) ধারা অনুযায়ী অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের ঘোষণা দেন।ঘোষণা অনুযায়ী মালিকপক্ষ আশুলিয়ার এসব কারখানার  প্রধান গেটে অনির্দিষ্টকালের বন্ধের নোটিশ ঝুলিয়ে দেয়। বন্ধকালীন শ্রমিকরা বেতনভাতা পাবেন না বলেও সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়।

এছাড়া ঢাকা জেলা পুলিশের ব্যবস্থাপনায় আশুলিয়ার সব স্থানে খোলা জিপে করে শ্রমিকদের উদ্দেশে কারখানায় ও কারখানার গেটের সামনে যেতে নিষেধাজ্ঞা প্রচার করা হয়।পুলিশের টহল

সাভার ও আশুলিয়া এলাকায় প্রায় ছয় শতাধিক পোশাক কারখানা রয়েছে।  শ্রমিকরা অনেকে কারখানার সামনে যাওয়ার চেষ্টা করলেও তাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় বলে শ্রমিকরা অভিযোগ করেছেন। বুধবার সকাল থেকে আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কে কোনও গণপরিবহন চলাচল না করায়, বেশির ভাগ শ্রমিক  কারখানায় কাজে যোগদান করতে পারেননি। বাইপাইল এলাকায় পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে কোনও যানবাহন ওই সড়কটিতে ঢুকতে দেয়নি।

এদিকে সকাল থেকে আওয়ামী লীগের ইয়ারপুর ইউনিয়ন শাখার সাধারণ সম্পাদক শাহেদ মজিবুর রহমান, থানা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আরিফ মাদবর, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন ভূঁইয়ার নেতৃত্বে দলীয় নেতা-কর্মীদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি রাস্তায় টহল দিতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক শ্রমিকরা জানান, বর্তমান ঊর্ধ্বমুখী বাজারদরের কারণে ও বাড়িভাড়া বৃদ্ধিসহ অন্যান্য খরচ চালাতে মজুরি কাঠামো রিভিউ এর দাবি তুলেছেন তারা। ন্যূনতম বেতন ১৫ হাজার টাকাসহ ১৬ দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। এ মাসের ১২ ডিসেম্বর থেকে ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ আন্দোলন চলে।বরখাস্ত হওয়া শ্রমিকদের নাম

শ্রমিকরা আরও জানান, তাদের সঙ্গে কোনও আলোচনা ছাড়াই বিজিএমইএ বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধের ঘোষণা দেয়। এর ফলে শ্রমিকদের দুর্দশা আরও বাড়বে। অবিলম্বে শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি মেনে নিয়ে কারখানা খুলে দেওয়ার আহ্বান জানান শ্রমিকরা। মঙ্গলবার সকালে শ্রমিকদের আন্দোলন দমাতে পুলিশ টিয়ারশেল,লাঠিচার্জ ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে বলে এর নিন্দা জানান তারা।

এদিকে ঘোষিত ৫৫টি পোশাক কারখানা ছাড়াও অনেক পোশাক কারখানায় শ্রমিকরা সকাল থেকে কর্মবিরতি পালন করেছে বলেও জানা গেছে। পাশাপাশি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণার পরপরই সকাল থেকে আশুলিয়ার বিভিন্ন বাস স্টপেজে ঈদের মতো গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার হিড়িক পড়েছে শ্রমিকদের।

বন্ধ কারখানাগুলো হলো- হামীম গ্রুপ,শারমিন গ্রুপ, মেডলার অ্যাপারেলস, সোনিয়া অ্যাপারেলস, নাসা গ্রুপ, জনরন, নিট এশিয়া, ডেকো ডিজাইন, নেক্সট কালেকশন, সিন সিন অ্যাপারেলস, নেক্সট জেনারেশন, সিগমা অ্যাপারেলস, রেজা গ্রুপ, ডেবনিয়ার গ্রুপ, দি রোজ ড্রেসেস লি., ডিকে গ্রুপ, আইডিএস গ্রুপ, ফ্যাশন ফোরাম, সা’দাতিয়া, ওশান অ্যান্ড ডিজাইন, জিন্স ডিজাইনার, এনভয় গ্রুপ, উইন্ডি গ্রুপ, হলিউড ফ্যাশন, এএম ডিজাইন, সেড ফ্যাশন, সেতারা গ্রুপ, স্টার্লিং অ্যাপারেলস, স্টার্লিং স্টাইল, স্টার্লিং ক্রিয়েশন, মানারাত অ্যাপারেলস, ফাউন্টেন, আনজির অ্যাপারেলস, স্কাইলেন, শাহরিয়ার, পলমল গ্রুপ, মদিনাপেল, হিয়ন, লিন্ডা, হার্ভার্ড, সুসুকা, ওশান গেট, ডংলিয়ন, বার্ডস, মাচিহাতা, নাসির গ্রুপ, আনজির-২, সফটেক্স, জাপান বাংলা, নালিজা, গ্রিন লাইফ, ন্যাচারাল ডেনিমস, তুরাগ, পাল গার্মেন্টস, ম্যাগপাই, ট্রাউজার জিন্স, ওপেক্স, নর্দার্ন, মাসকট, সাউদার্ন, এসিও, টেক্সটাউন, অনুরিমা, আনজির-৪, অনন্ত অ্যাপারেলস লি.।পুলিশের টহল

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, ‘শ্রমিকরা বেতন বৃদ্ধিসহ কয়েকদফা দাবিতে আন্দোলন করছে। তবে আজ  (বুধবার) আশুলিয়ার কোথাও কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। কারখানা এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ, ১০ প্লাটন বিজিবিসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিয়োজিত রয়েছেন।’

এদিকে শ্রমিক ও পুলিশ সূত্র জানায়, আশুলিয়ার জামগড়া এলাকার উইন্ডি গ্রুপের পোশাক কারখানায় গত ১২ ডিসেম্বর থেকে মজুরি বৃদ্ধিসহ ১৬ দফা দাবিতে শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালন শুরু করেন। টানা কয়েকদিন কর্মবিরতির পর শ্রমিকরা কারখানার ভেতরে বিক্ষোভ করতে থাকেন। এসময় পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটলে তারা উত্তেজিত হয়ে ওই কারখানায় ভাঙচুর চালান।

কারখানার ভেতরে ভাঙচুর, অন্যায়ভাবে বেতন বৃদ্ধির দাবি ও শৃঙ্খলা ভঙের অভিযোগে কারখানার ১২০ শ্রমিককে বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ। কারখানার মূল ফটকের সামনে ছাঁটাইকৃত শ্রমিকদের তালিকা দিয়ে অনির্দিষ্টকালের বন্ধের ঘোষণাও  দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে উইন্ডি গ্রুপের প্রশাসনিক কর্মকর্তা একেএম ফজলুল হক বলেন, ‘শ্রমিকরা অন্যায়ভাবে মজুরি বৃদ্ধির আন্দোলন করে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছে। এছাড়াও কারখানার ভেতরে ভাঙচুরের অভিযোগে তাদেরকে বরখাস্ত করা হয়েছে।’ এ ঘটনায় ওই কারখানার সহকারী মহাব্যবস্থাপক মাসুদ বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় ২০ জনের নাম উল্লেখ করে মামলাটি দায়ের করেন।

এ প্রসঙ্গে আশুলিয়া শিল্প পুলিশের পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান শ্রমিক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘যেকোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে কারখানাগুলোর সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসিনুল কাদির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘২০ জনের নাম উল্লেখসহ আরও অজ্ঞাত শতাধিক শ্রমিকের  নামে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

আরও পড়ুন- 


বর্ষবরণে শ্লীলতাহানি: কোনও ভিকটিমের বক্তব্য পায়নি পিবিআই

/এফএস/  এপিএইচ/

লাইভ

টপ