নিখোঁজের ৪ দিন পর শিক্ষার্থীর হাত-মুখ বাঁধা লাশ উদ্ধার

Send
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৯:০৬, অক্টোবর ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৪, অক্টোবর ২০, ২০১৯

মমতাজ আক্তার জিম্মিকুড়িগ্রামের রৌমারীতে নিখোঁজের চার দিন পর মমতাজ আক্তার জিম্মি (১৪) নামে অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর হাত-মুখ বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (১৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় উপজেলার চর শৌলমারী ইউনিয়নের ঘুঘুমারির চরের একটি কাশবন থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু মো. দিলওয়ার হাসান ইনাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

জিম্মি চর শৌলমারী ইউনিয়নের শাহ আলম  মোল্লার মেয়ে। তার মা মারা যাওয়ার পর থেকে একই ইউনিয়নে সুখের চর গ্রামে নানার বাড়িতে থাকতো সে।

জিম্মি মামা সিরাজুল ইসলাম বাবু জানান, তার ভাগনি চরশৌলমারী ইউনিয়নের পাখিউড়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। ১৬ অক্টোবর পরীক্ষা দিয়ে আর বাড়িতে ফেরেনি সে। অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে রৌমারী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। শনিবার (১৯ অক্টোবর) বিকালে বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার পূর্ব দিকে সুখের চর গ্রামের একটি কাশবনের কাছে তার বই ও স্যান্ডেল পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় কিছু ছেলেমেয়ে। তারা বাড়িতে খবর দিলে স্থানীয়রা মিলে পুরো কাশবন তল্লাশি করে ওড়না দিয়ে হাত ও মুখ বাঁধা অবস্থায় লাশ পাওয়া যায়। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, ‘জিম্মিকে কে বা কারা  কেন এমন করে হত্যা করেছে তা ঠিক বুঝতে পারছি না। ওর মা মারা যাওয়ার পর থেকে আমাদের কাছে থেকেই পড়াশোনা করতো। যেই তার হত্যাকারী হোক, আমরা চাই তাকে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেওয়া হোক।’

রৌমারী থানার ওসি জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। মরদেহের গলায় ওড়না পেঁচানো ও দু’হাত বাঁধা ছিল। প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে মেয়েটিকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। তবে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে কিনা, তা ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন না পেলে বলা সম্ভব নয়।

 

/এসটি/

লাইভ

টপ