খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিতে গিয়ে আইনজীবীকে হত্যা

Send
নিজেস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
প্রকাশিত : ১৪:৫৯, নভেম্বর ২৮, ২০১৭ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৫, নভেম্বর ২৮, ২০১৭

কাবিননামার টাকা দুই লাখ থেকে বাড়িয়ে ১০ লাখ করার দাবি না মানায় তরুণ আইনজীবী ওমর ফারুক বাপ্পিকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তার সন্দেহভাজন খুনিদের গ্রেফতারের পর সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে পিবিআই কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চট্টগ্রাম মেট্রোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন। 

তিনি বলেন, ‘রবিবার রাত ও সোমবার সকালে অভিযান চালিয়ে আমরা আইনজীবী ওমর ফারুক বাপ্পির কথিত স্ত্রী রাশেদা বেগমসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার ছয় আসামি হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে তারা জানিয়েছেন, আইনজীবী ওমর ফারুক বাপ্পিকে হত্যার কোনও পরিকল্পনা তাদের ছিল না। বাপ্পি তার স্ত্রী রাশেদা বেগমকে দুই লাখ টাকা কাবিননামায় বিয়ে করেন। পরবর্তীতে তাকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করায় সেই টাকা দুই লাখ থেকে বাড়িয়ে ৫-১০ লাখ টাকা করার পরিকল্পনা করেন রাশেদা বেগম। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বন্ধু হুমায়ুনের মাধ্যমে চার যুবককে ভাড়া করেন রাশেদা। পরিকল্পনা অনুযায়ী শুক্রবার রাতে খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিতে গিয়ে রাশেদা বেগম ওই পাঁচ যুবকের সহযোগিতায় আইনজীবী ওমর ফারুক বাপ্পিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কাল (২৮ নভেম্বর) তাদেরকে আদালতে তুলে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করবো। রিমান্ডে নিয়ে এই ঘটনার সঙ্গে আরও কেউ জড়িত ছিল কিনা তা জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

শনিবার (২৫ নভেম্বর) সকালে নগরীর চকবাজার থানাধীন কেবি আমান আলী সড়কের একটি ভাড়া বাসা থেকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় আইনজীবী ওমর ফারুক বাপ্পির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন বাড়ির কেয়ারটেকার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, গত মঙ্গলবার এক মহিলা তার স্বামীসহ থাকবেন বলে বাসা ভাড়া নেন। ডিসেম্বর মাসের এক তারিখ থেকে থাকার কথা থাকলেও বাসাটি ফাঁকা থাকায় ওই মহিলা গত বুধবার থেকে ওই বাসায় ওঠেন। শুক্রবার রাতে ওই বাসায় থাকতে যান বাপ্পি। ওই রাতেই বাপ্পিকে হত্যা করা হয়।

পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন আরও বলেন, লাশ উদ্ধারের পর ওই দিনই তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় পিবিআইকে। ঘটনা তদন্তে পিবিআই সদস্যরা জানতে পারেন বাসাটি নিহত আইনজীবীর কথিত স্ত্রী রাশেদা বেগম ভাড়া নেন। এরপর গত দুই দিন টানা অভিযান চালিয়ে রাশেদা বেগমসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতার ছয়জন হলেন, আইনজীবীর কথিত স্ত্রী রাশেদা বেগম (২৭), তার বন্ধু হুমায়ুন রশিদ (২৮) এবং হুমায়ুনের সহযোগী আল আমিন (২৮), মো. পারভেজ ওরফে আলী (২৪), আকবর হোসেন ওরফে রুবেল (২৩) ও জাকির হোসেন ওরফে  মোল্লা জাকির (৩৫)।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (পিবিআই) সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, হত্যাকান্ডের সঙ্গে আইনজীবীর কথিত স্ত্রী রাশেদা বেগমের সম্পৃক্ততা আছে নিশ্চিত হওয়ার পর আমরা তাকে ধরতে অভিযান শুরু করি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাতে কুমিল্লা জেলার মিয়াবাজার এলাকা থেকে প্রথমে রাশেদা বেগম ও তার বন্ধু হুমায়ুন রশিদকে গ্রেফতার করি। পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার সকালে নগরীর ইপিজেড এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপর চারজনকে গ্রেফতার করি। গ্রেফতার ছয় আসামি আইনজীবী হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন বলে জানায়। 

আরও পড়ুন: দুর্নীতির অভিযোগে পুটিখালী ইউপি চেয়ারম্যানকে অপসারণ


/জেবি/

লাইভ

টপ